করোনায় চিত্রনায়িকা পপির রিটার্ন অব লাভ

বিনােদন ডেস্ক : করোনাভাইরাসের কারণে দেশে চলছে লকডাউন। এই পরিস্থিতিতে সবচেয়ে বেশি বিপদে পড়েছে নিম্ন আয়ের মানুষ। এসব অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছেন বিভিন্ন সংগঠন ও সচ্ছল ব্যক্তিরা। তাদের মধ্যে আছেন সিনেমা জগতের তারকারাও। শাকিব, সনেট, ববি, সুজানা, মিষ্টি জান্নাতের পর এবার অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন নায়িকা পপি। তিনি এই সহযোগিতার নাম দিয়েছেন রিটার্ন অব লাভ’।

পপি বর্তমানে খুলনায় নিজ বাড়িতে অবস্থান করছেন। নতুন বছরের প্রথম দিন পহেলা বৈশাখে প্রায় দেড় হাজার মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেন এই জনপ্রিয় নায়িকা। ত্রাণ বিতরণের কিছু ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করেন পপি।

তাতে নায়িকা লিখেন, ত্রাণ নয়, সহায়তাও নয়– ‘রিটার্ন অব লাভ’। তারকা হিসেবে সকলের কাছ থেকে পেয়েছি অফুরন্ত ভালোবাসা। এটা হলো তারই যৎসামান্য প্রতিদান দেওয়ার চেষ্টা, যদিও ভালোবাসার কোনো প্রতিদান দেওয়া যায় না। সকলকে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা। সবাই বাড়িতে থাকুন, নিরাপদ থাকুন এবং পরিবারকেও নিরাপদে রাখুন।

ছোটবেলা থেকে তিনি সব সময় চেষ্টা করেন মানুষকে সাহায্য-সহযোগিতা করার জন্য- এ কথা জানিয়ে পপি বলেন, যত দিন বেঁচে থাকবেন এভাবেই মানুষের সেবা করতে চান তিনি।

দেশের এই সংকটকালে চলচ্চিত্র পাড়ার মানুশদের কথাও ভুলে যাননি পপি। বলেন, এই মুহূর্তে আমার সবচেয়ে বেশি কষ্ট হচ্ছে আমার দ্বিতীয় পরিবার আমার ফিল্মের মানুষদের জন্য, যাদের সহযোগিতায় আজকে আমি পপি হয়েছি। আমার সেই সব প্রোডাকশন বয়সহ যারা প্রডাকশনে নিয়মিত কাজ করে আমাদের সহযোগিতা করেন, তাদের সহযোগিতা করতে পারলে খুব ভালো লাগতো। তবে খুলনায় আছি বলে কিছুই পারছি না।‘

ক্রীড়াবিদের পরিবারের তিন মাসের দায়িত্ব নিলেন তামিম

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনাভাইরাসের কারণে অসহায় দেশের অনেকেই। এ অবস্থায় অনেকেই সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিচ্ছেন। ঠিক তেমনি গত অক্টোবরে জুনিয়র অ্যাথলেটিক্সে ১০০ মিটার স্প্রিন্টে ১১.৪১ সেকেন্ড সময় নিয়ে সোনা জেতা সামিউল ইসলামের পাশে এসে দাঁড়ালেন বাংলাদেশের ক্রিকেট দলের ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল। আগামী তিন মাস তাঁর পরিবারের সব দায়িত্ব নিয়েছেন তামিম।

খেলোয়াড় হিসেবেই বিজেএমসিতে অস্থায়ী পদে চাকরি পেয়েছিলেন সামিউল। খুব বেশি বেতনও পেতেন না তিনি। কিন্তু জানুয়ারির শেষ নাগাদ অস্থায়ী পদে চাকরি করা মোট ২৬৫ জন খেলোয়াড় ও কোচকে ছাঁটাই করে দেয় স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানটি। ফলে বেকার হয়ে পড়েন সামিউল। এর মধ্যে করোনাভাইরাসের কারণে আরও বিপদ বাড়ে সামিউলের। অর্ধাহারেই ছয় সদস্যের পরিবার নিয়ে দিন কাটছিল তার।

দেশের একটি দৈনিক পত্রিকার মাধ্যমে সামিউলের খবর জানতে পারেন তামিম। খবরটি শুনে তামিম নিজেই ফোন করেছিলেন সামিউলকে। সবকিছু শুনে সামিউলের প্রতি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন তামিম।

সামিউল বলেন, ‘তামিম ভাই আমাকে ফোন দিয়েছিলেন। আমার ও আমাদের পরিবারের খোঁজ খবর নিলেন। মাসে আমাদের পরিবারের খরচ জানতে চাইলেন। পরে বিকাশে তিন মাসের খরচ পাঠিয়ে দিয়েছেন আমাকে। আমার তার প্রতি কৃতজ্ঞ।’

মধ্যপ্রাচ্য থেকে ফিরতে পারেন ১৫ হাজার প্রবাসী

ডেস্ক রিপাের্ট : করোনাভাইরাসের কারণে চাকরির বাজারে মারাত্মক প্রভাব পড়ায় প্রাথমিকভাবে মধ্যপ্রাচ্যের সর্বোচ্চ ১৫ হাজার প্রবাসী বাংলাদেশি শ্রমিক দেশে ফিরে আসতে পারেন বলে আভাস দিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন। তিনি বলেন, মধ্যপ্রাচ্যের কয়েকটি দেশ গত দুই সপ্তাহ ধরে কারাগারে আটকদেরসহ অনিবন্ধিত কর্মীদের ফিরিয়ে আনার জন্য ঢাকার প্রতি অনুরোধ জানিয়েছে এবং এই পর্যায়ে আমরা প্রত্যাশা করছি যে, আমাদের ফিরিয়ে আনা কর্মীর সংখ্যা ১০ হাজার থেকে ১৫ হাজার হতে পারে।

বার্তা সংস্থা বাসসকে মোমেন বলেন, নীতিগতভাবে বাংলাদেশ তার নাগরিকদের গ্রহণ করতে প্রস্তুত। তবে, ঢাকা সংশ্লিষ্ট মধ্যপ্রচ্যের দেশগুলোকে জানিয়েছে, ‘আমরা তাদেরকে পর্যায়ক্রমে ফিরিয়ে নিয়ে আসবো, আমরা ফিরিয়ে এনে তাদেরকে কোরেন্টাইনে রাখার প্রস্তুতি নিাচ্ছি এবং তাদের আবাসনের জন্য যথাযথভাবে সুযোগ-সুবিধা তৈরি করা হচ্ছে।’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ৩৬৬ জন বাংলাদেশি প্রবাসী শ্রমিকের প্রথম ব্যাচটি গতরাতে সৌদি আরব থেকে রাজকীয় ব্যয়ে সৌদি এয়ারলাইন্সের একটি বিশেষ ফ্লাইটে দেশে পৌঁছেছে।

প্রক্রিয়াটির সঙ্গে জড়িত কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, তাদের মধ্যে প্রায় ২০০ জন সৌদি কারাগারে ছিলেন, ১৩২ জন পবিত্র ওমরাহ পালন করতে গিয়ে আটকা পড়েছিলেন এবং বাকিরা অনিবন্ধিত বেকার শ্রমিক।

মোমেন বলেন, দেশগুলো বাংলাদেশি শ্রমিকদের নিজস্ব ব্যয়ে ফেরত পাঠাতে সম্মত হয়েছে, তারা বিশেষ বিমানের ব্যবস্থা করেছে। এর মধ্যে প্রায় ৩৫০ জন কুয়েত থেকে এবং ৪৪০ জনকে সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে প্রথম পর্যায়ে ফিরে আসতে হবে।

মন্ত্রী বলেন, ওমান, লেবানন এবং কাতারের পাশাপাশি বিশ্বব্যাপী মহামারি বিবেচনায় অনিবন্ধিত বাংলাদেশি শ্রমিকদের বের করে দিতে চাচ্ছে।তিনি বলেন, তাদের সংখ্যা যা-ই হোক না কেন প্রত্যেককে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে মেডিক্যাল চেকআপ করানো হবে এবং তারপরে সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের ব্যবস্থাপনায় ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারান্টাইনে প্রেরণ করা হবে।

মোমেন বলেন, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ বর্তমানে পাঁচ হাজারেরও বেশি লোকের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন সুবিধা চূড়ান্তকরণের জন্য কাজ করছে এবং তাদের কাজ সম্পন্ন করার পরে ‘আমরা প্রতি সপ্তাহে ৩০০০ থেকে ৪০০০ জনকে নিরাপদে কোয়ারেন্টাইনে পাঠাতে সক্ষম হবো।’

মন্ত্রী জানান, এর আগে গতকাল প্রত্যাবাসন ইস্যু নিয়ে তার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত তৃতীয় আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে যে, বেকার প্রবাসী শ্রমিকদের দেশে ফেরত আনার জন্য সরকার পাঁচ থেকে সাত লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ দেবে।

সিদ্ধান্ত অনুসারে, প্রত্যেক প্রত্যাবাসী বিমানবন্দরে পৌঁছে পাঁচ হাজার টাকা করে পাবেন এবং করোনাভাইরাসে মারা যাওয়া প্রবাসী শ্রমিকদের পরিবার তিন লাখ টাকা করে পাবেন।

এদিকে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) দু’দিন আগে এক বিবৃতিতে বলেছে, কাজের জগতে কোভিড-১৯-এর তীব্র অর্থনৈতিক প্রভাবগুলোর মধ্যে কেবল মাত্র তিন মাসের মধ্যে প্রায় ২০০ মিলিয়ন চাকরি হারাতে পারে।’

জাতিসংঘের এই শ্রম সংস্থাটি জানিয়েছে, তাদের সর্বশেষ মূল্যায়নে বলেছে, সারা বিশ্বের দেশগুলোতে পুরো বা আংশিক লকডাউনগুলোর কারণে প্রায় ২ দশমিক ৭ বিলিয়ন শ্রমিককের কাজে প্রভাবিত করেছে। যা বিশ্বের শ্রমিকদের প্রতি পাঁচজনের মধ্যে চারজন।

আইএলও জানিয়েছে, ‘প্রায় দুই বিলিয়ন লোকের জন্যও উদ্বেগ বাড়ছে যারা অনানুষ্ঠানিকভাবে কাজ করেন, তাদের বেশিরভাগই উদীয়মান এবং উন্নয়নশীল দেশের শ্রমিক।

করোনায় সারাদেশকে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করেছে সরকার

নিজস্ব প্রতিবেদক : নভেল করোনাভাইরাসে প্রথম রোগী শনাক্ত হওয়ার চল্লিশতম দিনে এসে ৪৩টি জেলায় সংক্রমিত রোগী পাওয়ার পর সারাদেশকে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করেছে সরকার।

সংক্রামক রোগ প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল আইন ২০১৮ এর ক্ষমতাবলে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. আবুল কালাম আজাদ স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এই ঘোষণার কথা জানানো হয়েছে।

এক বিজ্ঞপ্তিতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলেছে, যেহেতু বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকায় এই রোগের সংক্রমণ ঘটেছে। সেহেতু সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল) আইন, ২০১৮ এর ১১(১) ধারার ক্ষমতাবলে সমগ্র বাংলাদেশকে সংক্রমণের ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা ঘোষণা করা হল।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রশমনে সবাইকে ঘরে অবস্থান করতে হবে; অতীব প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘর থেকে বের হবে না; সারাদেশে কেউ সন্ধ্যা ছটার পর সকাল ছয়টা পর্যন্ত বাইরে যেতে পারবে না। এছাড়া এক এলাকা থেকে অন্য এলাকায় চলাচল কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করা হবে।

এর আগে বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় ১০ জনের মৃত্যু ও নতুন ৩৪১ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

তাদের দেয়া তথ্যানুযায়ী, মোট ৪৩ জেলায় এই পর্যন্ত এক হাজার ৫৭২ জন করোনা রোগী শনাক্ত করা হয়েছে।

এছাড়া ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে ইতোমধ্যে ৪৮টি জেলা লকডাউন করেছে প্রশাসন। এর বাইরেও কিছু উপজেলা এবং কিছু অঞ্চলে লকডাউন জারি করেছে স্থানীয় প্রশাসন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘করোনা ভাইরাস বিশ্বব্যাপী মহামারী আকারে বিস্তার লাভ করায় লাখ লাখ মানুষ আক্রান্ত হয়েছে। লক্ষাধিক লোক মারা গেছেন। বাংলাদেশেরও বিভিন্ন এলাকায় এই ভাইরাসের সংক্রামণ ঘটেছে। হাঁচি, কাশি ও পরস্পর মেলামেশার কারণে এই এই রোগের বিস্তার ঘটে।’

‘এখন পর্যন্ত বিশ্বে এই রোগের কোনো প্রতিষেধক আবিষ্কার হয়নি। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনা অনুযায়ী এ রোগের একমাত্র প্রতিষেধক হলো পরস্পর হতে পরস্পরের নির্দিষ্ট দূরত্বে অবস্থান করা। যেহেতু জনসাধারণের একে অপরের সঙ্গে মেলামেশা নিষিদ্ধ করা ছাড়া সংক্রমণ এড়ানো সম্ভব নয় এবং দেশের বিভিন্ন এলাকায় এই রোগের সংক্রমণ ঘটেছে তাই সংক্রামণ রোগ আইন ক্ষমতাবলে সমগ্র বাংলাদেশকে সংক্রমণের ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা ঘোষণা করা হলো।’

কেউ এই আদেশ অমান্য করলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে সতর্ক করে স্থানীয় স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ সংশ্লিষ্ট সরকারি প্রশাসন ও কর্তৃপক্ষের সহায়তা নিয়ে আইনের অন্য ধারাগুলো প্রয়োগের ক্ষমতা সংরক্ষণ করবে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে জনিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

কুকুরের মৃত্যুতে দিশাহারা স্টিভেন স্মিথ ¬ ইনস্টাগ্রামে লিখলেন, বন্ধু তুমি শান্তিতে ঘুমাও

স্পাের্টস ডেস্ক : বিশ্বকে গ্রাস করে রেখেছে করোনাভাইরাস। অস্ট্রেলিয়া এর বাইরে নয়। করোনা ইস্যুতে দেশটিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ক্রিকেট। কোভিড-১৯ থেকে বাঁচতে গৃহবন্দি অস্ট্রেলিয়ানরা। সে দেশের সাবেক অধিনায়ক স্টিভ স্মিথও হোম কোয়ারেন্টাইনে। করোনায় এমনিতেই মন খারাপ এই ক্রিকেটারের। তার উপর চেপে বসেছে প্রিয় বন্ধু পোষ্য কুকুরকে হারানোর শোক।

স্টিভ স্মিথের পরিবারের সবচেয়ে ছোট সদস্য হিসেবে ছিল তার পোষা কুকুর চার্লি। স্মিথ ও তার স্ত্রী ড্যানি উইলিসের সবসময়ের সঙ্গী ছিল সে। পোষা প্রাণীর মৃত্যুতে সবার মনই খারাপ হয়। স্মিথের অবস্থাও তাই। সোশ্যাল সাইট ইনস্টাগ্রামে কুকুরটির সঙ্গে ছবি পোস্ট করে স্টিভেন স্মিথ লিখেন, পরিবারের সবচেয়ে ছোট সদস্যকে হারিয়ে ভীষণ কষ্ট হচ্ছে। চার্লি খুব সুন্দর, বিশ্বস্ত এবং অল-রাউন্ড পারফর্মার ছিল। আমি তোমাকে খুব মিস করছি ছোট্ট বন্ধু। শান্তিতে ঘুমাও।

গত ১৭ বছর ধরে চার্লি ছিল স্মিথ পরিবারের বিশ্বস্ত সঙ্গী। এতদিনের সঙ্গীকে হারিয়ে হতবিহ্বল স্মিথ চার্লির সঙ্গে তার স্মৃতি বিজরিত অনেকগুলো ছবি সোশ্যাল সাইটে পোস্ট করেছেন। উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে কেপটাউন টেস্টে বল টেম্পারিং কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পড়ার শাস্তি হিসাবে অস্ট্রেলিয়ার নেতৃত্ব হারিয়েছিলেন ৩০ বছর বয়সী স্টিভ স্মিথ। দুই বছরের নেতৃত্বের নিষেধাজ্ঞাও শেষ হয়েছে এই ৩০ বছর বয়সী ক্রিকেটারের।- ইনস্টাগ্রাম থেকে

মেয়ের বাবা হলেন মোহাম্মদ মিঠুন

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনাভাইরাসের কারণে চলতি লকডাউনের মাঝে দ্বিতীয় সন্তানের বাবা হলেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ মিথুন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজেই বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মিথুন। বুধবার রাতে রাজধানীর একটি হাসপাতালে মিথুনের স্ত্রী কন্যা সন্তানের জন্ম দেন।

মিথুন জানিয়েছেন স্ত্রী ও সদ্যজাত সন্তান দুজনেই ভালো আছেন। ফেসবুকে তিনি আরও বলেন, ‘আল্লাহর অশেষ রহমতে সন্তান এবং মা দু’জনই সুস্থ আছেন। আপনাদের সবার দোয়া একান্ত কাম্য।’

উল্লেখ্য, গত ৭ এপ্রিল কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে বাবা হওয়ার সুখবর দেন সাকিব আল হাসান এবং মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। সাকিব-শিশির দম্পতির কন্যাসন্তান এখনও পৃথিবীতে আসেনি। এ মাসের শেষের দিকে পৃথিবীর আলো দেখার কথা আলাইনা হাসান আব্রির ছোট বোনের। তবে মাহমুদউল্লাহ-জান্নাতুল কাওসার মিষ্টি দম্পতি দ্বিতীয় পুত্র সন্তানের মুখ দেখেছেন।

জরুরি ভিত্তিতে ভুটানে ওষুধ পাঠালেন প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক : নাভাইরাস (কভিড-১৯) সংক্রমণ থেকে ভুটানের জ্যেষ্ঠ নাগরিকদের জন্য জরুরি ওষুধ সামগ্রীর দুটি চালান পাঠিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আজ বৃহস্পতিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, ভুটানের সঙ্গে সম্পর্ক চমৎকার। স্বাধীনতার পর বাংলাদেশকে প্রথম স্বীকৃতি দেওয়া দেশ ভুটান। ওই দেশটির রাজার অনুরোধে প্রধানমন্ত্রী তার ত্রাণ তহবিল থেকে ওই জরুরি ওষুধ সহায়তা পাঠিয়েছেন।

ওষুধ সামগ্রীর মধ্যে রয়েছে বেক্সিমকো ফার্মার ১০ লাখ ইউনিট মাল্টি-ভিটামিন বেক্সট্রাম গোল্ড ও স্কয়ার ফার্মার পাঁচ লাখ ইউনিট ভিটামিন সি সিভিট। জরুরি সহায়তার প্রথম চালানটি বৃহস্পতিবার সড়কপথে ঢাকা ছেড়েছে। এটি লালমনিরহাটের বুড়িমারী সীমান্ত হয়ে থিম্পু পৌঁছাবে। দ্বিতীয় চালানটি আগামী রবিবার আগামী রবিবার বুড়িমারী সীমান্তে পৌঁছাবে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, এর আগেও বাংলাদেশ ভুটানে হ্যান্ড সেনিটাইজারসহ জরুরি চিকিৎসা সামগ্রীর একটি চালান পাঠিয়েছে। গতকাল বুধবার জরুরি সহায়তা সামগ্রী নিয়ে নৌবাহিনীর একটি জাহাজ চট্টগ্রাম থেকে মালদ্বীপের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছে।

বাসা ছাড়তে বললে বাড়িওয়ালার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা

ডেস্ক রিপাের্ট : চট্টগ্রামে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকানো এবং চিকিৎসাক্ষেত্রে জড়িত চিকিৎসক-নার্সদের মধ্যে কেউ কেউ বাড়িওয়ালার বিরূপ আচরণের শিকার হয়েছেন। এমন দু-তিনটি ঘটনা ইতিমধ্যেই শনাক্ত হয়েছে। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা দিচ্ছেন এমন ডাক্তার-নার্সদের বাসা ছেড়ে দেওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন চট্টগ্রামের একাধিক বাড়িওয়ালা।

বিষয়টি নজরে আসার পরপরই এই বিষয়ে কঠোর অবস্থান নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান। তিনি বলেন, চিকিৎসক-নার্সরাই এখন করোনাযুদ্ধের অগ্রণী সৈনিক। তারাই চিকিৎসা-সেবা দিয়ে রোগীর জীবন বাঁচানোর চেষ্টা করছেন। কিন্তু এমন চিকিৎসক-নার্সদের কোনো কোনো বাড়িওয়ালা বাসা ছেড়ে দেওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন।

যা চরম অমানবিক। এমন আচরণ সহ্য করা যায় না। তাই যদি বাড়িওয়ালা চিকিৎসক-নার্সদের বাসা ছেড়ে দেওয়ার নির্দেশনা দেন, তাহলে সংশ্লিষ্ট বাড়িওয়ালার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি বলেন, চিকিৎসক বাঁচলেই চিকিৎসা হবে, নার্স বাঁচলে সেবা চলবে। এখন যদি তাঁদেরকে বাড়ি ছেড়ে দেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয় তাহলে চলবে না।

এমন অমানবিক আচরণের শিকার হলে সংশ্লিষ্ট ডাক্তার-নার্সদের সিএমপির হটনম্বর ০১৪০০৪০০৪০০/ ০১৮৮০৮০৮০৮০ নম্বরে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে। ডাক্তার-নার্সদের কাছ থেকে অভিযোগ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই পুলিশ ব্যবস্থা নেবে।

করোনায় আক্রান্তদের প্রতি অমানবিকতায় চটেছেন প্রধানমন্ত্রী

ডেস্ক রিপাের্ট : করোনাভাইরাসে আক্রান্তরা নিকট আত্মীয়দের কাছে অবহেলা-বঞ্চনার শিকার হচ্ছেন বলে যেসব খবর পাওয়া যাচ্ছে সেসব নজর কেড়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনারও। আতঙ্কগ্রস্তদের কেউ কেউ ‘অমানুষে’ পরিণত হচ্ছে কি-না সে প্রশ্নও তুলেছেন তিনি।

করোনা পরিস্থিতি নিয়ে বৃহস্পতিবার সকালে ঢাকা বিভাগের বেশ কয়েকটি জেলা প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স করেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় করোনায় আক্রান্তদের প্রতি নিকট আত্মীয়-স্বজনদের অমানবিক আচরণের প্রসঙ্গটিও তুলে ধরেন সরকার প্রধান।

শেখ হাসিনা বলেন, “মানুষ আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে অনেক সময় অমানুষেও পরিণত হয়। যখন আমরা দেখি, মায়ের সর্দি-কাশি, জ্বর হলো দেখে ছেলে, ছেলের বউ বা ছেলে-মেয়ে মিলে এমনকি তার স্বামী পর্যন্ত তাকে নিয়ে জঙ্গলে ফেলে আসে। এর থেকে অমানবিক কাজ আর হতে পারে না।”

“কেন এই ধরনের ঘটনা ঘটবে। এ রকম বহু কাহিনি আমরা শুনি। আমি বলব, এমন অমানবিক হওয়ার কোনো যৌক্তিকতা নাই। কারও যদি সন্দেহ হয়, তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন, পরীক্ষা করান, নিজেরাও সুরক্ষিত হোন। এই প্রাদুর্ভাব থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য যা যা করণীয় দেশের স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে বা আইডিসিআর থেকে যে সমস্ত নির্দেশ দেওয়া হয়েছে সেগুলি মেনে চলুন।”

“কিন্তু কিভাবে একটা মানুষকে বের করে দেবেন, বা একজন ডাক্তার যে যদিও অসুস্থ লোক তাকেও এলাকা থেকে বের করে দিতে হবে। এই ধরনের ঘটনা কেন ঘটবে বাংলাদেশে। বাংলাদেশের মানুষের তো এ রকম অমানবিক হওয়ার কথা না। এই বিষয়গুলোও সবার দৃষ্টিতে আমি আনতে চাই।”

করোনাভাইরাসের ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে আসছে রমজানে তারাবির নামাজ ঘরে বসে পড়ারও আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

উল্লেখ্য, গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের উহানে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু হওয়ার পর বুধবার এর আক্রান্তের সংখ্যা ২০ লাখ ছাড়ায় বলে জানিয়েছে জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়। আর মৃতের সংখ্যা ১ লাখ ৩৭ হাজার ছুঁই ছুঁই।

আইইডিসিআরের ৬ জন করোনা আক্রান্ত, হোম কোয়ারেন্টাইনে সেব্রিনা ফ্লােরা

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশ সরকারের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট-আইইডিসিআরের চার টেকনোলজিস্টসহ ৬ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানা গেছে। তাদের সবাই কভিড-১৯ টেস্ট কাজে জড়িত ছিলেন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও আইইডিসিআরের একাধিক সূত্রে জানিয়েছে, আক্রান্তদের মধ্যে চারজন মহাখালীর সংক্রামকব্যাধি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

ছয়জনের করোনা পজেটিভ আসার পর প্রায় আইডিসিআর পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরারও কভিড-১৯ টেস্ট করা হয়েছে। তার রিপোর্ট ‘নেগেটিভ’। করোনায় আক্রান্ত না হলেও তিনি স্বেচ্ছায় হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন।

জানা গেছে, চার টেকনোলজিস্ট বাদে বাকি দু’জনের একজন ক্লিনার। অন্যজন আইইডিসিআরের স্টাফ। তাদের সংস্পর্শে আছে অন্যদেরও হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার পর্যন্ত দেশে পর্যন্ত মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬০ জন। আর আক্রান্তের সংখ্যা ১,৫৭২ জন।

গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের উহানে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু হওয়ার পর আক্রান্তের সংখ্যা ২০ লাখ ছাড়িয়েছে বলে জানিয়েছে জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়। আর মৃতের সংখ্যা ১ লাখ ৩৭ হাজার ছুঁই ছুঁই।