মাস্ক বিতরণে সংঘর্ষ, ভাই টেঁটাবিদ্ধ-বোনের মাথা ফাটল ইটে

ডেস্ক রিপাের্ট : ভাইরাস প্রতিরোধে সরকারি সহায়তায় সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণকে কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে দুই গ্রুপের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এই সংঘর্ষে টেঁটাবিদ্ধসহ আহত হয়েছেন উভয়পক্ষের অন্তত ১০ জন নারী ও শিশু।

সোমবার (৩০ মার্চ) দুপুর বারোটার দিকে উপজেলার দুর্গম চরাঞ্চল কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়নের রাধানগর এলাকায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। স্থানীয় তাজি মাতব্বর ও ৪নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ইব্রাহিম গ্রুপের মধ্যে এ সংঘর্ষ হয়েছে বলে এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে।

সংঘর্ষে টেঁটাবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত অবস্থায় শেখ ফরিদ (২৫), আলতাফ (২২), জুলি (২২) ও নাদিরা (১০) নামের এক শিশুকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অন্যদের স্থানীয় বিভিন্ন স্বাস্থ্য সেবাকেন্দ্রে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

আহতদের মধ্যে নাদিরা নামে দশ বছরের এক শিশুর মাথায় টেঁটাবিদ্ধ হয়েছে এবং তার বোন জুলির মাথা ইটের আঘাতে থেঁতলে গেছে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে। তারা একই এলাকার জোহর আলীর মেয়ে।

স্থানীয় যুবক সুমন জানান, ইউপি চেয়ারম্যান স্বপন রাধানগর এলাকায় লোকজনের মাঝে মাস্ক ও সাবানসহ বিভিন্ন প্রকারের সরকারি ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করার দায়িত্ব দেন সাহা নামে এক যুবকসহ অন্যদের। এ ঘটনায় ওয়ার্ড সদস্য ইব্রাহিমের লোকজনের সঙ্গে তাদের কথা-কাটাকাটির ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে দুইপক্ষের লোকজনের মাঝে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় একপক্ষ অন্যপক্ষের ওপর টেঁটা ও লাঠিসোটা নিয়ে হামলা চালায়। এতে উভয়পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।

স্থানীয় আসকর আলী নামে এক ব্যক্তি বলেন, আমি বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে শুনেছি ইউপি চেয়ারম্যান স্বপন ইউপি সদস্য ইব্রাহিমকে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধমূলক সামগ্রী বিতরণের দায়িত্ব দিতে চাইলে তিনি তাতে অনীহা প্রকাশ করেছিলেন। পরে এগুলো তাজি মিয়ার ছেলে সাহাসহ অন্যদের বিতরণের দায়িত্ব দেয়া হয়। এতে ইব্রাহিমের লোকজনের সঙ্গে বাকবিতণ্ডা ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে তারা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। এ সময় জুলি নামে এক নারীর মাথায় ইটের আঘাতে থেঁলতে যায় এবং তার বোন নাদিরা টেঁটাবিদ্ধ হন।

এ ব্যাপারে কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম স্বপন বলেন, করোনা ভাইরাসস থেকে এলাকাবাসীকে সুরক্ষা করতে গত তিন দিন আগেই মাস্ক ও সাবান বিতরণ করা হয়েছে। এ নিয়ে কোনো সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেনি। তিনি দাবি করেন, দুই পক্ষের ব্যক্তিগত ও অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব থেকে সংঘর্ষ হয়েছে।

ইউপি চেয়ারম্যান স্বপন বলেন, বিভিন্ন বিষয় নিয়ে গত ১০ বছর ধরেই তাজি মাতব্বর ও ৪নম্বর ওয়ার্ড সদস্য ইব্রাহিমের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলছে। আমি যতোটুকু জানি ইতিপূর্বে তাদের মধ্যে বিভিন্ন ঘটনায় বেশ কিছু মামলাও রয়েছে। করোনা প্রতিরোধে সামগ্রী বিতরণের ঘটনায় মারামারী হয়েছে এটা কেউ বলে থাকলে মিথ্যা তথ্য দিয়েছে।

এ ব্যাপারে আড়াইহাজার থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আমীর হোসেন বলেন, এ ঘটনায় কোনো পক্ষই অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ দিলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। বিষয়টি তদন্ত করে খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানান তিনি।- সময় টিভি

‘জীবনের শেষ সময় শান্তিতে থাকতে ৩০ লাখ টাকা উপার্জন করতে ক্রিকেটে এসেছিলেন মহেন্দ্র সিং ধোনি’

স্পাের্টস ডেস্ক : ভারতীয় ইতিহাসে সবচেয়ে সফল অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনিকে নিয়ে সমালোচনা থামছেই না। এবার শোনা যাচ্ছে ক্রিকেট থেকে বিদায় না নিলেও দলেও জায়গা হচ্ছে না তার। এমন সময় ধোনির আবেগের গল্প শোনালেন তার এক সময়ের সতীর্থ ওয়াসিম জাফর। ধোনি নাকি ক্রিকেট খেলে খুব বেশি অর্থ উপার্জন করতে চাননি। চেয়েছিলেন মাত্র ৩০ লাখ টাকা। জীবনের শেষ সময় যেন শান্তিতে জীবন কাটাতে পারেন।

টুইটারে সমর্থকদের সঙ্গে প্রশ্নোত্তর পর্বে ওয়াসিম জাফর জানিয়েছেন, ভারতীয় দলে তখন হয়তো এক বা দু’বছর খেলেছে ধোনি। আমার যতদূর মনে পড়ছে… একদিন ও (ধোনি) বলেছিল, ক্রিকেট খেলে ৩০ লাখ টাকা উপার্জন করতে চায়, যাতে ভবিষ্যতে শান্তিতে জীবন কাটাতে পারে।

সম্প্রতি করোনা মোকাবিলায় আর্থিক অনুদান তুলে দেওয়া নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়েছে বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনিকে নিয়ে। বর্তমানে তার সম্পত্তির পরিমাণ ৮০০ কোটি টাকা। অথচ তিনি নাকি মাত্র এক লাখ টাকা অনুদান তুলে দিয়েছেন। যদিও এই তথ্য ভুল বলে দাবি করেছেন ধোনির স্ত্রী সাক্ষী।

প্রেমিকের বাবার প্রশংসায় দিশা

বিনোদন ডেস্ক : করোনা ভাইরাসের জেরে অন্যান্য দেশের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির মতো সব ধরনের কাজ বন্ধ বলিউডেও। গোটা ভারতই বলতে গেলে লকডাউন। এমন ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি হওয়ার আগে ‘রাধে’ ছবির শুটিং করছিলেন বলিউডের বর্তমান সময়ের তারকা অভিনেত্রী দিশা পাটনি।

প্রভু দেবা পরিচালিত এই ছবিতে দিশা প্রথমবারের মতো জুটি বেঁধেছেন সুপারস্টার সালমান খানের সঙ্গে। আরও আছেন নায়িকার বর্তমান প্রেমিক অভিনেতা টাইগার শুফ্রের বাবা জ্যাকি শ্রফ। ছেলের সঙ্গে দিশার সম্পর্কের কথা তামাম বলিউডের মতো জ্যাকিরও অজানা নয়।

সেই কারণেই সম্প্রতি একটি সাক্ষাৎকারে নায়িকাকে প্রশ্ন করা হয়েছিল জ্যাকির সঙ্গে নিজের কাজের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে। জবাবে জ্যাকির প্রশংসা করে দিশা বলেন, ‘টাইগারের চেয়ে উনি অনেক বেশি কুল। উনার মধ্যে একটা সোয়্যাগ রয়েছে, যেটা টাইগারের মধ্যে দেখিনি।’

তবে বাবা-ছেলের তুলনা করতে চান না দিশা। বলেন, ‘দুজনে আলাদা মানুষ। জেনারেশন গ্যাপ হলে যেটুকু তফাত হয়, সেটুকুই। যেমন আমার বাবা আর আমার মধ্যে রয়েছে।’

এদিকে ঘরবন্দি অবস্থায় টাইগারের সঙ্গে দেখা হচ্ছে না দিশার। তাই নায়িকা এখন বাড়িতে সুপারহিরো মুভি দেখতেই বেশি ব্যস্ত। এই ধরনের ছবি নাকি তার পছন্দ। সেই কারণেই অ্যাকশন ড্রামাতে আইক্যান্ডি চরিত্রেই বেশি দেখা যায় তাকে। দিশার মতে, সুপারহিরো মুভির কাল্পনিক দুনিয়ার মতো যদি তারও একটা জগত হতো, তাহলে মন্দ হত না।

পৃথিবীটা এলিয়েনদের গ্রহ হয়ে যাচ্ছে: মোনালিসা

বিনােদন ডেস্ক : মরণঘাতি করোনাভাইরাস থাবা মেরেছে পৃথিবীর অধিকাংশ দেশে। বাদ যায়নি বাংলাদেশও। ইতোমধ্যে বাংলাদেশে পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্ত ৪০ জনের বেশি। তবে করোনাভাইরাসে দেশের থেকে বিদেশের মাটিতে বেশি বাংলাদেশির মৃত্যু হয়েছে। তার মধ্যে আমেরিকাপ্রবাসী বাংলাদেশির মৃত্যুর সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। বর্তমানে সেই দেশেই রয়েছেন বাংলাদেশের একসময়কার জনপ্রিয় মডেল ও নাট্য অভিনেত্রী মোনালিসা।

করোনার উৎপত্তিস্থল চীনের উহান শহরের পরে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হচ্ছে ইতালির রোম এবং আমেরিকার নিউ ইয়র্ক শহরে। ২০১৩ সাল থেকে মোনালিসা সেই নিউ ইয়র্ক শহরেই থাকছেন। সেখানকার সেফোরা নামের একটি আন্তর্জাতিক মেকআপ প্রতিষ্ঠানে বিউটি অ্যাডভাইজার হিসেবে কাজ করছেন। নিউ ইয়র্কে করোনায় মৃত্যুর মিছিল দেখে শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন এই অভিনেত্রী। সোশ্যাল মিডিয়ায় তুলে ধরেছেন তার সেই শঙ্কার কথা।

রবিবার ইনস্টাগ্রামে মোনালিসা লেখেন, ‘দিন দিন আমাদের চারপাশটা অপরিচিত হয়ে উঠছে। প্রতি সকালে ঘুম থেকে উঠে চিন্তা করি, আমি এখনো বেঁচে আছি! জানালা দিয়ে বাইরে তাকালেই খা খা করে। রাস্তাশূন্য, মানুষ নেই, গাড়ি নেই, নেই সংগীত। মানুষ মারা যাচ্ছে প্রতিদিন। দিন দিন পৃথিবীটা যেন এলিয়েনদের গ্রহ হয়ে যাচ্ছে। মনে হচ্ছে আমরা পৃথিবীর শেষ প্রান্তে এসে পড়েছি। হে আল্লাহ, কখন এই অবস্থা ঠিক হবে? কবে আমরা আমাদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যাবো? পৃথিবীর এমন অবস্থা আমি জীবনে কখনোই দেখিনি। কেউ জানে না কাল কী হবে, কে আক্রান্ত হবে, কে মারা যাবে।’

এক ঘণ্টায়ও মিলল না অক্সিজেন, শ্বাসকষ্টে অন্তঃসত্ত্বার মৃত্যু

ডেস্ক রিপাের্ট : ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রিপা দাস (৩২) নামে এক অন্তঃসত্ত্বা শিক্ষিকা অক্সিজেনের অভাবে মারা গেছেন বলে অভিযোগ করেছেন মৃতের স্বজনেরা। সোমবার (৩০ মার্চ) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

তিনি রাজবাড়ি জেলার পাংশা উপজেলার রামকল গ্রামের মিঠুন সরকারের (৩৮) স্ত্রী। রিপা রামকল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা ছিলেন। তার স্বামীর নাম মিঠুন সরকার। রিপা দাস ফরিদপুরের টেপাখোলা নিবাসী অনিল কুমার দাসের মেয়ে। চার বছরের বিবাহিত জীবনে এই প্রথম সন্তান সম্ভবা হয়েছিলেন তিনি।

নিহত রিপার ভগ্নিপতি ধীরাজ কুমার (৪০) জানান, রিপা আড়াই মাসের গর্ভবতী ছিলেন। কিন্তু এরইমাঝে তার রক্তক্ষরণ হওয়ায় রোববার (২৯ মার্চ) দুপুর ২টার দিকে তাকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসকরা তাকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে এমআর (গর্ভপাত) করাতে বলেন।

ধীরাজ জানান, এরপর রোববার সন্ধ্যা ৭টার দিকে রিপাকে অপারেশন থিয়েটারে নেয়া হয়। ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের গাইনি বিশেষজ্ঞ কানিজ ফাতেমা তার এমআর করান। সকাল ৭টার দিকে সেখান থেকে তাকে বের করে বেডে দেয়া হয়। এসময় রিপার প্রচণ্ড শ্বাসকষ্ট হচ্ছিল। দীর্ঘক্ষণ হাসপাতালের নার্স ও ইন্টার্নদের কাছে অনুরোধ করেও তারা অক্সিজেন দেয়ার ব্যবস্থা করতে পারেননি। প্রায় এক ঘণ্টা পর একটি অক্সিজেন সিলিন্ডার আনা হলেও তার আগেই মৃত্যুবরণ করেন তিনি। দুপুরে তার মৃতদের নিয়ে যাওয়া হয় রামকল গ্রামে।

ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক সাইফুর রহমান সংবাদিকদের বলেন, গতকাল সকালে গাইনি বিশেষজ্ঞ কানিজ ফাতেমা আমাকে বিষয়টি জানিয়েছে। তিনি (কানিজ) জানান অস্ত্রপচারের পর রোগীর অবস্থা ভালো ছিল। তবে সকালে হঠাৎ তার অবস্থার অবনতি ঘটায় তিনি মারা গেছেন। তিনি বলেন, অক্সিজেনের অভাবে ওই রোগীর মৃত্যু হয়েছে বলে আমার জানা নেই। তবে এ ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ পেলে বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে। -সময় টিভি

ঘরবন্দি জীবনের কোনো মানে নেই: শতাব্দী রায়

বিনোদন ডেস্ক : করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে ২১ দিনের লকডাউনে ভারত। ঘরবন্দি এ জীবনে নানাভাবে সময় কাটাচ্ছে মানুষ। আর এ সময়টুকু কিভাবে কাটছে তা নিয়ে যেন ডায়েরি লিখতে বসেছেন পশ্চিমবঙ্গের জনপ্রিয় অভিনেত্রী শতাব্দী রায়। নিচে এই নায়িকার দিনলিপি তুলে ধরা হলো।

সকাল ৮টা

ঘুম ভাঙতেই মনে হল এখনই উঠে পড়ি। তারপরেই ভাবলাম, কী আর করব? এখন সকাল থেকে রাত শুধু ফোন এসে যাচ্ছে। ঝাড়খণ্ড থেকে এখনই ফোন পেলাম। ‘দিদি আমি বীরভূমের এখানে কাজ করতে এসেছি। আমি আটকে। আমায় বাড়িতে নিয়ে যান।’ কেউ লিখছেন, ‘আমি মেয়ে নিয়ে আটকে কেরলে। আমায় বাড়িতে নিয়ে আসুন’…বীরভূম থেকে ফোন আসছে, ‘দিদি আপনি আসুন। মেয়েরা আপনাকে দেখতে চাইছে।’

কী যে অস্থির লাগছে আমার! কী করে বোঝাই ওদের, আমি গেলে তো জমায়েত হয়ে যাবে। আর এখন জমায়েত মানে ক্রিমিন্যাল অফেন্স! রোজ সকাল এরকম ভয়ানক দুর্ভাবনা নিয়ে কাটছে। প্রশাসন মারফৎ খাবার পৌঁছে দিচ্ছি আমরা। সরকার, আমাদের মুখ্যমন্ত্রীও দারুণ কাজ করছেন। এই ফোনের পরেই শুরু হয় মেয়ের কার্টুন দেখা।ছেলে টিভি চালিয়ে দেয়। উফ্ফ্!

সকাল ৯টা

খাওয়া নিয়ে খুব বেশি বাড়াবাড়ি করছি না আজকাল। বাড়িতে যা আছে তাই দিয়ে চালাচ্ছি আমরা। আমার মেয়ে সাত বছর। ছেলে উচ্চমাধ্যমিক দেবে। ওর তো একটা পরীক্ষা বাকি পড়ে আছে। দু’জনে মিলে আমার মাথা খাচ্ছে। সারাক্ষণ কার্টুন। আমি তো ওদের বলেছি বাড়িতে সারাক্ষণ এমন কার্টুন চললে আমি এয়ারপোর্টে চলে যাব। বসে থাকব। যখন যে প্লেন ছাড়বে তাতে করে চলে যাব। আর পারছি না বাড়িতে এ ভাবে। আমার কি এতদিন বাড়িতে বসে থাকার অভ্যাস আছে! ব্রেকফাস্টে আজ ব্রেড আর সালামি। এ বার মেয়ের গরম জামাকাপড় গোছাতে যাব।

সকাল ১১টা

মেয়েকে নিয়ে গরম জামাকাপড় গোছাতে গিয়ে দেখি মেয়ের অনেক জামা ছোট হয়ে পড়ে আছে। সেগুলোও সব আলাদা করলাম। আমার মেয়ে খুব মজার মজার কথা বলে। ওকে বলা হয়েছে,‘তোমার কিছু জামা এমন বাচ্চা, যার নেই তাকে দিতে হয়।’ এ বারে প্রচুর জামা ওর ছোট হয়ে গিয়েছে। এই সব দেখে ও বলল, “মা, তুমি এমন অনেককে আমার সব জামা-ই তো দিয়ে দিলে। এ বার তো আমার আর জামা রইল না!” ওকে চেষ্টা করি নানা ভাবে ব্যস্ত রাখতে। আমার মাথায় তেল দিয়ে দেয় ও আজকাল!

বেলা ১২টা

বাড়িতে দু’জন আমায় কাজকর্মে সাহায্য করলেও বাইরে থেকে যাঁরা কাজের জন্য আসতেন তাঁদের এখন ছুটি। ওঁদের সাহায্য করার জন্য আমি ন্যাতা লাগানো রডে ঘর মুচ্ছি। এতদিন বাড়িতে বসা, এতে করে এক্সারসাইজও হয়ে যায়।

দুপুর ২টো

আজ ডালিয়া খেলাম। রুটিও খাই। তবে আমায় যাঁরা সাহায্য করেন তাঁরা ভাত ছাড়া খেতে পারেন না। ওঁদের জন্য ৫০ কিলো চাল আনিয়েছি।

দুপুর ৩টে

ছেলেকে তো বাগেই আনতে পারি না। সে হয় মোবাইল, নয় টিভি। কাল জোর করে বসিয়েছি। নেটফলিক্স ডাউনলোড করে দিয়েছে ও আমায়। দুপুরের পর সিনেমা দেখলাম, ‘বদলা’। অমিতাভ বচ্চনের, কি ভাল! এর পর ‘মাসকা’ দেখব। খেয়াল করিনি। ছবি দেখতে দেখতে দেখলাম সন্ধে নেমে গিয়েছে। শাশুড়ি পাশেই থাকেন। উনি পড়ে গিয়েছেন। দেখে এলাম গিয়ে। খাবারও দিয়ে এলাম।

রাত ৮টা

বড্ড অস্থির লাগছে। একটু ভিডিয়ো কল করলাম চারজন মিলে, বোন, বউদি, আড্ডা হল। দেখা হল। কোনও কিছুই একটানা করতে ইচ্ছে করছে না আর। এত শান্ত চারিদিক, কাজ নেই, এখন তো আমার কবিতা লেখার সময়! কই এক লাইনও লিখতে পারছি না। ছবি দেখতে বসলেও একটানা দেখতে পারছি না। এ কী অদ্ভুত পরিবেশ! এ বার খেতে যাব। আমি তাড়াতাড়ি খেয়ে ৯টার মধ্যে শুয়ে পড়ি।

রাত ৯টা

শুয়ে আছি…একটা ভাবনা ঘুরছে। কী শেখাচ্ছে আমাদের এই সময়? এখন খুব মায়ের কথা মনে পড়ছে। এই ১৯ ফেব্রুয়ারি মা হুস করে চলে গেল। কি প্রাণোচ্ছ্বল! হইহই করা আমার মা। জাস্ট নেই!ওই চলে যাওয়া দেখে মনে হল আমি কত কাজ করেছি! কী মানে তার? এত টাকা জমানো, গাড়ি, বাড়ি, কাজ করা, ভাল থাকা, বাইরে ঘোরার প্ল্যান— এ সব কী হবে আর? আজ আমায় কেউ কোটি টাকা দিয়ে বলল, যাও, শপিং করে এস। কোথায় যাব? যদি বা করি! কে দেখবে?এত ঘর সাজাতে ভালবাসি। এখন মনে হচ্ছে কার জন্য সাজাব? কে দেখবে? করোনা শিখিয়ে দিচ্ছে অনেক কিছু!

জীবনের আর কোনও মানে আছে কি? কেউ বলবে, জীবন তো আছে! আমি বলব, এই বদ্ধ হয়ে আসা জীবনের সত্যি কোনও মানে নেই…

করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্যার্থে অনলাইন কনসার্টে অর্থ সংগ্রহ করলো লা লিগা

স্পাের্টস ডেস্ক : করোনার প্রভাবে থমকে গেছে স্পেন। এমন থেমে থাকা ঠিক কতোদিন, তা হয়তো জানা নেই কারোরই। তবুও ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা স্পেনবাসীর।

করোনার প্রকোপে দিন দিন ক্ষতির পরিমাণ বাড়ছে স্পেনে। ক্ষতির মুখে পড়া সেখানকার মানুষের সাহায্যার্থে এগিয়ে এসেছে স্প্যানিশ লা লিগা। খাদ্য সরবরাহ ও চিকিৎসা সরঞ্জামাদি সংগ্রহের জন্য একটি ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নেয় তারা। আয়োজন করে অনলাইন কনসার্ট। এই চ্যারিটি কনসার্টের মাধ্যমে সংগৃহিত অর্থ অসহায়, ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ব্যয় করবে তারা।- মার্কা

চ্যারিটি কনসার্ট থেকে কতো টাকা উঠেছে, সেটা জানাননি লা লিগা কর্তৃপক্ষ। তবে খুব শিগগিরই এই টাকা বিতরণ করা হবে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের মধ্যে।-এল পেজ

করোনার কারণে সময় খারাপ যাচ্ছে গণমাধ্যমের, প্রণোদনা চাইলেন সম্পাদকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে গণমাধ্যমের সংকটের বিষয়টি বিবেচনা করে সরকারের কাছে বিশেষ প্রণোদনা চেয়েছেন সম্পাদকরা।

সোমবার আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদের সরকারি বাসভবনে বৈঠক করেন নিউজ পেপারস ওনার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (নোয়াব), সম্পাদক পরিষদ ও অ্যাসোসিয়েশন অব টেলিভিশন চ্যানেল ওনার্স (অ্যাটকো) ও এডিটরস গিল্ড বাংলাদেশের নেতারা। এসময় তারা করোনার কারণে গণমাধ্যমে সৃষ্ট সংকটের বিষয়টি তুলে ধরেন।

এ সময় তারা বলেন, কভিড-১৯ ভাইরাসটি সারা পৃথিবীতে যে মহামারী ডেকে এনেছে, সেই ধাক্কা বাংলাদেশেও লেগেছে। গত ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সারা দেশ ১০ দিনের সাধারণ ছুটিতে আছে। শিল্প কারখানাগুলো কার্যত বন্ধ। উৎপাদন বন্ধ। এতে সামগ্রিক অর্থনীতিতেও নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। সংবাদপত্র শিল্পও এর বাইরে নয়। পত্রিকার কাটতি কমেছে। বিজ্ঞাপনও সীমিত হয়ে এসেছে। একই অবস্থা টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর। তাই অন্তত আগামী পাঁচ মাসের জন্য গণমাধ্যমের সহায়তার জন্য সরকারের বিশেষ আর্থিক প্রণোদনা প্রয়োজন।

বৈঠক শেষে তথ্যমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ‘বৈঠকে দুটি বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এসময় কী করে সংকট নিরসন করা যায়। একইসঙ্গে আলোচনা হয় সরকার ও গণমাধ্যম যৌথভাবে কাজ করে কীভাবে সংকট মোকাবিলা করতে পারে। এই দুর্যোগ নিরসনে সরকার ও গণমাধ্যম একইসঙ্গে কাজ করবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।’

তিনি বলেন, এই সংকটময় সময়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমেও সংকট সৃষ্টি হয়েছে। বিশেষ করে পত্রিকাগুলোর সার্কুলেশন অর্ধেকে নেমে এসেছে। সংবাদকর্মী ও সংবাদ বিপণনকর্মী তথা হকাররা এ কারণে বড় সংকটে পড়েছে। টেলিভিশনগুলোতেও নানাবিধ সংকট সৃষ্টি হয়েছে। সেসব সংকট নিয়েও আলোচনা করা হয়েছে। এ সময় মন্ত্রী সরকারের পক্ষ থেকে করণীয় নিয়ে আলাপ করেন। গণমাধ্যমগুলো যেসব সরকাররি বিল পাবে সেগুলো দ্রুত প্রদানের প্রতিশ্রুতিও দেন তিনি।

হাছান মাহমুদ বলেন, গুজব প্রচারকারী ভুয়া নিউজপোর্টালগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়েও আলোচনা হয়েছে। গণমাধ্যম নেতারা এসব আতঙ্ক সৃষ্টিকারী ও গুজব প্রচারকারী ভুয়া পোর্টালেগুলোর বিরুদ্ধে সরকারের সিদ্ধান্তের প্রতি একমত পোষণ করেছেন।

নোয়াবের পক্ষে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন এর সভাপতি এ কে আজাদ, নির্বাহী সদস্য মতিউর রহমান ও তারিক সুজাত। সম্পাদক পরিষদের পক্ষ থেকে ছিলেন এর সভাপতি মাহফুজ আনাম, সাধারণ সম্পাদক নঈম নিজাম। অ্যাটকো’র পরিচালক ইকবাল সোবহান চৌধুরী, এডিটরস গিল্ড বাংলাদেশের সভাপতি ও এটকোর সিনিয়র সভাপতি মোজাম্মেল হক বাবুও এই বৈঠকে অংশ নেন। এছাড়া তথ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব জাহানারা পারভীন বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

পরে বাংলাদেশ প্রতিদিনের সম্পাদক নঈম নিজাম গণমাধ্যমকে বলেন, ‘যেহেতু সংবাদপত্রও একটি শিল্প। করোনায় অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া সংবাদপত্র শিল্পও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে সংবাদপত্র শিল্পের জন্য সরকারের কাছে আমরা বিশেষ আর্থিক প্রণোদনার চেয়েছি। তথ্যমন্ত্রী আমাদের কথা শুনেছেন। তিনি এ বিষয়টি নিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলবেন বলে জানিয়েছেন।’

এর আগে রবিবার এডিটরস গিল্ড এক বিবৃতিতে করোনাভাইরাস সঙ্কটের কারণে গণমাধ্যমের জন্য বিশেষ প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণার দাবি করা হয়। এ জন্য প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা চেয়েছে সংগঠনটি।

কর্মহীনদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনাভাইরাসের সংক্রমণের মধ্যে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করায় শহর ও গ্রামে খাদ্য সমস্যায় থাকা কর্মহীনদের তালিকা তৈরি করে তাদেরকে ত্রাণ বিতরণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রােববার দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. শাহ কামাল স্বাক্ষরিত এই নির্দেশনা সংক্রান্ত চিঠি সকল জেলা প্রশাসকের কাছে পাঠানো হয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়, সারাদেশে করোনাভাইরাসের কারণে শহর ও গ্রামে কর্মজীবী মানুষ কর্মহীন অবস্থায় আছে। যেসকল কর্মজীবী মানুষ কর্মহীন হয়ে খাদ্য সমস্যায় আছেন প্রধানমন্ত্রী সেই সকল কর্মহীন লোক (যেমন- ভিক্ষুক, ভবঘুরে, দিনমজুর, রিকশাচালক, ভ্যানচালক, পরিবহন শ্রমিক, রেস্টুরেন্ট শ্রমিক, ফেরিওয়ালা, চায়ের দোকানদার) যারা দৈনিক আয়ের ভিত্তিতে সংসার চালায় তাদের তালিকা প্রস্তুত করে খাদ্য সহায়তা প্রদানের জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন।’

চিঠিতে আরও বলা হয়, সিটি করপোরেশন, পৌরসভা, ইউনিয়ন পর্যায়ে ওয়ার্ডভিত্তিক, কৃষি শ্রমিকসহ উপকারভোগীদের তালিকা প্রস্তুত করে খাদ্য সহায়তা দিতে হবে।

এছাড়াও স্থানীয় পর্যায়ে বিত্তশালী ব্যক্তি, সংগঠন, এনজিও কোনো খাদ্য সহায়তা দিলে জেলা প্রশাসকরা প্রস্তুতকৃত তালিকার সঙ্গে সমন্বয় করবেন, যাতে দ্বৈততা পরিহার করা যায় এবং কোনো কর্মহীন মানুষ যেন বাদ না পড়ে।

সামগ্রিকভাবে সমন্বিত কার্যক্রম এ মুহূর্তে অত্যন্ত জরুরি বলেও চিঠিতে উল্লেখ করা হয়।

করোনা মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীর ত্রানতহবিলে অর্থ সাহায্য দিবেন বিরাট কোহলি ও আনুশকা

স্পোর্টস ডেস্ক : করোনা মোকাবেলায় আর্থিক সাহায্য করার কথা জানালেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলি ও তার স্ত্রী আনুশকা শর্মা। সোমবার দু’জনে দেশটির প্রধানমন্ত্রী ও মহারাষ্ট্র রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে আর্থিক সাহায্য করার আবেদনও করেছেন সবার উদ্দেশে।

করোনার বিরুদ্ধে ক্রমাগত একের পর এক পোস্ট করে চলেছেন কোহলি। দূরত্ব বজায় রেখে চলার আবেদন করেছেন বারবার। এ দিন তারা আর্থিক সাহায্য করার কথাও জানিয়েছেন পোস্টের মাধ্যমে। তবে ঠিক কত টাকা তারা দু’জনে দিচ্ছেন, তার অঙ্ক জানাননি।

বিরাট বলেছেন, আনুশকা ও আমি আর্থিক সাহায্য করছি প্রধানমন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে (মহারাষ্ট্র)। এত লোকের কষ্ট দেখে হৃদয় চুরমার হচ্ছে। আশা করছি, আমাদের এই সামান্য সাহায্য কোনও না কোনও ভাবে সহনাগরিকদের কষ্ট কমাতে সাহায্য করবে।-টুইটার থেকে

৫০