শহীদ বুদ্ধিজীবী মুনীর চৌধুরীর জন্মদিন আজ

ডেস্ক রিপাের্ট : শিক্ষাবিদ, লেখক, নাট্যকার, সাহিত্য সমালোচক ও ভাষাবিজ্ঞানী মুনীর চৌধুরীর জন্ম দিবস আজ। দেশের ইতিহাসে শহীদ বুদ্ধিজীবী হিসেবে পরিচিত এই মানুষটির পুরো নাম আবু নয়ীম মোহাম্মদ মুনীর চৌধুরী। ১৯২৫ সালের ২৭ নভেম্বর তৎকালীন ঢাকা জেলার মানিকগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন তিনি।

মুনীর চৌধুরী শিক্ষাজীবন শেষে অধ্যাপনা পেশায় যোগ দিয়েছিলেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি ও বাংলা বিভাগে অধ্যাপনা করেছেন তিনি। বামপন্থি আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত থাকার কারণে ১৯৪৯ সালে তিনি প্রথমবার গ্রেপ্তার হন। ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনে সক্রিয় অংশগ্রহণ করে আবারও কারাবন্দি হন তিনি। ওই অবস্থায় ১৯৫৩ সালে তিনি তার বিখ্যাত নাটক ‘কবর’ রচনা করেন। ১৯৬৫ সালে তিনি বাংলা টাইপরাইটার কিবোর্ড নতুন করে নকশা করে ‘মুনীর অপটিমা কিবোর্ড’ নামে একটি সংস্করণ বের করেন।

১৯৬২ সালে ‘রক্তাক্ত প্রান্তর’ নাটকের জন্য মুনীর চৌধুরী বাংলা একাডেমি পুরস্কার, ১৯৬৫ সালে ‘মীর মানস’ গ্রন্থের জন্য দাউদ পুরস্কার এবং ১৯৬৬ সালে পেয়েছিলেন সিতারা-ই-ইমতিয়াজ পুরস্কার।

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী এ দেশের বুদ্ধিজীবীদের হত্যাযজ্ঞে নামলে সেই মিশনে ১৪ ডিসেম্বর মুনীর চৌধুরীকে অপহরণ করা হয়। রায়েরবাজার বধ্যভূমিতে তার মৃতদেহটি আর শনাক্ত করা যায়নি।

কবি সুফিয়া কামালের মৃত্যুবার্ষিকী আজ

ডেস্ক রিপাের্ট : জননী সাহসিকা হিসেবে খ্যাত কবি বেগম সুফিয়া কামালের ২১তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। মুক্তিযুদ্ধসহ বাঙালির সমস্ত প্রগতিশীল আন্দেলনে ভূমিকা পালনকারী সুফিয়া কামাল ১৯৯৯ সালের ২০ নভেম্বর শনিবার সকালে বার্ধক্যজনিত কারণে ইন্তেকাল করেন। সম্পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যদায় ২৮ নভেম্বর তার ইচ্ছানুযায়ী তাকে আজিমপুর কবরস্থানে সমাহিত করা হয়।

মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।

রাষ্ট্রপতি তাঁর বাণীতে বলেন, ‘কবি সুফিয়া কামাল তার কাব্য প্রতিভা ও কর্মের গুণে আমাদের মাঝে চিরকাল বেঁচে থাকবেন। মহীয়সী এ নারীর জীবনাদর্শ ও সাহিত্যকর্ম একটি বৈষম্যহীন ও অসাম্প্রদায়িক সমাজ বিনির্মাণে তরুণ প্রজন্মকে উদ্বুদ্ধ ও অনুপ্রাণিত করবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কবি সুফিয়া কামাল বায়ান্ন’র ভাষা আন্দোলন, ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান,একাত্তরের অসহযোগ আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধ এবং স্বাধীন বাংলাদেশে বিভিন্ন গণতান্ত্রিক সংগ্রামসহ শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক আন্দোলনে তাঁর প্রত্যক্ষ উপস্থিতি তাঁকে জনগণের ‘জননী সাহসিকা’ উপাধিতে অভিষিক্ত করেছে। তিনি যে আদর্শ ও দৃষ্টান্ত রেখে গেছেন তা যুগে যুগে বাঙালি নারীদের জন্য অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে থাকবে।’

সুফিয়া কামাল ১৯১১ সালের ২০ জুন বেলা ৩টায় বরিশালের শায়েস্তাবাদস্থ রাহাত মঞ্জিলে জন্মগ্রহণ করেন।

১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের পর সুফিয়া কামাল পরিবারসহ কলকাতা থেকে ঢাকায় চলে আসেন। ভাষা আন্দোলনে তিনি সক্রিয়ভাবে অংশ নেন এবং এই আন্দোলনে নারীদের উদ্বুদ্ধ করেন। তিনি ১৯৫৬ সালে শিশু সংগঠন কচিকাঁচার মেলা প্রতিষ্ঠা করেন।

পাকিস্তান সরকার ১৯৬১ সালে রবীন্দ্র সঙ্গীত নিষিদ্ধের প্রতিবাদে সংগঠিত আন্দোলনে তিনি জড়িত ছিলেন এবং তিনি ছায়ানটের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। ১৯৬৯ সালে মহিলা সংগ্রাম কমিটির সভাপতি নির্বাচিত হন এবং গণঅভ্যুত্থানে অংশ নেন।

১৯৭০ সালে তিনি মহিলা পরিষদ প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৭১ সালের মার্চে অসহযোগ আন্দোলনে নারীদের মিছিলে নেতৃত্ব দেন। মুক্তিযুদ্ধের সময় তার ধানমন্ডির বাসভবন থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের সহায়তা দেন।

স্বাধীন বাংলাদেশে নারী জাগরণ ও নারীদের সমঅধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামেও তিনি উজ্জ্বল ভূমিকা পালন করেন। ১৯৯০ সালে স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে অংশগ্রহণসহ কার্ফু উপেক্ষা করে নীরব শোভাযাত্রা বের করেন।

সাম্প্রদায়িকতা ও মৌলবাদের বিরুদ্ধে তিনি আজীবন সংগ্রাম করেছেন। প্রতিটি প্রগতিশীল আন্দোলনে অংশ নিয়েছেন তিনি।

সাঁঝের মায়া, মন ও জীবন, শান্তি ও প্রার্থনা, উদাত্ত পৃথিবী ইত্যাদি তার উল্লেখযোগ্য কাব্যগ্রন্থ। এ ছাড়া সোভিয়েতের দিনগুলি এবং একাত্তরের ডায়েরী তার অন্যতম ভ্রমণ ও স্মৃতিগ্রস্ত।

সুফিয়া কামাল দেশ-বিদেশের ৫০টিরও বেশী পুরস্কার লাভ করেছেন। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য বাংলা একাডেমী পুরস্কার, সোভিয়েত লেনিন পদক, একুশে পদক, বেগম রোকেয়া পদক, জাতীয় কবিতা পরিষদ পুরস্কার ও স্বাধীনতা দিবস পদক।
সূত্র : বাসস

বেগম সুফিয়া কামালের মৃত্যুবার্ষিকী শুক্রবার

ডেস্ক রিপাের্ট : জননী সাহসিকা হিসেবে খ্যাত কবি বেগম সুফিয়া কামালের ২১তম মৃত্যুবার্ষিকী শুক্রবার।

মুক্তিযুদ্ধসহ বাঙালির সমস্ত প্রগতিশীল আন্দেলনে ভূমিকা পালনকারী সুফিয়া কামাল ১৯৯৯ সালের ২০ নভেম্বর শনিবার সকালে বার্ধক্যজনিত কারণে ইন্তেকাল করেন। সম্পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যদায় ২৮ নভেম্বর তার ইচ্ছানুযায়ী তাকে আজিমপুর কবরস্থানে সমাহিত করা হয়।

মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।

রাষ্ট্রপতি তাঁর বাণীতে বলেন, ‘কবি সুফিয়া কামাল তার কাব্য প্রতিভা ও কর্মের গুণে আমাদের মাঝে চিরকাল বেঁচে থাকবেন। মহীয়সী এ নারীর জীবনাদর্শ ও সাহিত্যকর্ম একটি বৈষম্যহীন ও অসাম্প্রদায়িক সমাজ বিনির্মাণে তরুণ প্রজন্মকে উদ্বুদ্ধ ও অনুপ্রাণিত করবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কবি সুফিয়া কামাল বায়ান্ন’র ভাষা আন্দোলন, ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান,একাত্তরের অসহযোগ আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধ এবং স্বাধীন বাংলাদেশে বিভিন্ন গণতান্ত্রিক সংগ্রামসহ শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক আন্দোলনে তাঁর প্রত্যক্ষ উপস্থিতি তাঁকে জনগণের ‘জননী সাহসিকা’ উপাধিতে অভিষিক্ত করেছে। তিনি যে আদর্শ ও দৃষ্টান্ত রেখে গেছেন তা যুগে যুগে বাঙালি নারীদের জন্য অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে থাকবে।’

সুফিয়া কামাল ১৯১১ সালের ২০ জুন বেলা ৩টায় বরিশালের শায়েস্তাবাদস্থ রাহাত মঞ্জিলে জন্মগ্রহণ করেন।

১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের পর সুফিয়া কামাল পরিবারসহ কলকাতা থেকে ঢাকায় চলে আসেন। ভাষা আন্দোলনে তিনি সক্রিয়ভাবে অংশ নেন এবং এই আন্দোলনে নারীদের উদ্বুদ্ধ করেন। তিনি ১৯৫৬ সালে শিশু সংগঠন কচিকাঁচার মেলা প্রতিষ্ঠা করেন।

পাকিস্তান সরকার ১৯৬১ সালে রবীন্দ্র সঙ্গীত নিষিদ্ধের প্রতিবাদে সংগঠিত আন্দোলনে তিনি জড়িত ছিলেন এবং তিনি ছায়ানটের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। ১৯৬৯ সালে মহিলা সংগ্রাম কমিটির সভাপতি নির্বাচিত হন এবং গণঅভ্যুত্থানে অংশ নেন।

১৯৭০ সালে তিনি মহিলা পরিষদ প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৭১ সালের মার্চে অসহযোগ আন্দোলনে নারীদের মিছিলে নেতৃত্ব দেন। মুক্তিযুদ্ধের সময় তার ধানমন্ডির বাসভবন থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের সহায়তা দেন।

স্বাধীন বাংলাদেশে নারী জাগরণ ও নারীদের সমঅধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামেও তিনি উজ্জ্বল ভূমিকা পালন করেন। ১৯৯০ সালে স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে অংশগ্রহণসহ কার্ফু উপেক্ষা করে নীরব শোভাযাত্রা বের করেন।

সাম্প্রদায়িকতা ও মৌলবাদের বিরুদ্ধে তিনি আজীবন সংগ্রাম করেছেন। প্রতিটি প্রগতিশীল আন্দোলনে অংশ নিয়েছেন তিনি।

সাঁঝের মায়া, মন ও জীবন, শান্তি ও প্রার্থনা, উদাত্ত পৃথিবী ইত্যাদি তার উল্লেখযোগ্য কাব্যগ্রন্থ। এ ছাড়া সোভিয়েতের দিনগুলি এবং একাত্তরের ডায়েরী তার অন্যতম ভ্রমণ ও স্মৃতিগ্রস্ত।

সুফিয়া কামাল দেশ-বিদেশের ৫০টিরও বেশী পুরস্কার লাভ করেছেন। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য বাংলা একাডেমী পুরস্কার, সোভিয়েত লেনিন পদক, একুশে পদক, বেগম রোকেয়া পদক, জাতীয় কবিতা পরিষদ পুরস্কার ও স্বাধীনতা দিবস পদক।
সূত্র : বাসস

কবিতা : ভাবনা

– আব্দুল কাদের –

আমি যে বাবা মায়ের এক সন্তান

এই নিয়ে সংসারে উত্তেজনার টান।

মায়ের আকাঙ্খা যেনো হবো ডাক্তার

বাবার স্বপ্ন ছিলো হবে ইঞ্জিনিয়ার।

দাদুর ভাবনা যদি হয় সাহিত্যিক

নানু চুপি চুপি বানাবে তাত্ত্বিক।

সকলে মোরে নিয়ে করে টানাটানি

বাহির পানে কভু যায়না জানি।

ভালোবাসার চাপে বদ্ধ জীবন

দুখে ভরা পৃথিবী মরে গেছে মন।

বাউল হবো আমি মনে বড় সাধ

বেড়া জাল ভাঙতে করি পদাঘাত।

শাহীন আখতার জিতলেন এশিয়ান লিটারেচার অ্যাওয়ার্ড

ডেস্ক রিপাের্ট : ‘তালাশ’ উপন্যাসের জন্য এশিয়ান লিটারেচার অ্যাওয়ার্ডের তৃতীয় আসরে পুরস্কৃত হলেন বাংলাদেশের শাহীন আখতার। ২০২০ সালের এশিয়া লিটারেচার ফেস্টিভ্যাল উপলক্ষে ১ নভেম্বর দক্ষিণ কোরিয়ার গোয়াংজু শহরে এ ঘোষণা দেওয়া হয়।

১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধের যৌন সহিংসতার শিকার ও বেঁচে থাকা নারীদের যন্ত্রণার কথা তুলে আনা হয়েছে এ উপন্যাসে।

এ পুরস্কারের পৃষ্ঠপোষক এশিয়া কালচারাল সেন্টার, যা দক্ষিণ কোরিয়ার গণতন্ত্র আন্দোলনের তীর্থ গোওয়াংজুতে অবস্থিত। ওই আন্দোলনগুলোকে সম্মান জানাতে পুরস্কারটির প্রবর্তন হয়েছিল।

মহামারির কারণে এ সাহিত্য উৎসব এ বছর অফলাইন ও অনলাইনে অনুষ্ঠিত হয়। এতে এশিয়ার ২৯ জন লেখক অংশ নেন, যার মধ্যে ম্যান বুকার পুরস্কারপ্রাপ্ত সাহিত্যিক হান কাংসহ কোরিয়ার ১৯ জন লেখক ছিলেন।

এশীয় সাহিত্যের নান্দনিক মূল্য তুলে ধরতে ২০১৭ সালে এ পুরস্কার চালু হয়। যা এত দিন ধরে পশ্চিমা সাহিত্যের চোখ দিয়ে দেখা হতো। তবে পাশ্চাত্য সাহিত্যকে প্রত্যাখ্যান নয়, এশীয় সাহিত্যকে অনুপ্রেরণা ও বিশ্বের কাছে তুলে ধরায় আয়োজকদের লক্ষ্য।

পুরস্কার হিসেবে বিজয়ী লেখক পেয়ে থাকেন ২ লাখ ওন বা সাড়ে ১৭ হাজার ডলার। যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ১৫ লাখ টাকার কাছাকাছি। এ ছাড়া বিজয়ী সাহিত্য কর্ম অবলম্বনে উৎসবের পরের আসরে বিশেষ একটি উপস্থাপনা থাকে।

প্রথম আসরে পুরস্কারটি পান মঙ্গোলিয়ার কবি ইউরিয়ানখাই ডামডিনসুরেন, দ্বিতীয়বারের অর্জনকারী ভিয়েতনামের লেখক বাউ নিন।

এবারের আসরে শাহীন আখতারের ‘তালাশ’ ছাড়াও সংক্ষিপ্ত তালিকায় ছিলো চীনা ও তাইওয়ানিজ দুই লেখিকার তিন উপন্যাস।

বৈশ্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় উৎসবের এবারের আসরে কিছু পরিবর্তন এসেছে। সে হিসেবে নারী লেখিকাদের ‘ফেমিনিস্ট থিম’-এর দিকে ছিল মূল মনোযোগ।

যুদ্ধের উন্মাদনা ও পুরুষকেন্দ্রিক সমাজের ভ্রান্ত চেতনাকে লক্ষ্য করে ‘তালাশ’ উপন্যাসে এসেছে নারীর দৃষ্টিকোণ থেকে ব্যঙ্গাত্মক উপস্থাপন ও সমালোচনা। এ দুর্দান্ত ঢংয়ের প্রশংসা করেন কমিটির কিম নামিল।

সাম্রাজ্যবাদ ও উপনিবেশবাদ, যুদ্ধ ও সহিংসতা, যুদ্ধাপরাধীদের প্রতারণা, স্বাধীনতা সংগ্রামীদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার এবং ধর্ষণের শিকার নারীদের সঙ্গে চলমান দুর্ব্যবহার সবই এ উপন্যাসে আছে। ইতিহাস নিয়ে তালাশ মৌলিক প্রশ্ন তুলেছে। ‘বীরাঙ্গনা’ আখ্যা দিয়ে কীভাবে ওই প্রান্তিক নারীদের ব্যথা আড়াল করা হয়েছে সে বিষয়টি এসেছে।

বিচারকদের ভাষ্য, আমরা বিশ্বাস করি যে উপন্যাসটি আমাদের সময়ের এশীয় লেখকের অন্যতম সেরা নারীবাদী ও যুদ্ধবিরোধী ডকু-উপন্যাস হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ার দাবিদার। আমাদের সময়ের যন্ত্রণা ও সাহসের দলিল।

একে তুলনা করা হয় সভেতলানা আলেক্সিয়েভিচের ‘দ্য আনওম্যানলি ফেইস অব দ্য ওয়ার’, রুথ ক্লাগারের ‘স্টিল অ্যালাইভ’ বা মার্থা হিলারের ‘আ ওম্যান ইন বার্লিন’-এর সঙ্গে। তারা আশা করেন শাহীন আখতার লেখনির মাধ্যমে সামনেও অনুপ্রেরণা জোগাবেন।

শাহীন আখতার বাংলাসাহিত্যে অবদানস্বরূপ ২০১৫ সালে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার অর্জন করেন। তার ‘ময়ূর সিংহাসন’ উপন্যাসের জন্য আখতারুজ্জামান ইলিয়াস কথাসাহিত্য পুরস্কার ও আইএফআইসি ব্যাংক পুরস্কার পেয়েছেন। ‘অসুখী দিন’ উপন্যাসের জন্য ২০১৯-এ পেয়েছেন জেমকন সাহিত্য পুরস্কার। পেয়েছেন কলকাতার আনন্দবাজর গ্রুপের টিভি চ্যানেল এবিপি আনন্দ থেকে ‘সাহিত্যে সেরা বাঙালি’ সম্মাননা। ‘তালাশ’ প্রকাশিত হয়েছে মাওলা ব্রাদার্স থেকে ২০০৪ সালে। একই বছরে প্রথম আলো বর্ষ সেরা বই হিসাবে তালাশ পুরস্কৃত হয়।২০১১ সালে ‘দ্য সার্চ’ নামে তালাশ-এর ইংরেজি অনুবাদ প্রকাশ করে দিল্লিস্থ প্রকাশনা হাউজ জুবান। ‘তালাশ’ কোরিয়ান ভাষায় অনুবাদ করেছেন প্রফেসর সিং হি জন ও ফারহানা শশী, বইটি কোরিয়া থেকে প্রকাশিত হয় ২০১৮ সালে।

শাহীন আখতার গল্প উপন্যাস লেখার পাশাপাশি কয়েকটি সাহিত্য সংকলন সম্পাদনা করেছেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেছেন অর্থনীতিতে। তার জন্ম ১৯৬২ সালে, কুমিল্লা জেলার চান্দিনা থানার হারং গ্রামে।

রায়হান রাইনের অনুবাদ ও সম্পাদনায় ‘অতীশ দীপঙ্কর রচনাবলি’

ডেস্ক রিপাের্ট : বাংলাদেশের দার্শনিক ও বৌদ্ধ আচার্য অতীশ দীপঙ্কর। তার রচনা কেবল দর্শন নয়, সাহিত্য, ধর্ম ও ইতিহাসেরও গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। তার জীবনের ঘটনাবলি এবং রচনাকর্ম জড়িয়ে আছে বাংলা, ভারত ও তিব্বতের ইতিহাসের সঙ্গে। সর্বোপরি, এ সব রচনায় অতীশ হাজির করেছেন এক অনন্য জীবনদৃষ্টি।

‘অতীশ দীপঙ্কর রচনাবলি’ শিরোনামে এ দার্শনিকের রচনা অনুবাদ ও সম্পাদনা করেছেন রায়হান রাইন। ৩৭৫ টাকা দামের বইটি পাঠকের সামনে হাজির করছে প্রথমা প্রকাশন। বর্তমানে চলছে প্রি-অর্ডার।

সংক্ষেপে এ রচনাবলি প্রসঙ্গে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের শিক্ষক রায়হান রাইন বলেন, “চর্যাপদ যেমন বৌদ্ধ সহজিয়া দর্শনের, অতীশের রচনা তেমনই মাধ্যমিক বৌদ্ধ দর্শনের আকরগ্রন্থ। ৩১টি রচনা। হাজার বছর আগের এসব লেখার প্রসঙ্গ ধরিয়ে দিতে প্রতিটি লেখার সঙ্গে প্রবেশক হিসেবে আছে একটি করে আলোচনা যাতে লেখাগুলোকে সহজগম্য লাগে। এ ছাড়া বড় একটা পরিভাষাপঞ্জিও থাকছে বইয়ের শেষে, যাতে অতীশকে বুঝতে পাঠক স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন।”

৯৮২ সালে অতীশ দীপঙ্করের জন্ম বিক্রমপুরের বজ্রযোগিনী গ্রামে। তিনি বৌদ্ধ মাধ্যমিক ধারার দার্শনিক। নাগাজু‌র্ন-পরবর্তী মাধ্যমিক দর্শনের সারাংশ ধারণ করে আছে তার রচনাবলি। মহাযান বৌদ্ধমতের দার্শনিক বিতর্কগুলো আশ্রয় করে অতীশ গড়ে তুলেছেন এক স্বচ্ছ জীবনদৃষ্টি। চর্যাপদ, দোহাকোষসহ অন্যান্য বৌদ্ধ রচনার ওপর নতুন করে আলো ফেলতে সাহায্য করবে তার এই রচনাবলি।

রায়হান রাইনের অন্যান্য বইয়ের মধ্যে রয়েছে বাংলার দর্শন (প্রাক-ঔপনিবেশিক পর্ব), বাংলার ধর্ম ও দর্শন, নিক্রোপলিসের রাত, কিতাব আল-তাওয়াসিন (অনুবাদ) এবং আগুন ও ছায়া।

সঙ্গীতা ইয়াসমিন-এর দুটি কবিতা

দেখা হবার আগে ও পরে

তোমার সাথে দেখা হবার আগে
পৃথিবী কম করে হলেও ৩৬৫ দিনের
একটা সূর্য-ভ্রমণ সমাপ্ত করেছে।
তখন ক্যালেন্ডারের গা থেকে
কেবল একটি পাতাই খসে যায়নি
দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গনে
বদলে গেছে অনেক কিছুই।
এই যেমন ট্রাম্প-কিমের কয়েকদফা
রুদ্ধদ্বার বৈঠক হয়েছে,
বিশ্ববাজারে সোনার চেয়ে তেলের মূল্য
বেশী হওয়ার একটা ঝুঁকি বেশ কবার তৈরি হয়েছে,
শেয়ারবাজার এবং মূদ্রাস্ফিতি ছাড়াও
অস্ত্রের বৈধ কিংবা অবৈধ চালানের সূচক
কয়েক দফা ওঠানামা করেছে।

তোমার সাথে দেখা হওয়ার আগেই
বিদেশী দূতাবাসসমূহে রটে গিয়েছিল
আমরা ঠিক নির্দিষ্ট কোন দিনে কোথায়
কী পোশাকে থাকব!
আমাদের ওপর কড়া নজরদারি হচ্ছিল,
কেনো বলো তো!
কার পাকা ধানে মই দিয়েছি আমরা?
কিংবা কার সীমান্ত আগ্রাসনের তথ্য পাচার করেছি তুমি-আমি?

বিংশ শতাব্দীর শোকের আয়ু এক বছর হলেও
তোমার সাথে দেখা হওয়ার পরে,
একবিংশ শতাব্দীতে তা এসে দাঁড়িয়েছে এক হপ্তায়!
তোমার সাথে দেখা হওয়ার পরই
এক নুলো ভিখিরির বিরুদ্ধে একশ একটা
রাষ্ট্রায়াত্ব ব্যাংক লুটের মামলা উঠেছে আন্তর্জাতিক আদালতে;
খবর আছে, তার বিরুদ্ধে মারণাস্ত্র পরীক্ষার তেজস্ক্রিয়তা ধ্বংসের এক সমান্তরাল
অভিযোগ পত্রও দাখিল হতে পারে!

বিশ্বব্যাপী এতোকিছু ওলোটপালোট হয়ে গেলেও
আমাকে না পেলে তুমি বড়জোর সীমান্ত মিস করে কপোতাক্ষ ধরবে,
একা একা ঝুম বৃষ্টিতে ভিজে জ্বর বাধাবে,
সাতদিন জ্বরের ঘোরে আমার নামে
প্রেমহীন প্রলাপ বকবে,
একলা হবার ভয়ে শুভ্র বরফকুচিতে
রক্ত লাল তুফান ছুটিয়ে দেবে!
চাকরিতে ইস্তফাও দিয়ে দিতে পার
নেশা একটু বেড়ে গেলে!
মানিক মিয়া এভেন্যুর বিশাল ভরাট বুকের ওপর দাঁড়িয়ে
আকাশ-বাতাস কাঁপিয়ে এক বিকেল কাঁদবে!
স্লোগানে স্লোগানে ভেঙে দেবে এই শহরের এক দুপুরের গুমোট নির্জনতা!

তাই বলে নাসার মহাকাশযান ছিনতাই?
বিস্মিত ইউএস কংগ্রেস এবং হাউজ অব কমন্স!
কারণ MI6, CIA, ASIS সবাই একবাক্যে স্বীকার করেছে,
এত্তো বড় ঝুঁকি নেবার দুঃসাহস
কোনো কালেই তোমার ছিলোনা!

কেমন আছো তুমি

জানি, সময় ঘড়িতে সাত বছর
খুব লম্বা নয়,
তবুও এ প্রতীক্ষা কণ্টকময়।
তোমাকে দেখার অপেক্ষায়
ক্লান্ত দু’চোখ ঘুমহীন জেগে রয়,
পথও শ্রান্তি খোঁজে অবসাদে,
উদ্ভ্রান্ত সময় দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হয়।
তৃষ্ণাকাতর এ বিরহ কাটে না যে আর!
কেমন আছো প্রিয়তমা আমার!

সেই সাত বছর আগে,
যেমনটা রেখে এসেছিলাম,
তার থেকে কিঞ্চিত মেদ জমেছে কি শরীরে তোমার?
বয়সের ভারে ভঙ্গুর, কিছুটা নুব্জ্য হয়েছো কি তুমি?
অযাচিত গ্লুকোজ শরীরে কি মধুমেহ এনে দিল?
সর্বাঙ্গে ব্যথার জ্বালা নিয়ে আজ তুমি ব্যথাহীন!
বোধের এতো মৃত্যু মাড়িয়ে হেঁটে যেতে যেতে;
ক্ষমা করো, সয়ে যাও দ্বিধাহীন,
তবু থেকে যায় অনাহুত বেদনার ঋণ।

নাকি চোখে মেখে কৃত্রিম সুরমার শান
সেজেছো সুরঞ্জনা আবার!
হাসলে কি আজও গালে টোল পড়ে তোমার?
কাজলদিঘীর কালো জলে
ফোটে কি জোৎস্না সরোবর?
অমন নিটোল জলধারায়
আসে কি যৌবন জোয়ার?

কে বলে দাসী তুমি ছিন্ন বসনা,
শ্যামাঙ্গিনী তুমি! সে রূপ অনন্ত যৌবনা।
মারি আর মড়কের দুঃসহ এই অশনিপাতে
কেমন কাটছে তোমার দিন!
কেমন আছে ওরা,
অনাহারে, অর্ধাহারে, দুঃখসন্তাপে!
ধূলোকাদায় বেড়ে ওঠা সন্তান তোমার,
খুব জানতে ইচ্ছে করে,
কেমন আছো তুমি, প্রিয়তমা আমার!

কবি- শিক্ষা কর্মকর্তা, টরন্টো, কানাডা।

বাজারে এসেছে ‘আমাদের খালেক ভাই’

ডেস্ক রিপাের্ট : হাসনাইন খুরশেদের রম্য উপন্যাস ‘আমাদের খালেক ভাই’ বাজারে এসেছে। হাজারো পণ্যের ভিড়ে তাকে চিনে নিন। ঘরে বসে সুলভে কিনে নিন।

প্রকাশনা সংস্থা গ্রন্থ খামার থেকে প্রকাশিত হাসনাইন খুরশেদের ‘আমাদের খালেক ভাই’ বইটি যে কোনো পাঠকের ভাল লাগবে। বইটি ইতোমধ্যেই পাঠকপ্রিয় হয়ে উঠছে।

লেখক হাসনাইন খুরশেদ বলেন, ‘সবার প্রতি অনুরোধ, বইটি কিনুন, বইটি পড়ুন। আশা করি, ভালো লাগবে’।

১৮৪ পৃষ্ঠার বইটির প্রচ্ছদ ও অলংকরণ করেছেন অশোক কর্মকার। বইটির মূল্য ৩৫০ টাকা হলেও ডিসকাউন্টে কিনতে পারবেন ক্রেতারা।

ডেলিভারি চার্জসহ ঢাকার ভেতরে ৩০০ টাকা এবং ঢাকার বাইরে ৩৫০ টাকা দিয়ে অনলাইনে কিনতে পারবেন যে কেউ। বইটি কিনতে গ্রন্থ-খামারের ফেসবুক পেইজে মেসেজ পাঠিয়ে অর্ডার করলেই পৌঁছে যাবে ‘আমাদের খালেক ভাই’।

মায়ের নতুন ভাবনা

সোনালী দাস –

কৈলাসেতে জোর আয়োজন প্রতিবারের মতো,
দুর্গা যাবেন বাবার বাড়ি গোছ-গাছ তার কতো!
দেরি করে যাচ্ছেন এবার তবুও মনটা ভার।
কদিন আগে খবর এলো কাঁদছে মা-বোন তাঁর।
তিনি হলেন মহামায়া ভালোবাসার আধার,
স্বভাবটাই সহ্য করা স্বামীর ঘর বা বাবার।

ভাবেন বসে, ‘বয়স্ক আমি, যাব বাবার বাড়ি!’
আবার ভাবেন, ‘বিশ্বাস কী! আমিও তো এক নারী!’
লক্ষ্মী যাবে শস্যক্ষেত্রে, শিক্ষাক্ষেত্রে বাণী,
সে সব ক্ষেত্রে হচ্ছে নাকি অসুরের আমদানি!
করোনাসুর, মনুষ্যাসুর নানান জাতের অসুর
হারতেও পারে তাদের সাথে স্বর্গের মহিষাসুর!

ছেলে-মেয়েকে বললেন তাই যেতে হলে ভবে,
এবার কিন্তু নতুন পোশাক মাস্কও নিতে হবে।
কার্তিকেরে কানে বলেন বড়ো ধনুকটা নিতে,
মা-বোনেরা অ্যাটাক হলে প্রতিদান তার দিতে।
শুনে কার্তিক গর্জে ওঠে, ‘কি বলো মা ছার!
আমার মা-বোন ছুঁলে কারো থাকবে মাথা আর?’

দুর্গা বলেন, ‘শাবাশ বেটা! আর কোনো ভয় নাই।
তোমার মতোই বীর পুত্র সবার ঘরে চাই।’
পরামর্শ করতে গেলেন স্বামী ভোলার কাছে
তিনিও বলেন, ‘ভয় পেয়ো না, আমি আছি পিছে।’
ভোলানাথ আর যাননি ভুলে তৈরি হতে আজ,
নরাসুরের বধে লাগলে নাচবে প্রলয় নাচ।

কালীকে ডেকে বলেন, দেবী ধরায় আসার পথে,
“সর্বশক্তি নিয়ে থাকিস অনাথাদের সাথে।”
এভাবেই মা শিখিয়ে যাবেন মা-বোন রক্ষা মন্ত্র,
সব পরিবার রক্ষা হলেই বাঁচবে সমাজ যন্ত্র।

কবি: যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী, শিক্ষক, ফেয়ারফেক্স কাউন্টি পাবলিক স্কুল।

ড. সনজয় চক্রবর্তীর কবিতা

শ্রাবণীর চোখে জল
কোন এক আষাঢ়ের মঙ্গলবারে

বিকেল গড়িয়ে সন্ধ্যে হলো আজ, প্রতিদিনকার মতো চায়ের কাপ হাতে নিয়ে বসে আছি শ্রাবণীর সাথে বিকেলটা গল্প করে কাটাবো বলে,

জানালার পাশে বৃষ্টির শব্দ মনকে কিছুটা উদাস করে দৃষ্টি বার বার আকাশ পানে নিয়ে যাচ্ছে আর মনে করিয়ে দিচ্ছে, এইতো সেই আমাদের ছোট কক্ষের জানালা;

যার সামনে বসে কত কথা বলেছি শ্রাবণীর সাথে মনের আনন্দে, আজ সেই জানালার পাশে সে বসে কাঁদছে, আমি কি বুঝেছি সে সীমাহীন কষ্ট?

শ্রাবণীকে বারবার জিজ্ঞেস করেছি, কি তোমার কষ্ট, সে বলে তুমি বুঝবেনা, আমাকে নাকি বুঝানো সম্ভব নয়, জানিনা নারী হৃদয়ের সে ব্যথা কেন বুঝবার নয়।

বৃষ্টির জল সিক্ত মাটির বুকে কেমন যেন শব্দ হচ্ছে, আর শ্রাবণীর চোখের জল একাকার হয়ে কেমন যেন যন্ত্রণারূপ এক সুখের আবেশ অনুভব করছি।

শ্রাবণী, তুমি এতই ভালোবেসেছো? কোন বিষয়টি তোমাকে এতটুকু ভাবিয়ে তুলেছে, আর ব্যথাতুর হৃদয়ে তুমি কাঁদছো? দিচ্ছনা তাও বুঝতে আমায়।

আকাশ কাঁদে আর সাথে শ্রাবণীও, দুজনার মাঝে অদ্ভুতভাবে অমিলের মাঝে মিল, একজন কষ্টে আর একজন প্রকৃতির নিয়মে অথচ দুজনেই রিক্ত হয়ে করছে অন্যকে সিক্ত।

শ্রাবণী, যে মুখে একদিন হাসির জোয়ার বইতো, আজ কেন আনন্দের দুয়ার ভেঙ্গে অনলের মতো তুমি পুড়ছো? কি এমন ব্যথা পেয়েছো বেদনায় এমন জ্বলছো।

শ্রাবণী, তোমার বুকে যেন আজ হানছে দুখের বাজ, মনেতে দুখের অগ্নি নিয়ে আজ হাসছো, গাইছো আর খেলছো, তারপরও পুরো বুকের মাঝে আগলে ধরে আছো আমাকে।

শ্রাবণী, নিজেকে কষ্টে রেখে দুখের সাগরে আজ কি টানছো সুখের তরী? হৃদয়হীনেরে দিয়েছো হৃদয়, পাষাণে ঢেলেছো অশ্রু আর সেই পাষাণেই আজ অশ্রু টলমল।

স্মার্টনেস

স্মার্টনেস মানে পুরুষদের প্যান্টগুলো এমনভাবে পরা নয়,

পশ্চাৎ অংশ সকলের দৃষ্টিগোচরে আসা।

স্মার্টনেস মানে পুরুষের হাতে বালা বা কানের দুল পরা নয়,

তাঁর নিজের স্বভাবজাত বৈশিষ্ট্যকে বিকৃত করে তোলা।

স্মার্টনেস মানে নারীর এমন কোন পোশাক পরিধান করা নয়,

নারীর সৌন্দর্য্যকে ফুটিয়ে না তুলে অন্যকে বিব্রত করা।

স্মার্টনেস আসলে পোষাকে নয়,

এটি মানুষের বিজ্ঞজনোচিত কাঙ্খিত আচরণ ও ব্যাবহারের স্বকীয়তাকে বিকশিত করা ।

স্মার্টনেস মানে সারাদিন ফেসবুকে চেটিং নয়,

স্মার্টনেস হলো ফেসবুকের সৃস্টিকে যোগাযোগের মাধ্যম করে তোলা।

স্মার্টনেস মানে কাজের জন্য মোবাইল ব্যাবহার করে মা-বাবা বা অন্যের মুখাপেক্ষী হয়ে থাকা নয়,

স্মার্টনেস হলো মোবাইল টেকনোলজি ব্যবহার করে নিজের কাজ নিজে করতে শেখা।

স্মার্টনেস মানে নারীবাদী কথা বলে নিজেকে প্রচার করে নারীদের ছোট করা নয়,

স্মার্টনেস হলো দুজন অবহেলিত নারী বা পুরুষের সেবা করা।

স্মার্টনেস মানে গাড়ী করে সন্তান কে স্কুলে নিয়ে অপদার্থ বানানো নয়,

স্মার্টনেস হলো সম্ভব হলে হাটিয়ে স্কুলে নিয়ে গিয়ে সন্তানকে ঘাতসহ করে তোলা।

স্মার্টনেস মানে রেস্টুরেন্টে বা বাড়িতে বেশি খাবার খাইয়ে বেঢপ সাইজের হয়ে যাওয়া নয়,

স্মার্টনেস হলো ভালো বা পুস্টিকর কম খাবার খেয়ে নিজেকে সুস্থ রেখে অন্যকে খাবার খেতে সাহায্য করা।

স্মার্টনেস মানে বন্ধুকে রেস্টুরেন্টে বা কোন কিছুতে খরচ বাড়িয়ে বিব্রত করা নয়,

স্মার্টনেস হলো বন্ধুর খরচ কমিয়ে প্রিয়জন বা গরীবদের সাহায্য করার জন্য উদ্বুদ্ধ করা।

স্মার্টনেস মানে স্বামী বা বন্ধুকে গেয়ো বলে গালি দিয়ে আহংকার করা নয়,

স্মার্টনেস হলো সকলকে সন্মান করে নিজেকে আরো বড় করে তোলা।

স্মার্টনেস মানে পিতার সম্পদের বাহাদুরি করে পিতা সহ নিজেকে ছোট করা নয়,

স্মার্টনেস হলো অর্জিত জ্ঞান বুদ্ধি ও দক্ষতায় পিতাকে নিজে অতিক্রম করে সমাজের কাছে বড় করে তোলা।

স্মার্টনেস মানে সন্তান বা বাবা মাকে বন্ধু বানিয়ে যা খুশি তা বলা বা করা নয়

স্মার্টনেস মানে সন্তান বা বাবা-মায়ের সাথে বন্ধুর মতো ব্যাবহার করে সহনীয় পরিবেশ তৈরি করা।

স্মার্টনেস মানে সামান্য দুরত্বে গাড়ী ব্যাবহার করে বড়লোকি দেখানো নয়,

স্মার্টনেস হলো হাটার পথে কখনো গাড়ী ব্যাবহার না করে হেটে পথ চলা।

স্মার্টনেস মানে প্রতি কথায় প্রতিবাদ করে নিজেকে প্রতিবাদী বা আমি কাউকে ছেড়ে দিয়ে কথা বলিনা বলে আন্যায় করা নয়,

স্মার্টনেস মানে অন্যায় কথা শুনে প্রতিবাদ না করে বরং অন্যায় না করতে উদ্বুদ্ধ করা।

স্মার্টনেস মানে সন্তানের সববোঝা কাঁধে নিয়ে তাঁকে যুগের জন্য অনুপযোগী করে তোলা নয়,

স্মার্টনেস হলো সন্তানের কাজ সন্তানকে দিয়ে করিয়ে উপযুক্ত করে গড়ে তোলা।

স্মার্টনেস মানে ভালোদিনে প্রয়োজনে অপ্রয়োজনে ফোন করে খবর নেয়া নয়,

স্মার্টনেস হলো বিপদের দিনে ফোন করে বলা আমি কোন উপকারে আসতে পারি কি?

স্মার্টনেস মানে ভালোবাসার মানুষের সাথে স্মার্টভাবে কপটতা নয়,

স্মার্টনেস হলো ভালোবাসার মানুষটিকে বিপদের দিনে বুকে বা কাছে টেনে নেয়া।

২১