ঘরেই হোক তারাবির নামাজ: জাভেদ আখতার

বিনোদন ডেস্ক : প্রার্থনা হোক ঘরে থেকেই। এই পরিস্থিতিতে সবাই ঘরেই তারাবির নামাজ আদায় করুন। রমজান মাস শুরুর আগে সবার কাছে এমনই আবেদন রাখলেন বলিউডের কিংবদন্তি গীতিকার জাভেদ আখতার।

সম্প্রতি গীতিকারের স্ত্রী অভিনেত্রী শাবানা আজমি ট্যুইটারে একটি ভিডিও শেয়ার করেন। সেই ভিডিওতেই এই আবেদন জানান অভিনেতা-গায়ক-নির্মাতা ও প্রযোজক ফারহান আখতারের বাবা জাভেদ আখতার।

সেই সঙ্গে এই কঠিন সময়ে চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের যাতে কোনোরকম অবজ্ঞা না হয় সেদিকেও খেয়াল রাখতে বলেছেন একাধিক ফিল্মফেয়ার জেতা এই গীতিকার।

তার মতে, চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মীরাই এখন সব। এছাড়া তিনি সরকারি নির্দেশিকা মেনে চলার জন্যও সবাইকে অনুরোধ করেন।

জাভেদ আখতারের কথায়, ‘সবাইকেই এই মরণঘাতি করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে মোকাবিলা করতে হবে। গৃহবন্দি থাকতেই হবে। তবে জয় আসবে। সবাই যেন লকডাউন মেনে চলি।’

প্রসঙ্গত, আগামী ২৫ এপ্রিল থেকে শুরু হচ্ছে রমজান মাস। কিন্তু করোনা পরিস্থিতি খারাপের দিকে যাওয়ায় বাংলাদেশেও নিজ নিজ বাড়িতে তারাবির নামাজ আদায় করার তাগিদ দিয়েছেন বিভিন্ন আলেম-ওলামা এবং ধর্মীয় নেতারা।

অর্থনীতিতে করোনার প্রভাব’শীর্ষক সমীক্ষা – লকডাউনে দৈনিক ক্ষতি ৩৩০০ কোটি টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক : বৈশ্বিক মহামারী নভেল করোনাভাইরাসে সৃষ্ট পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকার ঘোষিত চলমান ছুটিতে দেশে প্রতিদিন অন্তত তিন হাজার তিনশ কোটি টাকা ক্ষতি হচ্ছে বলে মনে করছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক। তাদের এই হিসাব আমলে নিলে বন্ধ দিনের এক মাসে এক লাখ তিন হাজার ১৬৫ কোটিরও বেশি টাকা আর্থিক ক্ষতি হয়েছে।

লকডাউন চলাকালীন দেশের আর্থিক ক্ষতির বিষয়ে মঙ্গলবার ‘অর্থনীতিতে করোনার প্রভাব’শীর্ষক একটি সমীক্ষা জরিপের প্রতিবেদনে এই হিসাব তুলে ধরেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাস্থ্য অর্থনীতি ইনস্টিটিউটের গবেষক দল।

দলটিতে নেতৃত্ব দিয়েছেন স্বাস্থ্য অর্থনীতি ইনস্টিটিউটের সাবেক পরিচালক অধ্যাপক সৈয়দ আব্দুল হামিদ। তার নেতৃত্বে গত বছর ডেঙ্গুর ক্ষয়ক্ষতিও একটি প্রাক্কলন করেছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরেক দল গবেষক।

নভেল করোনাভাইরাসের বিস্তার ও সংক্রমণ রোধে গত ২৬ মার্চ থেকে ছুটি চলছে। ওই সময় থেকে বন্ধ রয়েছে সব ধরনের কল-কারখানাসহ বাইরের সব কাজকর্ম। আগামী ২৬ এপ্রিল পর্যন্ত এই ছুটি রয়েছে। একটানা বন্ধ দিনে দেশের কী পরিমাণ আর্থিক ক্ষতি হচ্ছে সে বিষয়ে সরকারি হিসাব এখনও আসেনি।

প্রতিবেদনে গবেষকরা এক মাসে বাংলাদেশ কী পরিমাণ অর্থনৈতিক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে প্রাথমিকভাবে তার একটি ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করেছেন। তাদের হিসাবে, এক মাসে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক ক্ষতি এক লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে।

তাদের হিসাবে এরপরে লকডাউন আরো দীর্ঘায়িত হলে প্রতিদিনের ক্ষতির পরিমাণও বেড়ে যাবে। আর পুরো মে মাস লকডাউন থাকলে ক্ষতির পরিমাণ দুই লাখ কোটি টাকা অর্থাৎ গত অর্থবছরের জিডিপির প্রায় ৯ শতাংশ ছাড়িয়ে যেতে পারে।

দেশের অর্থনীতির তিনটি বড় খাত- কৃষি, শিল্প ও সেবা খাত ধরে ক্ষতির এই হিসাব অনুমিত হয়েছে। তাদের হিসাবে লকডাউনে প্রতিদিন কৃষিতে ক্ষতি হচ্ছে ২০০ কোটি টাকা। এরপরে শিল্প খাতে দিনে ক্ষতি হচ্ছে এক হাজার ১৩১ কোটি টাকা। আর সেবা খাতে দিনে দুই হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হচ্ছে বলে সমীক্ষায় বলা হয়েছে।

এই ক্ষতি কাটিয়ে উঠার উপায়গুলো আগেভাগে খুঁজে বের করাসহ সরকার ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজ প্যাকেজের সুষ্ঠু বাস্তবায়নের ওপর জোর দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন ওই গবেষক দল।

চকবাজারে এক পরিবারে ১৭ জন করােনাভাইরাসে আক্রান্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক : পুরান ঢাকার চকবাজারে একটি পরিবারের ১৭ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

একান্নবর্তী ওই পরিবারের দুজন আগে আক্রান্ত হয়েছিলেন। আইইডিসিআরে নমুনা পরীক্ষার পর মঙ্গলবার আরও ১৫ জনের করোনাভাইরাস পজিটিভ এসেছে বলে জানিয়েছেন চকবাজার থানার ওসি মওদুত হাওলাদার।

তিনি বলেন, “হাজী বাল্লু রোডে এক পরিবারের দুজন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ছিল। কিন্তু আজ (মঙ্গলবার) আইইডিসিআর থেকে জানানো হয় যে ওই পরিবারের আরও ১৫ জনের পরীক্ষায় পজিটিভ এসেছে। এই নিয়ে পরিবারে মোট ১৭ জন আক্রান্ত।”

ওই সড়কের ওই ভবন ও আশপাশের ভবন লকডাউন করা হয়েছে বলে জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।

জাকির হোসেন নামে হাজী বাল্লু রোডের একজন বাসিন্দা বলেন, “ভয় লাগছে, কী যে হয়? আমাদের এখানে তো সবাই স্থানীয় এবং বিদেশ থেকে তো কেউ আসে না। তবে এই রোডে অনেক ছোট ছোট কারখানা ও শ্রমিক রয়েছে।”

ওসি জানান, ঘনবসতিপূর্ণ চকবাজার থানা এলাকায় ৫৫ জন কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়েছেন। মারা গেছেন পাঁচজন।

যে পরিবারে ১৭ জন আক্রান্ত, তাদের কেউ মারা যাননি বলে জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।

দেশে যে ৩৩৮২ জন কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়েছে, তার মধ্যে এক হাজার জনের বেশি ঢাকা শহরের, তার মধ্যে দেড় শতাধিক পুরান ঢাকার।

মৃত শতাধিক ব্যক্তির মধ্যে অন্তত ২০ জন পুরান ঢাকার।

ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে ‘লকড-ডাউন’ করা হয়েছে পুরান ঢাকার পাঁচ শতাধিক ভবন।

একা থাকার দিনগুলো মনে পড়ছে মনীষা কৈরালার

বিনোদন ডেস্ক : মুম্বাইয়ে মায়ের সঙ্গে আপাতত কোয়ারান্টাইনে রয়েছেন বলিউড অভিনেত্রী মনীষা কৈরালা। ক্যান্সারকে হারিয়ে ফেরা মনীষা জানিয়েছেন, দেশব্যাপী লকডাউনে এরকম বাড়ির মধ্যে বন্দি থাকা আসলে কোনো হাসপাতালে একা থাকার মতোই। এই সময়ে তার সেই দিনগুলোর কথা মনে পড়ছে যখন তিনি ক্যান্সারের চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। তবে সেই দিনগুলোই তাকে এই লকডাউনে বেঁচে থাকার শক্তি জোগাচ্ছে।

হিন্দুস্তান টাইমসকে মনীষা কৈরালা জানিয়েছেন, ‘নিউইয়র্কে চিকিৎসার সময় আমি ৬ মাসের জন্য নিজের অ্যাপার্টমেন্টে বন্দি ছিলাম। সেই দিনগুলোর কথা ভাবলে মনে হয়, সেই সময়টা এখনকার থেকে হাজার গুণে ভালো ছিল। আজ যদি আমরা ২ মাসও গৃহবন্দি থাকি তাও একটা আশা রয়েছে যে সঠিক নিয়মকানুন অনুসরণ করলে পরিস্থিতি বদলাবে। আমি বুঝতে পারি আমাদের টেনশন হচ্ছে, আমরা বোর হয়ে যাচ্ছি। তবে একই সঙ্গে আমাদের পরিস্থিতির গুরুত্বও বিবেচনা করতে হবে এবং ফেলে আসা দিনের থেকেই অনুপ্রেরণা নিতে হবে।’

মনীষা আরও জানান, সংক্রমণ থেকে বাঁচতে তিনি স্বাস্থ্য মন্ত্রকের নির্দেশিকাগুলি পালন করছেন। তিনি বলেন, ‘আমাদের মধ্যে কিছু মানুষের ওষুধের প্রয়োজন নেই। কিন্তু হ্যাঁ, বাকিদের মতোই আমরা নিজের ইমিউনিটির খেয়াল রাখছি। সঠিক খাবার এবং ডাক্তারদের দেওয়া সাপ্লিমেন্টস খাওয়া দরকার। হাত ধোওয়া, বারবার মুখে হাত না দেওয়া…আমি আমার বাড়িও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখি। আমি তো একটু বেশিই পরিষ্কার রাখছি কারণ আমার মা বারবার আমাকে পরিষ্কার করতে বলছেন।’

পরিবেশের উপর কতখানি প্রভাব ফেলেছে এই লকডাউন সেই বিষয়ে মনীষা বলেন, ‘আপনারা দেখতেই পাচ্ছেন যে প্রকৃতি কতটা খুশি এবং উজ্জ্বল হয়েছে। আমি এমন কিছু পোকামাকড় আর পাখি দেখলাম যাদের বহু বছর দেখতেই পাইনি।’

মনীষা সামাজিক মাধ্যমে এই মহামারির বিরুদ্ধে সচেতনতা সম্পর্কিত তথ্য প্রচারে করছেন। তবে মাঝেমাঝেই নিজেও খুব চাপের মধ্যে থাকেন তিনি। তার কথায়, ‘আমারও চিন্তা হয়। আমি আর আমার মা দু’জনেরই হয়। কিন্তু যখনই চিন্তা হয়, ভয় হয় আমরা নিজেদের সঙ্গে কথা বলি, একে অন্যের পাশে থাকি। গল্প করি, সিনেমা দেখি।’

সরকার কঠোর অবস্থানে, চাল চোরদের কোনো ক্ষমা নেই : বললেন ওবায়দুল কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক : নভেল করোনাভাইরাসে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে দুর্গতদের জন্য দেওয়া ত্রাণের চাল বিতরণে কোনো অনিয়ম সহ্য করা হবে না বলে হুঁশিয়ার করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেছেন, শেখ হাসিনার সরকার কঠোর অবস্থানে, চাল চোরদের কোনো ক্ষমা নেই। করোনাভাইরাস সংকট মোকাবেলায়, সংক্রমণ রোধ এবং নিয়ন্ত্রণে প্রধানমন্ত্রী প্রতিটি মূহুর্তে নিরলসভাবে মনিটরিং করছেন, নির্দেশনা দিচ্ছেন। আমাদের সক্ষমতাও পর্যায়ক্রমে বাড়ছে।

তার সরকারি বাসভবন থেকে মঙ্গলবার এক ডিজিটাল সংবাদ সম্মেলনে এসে ওবায়াদুল কাদের এসব কথা বলেন।

চলমান লকডাউনে কর্মহীন হয়ে পড়া নিম্নআয়ের মানুষদের সহায়তার সরকারি ত্রাণের চাল চুরির অভিযোগে বিভিন্ন জায়গায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার হওয়ার খবর আসছে। এরইমধ্যে এই অভিযোগে দেশের বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও মেম্বার মিলিয়ে অন্তত ২৪ জন বরখাস্তও হয়েছেন।

ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা তৃণমূল পর্যায় পর্যন্ত ত্রাণ সমন্বয়ের নির্দেশ দিয়েছেন। দলীয় প্রধানের নির্দেশনা অনুযায়ী তৃণমূল পর্যায়ে ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডভিত্তিক ত্রাণ কমিটি হবে।

‘এই তালিকা প্রণয়নে কোনো প্রকার বৈষম্য করা চলবে না। দলমত নির্বিশেষে যার যা প্রাপ্য ঠিক সেই অনুযায়ী তালিকা প্রস্তুত করতে হবে’-যোগ করেন কাদের।

ত্রাণ সুবিধা পাওয়ার উপযোগীদের তালিকা দ্রুততার সাথে প্রণয়ন করে প্রশাসনের সাথে সমন্বয় করে ত্রাণ কাজ পরিচালনা করতে নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক।

‘করোনা টেস্টিং ক্যাপাসিটি বাড়ানো হচ্ছে’

বিশ্বের সব দেশেই করোনা টেস্টিং ও পিপিই সংকট রয়েছে উল্লেখ করে কাদের বলেন, ‘করোনার টেস্টের জন্য নির্ধারিত কেন্দ্র সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। টেস্টিং ক্যাপাসিটি প্রতিদিনই বাড়ছে। যদিও এই সমস্যা আজকে সারা দুনিয়ায়, সারা বিশ্বে আজকে টেস্টিং ক্যাপাসিটি ও পিপিইর সংকট রয়েছে। তারপরও বাংলাদেশ সীমাবদ্ধতার মধ্যেও প্রতিদিনই এই টেস্টিং ক্যাপাসিটি বাড়াচ্ছে।’

‘আমাদের ফ্রন্টলাইন ওয়ার্কার চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মীরা নিরলসভাবে দিবারাত্রি কাজ করে যাচ্ছেন। প্রশাসন, সেনাবাহিনী, পুলিশ, র‌্যাব সর্বক্ষণ শেখ হাসিনার নির্দেশে কাজ করে যাচ্ছেন।’

কাদের বলেন, ‘আমরা এখন দুইটা জিনিসের সঙ্গে লড়াই করছি। একটা হলো করোনাভাইরাস প্রতিরোধ করা। আরেকটি হচ্ছে গরীব অসহায় মানুষদের সুরক্ষা দেয়া।’

‘কে কোথায় বাধা দিল তথ্য প্রমাণ দিন’

ত্রাণ বিতরণের কাজে বাধা দেয়া হচ্ছে বলে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের অভিযোগের বিষয়েও কথা বলেন ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদক কাদের।

তিনি বলেন, বিএনপিকে ত্রাণ কার্যক্রমে বাধা দেয়া হচ্ছে বলে তারা অভিযোগ করছে। আমি বলতে চাই, কে বাধা দিয়েছে? কোথায় বাধা দিয়েছে? তথ্য প্রমাণ দিন। এই অমানবিক কাজ যারা করছে আমরা তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিবো। এটা নিঃসন্দেহে শাস্তিযোগ্য অপরাধ।’

করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকিতে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : এবার পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের করোনা সংক্রমণের আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। এমনকি করোনার সংক্রমণের ঝুঁকিও রয়েছে তার। কারণ গত সপ্তাহে পাকিস্তানের এক সমাজকর্মীর সংস্পর্শে এসেছিলেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

মঙ্গলবার (২১ এপ্রিল) ফয়জল ইদাহি নামের ওই সমাজকর্মীর করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। তাই ইমরান খানেরও করোনা পরীক্ষা করা হতে পারে।

এরই মধ্যে পাকিস্তানে ইদাহি ফাইন্ডেশনের চেয়ারম্যান ফয়জল ইদাহি কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হয়েছেন। প্রয়াত মানবাধিকার কর্মী আব্দুল সাত্তার ইদিহর ছেলে ফয়জলের করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট মঙ্গলবারই পজিটিভ এসেছে। ফয়জলের পুত্র সাদ ইদাহি এবং ইদাহি ফাইন্ডেশনের মুখপাত্র মোহাম্মদ বিলাল দুজনেই খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

জানা গেছে, গত ১৫ এপ্রিল পাকিস্তানের রাজধানী ইসলামাবাদে যান ফয়জল। সেখানে তিনি প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে দেখা করেন। তারপরেই তার শরীরে করোনা ভাইরাসের লক্ষণ দেখা দিতে থাকে বলে জানিয়েছেন তার ছেলে সাদ ইদাহি।

সাদ ইদাহি বলেন, ‘গত চার দিন হলো বাবার শরীরে করোনা সংক্রমণের লক্ষণ দেখা যাচ্ছিল। মঙ্গলবার পরীক্ষার ফল পিজিটিভ এসেছে।’ তবে তার বাবা বর্তমানে ইসলামাবাদেই রয়েছেন বলে জানা যাচ্ছে।

এ দিকে, পাকিস্তানি সংবাদমাধ্যম দাবি করছে- করোনা সংক্রমণের শিকার হওয়ার পরেও ফয়জল ইদাহি কোনো হাসপাতালে ভর্তি হননি। ইসলামাবাদের ইহদি হোমে নিজেকে সেলফ আইসোলেশেন রেখেছেন তিনি।

অন্যদিকে, করোনা পরীক্ষার ফল পিজিটিভ আসার আগেই গত সপ্তাহে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে দেখা করেন ফয়জল। ওই সময় প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে ১ কোটি টাকার চেকও তুলে দেন তিনি। ফয়জলের করোনা সংক্রমণের শিকার হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়তেই পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে দেশজুড়ে উদ্বেগ তৈরি হয়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় পাকিস্তানে করোনা সংক্রমণের শিকার হয়েছেন ৭০৫ জন। দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৯ হাজার ২১৬। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ১৭ জনের। ফলে দেশটিতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৯২।

ভারতের সাবেক ক্রিকেটার ওয়াসিমের টি-টোয়েন্টি একাদশে সাকিব, জায়গা হয়নি কোহলি ও রোহিত শর্মার

স্পাের্টস ডেস্ক : ওয়াসিম জাফরের টি-টোয়েন্টি একাদশে জায়গা পেয়েছেন বাংলাদেশের সাকিব আল হাসান। ডেভিড ওয়ার্নারকে অধিনায়ক করে নিজের পছন্দের টি-টোয়েন্টির সেরা একাদশ সাজিয়েছেন ভারতের এই সাবেক ওপেনার।
টি-টোয়েন্টি খেলুড়ে দেশ থেকে পজিশন অনুসারে একজন ক্রিকেটারকে বেঁছে নিয়েছেন ওয়াসিম। তবে তার একাদশে জায়গা পাননি স্বদেশী হার্ড হিটার বিরাট কোহলি এবং রোহিত শর্মা।

একমাত্র ভারতীয় হিসেবে জাসপ্রিত বুমরাহকে বেঁছে নিয়েছেন ৪২ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার। ওয়ার্নারের সঙ্গে ওপেনিংয়ের জন্য বাবর আজমকে রেখেছেন ওয়াসিম।

নিউজিল্যান্ডের অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনকে দলে রাখলেও নেতৃত্বের জন্য ওয়ার্নারকেই পছন্দ তার। দক্ষিণ আফ্রিকার তারকা ব্যাটসম্যান এবি ডি ভিলিয়ার্স, ইংল্যান্ডের উইকেটরক্ষক জস বাটলার এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের আন্দ্রে রাসেলকেও এই দলে রেখেছেন ওয়াসিম। অলরাউন্ডার হিসেবে সাকিবকে ৭ নম্বরে রেখেছেন তিনি। এছাড়া আফগানিস্তানের রশিদ খান, নেপালের সন্দীপ লামিচানেকেও দলে নিয়েছেন ওয়াসিম। পেস আক্রমণ সামলানোর জন্য বুমরাহর পাশাপাশি শ্রীলঙ্কার লাসিথ মালিঙ্গাকে রেখেছেন তিনি।

ওয়াসিম জাফরের টি-টোয়েন্টি একাদশ ঃ ডেভিড ওয়ার্নার (অধিনায়ক), বাবর আজম, কেন উইলিয়ামসন, এবি ডি ভিলিয়ার্স, জস বাটলার (উইকেটরক্ষক), আন্দ্রে রাসেল, সাকিব আল হাসান, রাশিদ খান, সন্দীপ লামিচানে, জাসপ্রিত বুমরাহ ও লাসিথ মালিঙ্গা। -ক্রিকফ্রেঞ্জি

কোচ, আম্পায়ার ও কিউরেটরদের মান বাড়াতে অস্ট্রেলিয়ার কনসাল্টেন্সি ফার্মের সঙ্গে দেড় লাখ ডলারের চুক্তি বিসিবির

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড দেশের ক্রিকেটের উন্নয়নে আরো এগিয়ে যেতে অস্ট্রেলিয়ার কনসাল্টেন্সি ফার্ম টার্নার ক্যাম্পবেল কনসাল্টেন্সির (টিসিসি) সঙ্গে তিন বছরের চুক্তি করেছে।

এই চুক্তিতে ‘এক্সিলেন্স ইনিশিয়েটিভ’ নামের একটি প্রোগ্রাম পরিচালনা করবে টিসিসি। এই প্রোগ্রামের জন্য এক লাখ ৫০ হাজার ডলার খরচ করতে হবে বিসিবিকে। মূলত কোচ, আম্পায়ার এবং কিউরেটদের নিয়ে কাজ করার পাশাপাশি ডাটাবেস এবং ডিজিটাল রিসোর্সের কাজও করবে এই সংস্থাটি।

এই প্রোগ্রামের মাধ্যমে নারী এবং পুরুষ উভয় দলের ক্রিকেটারই সুবিধা লাভ করবে বলে বিশ্বাস করছে বিসিবি। তাদের মতে আইসিসি র‌্যাংকিংয়ে উন্নতি এবং নিজেদের পারফরম্যান্স আরো সামনে এগিয়ে নিতে বড় ভূমিকা রাখতে পারে টিসিসি।

একই সঙ্গে এই কার্যক্রমের মাধ্যমে জাতীয় এবং আঞ্চলিক কোচদের গুনগত মান বৃদ্ধি হবে বলে বিশ্বাস করে ক্রিকেট বোর্ড। পাশাপাশি জাতীয় দল এবং ঘরোয়া লিগের ক্রিকেটারদের মান উন্নয়ন নিশ্চিত হবে এর মাধ্যমে।

বিসিবির সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী তিন বছরের মধ্যে জাতীয় দলের প্যানেলে থাকা আম্পায়ারদের মান উন্নয়ন করবে টার্নার ক্যাম্পবেল কনসাল্টেন্সি। শুধু তাই নয়, কোচ এবং আম্পায়ারদের বিভিন্ন প্রশিক্ষণের মাধ্যমে যোগ্য করে তুলতেও কাজ করবে এই সংস্থাটি। -ক্রিকফ্রেঞ্জি

গাজীপুরের এক থানায় ২৫ পুলিশ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত

ডেস্ক রিপাের্ট :গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের গাছা থানার আরো ২০ জন পুলিশ সদস্যের নমুনা পরীক্ষায় কোভিড-১৯ পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে গাছা থানায় মোট ২৫ জন পুলিশ সদস্যের করোনা পজেটিভ শনাক্ত হল।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো. আনোয়ার হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, প্রথমে গাছা থানায় একজন অফিসারের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়। এরপর গাছা থানার বাবুর্চিসহ আরো ৪ জনের নমুনা পরীক্ষায় তাদের শরীরে করোনার সংক্রমণ পাওয়া যায়।

সোমবার নমুনা পরীক্ষায় গাছা থানার আরো ২০ জনের শরীরে করোনা সংক্রমণের প্রমাণ মিলেছে। তাদের মধ্যে গাছা জোনের এসি, একজন পুলিশ পরিদর্শক ও পুলিশের মহিলা সদস্যরাও রয়েছেন। তবে তারা সকলেই সুস্থ আছেন এবং তাদের শরীরে এখনো কোনো লক্ষণ প্রকাশ পায়নি। থানা লকডাউন করা হয়েছে।

করোনায় আক্রান্ত পুলিশের তিন নারী সদস্য ছাড়া সকলেই থানায় আইসোলেশনে আছেন বলেও জানান তিনি।

১ মে পর্যন্ত সাধারণ ছুটি বাড়ানোর সুপারিশ সমন্বয় কমিটির

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় সাধারণ ছুটির মেয়াদ আরও এক সপ্তাহ অর্থাৎ ১ মে পর্যন্ত বাড়ানোর সুপারিশ করেছে করোনাভাইরাস প্রতিরোধের লক্ষ্যে গঠিত জাতীয় কমিটি।

মঙ্গলবার (২১ এপ্রিল) জাতীয় কমিটির সভাপতি স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় সর্বসম্মতভাবে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এ সিদ্ধান্ত প্রস্তাবটি লিখিতভাবে প্রধানমন্ত্রীর দফতরে পাঠানো হয়েছে। সরকারি এক সূত্রে এতথ্য জানা গেছে।

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাসের প্রভাব ঠেকাতে বর্তমানে সরকারের নির্বাহী আদেশে আগামী ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি চলছে