চিকিৎসকসহ ২৯ স্বাস্থ্যকর্মী করোনায় আক্রান্ত, আইসিইউতে ৩ জন

ডেস্ক রিপাের্ট : চিকিৎসকসহ ২৯ জন স্বাস্থ্যকর্মী এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানিয়েছে চিকিৎসকদের মঞ্চ বাংলাদেশ ডক্টরস ফাউন্ডেশন (বিডিএফ)। তাঁদের মধ্যে তিন চিকিৎসক কুয়েত-বাংলাদেশ মৈত্রী হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন।

বিডিএফ মনে করছে, রোগীরা রোগের তথ্য প্রকাশ না করা, চিকিৎসকদের জন্য সঠিক মানসম্মত সুরক্ষা পোশাক পর্যাপ্ত না থাকা এবং করোনার পরীক্ষা-নিরীক্ষার সংখ্যা কম হওয়ায় চিকিৎসকেরা আক্রান্ত হচ্ছেন। সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক নিরূপম দাশ বলেন, রোগী অনুপাতে বাংলাদেশে চিকিৎসকদের আক্রান্তের হার বেশি। এভাবে চলতে থাকলে আরও বহু চিকিৎসক আক্রান্ত হবেন এবং সেবাব্যবস্থা হুমকির মুখে পড়তে পারে।

আইসিইউতে চিকিৎসাধীন তিন চিকিৎসকের মধ্যে একজন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্যাস্ট্রো অ্যান্টারোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক, একজন সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক এবং আরেকজন অর্থোপেডিক সার্জন।

আরও আক্রান্ত হয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ-উপাচার্যসহ দুজন, ঢাকা মেডিকেল কলেজের ফিজিক্যাল মেডিসিন বিভাগের একজন চিকিৎসক, নারায়ণগঞ্জের সিভিল সার্জন ও উপজেলা পরিবারকল্যাণ কর্মকর্তা, নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একজন চিকিৎসক।

এই ৯ জনের বাইরে বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের আরও ২০ জন চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্য সহকারী আক্রান্ত হয়েছেন।

রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা তাৎক্ষণিকভাবে আক্রান্তদের সংখ্যা বলতে পারেননি। তবে চিকিৎসকসহ বেশ কিছু স্বাস্থ্যকর্মী আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন। আক্রান্তদের সবাই সেবা দিতে গিয়ে আক্রান্ত হয়েছেন, তা নয়। বরং কেউ কেউ কমিউনিটির অংশ হিসেবে আক্রান্ত হয়েছেন বলেও জানান মীরজাদী সেব্রিনা। তবে তিনি জানান, কুয়েত-বাংলাদেশ মৈত্রী হাসপাতালে সরাসরি করোনা-আক্রান্ত রোগীদের যাঁরা চিকিৎসা দিচ্ছেন, তাঁরা সুস্থ আছেন।

রোগের উপসর্গ না লুকানোর অনুরোধ চিকিৎসকদের
চিকিৎসক, সেবাদানকারী ও অন্য রোগীদের সুরক্ষায় করোনা উপসর্গের কথা না লুকানোর জন্য রোগীদের অনুরোধ করেছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। অত্যন্ত সংক্রামক হওয়ায় এই রোগে আক্রান্ত রোগীদের সংস্পর্শে প্রস্তুতি ছাড়া কেউ এলে তাঁদেরও রোগের শিকার হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দেয়।

করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার শুরুতেই মিরপুরের একটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসকদের একটি বড় অংশ এবং এরপর ধানমন্ডির একটি বেসরকারি মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা বন্ধ হয়ে যায়।

সম্প্রতি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের একটি ইউনিট একই সমস্যায় পড়ে। তবে চিকিৎসকেরা সুরক্ষা পোশাক পরেছিলেন এবং এখনো কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

ওই ইউনিটের প্রধান নাজমুল হক বলেন, আক্রান্ত রোগী বেসরকারি একটি হাসপাতাল ঘুরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আসেন ৮ এপ্রিল। তিনি পেটে ব্যথার অভিযোগ করছিলেন। রোগীর সঙ্গে যাঁরা ছিলেন, তাঁরা জানান তিনি ছয় দিন ধরে ঘুমোতে পারছেন না। তলপেটের এক্সরে তে বুকেরও কিছুটা অংশ ছিল। সেটি দেখেই তাঁরা আন্দাজ করেন রোগীর করোনার উপসর্গ আছে। নমুনা সংগ্রহ করতে গেলে রোগীর স্বজনেরা জানান, তাঁরা আগেই নমুনা দিয়েছেন। করোনা চিকিৎসায় নির্ধারিত হাসপাতালে পাঠালে পথেই ওই ব্যক্তি মারা যান। পরে তাঁরা জানতে পারেন, রোগের কথা গোপন রেখে বাড়িতে লোকসমাগম করে তাঁর জানাজাও হয়েছে।

ওই চিকিৎসক বলেন, সুরক্ষা পোশাক গায়ে থাকায় তাঁরা হয়তো এ যাত্রায় বেঁচে গেছেন, কিন্তু ওই রোগীর সঙ্গে অন্যান্য রোগীও ছিলেন। তাঁরাও আক্রান্তের ঝুঁকিতে আছেন।

আজ করোনাভাইরাস নিয়ে নিয়মিত বুলেটিনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ বলেন, রোগের উপসর্গ প্রকাশ করলে কোথাও কোথাও চিকিৎসা না পাওয়ার কথা শোনা গেছে। সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, কমিউনিটি ক্লিনিক পর্যন্ত সবাইকে সুরক্ষা পোশাক দেবে। যেন রোগীরা রোগ গোপন না করেন। তা ছাড়া পরীক্ষা-নিরীক্ষার পরিধি আরও বাড়ানোর কথাও ঘোষণা করেছেন মহাপরিচালক।

সাংবাদিকদের জন্য বিশেষ প্যাকেজ ঘোষণা পাকিস্তানের পাঞ্জাব সরকারের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : করোনাভাইরাসের কারণে উদ্ভূত অর্থনৈতিক পরিস্থিতিতে সংবাদকর্মীদের জন্য বিশেষ প্যাকেজ ঘোষণা করেছে পাকিস্তানের পাঞ্জাব সরকার। এর আওতায় কোনও সাংবাদিক মারা গেলে তার পরিবার পাবে ১০ লাখ রুপি। এছাড়া তার স্ত্রী আজীবন মাসে ১০ হাজার রুপি করে পেনশন পাবেন। খবর এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের।
করোনার সংক্রমণ এড়াতে পুরো প্রদেশজুড়ে লকডাউন ঘোষণা করেছে পাঞ্জাব সরকার। এরপরও ঠেকানো যাচ্ছে না সংক্রমণ। এমন পরিস্থিতির মধ্যেই আরও কিছু জরুরি সেবার মতো করে সংবাদকর্মীদেরও কাজ করতে হচ্ছে।
শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে পাঞ্জাবের তথ্যমন্ত্রী ফয়জুল হাসান চোহান বলেন, গণমাধ্যমকর্মীরা যাতে করোনায় আক্রান্ত না হন, সেজন্য আমরা তাদের জন্য একটি নিরাপদ স্বাস্থ্য নির্দেশিকা তৈরি করেছি। ছোঁয়াচে এই ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে গণমাধ্যমকর্মীরা তাদের পেশাগত দায়িত্বপালনের সময় কী কী বিধি মেনে চলবেন, ওই নির্দেশিকায় সেটি বিস্তারিতভাবে বলা আছে। এগুলো ইতোমধ্যে মিডিয়া হাউসগুলোতে পাঠানো শুরু হয়েছে।
চোহান বলেন, কোনও সাংবাদিক তাদের পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত হলে পাঞ্জাব সরকার তাদের এক লাখ রুপি দেবে। আর কেউ যদি মারা যায়, তাহলে তার পরিবার পাবে ১০ লাখ রুপি। এছাড়া তার স্ত্রী পেনশন হিসেবে আজীবন প্রতিমাসে ১০ হাজার রুপি করে ভাতা পাবেন।
এছাড়া পত্রিকার হকারদের সুরক্ষার জন্য ফেস মাস্ক, গ্লাভস ও স্যানিটাইজার বিতরণের ঘোষণা দিয়েছে পাঞ্জাব সরকার।
উল্লেখ্য, পাকিস্তানে এখন পর্যন্ত সাড়ে চার হাজারের বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ৬৬ জনের। আর পাঞ্জাবে আক্রান্তের সংখ্যা দুই হাজার ২৭৯ জন। আর সেখানে মৃত্যু হয়েছে ১৯ জনের।

সব আদালত ২৩ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ

নিজস্ব প্রতিবেদক : ধীরে ধীরে সব কিছুই বন্ধ করে দিতে হচ্ছে সরকারকে। করোনা প্রতিরোধে এমন কিছু করা ছাড়া উপায়ও বা কী। শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান থেকে শুরু করে বিভিন্ন এলাকাও লকডাউন করতে হয়েছে এরইমধ্যে। সাধারণ ছুটিও বাড়ানো হয়েছে আগামী ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত।

সবশেষ এর অংশ হিসেবে সুপ্রিম কোর্টসহ দেশের সব অধস্তন আদালতেও আগামী ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি বাড়ানো হয়েছে।
এ নিয়ে প্রধান বিচারপতি আদেশে আজ ১১ এপ্রিল, শনিবার এ সংক্রান্ত একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করেন সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল মো. আলী আকবর।

‘দেশব্যাপী করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ মোকাবিলা এবং এর বিস্তার রোধকল্পে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ২৪ মার্চ, ১ এপ্রিল এবং ৫ এপ্রিলের প্রজ্ঞাপনে ঘোষিত সাধারণ ছুটি ও সাপ্তাহিক ছুটির ধারাবাহিকতায় ১০ এপ্রিলের প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী আগামী ১৫ ও ১৬ এপ্রিল এবং ১৯ হতে ২৩ এপ্রিল সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।’

উল্লেখ্য, আইইডিসিআর-এর তথ্য অনুযায়ী করোনাভাইরাসে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও ৫৮ জন শনাক্ত হয়েছেন। এতে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৮২ জনে। গত ২৪ ঘণ্টায় আরও তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। ফলে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩০ জনে।

লকডাউনের মধ্যে অভিনব পন্থায় জুনিয়রদের কোচিং করাচ্ছেন ধোনি ও অশ্বিন

স্পোর্টস ডেস্ক : দেশজুড়ে লকডাউন চলছে। যার জেরে পুরোপুরি বন্ধ ক্রিকেট। আন্তর্জাতিক তো বটেই, ঘরোয়া ক্রিকেটেও বল গড়াচ্ছে না মাঠে। এই পরিস্থিতিতে নানাভাবে সময় কাটাচ্ছেন তারকারা। কেউ ওয়ার্ক-আউট করছেন, কেউ নিজের পোষা প্রাণীটির সঙ্গে সময় কাটাচ্ছেন, কেউ বা আবার রান্না করছেন। কিন্তু মহেন্দ্র সিং ধোনি এখনও ক্রিকেটে মগ্ন। তার দোসর হিসেবে জুটেছেন চেন্নাই সুপার কিংসের সাবেক সতীর্থ রবিচন্দ্রন অশ্বিন। দুজনই মিলে এখন জুনিয়র ক্রিকেটারদের কোচিং দিচ্ছেন।

কিন্তু লকডাউনের সময় মাঠে নেমে প্রশিক্ষণ দেওয়াটা ঝুঁকিপূর্ণ! সেকথা ভালমতোই জানেন দুই তারকা। তাই তারা কোচিং দিচ্ছেন অনলাইনে। নিজেদের অ্যাকাডেমির ক্রিকেটাররা যাতে নিয়মিত খেলার মধ্যে থাকে, তা নিশ্চিত করতেই এই উদ্যোগ। ধোনি ক্রিকেটারদের ব্যাটিংয়ের তালিম দিচ্ছেন নিজের তৈরি এমএস ধোনি অ্যাকাডেমির মাধ্যমে। ওই অ্যাকাডেমির কোচ সত্রাজিত লাহিড়ী জানিয়েছেন, তারা ‘ক্রিকেটার’ নামের একটি অ্যাপ ব্যবহার করছেন। যেখানে ধোনি নিজের ব্যাটিংয়ের ভিডিও আপলোড করছেন। এবং জুনিয়রদের বলা হচ্ছে সেই ভিডিও দেখে অনুশীলন করতে। অনুশীলন শেষে নিজেদের ভিডিও আপলোড করছে জুনিয়ররা। সেই ভিডিও দেখে অ্যাকাডেমির শিক্ষকরা জুনিয়র ক্রিকেটারদের ভুল ত্রুটি শুধরে দিচ্ছেন। এভাবেই চলছে মাহির কোচিং। -আজকাল

একইভাবে অশ্বিনও একটি অ্যাপের মাধ্যমে নিজের তৈরি অ্যাকাডেমির ক্রিকেটারদের কোচিং দিচ্ছেন। ধোনি এবং অশ্বিনের এই অভিনব কোচিং দেখে অবাক নেটিজেনরা। তারা বলছেন, আরও একবার বোঝা গেল, ইচ্ছা থাকলেই উপায় হয়।- সংবাদ প্রতিদিন

নারায়ণগঞ্জের সিভিল সার্জনসহ ৫ চিকিৎসক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত

ডেস্ক রিপাের্ট : নারায়ণগঞ্জের সিভিল সার্জন ও জেলা করোনা বিষয়ক কমিটির সদস্য সচিব ডা. মোহাম্মদ ইমতিয়াজ এবং জেলা করোনা বিষয়ক ফোকাল পারসন ও সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জাহিদুল ইসলামসহ পাঁচজন গুরুত্বপূর্ণ চিকিৎসক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এই দুজন ছাড়াও আক্রান্ত অপর তিনজন হলেন- জেলা সদরের বেসরকারি হাসপাতালের দুইজন চিকিৎসক এবং ৩শ’ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালের একজন চিকিৎসক।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের শীর্ষ কর্মকর্তাসহ এই পাঁচজনের করোনা নমুনা পরীক্ষা পজেটিভ এসেছে বলে পৃথকভাবে গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সেলিম রেজা, সদর জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. মো. আসাদুজ্জামান ও শহরের ৩শ’ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) সামসুদ্দোহা সঞ্জয় সহ জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের কয়েকজন কর্মকর্তা।

গত ৪ এপ্রিল (শনিবার) নারায়ণগঞ্জে প্রথম একটি বেসরকারি ক্লিনিকের একজন চিকিৎসক করোনা আক্রান্ত হন। তিনি নিয়মিত সেই ক্লিনিকে রোগী দেখতেন। হঠাৎ করে তার করোনা উপসর্গ দেখা দেয়। পরে তার নমুনা পরীক্ষা করলে তার করোনা শনাক্ত হয়। পরে তাকে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

৮ এপ্রিল (বুধবার) করোনায় আক্রান্ত হন নারায়ণগঞ্জ জেলা করোনা বিষয়ক ফোকাল পার্সন এবং সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা বিষয়ক কর্মকর্তা মো. জাহিদুল ইসলাম। বর্তমানে তিনি নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে আছেন।

জেলা স্বাস্থ্যবিভাগ সূত্রে জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ জেলা করোনা বিষয়ক ফোকাল পারসন ডা. জাহিদুল ইসলাম বিভিন্ন সময় নমুনা সংগ্রহের জন্য জেলার বিভিন্ন স্থানে গিয়েছেন এবং করোনা বিষয়ে দায়িত্ব পালন করছেন। এ সময় তিনি করোনা আক্রান্ত হন। পরবর্তীতে তার নমুনা পরীক্ষা করা হলে তার করোনা শনাক্ত হয়।

শুক্রবার (১০ এপ্রিল) করোনা আক্রান্ত হন নারায়ণগঞ্জ ৩শ’ শয্যা হাসপাতালের একজন চিকিৎসক। মেডিসিন কনসাল্টেন্ট (৪২) এই চিকিৎসকের করোনা উপসর্গ দেখা দিলে তার নমুনা পরীক্ষা করা হয়। নমুনা পরীক্ষার ফলাফল অনুযায়ী তিনি করোনা পজিটিভ। একইদিন নগরীর বেসরকারি একটি হাসপাতালের এনেসথেসিস্ট (৪৫) বিষয়ক একজন চিকিৎসকের শনাক্ত করা হয়।

সর্বশেষ শনিবার (১১ এপ্রিল) সকালে নারায়ণগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জন ডা. মো. ইমতিয়াজের করোনা শনাক্ত করা হয়। নারায়ণগঞ্জে করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে আক্রান্ত হন তিনিও।

জেলা সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার থেকে জেলা সিভিল সার্জন ইমতিয়াজ বাড়িতে কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন। তিনি টেলিফোনে বিভিন্ন দিকনির্দেশনা দিচ্ছেন। শুক্রবার পরীক্ষায় তাঁর করোনা ‘পজিটিভ’ আসে। জেলা সিভিল সার্জন ইমতিয়াজ করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় ভারপ্রাপ্ত হিসেবে এই দায়িত্ব পালন করবেন নারায়ণগঞ্জ শহরের মণ্ডলপাড়ায় অবস্থিত ১০০’ শয্যার নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) আসাদুজ্জামান। তিনি এই বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

৩শ’ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) সামসুদ্দোহা সঞ্জয় বলেন, তার হাসপাতালের ৪২ বছর বয়সী এক চিকিৎসক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধানে বাড়িতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তাঁকে চিকিৎসকেরা কুর্মিটোলা হাসপাতালে নেওয়ার জন্য পরামর্শ দিয়েছেন। এ ছাড়া শহরের সিটি লাইফ হাসপাতালের একজন চিকিৎসক (৪৫) পরীক্ষায় করোনা ‘পজিটিভ’ হয়েছেন। তাঁকে অ্যাম্বুলেন্সযোগে কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিন তার বাংলাতে কোয়ারেন্টিনে আছেন। তিনি জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভাপতির দায়িত্বে আছেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) সেলিম রেজা জানান, জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিন আগে থেকেই কোয়ারেন্টিনে আছেন। তিনি নিজের বাংলোতে অবস্থান করছেন। অফিসে আসছেন না। অবশ্য, তার করোনা পরীক্ষার ফল ‘নেগেটিভ’ আসে বলে জানানো হয়।

প্রসঙ্গত, এর আগে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের নার্স, ওয়ার্ডবয় ও হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্সচালক করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এ পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৭৫ জন। করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১০ জন। – শীর্ষনিউজ

আরও ৬ ধরনের করোনাভাইরাস শনাক্ত করলাে মিয়ানমারের বিজ্ঞানীরা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বাদুড়ের শরীরে আরও ছয় ধরনের নতুন করোনাভাইরাসের সন্ধান পেয়েছেন মিয়ানমারের বিজ্ঞানীরা।

বর্তমানে সারা পৃথিবীতে যে সার্স-কভ-২ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে নতুন ভাইরাসগুলো সেই একই গোত্রের। তবে জিনগতভাবে পার্থক্য থাকায় মানুষর জন্য অতটা ক্ষতিকর নয়।

মিয়ানমার সরকার নিজেদের অর্থায়নে ‘প্রেডিক্ট’ প্রকল্পের অধীনে বাদুড়ের ওপর গবেষণা করতে গিয়ে ভাইরাসগুলোর অস্তিত্ব পেয়েছে বলে পোলস ওয়ান জার্নাল থেকে জানা গেছে।

গবেষণা দলের সহকারী লেখক সুজান মারে জার্নালে লিখেছেন, ‘অনেক করোনাভাইরাস মানুষের জন্য ক্ষতিকর নয়। কিন্তু এগুলো শুরুতে প্রাণীর শরীরে শনাক্ত করা গেলে বড় বিপদ এড়ানো যায়।’

নভেল করোনাভাইরাস (কভিড-১৯) গত ডিসেম্বরে চীনের উহান থেকে ছড়িয়ে পড়ে। বিশ্বব্যাপী এতে আক্রান্তের সংখ্যা এখন পর্যন্ত ১৬ লাখ ৯৬ হাজার ১৩৯ জনে দাঁড়িয়েছে। মারা গেছেন ১ লাখ ২ হাজার ৬৬৯ জন। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩ লাখ ৭৬ হাজার ২০০ জন।

২৫ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ থাকবে গণপরিবহন

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় সাধারণ ছুটি ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়েছে। এই প্রেক্ষিতে দেশব্যাপী চলমান গণপরিবহন বন্ধের সিদ্ধান্ত একই সময় পর্যন্ত বর্ধিত করেছে সরকার।

সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ শনিবার এ সিদ্ধান্ত জানিয়েছে।

আরও জানানো হয়, জরুরি পরিষেবাসমূহ এ নিষেধাজ্ঞার আওতামুক্ত থাকবে। এর মধ্যে রয়েছে খাদ্যদ্রব্য, নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য, জ্বালানি, ঔষধ, ঔষধশিল্প ও চিকিৎসা বিষয়ক সামগ্রী পরিবহন, কৃষিপণ্য, সার ও কীটনাশক, মৎস্য এবং প্রাণীসম্পদ খাতের দুগ্ধ ও দুগ্ধজাত পণ্য, শিশুখাদ্য, জীবনধারণের মৌলিক উপাদান উৎপাদন ও পরিবহন, গণমাধ্যম ও ত্রাণবাহী পরিবহন।

এ ছাড়া পণ্যবাহী যানবাহনে যাত্রী পরিবহন করা যাবে না।

আগামী বছরও অনিশ্চিত টোকিও অলিম্পিক!

স্পাের্টস ডেস্ক : আধুনিক অলিম্পিকের ১২৪ বছরের ইতিহাসে প্রথমবার এক বছর পিছিয়ে যায় টুর্নামেন্ট। গত ৩০ মার্চ জল্পনার অবসান ঘটে। টোকিও অলিম্পিকের নয়া দিনক্ষণ ঘোষণা করেছিলো আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি। জানানো হয়েছিলো, আগামী বছর ২৩ জুলাই শুরু হবে অলিম্পিক। শেষ ৮ আগস্ট। সঙ্গে এও বলা হয় যে অলিম্পিকের ক্রীড়াসূচিতে কোনও কাটছাঁট করা হবে না। কিন্তু নতুন করে তৈরি হলো জটিলতা।

টোকিও গেমসের প্রধান নির্বাহী টি মুটো শুক্রবার জানান, ১৬ মাস পিছনোর পরও আগামী বছর অলিম্পিকের আসর বসবে কি না, তা নিশ্চিতভাবে বলা যাচ্ছে না। তিনি বলেন, পরের বছর (২০২২ সাল ) জুলাইতেও পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে কি না, এখনই কারও পক্ষে নিশ্চিত করে বলা সম্ভব নয়। এই মুহূর্তে স্পষ্ট করে কিছু বলা কঠিন। তাহলে বিকল্প কোনও দিনক্ষণের চিন্তাভাবনা করছে কমিটি? এই প্রশ্নে উত্তরে মুটো বলেন, আমাদের আশা আগামী বছরের মধ্যে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে যাবে। বিদায় নেবে করোনা। আপাতত আমরা যেটা করতে পারি, তা হলো, গেমসের জন্য সবরকম প্রস্তুতি নেওয়া। সেই সঙ্গে করোনা রোধের চেষ্টা করা। বিকল্প দিনক্ষণ কিছু ভাবা হয়নি। – জি নিউজ

এবছরের অলিম্পিক শুরু হওয়ার কথা ছিল ২৪ জুলাই। কিন্তু করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের জন্য তা স্থগিতের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। জাপানবাসীর দাবি ছিলো, অলিম্পিকের জন্য হাজার হাজার মানুষ সে দেশে গেলে তাদের সঙ্গে করোনাও ছড়িয়ে পড়তে পারে। কারণ, প্রশাসনের পক্ষে এতো মানুষের দিকে নজর রাখা সম্ভব নয়। করোনার জেরে বিশ্বের বৃহত্তম স্পোর্টিং ইভেন্ট বাতিল করার দাবি জানাচ্ছিল অংশগ্রহণকারী দেশগুলিও। সেই সব দাবি মেনেই অলিম্পিক স্থগিতের কথা ঘোষণা করা হয়। সপ্তাহখানেক পর নতুন দিনক্ষণ জানানো হয়। কিন্তু পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় আগামী বছরও অলিম্পিক আয়োজনে প্রশ্ন উঠে। – সংবাদ প্রতিদিন

করোনায় দেশে আরও ৩ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ৫৮

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও তিনজন করোনাভাইরাসে (কভিড-১৯) মারা গেছেন। এ সময়ের মধ্যে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৫৮ জন।

এ নিয়ে দেশে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩০ জনে দাঁড়িয়েছে। মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৪৮২ জন।

শনিবার আড়াইটায় নিয়মিত অনলাইন ব্রিফিংয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় ৯৫৪টি নমুনা পরীক্ষা করে ৫৮ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়। এই সময়ের মধ্যে মারা যান তিনজন। এই সংখ্যা গতকালের চেয়ে অনেক কম।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, নারায়ণগঞ্জ থেকেই এখন করোনা ছড়াচ্ছে। তারা বিভিন্ন জেলায় ফেরায় এই উদ্বেগজনক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, সকালের বাজারে অনেক লোক দেখা যাচ্ছে। লকডাউন কার্যকর না হলে করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে না বলেও হুঁশিয়ারি দেন জাহিদ মালেক।

এ সময় সবাইকে ঘরে অবস্থান করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ঘরে থাকুন, সুস্থ ও নিরাপদ থাকুন। পরীক্ষা করান, করোনা থেকে নিজেকে এবং পরিজনদের বাঁচান।

লিভারপুলের কিংবদন্তি ডালগ্লিশ করোনায় আক্রান্ত

স্পোর্টস ডেস্ক : প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন লিভারপুলের সাবেক কিংবদন্তি ফুটবলার ক্যানি ডালগ্লিশ। শুক্রবার তার শরীরে কভিড-১৯ পরীক্ষা ‘পজেটিভ’ আসে বলে পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

রুটিনমাফিক অ্যান্টিবায়োটিক ইঞ্জেকশন নিতে গিয়ে জীবানু সংক্রমণ হলে গত বুধবার হাসপাতালে ভর্তি হন ৬৯ বছর বয়সী ডালগ্লিশ। তখন করোনা পরীক্ষা হলে রিপোর্ট আসে ‘পজেটিভ’। অথচ সাবেক এই স্কটিশ ফুটবলারের শরীরের করোনার কোনো লক্ষণই ছিল না। -দ্য মর্নিং পোষ্ট

লিভারপুলের সবচেয়ে বড় তারকা খেলোয়াড়দের মধ্যে অন্যতম ডালগ্লিশ। ক্লাবটির হয়ে খেলোয়াড় হিসেবে ১৩ বছরের ক্যারিয়ারে ৫১৫টি ম্যাচ খেলে ১৭২টি গোল করেন আক্রমণভাগের এই খেলোয়াড়। এরপর লিভারপুলের হয়ে দুই মেয়াদে কোচের দায়িত্বও পালন করেন তিনি। -দ্য গার্ডিয়ান
ডালগ্লিশ কোচ ও খেলোয়াড় হিসেবে লিভারপুলকে আটবার জিতিয়েছেন ইংলিশ লিগ শিরোপা, তিনবার করে জিতেছেন এফএ কাপ ও ইউরোপিয়ান কাপ। তার সময়ের লিভারপুলকে ক্লাবটির ‘সোনালি যুগ’ হিসেবে পরিচিত। -লিভারপুল ডেইলি পোষ্ট

কোচ হিসেবে ব্ল্যাকবার্ন রোভার্সের হয়েও খ্যাতি ছড়ান ডালগ্লিশ। তার অধীনে ১৯৫৫ সালে প্রিমিয়ার লিগ শিরোপা জিতেছিল রোভার্স।
স্কটল্যান্ডের জার্সিতে একশোটির বেশি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছেন ডালগ্লিশ। ফুটবলে অসাধারণ অবদানের জন্য ২০১৮ সালে তাকে নাইট উপাধি দেয় ব্রিটেনের রাজ পরিবার।- দ্য সান