রাজধানীর যেসব এলাকায় ছড়িয়ে পড়লাে করোনাভাইরাস

নিজস্ব প্রতিবেদক : চীনের উহান থেকে উৎপত্তি করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) এখন সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে। বাংলাদেশেও আঘাত এনেছে প্রাণঘাতী ভাইরাসটি। দিন দিন দেশে বেড়েই চলেছে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা।

গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম একজন করোনায় আক্রান্ত হওয়ার তথ্য দেয় সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)। এরপর থেকে শনিবার পর্যন্ত ২ হাজার ১৪৪ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ৮৪ জনের। সুস্থ হয়েছেন ৬৬ জন।

শনিবারের তথ্যমতে, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৩০৬ জন এবং মারা গেছেন ৯ জন।

করোনাভাইরাসে সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ হয়েছে রাজধানী ঢাকায়। এরমধ্যে সবচেয়ে বেশি সংক্রমিত হয়েছে মোহাম্মদপুরে। এই এলাকায় আক্রান্ত হয়েছেন ৩৪ জন। এরপরেই আক্রান্তে সংখ্যার দিক দিয়ে রয়েছে ওয়ারী ২৮ জন, মিটফোর্ডে ২৬, যাত্রাবাড়ী ২৫, লালবাগ ও উত্তরা একই সংখ্যা ২৩ ও ধানমণ্ডি ২১। ক্রমান্বয়ে রাজধানীর অন্যান্য এলাকা আক্রান্ত হয়েছে।

টাইম ম্যাগাজিনে জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব বান কি মুনের নিবন্ধ – বিশ্বকে ঐক্যবদ্ধ করতে পারে করোনাভাইরাস

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : করোনাভাইরাস মহামারী মানবজাতির জন্য এক নজিরবিহীন চ্যালেঞ্জ। গত কয়েক দশকেও এমন পরীক্ষার মুখোমুখি হয়নি বিশ্ব। বিশ্ব এবং এর নেতাদের জন্যও এটা একটা বড় পরীক্ষা।

এ মহামারী ইতিমধ্যে দুঃখজনকভাবে বিশাল সংখ্যক মানুষের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে। আমাদের অর্থনীতির ওপর মারাত্মক প্রভাব ফেলেছে এবং একটা দীর্ঘমেয়াদি ও অকল্পনীয় আর্থিক মন্দা সৃষ্টি করবে।

ঐতিহাসিক এ হুমকি মোকাবেলায় বিশ্বনেতাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। কোনো কালক্ষেপণ না করে তাদের সংকীর্ণ মনোভাব ও একপেশে জাতীয়তাবাদ দূরে ছুড়ে ফেলতে হবে। ক্ষুদ্র স্বার্থ, স্বল্পমেয়াদি ও আত্মকেন্দ্রিক চিন্তা-ভাবনা থেকে বের হয়ে সমগ্র মানবতার অভিন্ন স্বার্থ রক্ষার জন্য একযোগে কাঁধে কাঁধে মিলিয়ে কাজে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে।

আমি দীর্ঘদিন জাতিসংঘের মহাসচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি। সংস্থার সাবেক প্রধান হিসেবে আমি জানি, কিভাবে এ করোনা মহামারীর মতো বৈশ্বিক সংকট আমাদেরকে/পুরো বিশ্বকে ঐক্যবদ্ধ করতে পারে।

জাতিসংঘের সাবেক প্রধান কর্মকর্তা হিসেবেই আমি আমার উত্তরসূরি মহাসচিব আন্তনিও গুতেরেসের একটি মানবিক উদ্যোগের প্রতি অকুণ্ঠ সমর্থন জানাচ্ছি। মহামারী মোকাবেলায় অতিরিক্ত ২০০ কোটি ডলার মানবিক ত্রাণ সহায়তার ঘোষণা দিয়েছেন গুতেরেস।

আমার বিশ্বাস, এ সহায়তা ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে টেস্টিং কিট তৈরি ও সরবরাহ, প্রয়োজনীয় চিকিৎসা ও ভ্যাকসিন কার্যক্রম এগিয়ে নিতে তাৎপর্যপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

বিশ্ব নেতাদের প্রতি আমার আরও একটি আবেদন, জাতিসংঘের নেতৃত্বে তারা যেন একটি বিশ্ব সরকার ব্যবস্থা গড়ে তোলার ব্যাপারে এখনই চিন্তা-ভাবনা শুরু করেন। যাতে ভবিষ্যতে যে কোনো মহামারী বা দুর্যোগ আগেভাগেই আরও কার্যকর ব্যবস্থা নিতে পারে।

আমাদের সবাইকে জাতিসংঘ সনদের শিক্ষা ও মূল্যবোধগুলো আরও একবার পর্যালোচনা করতে হবে। এক্ষেত্রে বিশ্বের সবচেয়ে পিছিয়ে পড়া সমাজ ও সম্প্রদায়ের সুরক্ষায় জি-২০, ইন্টারন্যাশনাল মানিটারি ফান্ড তথা আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল ও বিশ্বব্যাংকের মতো বহুমুখী প্রতিষ্ঠানগুলোর সঠিক ব্যবহার করতে হবে।

এটা খুবই আশার ব্যাপার যে, জি-২০ ভুক্ত দেশগুলোর নেতারা করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে প্রয়োজনীয় যে কোনো পদক্ষেপ ও ব্যবস্থা নেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। সেই সঙ্গে বৈশ্বিক অর্থনীতি রক্ষায় ৫ লাখ কোটি ডলারের প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা দিয়েছেন। তবে এ প্রতিশ্রুতিগুলো অবিলম্বে বাস্তবায়ন করতে হবে।

আফ্রিকা, দক্ষিণ এশিয়া ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার গরিব ও উন্নয়নশীল দেশগুলোকে পূর্ণ সহযোগিতা দিতে হবে। যতদিন না অর্থনীতি স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসছে একটা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত তাদের পাশে থাকতে হবে।

ইরানের মতো যেসব দেশ আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞার কবলে রয়েছে, সেসব দেশে জীবনরক্ষাকারী মেডিকেল সরঞ্জাম ও অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের পরিবহনে বাধা তুলে নিতে হবে।

করোনার মতো অদৃশ্য এ দানবের বিপক্ষে ইতোমধ্যে মানবজাতি অনেকটাই ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। এক দেশ অন্য দেশের বিপক্ষে অস্ত্র না পাঠিয়ে পাঠাচ্ছে চিকিৎসা সরঞ্জাম, ওষুধ, চিকিৎসক এবং সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস ও পাশে থাকার সান্ত্বনা। এ বিশ্বটাই যেন আমরা এতদিন শত-সহস্র সম্মেলন করেও পাচ্ছিলাম না।

দশকের পর দশক আমরা যুদ্ধ থামাতে পারিনি, থামাতে পারিনি জলবায়ু পরিবর্তনের নিয়ামক কার্বন নিঃসরণের মাত্রা। সিরিয়া, ইরাকের মতো ধ্বংস করেছি আমাদের বেঁচে থাকার প্রাকৃতিক পরিবেশের উপাদান ওজন স্তর, বরফ গলিয়ে সমুদ্রে ভাসিয়ে দিয়েছি উপকূলীয় অঞ্চলের দেশগুলো।

অথচ কাউকে এখন আর সম্মেলন করে বা নিরাপত্তা পরিষদের অনুরোধ করতে হচ্ছে না। আমরা নিজেরাই বন্ধ করে দিয়েছি যুদ্ধ, পরিবেশবিরোধী পারমাণবিক অস্ত্র শিল্প। আমাদের পৈশাচিক প্রতিযোগিতা লকডাউন করে খুলে দিয়েছি মানবতার নির্মল আকাশ, শত্রুর সঙ্গে কাঁধ মিলিয়ে যুদ্ধ করছি এক দানবের বিপক্ষে।

এরপরও কোভিড-১৯ আমাদের সমাজ ও রাষ্ট্রে মানুষে মানুষে গভীর বৈষম্যের মতো কিছু কঠিন বাস্তবতার ওপর তীর্যক আলো ফেলেছে। দেশে দেশে সম্পদের বৈষম্য আমাদের এ পৃথিবীটাকে কুরে কুরে খাচ্ছে। এ বৈষম্য দূর করতে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়ার এটাই সেরা সময়।

অস্ট্রেলিয়ার দুই আম্পায়ার আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে এক সঙ্গে অবসর নিলেন

স্পোর্টস ডেস্ক : করোনাভাইরাসের কারণে ক্রিকেট বিশ্বে যখন খেলাধুলা বন্ধ হয়ে আছে, তখন নিজেদের ক্যারিয়ারকে বিদায় বললেন অস্ট্রেলিয়ার দুই আন্তর্জাতিক আম্পায়ার সাইমন ফ্রাই এবং জন ওয়ার্ড। ফ্রাই ছিলেন দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়ার ও ওয়ার্ড ছিলেন ভিক্টোরিয়ার। তাদের এই একসঙ্গে অবসর বেশ আলোচনা সৃষ্টি করেছে ক্রিকেটবিশ্বে।
ক্যারিয়ারে ২০ মৌসুম আম্পায়ারিং করেছেন ৫৩ বছর বয়সী ফ্রাই। ক্যারিয়ারে ৭টি আন্তর্জাতিক টেস্ট, পুরুষ ও নারী ক্রিকেট মিলিয়ে ৭৬টি সাদা বলের ম্যাচে আম্পায়ারিং করেছেন তিনি। এছাড়া তিনি ১০০টি প্রথম শ্রেণির, ১৩০টি লিস্ট ‘এ’ এবং পুরুষদের ক্রিকেট ৯৩টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে আম্পায়ার হিসেবে ছিলেন। চারবার ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ) আম্পায়ার পুরস্কার জিতেছেন ফ্রাই। – ক্রিকফ্রেঞ্জি
ক্যারিয়ারে ১৯ মৌসুম আম্পায়ারিং করেছেন ৫৭ বছর বয়সী ওয়ার্ড। ৩২টি টেস্ট ম্যাচ, ৮৭টি প্রথম শ্রেণীর ম্যাচ, ৮৪টি লিষ্ট ‘এ’ এবং ১১৭টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। গত মার্চে ব্লান্ডস্টোন অ্যারেনায় শেফিল্ড শিল্ডে নিউ সাউথ ওয়েলস এবং তাসমানিয়ার ম্যাচে শেষবারের মতো আম্পয়ারিং করেছিলেন ফ্রাই ও ওয়ার্ড। – ক্রিকইনফো

প্রবাসীদের দেশে ফিরিয়ে আনার কাজ চলছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনা ব্যাপক ভাবে ছড়িয়ে পড়ার পরও প্রবাসীদের দেশে ফিরিয়ে আনার কাজ চলছে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন।

শনিবার (১৮ এপ্রিল) দুপুরে রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন সুগন্ধায় সিলেটের পাঁচটি মেডিকেল কলেজের চিকিৎসকদের জন্য ৩২৫ সেট পিপিইসহ বেশ কিছু ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম পররাষ্ট্রমন্ত্রীর হাতে তুলে দেয় দেশীয় প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন ও বাংলাদেশ প্রাইভেট মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন।

এ সময় মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ দুই প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। মন্ত্রী আরও বলেন, চাপ থাকায় পর্যায়ক্রমে প্রবাসীদের আনা হচ্ছে। দেশে আসার পর তাদের ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে যেতে হবে।

এ সময় ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, আমরা প্রবাসীদের আনছি। আমাদের ওপর চাপ আছে। আমরা সকল কিছু মেইনন্টেইন করেই আনছি। যাতে প্রবাসীদের কোয়ারেইন্টাইন ঠিকভাবে হয়। যারা আসবে তাদেরকেই কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে।

এই কোহলি, মাঠে তো অনেক মেরেছো,ঘরে একটা চার মারো না, স্বামীকে আনুশকা শর্মা

স্পোর্টস ডেস্ক : পুরো বিশ্বটাই করোনাভাইরাসের কারণে গৃহবন্দি। যার ফলে পরিবারের সাথে সময় কাটাচ্ছেন সবাই। পরিবারের সাথে আনন্দ-মজাতেই ব্যস্ত। বেশ কিছু মুহূর্ত আছে যা, সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে সারা বিশ্বের সাথে শেয়ারও করছেন অনেকে। ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলি ও তার স্ত্রী বলিউড তারকা আনুশকা শর্মাও সেই দলে।

গতকাল নিজের ইনস্টাগ্রাম একটি ভিডিও পোস্ট করেছেন আনুশকা। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, কোহলির উদ্দেশ্যে আনুশকা হিন্দিতে ক্রিকেট নিয়ে উৎসাহ দিচ্ছেন। যা বাংলায় এমন হয়, কোহলি, এই কোহলি। চার মার না, কী করছিস! এই কোহলি, চার মার। মাঠে তো অনেক মেরেছো। এবার ঘরেই একটা মারো না।

ওই সময় মোবাইলে ব্যস্ত ছিলেন কোহলি। আনুশকার এমন কথা শুনে তার দিকে, এক পলক দিলেন ভারত দলপতি। আনুশকাকে কোন ফিডব্যাকই দিলেন না কোহলি। আনুশকা পড়ে হেসে ভিডিও শেষ করেন।

ওই ভিডিওর ক্যাপশনে আনুশকা লিখেন, আমার মনে হচ্ছে, কোয়ারেন্টিনে ঘরে গৃহবন্দি থেকে কোহলি ক্রিকেটের মাঠকে খুব মিস করছে। মাঠের ভক্তদেরও মিস করছে সে। আমি তাই একজন ভক্ত হয়ে ঘরে বসে তেমনই কিছু করার চেষ্টা করলাম। – ইনস্টাগ্রাম

ফিফার নির্দেশ ভেঙেই সেপ্টেম্বরে বিশ্বকাপ বাছাই ম্যাচ আয়োজন করবে কনমেবল

স্পোর্টস ডেস্ক : কাতার বিশ্বকাপ ফুটবলের বাছাইয়ের অনেক ম্যাচই ২০২১ পর্যন্ত পিছিয়ে দিয়েছে ফিফা। তবে সে পথে না হাঁটার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলের ফুটবলের অভিভাবক সংস্থা কনমেবল। সেপ্টেম্বরে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচ আয়োজন করবে তারা।

করোনা ভাইরাসের থাবায় একে একে বন্ধ হচ্ছে আন্তর্জাতিক ক্রীড়ার আসর ও টুর্নামেন্ট। কাতার বিশ্বকাপ ফুটবলের বাছাইয়ের অনেক ম্যাচই ২০২১ পর্যন্ত পিছিয়ে দিয়েছে ফিফা। তবে সে পথে না হাঁটার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলের ফুটবলের অভিভাব সংস্থা কনমেবল।

বাছাইপর্বের বেশিরভাগ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিলো গত মার্চে। কিন্তু করোনার কারণে ভেস্তে গেছে সব আয়োজন। আগামী বছর আয়োজন করতে গেলে সূচি মেলাতে নানা ঝামেলায় পড়তে হবে দেশগুলোকে। তাইতো কনমেবলের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে সেপ্টেম্বরে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচ আয়োজন করবে তারা। নিশ্চিত করেছেন ফিফার সহ সভাপতি ও কনকাকাফ অঞ্চল প্রধান ভিকটরমোকাগলিয়ানি। – দ্য সান

করোনায় হোম কোয়ারেন্টিনে থেকে নানা কাজে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন ফুটবল মাঠের যোদ্ধারা। কেউ ফিটনেস ঠিক রাখছেন। কেউ বা আবার পছন্দের তারকার সঙ্গে ইনটাগ্রামে মেতে উঠছেন স্মৃতি রোমন্থন। খেলোয়াড়ি জীবনের অনেকের সঙ্গেই মাঠে লড়েছেন জার্মান বংশদ্ভুত ঘানাইয়ান ফুটবলার কেভিন প্রিন্স বোয়েটাং। তবে অনেক সহযোদ্ধার মাঝেও বোয়েটাংয়ের চোখে সেরা লিওনেল মেসি। ইন্সট্রগামে ফ্রান্সেরর সাবেক তারকা ফুটবলার ও কোচ থিয়েরি অরির সঙ্গে আলাপকালে এমনটাই জানান বোয়েটাং। এছাড়াও জার্মানির চেয়ে ঘানা জাতীয় দলের হয়ে নাকি খেলতেই বেশি স্বাচ্ছন্দবোধ করেন বোয়েটাং।

] আমার দেখা সেরা ফটুবলার মেসি। মাঠে ও যেভাবে অন্যদের অনুপ্রাণিত করে তা আর কারো মাঝে খুঁজে পাইনি। মাঠে ওর মত সতীর্থ পাওয়া ভাগ্যের ব্যাপার। আমি জার্মানি ও ঘানা দু ‘দেশেই খেলার সুযোগ পেয়েছিলোম। কিন্তু আমার কাছে ঘানার হয়ে খেলাটাই বেশি গর্বের মনে হয়েছে বলেন তিনি।

কেভিন প্রিন্স বোয়েটাং জার্মানির হয়ে বয়সভিত্তিক দলে খেললেও পরে নিজের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেন। দ্বৈত নাগরিকত্বের সুবাদে পরে তিনি ঘানার হয়ে বিশ্বকাপে অংশ নেন। – সময়টিভি

করোনায় শিশুদের নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ৪ নির্দেশনা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : গেল ডিসেম্বরে চীনের উহান শহরে প্রথম মরণঘাতী করোনা ভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর খুব দ্রুতই সেখানে এ সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে। এরপর তা ছড়ায় বিশ্বের অন্যান্য দেশে। গেল ৮ মার্চে বাংলাদেশে প্রথম করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়। এরপর বাড়তে থাকে সংক্রমণ। এ ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলোর মতো বাংলাদেশ সরকারও সাধারণের চলাচল সীমিত করতে নানা পদক্ষেপ নিয়েছে। এর অংশ হিসেবে বন্ধ ঘোষণা করা হয় সরকারি-বেসরকারি সব প্রতিষ্ঠান।

কয়েক দফায় বাড়িয়ে সেই ছুটি এখনও চলছে। আর এই বন্দিদশায় শিশুরা পড়েছে বিপাকে। তারা বাধ্য হয়ে ডিজিটাল মাধ্যমে ডুবে থেকে সময় পার করছে। স্মার্টফোন, টিভি আর কম্পিউটারের সঙ্গে সময় কাটাতে অভ্যস্ত হয়ে পড়া ভবিষ্যতের জন্য অত্যন্ত বিপজ্জনক হতে পারে। কিন্তু শিশুরা সময় কাটাবে কীভাবে তাও একটা বড় প্রশ্ন। তাই শিশুদের নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) দিয়েছে নির্দেশনায়।

শিশুদের জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনায় যা রয়েছে

ঘরবন্দি অবস্থায় দৌড়ানোর অভ্যাস করানো সম্ভব নয়। তাই খেলার ছলে স্কিপিং বা লাফ দড়ির সাহায্যে সন্তানকে শরীরচর্চা করাতে পারেন।

ন্তানের সঙ্গে খেলায় সঙ্গ দিন। ওদের সঙ্গে খেলতে খেলতে বাড়ির বড়দেরও খানিকটা শরীরচর্চা হয়ে যাবে।

পড়াশুনার বাইরে অবসর সময় কাটানোর জন্য সন্তানের হাতে মোবাইল ফোনের পরিবর্তে তুলে দিন গল্পের বই।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনা অনুযায়ী, ৫ বছরের কম বয়সী শিশুদের টিভি, মোবাইল বা কম্পিউটারে সঙ্গে যতটা কম সময় কাটাবে, ততই ভালো। ৫ বছরের কম বয়সী শিশুরা দিনে বড়জোড় ১ ঘণ্টা টিভি বা কম্পিউটারের সঙ্গে সময় কাটাতে পারে।

ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বললেন- লকডাউনে বাড়ছে নারী নির্যাতন আর গর্ভধারণ

ডেস্ক রিপাের্ট : করোনার ফলে গোটা বিশ্ব এখন স্থম্ভিত। দেশে দেশে চলছে লকডাউন। যার ফলে গৃহবন্দি হয়ে পড়েছে জনগণ। আর গৃহবন্দি থাকার ফলে নারীর প্রতি সহিংসতা বেড়েছে। ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসিতে এ নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এবার এসডিজি বাস্তবায়নে নাগরিক প্ল্যাটফর্মের আহ্বায়ক ও সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগের (সিপিডি) সম্মানীয় ফেলো ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য জানালেন সেই একইমত।

তিনি বলেন, করোনার সংক্রমণ রোধে লকডাউন ঘোষণায় নারী নির্যাতন ও গর্ভধারণ বেড়েছে।

শনিবার (১৮ এপ্রিল) প্ল্যাটফর্ম ফেসবুক পেজে ‌‌‌‘কোভিড-১৯ মোকাবিলায় বেসরকারি উন্নয়ন প্রতিষ্ঠানসমূহের তৎপরতার কার্যকারিতা বাড়াতে সরকারের প্রতি সুপারিশ’ শীর্ষক এই ভার্চুয়াল প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি এ দাবি করেন।

এই পরিস্থিতিতে জনসমাগম এড়ানোর জন্য প্ল্যাটফর্ম এবারের মিডিয়া ব্রিফিংটি শুধু লাইভ স্ট্রিমিং করার উদ্যোগ গ্রহণের জন্য করা হয়। এসডিজি বাস্তবায়নে নাগরিক প্ল্যাটফর্ম, বাংলাদেশ প্রায় ১১৫টি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা এবং বেসরকারি খাতের সংস্থাদের নিয়ে দেশের এসডিজি বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে বিভিন্ন ধরনের কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। এখন করোনার কারণে সৃষ্ট বৈশ্বিক মহামারি মোকাবিলায় এ প্ল্যাটফর্মের সদস্যরা দেশব্যাপী বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

ড. দেবপ্রিয় বলেন, চলমান মহামারিতে আমরা বিভিন্ন জেলা থেকে খবর পাচ্ছি নারী নির্যাতন বেড়েছে। এটা রোধ করতে নারী ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় ও স্থানীয় প্রশাসনকে উদ্যোগ নিতে হবে। মহামারির ফলে স্কুল থেকে অনেকে ঝরেপড়বে। আমরা দেখছি গর্ভধারণ বাড়ছে এক্ষেক্রে স্থানীয় প্রশাসনকে এগিয়ে আসতে হবে। মহামারির ফলে দারিদ্র্য জনগোষ্ঠী সব থেকে বিপাকে। এদের মধ্যে খাদ্য ঘাটতি দেখা দিচ্ছে। ফলে পুষ্টিহীনতা বাড়ছে। সামনে আরো বাড়তে পারে সরকারকে উদ্যোগ নিতে হবে।

সংসদে প্রধানমন্ত্রী -পাঁচ কোটি লোক খাদ্য সহায়তার আওতায় আসবে

ডেস্ক রিপাের্ট : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, করোনাভাইরাসের কারণে দেশে যেন খাদ্য ঘাটতি না হয়, সেদিকে লক্ষ্য রাখছে সরকার। বর্তমানে ৫০ লাখ মানুষকে রেশন কার্ড দেওয়া হচ্ছে। আরো ৫০ লাখ লোককে রেশন কার্ড দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এটি বাস্তবায়ন হলে এক কোটি লোক খাদ্য সহায়তা পাবেন। আর এই এক কোটি লোকের পরিবারের সংখ্যা যদি পাঁচজন হয় তাহলে পাঁচ কোটি লোক খাদ্য সহায়তার আওতায় আসবেন।

আজ শনিবার জাতীয় সংসদের সপ্তম অধিবেশনের সমাপনী বক্তব্যে তিনি কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলা করেছি। প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় আমরা পারদর্শী। কিন্তু করোনাভাইরাসের দুর্যোগ সম্পর্কে আমাদের কোনো অভিজ্ঞতা নেই। কারও নেই। আর প্রাদুর্ভাব যে এত ভয়াবহ হবে, তা আমরা কল্পনাও করতে পারিনি। যখন এর প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে, তখনই আমরা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইডলাইন অনুযায়ী সব ধরনের ব্যবস্থা নিয়েছি।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে করোনা আসার সম্ভান পেয়েই আমরা নানা ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। বাংলাদেশে করোনা মোকাবিলায় স্বাস্থ্য অধিদফতর ও আইইডিসিআর যথাযথ কাজ করছে। করোনা চিকিৎসা সরকারিভাবে করা হচ্ছে। দেশের সব জায়গায় এখন করোনা নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, আমাদের হাসপাতালগুলোতে আইসোলেশন ওয়ার্ড খোলা হয়েছে। অনেক বিভাগীয়, জেলা এবং উপজেলায় পৃথক আইসোলেশন হাসপাতাল খোলা হয়েছে। আইসোলেশন ইউনিট ৬ হাজার ২০০টি। ভবিষ্যতের জন্য ইতোমধ্যে আমরা কিছু উদ্যোগ নিয়েছি।

এর আগে, বিশ্বব্যাপী করোনা সংকটের মধ্যেই শুরু হয় একাদশ জাতীয় সংসদের ৭ম অধিবেশন। শনিবার (১৮ এপ্রিল) বিকেল ৫টায় জাতীয় সংসদের অধিবেশন কক্ষে এ অধিবেশন শুরু হয়।

শুরুতেই সংসদের সভাপতি স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী জানান, শুধুমাত্র সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার কারণেই এ অধিবেশন। বৈশ্বিক ও জাতীয় সংকটের প্রেক্ষাপটে এ অধিবেশন হবে সংক্ষিপ্ত।

সংসদে প্রধানমন্ত্রী – সবাই দোয়া করেন স্বাভাবিক জীবনে যেন ফিরতে পারি

ডেস্ক রিপাের্ট : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, চোখে দেখা যায় না এমন ভাইরাসের কারণে আজ মানুষ ঘরবন্দি। এটা এমন একটা বিষয় কতদিন চলবে কেউ বলতে পারছে না। সারা বিশ্বেও কেউ বলতে পারছে না। কেউ বলছে শীতকালে ভাইরাসটি থাকে, গরমে থাকবে না। এখন আবার বলছে গরমেও থাকবে। কেউ কিছু বুঝতে পারছে না। এই অবস্থা থেকে মুক্তি লাভের জন্য তিনি দেশবাসীর কাছে দোয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

শনিবার একাদশ জাতীয় সংসদের সপ্তম অধিবেশনের সমাপনী বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন।

এর আগে বিকাল পাঁচটায় সংক্ষিপ্ত এই অধিবেশন শুরু হয়। সংবিধানের বাধ্যবাধকতা রক্ষায় করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও এই অধিবেশন ডাকা হয়েছে।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা প্রাকৃতিক অনেক বড় দুর্যোগ মোকাবিলা করেছি। কিন্তু স্বাস্থ্যখাতে এত বড় ঝড় আমরা মোকাবিলা করিনি।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এখনো বাংলাদেশ অন্য দেশ থেকে ভালো আছি। তবে আমি একটু আমার দেশের মানুষকে বলবো, আসলে আমাদের দেশের মানুষ যে এত সাহসী হয়ে গেছে। বউ নিয়ে বেড়াতে গেল শ্বশুরবাড়ি শিবচর, সেখান থেকে টুঙ্গিপাড়ায় গিয়ে হাজির। আমরা সবাইকে বলি, যে যেখানে আছেন সেখানেই থাকেন।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘এই ভাইরাসটি মুখ থেকে আসে। কথা থেকে ছড়ায়। এই যে এখানে সংসদ সদস্যরা সবাই মাস্ক পরে আছেন, সবাইকে আমি ধন্যবাদ জানাচ্ছি।’

তিনি বলেন, ‘সবাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলেন। নিজে সুরক্ষিত থাকেন। অপরকেও সুরক্ষিত রাখেন।’

সবাইকে দোয়া করার আহ্বান জানিয়ে বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, ‘সকলেই আল্লাহর কাছে দোয়া করেন। কাবা শরিফ মদিনা শরিফেও কারফিউ দেওয়া হয়েছে। কাজেই মসজিদে না গিয়ে ঘরে বসে আল্লাহকে ডাকেন। যেন আমরা বিশ্ববাসী এই ভাইরাস থেকে মুক্তি পেয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারি, স্বাভাবিক কাজে ফিরতে পারি।’