ময়মনসিংহ জেলা লকডাউন, ২ চিকিৎসকসহ আক্রান্ত ৭

ডেস্ক রিপোর্ট : প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস প্রতিরোধে ময়মনসিংহ জেলাকে লকডাউন ঘোষণা করেছে জেলা প্রশাসন।মঙ্গলবার (১৪ এপ্রিল) বিকাল ৫টা থেকে জেলাকে লকডাউন ঘোষণা করে জেলা প্রশাসক (ডিসি) মিজানুর রহমান।

ডিসি মিজানুর রহমান বলেন, জেলায় ইতিমধ্যে ২জন চিকিৎসক ১জন পুলিশ কনস্টেবলসহ ৭ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তাই করোনা প্রতিরোধে মঙ্গলবার বিকাল ৫টা থেকে জেলা থেকে উপজেলা এবং উপজেলা থেকে ইউনিয়নসহ গ্রাম পর্যায়ে লকডাউন (অবরুদ্ধ) ঘোষণা করা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত লকডাউন অব্যাহত থাকবে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সর্বাত্তক সর্তক অবস্থানে রয়েছে মানুষকে ঘরে রাখার জন্য। নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যসামগ্রী ছাড়া কোন প্রকার যানবাহন জেলার মধ্যে ঢুকবেনা এবং বেরও হবে না। আশা করছি সকলের সহযোগিতায় করোনা প্রতিরোধে সক্ষম হব।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) শাহজাহান মিয়া বলেন, জেলা-উপজেলা মিলিয়ে ৩৮টি চেকপোস্ট দিয়ে প্রবেশ ও বের হওয়া রোধ করা হবে। এক্ষেত্রে জেলার এক উপজেলা থেকে অন্য উপজেলাতে যাতায়াত বিচ্ছিন্ন করা হবে। জরুরি পরিবহন ছাড়া অন্য কোনও পরিবহন চলতে দেওয়া হবে না। এক্ষেত্রে লকডাউন আইন মানতে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এর আগে, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের (মমেক) মাইক্রোবায়োলজি বিভাগে করোনাভাইরাস শনাক্তে স্থাপিত পিসিআর ল্যাবে গত ১৩ দিনে ৬৯০ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে ২৮ জনের। তারমধ্যে দুইজন চিকিৎসক। ময়মনসিংহ বিভাগের চার জেলার মানুষদের পরীক্ষা করে এই রোগীগুলো পাওয়া গেছে।

হোম কোয়ারেন্টাইনে থেকে নববর্ষের শুভেচ্ছা জানালেন খেলোয়াড়রা

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনাভাইরাস এবার নানা রঙ, আর বর্ণের বাঙালির প্রাণের উৎসব-নববর্ষকে ম্লান করে দিয়েছে। এ বছর ঘরে বসেই নববর্ষ উদযাপনের আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড, ফুটবল ফেডারেশনসহ বিভিন্ন ক্রীড়া সংগঠন। পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জাতীয় দলের ক্রিকেটাররাও ঘরে পরিবারের সঙ্গে নববর্ষ উদযাপনের আহ্বান জানিয়েছেন।

নববর্ষের সূর্য উঠেছে ঠিকই। কিন্তু তাতে নেই প্রাণের আমেজ। বৈশাখ এসেছে, কিন্তু রঙের ছিটেফোটা নেই। নেই মুড়ি-মুড়কি কিংবা বাতাসার মৌ মৌ গন্ধ। এতোসব নাই এর মাঝেই এবারের ব্যতিক্রমী বর্ষবরণ।

বাঙালির শ্বাশত উৎসবে থাবা বসিয়েছে এক অদৃশ্য শত্রু। থমকে দিয়েছে সব আয়োজন। মঙ্গলশোভাযাত্রার মতো আটকে গেছে ক্রীড়াঙ্গনেরও নানা আয়োজন। কোভিড নাইন্টিনের প্রভাব থেকে বাঁচতে তাই ঘরে বসেই নতুন বছরকে বরণ। শুভেচ্ছা বিনিময়ের ভরসা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম।

টাইগার ব্যাটসম্যান সৌম্য সরকার এবারের বৈশাখ পরিবারের সঙ্গেই কাটিয়েছেন বলে ফেসবুকে শেয়ার করেছেন। পেসার রুবেল হোসেন এবারের বৈশাখকে বিষণ্ণ বললেও আগামীতে সব অন্ধকার দূর হবে বলে আশা প্রকাশ করেন।
ওপেনার তামিম ইকবালও আহ্বান জানিয়েছেন পরিবারের সঙ্গে বর্ষবরণের আনন্দ ভাগ করতে। শুভেচ্ছা জানাতে ভোলেননি অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপজয়ী দলের শরিফুল ইসলামও। করোনাভাইরাসের কারণে বৈশাখ হারিয়েছে তার চেনা রূপ। সব শঙ্কার মেঘ কেটে গিয়ে হয়তো আবারো ফিরবে রুদ্ররূপে। সে অপেক্ষা সবারই। – সময়টিভি

কলকাতা থেকে কারা তুলে এনেছিল বঙ্গবন্ধুর খুনি মাজেদকে, প্রশ্ন বর্তমানের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যাকাণ্ডে অংশ নেয়া খুনি ক্যাপ্টেন (বরখাস্ত) আবদুল মাজেদের ফাঁসি কার্যকর হয়েছে শনিবার (১১ এপ্রিল) দিনগত রাতে।

এর আগে রাজধানীর মিরপুরে সন্দেহজনকভাবে রিকশায় ঘোরাঘুরি করছিলেন দণ্ডপ্রাপ্ত ক্যাপ্টেন (অব.) আবদুল মাজেদ। সেখানে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তিনি স্বীকার করেন তিনি বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনি। তাকে গ্রেফতারের পর সাংবাদিকদের এমনটাই দাবি করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

এদিকে জানা গেছে, খুনি মাজেদ এতদিন আত্মগোপন করেছিলেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের কলকাতায়।

কলকাতার গণমাধ্যম বর্তমান পত্রিকার অনুসন্ধানীমূলক এক প্রতিবেদনে জানা যায়, পার্কস্ট্রিটে বসবাস করতেন খুনি মাজেদ। মাজেদের ছবি বাংলাদেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে দেখে অবাক হয়েছে সেই মহল্লার বাসিন্দারা।

আজ মঙ্গলবার (১৪ এপ্রিল) প্রকাশিত হয়েছে সেই প্রতিবেদনটির ২য় পর্ব। এই প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে, অজ্ঞাত পরিচয় কয়েকজন তুলে নিয়ে গেছিল বঙ্গবন্ধুর খুনি মাজেদকে। এক ঝলক দেখলে যে কেউ ভুল করে তাদের কাবুলিওয়ালা ভাববেন। ষণ্ডামার্কা চেহারা। গালে ঘন কালো চাপ দাড়ি। ব্যাক ব্রাশ করা চুল। একজনের পরনে ডেনিম জিন্স আর নীল ফুল হাতা টি-শার্ট। অন্যজনের গায়ে বড় চেক শার্ট। দু’জনের হাতেই মোবাইল ফোন। কলকাতা বিভিন্ন স্থানে পাওয়া সিসিটিভির ফুটেজে নাকি এমনই দেখা গেছে।

সংবাদমাধ্যমটির প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, সিসিটিভির ফুটেজ ঘেঁটে দেখা যাচ্ছে, ২২ ফেব্রুয়ারি সকাল ১০টা ৪ মিনিটে বেডফোর্ড লেনের ভাড়া বাড়ি থেকে বের হওয়ার পর একটি ওষুধের দোকানে গিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধুর খুনি আব্দুল মাজেদ। সেখানে মিনিট আটেক কাটানোর পর ঠিক ১০টা ১২ মিনিটে যখন রিপন স্ট্রিটের দিকে মুখ করে ফের পথ চলতে শুরু করেন, তখন থেকেই তাকে অনুসরণ করা শুরু করে ওই দুই ব্যক্তি। পরে তাদের সঙ্গে আরও দু’জন যোগ দেন।

মোট চারজন সেদিন পিছু নিয়েছিলেন মাজেদের। সিসিটিভি’র ফুটেজে সবার ছবিই ধরা আছে। তদন্তে নেমে পুলিস ও এসটিএফ-এর অফিসাররা পিছু নেওয়া ওই ষণ্ডামার্কাদের কাবুলিওয়ালা ভেবে প্রথমে ভুল করেছিল। মাজেদ ছোটখাট সুদের কারবারও চালাতেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আলিমুদ্দিন স্ট্রিট ধরে এসে রাস্তা পার হয়ে এজেসি বোস রোডে আসেন মাজেদ। উদ্দেশ্য, বাস ধরা। গন্তব্য পিজি হাসপাতাল। এর পরের ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, ওই চারজন মাজেদের সঙ্গে কথা বলছে। তবে ক্যামেরা উন্নত না হওয়ায় কী কথা হয়েছিল, তা শোনার উপায় নেই। ঠিক তখনই মৌলালির দিক থেকে আসা একটি সল্টলেক-সাঁতরাগাছি রুটের বাসে উঠতে দেখা যায় মাজেদকে। যথারীতি সেই বাসে চাপেন ওই চারজনও। এরপর আর কোনও ফুটেজ নেই।

তদন্তে নেমে পুলিস এজেসি বোস রোডের প্রতিটি সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ দেখেছে। তবে, আলিমুদ্দিন স্ট্রিটের বাস স্টপ থেকে পিজি হাসপাতাল পর্যন্ত কোথাও বাস থেকে নামতে দেখা যায়নি আব্দুল মাজেদকে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার এক সূত্র জানিয়েছে, মাজেদের মোবাইলের সর্বশেষ টাওয়ার লোকেশন ছিল মালদহ। যা থেকে গোয়েন্দাদের অনুমান, মাজেদকে ঘুরপথে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল হাওড়া স্টেশনে। সেখান থেকে ট্রেনে প্রথমে গুয়াহাটি। পরে শিলং হয়ে ডাওকি সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশ যান তিনি। তবে তিনি স্বেচ্ছায় গিয়েছিলেন, নাকি বাধ্য করা হয়েছিল, তা নিয়ে সন্দেহ আছে। মনে করা হচ্ছে, ট্রেন মালদহ স্টেশনের আশপাশে থাকাকালীন তিনি তার মোবাইলটি একবার অন করেছিলেন।

বর্তমান পত্রিকা প্রশ্ন তোলে, সিসি ক্যামেরায় ধরা পড়া ওই চারজন কারা? তারা কি বাংলাদেশের কোনও গোয়েন্দা এজেন্সির অফিসার? প্রতিবেদনটিতে দাবি করা হয়েছে, কলকাতা পুলিশের অজান্তে কে বা কারা তুলে নিয়ে গেছে মাজেদকে। আইনত কোনও বিদেশি গোয়েন্দা এজেন্সি বিনা অনুমতিতে অন্য দেশে ঢুকে অভিযান চালাতে পারে না।

বাংলাদেশ সরকারিভাবে ৭ এপ্রিল জানিয়েছে, করোনার ভয়েই মার্চ মাসের শেষদিকে ভারত থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসেন বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনি। বাংলাদেশের কাউন্টার টেররিজমের গোয়েন্দারা তাকে মিরপুর থেকে গ্রেপ্তার করে।

প্রতিবেদনটিতে আরো দাবি করা হয়েছে, বাংলাদেশ সরকারের এই যুক্তি তেমন জোরালো নয়। কারণ ভারতে প্রথম করোনা আক্রান্তের খোঁজ মেলে ৩০ জানুয়ারি। তাও আবার দক্ষিণ ভারতের রাজ্য কেরলে। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর খুনি লুকিয়ে ছিলেন কলকাতায়। এখানে করোনা ধরা পড়ে ১৮ মার্চ। ফলে ২২ ফেব্রুয়ারি মাজেদ কলকাতা থেকে বাংলাদেশে যাবেন কেন?

করোনায় বাইরে থেকে ঘরে ঢুকতে যা মেনে চলবেন?

ডেস্ক রিপাের্ট : দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা হাজার ছাড়িয়েছে। সংক্রমণের কারণে পুরো দেশেই চলছে অঘোষিত লকডাউন। স্কুল-কলেজসহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, অফিস আর সব ধরণের কল-কারখানা বন্ধ থাকার কারণে প্রায় সবাইকেই ঘরে থাকতে হচ্ছে। তবে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য কিনতে কিংবা স্বাস্থ্যসেবা নিতে সাধারণ মানুষদের অনেকেই বের হতে হচ্ছে ঘর থেকে।

এছাড়া যারা জরুরী সেবা ও কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িত তারাও অনেকেই দিনের একটা সময় ঘরের বাইরে থাকছেন।

পেশাগত কারণে প্রায় প্রতিদিনই বাইরে বের হতে হয় জুবায়ের ফয়সালকে। তিনি বলেন, করোনাভাইরাসে সংক্রমণ হওয়া নিয়ে যে উদ্বিগ্নতার মাত্রা বলে বোঝানো যাবে না।

তিনি জানান, বাইরে বের হওয়ার বিষয়ে যত ধরণের সাবধানতার পদক্ষেপ নেয়া সম্ভব তার সবই নিয়ে থাকেন তিনি। এমনকি ঘরে নিজের পরিবারের অন্য সদস্যদের থেকে দূরে থাকেন তিনি।

যে জুতাটা পরে বের হই সেটা ঘরে ঢোকাই না। আমি আলাদা ঘরে থাকি। খাবারটা রেডি করে একটা জায়গায় রেখে দেয়, আমি খেয়ে নেই। ছোট একটা বাচ্চা আছে। সে আমার কাছে আসতে চায়। সবকিছু মিলে তো একটু কঠিনই।

মোহাম্মদপুরের বাসিন্দা নুসরাত জাহান একজন স্কুল শিক্ষিকা। তিনি বলেন, সাপ্তাহিক বা চার থেকে পাঁচ দিন পর পর বাজার আর ওষুধ কিনতে লকডাউনের মধ্যেও বাইরে বের হতে হয় তাকে।

এই সময়টাতে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ হয়ে যায় কিনা তা নিয়ে বেশ দুঃচিন্তার মধ্যেই থাকতে হয় তাকে।

তিনি বলেন, অবস্থাটা এমন যে, বাসার কাউকে বাইরে বের হতে দিতে মন চায় না। আবার নিজে বের হলেও একটা অস্থিরতা কাজ করে।

তবে বাইরে গেলেও কিছু সাবধানতা মেনে চলেন তিনি। বলেন, হাতে গ্লাভস আর মুখে মাস্ক পরে বাইরে বের হন। আর বাইরে থেকে আসলে বাথরুমে গিয়ে ডেটল পানি দিয়ে কাপড় ধুয়ে গোসল করেন তিনি। তবে এরপরেও মনে চিন্তা থেকে যায়। মনে হয় যে, কোন কারণে হয়তো জার্মস চলে এসেছে শরীরে, কোথাও হয়তো রয়েছে জীবাণু, তিনি বলেন।

এমন পরিস্থিতিতে বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দিচ্ছেন খুব বেশি জরুরী না হলে বাইরে বের না হওয়ার।

এ বিষয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ডা. আফজালুননেসা বিবিসি বাংলাকে বলেন, কাজ কতটা জরুরী আগে সেটা বিবেচনায় নিতে হবে। তারপর বাইরে বের হয়ে ফেরার পর বিশেষ কিছু সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।-বিবিসি

ফেসবুকে ভিডিওবার্তায় ক্রিকেটার জাহানারা, চিকিৎসক এবং নার্সদের আমার স্যালুট

নিজস্ব প্রতিবেদক : সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি ভিডিওবার্তায় এ কথা জানিয়েছেন ক্রিকেটার জাহানারা।
মঙ্গলবার (১৪ এপ্রিল) সকালে প্রকাশিত ভিডিওতে তিনি বলেন, ‘আজ বাংলা বছরের প্রথম দিন। এ দিনটাকে আমরা সবাই পান্তা-ইলিশ, নতুন জামাকাপড়ের মাধ্যমে বরণ করে নেই। আজ সম্পূর্ণ ভিন্ন। কারণ যে পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে আমরা পার হচ্ছি, এটি যদি খুব ভালোভাবে মোকাবিলা করতে পারি, তাহলে শুধু আজকের উপলক্ষ নয়, সামনে আরও যত উপলক্ষ আসবে, সবগুলোই পরিবারের সঙ্গে ভালোভাবে উদযাপন করতে পারব।
এই পরিস্থিতিতে যারা জীবনে পরোয়া না করে রোগীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন, সেই চিকিৎসক এবং নার্সদের আমার স্যালুট। আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ তাদের। ইতোমধ্যে অনেক চিকিৎসক করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছে এবং অনেক চিকিৎসক-নার্স সংক্রমিত হয়ে কোয়ারেন্টাইনে আছেন। আল্লাহর কাছে দোয়া করি আপনারা সুস্থ হয়ে ফিরে আসুন।

আমি ধন্যবাদ দিচ্ছি প্রশাসনের যারা আছেন পুলিশ, সেনাবাহিনী, র‌্যাব- আপনারা যারা মৃত্যুর ঝুঁকি নিয়ে রাস্তায় থেকে, আমাদের বাড়িতে থাকা নিশ্চিত করছেন। আজ বছরের প্রথম দিন, পরিবারের সঙ্গে না থেকে আমাদের জন্য ডিউটি করছেন। আপনাদেরকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ এবং আমার স্যালুট।
একইসঙ্গে আমি ধন্যবাদ জানাচ্ছি ডেলিভারি বয়দেরকে। যারা অনেক অনেক ঝুঁকি নিয়ে আমাদের দ্বারে দ্বারে খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন, জরুরি ওষুধ পৌঁছে দিচ্ছেন। আপনাদের অনেক অনেক ধন্যবাদ। একটা কথাই শুধু বলতে চাই, বাড়িতে থাকুন, সুস্থ থাকুন, নিরাপদ থাকুন। ধন্যবাদ।’

হোম কোয়ারেন্টাইনে স্বামী- স্ত্রীর টেবিল টেনিস প্রতিযোগিতা

স্পোর্টস ডেস্ক : করোনার কারণে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা ফুটবলারদের মধ্যে রোনালদো ও মেসিকে ব্যক্তিগত জিমে ফিটনেস চর্চা করতে দেখা গিয়েছে। ভারতীয় ক্রিকেটারদের মধ্য শিখর ধাওয়ান, দীপক চাহার, সুরেশ রায়নাদের ফিটনেস চর্চার ছবি ধরা পড়েছে। এবার স্ত্রী ও মেয়েকে নিয়ে ফিটনেস চর্চা শুরু করে দিলেন অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার ডেভিড ওয়ার্নার। কখনো স্ত্রীকে নিয়ে টেবিল টেনিসও খেলছেন তিনি।
চলতি বছরে আদৌও ক্রিকেট শুরু হবে কিনা, তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। ক্রিকেট থেকে এই দীর্ঘ অবসরের কারণে তৈরি করা ফিটনেসের মান পড়তে পারে। সে কারণে নিয়মিত ব্যক্তিগত জিমে ওজন তুলে প্র্যাকটিস করছেন ওয়ার্নার।
নিজে শুধু ফিটনেস চর্চা করে থেমে থাকছেন না, মেয়েকও ফিটনেস চর্চার তালিম দিচ্ছেন। -টুইটার থেকে

শ্রীনগরে র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে ডাকাত দলের ২ সদস্য নিহত

ডেস্ক রিপাের্ট : মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলায় র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে দুই ডাকাত সদস্য নিহত হয়েছে। এ সময় দুই র‌্যাব সদস্য আহত হয়। ঘটনাস্থল থেকে আগ্নেয়াস্ত্র, গুলি ও স্বর্ণালংকার উদ্ধার করা হয়।

ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ের শ্রীনগর উপজেলার বেজগাঁও এলাকায় মঙ্গলবার দুপুরে বন্দুকযুদ্ধের এই ঘটনা ঘটে। র‌্যাবের দাবি নিহতরা আন্তজেলা ডাকাত দলের সদস্য।

নিহত ডাকাত সদস্যের মধ্যে মাসুদ (৩৫) নামে একজনের নাম জানা গেলেও অপরজনের পরিচয় জানা যায়নি।

র‌্যাব-২ এর কোম্পানি কমান্ডার (সিপিসি-৩) পুলিশ সুপার মহিউদ্দিন ফারুকী সাংবাদিকদের জানান, দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলার বেজগাঁও এলাকায় অভিযানে চালায় র‌্যাব সদস্যরা।

তিনি জানান, র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে গুলি ডাকাত দলের সদস্যরা গুলি ছুড়ে। র‌্যাব সদস্যরা পাল্টা গুলি ছুড়লে ডাকাত সদস্যরা পালিয়ে যায়। পরে ডাকাত দলের দুই সদস্যকে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়। এ সময় সেখান থেকে একটি পিস্তল, ২ রাউন্ড গুলি ও ৭ ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার উদ্ধার করা হয়।

শ্রীনগর থানার ওসি হেদায়েতুল ইসলাম ভূঞা জানান, নিহত দুই ডাকাত সদস্যের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হবে।

করোনায় আক্রান্ত সন্দেহে এক নারীকে জঙ্গলে ফেলে গেলাে স্বামী ও সন্তানরা

ডেস্ক রিপাের্ট : টাঙ্গাইলের সখীপুরে জঙ্গলে এক নারীকে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত সন্দেহে ফেলে রেখে পালিয়ে গেছে তার স্বামী-সন্তানরা। সোমবার গভীর রাতে উপজেলার গজারিয়া ইউনিয়নের ইছাদিঘী গ্রামের এক জঙ্গলে ফেলে যাওয়া ওই নারীকে উদ্ধান করা হয়েছে।

গজারিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল মান্না মিঞা ও স্থানীয় ইউপি সদস্য আবুল কালাম আজাদ জানান, জঙ্গলে অপরিচিত ওই নারীর চেঁচামেচির শব্দ শুনে বিষয়টি ইউএনওকে অবগত করা হয়।

ইউএনও আসমাউল হুসনা লিজা বলেন, সোমবার রাত দেড়টার দিকে পুলিশ সদস্য ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসারসহ আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই নারীর পরিচয় জানতে পারি। ওই নারীর বাড়ি শেরপুর জেলার নালিতাবাড়িতে। তার স্বামী-সন্তান গাজীপুরের সালনায় পোশাক কারখানায় কাজ করেন। তার স্বামী-সন্তান ও স্বজনরা রাতে করোনা সন্দেহে তাকে জঙ্গলে ফেলে রেখে সকালে বাড়ি নিবে বলে আশ্বাস দিয়ে পালিয়ে যায়। পরে তাকে রাতেই ঢাকায় হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. শাহীনুর আলম জানান, ওই নারীর জ্বর, শ্বাসকষ্ট ও গলা ব্যথা রয়েছে। রাতেই তাকে এ্যাম্বুলেন্সে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আইসোলেশন বিভাগে ভর্তি করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

ত্রাণের জন্য দেশজুড়ে হাহাকার : বললেন রিজভী

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী অভিযোগ করে বলেছেন, ক্ষমতাসীনদের আত্মসাৎ ও লুটের কারণেই সারাদেশে ত্রাণ নিয়ে হাহাকার চলছে।

মঙ্গলবার (১৪ এপ্রিল) সকালে রাজধানীতে ‘ফিউচার অব বাংলাদেশ’ নামক সংগঠনের উদ্যোগে ঘরে ঘরে ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছিয়ে দেয়ার এক কর্মসূচির উদ্বোধন করতে গিয়ে তিনি এ অভিযোগ করে।

রিজভী বলেন, আজকে সরকারি যে ত্রাণ, এই ত্রাণ আত্মাসাৎ হয়ে যাচ্ছে। কাদের দ্বারা? এই সরকারি দলের লোকদের দ্বারা। হাহাকার করছে খুলনার রেল স্টেশনের শ্রমিকরা একটু ত্রাণের জন্য। কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালের নার্সরা খাবার পাচ্ছে না। অথচ ক্ষমতাসীন দলের লোকজনদের বাড়িতে চাল বোঝাই হয়ে যাচ্ছে। কার চাল? জনগনের চাল। তাদের টাকায় কেনা চাল।

তিনি বলেন, যখন সকল মহল থেকে বলা হচ্ছে যে, সমন্বিত উদ্যোগের মাধ্যমে এই মহামারী মোকাবিলা করতে হবে। তখন আমরা দেখতে পারছি যে, সরকার একগুয়েমী করছে। একতরফাভাবে কাজ করতে গিয়ে শুধু নিজের দলের লোকজনদের পেট ভরানোর কাজটা গত ১০ বছর ধরে যেভাবে করেছেন এখনও সেটাই করছে। যখন মানুষ রাস্তায় মরে পড়ে থাকছে, মানুষ একটু খাবারের জন্য হাহাকার করছে।

করোনা মোকাবেলায় পিতৃভূমি আলজেরিয়ার পাশে জিনেদিন জিদান

স্পোর্টস ডেস্ক : ফ্রান্সের কিংবদন্তী ফুটবলার জিনেদিন জিদানকে ওই দেশের নাগরিক বলেই অনেকে জানেন। জম্ম সূত্রে ফ্রান্সের নাগরিকও বটে। কিন্তু জিদানের বাবা-মা আলজেরিয়ার। স্বাভাবিকভাবেই আলজেরিয়ার প্রতি আলাদা টান অনুভব করেন রিয়াল মাদ্রিদের কোচ। এবার করোনা ভাইরাসের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত সেই পিতৃভূমির পাশে দাঁড়ালেন ফরাসি কিংবদন্তি।

করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য আলজেরিয়ার বেয়াইয়া নামক অঞ্চলের একটি হাসপাতালকে নিজ ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে মেডিক্যাল সরঞ্জাম সরবরাহ করেছেন জিদান। উত্তর আফ্রিকার দেশটির এই অঞ্চলেই বাস করতো জিদানের পরিবার। ১৯৫৩ সালে তারা ফ্রান্সে পাড়ি জমান। -লা ট্রিবিউন ফ্রান্স
জিদান ও তার বাবা কর্তৃক পরিচালিত ফাউন্ডেশনটি বেয়াইয়া অঞ্চলের হাসপাতালে করোনা চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় কিট, ভেন্টিলেটর, মনিটর ও অন্যান্য চিকিৎসা সামগ্রী দান করেছে।
আফ্রিকা মহাদেশের মধ্যে করোনায় সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছে আলজেরিয়া। এখন পর্যন্ত দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ১৭০০ এবং মৃতের সংখ্যা দুই শতাধিক। -সেন্টার প্রেস