আপডেট করার পর চালু হচ্ছে না স্যামসাং ফোন

ডেস্ক রিপাের্ট : সফটওয়্যার আপডেট নেয়ার পর বন্ধ হয়ে যাচ্ছে স্যামসাংয়ের একাধিক মডেলের ফোন। গ্যালাক্সি এম ৩১ এবং গ্যালাক্সি এ ৭০ মডেলের ফোনে এই সমস্যা বেশি দেখা যাচ্ছে।

সম্প্রতি গ্যালাক্সি এম৩১ মডেলের স্যামসাং ফোনে সফটওয়্যার আপডেট পৌঁছায়। এই আপডেটে এই ফোনে এপ্রিল মাসের অ্যানড্রয়েড সিকিউরিটি প্যাচ পৌঁছেছে। সুরক্ষায় উন্নতির সঙ্গেই এই ফোনের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান হয়েছে এই আপডেটে। যদিও এই সফটওয়্যার আপডেট ইন্সটল করার পরে অনেক গ্রাহক ফোন বন্ধ হয়ে যাওয়ার অভিযোগ করেছেন।

ট্যুইটারে একাধিক গ্রাহক অভিযোগ করেছেন তাদের গ্যালাক্সি এম৩১ এ আপডেট ইন্সটল করার পরেই ফোন পাকাপাকিভাবে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। একবার বন্ধ হলে সেই ফোন আর কোন ভাবেই চালানো যাচ্ছে না। গ্রাহকরা জানিয়েছেন আপডেট ইন্সটলের সময় তা আটকে যাচ্ছে। এর পরেই ফোন ‘ব্রিক’ হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে।

একবার ফোন বন্ধ হয়ে যাওয়ার পরে ফ্যাক্টরি রিসেট করেও ফোন অন করা সম্ভব হচ্ছে না। যদিও অনেকে জানিয়েছেন আগের ফার্মওয়্যার ডাউনলোড করে ইন্সটল করার পরে ফোন চলতে শুরু করেছে। যদিও ফার্মওয়্যার ইন্সটলের সময় কোন ভুল হলে ফোনের বড়সড় ক্ষতি হয়ে যেতে পারে।

গ্যালাক্সি এম৩১ গ্রাহকদের মতোই গ্যালাক্সি এ৭০ মডেলের গ্রাহকরাও অ্যানড্রয়েড টেন আপডেট ইন্সটল করার পরে ফোন ‘ব্রিক’ হয়ে যাওয়ার অভিযোগ করেছেন।

কয়েকটি রিপোর্টে জানা গিয়েছে এই সমস্যা সামনে আসার সঙ্গে সঙ্গে গ্যালাক্সি এম৩১ ও গ্যালাক্সি এ৭০ তে আপডেট পাঠানো বন্ধ করেছে স্যামসাং।

শত কোটি টাকার ক্ষতির মুখে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনা ভাইরাসের কারণে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড বড় ধরনের আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়তে যাচ্ছে। আসন্ন এশিয়া কাপ আর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ সবই এখন শঙ্কার মুখে। আগেই বাতিল হয়েছে দুটি দ্বিপাক্ষিক সিরিজ। বিসিবি পরিচালক জালাল ইউনুস বলেছেন, করোনার কারণে শুধু আন্তর্জাতিক নয়, ঢাকা প্রিমিয়ার লিগও পড়েছে অনিশ্চয়তার মুখে। তবে এসব বিবেচনা না করে বরং করোনা মোকাবিলায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে চায় বিসিবি।

জালাল ইউনুস আরো বলেন, এখন আমাদের মাথায় মধ্যে প্রিমিয়ার লিগ কিংবা বিপিএল বলেন এসবের কিছুই চিন্তাভাবনায় নেই। আমরা সামনে এটা নিয়ে অবশ্যই বসবো। অনেক বড় আর্থিক ক্ষতি তো হচ্ছেই এটা বলার অবকাশ রাখে না। তবে টাকার অঙ্ক তিনি উল্লেখ করেননি।

তিনি বলেন, টিম স্পন্সর, ব্রডকাস্ট রাইট, সামনে এশিয়া কাপ ছিল, ওয়ার্ল্ড কাপ ছিল। সেগুলো এখন অনিশ্চিত হয়ে গেছে। এগুলো থেকে আমরা একটা ফাইন্যান্সিয়াল সাপোর্ট পাই। এগুলোর ভবিষৎ কি এখনি বলতে পারছি না। আইসিসির সাথে আলাপ আলোচনা করে বুঝা যাবে আমরা এগুলো থেকে ফাইন্যান্সিয়ালি বঞ্চিত হবো কি হব না।

বিসিবির একটি সূত্র জানিয়েছে, এশিয়া কাপ আর ওয়ার্ল্ডকাপ না হলে টিম স্পন্সর ও ব্রডকাস্ট রাইট শত কোটি টাকা হাতছাড়া হয়ে যাবে বিসিবির।

নিজের সম্মানী থেকে ১৫ লাখ টাকা হতদরিদ্রদের দেয়ার ঘােষণা সংসদ সদস্য ফজলে করিমের

জে.জাহেদ, চট্টগ্রাম: বিশ্বজুড়ে সৃষ্ট মরণব্যাধী করোনাভাইরাসের প্রকোপ থেকে রক্ষায় সারাদেশে সরকার ঘোষিত চলমান সাধারণ ছুটির পরিস্থিতিতে রাউজানের অসহায় ও গরীব মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য নিজের মাসিক সম্মানী থেকে ১৫ লক্ষ টাকা প্রদান করার ঘোষণা দিয়েছেন রাউজানের সংসদ সদস্য ও রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এ.বি.এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি।

আজ ১৩ এপ্রিল সোমবার রাউজান উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে রাউজান উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সাথে মতবিনিময় সভায় তিনি এই ঘোষণা দেন।

সভায় রাউজানের সাধারণ মানুষকে বর্তমান পরিস্থিতির প্রেক্ষিতে ঘরে থাকার জন্য অনুরোধ জানানোর পাশাপাশি পহেলা বৈশাখের শুভেচ্ছা জানান ফজলে করিম এমপি।

এছাড়াও, রাউজানের বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও কাউন্সিলররা তাদের ৪ মাসের বেতনের টাকা প্রদান করার কথা জানান।

মতবিনিময় সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জোনায়েদ কবির সোহাগ, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেন মারুফ ও রাউজান থানার অফিসার ইনচার্জ কেফায়েত উল্লাহ।

জানা যায়, করোনা পরিস্থিতিতে ইতোপূর্বে প্রায় ৪০ হাজার মানুষকে সহযোগিতা করেছেন ফজলে করিম এমপি। আর এখন নিজের মাসিক সম্মানী থেকে ১৫ লাখ টাকা প্রদান করার ঘোষণা দিলেন যা ইতোপূর্বে দেশের কোন জনপ্রতিনিধি করেননি।

পুলিশ থেকে সদ্য বিদায়ী আইজিপি জাবেদ পাটোয়ারী সৌদি আরবে রাষ্ট্রদূত হলেন

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশ পুলিশ থেকে সদ্য বিদায়ী মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. জাবেদ পাটোয়ারীকে সৌদি আরবের রাষ্ট্রদূত হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে সরকার।

জাবেদ পাটোয়ারী বর্তমান রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহের স্থলাভিষিক্ত হবেন। তাকে তিন বছরের জন্য চুক্তি ভিত্তিক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

সোমবার (১৩ এপ্রিল) জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের উপসচিব অলিউর রহমান স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এ আদেশ দেয়া হয়।

প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ আছে, বিসিএস ক্যাডারের কর্মকর্তা ড. জাবেদ পাটোয়ারী কে সরকারি চাকরি আইন ২০১৮ এর ৪৯ ধারা অনুযায়ী তার অবসর উত্তর ছুটি ও তৎসংশ্লিষ্ট সুবিধা স্থগিতে ১৫ এপ্রিল ২০২০ অথবা যোগদানের তারিখ থেকে পরবর্তী তিন বছর মেয়াদে সৌদি আরবের বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত পদে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ প্রদান নিমিত্তে তার চাকরি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ন্যস্ত করা হল।

বিসিএস পুলিশ ক্যাডারের কর্মকর্তা জাবেদ পাটোয়ারীর মঙ্গলবার (১৪ এপ্রিল) অবসরোত্তর ছুটিতে (পিআরএল) যাওয়ার কথা ছিলো। একদিন আগে তাকে তিনবছরের জন্য সৌদি আরবের রাষ্ট্রদূত হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হলো।

চাঁদপুর সদর উপজেলার শাহ মাহমুদপুর ইউনিয়নে জাবেদ পাটোয়ারীর জন্ম। বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ ডিগ্রি নেওয়ার পর জাবেদ পাটোয়ারী সহকারী পুলিশ সুপার হিসেবে চাকরিতে যোগদান করেন ১৯৮৬ সালে।

২০১৩ সালে সচিব পদমর্যাদায় গ্রেড-১ পদে পদোন্নতি পান পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) প্রধান জাবেদ পাটোয়ারী। ২০১৮ সালের ২৫ জানুয়ারি তিনি পুলিশ মহাপরিদর্শক নিয়োগ পান। ওই বছরের ৩ জুন সিনিয়র সচিব পদমর্যাদা পান তিনি।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কারা জীবনের ওপর লেখা বই ‘কারাগারের রোজনামচা’-এর বিভিন্ন ‘নথিপত্র’ সংগ্রহে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন জাবেদ পাটোয়ারী।

করোনায় ভারতে আটকা পড়ে আফ্রিকান ফুটবলারদের মানবেতর জীবনযাপন

স্পোর্টস ডেস্ক : করোনা ভাইরাসের কারণে গোটা বিশ্বই এখন লকডাউনে। এরই মধ্যে হতাশার মুখে পড়েছেন ভারতে আটকে থাকা আফ্রিকার ফুটবলাররা।
রিয়াল কাশ্মীরের ফুটবলার লাভডে। চোখের সামনে দেখছেন যে তার কোচ এবং অন্যান্য ফুটবলাররা ব্যাগ গোছাচ্ছেন বাড়ি ফেরার জন্য। কিন্তু লাভডে-র বাড়ি ফেরার উপায় নেই। কারণ তাদের ভারত থেকে বের করার উদ্যোগ নেয়নি আফ্রিকার সরকার। শ্রীনগরে লকডাউনের মধ্যে ব্রিটিশ দূতাবাসের সঙ্গে যোগাযোগ করে বাড়ি ফেরার ব্যবস্থা করে ফেলেছেন রিয়াল কাশ্মীরের কোচ ডেভিড রবার্টসন। সেরকমই দলের স্প্যানিশ ফুটবলার এবং সাপোর্ট স্টাফরাও নিজ নিজ দূতাবাসের সঙ্গে যোগাযোগ করে স্পেনে ফিরতে চলেছেন। – ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস
আফ্রিকার ফুটবলারদের বাড়ি ফিরিয়ে নিয়ে যেতে উদ্যোগ নেয়নি তাদের দেশের দূতাবাস। রিয়াল কাশ্মীরের নাইজেরিয়ার ফুটবলার লাভডে জানিয়েছেন, ‘দূতাবাসে আমার এক বন্ধুকে ফোন করেছিলাম, কিন্তু সে ফোন ধরেনি। এই কঠিন সময় পরিবারের কাছে থাকতে চাই। দেশে সবার জন্য খুব চিন্তায় আছি।
গতমাসে লকডাউন ঘোষণার পর থেকেই শ্রীনগরে হোটেলে আটকে রয়েছেন লাভডে এবং তার দেশের সতীর্থরা। পূর্ব নাইজেরিয়ায় এখনও করোনাভাইরাস থাবা বসাতে পারেনি। তবুও পরিবারের জন্য উদ্বেগ রয়েছে লাভডের মনে। দ্রুত পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার অপেক্ষায় দিন গুনছেন নাইজেরিয়ার এই ডিফেন্ডার। লাভডের মতোই একই অবস্থা দলের আফ্রিকান সতীর্থ অ্যারন কাটেবের। দিনের বেশিরভাগ সময়টা জিমেই কাটাচ্ছেন জাম্বিয়ার এই ফুটবলার। গত সপ্তাহে দূতাবাসের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন কাটেবে। কিন্তু লাভ হয়নি। আপাতত তাদের ভারত থেকে উড়িয়ে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা নেই বলে দূতাবাসের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। – টাইমস অব ইন্ডিয়া

এদিকে আইজলে নিজের বাড়িতেই আটকে রয়েছেন উগান্ডার আলফ্রেড জারিয়ান। সতীর্থ রিচার্ড কাসাগার সঙ্গে একই বাড়িতে থাকেন আইজল দলের অধিনায়ক। লকডাউনের পরেই নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের অভাবের মুখে পড়তে হয়েছিল আলফ্রেডদের। কিন্তু স্থানীয় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়েছে বলে জানিয়েছেন রিচার্ড।
ভারতে প্রথমদিকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর কেরালা থেকে এসেছিল। তখন বেশ চিন্তায় পড়ে গিয়েছিলেন গোকুলাম এফসির ফুটবলার হেনরি কিসেকা। এখন কিছুটা দুশ্চিন্তা কমলেও কিসেকার মন পড়ে উগান্ডাতে। কিন্তু কিসেকারও অপেক্ষা করা ছাড়া আর কোনও উপায় নেই। তবে এই কঠিন সময় ভারতে থাকা বিদেশি ফুটবলারদের যাতে কোনও অসুবিধা না হয়, সেদিকটা মাথায় রেখে সবরকমভাবে সাহায্য করছে গোকুলাম ক্লাব,এমনটাই দাবি করেছেন হেনরি কিসেকা।-জি নিউজ

 

জাতির উদ্দেশে দেওয়া প্রধানমন্ত্রীর সম্পূর্ণ ভাষণ

নিজস্ব প্রতিবেদক : ধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে সোমবার (১৩ এপ্রিল) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রীর সম্পূর্ণ ভাষণটি পূর্বপশ্চিমের পাঠকের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলো।

প্রিয় দেশবাসী,

আসলামু আলাইকুম।

১৪২৭ বঙ্গাব্দের নববর্ষের শুভেচ্ছা। দেশে-বিদেশে – যে যেখানেই আছেন – সবাইকে জানাই বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা। শুভ নববর্ষ।

বাংলা নববর্ষের প্রাক্কালে আমি গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করছি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। শ্রদ্ধা জানাচ্ছি জাতীয় চার নেতার প্রতি। স্মরণ করছি মুক্তিযুদ্ধের ৩০ লাখ শহিদ এবং ২ লাখ নির্যাতিত মা-বোনকে। শ্রদ্ধা জানাচ্ছি সকল বীর মুক্তিযোদ্ধাকে।

আমি স্মরণ করছি ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্টের কাল্রাতে ঘাতকদের হাতে নিহত আমার মা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব, তিন ভাই- মুক্তিযোদ্ধা ক্যাপ্টেন শেখ কামাল, মুক্তিযোদ্ধা লেফটেন্যান্ট শেখ জামাল ও দশ বছরের ছোট্ট শেখ রাসেলকে- কামাল ও জামালের নবপরিণীতা বঁধু – সুলতানা কামাল ও রোজী জামাল, আমার চাচা মুক্তিযোদ্ধা শেখ আবু নাসেরসহ সকল শহিদকে।

বাঙালির সর্বজনীন উৎসব বাংলা নববর্ষ। প্রতিটি বাঙালি আনন্দ-উল্লাসের মধ্য দিয়ে উদযাপন করে থাকেন এই উৎসব। এ বছর বিশ্বব্যাপী প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের মহামারীর কারণে পয়লা বৈশাখের বহিরাঙ্গণের সকল অনুষ্ঠানের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। এটা করা হয়েছে বৃহত্তর জনস্বাস্থ্যের কথা বিবেচনা করে। কারণ, ইতোমধ্যেই এই ভাইরাস আমাদের দেশেও ভয়াল থাবা বসাতে শুরু করেছে।

ইতঃপূর্বে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর উদ্বোধন অনুষ্ঠান এবং স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানও জনসমাগম এড়িয়ে রেডিও, টেলিভিশন এবং ডিজিটাল মাধ্যমে সম্প্রচার করা হয়েছে। পয়লা বৈশাখের অনুষ্ঠানও আমরা একইভাবে উদযাপন করবো।

প্রিয় দেশবাসী,

আমরা ঘরে বসেই এবারের নববর্ষের আনন্দ উপভোগ করবো। কবিগুরুর কালজয়ী গান ‘‘এসো হে বৈশাখ, এসো এসো/মুছে যাক গ্লানি, ঘুচে যাক জরা/অগ্নিস্নানে শুচি হোক ধরা” গেয়ে আহ্বান করবো নতুন বছরকে। অতীতের সকল জঞ্জাল-গ্লানি ধুয়ে-মুছে আমরা সামনে দৃপ্ত-পায়ে এগিয়ে যাবো; গড়বো আলোকোজ্জ্বল ভবিষ্যত।

করোনাভাইরাসের যে গভীর আঁধার আমাদের বিশ্বকে গ্রাস করেছে, সে আঁধার ভেদ করে বেরিয়ে আসতে হবে নতুন দিনের সূর্যালোকে। কবি সত্যেন্দ্রনাথ দত্তের ভাষায় তাই বলতে চাই:

মেঘ দেখ কেউ করিসনে ভয়

আড়ালে তার সূর্য হাসে,

হারা শশীর হারা হাসি

অন্ধকারেই ফিরে আসে।

সমগ্র বাংলাদেশে এবং প্রবাসে বাঙালিরা বাংলা নববর্ষ আনন্দঘন পরিবেশে উদযাপন করে থাকেন। রাজধানীতে রমনা পার্ক, চারুকলা চত্বর, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানসহ নগরীর নানা স্থান মানুষের ভিড়ে মুখরিত থাকে এদিনটি। গ্রামীণ মেলা, হালখাতাসহ নানা অনুষ্ঠানে গোটা দেশ মেতে উঠে।

এবার সবাইকে অনুরোধ করবো কাঁচা আম, জাম, পেয়ারা, তরমুজ-সহ নানা মওসুমী ফল সংগ্রহ করে পরিবারের সবাইকে নিয়ে বাড়িতে বসেই নববর্ষের আনন্দ উপভোগ করুন। আপনারা বিনা কারণে ঘরের বাইরে যাবেন না। অযথা কোথাও ভিড় করবেন না। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। করোনাভাইরাস সংক্রমণ থেকে নিজেকে রক্ষা করুন, পরিবারের সদস্যদের রক্ষা করুন।

প্রিয় দেশবাসী,

চিকিৎসক, নার্সসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীগণ সম্পদের সীমাবদ্ধতা এবং মৃত্যু ঝুঁকি উপেক্ষা করে একেবারে সামনের কাতারে থেকে করোনাভাইরাস-আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসাসেবা দিয়ে যাচ্ছেন। আপনাদের পেশাটাই এ রকম চ্যালেঞ্জের। এই ক্রান্তিকালে মনোবল হারাবেন না। গোটা দেশবাসী আপনাদের পাশে রয়েছে।

আমি দেশবাসীর পক্ষ থেকে আপনাদের সকলকে ধন্যবাদ ও অভিনন্দন জানাচ্ছি। যে সব সরকারি স্বাস্থ্যকর্মী প্রত্যক্ষভাবে করোনাভাইরাস রোগীদের নিয়ে কাজ করছেন ইতোমধ্যেই তাঁদের তালিকা তৈরির নির্দেশ দিয়েছি। তাঁদের বিশেষ সম্মানী দেওয়া হবে। এ জন্য ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী, মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তা, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য, সশস্ত্র বাহিনী ও বিজিবি সদস্য এবং প্রত্যক্ষভাবে নিয়োজিত প্রজাতন্ত্রের অন্যান্য কর্মচারীর জন্য বীমার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

দায়িত্ব পালনকালে যদি কেউ আক্রান্ত হন, তাহলে পদমর্যদা অনুযায়ী প্রত্যেকের জন্য থাকছে ৫ থেকে ১০ লাখ টাকার স্বাস্থ্যবীমা এবং মৃত্যুর ক্ষেত্রে এর পরিমাণ ৫ গুণ বৃদ্ধি পাবে। স্বাস্থ্যবীমা ও জীবনবীমা বাবদ বরাদ্দ রাখা হচ্ছে ৭৫০ কোটি টাকা।

সুরক্ষা সরঞ্জামের কোন ঘাটতি নেই। নিজেকে সুরক্ষিত রেখে স্বাস্থ্যকর্মীগণ সর্বোচ্চ সেবা দিয়ে যাবেন- এটাই দেশবাসীর প্রত্যাশা। একইসঙ্গে সাধারণ রোগীরা যাতে কোনভাবেই চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত না হন, সেদিকে নজর রাখার জন্য আমি প্রতিটি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ জানাচ্ছি।

সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে নিয়োজিত পুলিশ-সহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ও সশস্ত্রবাহিনীর সদস্যবৃন্দ, সরকারি কর্মকর্তা, মিডিয়া কর্মী, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী আনা-নেওয়ার কাজে এবং মৃত ব্যক্তির দাফন ও সৎকারের দায়িত্বে নিয়োজিত কর্মীগণসহ জরুরি সেবা কাজে যাঁরা নিয়োজিত রয়েছেন, তাঁদের আমি আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

প্রিয় দেশবাসী,

করোনাভাইসের কারণে গোটা বিশ্ব আজ অর্থনৈতিক মন্দার সম্মুখীন হতে যাচ্ছে বলে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক আর্থিক সংস্থা আভাস দিচ্ছে।

আপনারা জানেন, এই রোগ প্রতিরোধের সবচেয়ে কার্যকর উপায় হচ্ছে কোয়ারেন্টিন বা সঙ্গনিরোধ। অর্থাৎ নিজেকে ঘরবন্দি করে রাখা। বিশ্বের ২৫০ কোটিরও বেশি মানুষ আজ ঘরবন্দি। কোথাও লকডাউন, কোথাও গণছুটি আবার কোথাও কার্ফিউ জারি করে মানুষকে ঘরবন্দি করা হয়েছে।

বাংলাদেশেও গত ২৫-এ মার্চ থেকে ২৫-এ এপ্রিল পর্যন্ত একটানা ৩২ দিন সাধারণ ছুটি বলবৎ হয়েছে। জরুরি সেবা কার্যক্রম ছাড়া সবকিছু বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। আজ দেশের সিংহভাগ শিল্প ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং ছোট-খাটো কারখানা বন্ধ।

গণপরিবহন ও বিমান চলাচল স্থগিত। আমাদের আমদানি-রপ্তানির উপর নেতিবাচক প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। এই প্রাণঘাতী ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের ফলে বেশিরভাগ দেশে প্রবাসী ভাইবোনেরা কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। স্থবিরতা নেমে এসেছে রেমিটেন্স প্রবাহে।

আমরা বিশ্ব ব্যবস্থার বাইরে নই। বিশ্বের অর্থনৈতিক মন্দার ধাক্কা আমাদের অর্থনীতির জন্য দুঃচিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

আমরা জানিনে, এই সঙ্কট কতদিন থাকবে এবং তা আমাদের অর্থনীতিকে কীভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করবে। তবুও সম্ভাব্য অর্থনৈতিক নেতিবাচক প্রভাব মোকাবিলায় আমরা কাজ করে যাচ্ছি। আমরা ইতোমধ্যে ৯৫ হাজার ৬১৯ কোটি টাকার বিভিন্ন প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছি। যা জিডিপি’র ৩.৩ শতাংশ।

করোনাভাইরাসের কারণে অর্থনীতির ওপর সম্ভাব্য বিরূপ প্রভাব উত্তরণে আমরা চারটি মূল কার্যক্রম নির্ধারণ করেছি। যা অবিলম্বে অর্থাৎ চলতি অর্থবছরের অবশিষ্ট তিন মাসে, স্বল্প-মেয়াদে -আগামী অর্থবছরে এবং মধ্য-মেয়াদে – পরবর্তী তিন অর্থবছরে – এই তিন পর্যায়ে বাস্তবায়ন করা হবে। চারটি কার্যক্রম হচ্ছে:

(১) সরকারি ব্যয় বৃদ্ধি করা : সরকরি ব্যয়ের ক্ষেত্রে ‘কর্মসৃজনকেই’ প্রাধান্য দেওয়া হবে।

(২) আর্থিক সহায়তার প্যাকেজ প্রণয়ন : অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড পুনরুজ্জীবিত করা, শ্রমিক-কর্মচারীদের কাজে বহাল রাখা এবং উদ্যোক্তাদের প্রতিযোগিতার সক্ষমতা অক্ষুন্ন রাখাই হলো আর্থিক সহায়তা প্যাকেজের মূল উদ্দেশ্য।

(৩) সামাজিক সুরক্ষা কার্যক্রমের আওতা বৃদ্ধি : দারিদ্র্যসীমার নীচে বসবাসকারী জনগণ, দিনমজুর এবং অপ্রাতিষ্ঠানিক কর্মকাণ্ডে নিয়োজিত জনসাধারণের মৌলিক চাহিদা পূরণে বিদ্যমান সামাজিক সুরক্ষা কার্যক্রমের আওতা বৃদ্ধি করা হবে।

(৪) মুদ্রা সরবরাহ বৃদ্ধি করা : অর্থনীতির বিরূপ প্রভাব উত্তরণে মুদ্রা সরবরাহ এমনভাবে বৃদ্ধি করা যেন মুদ্রাস্ফীতি না ঘটে।

বিদ্যমান সামাজিক সুরক্ষা কার্যক্রমসমূহ অব্যাহত রাখার পাশাপাশি করোনাভাইরাসজনিত কারণে প্রান্তিক জনগোষ্ঠির সুরক্ষায় যেসব কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে সেগুলো হচ্ছে:

(১) স্বল্প-আয়ের মানুষদের বিনামূল্যে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করার জন্য ৫ লাখ মেট্রিক টন চাল এবং ১ লাখ মেট্রিক টন গম বরাদ্দ করা হয়েছে। এর মোট মূল্য ২ হাজার ৫০৩ কোটি টাকা।

(২) শহরাঞ্চলে বসবাসরত নিম্ন আয়ের জনগোষ্ঠীর জন্য ওএমএস-এর আওতায় ১০ টাকা কেজি দরে চাউল বিক্রয় কার্যক্রম চালু করা হয়েছে। আগামী তিন মাসে ৭৪ হাজার মেট্রিক টন চাল এই কার্যক্রমের আওতায় বিতরণ করা হবে। এ জন্য ২৫১ কোটি টাকা ভর্তুকি প্রদান করতে হবে।

(৩) দিনমজুর, রিকশা বা ভ্যান চালক, মটর শ্রমিক, নির্মাণ শ্রমিক, পত্রিকার হকার, হোটেল শ্রমিকসহ অন্যান্য পেশার মানুষ যাঁরা দীর্ঘ ছুটি বা আংশিক লক-ডাউনের ফলে কাজ হারিয়েছেন তাঁদের নামের তালিকা ব্যাংক হিসাবসহ দ্রুত তৈরির করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এই তালিকা প্রণয়ন সম্পন্ন হলে এককালীন নগদ অর্থ সরাসরি তাঁদের ব্যাংক হিসাবে পাঠানো হবে। এখাতে ৭৬০ কোটি বরাদ্দ করা হয়েছে।

(৪) সামাজিক সুরক্ষা কার্যক্রমের আওতায় পরিচালিত ‘বয়স্ক ভাতা’ ও ‘বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা মহিলাদের জন্য ভাতা’ কর্মসূচির আওতা সর্বাধিক দারিদ্র্যপ্রবণ ১০০টি উপজেলায় শতভাগে উন্নীত করা হবে। বাজেটে এর জন্য বরাদ্দের পরিমাণ ৮১৫ কোটি টাকা।

(৫) জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে গৃহীত অন্যতম কার্যক্রম গৃহহীন মানুষদের জন্য গৃহ নির্মাণ কর্মসূচি দ্রুত বাস্তবায়ন করা হবে। এ বাবদ সর্বমোট ২ হাজার ১৩০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হবে। কেউ গৃহহীন থাকবেন না।

শিল্পখাতে যে সব আর্থিক প্যাকেজ গ্রহণ করা হয়েছে সেগুলোর মধ্যে রয়েছে : ক্ষতিগ্রস্ত শিল্প ও সার্ভিস সেক্টরের প্রতিষ্ঠানসমূহের ওয়ার্কিং ক্যাপিটালের জন্য ৩০ হাজার কোটি টাকা, অতি-ক্ষুদ্র, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প প্রতিষ্ঠানসমূহের ওয়ার্কিং ক্যাপিটালের জন্য ২০ হাজার কোটি টাকা, Export Development Fund -ইডিএফ-এর সুবিধা বাড়ানোর জন্য ১২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকা, Pre-shipment Credit Refinance Scheme- এর আওতায় ৫ হাজার কোটি টাকা এবং রপ্তানিমুখী শিল্প প্রতিষ্ঠানসমূহের জন্য বিশেষ তহবিল বাবদ ৫ হাজার কোটি টাকার ঋণ সুবিধা।

প্রিয় দেশবাসী,

এই দুঃসময়ে আমাদের কৃষি উৎপাদন ব্যবস্থা শুধু সচল রাখা নয়, আরও জোরদার করতে হবে। সামনের দিনগুলিতে যাতে কোনপ্রকার খাদ্য সঙ্কট না হয়, সেজন্য আমাদের একখÐ জমিও ফেলে রাখা চলবে না।

এজন্য কৃষি-সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বীজ, সার, কীটনাশকসহ সকল ধরনের কৃষি উপকরণের ঘাটতি যাতে না হয় এবং সময়মত কৃষকের হাতে পৌঁছে – সে ব্যবস্থা আমরা নিয়েছি।

কৃষকেরা যাতে উৎপাদিত বোরো ধানের ন্যায্যমূল্য পান সে জন্য চলতি মওসুমে গত বছরের চেয়ে ২ লাখ মেট্রিক টন অতিরিক্ত ধান ক্রয় করা হবে। এজন্য অতিরিক্ত ৮৬০ কোটি টাকা ব্যয় হবে। কৃষি যন্ত্রপাতি ক্রয়ের জন্য ২০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

কৃষি খাতে চলতি মূলধন সরবরাহের জন্য ৫ হাজার কোটি টাকার একটি তহবিল গঠন করা হচ্ছে। এ তহবিল হতে ক্ষুদ্র ও মাঝারি চাষীদের কৃষি, মৎস্য, ডেইরি এবং পোল্ট্রি খাতে ৪ শতাংশ সুদহারে ঋণ প্রদান করা হবে। কৃষি ভর্তুকি বাবদ বরাদ্দ রাখা হচ্ছে ৯ হাজার ৫০০ কোটি টাকা।

করোনাভাইরাসের মহামারী থেকে আমাদের বাঁচতে হবে। আমরা পরিস্থিতির উপর নজর রাখছি। যখন যে ব্যবস্থা নেওয়া দরকার তা নেওয়া হচ্ছে। এ মুহূর্তে আমাদের কোন খাদ্য সঙ্কট নেই। সরকারি গুদামে যেমন পর্যাপ্ত পরিমাণ খাবার মজুত রয়েছে, তেমনি রয়েছে গৃহস্থদের ঘরে ঘরে।

আল্লাহর রহমতে গত মওসুমে আমাদের রোপা আমনের বাম্পার ফলন হয়েছে। চলতি মওসুমে বোরো ধানেরও ভালো ফলন হওয়ার পূর্বাভাস পাওয়া যাচ্ছে। খাদ্য ও কৃষি পণ্য সরবরাহ ও বিতরণ ব্যবস্থা অটুট রাখতে বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

অনেক সদাশয় ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানও দরিদ্র জনগণের সহায়তায় ত্রাণসামগ্রী বিতরণে এগিয়ে এসেছেন। তবে, এসব ত্রাণসামগ্রী ও সহায়তা বিচ্ছিন্নভাবে না বিলিয়ে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান এবং আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের মাধ্যমে শৃঙ্খলার সঙ্গে বিতরণ করা প্রয়োজন। তা না হলে ভাইরাস সংক্রমণের সম্ভাবনা থেকে যাবে। আমি বিত্তবানদের এই সহায়তা প্রদান অব্যাহত রাখার অনুরোধ জানাচ্ছি।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ থাকাবস্থায় সংসদ টেলিভিশনের মাধ্যমে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রাখা হয়েছে।

প্রিয় দেশবাসী,

আপনারা ভয় পাবেন না। ভয় মানুষের প্রতিরোধ ক্ষমতাকে দূর্বল করে। কেউ আতঙ্ক ছড়াবেন না। আমাদের সকলকে সাহসের সঙ্গে পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে হবে। সরকার সব সময় আপনার পাশে আছে। কিছু কিছু স্বার্থান্বেষী মহল গুজব ছড়িয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে। এ সঙ্কটকালে এটা কোনভাবেই কাম্য নয়।

আপনারা বিভ্রান্ত হবেন না। মিডিয়া কর্মীদের প্রতি অনুরোধ দায়িত্বশীলতার সঙ্গে সঠিক তথ্য তুলে ধরে এই মহামারী মোকাবিলা করতে আমাদের সহায়তা করুন।

যে আঁধার আমাদের চারপাশকে ঘিরে ধরেছে, তা একদিন কেটে যাবেই। বৈশাখের রুদ্র রূপ আমাদের সাহসী হতে উদ্বুদ্ধ করে। মাতিয়ে তোলে ধ্বংসের মধ্য থেকে নতুন সৃষ্টির নেশায়। বিদ্রোহী কবির ভাষায় তাই বলতে চাই:

ঐ নূতনের কেতন ওরে কাল-বোশেখীর ঝড়।

তোরা সব জয়ধ্বনি কর!

তোরা সব জয়ধ্বনি কর!

ধ্বংস দেখে ভয় কেন তোর? – প্রলয় নূতন সৃজন-বেদন!

আসছে নবীন- জীবন-হারা অ-সুন্দরে করতে ছেদন!

প্রিয় দেশবাসী,

বাঙালি বীরের জাতি। অতীতে নানা দুর্যোগ-দুর্বিপাকে বাঙালি জাতি সাহসের সঙ্গে সেগুলো মোকাবিলা করেছে।

১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে আমরা বিজয় অর্জন করেছি। বিজয়ী জাতি আমরা। আমরা সস্মিলিতভাবে করোনাভাইরাসজনিত মহামারীকে প্রতিরোধ করতে সক্ষম হবো, ইনশাআল্লাহ।

নতুন বছরে মহান আল্লাহর কাছে কায়মনবাক্যে প্রার্থনা, মহামারীর এই প্রলয় দ্রুত থেমে যাক। আপনারা সবাই ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন। সবাইকে আবারও নতুন বছরের শুভেচ্ছা। সর্বশক্তিমান আল্লাহ আমাদের সহায় হোন।

খোদা হাফেজ।

জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু

বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।

জাতির উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ, দেশবাসীকে নববর্ষের শুভেচ্ছা, ঘরে বসেই উদযাপনের আহ্বান

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশবাসীকে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একইসঙ্গে করোনাভাইরাসের এই প্রাদুর্ভাবকালে যার যার ঘরেই নববর্ষ উদযাপনের আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। সোমবার (১৩ এপ্রিল) জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই আহ্বান জানান।

সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় গণভবনে জাতির উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণটি বাংলাদেশ টেলিভিশন, স্যাটেলাইন টেলিভিশন ও বাংলাদেশ বেতার সরাসরি সম্প্রচার করে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘১৪২৭ বঙ্গাব্দের নববর্ষের শুভেচ্ছা। দেশে-বিদেশে – যে যেখানেই আছেন- সবাইকে জানাই বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা। শুভ নববর্ষ।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাঙালির সর্বজনীন উৎসব বাংলা নববর্ষ। প্রতিটি বাঙালি আনন্দ-উল্লাসের মধ্য দিয়ে উদযাপন করে থাকেন এই উৎসব। এ বছর বিশ্বব্যাপী প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের মহামারীর কারণে পয়লা বৈশাখের বহিরাঙ্গণের সকল অনুষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। এটা করা হয়েছে বৃহত্তর জনস্বাস্থ্যের কথা বিবেচনা করে। কারণ, ইতোমধ্যেই এই ভাইরাস আমাদের দেশেও ভয়াল থাবা বসাতে শুরু করেছে।’

‘এর আগে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর উদ্বোধন অনুষ্ঠান এবং স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানও জনসমাগম এড়িয়ে রেডিও, টেলিভিশন এবং ডিজিটাল মাধ্যমে সম্প্রচার করা হয়েছে। পয়লা বৈশাখের অনুষ্ঠানও আমরা একইভাবে উদযাপন করব।’

প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে বলেন, “আমরা ঘরে বসেই এবারের নববর্ষের আনন্দ উপভোগ করবো। কবিগুরুর কালজয়ী গান ‘‘এসো হে বৈশাখ, এসো এসো/মুছে যাক গ্লানি, ঘুচে যাক জরা/অগ্নিস্নানে শুচি হোক ধরা’ গেয়ে আহ্বান করবো নতুন বছরকে। অতীতের সকল জঞ্জাল-গ্লানি ধুয়ে-মুছে আমরা সামনে দৃপ্ত-পায়ে এগিয়ে যাবো; গড়বো আলোকোজ্জ্বল ভবিষ্যত। করোনাভাইরাসের যে গভীর আঁধার আমাদের বিশ্বকে গ্রাস করেছে, সে আঁধার ভেদ করে বেরিয়ে আসতে হবে নতুন দিনের সূর্যালোকে।”

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সমগ্র বাংলাদেশে এবং প্রবাসে বাঙালিরা বাংলা নববর্ষ আনন্দঘন পরিবেশে উদযাপন করে থাকেন। রাজধানীতে রমনা পার্ক, চারুকলা চত্বর, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানসহ নগরীর নানা স্থান মানুষের ভিড়ে মুখরিত থাকে এ দিনটি। গ্রামীণ মেলা, হালখাতাসহ নানা অনুষ্ঠানে গোটা দেশ মেতে ওঠে। এবার সবাইকে অনুরোধ করবো কাঁচা আম, জাম, পেয়ারা, তরমুজ-সহ নানা মওসুমী ফল সংগ্রহ করে পরিবারের সবাইকে নিয়ে বাড়িতে বসেই নববর্ষের আনন্দ উপভোগ করুন। আপনারা বিনা কারণে ঘরের বাইরে যাবেন না। অযথা কোথাও ভিড় করবেন না। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। করোনাভাইরাস সংক্রমণ থেকে নিজেকে রক্ষা করুন, পরিবারের সদস্যদের রক্ষা করুন।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘করোনাভাইরাস মোকাবিলায় জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর উদ্বোধন অনুষ্ঠান এবং স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানও জনসমাগম এড়িয়ে রেডিও, টেলিভিশন এবং ডিজিটাল মাধ্যমে সম্প্রচার করা হয়েছে। পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠানও আমরা একইভাবে উদযাপন করবো।’

তিনি বলেন, ‘আমরা ঘরে বসেই এবারের নববর্ষের আনন্দ উপভোগ করবো। কবিগুরুর কালজয়ী গান- ‘এসো হে বৈশাখ, এসো এসো/মুছে যাক গ্লানি, ঘুচে যাক জরা/অগ্নিস্নানে শুচি হোক ধরা’ গেয়ে আহ্বান করবো নতুন বছরকে। অতীতের সব জঞ্জাল-গ্লানি ধুয়ে-মুছে আমরা সামনে দৃপ্ত-পায়ে এগিয়ে যাবো; গড়বো আলোকোজ্জ্বল ভবিষ্যৎ’।

বক্তব্যের শুরুতে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন প্রধানমন্ত্রী। একই সঙ্গে স্মরণ করেন জাতীয় চার নেতা, মুক্তিযুদ্ধের ৩০ লাখ শহীদ এবং ২ লাখ নির্যাতিত মা-বোনসহ সব বীর মুক্তিযোদ্ধাকে। স্মরণ করেন ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের কালো রাতে ঘাতকদের হাতে নির্মমভাবে নিহত বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিবসহ অন্যদের।

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের দ্রুত অবসান হবে আশাবাদ ব্যক্ত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘করোনাভাইরাসের যে গভীর আঁধার আমাদের বিশ্বকে গ্রাস করেছে, সে আঁধার ভেদ করে বেরিয়ে আসতে হবে নতুন দিনের সূর্যালোকে। কবি সত্যেন্দ্রনাথ দত্তের ভাষায় তাই বলতে চাই- ‘মেঘ দেখ কেউ করিসনে ভয়, আড়ালে তার সূর্য হাসে; হারা শশীর হারা হাসি,অন্ধকারেই ফিরে আসে।’

একদিন গেইলের মতো সম্মান পেয়েছি, এখন আমাকে মনেও রাখে না, বললেন ব্রাথওয়েট

স্পোর্টস ডেস্ক : ২০১৬ সালের বিশ্ব টি-টোয়েন্টির ফাইনাল ম্যাচে বেন স্টোকসের করা শেষ ওভারের চার বলে চার ছক্কা হাঁকিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে দ্বিতীয়বারের মতো টি-টোয়েন্টির মুকুট পরিয়েছিলেন কার্লোস ব্রাথওয়েট। তখন কমেন্ট্রি বক্সে বসে তার নামটা মনে রাখতে বলেছিলেন ইয়ান বিশপ।

ব্রাথওয়েটের নাম মানুষ মনে রাখেনি। চার বছরের ব্যবধানে তিনি এখন পতিত তারকা। সেবারের বিশ্ব টি-টোয়েন্টির পর হটকেক হয়েছিলেন আইপিএলে। কিন্তু চার বছর পরের নিলামে থেকে গেছেন অবিক্রিত। স্বাভাবিকভাবেই প্রত্যাশানুযায়ী পারফর্ম না করতে পারার খেসারত দিয়েছেন তিনি।

তবে যখন উঠেছিলেন সাফল্যের চূড়ায়, তখন সবকিছুই যেন ছিল ব্রাথওয়েটের চরণতলে। টি-টোয়েন্টির সবচেয়ে বড় তারকা ক্রিস গেইলের স্থানে বসানো হয়েছিল তাকে। যা জানিয়েছেন ব্রাথওয়েট নিজেই। ২০১৬ সালের আইপিএল খেলতে এসে অভিভূত হয়েছিলেন মানুষের উন্মাদনা দেখে। -জাগোনিউজ

সেই অভিজ্ঞতা জানিয়ে ব্রাথওয়েট বলেন, ভারতে ক্রিকেট তো রীতিমতো ধর্ম। আমার মনে আছে, ক্রিস গেইলকে এয়ারপোর্টে সবাই ঘিরে ধরেছিল। আমি সেটার ভিডিও করছিলাম। কিন্তু বিশ্বকাপের পর দিল্লির হয়ে আইপিএল খেলতে এলাম, তখন গেইলের মতো দৃশ্য আমি নিজের সঙ্গেই হতে দেখলাম।

সেই ব্রাথওয়েটকেই এখন কেউ নেয়নি দলে। আইপিএলের ১৩তম আসরের নিলামে অবিক্রিতই ছিলেন তিনি। তবে ব্রাথওয়েট চান যেকোনভাবে হলেও অংশ হতে পারেন আইপিএলের। তিনি বলেন, আশা করি, আমি কোনভাবে থাকব। হতে পারে বদলি খেলোয়াড় কিংবা ধারাভাষ্যকার হিসেবে। -ক্রিকবাজ

নারী ফুটবলার উন্নতির পরিবারে ২০ হাজার টাকা ও এক মাসের খাদ্যসামগ্রী দিয়েছে র‌্যাব

স্পোর্টস ডেস্ক : দেশসেরা নারী ফুটবলার উন্নতি খাতুনের পরিবারকে নগদ ২০ হাজার টাকা ও এক মাসের খাবার দিয়েছে র‌্যাব। রোববার বিকালে ঝিনাইদহের শৈলকুপার দোহারো গ্রামে উন্নতির বাড়িতে এসব পৌঁছে দেন সিপিসি-২ ঝিনাইদহ র‌্যাব ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার মাসুদ আলম।

তিনি জানান, পিতা দাউদ শেখ’ই উন্নতির পরিবারে একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি। করোনা পরিস্থিতিতে তার ভ্যানচালক পিতা এখন ঘরবন্দি। তাদের দেখার মত কেউ নেই। এমন খবরে র‌্যাব-৬ খুলনার লে: কর্নেল রওশনুল ফিরোজ তাকে উন্নতির পরিবারে সহায়তা পৌঁছানোর নির্দেশ দেন।
কমান্ডার মাসুদ আলম আরও জানান, যেকোনো বিপদে উন্নতির পরিবারের পাশে থাকবেন তিনি।

ফুটবলার উন্নতি খাতুন জানান, এমনিতেই তাদের অভাবের সংসার। তার উপর করোনা পরিস্থিতিতে তার বাবা দীর্ঘদিন ঘরে বসে। এ খবর সংবাদমাধ্যমে প্রচার হলে অনেকেই তার পরিবারকে সহযোগিতা করছেন।

ত্রাণে দুর্নীতি হলে আগে শাস্তি পরে তদন্ত : এলজিআরডিমন্ত্রী

ডেস্ক রিপাের্ট : বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে ত্রাণ বিতরণে কোনো অনিয়ম বা দুর্নীতির অভিযোগ পেলে সঙ্গে সঙ্গেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। এক্ষেত্রে আগে শাস্তি পরে তদন্ত করা হবে বলেও উল্লেখ করেছেন তিনি।

আজ সোমবার এ হুঁশিয়ারির কথা জানান এলজিআরডিমন্ত্রী। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠোর এ অবস্থান নেয়া হচ্ছে। এ বিষয়ে এরইমধ্যে সংশ্লিষ্ট সবাইক সতর্ক করা হয়েছে।

তাজুল ইসলাম বলেন, ত্রাণ বিতরণে কোনো অনিয়ম বা দুর্নীতি হলে জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বা এসি ল্যান্ডের অভিযোগের প্রেক্ষিতে সঙ্গে সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের প্রতি আহবান জানিয়ে এলজিআরডি মন্ত্রী বলেন, আমি বিশ্বাস করি, আপনারা সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে থাকেন। বর্তমান দুর্যোগময় মুহূর্তেও অসহায়-দরিদ্রদের মাঝে ত্রাণ বিতরণসহ তাদের পাশে দাঁড়াবেন।

এর আগে রবিবার ত্রাণ বিতরণে অনিয়মের অভিযোগে একজন ইউপি চেয়ারম্যান ও ২ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়। এ সংক্রান্ত তিনটি পৃথক প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম ইতিপূর্বে ত্রাণ বিতরণে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান সমূহের জনপ্রতিনিধি ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নেওয়ার ঘোষণা দেন এবং এ বিষয়ে মন্ত্রণালয় থেকে অফিস আদেশ জারি করা হয়।- কালেরকণ্ঠ