কোনো হাসপাতাল চিকিৎসা দেয়নি, মারা গেলেন ক্যান্সারে আক্রান্ত ঢাবি শিক্ষার্থী

নিজস্ব প্রতিবেদক : গত ২৬ মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সুমন চাকমা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে কিছুটা হেয়ালি করেই লিখেছিলেন, ‘আমার করোনা হয়নি, অথচ পরিস্থিতি দেখে মনে হচ্ছে হয়তো করোনায় আমার মৃত্যু হতে পারে।’ অবশেষে হেয়ালি থেকে তার সে লেখাই সত্য হয়েছে। তবে করোনা অক্রান্ত হয়ে নয়, ক্যান্সারে আক্রান্ত এই শিক্ষার্থী বিনা চিকিৎসায় সোমবার সকালে মারা গেছেন।

এর আগে চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন হাসপাতালে গেলেও করোনাভাইরাসের ভয়ে তাকে চিকিৎসা দেয়নি কোনো হাসপাতাল। ফলে বিনা চিকিৎসাতেই মৃত্যু হয় তার। সুমন চাকমা ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। শিক্ষা ও গবেষণা অনুষদের ২২তম ব্যাচের ছাত্র সুমন জগন্নাথ হলের আবাসিক শিক্ষার্থী ছিলেন।

সুমনের সহপাঠী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সরোয়ার আলম বলেছেন,‘বন্ধু সুমন অনেকদিন ধরেই ক্যান্সারে আক্রান্ত। সে সম্প্রতি ভারত থেকে চিকিৎসাও নিয়ে এসেছিল। পরে তার ফুসফুসজনিত রোগ দেখা দেয়ায় সে বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ঘোরে। শেষ পর্যন্ত বিনা চিকিৎসায় তাকে মারা যেতে হল।’

সুমন চাকমার মৃত্যুর বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর এ কে এম গোলাম রব্বানী বলেন, তিনি এই ধরনের সংবাদ সম্পর্কে পুরোপুরি নিশ্চিত নন। তবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তিনি বিষয়টি দেখেছেন। তার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা চলছে বলে তিনি যুগান্তরকে জানান।

১৮ এপ্রিল সংসদ অধিবেশন বসছে

ডেস্ক রিপাের্ট : করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের মধ্যেই আগামী ১৮ এপ্রিল বসছে একাদশ জাতীয় সংসদের সপ্তম অধিবেশন। সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রক্ষার্থে অধিবেশন শুরু হতে যাচ্ছে। এর আগে ২২ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে সংসদের বিশেষ অধিবেশন হওয়ার কথা ছিল। করোনা পরিস্থিতির কারণে সেই অধিবেশন স্থগিত করা হয়।

সংবিধানের ৭২ অনুচ্ছেদের (১) দফায় প্রদত্ত ক্ষমতাবলে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এ অধিবেশন আহ্বান করেছেন। সংবিধানের ১২৩ অনুচ্ছেদের (৩) দফার (ক) উপদফায় উল্লেখ আছে- ‘প্রথম সংসদের এক অধিবেশনের সমাপ্তি ও পরবর্তী অধিবেশনের প্রথম বৈঠকের মধ্যে ৬০ দিনের অতিরিক্ত বিরতি থাকবে না।’

ফলে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতায় একাদশ সংসদের সপ্তম অধিবেশন বসছে ১৮ এপ্রিল। ওই দিন বিকাল ৫টায় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশন শুরু হবে। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বৃদ্ধি পাচ্ছে, তাই কীভাবে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে অধিবেশন পরিচালনা করা যায় সে বিষয় নিয়ে পর্যালোচনা চলছে।

এর আগে ১৮ ফেব্রুয়ারি জাতীয় সংসদের ষষ্ঠ অধিবেশন শুরু হয়। সেই হিসাবে ১৮ এপ্রিল ৬০ দিনের সময়সীমা।

সংসদ সচিবালয় সূত্রে জানা গেছে, এ অধিবেশন খুবই সংক্ষিপ্ত হবে। হতে পারে এক বা দুই দিনের অধিবেশন। এরপর যেহেতু জুন মাসে বাজেট অধিবেশন রয়েছে, তাই সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা পূরণে এবারের অধিবেশন হবে।

‘হল অফ ফেমে’ জায়গা করে নিলেন কোবে ব্রায়ান্ট

স্পোর্টস ডেস্ক : বাস্কেটবলের ক্যারিয়ারে ২০ বছর কাটিয়েছেন ঘরের দল লস অ্যাঞ্জেলেস লেকার্সে। এই ক্লাবের হয়ে পাঁচবারের এনবিএ চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন ব্রায়ান্ট। দুইবার ফাইনালে জিতেছেন মোস্ট ভ্যালুয়েবল খেলোয়াড়ের খেতাব। একবার বাস্কেটবল লিগের মোস্ট ভ্যালুয়েবল খেলোয়াড়ও হয়েছেন ব্রায়ান্ট। অবসরের আগে হয়েছিলেন বাস্কেটবলের ইতিহাসে চতুর্থ সর্বোচ্চ স্কোরার।
এতো সব অর্জনের মালিক ব্রায়ান্ট চলতি বছরের ২৬ জানুয়ারি হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় মারা যান। এ সময়ে তার বয়স হয়েছিল ৪২ বছর। – নিউ ইয়র্ক পোষ্ট

আমেরিকার ইতিহাস সংরক্ষণকারী জাদুঘর প্রতিবছর ‘নাইস্মিথ মেমোরিয়াল বাস্কেটবল’ মরণোত্তর হল অফ ফেম প্রদান করে থাকে। মাত্র দুই মাস আগে মারা যাওয়া ব্রায়ান্ট এতো কম বয়সেই হল অফ ফেমে জায়গা করে নেওয়ার তালিকায় চলে আসেন। আর প্রথমবারই তাকে হল অফ ফেমে জায়গা দেয় জাদুঘরটি। – দ্য ওয়ার্ল্ড স্ট্রিট জার্নাল

৪ এপ্রিল এবারের হল অফ ফেমের তালিকা প্রকাশ করে তারা। এই বছরের ২৯ আগস্ট তারা এটি সন্নিবেশন করবে নিজেদের জাদুঘরে। আর এর সার্টিফিকেট তুলে দিবে ব্রায়ান্টের স্ত্রী ভ্যানেসার হাতে। স্বামীর এমন অর্জনে গর্বিত ভ্যানেসা, ‘এটা তার জন্য অবিশ্বাস্য সম্মানের। আমরা তার জন্য গর্বিত। সে যেখানে আছে, সেখান থেকে আমাদের সঙ্গে যোগ উদযাপন করছে আশা করি। -জি নিউজ

এক মাসে বিশ্বের ৫০ দেশে ৪০০ কোটি মাস্ক বিক্রি করল চীন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বিশ্বজুড়ে ভয়াবহ করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ায় গত এক মাসে বিভিন্ন দেশে প্রায় ৪০০ কোটি মাস্ক বিক্রি করেছে চীন। এ নিয়ে সিঙ্গাপুরভিত্তিক সংবাদমাধ্যম সিএনএ একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে।

রবিবার চীনের শুল্ক দপ্তরের কর্মকর্তা জিন হাই জানান, এ পর্যন্ত ৩৮৬ কোটি মাস্ক, ৩ কোটি ৭৫ লাখ সুরক্ষা পোশাক, ১৬ হাজার ভেন্টিলেটর এবং ২৮ লাখের বেশি করোনাভাইরাসের টেস্টিং কিট রপ্তানি করেছেন তারা।

১ মার্চ থেকে ৫০টিরও বেশি দেশে মোট ১৪০ কোটি ডলারের (প্রায় ১২ হাজার কোটি টাকা) এসব চিকিৎসাসামগ্রী রপ্তানি হয়েছে বলে তিনি জানান।

তবে নেদারল্যান্ডস, ফিলিপাইন, ক্রোয়েশিয়া, তুরস্ক ও স্পেনে পাঠানো চিকিৎসাসামগ্রী নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। দেশগুলো চীনের এসব সামগ্রী নিম্নমানের ও ত্রুটিযুক্ত বলে অভিযোগ করে।

এর মধ্যে নেদারল্যান্ডস সরকার গত সপ্তাহে চীন থেকে পাঠানো ১৩ লাখ মাস্কের মধ্যে ছয় লাখ ফিরিয়ে দিয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ডিসেম্বরের শেষে চীনের হুবেই প্রদেশ থেকে করোনাভাইরাসের উৎপত্তি। দুই মাসের মধ্যে পৃথিবীর দেশে দেশে সংক্রমিত হতে থাকে এই ভাইরাস। মার্চেই দুই শতাধিক দেশ করোনায় আক্রান্ত হলেও প্রকোপ কমে আসে চীনে।

পরিসংখ্যান নিয়ে সন্দেহ থাকলেও আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা অনেকটা নিয়ন্ত্রণের রাখতে পেরেছে চীন। দেশটিতে এই মুহূর্তে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা একেবারে শূন্যের কোটায় নেমে এসেছে। ফলে চীন এখন বিশ্বের কাছে ‘করোনা মোকাবিলা মডেল’ হিসেবে পরিচিত হয়ে উঠেছে।

নিজের দেশে সফলভাবে করোনা মোকাবিলা করে বিশ্বজুড়ে চিকিৎসা ও সুরক্ষাসামগ্রীর সংকটে এগিয়ে এসেছে দেশটির কমিউনিস্ট শাসিত সরকার।

করোনা রোধে আনুশকার ‘লকডাউন ডায়েট’

বিনোদন ডেস্ক : ফরচুন ইন্ডিয়ার পাওয়ারফুল ওম্যানখ্যাত অভিনেত্রী আনুশকা শর্মা। অভিনয়ের পাশাপাশি সিনেমা প্রযোজনায়ও সমানভাবে সফল সোশ্যাল মিডিয়ায় জনপ্রিয়তায়ও সবার থেকে এগিয়ে। জীবনসঙ্গী হিসেবে বেছে নিয়েছেন বিরাট কোহলিকে। করোনাভাইরাসে লকডাউনে প্রচুর ইনস্টা স্টোরি পোস্ট করেছেন আনুশকা শর্মা। তিনি কী খাচ্ছেন জানিয়েছেন তার লকডাউন ডায়েট।

করোনাভাইরাসকে মোটেও ভয় পান না। লকডাউনে সেই কথাই যেন বলছে আনুশকা শর্মার ইনস্টা ডায়েরি। নানা ধরনের মজার স্টোরি সেখানে জায়গা করে নিচ্ছে। বিরাটের চুল কেটে দেওয়া থেকে লকডাউন ডায়েট, কী নেই সেখানে! কেন্দ্রের নির্দেশ মেনে বিরুষ্কা আপাতত ঘরবন্দি। তা বলে স্বাস্থ্যবিধি মোটেই অমান্য করছেন না তারা।

নিজে যেমন পুষ্টিকর ডায়েট খাচ্ছেন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে তেমনই খাওয়াচ্ছেন বিরাটকেও। যারা বিরুশক অন্ধ অনুরাগী তাদের নিশ্চয়ই কৌতূহল, কী খাচ্ছেন এই সময় আনুশকা। অভিনেত্রীর ইনস্টা বলছে, হলদি দুধ, লেবু পানির মতো পানীয় দিয়ে দিন শুরু হচ্ছে দম্পতির। যেকোনও ভিটামিন সি সমৃদ্ধ ফল অর্থাৎ সাইট্রাস ফল রোজ একটি করে খাচ্ছেন সুস্থ থাকতে।

প্রতিদিন, প্রতিমুহূর্তে বিরুশক যা যা করছেন সমস্ত ছবি পোস্ট করছেন ইনস্টায়। রাতে শুতে যাওয়ার আগেও তাদের দেখা যাচ্ছে ইনস্টায়। ক্যাপশনে লিখেছেন শুভরাত্রি। যা দেখে বোঝাই যাচ্ছে, দিনের শেষে ঘুমের দেশে যাচ্ছেন তারা।

আপাতত সেল্ফ কোয়ারান্টাইনে আছেন বিরুশক। একেবারেই বাইরে বেরোচ্ছেন না। ফলে, একান্তে অনেকটা সময় কাটাতে পারছেন তারা একে অন্যের সঙ্গে। সেই একান্ত অবসর রঙিন তাদের খুনসুটিতে। সেই মজা, সেই দুষ্টুমি ছড়িয়ে পড়ছে সোশ্যালেও। তারই ঝলক দেখতে নেটপাড়ায় উপচে পড়া ভিড়।

দিন কয়েক আগে আনুশকা বিরাট আর তাঁদের পোষ্য সারমেয়কে নিয়ে ছবি তুলে পোস্ট করেছিলেন। ক্যাপশনে লিখেছিলেন, “মেঘ দেখে কেউ করিস নে ভয়, আড়ালে তার সূর্য হাসে…। অর্থাৎ প্রতিটি মেঘের আড়ালে লুকিয়ে সূর্যের সোনালি ঝিলিক। এতদিন আমরা শুধুই নিজেদের নিয়ে মত্ত ছিলাম। করোনা শেখালেো সবাইকে নিয়ে বাঁচতে। সবাইকে নিয়ে ভাবতে। মানব সভ্যতা ফের ঐক্যবদ্ধ। প্রত্যেক জিনিসেরই ইতিবাচক কিছু না কিছু দিক রয়েছে। করোনা মহামারীর এটাই পজিটিভ দিক।”

কিছুদিন আগে, তারা আরো একটি ভিডিও শেয়ার করে সুরক্ষা এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার আহ্বান জানিয়েছে। দম্পতি বলেন, “জানি, খুব কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি আমরা। এই মুহূর্তে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ বন্ধের একমাত্র উপায় সামাজিক দূরত্ব। মানসিক নয়।”

অভিনেত্রীকে শেষবার দেখা গেছে আনন্দ এল রাইয়ের ছবি ‘জিরো’তে। সহঅভিনেতা ছিলেন শাহরুখ খান, ক্যাটরিনা কাইফ। আগামী দিনে তার পাইপলাইনে কী কী কাজ আছে, এখনও কিছুই ঘোষণা করেননি আনুশকা। আপাতত তিনি পুরোটাই লকডাউনে।

মহামারির সাহিত্য-সিনেমার জনপ্রিয়তা তুঙ্গে

বিনোদন ডেস্ক : পুরো পৃথিবী আজ প্রাণসংহারী করোনাভাইরাসের সুতায় বাঁধা পড়েছে। সব ছাপিয়ে বিশ্ব জুড়ে একটাই আলোচিত বিষয়— নোভেল করোনাভাইরাসের দাপট। কোন দেশে কত জন আক্রান্ত হলেন, রোগ কী ভাবে সংক্রমিত হচ্ছে, লকডাউন কত দিন চলবে, এই আলোচনার মধ্যেই রাতারাতি প্রাসঙ্গিক হয়ে উঠেছে সাহিত্য-সিনেমায় মহামারি বা অতিমারির প্রসঙ্গও।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের মাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে প্রায় সারা বিশ্ব জুড়ে একটি সিনেমা নিয়ে আলোচনা শুরু হয়। ২০১১ সালে মুক্তি পাওয়া ছবি ‘কন্টাজিয়ন’। এশিয়ার একটি দেশে বাদুড়ের দেহ থেকে শুকরের দেহে সংক্রমণ ছড়ায়। সেই শুকরের মাংস খেয়ে সংক্রমিত হন এক মহিলা। তার পরে সেই এক জনের থেকে কী ভাবে একটি ভাইরাস সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে এবং অতিমারির আকার ধারণ করে, সিনেমার বিষয় ছিল সেটাই। যা প্রায় হুবহু মিলে গেছে বর্তমান পরিস্থিতির সঙ্গে। ফলে নতুন করে ফের সিনেমাটি নিয়ে আগ্রহ তৈরি হয়েছে মানুষের মধ্যে। প্রযোজক সংস্থার দাবি, ২০২০ সালে সবচেয়ে বেশি দেখা সিনেমার তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে ‘কন্টাজিয়ন’।

সিনেমার পাশাপাশি সাহিত্যে মহামারির প্রসঙ্গও ভিড় করছে অনেকের স্মৃতিতে। করোনা-সংক্রমণ জাঁকিয়ে বসায় পাঠকেরা মনে করিয়ে দিচ্ছেন আলবেয়ার কামুর ‘দ্য প্লেগ’ উপন্যাসের কথা। সাহিত্য সমালোচকদের একাংশ উপন্যাসটিকে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ে ফ্রান্সে নাৎসি বাহিনীর হানার রূপক হিসেবে মানলেও বর্তমান সময়ে গুরুত্ব পাচ্ছে এর আক্ষরিক বর্ণনাই। কোয়রান্টিন, বিশেষ পদ্ধতিতে সৎকার, স্তব্ধ পরিবহন ব্যবস্থা, চিকিৎসাকর্মীদের উদ্যোগ, প্রিয়জনেদের জন্য উদ্বেগ, বিপর্যয়ে এক সঙ্গে লড়াইয়ের অঙ্গীকার— এ যেন বইয়ের পাতায় বর্তমানেরই প্রতিচ্ছবি। ইউরোপে করোনা সংক্রমণ মারাত্মক আকার ধারণ করার শুরুতেই ইংল্যান্ডে বইটির চাহিদা এত বেড়ে গিয়েছিল যে, সেটি পুনর্মুদ্রণ করার নির্দেশ দেয় প্রকাশক সংস্থাটি।

বাংলা সাহিত্যেও বারবার এসেছে প্লেগ, কলেরার বর্ণনা। শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের ‘পণ্ডিতমশাই’, তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘গণদেবতা’ ও ‘পঞ্চগ্রাম’ উপন্যাসের কথা মনে করাচ্ছেন সাহিত্যিক শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়।

তিনি বলেন, ‘আগে দূষিত জল খেয়ে মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়তেন, গ্রামের পর গ্রাম উজাড় হয়ে যেত। সব সময়ে তার ঠিক পরিসংখ্যানও মিলত না। স্বাভাবিক ভাবেই সাহিত্যে তার প্রতিফলন ঘটেছে। তবে বিশ্বজোড়া এমন ভয়াবহ পরিস্থিতির বর্ণনা কোথাও পাইনি। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ, দাঙ্গার স্মৃতি রয়েছে। কিন্তু এমন অভিজ্ঞতা তো আমাদের কাছেও নতুন।’’

তবে অভূতপূর্ব এই পরিস্থিতিতে এমন সিনেমা দেখা বা বই পড়া কি আরও বেশি আতঙ্ক তৈরি করবে না? মনোবিদ অনুত্তমা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতে, ‘‘করোনা সংক্রান্ত কোনও কিছু দেখবেন না, এটা বলা তো যুক্তিযুক্ত নয়। মানুষ একটা উত্তর খোঁজার চেষ্টা করছে‌ন। সময়ের সঙ্গে সিনেমার গল্প মিলে যাওয়ায় তাঁরা সেটা দেখছেন। তবে মনে রাখতে হবে, সিনেমায়, গল্পে অতিরঞ্জন থাকে। শুধু সেই দিকটা যেন বেশি গুরুত্ব না পায়। যে যেমন ভাবে পারছেন, পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছেন।’’ তার পরামর্শ, এমন ধরনের সিনেমার পাশাপাশি মন ভালো করে দেওয়ার মতোও কিছু দেখুন। তবে ঠিক তথ্য পাওয়ার জন্য নির্ভরযোগ্য সূত্রের উপরে ভরসা করাই উচিত। করোনা-আক্রান্তদের সুস্থ হয়ে ওঠার মতো ইতিবাচক তথ্যকেও গুরুত্ব দিতে হবে এই সময়ে।

অনিশ্চয় এই সময়ের তুলনা সাহিত্যে খোঁজার প্রবণতাকে গুরুত্ব দিতে নারাজ ভাষাবিদ পবিত্র সরকার। তার মতে, নিরাপদ বাসস্থান রয়েছে যাদের, তারাই এ নিয়ে আলোচনা করছেন। তিনি বলেন, ‘‘দেশের মরণ-বাঁচন সমস্যা। এ সময়ে মহামারি নিয়ে বই পড়ছেন জনসংখ্যার খুব ক্ষুদ্র একটা অংশ। এটা বুদ্ধিজীবীদের ব্যাপার।’’- আনন্দবাজার।

দীপিকার স্বভাবে রেগে গেলেন রণবীর!

বিনোদন ডেস্ক : করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্বের অনেক দেশের মতো ভারতেও চলছে লকডাউন। সবার মতোই বলিউড অভিনেত্রী দীপিকা পাড়ুকোন ও তার স্বামী রণবীর সিংও ঘরবন্দি। এ একই ঘরে একসাথে থাকতে থাকতে স্ত্রী দীপিকার উপর রেগে গেলেন রনবীর। পরিবারের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে নালিশও করলেন দীপিকার নামে।

কী করেছেন দীপিকা? লকডাউন শুরু হওয়ার পর থেকেই কিছুতেই চুপ করে বসে থাকতে পারছেন না অভিনেত্রী। কখনও বাসন মাজছেন, কখনও রণবীরের জন্য খাবার বানাচ্ছেন আবার কখনও বা নেমে পড়েছেন ঘর মোছার কাজে। আর তাতেই বেজায় চটেছেন রণবীর। এক মিনিটের জন্যও নাকি চুপ করে বসে থাকতে পারেন না তাঁর স্ত্রী, অভিযোগ ‘খিলজি’র।

কদিন আগে ঘর পরিষ্কার করতে গিয়ে পিঠে ব্যথা লাগে দীপিকার। রণবীর তাঁকে বিশ্রাম করতে বলে বাড়ির নিচেই জিমে যান। রণবীরের চোখের আড়াল হতেই ব্যথা নিয়েই দীপিকা আবারও কাজ করতে থাকেন। রণবীর ফিরে এসে ওই দৃশ্য দেখে যে ভীষণ রেগে গিয়েছিলেন তা নিজেই জানিয়েছেন দীপিকা। “সব সময় এই ফটফট না করে কি থাকতে পার না? এক জায়গায় বসতেই পার না তুমি?”, স্ত্রীর কাছে প্রশ্ন রণবীরের।

তাতে যদিও খুব একটা খারাপ লাগেনি দীপিকার। হঠাৎ করেই রণবীরের সঙ্গে এতটা সময় কাটানোর সুযোগ এসেছে তার কাছে। এ সুযোগ মিস করতে একেবারেই নারাজ তিনি।

ভারতে ৩০% বেতন কাটা রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রী মন্ত্রী-সাংসদের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : করেনানাভাইরাসের কারণে অর্থনৈতিক মন্দার পরিপ্রেক্ষিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী ও সাংসদদের বেতন ৩০ শতাংশ কমানো হয়েছে। আগামী এক বছর এই টাকা কাটা হবে। করোনাভাইরাস এবং তার পরবর্তী পরিস্থিতির মোকাবিলায় খরচ করা হবে এই টাকা। আজ সোমবার দেশটির মন্ত্রিসভার বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত হয়।

রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ, উপরাষ্ট্রপতি ভেঙ্কাইয়া নাইডু এবং সব রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের রাজ্যপালরাও তাদের বেতনের ৩০ শতাংশ না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর এ কথা জানিয়েছেন প্রকাশ জাভড়েকর। তিনি জানান, তাদের না নেওয়া বেতন এবং মন্ত্রী-সাংসদদের বেতনের অংশ একটি তহবিলে জমা হবে। সেখান থেকেই ওই অর্থ খরচ হবে করোনাভাইরাসের মোকাবিলায়।

করোনা ঠেকাতে ২১ দিন ধরে লকডাউনে থাকা ভারতে আজ মৃতের সংখ্যা ১০০ ছাড়াল। আক্রান্ত হয়েছে মোট ৪ হাজার। দিন দিন লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের স্যংখ্যা।

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার পর আজই প্রথম মন্ত্রিসভার বৈঠক হলো। ভিডিয়ো কনফারেন্সে বৈঠকের পর প্রকাশ জাভড়েকর জানান, ‘১৯৫৪ সালের মন্ত্রী-সাংসদদের বেতন, ভাতা ও পেনশন আইনে পরিবর্তন আনার জন্য একটি অর্ডিন্যান্সে সায় দিয়েছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা। এপ্রিল মাস থেকেই এই নিয়ম কার্যকর হবে। সাংসদদের পেনশনের ক্ষেত্রেও একই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

করোনা আতঙ্কে বন্ধ হলে ‘পাবজি’

ডেস্ক রিপাের্ট : করোনা আতঙ্কের জেরে পাবজি খেলা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। সম্প্রতি একটি বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে, আগামী বেশ কিছুদিনের জন্য বন্ধ থাকবে এই গেমের সার্ভার।

পাবজি গেমটির ডেভেলপার প্রতিষ্ঠান টেনসেন্ট গেমস ঘোষণা করেছে সারা বিশ্বে কিছু দিনের জন্য বন্ধ করা হচ্ছে এই সার্ভার। ৪ এপ্রিল রাত ১২টা থেকে পাবজি সার্ভার বন্ধ থাকবে ১৫ এপ্রিল রাত ১২টা পর্যন্ত।

বিশ্বের কোনও দেশেই ব্যবহার করা যাবে না এই গেম। করোনাভাইরাসের সংক্রমণে যে ভাবে গোটা বিশ্বে মৃত্যু মিছিল শুরু হয়েছে তা ঠেকাতেই আপাতত লকডাউনে গিয়েছে স্পেন, ইতালি, আমেরিকা, ভারত-সহ শতাধিক দেশ। এই পরিস্থিতিতে তাই কিছু দিনের জন্য পাবজি সার্ভার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে টেনসেন্ট।

করোনা প্রতিরোধী ‘ফেস শিল্ড’ বানাচ্ছে অ্যাপল

ডেস্ক রিপাের্ট : করোনার দিনে প্রতিদিন সবচেয়ে বেশি ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছেন চিকিৎসক, নার্স আর স্বাস্থ্যকর্মীরা। এবার তাদের সুরক্ষা দিতে এগিয়ে এলো অ্যাপল। চিকিৎসক, নার্স আর স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য ভাইরাসরোধক বিশেষ ‘ফেস শিল্ড’ তৈরি করতে চলেছে প্রতিষ্ঠানটি।

রবিবার প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বার্হী কর্মকর্তা টিম কুক টুইট করে জানিয়েছেন, কোভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে যে সমস্ত চিকিৎসক, নার্স আর স্বাস্থ্যকর্মীরা লড়াই চালাচ্ছেন, তাদের সুরক্ষা সুনিশ্চিত করতে এক বিশেষ ধরনের ‘ফেস শিল্ড’ তৈরি করেছে সংস্থা।

তিনি জানান, এই মুহূর্তে পরিস্থিতি আর চাহিদা অনুযায়ী অত্যাবশ্যকীয় সরঞ্জামের জোগান দিতে যতটা সম্ভব সাহায্য করবে অ্যাপল।

জানা গিয়েছে, ইতিমধ্যেই ক্যালিফোর্নিয়ার সিলিকন ভ্যালির বেশ কয়েকটি হাসপাতালে এই ‘ফেস শিল্ড’ সরবরাহ করা হয়েছে অ্যাপলের পক্ষ থেকে।

টিম কুক জানান, প্রতি সপ্তাহে ১০ লক্ষেরও বেশি ‘ফেস শিল্ড’ তৈরি করবে সংস্থা। মার্কিন স্বাস্থ্যকর্মীদের ‘ফেস শিল্ড’ পর্যাপ্ত পরিমাণে দেওয়ার পর বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলোও এগুলো চাহিদা অনুযায়ী সরবরাহ করা হবে। করোনা সংক্রমণ রুখতে এ পর্যন্ত প্রায় ২ কোটি ফেস মাস্কের জোগান দিয়েছে অ্যাপল।