১২ বাংলাদেশি তাবলিগ জামাতের সদস্যের বিরুদ্ধে ভারতে মামলা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : দিল্লির নিজামুদ্দিন মারকাজে অংশ নেয়া তাবলিগ জামাতের সদস্য ১২ জন বাংলাদেশি নাগরিকের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশ রাজ্যের পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধে ১৯৪৬ সালের ফরেনার্স অ্যাক্ট লঙ্ঘনের অভিযোগ করা হয়েছে।

বিবিসি জানিয়েছে, এই বাংলাদেশি নাগরিকরা দিল্লির তাবলিগ জামাতের সমাবেশে অংশ নেন। পরে সেখান থেকে উত্তরপ্রদেশের বিভিন্ন এলাকায় চিল্লায় বেরিয়েছিলেন তারা। রাজ্যের শামলি জেলার একটি মসজিদ থেকে পুলিশ তাদের উদ্ধার করে একটি সরকারি কোয়ারেন্টিন সেন্টারে আটক রেখেছে।

এই ১২জনের মধ্যে অন্তত দুজন ইতিমধ্যেই করোনাভাইরাস পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন, বাকিদেরও পরীক্ষার ফলাফলের জন্য অপেক্ষা করা হচ্ছে।

শামলির পুলিশ প্রধান ভিনিত জয়সোয়াল বিবিসিকে জানিয়েছেন, পর্যটক ভিসা নিয়ে ভারতে প্রবেশ করার পর এই বিদেশি নাগরিকরা বেআইনিভাবে ধর্মীয় কর্মকান্ডে অংশ নিয়েছেন, এ কারণেই তাদের বিরুদ্ধে এফআইআর করা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, যে দুজন বাংলাদেশি নাগরিক এর মধ্যেই করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন, তাদের এখন রাখা হয়েছে ঝিনঝিনা-র একটি স্বাস্থ্যকেন্দ্রের আইসোলেশন ওয়ার্ডে।

ওই স্বাস্থ্যকেন্দ্রটিকে বিশেষভাবে করোনাভাইরাস আক্রান্তদের জন্যই প্রস্তুত করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে তাবলিগের সদস্যরা অসহযোগিতা করছেন অভিযোগ করে উত্তরপ্রদেশের যোগী আদিত্যনাথ সরকার ইতিমধ্যেই তাদের বিরুদ্ধে ন্যাশনাল সিকিওরিটি অ্যাক্টের মতো কড়া আইন প্রয়োগ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তাবলিগ জামাতের বিরুদ্ধে রাজ্য সরকারের এই কঠোর নীতির অংশ হিসেবেই ১২ জন বাংলাদেশির বিরুদ্ধে পুলিশি পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আগেই জানিয়েছে, যে বিদেশিরা পর্যটক ভিসা নিয়ে ভারতে ঢুকে মারকাজে অংশ নিয়েছেন – তাদের প্রত্যেককে কালো তালিকাভুক্ত করে ভারতে প্রবেশ চিরতরে বন্ধ করে দেয়া হবে। -বিবিসি

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আইভীর মৃত্যুর গুজব

ডেস্ক রিপাের্ট : নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের (নাসিক) মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী সুস্থ রয়েছেন। তিনি এখন নারায়ণগঞ্জেই অবস্থান করছেন। রবিবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়ানো গুজবের পর বিকাল সোয়া ৬টার দিকে আইভীর মৃত্যুর বিষয়টি গুজব তা নিশ্চিত হওয়া যায়।

সিটি মেয়র আইভী বলেন, ‘আমি এখন নারায়ণগঞ্জেই অবস্থান করছি। আমি পুরোপুরি সুস্থ রয়েছি। এর আগে ফেসবুকে গুজব ছড়ায়, মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। কিছু কিছু পোস্টে বলা হয় তিনি নিউইয়র্কে অবস্থান করছেন।’

তবে এই তথ্য সঠিক নয় জানিয়ে আইভীর ভাই ও নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আহম্মদ আলী রেজা উজ্জ্বল জানান, মেয়র আইভী নারায়ণগঞ্জে তার বাসায় অবস্থান করছেন এবং সুস্থ রয়েছেন। আমি তার সঙ্গেই আছি। তিনি ফোনে কথা বলছেন।
গুজবের বিষয়ে উজ্জ্বল বলেন, তাকে নিয়ে যে গুজব ছড়ানো হয়েছে সেটা দুঃখজনক। যারা এ গুজব ছড়িয়েছেন তাদের যেন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী শনাক্ত করে আইনের আওতায় নিয়ে আসে।

তিনি আরও বলেন, মাসখানেক ধরে তিনি দেশেই আছেন। এই সময়ের মধ্যে তিনি অন্য কোনো দেশে যাননি।

কারোনা আতঙ্কে এগিয়ে এলাে না কেউই, বাবার মরদেহ কাঁধে নিয়ে শ্মশানে চার মেয়ে!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : করোনা ঠেকাতে ভারতজুড়ে চলছে লকডাউন। প্রতি মুহূর্তে বলা হচ্ছে, বাঁচতে হলে একমাত্র অস্ত্র সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন। আর সেই সামাজিক দূরত্বের কারণে এবার মৃত্যুর পর এক ব্যক্তির শেষকৃত্য অনুষ্ঠানে যোগ দিল না কেউ।

উল্লেখ্য, ওই ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাননি। পরিস্থিতি দেখে তার শেষকৃত্যে এগিয়ে আসে তার চার মেয়ে। তারাই বাবার মরদেহ কাঁধে করে নিয়ে গেল শ্মশানে।

ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের আলিগড়ে। মৃত ব্যক্তির নাম সঞ্জয় কুমার।
স্থানীয় সূত্রে খবর, আলিগড়ের নুমাইশ ময়দানের চা-হেলিংয়ের বাসিন্দা ছিলেন বছর ৪৫ এর সঞ্জয় কুমার। পেশা চা বিক্রেতা হলেও বেশ কিছুদিন ধরে যক্ষ্মা রোগে ভুগছিলেন তিনি। অভাবের সংসারে সরকারি হাসপাতাল থেকে ওষুধ এনেই কোনও রকমে নিজের রোগের মোকাবিলা করছিলেন সঞ্জয়। এক মেয়ের বিয়ে হয়েছে, আর চার মেয়ে অভাবের কারণেই পড়াশোনা ছেড়ে ঘরের কাজ করে।

তবে চরম দারিদ্রতার মধ্যেও কারও সাহায্য নেননি সঞ্জয় কুমার। সম্প্রতি তার শরীরিক অবস্থা আরও খারাপ হয়ে যায়। কিন্তু ভারতজুড়ে চলছে লকডাউন। সরকারি হাসপাতালেও ওষুধের সঙ্কট। এই পরিস্থিতিতে বাইরে থেকে ওষুধ কিনে খাওয়া সম্ভব ছিল না তার পক্ষে। শেষরক্ষা হয়নি আর। অবশেষে মারা গেলেন তিনি।

কিন্তু আতঙ্ক আর সামাজিক দূরত্ব কারণে তার মৃত্যুর পর সৎকারের কাজেও এগিয়ে আসেনি কেউ। শেষে চার মেয়েই কাঁধে করে বাবার মরদেহ নিয়ে যায় শ্মশানে। সেখানেই হয় শেষকৃত্য।

কেজিরিওয়ালকে টুইট শাহরুখের- দু’হাতে দান করছেন; তবুও ধন্যবাদ নয়, বললেন আদেশ করুন

বিনােদন ডেস্ক : করোনাভাইরাস মোকাবেলায় এবার এগিয়ে এসেছেন বলিউড কিং শাহরুখ খান। নানামুখী সহায়তার উদ্যোগ নিয়ে প্রশংসায় ভাসছেন এই তারকা। অথচ দু’দিন আগেও তার সমালোচনায় মেতে ছিল ভারতবাসী। বলা হয়, করোনার এই সংকটে যখন ছোট-বড় অনেক তারকা দেশের জন্য এগিয়ে আসছেন তখন চুপ কেন শাহরুখ।

কিন্তু পরে এসেও সবাইকে ছাপিয়ে গেলেন এই তারকা। এমনকী শাহরুখের উদ্যোগে খুশি হয়ে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল পর্যন্ত ধন্যবাদ জানিয়েছেন। কিন্তু সেখানেও কিং খান স্বভাবসুলভ আচরণ দেখালেন। তিনি বরং, কেজরিওয়ালকে টুইট করলেন ‘স্যার, আপনি তো দিল্লির লোক, তাই ধন্যবাদ দেবেন না আদেশ করুন।’

শাহরুখ বরাবরই দানশীল। এবার করোনায়ও দুই হাতে দান করছেন এই অভিনেতা। করোনার কারণে যেসব সাহায্য দিলেন তিনি :
১. শাহরুখ খান আর তাঁর ক্রিকেট টিম প্রধানমন্ত্রী, মুখ্যমন্ত্রী আর পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে দিয়েছেন একটা বড় অঙ্ক।
২. ৫০ হাজার পিপিই দিয়েছেন।
৩. করোনার কারণে জীবিকা হারানো সাড়ে পাঁচ হাজার পরিবারকে প্রতিদিন তিন বেলা খাবার খাবার দিচ্ছেন। আপাতত এক মাস এই কর্মসূচি চলবে।
৪. হাসপাতাল আর জরুরি পরিষেবায় নিয়োজিত মানুষদের প্রতিদিন দুই হাজার খাবার যাচ্ছে এক রান্নাঘর থেকে। আর সেই রান্নাঘরের উদ্যোক্তা এই খান সাহেব।
৫. এ ছাড়া মুম্বাই পুলিশের সঙ্গে মিলে শাহরুখের সংস্থা প্রান্তিক ভবঘুরে আর ভিক্ষুকদের জন্য রোজ ৩ লাখ খাবারের প্যাকেট তৈরি করছে।
৬. দিল্লির আড়াই হাজার শ্রমিককে প্রতি সপ্তাহে বিনা পয়সায় রেশন দেবে শাহরুখের সংস্থা।

এই তালিকা কেবল যেসব সাহায্যের কথা মিডিয়াতে এসেছে, সেগুলো। এ রকম অসংখ্য উদারহণ আছে, যেগুলো কেউ জানেই না।

ব্রিটেনে ময়লা ফেলার ব্যাগ মাথায় দিয়ে সেবা দিচ্ছেন চিকিৎসকরা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : যুক্তরাজ্যের হাসপাতালগুলোতে স্বাস্থ্যকর্মীদের কাজের পরিবেশ ও সরঞ্জামের শোচনীয় অবস্থা উঠে এসেছে নিবিড় পরিচর্যা বিভাগের একজন চিকিৎসকের বক্তব্যে।

করোনাভাইরাসের কারণে মৃতের সংখ্যা বাড়ছে, যাদের অবস্থা সঙ্কটময় তাদের জন্য দিনরাত কাজ করে যাচ্ছে হাসপাতালগুলো।

মূলত, নিবিড় পরিচর্যা সেবা বা আইসিইউ বাড়াতেই এই উদ্যোগ। কিন্তু তাদের অভিযোগ যথাযথ সাপোর্ট বা সরঞ্জাম তারা পাচ্ছেন না।
বিবিসিকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তারা যে বিষয়টিতে জোর দিয়েছেন তা হলো সরঞ্জামের অভাব। তাদের গণমাধ্যমে কথা বলতেও নিষেধ করা হয়েছে।

শেষ পর্যন্ত যুক্তরাজ্যের একজন কর্মরত চিকিৎসক বিবিসির সঙ্গে কথা বলতে রাজি হয় নাম প্রকাশ না করার শর্তে।

আমরা তার নাম পরিবর্তন করে দিয়েছি এখানে।

ড. রবার্টস, খাদের কিনারায় থাকা একটি হাসপাতালের কথা বলছেন। এই হাসপাতালের আইসিইউ এখন কোভিড-১৯ রোগীতে পরিপূর্ণ। যা যা মনে করা হচ্ছে অপ্রয়োজনীয় তার সব বন্ধ করে দেয়া হয়েছে, এমনকি তার মধ্যে আছে ক্যানসার ক্লিনিক।

এই হাসপাতালে কর্মীর অভাব আছে, সংকটময় রোগীর জন্য বিছানার অভাব আছে, একদম সাধারাণ এন্টিবায়োটিক ও ভেন্টিলেটরের অভাব আছে।

ধারণা করা হচ্ছে, যুক্তরাজ্যে করোনাভাইরাস ১৪ থেকে ১৫ এপ্রিলের মধ্যে বড় আঘাত হানবে, বিশ্লেষকদের ভাষায় যেটাকে বলা হচ্ছে ‘পিক টাইম’।

কর্মীরা এখনই অনুভব করছে কী পরিমাণ সংকটময় সময় আসছে সামনে।

চূড়ান্তভাবে আক্রান্ত রোগীদের সেবা দিচ্ছেন এমন ডাক্তাররা এখন ১৩ ঘণ্টা করে কাজ করছে প্রতিদিন।

ভয়াবহ ব্যাপার হচ্ছে পিপিই- ব্যক্তিগত সুরক্ষা দেয়া সরঞ্জামের অভাব প্রকট, এমনও হয়েছে যে পিপিইর অভাবে ময়লা ফেলার পলিথিন, প্লাস্টিকের অ্যাপ্রোন ও স্কিইং করার চশমা পরে কাজ চালিয়ে নিচ্ছেন তারা।

যথাযথ সুরক্ষা ব্যবস্থা ছাড়াই করোনাভাইরাস আক্রান্ত হতে পারেন এমন ব্যক্তির থেকে ২০ সেন্টিমিটারের মতো দূরত্বে থেকে কাজ করছেন ডাক্তাররা, যেখানে সাধারণ মানুষকে বলা হচ্ছে ২ মিটার হতে হবে ন্যূনতম দূরত্ব।

রবার্টস বলছেন, যে মারাত্মক প্রভাব পড়তে পারে তাদের জীবনে সেটা এখনই ভাবাচ্ছে, তারা এখন ভীত সন্ত্রস্ত হয়ে পড়ছেন এবং নিজেদের পিপিই নিজেরাই তৈরি করছেন।

রবাটর্স বলেন, “এটা বাস্তব চিন্তা, নিবিড় চিকিৎসা যেসব নার্স দিচ্ছেন তাদের এটা এখনই প্রয়োজন। তারা যেখানে কাজ করছেন সেখানে ভাইরাস অ্যারোসলের মতো করে ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাদের বলা হচ্ছে খুব সাধারণ টুপি পরতে যেটায় ছিদ্র আছে। যেটা কোনো সুরক্ষাই দিচ্ছে না।”

এটা প্রচণ্ড রকমের ঝুঁকিপূর্ণ। তাই কর্মীরা বিনের ব্যাগ ও অ্যাপ্রোন পরে কাজ চালিয়ে নিচ্ছেন।

যুক্তরাজ্যের সরকার সরঞ্জাম বিতরণ নিয়ে যে ঝামেলা হচ্ছে সেটা স্বীকার করেছেন। এখন এই কাজের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে সশস্ত্র বাহিনী।

সরঞ্জাম জায়গা মতো পৌঁছাতে কাজ করে যাচ্ছেন তারা।

পহেলা এপ্রিল ১০ লাখ শ্বাসযন্ত্র রক্ষাকারী মাস্ক দিয়েছে বলে জানিয়েছে এনএইচএস, যুক্তরাজ্যের জাতীয় স্বাস্থ্যসেবা সংস্থা। তবে সেখানে মাথার সুরক্ষা ও গাউনের কথা বলা হয়নি।

রবার্টস যেখানে কাজ করছেন সেই হাসপাতালে কোনো সরকারি সামগ্রী পৌঁছায়নি বলছেন তিনি।

“এখন আমরা যে মাস্ক দিয়ে কাজ করছি সেটা নতুন করে তারিখ বসানো হয়েছে। আমি তিনটি স্টিকার দেখেছি যেখানে লেখা মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ার তারিখ ২০০৯, ২০১৩ ও একটিতে ২০২১।”

ইংল্যান্ডের পাবলিক হেলথ বলছে যেগুলোতে মেয়াদের তারিখ শেষ হয়ে গেছে সেগুলো তারা পরীক্ষা করে দেখে যে ব্যবহার করা যাবে, কিন্তু বিবিসি যে চিকিৎসকের সাথে কথা বলেছে তিনি বলছেন তিনি এ বিষয়ে আশ্বস্ত হতে পারছেন না।

এই মুহূর্তে রবার্টসের তিনজন সহকর্মী ভেন্টিলেশনে আছেন যারা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। যারা আক্রান্ত হয়েছে তাদের একজন কোভিড ওয়ার্ডে কাজ করতেন। বাকি দুজন কোভিড ওয়ার্ডে কাজ করতেন না তাই তাদের পিপিই ছিল না।

রবার্টস মনে করছেন এই দুজনেরও কর্মক্ষেত্রেই সংক্রমণ হয়েছে।

সহকর্মীরা দেখা সাক্ষাৎ করতে পারছেন। কিন্তু কোনো আত্মীয়কে সেখানে ঢুকতে দেয়া হচ্ছে না।

চিকিৎসক রবার্টস সবচেয়ে কঠিন যে পরিস্থিতির কথা বলেন, “পরিবারগুলোকে আমাদের বলতে হচ্ছে যে, আপনার রোগী মারা যাচ্ছে, তারা দেখতেও আসতে পারছে না।”

তিনি বলেন, এমনি সময়ে তো কেউ না কেউ পাশে থাকে, যাকে আমরা সান্তনা দেই যে আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করবো।

“আমরা সেরা ভেন্টিলেটর সেবা দিতে পারছি না। আমরা নার্সিং কেয়ার সর্বোচ্চ দিতে পারছি না, আমাদের সেরা নার্সদের এতো কাজ করানো হচ্ছে যে সেটা অমানবিক। আমাদের এন্টিবায়োটিক শেষের পথে আমি তাদের সকল সেবার নিশ্চয়তা দিতে পারছি না।”

ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস বলছে তাদের কাছে স্বাস্থ্যসেবায় নিয়োজিতরা করোনাভাইরাসে কর্মক্ষেত্রে সংক্রমিত হচ্ছে কি না সে বিষয়ে কোনো তথ্য নেই।

ইউরোপে যে দুটি দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ও এর ফলে মৃত্যুর সংখ্যা সবচেয়ে বেশি তাদের মধ্যে একটি স্পেন যেখানে সরকারি হিসেবে ২৭শে মার্চ পর্যন্ত ৯৪০০ স্বাস্থ্যকর্মীর করোনাভাইরাস পজিটিভ নিশ্চিত।

৩০শে মার্চ পর্যন্ত ইতালিতে সংক্রমিত স্বাস্থ্যকর্মীর সংখ্যা ৬৪১৪ জন।

যুক্তরাজ্যে কয়েকজন স্বাস্থ্যকর্মী মারা গেছেন বলে জানা গেছে।

পশ্চিম মিডল্যান্ডের একজন নার্স আরিমা নাসরিন মারা গেছেন করোনাভাইরাসে।

পূর্ব লন্ডনের হেলথ কেয়ার সহকারী থমাস হারভে, সেন্ট্রাল লন্ডনের প্রফেসর মোহাম্মদ সামি সৌশা, দক্ষিণের ড. হাবিব জাইদি, পশ্চিম লন্ডনের ড. আদিল এল তাইয়ার এবং লেস্টারের ড. আমজেদ এল হাওরানি মারা গেছেন। সূত্র: বিবিসি বাংলা

ওয়ার্ল্ড ওমিটার বলছে, করোনায় মৃত্যু হারে বাংলাদেশ দ্বিতীয়, এশিয়ায় প্রথম

ডেস্ক রিপাের্ট : দেশে নতুন করে রেকর্ড সংখ্যক ১৮ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৮৮ জন। একসঙ্গে এতজনের করোনায় আক্রান্তের খবর দেশে এটাই প্রথম।

ব্রিফিংয়ে রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, করোনায় মৃত ব্যক্তির বয়স ৫৫। তিনি নারায়ণগঞ্জের অধিবাসী। নতুন শনাক্ত ১৮ জনের ১৫ জনই পুরুষ, তিনজন নারী। তাদের মধ্যে ১৫ জন ঢাকার, দুইজন মাদারীপুরের ও বাকি একজন নারায়ণগঞ্জের।

বাংলাদেশে করোনাভাইরাস প্রথম শনাক্ত হয়েছে গত ৮ মার্চ। এরপর দিনে দিনে সংক্রমণ বেড়েছে। সবশেষ হিসাবে করোনায় বাংলাদেশে আক্রান্তের সংখ্যা ৮৮ জন। মারা গেছেন ৯ জন। এছাড়া সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছেন ৩০ জন।

বাংলাদেশে মোট আক্রান্ত থেকে মৃত্যুর হার ১১ দশমিক ৪৩ শতাংশ। আর সুস্থ থেকে মৃত্যুর হার ১১ দশমিক ৪৩ শতাংশ ২৬.৬৭ শতাংশ। আক্রান্ত থেকে মৃত্যুর হারেই বিশ্বের দ্বিতীয় স্থানে আছে বাংলাদেশ। প্রথম স্থানে আছে মৃত্যুপরী ইতালি। আর বাংলাদেশের পর তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে স্পেন।

সফটওয়্যার সল্যুশন কোম্পানি ডারাক্সের পরিসংখ্যানভিত্তিক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটার এই তথ্য প্রকাশ করেছে। করোনা ভাইরাস আক্রান্ত ২০৫ দেশের মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশও।

ওয়ার্ল্ড ওমিটার বলছে, চীনে করোনায় মৃত্যুর হার ৪.০৪%। বাংলাদেশের সামনে আছে কেবল মৃত্যুপুরী বনে যাওয়া ইতালি (১২.২৫%), যদিও পার্থক্য খুবই সামান্য। আরেক মৃত্যুপুরী স্পেনের হারও বাংলাদেশের চেয়ে কম (৯.৩৯%)। করোনার নতুন আবাস আমেরিকায় অনেকে আক্রান্ত হলেও মৃত্যুহার খুবই কম (২.৬৭%)।

এশিয়ার দুই দেশ দক্ষিণ কোরিয়া এবং মালয়েশিয়াতেও মৃত্যু হার যৎসামান্য, যথাক্রমে ১.৭৪ % ও ১.৫৯%। প্রতিবেশী ভারতে (২.৭৯%) তাদের থেকে কিছুটা বেশি হলেও পাকিস্তানে (১.৪৮%) তুলনামূলকভাবে অনেক কম। অন্যদিকে দক্ষিণ এশিয়ার আরেক দেশ শ্রীলঙ্কায় মৃত্যুহার ৩.১৪%।

তবে বাংলাদশে সরকার মৃত্যুর হার কমিয়ে আনতে নানা পদক্ষেপ নিয়েছে। নাগরিকদের সচেতনতা করতে সরকারের শীর্ষ পর্যায় থেকে প্রচার-প্রচারণা চালানো হচ্ছে।

এদিকে অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশে মৃত্যুর মিছিল না দেখা গেলেও মৃত্যুর হারে ইতালির পরেই বাংলাদেশের অবস্থান। এশিয়ার মধ্যে মৃত্যুর হারে প্রথমেই রয়েছে বাংলাদেশ।

হিসাব করলে দেখা যায়, বাংলাদেশে করোনায় মৃত্যুর হার এখনও বিশ্বের মধ্যে একেবারে প্রথম সারিতে! মাঝখানে খানিক বিরতি দিয়ে বাংলাদেশ এবার দ্বিতীয় স্থান লাভ করেছে, সেই সাথে মৃত্যুর শতকরা হার আরও বেড়েছে!

অর্থাৎ দেশে প্রতি ১০০ জন করোনা আক্রান্ত রোগীর মধ্যে প্রায় সাড়ে ১১ জন মারা যাচ্ছে বাংলাদেশে! যা ভাইরাসটির উৎপত্তি স্থল চীনের চেয়েও অনেক বেশি।

এশিয়ার দুই দেশ দক্ষিণ কোরিয়া এবং মালয়েশিয়াতেও মৃত্যুহার যৎসামান্য, যথাক্রমে ১.৭৪ % ও ১.৫৯%। প্রতিবেশী ভারতে (২.৭৯%) তাদের থেকে পাকিস্তানে (১.৪৮%) তুলনামূলকভাবে মৃত্যুহার অনেক কম। অন্যদিকে দক্ষিণ এশিয়ার আরেক দেশ শ্রীলঙ্কায় মৃত্যুহার ৩.১৪%।

সুস্থ হওয়ার তিনদিনের মাথায় আবারও বান্ধবীসহ করোনা আক্রান্ত দিবালা!

স্পাের্টস ডেস্ক : ইতালিয়ান ক্লাব জুভেন্টাস প্রথমে তার করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর গোপন করেছিল। কিন্তু শেষমেশ জানাজানি হয়ে যায়, আর্জেন্টাইন তারকা পাওলো দিবালা করানাভাইরাসে আক্রান্ত। এর পর ক্লাবের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে খবরের সত্যতা স্বীকার করে হয়। দিবালার বান্ধবীও করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। তবে মরণ ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করে সুস্থ হয়ে উঠেছিলেন দিবালা। এবার জানা যাচ্ছে, সুস্থ হওয়ার তিনদিনের মাথায় তিনি আবার করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তার বান্ধবী সাবাতিনিও ফের কোভিড-১৯ টেস্টে পজিটিভ হয়েছেন।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ‘দ্য সান’কে সাবাতিনি জানিয়েছেন, সুস্থ হয়ে ওঠার তিনদিনের মাথায় তিনি ও দিবালা আবারও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। ২১ মার্চ দিবালা ও তার বান্ধবীর শরীরের করোনার জীবাণু আছে বলে জানা যায়। তার পর থেকেই দুজনকে আইসোলেশনে রাখা হয়েছিল। চলছিল চিকিৎসা। কয়েকদিন আগে দিবালা নিজেই জানিয়েছিলেন, তিনি এখন সম্পূর্ণ সুস্থ। এমনকী ট্রেনিংয়ে ফেরার পরিকল্পনা করছেন বলেও জানিয়েছিলেন তিনি। করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর শরীরের কী কী সমস্যা দেখা দেয় তা নিয়েও ইন্টারভিউ দিয়েছিলেন তিনি।

জানা গেছে, তিনদিন আগে দিবালা ও তার বান্ধবীর করোনা টেস্ট নেগেটিভ আসে। তিনদিন বাদে তৃতীয়বার টেস্টে আবার পজিটিভ হন দুজনে। শরীরে করোনা নেই ভেবে চিন্তামুক্ত থাকা যাবে না, হুঁশিয়ারি দিয়েছেন সাবাতিনি। তিনি বললেন, ‘সেরে ওঠার পর কেউ যদি মনে করে সে এবার সম্পূর্ণ বিপদমুক্ত, তাহলে ভুল করবে। সুস্থ হওয়ার পর আরও একবার টেস্ট করাতে হবে। তার পর স্বস্তিদায়ক কোনো খবর পাওয়া যেতে পারে। একশোভাগ সুস্থ কি না তা জানতে টেস্ট করানো ছাড়া আর কোনো উপায় নেই। তবে আমরা এখন ভালো আছি। শরীরে সমস্যা থাকলেও সেটা সহ্য করার মতো।’

টম মুডির কাছে টি-টোয়েন্টিতে বিশ্বসেরা দুই ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার ও রোহিত শর্মা

স্পোর্টস ডেস্ক : টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে কোন দুই তারকা ব্যাটসম্যান বিপজ্জনক? পাকিস্তানের এক সাংবাদিক সোশ্যাল মিডিয়ায় এই প্রশ্নই ছুড়ে দিয়েছিলেন টম মুডিকে।
তিনি বলেন, খুবই কঠিন সিদ্ধান্ত। তবে আমার ব্যক্তিগত পছন্দ অস্ট্রেলিয়ার ডেভিড ওয়ার্নার ও ভারতের রোহিত শর্মাকে।
ওয়ার্নার ও রোহিত যে কোনও মুহূর্তে ম্যাচের রং বদলে দিতে পারেন। যতো কঠিন পরিস্থিতিই হোক না কেন, মারমুখী ব্যাটিং করে ম্যাচ ছিনিয়ে নিতে দক্ষ দুই তারকা। সে কারণেই মুডি বেছে নিয়েছেন টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের দুই ওপেনার রোহিত ও ওয়ার্নারকে। -আজকাল

করোনা মোকাবেলায় পাকিস্তানের পুত্রবধূ সানিয়া মির্জার এক সপ্তাহে সোয়া কোটি রুপি সংগ্রহ

স্পোর্টস ডেস্ক : করোনা ভাইরাসের বিপক্ষে লড়াইয়ে বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গনের অনেকের মতোই এবার এগিয়ে এলেন ভারতের টেনিস সেনসেশন সানিয়া মির্জা। নিজ দেশের মানুষের পাশে দাঁড়াতে তহবিল গঠনে মানবতার ডাক দেন পাকিস্তানির পুত্রবধু। তার মানবতার ডাকে সাড়া দিয়েছেন অনেকেই। আর এক সপ্তাহের মধ্যে ১ কোটি ২৫ লাখ রুপির তহবিল সংগ্রহ করে ফেলেছেন সানিয়া।

তবে সানিয়ার চেষ্টা এখানেই থেমে থাকছে না। তিনি নিজে যে ফান্ড গঠন করেছেন, সেখানে আরও অর্থ জমা হচ্ছে। এই অর্থ দিয়ে করোনার প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া পরিবারগুলোকে খাদ্য সহায়তা দিতে চান। টুইটারে সানিয়া নিজের কার্যক্রম নিয়ে বলেন, আমরা একেটি দল হিসেবে অসহায়-দুস্থ পরিবারকে সহযোগিতা করার উদ্যোগ নিয়েছি। আমরা হাজারের ওপর পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিতে চাই। এক সপ্তাহেই এক কোটি ২৫ লাখ রুপি সংগ্রহ করেছি। আমরা অন্তত এক লাখ পরিবারকে সহায়তা দিতে পারবো।

এর আগে গতকাল এক টুইট বার্তায় যারা সোশ্যাল সাইটে রান্না এবং খাবারের ছবি শেয়ার দিচ্ছেন, তাদের কঠোর সমালোচনা করেন পাকিস্তানি তারকা ক্রিকেটার শোয়েব মালিকের সহধর্মীনী। করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের সহায়তায় বড় অংকের অর্থ সাহায্য নিয়ে এগিয়ে এসেছেন ভারতের অনেক ক্রীড়া ব্যক্তিত্বরা। শচীন টেন্ডুলকার, সৌরভ গাঙ্গুলী, বিরাট কোহলি ও সুরেশ রায়না ছাড়া আরও অনেকে।

মিরপুর ১ নম্বর সেকশনে এক পরিবারের দুই করোনা রোগী শনাক্ত, ২৫ পরিবার লকডাউন

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজধানীর মিরপুরে এক পরিবারের দুজনের দেহে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ ঘটনায় সংশ্লিষ্ট এলাকার দুটি বহুতল ভবন ও একটি টিনশেড বাড়ি লকডাউন করে দিয়েছে মিরপুর থানা পুলিশ। তিনটি বাড়িতে অন্তত ২৫টি পরিবার রয়েছে বলে জানা গেছে।

সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) আক্রান্ত দুজনকে আজ সকালে বাসা থেকে নিয়ে গেছে।

মিরপুর থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, শনাক্ত হওয়া দুজন মিরপুর-১ নম্বর ওভারব্রিজের পাশে তানিম গলিতে বসবাস করতেন।

ওসি বলেন, ওই দুজন গত দুদিন ধরে জ্বর, সর্দি-কাশি ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন। আইইডিসিআরের পরীক্ষায় তাদের করোনা পজিটিভ আসে। পরে আজ সকালে তাদের বাসা থেকে নিয়ে যায় আইইডিসিআর।

এর পর দুটি বহুতল ভবন ও একটি টিনশেড বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে। সেখানে প্রায় ২৫ পরিবারের বসবাস বলে জানিয়েছে পুলিশ। বাড়িগুলোর সামনে সার্বক্ষণিক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।