করােনা ভাইরাসের কারণে তিন হাজার কয়েদির মুক্তি প্রক্রিয়া ঝুলে গেল

ডেস্ক রিপাের্ট : কারাগারে ধারণক্ষমতার চেয়ে বেশি বন্দী থাকায় তাদের মধ্যে করোনা সংক্রমণ দেখা দিতে পারে; এমন আশঙ্কায় তিন হাজারের বেশি কয়েদি ও হাজতির মুক্তির সিদ্ধান্ত নিয়েছিল সরকার। কিন্তু এই প্রক্রিয়াটি অনেকটা ঝুলে গেছে। কারা কর্তৃপক্ষের পাঠানো তালিকা প্রস্তাব স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে রয়েছে। প্রক্রিয়া শেষ না হওয়ায় সেটি এখনো আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়নি।

তবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, এটি প্রক্রিয়াধীন। যদিও কবে নাগাদ সেটা আইন মন্ত্রণালয়ে যাবে তা নিশ্চিত করে বলতে পারেননি কেউ।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা মোহাম্মদ শরীফ মাহমুদ অপু বলেন, ‘বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। কাজ শেষ হলেই সেটি আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে।’ কত সময় লাগবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘সেটা বলা যাচ্ছে না।’

করোনাভাইরাসের প্রকোপ বাড়তে থাকায় সংক্রমণ ঝুঁকি এড়াতে বিভিন্ন মামলায় বিচারাধীন তিন হাজারের বেশি হাজতিকে সাময়িকভাবে মুক্তি দেওয়ার কথা সরকারের ভাবনায় ছিল। হাজতিদের একটি তালিকা তৈরি করে প্রস্তাবও পাঠায় কারা-কর্তৃপক্ষ। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উদ্যোগে কারা কর্তৃপক্ষ ওই তালিকা তৈরি করে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রক্রিয়া শেষে সেটি আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানোর কথা রয়েছে। এরপর আদালত মুক্তির বিষয়টি সিদ্ধান্ত নেবে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের করোনা প্রতিরোধ সমন্বয় সেলের তথ্য অনুযায়ী কারাগারে করোনাভাইরাসের কোনো রোগী পাওয়া যায়নি। তবে ঠান্ডা, জ্বর ও কাশির লক্ষণ থাকায় প্রায় ৫০ জন বন্দিকে সতর্কতা হিসেবে পৃথকভাবে রাখা হয়েছে। কোনো বন্দি করোনা আক্রান্ত হলে তাদের জন্য কয়েকটি কারাগারে আইসোলেশন সেন্টার খোলা হয়েছে। এছাড়া কারাগারে বন্দীদের সাক্ষাৎ সীমিত করা হয়েছে।

কারা-অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক মো. আবরার হোসেন বুধবার গণমাধ্যমে জানিয়েছেন, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে এই প্রস্তাব মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। যাদের মামলা এখনো বিচারাধীন, জামিনযোগ্য অপরাধ হলে এদের জামিন দেওয়া যায় কি না, জামিনযোগ্য ছোট-খাটো অপরাধে যারা কারাগারে রয়েছেন, এরকম তিন হাজারের সামান্য বেশি হাজতির নাম প্রস্তাবে রাখা হয়েছে। তবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং আইন মন্ত্রণালয়ের পর শেষ পর্যন্ত বিচারকই সিদ্ধান্ত নেবেন জামিন দেওয়া যায় কি না। মুক্তির বিষয়টি সম্পূর্ণ বিচারকদের হাতে বলে জানান এই কর্মকর্তা।

এদিকে শুক্রবার আইনমন্ত্রী আনিসুল হক গণমাধ্যমকে বলেন, কয়েদি ও হাজতিদের জামিনে মুক্তির বিষয়ে কারা কর্তৃপক্ষের পাঠানো প্রস্তাবনা এখনো আমার দপ্তরে পৌঁছেনি। সেই প্রস্তাবনা যাচাই ও আইনি প্রক্রিয়া বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

আরেক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, আগে প্রস্তাবনা হাতে আসুক, তারপর মন্তব্য করা যাবে।

করোনাকে ঘায়েল করবে চিরচেনা ফল-সবজি

ডেস্ক রিপাের্ট : দেশে দেশে ভয়াল থাবা বসিয়েছে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস বা কোভিড-১৯। এখন পর্যন্ত মহামারিতে রূপ নেওয়া এই ভাইরাসকে দমন করতে সঠিক কোনো প্রতিষেধক আবিষ্কার হয়নি। যেটি রাতারাতি মানুষের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করে তুলবে। তবে স্বস্তির খবর হলো, এমন অনেক উপায় আছে, যেগুলো শরীরের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করে তুলতে পারে। এজন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো খাদ্যাভ্যাস।

করোনা ভাইরাস মোকাবিলার অংশ হিসেবে যুক্তরাজ্যের শীর্ষস্থানীয় পুষ্টিবিজ্ঞানীরা এরই মধ্যে ব্রিটিশ সরকারকে একটি চিঠি লিখেছেন। যেখানে তারা অনুরোধ জানিয়েছেন, সরকার যাতে জনগণকে খাদ্যাভাস বদলানোর পরামর্শ দেয়। এই অভ্যাসেই করোনার হাত থেকে বেঁচে যেতে পারে লাখ লাখ মানুষ।

গবেষকরা বলছেন, এতে কোনো সন্দেহ নেই যে, খাদ্যাভ্যাসের সঙ্গে মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার সম্পর্ক আছে। আর একজন ব্যক্তিকে একটি ভাইরাস কতটুকু কাবু করতে পারবে, সেটা নির্ভর করে তার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার ওপর। ব্রিটিশ গবেষকরা বলছেন, প্রতিদিন পর্যাপ্ত ফল আর শাকসবজি খেলেই কোনো ব্যক্তি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হবেন না—এটা বলার সুযোগ নেই। তবে এটা বলার সুযোগ আছে, পর্যাপ্ত ফল আর শাকসবজি খেলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। আর রোগ প্রতিরোধক্ষমতা শক্তিশালী হলে কোনো ভাইরাস শরীরের ওপর খুব বেশি প্রভাব ফেলতে পারে না।

গবেষণায় দেখা গেছে, অনেকের শরীরে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি ধরা পড়লেও কোনো উপসর্গ ছিল না। এর একটা কারণ হলো- ওই ব্যক্তির রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী।

করোনা ভাইরাসে বয়স্কদের মৃত্যুর হার বেশি। অন্যদিকে ৯ বছরের কম বয়সী কোনো শিশুর এখনো মৃত্যু হয়নি। এর কারণ এখনো নিশ্চিতভাবে জানা যায়নি। তবে বিজ্ঞানীদের ধারণা, শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বয়স্কদের তুলনায় শক্তিশালী। এ কারণে ভাইরাসটি অল্প বয়স্কদের ওপর খুব বেশি প্রভাব ফেলতে পারে না।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নির্ভর করে শ্বেত রক্তকণিকার ওপর। এই শ্বেত রক্তকণিকা থেকেই উৎপন্ন হয় অ্যান্টিবডি, যা করোনা ভাইরাসের মধ্যে বিভিন্ন প্রাণঘাতী জীবাণুর বিরুদ্ধে লড়াই করে। ফলমূল, শাকসবজি, তৈলাক্ত মাছসহ অ্যান্টিঅক্সিডেন্টযুক্ত খাবার শ্বেত রক্তকণিকার কার্যকারিতা বাড়িয়ে দেয়। ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখলেও করোনা ভাইরাস মোকাবিলা সহজ হবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

ষষ্ঠ শ্রেণির সিলেবাসে হৃতিক রােশন

বিনোদন ডেস্ক : তিনি রাকেশ রোশনের ছেলে। কিন্তু স্টার কিড বলে যে সুবিধা পাওয়া যায় বলে শোনা যায়, হৃতিক সেসব পাননি। কারণ প্রথম থেকেই তার জীবনে একটি বড় সমস্যা ছিল। হৃতিকের শৈশব ও কৈশোর কেটেছে সেই সমস্যার সঙ্গেই। অবশেষে তার ২০০০ সালে পর্দায় আত্মপ্রকাশ আর প্রথম ছবিতেই স্টারের তকমা। বলিউডের গ্রিক গডের এহেন গল্প এবার স্থান পেল তামিলনাড়ুর ষষ্ঠ শ্রেণির পাঠ্যবইয়ে। সম্প্রতি একটি ট্যুইট থেকে এই খবর প্রকাশ্যে আসে। অরুণা মহেন্দ্রন নামে এক মহিলা সম্প্রতি একটি ট্যুইটে জানিয়েছেন, ভাইঝির পাঠ্যবই ওলটাচ্ছিলেন তিনি।

হঠাৎই একটা পাতায় তার চোখ আটকে যায়। এটি ষষ্ঠ শ্রেণির পাঠ্যবইয়ে হৃতিক রোশনের নাম খুঁজে পান তিনি। লেখাটি আত্মবিশ্বাস সম্পর্কিত। ওই মহিলা তার ট্যুইটে লিখেছে, ‘তার থেকে ভাল আত্মবিশ্বাসের পাঠ আর কে দেবে।

ছোটবেলায় হৃতিকের তোতলামির সমস্যা ছিল। নিজের চেষ্টাতেই সেসব কাটিয়ে ওঠেন তিনি। একবার সেই গল্প অনুরাগীদের শুনিয়েওছিলেন। বলেছিলেন, তিনি যখন ছোট ছিলেন, তখন তারও তোতলামির সমস্যা ছিল। দিনের পর দিন এর জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন তিনি। স্পিচ থেরাপিস্টের পরামর্শ নিয়েছেন। একই কথা বলেছেন হৃতিকের বোন সুনয়নাও। তিনি বলেছিলেন, হৃতিকের যখন ১৩ বছর বয়স, তখন ঘণ্টার পর ঘণ্টা পড়তেন তিনি।

কখনও কখনও বাথরুমেও চলত অনুশীলন। সকাল-বিকেল সবসময়ই ওই একই কাজ করতেন হৃতিক। নিজেই নিজের কথা রেকর্ড করতেন, বাজাতেন, শুনতেন। পছন্দ না হলে একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি চলত। এভাবেই চলেছিল ২২ বছর। হিন্দির উপর বেশি জোর দিতেন হৃতিক। যে শব্দগুলো তার মনে হত ঠিকভাবে উচ্চারিত হচ্ছে না, সেগুলি একটি বোর্ডে লিখে রাখতেন। সুযোগ পেলেই ওই শব্দগুলো নিজের মনেই বলতেন। এভাবেই নিজের সমস্যাকে জয় করে আজ তিনি বলিউডের অন্যতম সেরা অভিনেতা।

বিতর্কের মুখে বলিউড অভিনেত্রী উর্বশী

বিনোদন ডেস্ক : আবার বিতর্কের কেন্দ্রবিন্দুতে বলিউড অভিনেত্রী উর্বশী রাউতেলা। আবারও টুইট টোকার অভিযোগ উঠল তার বিরুদ্ধে। এর আগে গিগি হাদিদ ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির টুইট টোকার অভিযোগ উঠেছিল তার বিরুদ্ধে। এবার নিউ ইয়র্কের লেখক জন পল বামারের টুইট হুবহু টোকার অভিযোগ উঠেছে উর্বশীর বিরুদ্ধে। স্বয়ং লেখক দু’টি টুইটের স্ক্রিনশট তুলে পোস্ট করেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়।

সম্প্রতি বং জোন হু’র অস্কারজয়ী ছবি ‘প্যারাসাইট’-এর রিভিউ লিখেছেন উর্বশী। নিজের টুইটারে তা পোস্টও করেন। তারপর থেকে ট্রোল হতে শুরু করেন তিনি। নেটিজেনরা বলতে শুরু করে আমেরিকার এক লেখকের থেকে হুবহু টোকা উর্বশীর এই রিভিউ।

৩ মার্চ নিউ ইয়র্কের লেখক জন পল বামার টুইটারে ছবিটিকে যেভাবে ব্যাখ্যা করেছিলেন, সেটাই টুকে দেন উর্বশী। নেটিজেনরা দু’জনের টুইট নিয়ে একের পর এক পোস্টও করতে থাকে।

এমনকী লেখকও সেই অভিযোগ তোলেন। কটাক্ষ করে তিনি এমনও বলেন, উর্বশী তার টুইটে ব্যকরণটাও ঠিক করেননি। জানুয়ারি মাসেই অভিনেত্রী শাবানা আজমির দুর্ঘটনার পরও এমন অভিযোগ উঠেছিল উর্বশীর বিরুদ্ধে। অভিযোগ ছিল, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির টুইট হুবহু টুকে দিয়েছেন তিনি।

কিছুদিন আগে হার্দিক পান্ডিয়া ও ঋষভ পন্থের সঙ্গে সম্পর্কের কারণে খবরে আসেন উর্বশী রাউতেলা। ক্রিকেটার হার্দিক পাণ্ডিয়া বাগদান পর্ব সেরেছেন বলিউড অভিনেত্রী নতাশা স্তানকোভিচের সঙ্গে। তার দিন কয়েক পরই ঋষভ পন্থও প্রকাশ্যে এনেছেন প্রেমিকা ইশা নেগিকে। জোড়া চমকে ক্রিকেট মহলে বেশ শোরগোল পড়ে গিয়েছিল। কারণ সময় বিশেষে দু’জনের সঙ্গেই সম্পর্কে ছিলেন উর্বশী।

১৮ বছরের সংসার ভাঙার কারণ জানালেন মালাইকা

বিনোদন ডেস্ক : বলিউড অভিনেতা আরবাজ খানের সঙ্গে অভিনেত্রী মালাইকা অরোরার ১৮ বছরের সংসার ভাঙার ঘটনায় গোটা বলিউডই বিস্মিত হয়েছিল। সবার মনোযোগের কেন্দ্রে ছিল ঘটনাটি। এবার ফের আলোচনায় বিবাহবিচ্ছেদের এই ঘটনা। ২০১৬ সালে আরবাজ খানের সঙ্গে বিচ্ছেদ হয়ে যায় মালাইকা অরোরার। ১৯৯৮ সালে ঘর বেঁধেছিলেন তারা।

আরবাজের সঙ্গে দীর্ঘদিনের সম্পর্ক ভেঙে সংসার ছেড়ে ছেলেকে নিয়ে বেরিয়ে আসা মালাইকার জন্য খুব একটা সহজ কাজ ছিল না। সম্প্রতি কারিনা কাপুর খানের রেডিও শো’য়ে হাজির হয়ে মুখ খুলেছেন মালাইকা অরোরা। তিনি বলেন, আরবাজের সঙ্গে সম্পর্কে ভাঙন, তার জীবনযাপন সব কিছুই অপছন্দ ছিল খান পরিবারের।

ওই পরিবারের সদস্যরা কখনও চাননি যে মালাইকা নিজের মতো জীবনটাকে উপভোগ করুন। ফলে শেষ পর্যন্ত বিয়ে ভেঙে বেরিয়ে আসতে বাধ্য হন তিনি।
শুধু তাই নয়, আরবাজের সঙ্গে বিচ্ছেদ নিয়েও নানা মুনির নানা মত ছিল। বিচ্ছেদের আগের দিন রাতেও তার পরিবারের প্রত্যেকে এক জায়গায় বসে তাকে জিজ্ঞাসা করেন, যা করছেন, তা ঠিক বলে মনে হয় তো?

তবে নিজের পরিবার এবং কাছের বন্ধুদের কাছ থেকে এ বিষয়ে পূর্ণ সমর্থন পেয়েছেন ৪৬ বছর বয়সী এই অভিনেত্রী। তাই শত অসুবিধার মধ্যে দাঁড়িয়েও ছেলেকে নিয়ে আরবাজের সংসার ছেড়ে বেরিয়ে আসতে পেরেছেন বলে জানান মালাইকা। তিনি আরও বলেন, যারা আপনাকে ভালবাসেন, তারা অবশ্যই আপনাকে নিয়ে চিন্তা করবেন। সেই কারণেই বিচ্ছেদের আগে বার বার বাড়ির লোকজন তাকে তার সিদ্ধান্ত নিয়ে বিভিন্ন ধরনের প্রশ্ন করতে শুরু করেন।

‘তামিম,মুশফিক ও রিয়াদদের বেতন কাটবে না বিসিবি’

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনা ভাইরাস স্তব্ধ করে দিয়েছে মাঠের ক্রিকেট। এই স্থবিরতায় সামনে চলে এসেছে আর্থিক ক্ষতির বিষয়টি। ক্ষতি কমাতে ইতোমধ্যে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড এবং ইংল্যান্ড ও ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড ইঙ্গিত দিয়েছে তাদের ক্রিকেটারদের বেতন কর্তনের। তবে সে পথে হাঁটছে না বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)।

বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামুদ্দিন চৌধুরী সুজন বলেন, আমরা নিশ্চিত যে আমাদের এই মুহূর্তে বেতন কাটার সিদ্ধান্ত নিতে হবে না। কারণ আমরা বেশ কিছু সময়ের জন্য টিকে থাকতে পারবো এবং আমরা আশা করি সেই সময়ের মধ্যেই সবকিছু স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসবে।

যেহেতু সবকিছু অনিশ্চিত, তাই আমরা সচেতনতা অবলম্বন করছি। তবে আমরা আমাদের আর্থিক শক্তি সম্পর্কেও অবগত এবং আশা করি এটি আমাদের এই সঙ্কট কাটিয়ে উঠতে যথেষ্ট হবে। সঙ্কটের এই সময়ে আমরা কিভাবে ক্রিকেটার এবং আমাদের অন্যান্য কর্মচারীদের পাশে থাকতে পারি, সে বিষয়ে আমরা কাজ করছি।

বিসিবি এরই মধ্যে চুক্তির বাইরে থাকা ক্রিকেটারদের ৩০ হাজার ও নারী ক্রিকেটারদের ২০ হাজার টাকা করে আর্থিক সহায়তা দিয়েছে।
এছাড়া স্বল্প বেতনের স্টাফ ও মাঠ কর্মীদেরও অনুদান দিয়েছে।

চিকিৎসকদের এগিয়ে আসার আহ্বান হানিফের

ডেস্ক রিপাের্ট : বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ এমপি বলেছেন, চিকিৎসা পেশা একটি মহান পেশা। মানবতা নিয়ে চিকিৎসকদের এখন এগিয়ে আসতে হবে। কে করোনা রোগে আক্রান্ত, আর কে নয়- সেটিও শনাক্ত করার দায়িত্ব চিকিৎসকদের। যে কোনো রোগী গেলেই তাকে করোনা ধরে নিয়ে চিকিৎসা দেবেন না, রোগী দেখবেন না- এটা অত্যন্ত দুঃখজনক। শনাক্ত না করেই কোনো রোগীকে চিকিৎসা না দেয়ার অভিযোগ জাতি আর শুনতে চায় না।

বৃহস্পতিবার দুপুরে কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসকের সভা কক্ষে আয়োজিত নিত্য প্রয়োজনীয় দ্র্রব্যের মূল্য নিয়ন্ত্রণ ও আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ক জরুরি সভা শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

এসময় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় জাতীয় কমিটি গঠনের প্রস্তাব বিষয়ে হানিফ বলেন, জাতীয় কমিটি দিয়ে কী হবে, কমিটির এখানে কোনো কাজ নেই। করোনা মোকাবিলা করা সরকারের বিষয়। তবে এ দুঃসময়ে যে যার অবস্থান থেকে কিছু করতে পারেন। কেউ যদি মনে করেন করোনাভাইরাসের কারণে তার কিছু দায়বদ্ধতা আছে, তবে তিনি কিছু করতে পারেন। এ ধরনের কথা বলা মানেই রাজনীতি খুঁজে বেড়ানো। সব কিছুতেই রাজনীতি খোঁজার সময় এখন নয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- জেলা প্রশাসক আসলাম হোসেন, পুলিশ সুপার এসএম তানভীর আরাফাত, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সদর উদ্দিন খান, সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী, ভেড়ামারা পৌর মেয়র শামিমুল ইসলাম ছানাসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা।

পরে বিকালে মাহবুব উল আলম হানিফ কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির আয়োজনে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবিলা ও প্রতিরোধে অসহায়, দুস্থদের মাঝে জরুরি খাদ্য ও স্যানিটেশন বিতরণ করেন।

হাজার হাজার লাশ গুম করার ভিডিওটি কোন দেশের? (ভিডিও)

ডেস্ক রিপাের্ট : স্যোশাল মিডিয়ায় সম্প্রতি ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে বিশাল এক হল ঘরে সার দিয়ে রাখা মৃতদেহ। একটি ট্রাক থেকে গণকবরে ফেলা হচ্ছে প্যাকেটে মোড়া অসংখ্য দেহ। গোটা ঘটনার কথা ক্যামেরার সামনে জানাচ্ছেন এক সাংবাদিক। ভিডিও শেয়ার করে পোস্টে দাবি করা হয়েছে মৃতদেহগুলি ইটালির করোনা আক্রান্তদের।

ফেসবুক, টুইটার ইউটিউবে ছড়িয়ে পড়েছে ২৩ সেকেন্ডের এই ভিডিওটি এখন ভাইরাল। ভাইরাল হওয়া ভিডিওটির ২১ সেকেন্ডে ওই সাংবাদিককে বলতে শোনা যায়, রিপটাইড ভাইরাসের কথা।

ইহা মূলত ২০০৭ সালের মার্কিন মিনিসিরিজ ‘প্যান্ডেমিক’-এর গল্পের রিপটাইড ভাইরাস সংক্রমণ। দেড় ঘন্টার এই সিরিজটি করোনা ভাইরাস মুভি নামে ইউটিউবে কিছুদিন আগে আপলোড করা। এই সিরিজটির ১ ঘণ্টা ১ মিনিট ৫২ সেকেন্ড থেকে ১ ঘণ্টা ২ মিনিট ১৫ সেকেন্ডের ক্লিপটাই ভাইরাল হয়ে ছড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

এই সিরিজে রিপটাইড নামক সেই কাল্পনিক ভাইরাসটির উৎস বার্ড ফ্লু, যা ছড়িয়ে পড়ে লস অ্যাঞ্জেলসে। ভাইরাসটির সংক্রমণের উপসর্গ জ্বর আর খিঁচুনি। ভাইরাসের সংক্রমণে হাজার হাজার মানুষ মারা যেতে থাকে। কী ভাবে এই ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকানো হয়, সেটা নিয়েই গল্প।

এই সিরিজের ভিডিওটিই ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে করোনাভাইরাস সংক্রমণে ইটালির ভয়াবহ পরিস্থিতির ছবি বলে।- অধিকার

https://www.facebook.com/moinuddin.hasanaltaf/videos/10157403988157831/

এএফসিকে সালাউদ্দিন বললেন, শুধু বাফুফে নয়, দুস্থদের সাহায্যে সবার এগিয়ে আসা উচিত

নিজস্ব প্রতিবেদক : মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য। করোনা ইস্যুতে নিম্ম আয়ের মানুষের জন্য বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) ধারাবাহিক প্রয়াস যেনো এটাই প্রমাণ করে।
গত ২৭ মার্চ দুপুর থেকে মতিঝিলের বাফুফে ভবনে একবেলা করে খাবার দেয়া শুরু হয়েছে। এখন থেকে রোজ দুপুরে অসহায়-দুস্থদের জন্য খাবারের ব্যবস্থা থাকছে। করোনা ভাইরাসে যতোদিন ঢাকা অলিখিত লকডাউনে থাকবে, ততোদিন বাফুফের এই ব্যবস্থা চালু থাকবে। প্রতিদিন ৩০০ জন দুস্থ লোকের খাবার সরবরাহ করবে তারা।

বাফুফের এ উদ্যোগের প্রশংসা করেছে বিশ্ব ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফা। এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশনও (এএফসি) বাফুফের মহতী উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছে। বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন এএফসির মিডিয়া বিভাগের প্রধান চেতন কুলকার্নিকে বলেন, লকডাউনের কারণে দেশের সব কিছুতে স্থবিরতা চলছে। আমরা চেষ্টা করছি অসহায় ও দিনমজুরদের সহায়তা করতে।

তিনি বলেন, প্রতিদিন দুপুরের খাবার দিয়ে সহায়তা করা হচ্ছে যেসব মানুষ তাদের কাজ হারিয়েছে। নি¤œ আয়ের মানুষরা কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। আমাদের (বাফুফে) পক্ষ থেকে সর্বোত্তম চেষ্টা করা হচ্ছে গরিব-অসহায়দের সাহায্য করতে। আশা করছি সবাই এই পরিস্থিতিতে দুস্থদের পাশে দাঁড়াবে।

যে ১৮ রাষ্ট্র এখনো করোনামুক্ত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বিশ্বের সর্বপ্রান্তে পৌছে গেছে ভয়াবহ করোনা ভাইরাস। কিন্তু এরমধ্যেও রয়েছে কয়েকটি দেশ ও অঞ্চল যারা এখনো রয়েছে সম্পূর্ন করোনার সংক্রমণ মুক্ত। গত বছরের ডিসেম্বর থেকে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে করোনা ভাইরাস। এরপর এখন পর্যন্ত শুধুমাত্র ১৮টি দেশ করোনা সংক্রমণের কোনো রিপোর্ট করেনি। জাতিসংঘের সদস্যভুক্ত বাকি ১৭৫টি দেশেই করোনা ভাইরাস সংক্রমিত হয়েছে।

চীনের পর দ্রুতই ভাইরাসটি ছড়িয়ে পরে আশেপাশের দেশগুলোতে। এরমধ্যে রয়েছে থাইল্যান্ড, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া ও মালয়েশিয়া। প্রথম দিকেই এটি পৌছে যায় যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপেও।

গত মাসে চীন সম্পূর্ন নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে করোনার সংক্রমণ। কিন্তু বৈশ্বিকভাবে প্রায় প্রতিটি দেশেই এটি দ্রুত সংক্রমিত হয়ে চলেছে। তবে বিস্ময়কর হলেও সত্য যে এখনো কিছু বিচ্ছিন্ন রাষ্ট্র রয়েছে যেখানে করোনা পৌছাতে পারেনি। এই রাষ্ট্রগুলো হল, নাউরু, উত্তর কোরিয়া, পালাউ, সামোয়া, সাও টমি এন্ড প্রিন্সিপি, সলমোন দ্বীপপুঞ্জ, দক্ষিণ সুদান, তাজিকিস্তান, টঙ্গা, তুর্কিমিনিস্তান, টুভালু, ভানুয়াতু ও ইয়েমেন।

এখন পর্যন্ত যেসব দেশে করোনা ভাইরাসের কোনো সংক্রমণ শনাক্ত করা হয়নি। তবে বিশ্লেষকরা বলছেন, এরমধ্যে কয়েকটিতে করোনা সংক্রমিত না হওয়ার সুযোগ কম। এরমধ্যে রয়েছে, ইয়েমেন, দক্ষিণ সুদান, তাজিকিস্তান ও উত্তর কোরিয়া। যুদ্ধ বিধ্বস্ত ইয়েমেনে করোনা শনাক্তের কোনো প্রকৃয়াই চালু নেই। ফলে সেখান থেকে শনাক্ত হওয়াও সম্ভব নয়। অপরদিকে উত্তর কোরিয়ার আভ্যন্তরীন তথ্য বাইরে আসে খুব কম। তাই দেশটি তথ্য গোপন করে থাকলে জানা খুব কঠিন আসলেই দেশটি করোনা মুক্ত কিনা।

এছাড়া বাকি দেশগুলোর দিকে তাকালে দেখা যাবে প্রায় সব কটিই দ্বীপরাষ্ট্র। ফলে প্রাকৃতিকভাবেই রাষ্ট্রগুলো আইসোলেটেড হয়ে আছে। এসব রাষ্ট্রে পর্যটকও যান না বেশি। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, নাউরোতে প্রতি বছর গড়ে ১৬০ জন পর্যটক যান। ফলে দেশটিতে করোনা বিস্তারের সুযোগ নেই। তালিকায় থাকা বাকি দেশগুলোও সব প্রশান্ত মহাসাগর কিংবা ভারত মহাসাগরে বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছে। শুধুমাত্র বিমানবন্দর বন্ধ করে দিয়েই দেশগুলো নিজেদের করোনা সংক্রমণ বন্ধ নিশ্চিত করতে পারছে।