করোনা মোকাবেলায় এক মাসের বেতন দিলেন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীসহ মন্ত্রণালয়ের সকল কর্মকতা ও কর্মচারি

নিজস্ব প্রতিবেদক : এই ভাইরাস মোকাবেলার জন্য বাংলাদেশে এখন সাধারণ ছুটি চলছে। ফলে খেটে খাওয়া মানুষ সবচেয়ে বিপাকে পড়েছে। এমন পরিস্থিতিতে যে যেভাবে পারছেন সামর্থ্য মতো অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। এবার যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল করোনা মোকাবেলায় তার এক মাসের বেতন দিলেন প্রধানমন্ত্রীর ত্রান তহবিলে।
বুধবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে নিজের পেইজে চেক প্রদানের ছবি আপলোড করে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী লিখেছেন, করোনাভাইরাস মোকাবেলায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় ও বিভিন্ন দপ্তর/সংস্থা এর সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের এক দিনের বেতন ও আমার এক মাসের বেতন প্রদান করছি। এ উপলক্ষে বুধবার গণভবন থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সে অংশ নেন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস অনুদানের চেক গ্রহণ করেন।

বাগেরহাটে থার্মাল স্ক্যানার দিলেন জাতীয় দলের ক্রিকেটার রুবেল হোসেন

স্পোর্টস ডেস্ক : করোনাভাইরাস মোকাবেলায় এবার বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটার রুবেল হোসেনও এগিয়ে এসেছেন দুস্থ মানুষদের সহায়তার জন্য। বাগেরহাটে শরীরের তাপমাত্রা নির্ণয়ের যন্ত্র থার্মাল স্ক্যানার দিলেন এই ক্রিকেটার। বুধবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে রুবেল নিজেই বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
রুবেল হোসেন লিখেছেন, আপনারা জানেন কিছুদিন আগে আমাদের বাগেরহাটের সংসদ সদস্য শেখ তন্ময় ভাই, যে একটি উদ্যোগ নিয়েছেন। ডক্টরের কাছে রোগী নয় রোগীর কাছে ডক্টর, যে মেডিকেল টিম গঠন করেছেন বাগেরহাটে। তা বাংলাদেশে ব্যাপকভাবে সাড়া দিয়েছে। তার যে এই চিন্তা শক্তি মেইনলি ওটা থেকে আমি অনুপ্রাণিত হয়েছি এবং তার সাথে আলোচনা করে কিছু ভাল পরামর্শ পেয়েছি। যেহেতু আমি বাগেরহাটের সন্তান আমার নিজ দায়িত্ব থেকে এবং মানবতার বিষয়টি বিবেচনা করে আমি এই সিদ্ধান্তটি নিয়েছি।
আজ করোনাভাইরাস শুধু বাংলাদেশে নয়, সারাবিশ্ব এটা নিয়ে চিন্তিত। এই জীবন যুদ্ধে জিততে হলে চিকিৎসার যে ফর্মুলা সেটা আবিষ্কারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তারপরও লাখ লাখ মানুষের জীবন যাচ্ছে কিন্তু কিছু সাবধানতা পারে আমাদের এই জীবনটাকে নিরাপদ রাখতে।’
রুবেল আরো লিখেছেন, আমরাই পারি আমাদের বাঁচাতে। তারই অংশ হিসেবে যে শরীরের জ্বর তাপমাত্রা কতটুকু আছে স্বাভাবিক পর্যায়ে থেকে অস্বাভাবিক পর্যায়ে গেলে যাতে আমরা সহজে অনুমান করতে পারবো। আর এই লক্ষণ নির্ধারণ করার জন্যই আসলে আমার মাথায় আসলো যে এতদিন তো খাবার দিলাম আর যেহেতু এখন এটা পুরো বাংলাদেশে দিন দিন বেড়েই চলেছে তাই আমার কাছে মনে হল ইনফ্রারেড থার্মাল স্ক্যানার দিয়ে একটু সহযোগিতা করি। এতে করে শরীরের স্বাভাবিক তাপমাত্রা এটা নির্ণয় করা যায় আর নির্ণয় করলেই সবাই যে একটু দুশ্চিন্তায় আছেন একটু হলেও মুক্তি পাওয়া যায়। আর এই ভাবেই আসলে সবাই সচেতন থাকতে পারবো। আজ নিজে বাঁচলে বাংলাদেশ বাঁচবে। তাই আসুন আমরা যে যার জায়গা থেকে এগিয়ে আসি। ইনশাআল্লাহ খুব শিগগিরই আমরা ভয়াবহ এই সংকটময় মুহূর্ত কাটিয়ে উঠতে পারবো। -ফেসবুক থেকে

দলীয় নেতাকর্মীদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর তিন দফা নির্দেশনা

ডেস্ক রিপাের্ট : বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাস বাংলাদেশেও মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। এই অবস্থায় দলীয় নেতাকর্মীদের প্রতি বিশেষ নির্দেশনা দিয়েছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সারাদেশে ওয়ার্ড পর্যায়ে ত্রাণ কমিটি গঠনসহ এই সংকট মোকাবেলায় তিন দফা নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

বুধবার বিকালে আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডিস্থ রাজনৈতিক কার্যালয়ে উপস্থিত দলের নেতাদের সঙ্গে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হন প্রধানমন্ত্রী।

প্রায় ঘণ্টাব্যাপী এই মতবিনিময়কালে প্রধানমন্ত্রী করোনা সংকট মোকাবেলায় সরকারের গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপ সম্পর্কে আলোচনা করেন এবং বিভিন্ন সাংগঠনিক নির্দেশনা দেন।

আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে প্রধানমন্ত্রীর তিন দফা সাংগঠনিক নির্দেশনার কথা জানানো হয়। সেই নির্দেশনাগুলো হলো-

১. সারাদেশে ওয়ার্ড পর্যায় পর্যন্ত আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীদের সমন্বয়ে ত্রাণ কমিটি গঠন করতে হবে। সকল সাংগঠনিক উপজেলা শাখার নেতৃবৃন্দকে অতিদ্রুত ওয়ার্ড পর্যায় পর্যন্ত আওয়ামী লগের ত্রাণ কমিটি প্রস্তুত করে সংশ্লিষ্ট সাংগঠনিক জেলা শাখায় জমা দিতে হবে। এই ত্রাণ কমিটি ওয়ার্ড পর্যায়ে দল-মত নির্বিশেষে প্রকৃত দরিদ্র, দুস্থ ও অসহায় মানুষের তালিকা প্রস্তুত করবে এবং ওই তালিকা স্থানীয় প্রশাসনকে প্রদান করে সঠিক তালিকা প্রণয়নে সহায়তা ও সমন্বয় করবে। একই সাথে এই কমিটি মানুষের মানবিক সংকটে সার্বিক সহযোগিতা এবং ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমে স্থানীয় প্রশাসনের সাথে সমন্বয় করে সর্বাত্মক সহায়তা প্রদান করবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঘরে ঘরে ত্রাণ পৌঁছে দিতে সহযোগিতা করবে।

২. বর্তমানে ৫০ লাখ হতদরিদ্র, দুস্থ, অসহায় ও কর্মহীন খেটে খাওয়া মানুষকে সরকারিভাবে রেশন কার্ডের আওতাভুক্ত করা হয়েছে এবং করোনা ভাইরাসে সৃষ্ট সংকট মোকাবেলায় আরও ৫০ লাখ মানুষকে রেশন কার্ডের অন্তর্ভুক্তির কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে গঠিত কমিটি দল-মত নির্বিশেষে সমাজের হতদরিদ্র, দুস্থ, অসহায় ও কর্মহীন খেটে খাওয়া মানুষ যাতে অন্তর্ভুক্ত হয় সে ব্যাপারে স্থানীয় প্রশাসনকে সহায়তা প্রদান করবে।

৩. আওয়ামী লীগের এই ত্রাণ কমিটি করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে যথাযথ সরকারি নির্দেশনা পালন, সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য জনগণকে সচেতন করবে এবং মানবিক সংকটে জনগণের পাশে দাঁড়াবে। পাশাপাশি স্থানীয় আওয়ামী লীগের নিজস্ব অর্থায়নে পরিচালিত ত্রাণ কার্যক্রম অব্যাহত রাখবে।

এ বছর আইপিএল হচ্ছে না

স্পোর্টস ডেস্ক : আজ ১৫ এপ্রিল যে আইপিএল শুরু করা যাচ্ছে না, এটা নিশ্চিতই ছিল। অবশেষে, ভারত সরকার যখন দেশব্যাপি লকডাউনের মেয়াদ ৩ মে পর্যন্ত ঘোষণা করলো, তখন ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড বিসিসিআইও অনির্দিষ্টকালের জন্য আইপিএল স্থগিত ঘোষণা করে দিলো। এ বছরের আইপিএল যে আর মাঠে গড়াচ্ছে না, সে সম্ভাবনাও উজ্জ্বল হয়ে গেলো।

২৯ মার্চ শুরু হওয়ার কথা ছিল আইপিএলের তেরোতম আসর। কিন্তু করোনাভাইরাসের তা-বে সারা বিশ্বের মত ভারতেও সমস্ত খেলাধুলা স্থগিত ঘোষণা করা হয়। যার জেরে আইপিএল পিছিয়ে দেয়া হয় ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত। এর মধ্যেই ভারতে ক্রমেই থাবা বড় করতে চলেছে করোনা। প্রতিদিনই বাড়ছে আক্রান্ত এবং মৃত্যুর মিছিল। সে কারণে, ধারণাই ছিল আইপিএল অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত ঘোষণা হতে পারে। শেষ পর্যন্ত সেটাই হলো। – জি নিউজ
প্রথমে ২১ দিনের লকডাউন ঘোষণা করেছিল ভারত সরকার। কিন্তু কোথায় কি, করোনা পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়ে যায়। এরই মধ্যে পশ্চিমবঙ্গসহ বেশ কিছু রাজ্যে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত লকডাউন ঘোষণা করা হয়। সুতরাং, আইপিএলর ভবিষ্যৎও অনিশ্চিত হয়ে পড়ে।

মঙ্গলবার জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেওয়ার সময় ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি জানিয়ে দেন, আগামী ৩মে পর্যন্ত দেশজুড়ে চলবে লকডাউন। ততদিন পর্যন্ত রেল-বিমানসহ সমস্ত পরিসেবা বন্ধ। সুতরাং, বিদেশি তারকাদের আগমন সম্ভব নয়। এমনকি কোনোভাবেই ম্যাচ আয়োজন সম্ভব নয়। সুতরাং, অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত। -কলকাতা টোয়েন্টি ফোর

বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ গাঙ্গুলিও দিন দুয়েক আগে সে ইঙ্গিত দিয়ে রেখেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, ‘পুরো পরিস্থিতির উপর আমরা নজর রাখছি। এই মুহূর্তে কিছু বলা সম্ভব নয়। আর বলার কিছু নেইও। বিমান বন্ধ, অফিস বন্ধ, মানুষ গৃহবন্দি। কেউ কোথাও যেতে পারছে না। মনে হচ্ছে, মে’র অর্ধেক পর্যন্ত এই অবস্থাই থাকবে। ক্রিকেটাররা কিভাবে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গা যাবে? খুব স্বাভাবিকভাবেই বোঝা যাচ্ছে, আইপিএল কেন এখন কোনোরকম স্পোর্টস ইভেন্টই আয়োজন সম্ভব নয়।’

ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড সূত্রে জানা যায়, ৩ মে পর্যন্ত লকডাউন চলবে শোনার পরই অনির্দিষ্টকালের জন্য আইপিএল স্থগিত রাখার কথা ঠিক করেন কর্মকর্তারা। আপাতত কোনও নতুন দিনক্ষণও ঘোষণা করা হচ্ছে না। পরিস্থিতি বুঝেই পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে। -সংবাদ প্রতিদিন

ইরানি খুদে ভক্ত আরাতের ভালোবাসায় সাড়া দিলেন লিওনেল মেসি

স্পোর্টস ডেস্ক : অসাধারণ ফুটবল দক্ষতা দেখিয়ে এরই মধ্যে হয়ে উঠেছেন ইন্টারনেট সেনসেশন। ছয় বছরের আরাত হোসেইনির প্রিয় তারকা লিওনেল মেসি। ইরানের এই খুদে ভক্তের ফুটবল প্রতিভা এবার নজরে পড়েছে বার্সেলোনা তারকার।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক ভিডিওতে দেখা যায়, আরাত হোসেইনি নামের ওই শিশু নিজের ঘরকেই মাঠ বানিয়ে নিয়েছে। গায়ে বার্সেলোনায় মেসির ১০ নম্বর জার্সি।
মেসি তোমাকে ভালোবাসি- বলে শুরু করে একের পর এক বিস্ময়কর দক্ষতার প্রদর্শনী। পায়ে বল নিয়ে নানা কারিকুরি শেষে দুর্দান্ত এক বাইসাইকেল কিকে গোল। গোল দেওয়ার ধরন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর মতো হলেও আরাত শুধুই মেসির ভক্ত।

অল্প সময়েই ভাইরাল হয়ে যায় আরাতের সেই ভিডিও। ইনস্টাগ্রামে তার ফলোয়ার সংখ্যা এখন এক লাফে ৩ মিলিয়নের বেশি। শুধু কি তাই খোদ মেসি আরাতের সেই পোস্টে কমেন্টও করেছেন- “ধন্যবাদ আরাত!! আমি তোমার মধ্যে দারুণ সম্ভাবনা দেখতে পাচ্ছি, দুর্দান্ত! ভালোবাসা!

মেসির মন্তব্যে দারুণ খুশি আরাত জবাবে লিখেছে, আমার ভিডিওতে মন্তব্য করার জন্য লিও মেসি তোমাকে ধন্যবাদ। আরাতের স্বপ্ন একদিন সে বার্সেলোনাতে খেলবে। সে নিজেকে মেসির সঙ্গে তুলনা করে। বড় হয়ে মেসির মতো হতে চায়। তার প্রিয় খেলা ফুটবল হলেও জিমন্যাস্টিক, বাস্কেটবল ও তায়কোয়ান্দোতে দক্ষতা আছে আরাতের। ইনস্টাগ্রাম/ দেশরূপান্তর

ইনস্টাগ্রাম লাইভে সাকিব আল হাসান, বর্তমান দলটাই ২০২৩ বিশ্বকাপের জন্য উপযুক্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক : আইসিসির নিষেধাজ্ঞায় সব ধরনের ক্রিকেটের বাইরে আছেন সাকিব আল হাসান। তবে আগামী অক্টোবরেই শেষ হবে তার নিষেধাজ্ঞা। ২০১৯ বিশ্বকাপে দুর্দান্ত খেলা এই অলরাউন্ডার ২০২৩ বিশ্বকাপে খেলতে পারবেন নিশ্চিতভাবেই। ভারতের অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া আসবে দল হিসেবে ভালো করার স্বপ্ন দেখছেন সাকিব নিজেও।
২০১৯ বিশ্বকাপটা দুর্দান্ত কেটেছে সাকিবের। ইংল্যান্ডের অনুষ্ঠিত আসরে বিশ্বকাপ ইতিহাসে সেরা পারফরম্যান্স দেখান এই তারকা। ৮ ম্যাচে ৬০৬ রানের পাশাপাশি বোলিংয়ে নেন ১২ উইকেট।

তবে দলের পারফরম্যান্স খুব বেশি ভালো হয়নি। বর্তমান যে দল আছে, এই দল নিয়ে অবশ্য পরবর্তী বিশ্বকাপে ভালো কিছুর প্রত্যাশাই করছেন সাকিব।
মঙ্গলবার ইনস্টাগ্রাম লাইভে এসেছিলেন। এক ভক্তের প্রশ্নের জবাবে ২০২৩ বিশ্বকাপ প্রস্তুতি প্রসঙ্গে সাকিব বলেন, ‘খুব বেশি কিছু যে দরকার, তা নয়। আমার কাছে মনে হয় যা দরকার সেটা আছে। এখন যেই দলটা আছে সেখানে মোটামুটি সবই আছে। তবে ক্রিকেটারদের পরিচর্যা অনেক বেশি দরকার। প্রস্তুতিটা ভালো হওয়া দরকার। আমার মনে হয় আমরা খুব ভালো দল হয়েই ২০২৩ বিশ্বকাপ খেলতে যেতে পারব।

করোনার চিকিৎসা কেন্দ্রের প্রধান আক্রান্ত

ডেস্ক রিপাের্ট : করোনা রোগীদের জন্য নির্ধারিত নারায়ণগঞ্জের ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের প্রধান চিকিৎসা তত্ত্বাবধায়ক ও উপপরিচালক (স্বাস্থ্য) করোনাভাইরাসে (কভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে আইসোলেশনে রয়েছেন।

বুধবার দুপুরে আইইডিসিআর থেকে দেয়া রিপোর্টে তিনি কোভিড-১৯ পজিটিভ বলে জানানো হয়েছে। তিনি নিজে গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, গত কয়েক দিন ধরেই তার জ্বর, সর্দি ও কাশিসহ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার উপসর্গগুলো ছিল। ১৩ এপ্রিল আইইডিসিআর এর প্রতিনিধিরা তার নমুনা সংগ্রহ করেন।

আইইডিসিআরের রিপোর্টে করোনা পজিটিভ আসার পর থেকেই তিনি আইসোলেশনে রয়েছেন।

তিনি বলেন, এই হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের একজন চিকিৎসক আক্রান্ত হয়ে আগে থেকেই আইসোলেশনে রয়েছেন। তার সংস্পর্শে আসা ডাক্তার, নার্স ও ওয়ার্ডবয়সহ ১০ জন হোম কোয়ারেন্টিনে আছেন। তাদের টেস্ট করানো হয়েছে। তাদের রিপোর্ট এখনো আসেনি। ধারণা করছি, ওই চিকিৎসকের সংস্পর্শে গিয়েই আমি আক্রান্ত হয়েছি। আজ থেকে শ্বাসকষ্ট অনুভব করছি। আইসোলেশনে থেকেও ফোনে সব কাজ করে যাচ্ছি।

প্রসঙ্গত এর আগে নারায়ণগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জন ও জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সদস্যসচিব মোহাম্মদ ইমতিয়াজ, সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ও করোনা প্রতিরোধ কমিটির ফোকাল পারসন ডা. জাহিদুল ইসলাম সহ বেশ কয়েকজন ডাক্তার, নার্স, ওয়ার্ড বয় ও অ্যাম্বুলেন্স চালক করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আইসোলেশনে রয়েছেন। তাদের সংস্পর্শে এসে আরও ডজন খানেক চিকিৎসাকর্মী কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন।

‘অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কার মতো পাকিস্তানেও ম্যাচ ফিক্সারদের জন্য কঠিন শাস্তি চালু হবে’

স্পোর্টস ডেস্ক : ক্রিকেট নিয়ে যারা ফিক্সিং করবে, তাদের বিরুদ্ধে কঠিন শাস্তি চালু করার কথা ভাবছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) চেয়ারম্যান এহসান মানি। তিনি বলেছেন, ফিক্সারদের অপরাধী হিসেবে গণ্য করে নতুন আইন পাশের জন্য সরকারের সঙ্গে কথা বলেছেন।
বিশ্বের অনেক দেশেই ম্যাচ ফিক্সিংকে ক্রিমিনাল অফেন্স হিসেবে ধরা হয়। পাকিস্তানেও এ আইন চালু করার পক্ষে দেশটির ক্রিকেট বোর্ড। যার প্রক্রিয়াও শুরু হয়ে গেছে বলে জানালেন পিসিবি চেয়ারম্যান।
এহসান মানি বলেন, আমি এরই মধ্যে সরকারের সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বলেছি। কারণ অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, শ্রীলঙ্কার মতো দেশগুলোতে ম্যাচ ফিক্সিংকে গুরুতর অপরাধ হিসেবেই ধরা হয়। আমরা তাদের প্রক্রিয়াটা ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ এবং আমরাও চাই ক্রিকেটে দুর্নীতিকে ক্রিমিনাল অ্যাক্ট হিসেবেই ধরা হোক। – গালফ নিউজ
ফিক্সিংকে অপরাধ হিসেবে ধরলেও, যারা শাস্তি ভোগ করে ক্রিকেটে ফেরার অবস্থায় থাকবেন, তাদের জন্য দরজার বন্ধ হবে না বলেও জানিয়েছেন এহসান মানি। এক্ষেত্রে কোন নির্দিষ্ট খেলোয়াড়ের কথা বলেননি তিনি, জানিয়েছেন সবার জন্য একই নিয়ম।
পিসিবি চেয়ারম্যানের ভাষ্যে, আমি কোন নির্দিষ্ট খেলোয়াড়ের কথা বলবো না। তবে এখন যেসব খেলোয়াড় নিজেদের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ফেলেছে এবং রিহ্যাব প্রক্রিয়াও শেষ করেছে, তাদের অবশ্যই পুনরায় খেলার অধিকার রয়েছে। এটা সবার জন্যই এক। – দ্য ডন

সরকার চিকিৎসক মঈনুদ্দিনের পরিবারের দায়িত্ব নেবে

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া সিলেট মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক ডা. মঈনউদ্দিনের পরিবারের সব দায় দায়িত্ব নেবে সরকার।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বরাত দিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ নিয়মিত হেলথ বুলেটিনে এ তথ্য জানান।

তিনি জানান, চিকিৎসকের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রী গভীর শোক এবং তার পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন। করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর থেকে তারা ওই চিকিৎসকের সুচিকিৎসার ব্যবস্থা নিয়েছিলেন। মৃত্যুর খবর পেয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নির্দেশে হাসপাতালে ছুটে যাই এবং নিহত চিকিৎসকের সহধর্মিণীর সঙ্গে কথা বলি।

তিনি বলেন, নিহত চিকিৎসকের সহধর্মিণীও একটি বেসরকারি মেডিকেলের সহকারী অধ্যাপক।

মহাপরিচালক জানান, করোনায় মারা যাওয়া চিকিৎসকের দুটি শিশুর বয়স যথাক্রমে ১২ ও ৭বছর।

‘অবিশ্বস্ত ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডকে আলোচনায় ডাকবে না পিসিবি’

স্পাের্টস ডেস্ক : এবার কড়া ভাষায় ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের সমালোচনা করলেন পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) প্রধান এহসান মানি। ক্রিকেটের কোনে পরিকল্পনায় ভারতকে রাখবেন না বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, অবিস্বস্ত ভারতীয় বোর্ডের সঙ্গেও তারা (বিসিসিআই) কোনো আলোচনায় বসবে না। -পাকিস্তান অবজারভার

কদিন আগে পাকিস্তানি ক্রিকেটার শোয়েব আখতার ভারত-পাকিস্তান সিরিজ আয়োজনের প্রস্তাব দেয়ার পর দুই দেশ থেকেই পক্ষে-বিপক্ষে কথার ঝড় উঠে। ওই বিতর্কের সূত্র ধরে এ কথাগুলো বলেন পিসিবি প্রধান এহসান মানি।- ডেইলি টাইমস

করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্ব অর্থনীতির মতো বড় ক্ষতি সাধন হচ্ছে ক্রিকেট বিশ্বেরও। এমতাবস্থায় ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে ওয়ানডে সিরিজ আয়োজনরে প্রস্তাব দিয়েছিলেন শোয়েব। অবশ্য করোনাভাইরাস মোকাবেলায় সাহায্যের জন্য ব্যয়ের প্রস্তাব ছিল সেই সিরিজের উপার্জিত অর্থ থেকে। আরেক পাকিস্তানি ক্রিকেটার শহীদ আফ্রিদি তার পাশে দাঁড়ালেও ভারতের কপিল দেব, সুনীল গাভাস্কার সরাসরি বিরোধিতা করেছেন। যার জবাব বেশ কড়া ভাষায় দিয়েছেন পিসিবি সভাপতি। – গালফ নিউজ

এহসান মানি বলেন, পাকিস্তানি ক্রিকেট শক্তিশালী ও যথেষ্ট মজবুত। আমরা অনেক ভুগেছি। এরপরও তারা (ভারত) আমাদের চিন্তা বা পরিকল্পনায় নেই। ব্যাপারটা এমন যে, এটা (ভারত-পাকিস্তান দ্বিপাক্ষিক সিরিজ) একটা মিথ্যা আশা। তাদের ছাড়াই আমাদের বাঁচতে হবে। আর টিকে থাকার জন্য তাদেরকে আমাদের দরকার নেই। আমি পরিষ্কার করে বলছি, ভারত যদি (পাকিস্তানের সঙ্গে) খেলতে না চায় তাহলে তাদেরকে ছাড়াই আমাদের পরিকল্পনা করতে হবে। আমাদের বিরুদ্ধে খেলবে বলে একবার বা দুইবার তারা প্রতিশ্রুতিও দিয়েছিল। কিন্তু শেষ মুহূর্তে সরে গেছে।
চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের সঙ্গে ভবিষ্যতে আর কোনো সিরিজ হবে কিনা এ নিয়ে অনিশ্চয়তা কথাই শোনালেন পিসিবি প্রধান, এখন আমরা তাদের (ভারতের) বিরুদ্ধে আইসিসি ইভেন্টগুলোতে ও এশিয়া কাপে খেলছি। এটা ঠিক আছে। কারণ আমরা ক্রিকেট খেলতে আগ্রহী। কারণ আমরা রাজনীতি ও খেলাধুলা আলাদা রাখতে চাই। – দ্য লাহোর টাইমস