স্বাস্থ্যমন্ত্রী বললেন- করোনাভাইরাস আক্রান্ত ৮০ শতাংশের চিকিৎসার দরকার হয় না

ডেস্ক রিপাের্ট : নভেল করোনাভাইরাস আক্রান্তদের ৮০ শতাংশের কোনো চিকিৎসার ‘প্রয়োজন হয় না’ বলে মন্তব্য করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

দেশে নভেল করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের সর্বশেষ পরিস্থিতি জানাতে শুক্রবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত অনলাইন ব্রিফিংয়ে যুক্ত হয়ে তিনি একথা বলেন।

জাহিদ মালেক বলেন, “করোনা আক্রান্তের ৮০ পারসেন্টের বেশি কোনো চিকিৎসার প্রয়োজন হয় না। অন্যদের অক্সিজেন সাপোর্ট ও কিছু ওষুধ লাগতে পারে।”

মন্ত্রীর এই কথায় সায় দিয়ে আইইডিসিআরের পরিচালক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, “আক্রান্তদের শতকরা ৩২ ভাগের হাসপাতালে যাওয়ার প্রয়োজন ছিল না। বিভিন্ন কারণে তাদের হাসপাতালে যেতে হয়। সামাজিক কারণে তারা বাড়িতে থাকতে পারেন না বলে হাসপাতালে যেতে হয়েছে…

“একজন রোগী যদি বাড়িতে থেকে চিকিৎসা নিতে পারেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও তাতে উৎসাহ প্রদান করেছে। ওই রোগী হোম আইসোলেশনে থাকবেন স্ট্রিকটলি, উনি একটি ঘরের মধ্যে থাকবেন, তার সাথে অন্য কারও যাতে মেলামেশা না হয়, সে বিষয়টি তিনি নিশ্চিৎ করবেন। রোগীর আইসোলেশনে যদি প্রতিবেশী ও বন্ধুরা সহযোগিতা করি তাহলে কিন্তু ওই রোগীর জন্য ভালো।”

রোগীর ‘হোম আইসোলেশন’ নিশ্চিত করা গেলে সামগ্রিক স্বাস্থ্য ব্যবস্থার জন্য তা ভালো হবে মন্তব্য করে তিনি বলেন, “যাদের হাসপাতালে থাকার প্রয়োজন নেই, যাদের মৃদু লক্ষণ-উপসর্গ রয়েছে অথবা এক দিনের মধ্যে সেটি ভালোও হয়ে গেছে, তাদের হাসপাতালে পাঠালে হাসপাতালের উপর কিন্তু একটা চাপ পড়ে। তখন আসলেই যাদের হাসপাতালে পাঠানো প্রয়োজন তাদের জন্য তা কঠিন বা কষ্টসাধ্য হয়ে পড়বে।”

‘হোম আইসোলেশনে’ থাকা রোগীদের স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ নম্বরে ফোন করে চিকিৎসা বিষয়ে করণীয় জেনে নেওয়ার পরামর্শ দেন আইইডিসিআর পরিচালক।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া সিলেটের ওসমানী মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক মঈন উদ্দিন যখন বেশি অসুস্থ হয়েছিলেন, তখন সিলেট ভেন্টিলেটর সাপোর্টসহ করোনা কেয়ার ইউনিট ও আইসোলেশন সেন্টার না থাকার বিষয়টি সামনে চলে আসে। তা নিয়ে বিস্তর সমালোচনা হয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের।

এর জবাব দিতে গিয়ে জাহিদ মালেক বলেন, “আইসিইউ, ভেন্টিলেটর নিয়ে অনেক আলোচনা হচ্ছে। প্রস্তুতি নিয়ে হচ্ছে। এ ব্যবস্থা প্রতিনিয়ত উন্নত হচ্ছে। ভেন্টিলেটর দেওয়া হয় মুমূর্ষু রোগীদের। ইউরোপে আইসিইউর গড় প্রায় ৪ পারসেন্ট বা তারও অধিক। তাদের বয়স্ক জনসংখ্যা বাংলাদেশের তুলনায় বেশি।

“বাংলাদেশের বর্তমান জনসংখ্যার ষাটোর্ধ্ব প্রায় ৭ পারসেন্ট, যা বর্তমানে আমাদের দেশের জন্য আশির্বাদ। বর্তমানে সব হাসপাতালে ট্রিটমেন্ট গাইড দেওয়া হয়েছে।”
স্বাস্থ্যমন্ত্রী এই পরিসংখ্যান দিলেও বাংলাদেশে করোনাভাইরাস আক্রান্তদের মৃত্যু হার অন্য দেশের তুলনায় কম নয়। বাংলাদেশে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১৮৩৮ জন। বৈশ্বিক মহামারীতে রূপ নেওয়া করোনাভাইরাস বাংলাদেশে কেড়ে নিয়েছে ৭৫ জনের প্রাণ, যেখানে আক্রান্তদের মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন মাত্র ৫৮ জন।
মন্ত্রী জাহিদ মালেক জানান, করোনাভাইরাস আক্রান্তদের চিকিৎসা দেওয়ার জন্য সারা দেশে সব সরকারি হাসপাতালে এখন আইসোলেশন শয্যা রয়েছে নয় হাজার, আইসোলেশন সেন্টার রয়েছে ৫০০টি।

যেসব বেসরকারি হাসপাতাল কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসার জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছে সেগুলোতে এক হাজার আইসোলেশন শয্যা হবে বলে জানান তিনি।

চিকিৎসকসহ স্বাস্থ্যকর্মীদের সুরক্ষা সরঞ্জাম-পিপিই নিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, “পিপিইর সঙ্কট নেই। পিপিই তৈরি করতে সময় লেগেছে কারণ পিপিইর কাঁচামাল দেশে ছিল না, রপ্তানি বন্ধ ছিল এবং প্রস্ততকারকও তেমন ছিল না।

“আমরা আস্তে আস্তে প্রস্তুতকারক তৈরি করেছি। আমরা প্রায় ১ লক্ষ পিপিই সারা বাংলাদেশে প্রতিদিন দিচ্ছি। এই সক্ষমতা আমরা অর্জন করেছি।”

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হাতে এখন ৩ লাখ ৯৬ হাজার ১৫২টি পিপিই মজুদ রয়েছে বলে জানান তিনি।

দেশের বিভিন্ন জায়গায় এরইমধ্যে করোনাভাইরাস টেস্টের ২০টি ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে বলে জানান জাহিদ মালেক।

তিনি বলেন, “এই ২০টি ল্যাব এত সহজে স্থাপিত হয় নাই। আমাদের জানা ছিল না কতগুলো ল্যাব লাগতে পারে। এই ল্যাবগুলো অন্য দেশ থেকে আমদানি করে আনতে হয়। যেখানে আমদানি বন্ধ ছিল, আমরা বিভিন্নভাবে, বিভিন্ন উপায়ে ল্যাবগুলো স্থাপন করেছি।”

সারা দেশে কোভিড-১৯ রোগীদের পরীক্ষার সুযোগ সম্প্রসারণ করা হলেও রোগীরা তাতে আগ্রহ দেখান না বলে মন্তব্য করেন জাহিদ মালেক।

তিনি বলেন, “সমস্যা হল- রোগীরা টেস্ট করতে আগ্রহ প্রকাশ করে না, গোপন করে যায়। ফলে অনেক চিকিৎসক এতে আক্রান্ত হয়েছে। এই আচরণ আশঙ্কাজনক। আমি আহ্বান করব, বেশি করে টেস্ট করুন। নিজে সুস্থ থাকুন এবং করোনাভাইরাসকে নিয়ন্ত্রণ করার সুযোগ দিন।”

নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়তে থাকায় দেশে প্রায় অর্ধশতাধিক জেলা ‘লকডাউন’ করা হলেও তাতে জনগণের সায় মিলছে না বলে মন্তব্য করেন মন্ত্রী।

তিনি বলেন, “করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমে বেশি সোচ্চার হওয়া প্রয়োজন, যার মাধ্যমে লকডাউনকে আরও কার্যকর করা যায়। বিভিন্ন স্থান বিশেষ করে হাটবাজার, দোকানে ঘোরাফেরা করে সংক্রমণ বৃদ্ধি করা হচ্ছে। রিকশা ও অন্যান্য যানবাহন অবাধে চলাচল করছে। ত্রাণ বিতরণেও জনগণ আক্রান্ত হচ্ছে। এ সমস্ত কারণে ঝুঁকি বেড়ে যাচ্ছে। এ বিষয়ে অধিক গুরুত্ব দেওয়া প্রয়োজন।”

রাজধানীর উত্তরার কুয়েত-বাংলাদেশ মৈত্রী হাসপাতাল, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল ও মহাখালীর শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট, ফুলবাড়িয়া এলাকার রেলওয়ে হাসপাতাল ও নয়াবাজারের মহানগর জেনারেল হাসপাতালে কোভিড-১৯ আক্রান্তদের চিকিৎসা চলছে।

এছাড়াও মুগদা জেনারেল হাসপাতাল, শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ এবং মিরপুরের লালকুটি হাসপাতালকেও কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত রোগীদের জন্য নির্দিষ্ট করা হচ্ছে বলে জানান মন্ত্রী।

“কঠিন কাজ এটা… এগুলো চলমান হাসপাতাল। সেখানে রোগী রয়েছে ক্যান্সারের, ডায়ালাইসিসের, বার্নের রোগী, গর্ভবতী মায়েরা রয়েছে। তাদের অন্য হাসপাতালে সরানো, তাদের প্রেরণ করা, দুরূহ ব্যাপার। অন্য হাসপাতালের সংখ্যাও কমে যাচ্ছে,” বলেন তিনি।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, সব বিভাগীয় হাসপাতালে আইসিইউসহ ২০০ শয্যা কোভিড-১৯ রোগীদের জন্য নির্ধারণ করা হয়েছে। আর জেলা শহরে হাসপাতালের ৫০ থেকে ১০০ শয্যা ইতোমধ্যে প্রস্তুত হয়েছে।

ঢাকার বেসরকারি ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ১০০ শয্যা এবং আনোয়ার খান মডার্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ২০০ শয্যা তৈরি রয়েছে বলেও জানান তিনি।

ঘরবন্দি অবস্থায় নাগরিকদের মানসিক চাপ বৃদ্ধি পেতে পারে মন্তব্য করে জাহিদ মালেক টিভি চ্যানেলগুলোতে বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান বেশি করে প্রচারের পরামর্শ দেন।

“তাহলে তাদের মানসিক চাপ কমবে বলে আশা করি,” বলেন তিনি।-বিডিনিউজ

৩০ সেকেন্ডে মাস্ক বানালেন সানি লিওনি

বিনোদন ডেস্ক : করোনায় সুরক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে মাস্ক। কিন্তু চাহিদা বেশি থাকায় অনেক সময় বেশি পয়সা দিয়েও মিলছে না মাস্ক। তাই এখন নিজেদের মাস্ক নিজেরাই বানানোর পরামর্শ দিচ্ছেন অনেকে। আর যদি খুব দ্রুত কাজ চালানোর মতো মাস্ক তৈরি করে নিতে হয় তখন কী করবেন? নেটিজেনদের সে পথ দেখালেন সানি লিওনি। ইনস্টাগ্রাম হ্যান্ডলে পাঁচটি ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, ‘যখন ৩০ সেকেন্ডে মাস্ক বানাতে হবে’। ছবিগুলিতে দেখা যাচ্ছে তিনি কখনও বাচ্চাদের ডায়াপারকে মাস্ক হিসেবে ব্যবহার করছেন আবার কখনও ওড়নার মতো কিছু দিয়ে মুখ ভাল করে ঢেকে নিয়েছেন। এগুলির সঙ্গে খেলার ছলে তাঁকে আবার স্পাইডারম্যানের মাস্ক পরতেও দেখা গিয়েছে।

পাঁচটি ছবিতে সানি নানান ভাবে মুখাবরণ ব্যবহার করেছেন। আর প্রতিটি ছবির জন্য তিনি আলাদা আলাদা পোশাক ব্যবহার করেছেন। সানির এই ডায়াপারে মুখ ঢেকে তোলা ছবিটি বেশ ভাইরাল হয়ে গিয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।
সানির এই পোস্ট পাঁচ ঘণ্টাতেই প্রায় ছ’ লাখ লাইক পেয়েছে। সেই সঙ্গে অনেক কমেন্ট ও শেয়ার পেয়েছে। অনেকে নেটিজেনই তাঁর এমন বুদ্ধি ও মজাদার কাণ্ডকারখানার জন্য তারিফ করেছেন। তবে এই ধরনের মাস্ক করোনাভাইরাস সংক্রমণ আটকানোর ক্ষেত্রে কার্যকর কিনা তা জানা যায়নি।

করোনা ছড়ানোর পেছনে বিল গেটসের হাত? সত্যি নাকি ষড়যন্ত্র?

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস ছড়ানোর পেছনে মার্কিন বিলিয়নিয়ার ও প্রযুক্তি ব্যবসায়ী বিল গেটস এবং বিনিয়োগ মোগল খ্যাত জর্জ সরোসের মতো অতি ধনীদের হাত রয়েছে। ভাইরাসটি পরিকল্পিতভাবে ছড়ানো হয়েছে। এমন বেশ কিছু ষড়যন্ত্র তত্ত্ব ব্যাপকভাবে ছড়িয়েছে অনলাইনে। একই দাবি করেছেন যুক্তরাজ্যের খ্যাতনামা জ্যোতির্বিজ্ঞানী ও মানবাধিকারকর্মী পিয়ার্স করবিন। তিনি ব্রিটিশ রাজনীতিক ও লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিনের বড় ভাই। তবে সত্যিই কি করোনা ছড়ানোর পেছনে বিল গেটস কিংবা বিনিয়োগ মোগলদের হাত রয়েছে? নাকি পুরোটাই ষড়যন্ত্র তত্ত্ব?

নিউ গ্লোবাল টাইমসের বিশ্লেষণ অনুযায়ী, কীভাবে করোনাভাইরাসকে মোকাবেলা করা যায় সেটা নিয়ে সোচ্চার অবস্থানে থাকা বিল গেটসকে উদ্দেশ্যমূলকভাবে টার্গেট করেছেন অনলাইন ষড়যন্ত্র তাত্ত্বিকরা। প্রকৃতপক্ষে এসব ষড়যন্ত্র তত্ত্বের কোন সত্যতা নেই। ভাইরাসটিকে কিভাবে ঠেকানো যায় সেটা নিয়ে কাজ করছেন বিল গেটস।

মিডিয়া বিশ্লেষণ সংস্থা জিগনাল ল্যাবস গবেষণাটি চালিয়েছে। সেখানে দেখা গেছে যে মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতাকে অহেতুকভাবে টার্গেট করা হয়েছে। করোনাভাইরাস মহামারি ছড়িয়ে পড়ার পর থেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় বিল গেটস ও তার প্রতিষ্ঠানকে নিয়ে উদ্দেশ্যমূলক প্রচার ব্যাপকভাবে ছড়িয়েছে। জিগন্যাল ল্যাবস দেখেছে, ভাইরাসটির জন্য গেটসকে দোষারোপকারী ষড়যন্ত্র তত্ত্বগুলো সামাজিক মিডিয়া এবং টেলিভিশনে এখন পর্যন্ত ১২ লাখেরও বেশিবার সম্প্রচার করা হয়েছে।

জিগন্যাল ল্যাবস ১৬ হাজার ফেসবুক পোস্ট খুঁজে পেয়েছেন যেগুলোতে বিল গেটসকে মহামারিটির জন্য দায়ী করা হয়েছে। আর এসব পোস্ট সর্বমোট ৯০ লাখেরও বেশি মানুষ লাইক বা কমেন্ট করেছে। মার্চ এবং এপ্রিলে দশটি জনপ্রিয় ইউটিউব ভিডিওতে বিল গেটস সম্পর্কে ভুল তথ্য ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে এবং সেগুলো মোট ৫০ লাখ ভিউ হয়েছে।

জিগন্যাল ল্যাবসের বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ষড়যন্ত্র তত্ত্বগুলো প্রথমে এক ব্যক্তি ইউটিউবে প্রকাশ করে। যিনি কিউননের সাথে যুক্ত ছিলেন। এছাড়া জানুয়ারির শেষ দিকে ভিডিওটি তিনি টুইটারেও পোস্ট করেছিলেন। যেখানে দাবি করা হয়েছে, গেটস মহামারি সম্পর্কে আগেই জানত, যা ইনফো ওয়ার্স দু’দিন পরে তুলে নিয়েছিল। টুইটটিতে পিরব্রাইট ইনস্টিটিউট নামে একটি ব্রিটিশ কম্পানিকে দায়ী করা হয়েছে, যারা করোনার ভ্যাকসিনের পেটেন্ট লাভ করেছে বলে দাবি করা হয়। বলা হয় ব্রিটিশ এই কম্পানির অর্থায়নে রয়েছে গেটস ফাউন্ডেশন।

যাইহোক, ভ্যাকসিনটি নভেল করোনভাইরাসের জন্য নয়। এটা পোল্ট্রির সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত করোনাভাইরাসগুলোর বিরুদ্ধে কাজ করে। যেটা করোনার সম্পূর্ণ আলাদা একটি স্ট্রেন। জানুয়ারির শেষের দিকে ফ্যাক্ট-চেকিং সাইট ফুলফ্যাক্ট সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এমন গুজব ছড়িয়েছিল যে পিরব্রাইট ইনস্টিটিউট ২০১৫ সালে নভেল করোনাভাইরাসটির পেটেন্ট তৈরি করেছিল।

দ্য টাইমসের মতে, বিল গেটসকে দোষারোপকারী ষড়যন্ত্র তত্ত্বের তাৎপর্যটি বিশিষ্ট ডানপন্থী এবং টিকাদানবিরোধী পরিসংখ্যানের সাথে সম্পর্কিত।। নিউইয়র্ক পোস্টের খবরে বলা হয়েছে, ট্রাম্পের সাবেক ক্যাম্পেইন ম্যানেজার রজার স্টোন এই সপ্তাহে একটি রেডিও শোতে দাবি করেছিলেন, বিল গেটস এই ভাইরাস তৈরি ও প্রসারে কিছুটা ভূমিকা রেখেছিলেন কিনা সেটা নিয়ে জোরালো উন্মুক্ত বিতর্কের প্রয়োজন।।

বিল গেটসের দাতব্য সংস্থা ‘বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন’ করোনভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য ২৫০ মিলিয়ন ডলার দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। যার একটি অংশ ভ্যাকসিন তৈরি এবং উৎপাদনে ব্যবহার করা হবে। গেটস নিজেই টেলিভিশনে হাজির হয়েছেন। ভাইরাসটির বিরুদ্ধে কিভাবে লড়াই করা যাবে সেটা নিয়ে নিজের মতামত প্রকাশ করেছেন এবং ডব্লিউএইচও থেকে অর্থায়ন প্রত্যাহারের জন্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমালোচনা করেছিলেন।

গেটসই ভাইরাসটিকে ঘিরে ষড়যন্ত্র তত্ত্বগুলির একমাত্র কেন্দ্রবিন্দু নয়। ব্রিটেনে করোনাভাইরাসকে ৫ জি-র সাথে যুক্ত করার একটি ষড়যন্ত্র তত্ত্ব ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছিল। এমনকি এজন্য প্রায় ৫০টিরও বেশি ৫ জি টাওয়ারে আক্রমণ ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে।

সূত্র- বিজনেস ইনসাইডার।

একজনের মরদেহসহ ব্যাংককে আটকে পড়া ৪৮ বাংলাদেশিকে ফিরিয়ে এনেছে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারনে ব্যাংককে চিকিৎসা নিতে যাওয়া ও পর্যটক হিসেবে আটকে পরাদের জন্য বিশেষ ফ্লাইট পরিচালনা করে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স।

বিকাল ৪টা ২০ মিনিটে ব্যাংককের সুবর্নভুমি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ৪৮ জন যাত্রী ও একজন বাংলাদেশীর মৃতদেহ নিয়ে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে অবতরণ করে। করোনাভাইরাসের দূর্যোগকালীন সময়ে বাংলাদেশীদের ফিরিয়ে আনতে প্রথম কোনো স্পেশাল ফ্লাইট পরিচালনা করলো ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স।

করোনা মানুষের তৈরি, দাবি নোবেল বিজয়ী গবেষক লুক মন্টাগনিয়ার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : করোনাকে মানুষের তৈরি ভাইরাস বলে দাবি করছেন এইচআইভির আবিষ্কারক লুক মন্টাগনিয়ার। নোবেল বিজয়ী ফ্রান্সের এই ভাইরোলজিস্ট বলেছেন, এই ভাইরাসটির গতিপ্রকৃতিই বলে এটি ল্যাবে তৈরি। কোনো দূর্ঘটনাবশত হয়তো এটি ল্যাব থেকে বাইরে এসেছে।

তিনি আরও বলেন, প্রকৃতির একটা নিজস্ব নিয়ম আছে। ওই নিয়মের বাইরে কোনো কিছু প্রকৃতি মেনে নেয় না।

চীনের উহান শহরে করোনাভাইরাস আবির্ভাবের পর থেকেই অভিযোগ উঠেছে, এটি গবেষণাগারে তৈরি। এই অভিযোগ অস্বীকার করে চীন বরাবরই বলে আসছে, করোনা ভাইরাস প্রকৃতির পরিবর্তনের ফসল। উহানের এক বন্য প্রাণীর বাজার থেকে এটি মানবদেহে প্রবেশ করেছে।

চীনের এই দাবিকে বাতিল করে দিয়ে এইচআইভির আবিষ্কারক ড. লুক মন্টাগনিয়ার বলেন, উহানের ল্যাবেই করোনাভাইরাস তৈরি হয়েছে। ওই ল্যাবে চীনা গবেষকরা এইডস রোগের ভ্যাকসিন তৈরিতে কাজ করছিল। এইচআইভির ভ্যাকসিন তৈরিতে নানারকম ভাইরাস ব্যবহার নিয়ে গবেষণা করছিল তারা।

ফ্রান্সের সি-নিউজে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে তিনি বলেন, ভারতীয় গবেষকরা প্রথমে করোনা ভাইরাস বিশ্লেষণের ফলাফল সামনে নিয়ে আসে। পরে আমি আমার সহকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে ভাইরাসটির জিনোমার বিবরণ যত্ন সহকারে বিশ্লেষণ করে দেখেছি, এটি একটা স্তর পর্যন্ত এইচআইভি ভাইরাসের সঙ্গে সাংঘর্ষিক।

ড. লুক মন্টাগনিয়ার বলেন, এ থেকে আমার ও আমার সহকর্মীদের ধারণা এইচআইভি ভ্যাকসিন তৈরির উদ্দেশ্যে ল্যাবে করোনা ভাইরাসটি প্রক্রিয়াজাত করা হয় এবং ফলাফল পেতে কোনো এক এইডস আক্রান্ত রোগীর উপর এটি প্রয়োগ করা হয়েছিল। পরে ওই রোগীর দেহ থেকে এটি অন্যদের দেহে ছড়িয়ে পড়ে।

চার আফগান ক্রিকেটার তালেবানের হামলায় গুরুতর আহত

স্পোর্টস ডেস্ক : বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো আফগানিস্তানেও ছোবল বসিয়েছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। আর এ মধ্যেও দেশটিতে হামলা চালিয়েছে তালেবান। এ হামলায় চার কিশোর ক্রিকেটার গুরুতর আহত হয়েছে। তাদেরকে স্থানীয় একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। দেশটির লাঘমান প্রদেশের কারঘাই এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে ।- আল সাবাহ
আফগান সেনাবাহিনী এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, লকডাউন ভেঙে কারঘাই এলাকায় ক্রিকেট খেলতে নেমেছিল ওই কিশোররা। সে সময় তাদের ওপর হামলা চালায় তালেবান জঙ্গিরা। এতে চারজন আহত হয়। স্থানীয় একটি হাসপাতালে তাদের চিকিৎসা চলছে।

তবে, এ ঘটনা নিয়ে তালেবানরদের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত কোন বিবৃতি দেয়া হয়নি। এদিকে, যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তানেও এখন পর্যন্ত ৮৪০ মানুষ এ মারণঘাতী রোগে আক্রান্ত হয়েছেন। আর ৩০ জন প্রাণ হারিয়েছেন।- এপি

যুবককে গুলি করে হত্যার ঘটনায় মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রীর গানম্যান আটক

ডেস্ক রিপাের্ট : গাজীপুরের কালিয়াকৈরে গুলি করে একজনকে হত্যা ও আরেকজনে আহত করার ঘটনায় মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রীর গানম্যান এএসআই কিশোর চন্দ্র সরকারকে (৩৫) আটক করেছে পুলিশ।

শুক্রবার বেলা সোয়া ১টার দিকে আশুলিয়ার শিমুলিয়ায় বন্ধু তারাইরুলের বাসা থেকে তাকে আটক করা হয়।

গাজীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আমিনুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে কিশোর চন্দ্র সরকার তার বন্ধু মো. শহিদকে গুলি করে হত্যা এবং অপর বন্ধু মঈন উদ্দিনকে আহত করে রাতেই পালিয়ে আশুলিয়া এলাকায় তার বন্ধুর বাসায় চলে যায়।

পরে পুলিশের কয়েকটি টিম তাকে আটক করার জন্য রাত থেকেই অভিযান পরিচালনা করে। পুলিশ প্রযুক্তি ব্যবহার করে আশুলিয়ার শিমুলিয়া এলাকায় কিশোরের এক বন্ধুর বাসা থেকে কিশোরকে আটক করে। তাকে কালিয়াকৈর থানা পুলিশের হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

আমিনুল ইসলাম আরও জানান, আটককালে তার কাছ থেকে একটি পিস্তল ও ছয় রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়।

উল্লেখ্য, গাজীপুরের কালিয়াকৈর কুতুবদিয়া এলাকায় বৃহস্পতিবার রাতে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী ও গাজীপুর-১ আসনের সাংসদ আ ক ম মোজাম্মেল হকের গানম্যানের গুলিতে কালিয়াকৈর থানার সীমান্তবর্তী এলাকা টাঙ্গাইলের মির্জাপুর এলাকার আইজগানা গ্রামের সবুর উদ্দিনের ছেলে মো. শহিদ (৩০) নিহত হন। গুলিবিদ্ধ হন একই এলাকার মঈন উদ্দিন (৩২)।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মন্ত্রীর গানম্যান কিশোর ও হতাহতরা পরস্পর বন্ধু। প্রায় তারা এলাকায় আড্ডা দিতেন এবং নেশা করে বেড়াতেন।

বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ৮টার দিকে কুতুবদিয়া এলাকার লায়ন হাবিবের একটি পতিত জমিতে তারা বসে আড্ডা দেন এবং নেশা করেন।

পুলিশ ধারণা করছে, পূর্বপরিকল্পিতভাবে কিংবা নেশাগ্রস্ত হয়ে কোনো বিষয় নিয়ে ঝগড়ার জের ধরে কিশোর তার কাছে থাকা পিস্তল দিয়ে শহিদ ও মঈনকে গুলি করে। এতে শহিদের বুকের ডান পাশে গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান। মঈনের পেটের এক পাশে গুলিবিদ্ধ হন।

গুলির শব্দ পেয়ে এলাকাবাসী ছুটে আসলে গানম্যান কিশোর দৌড়ে পালিয়ে যান। খবর পেয়ে কালিয়াকৈর থানা পুলিশ আহত মঈনকে উদ্ধার করে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়।

এছাড়া নিহত শহিদের লাশ উদ্ধার করে প্রথমে কালিয়াকৈর থানায় নিয়ে রাখা হয়। পরে সেখান থেকে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

ভুল স্বীকার করে উহানে মৃত্যুর সংখ্যা ১২৯০ জন বাড়িয়েছে চীন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : তিন মাসেরও বেশি সময় ধরে করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করছে চীন। বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলি যখন করোনা-ঝড়ে বিধ্বস্ত, তখন ক্রমে সেরে উঠছে চীন। থেমেছে মৃত্যুমিছিল, কমেছে সংক্রমণ। কিন্তু করোনার উৎপত্তিস্থল উহান শহরে যত জন মারা গেছিলেন বলে সরকারি ভাবে বলা হয়েছিল, সেই মোট মৃত্যুর সংখ্যা আগের চেয়ে আরও ৫০ শতাংশ বাড়িয়েছে চীন। খবর বিবিসির।

কী করে এমনটা হল তা ব্যাখ্যা করতে গিয়ে উহান কর্তৃপক্ষের দাবি, অনেক মৃত্যুর সংখ্যা ভুল করে লেখা হয়নি। এছাড়া অনেকেই করোনা পরীক্ষা করানোর সুযোগ পায়নি। পাশপাশি বেশ কিছু করোনা রোগী হাসপাতালে আসার আগে বাড়িতেই মারা গেছেন। তাই মৃত্যু নিয়ে সঠিক সংখ্যা প্রকাশ করা যায়নি তখন। পরে হিসাব করে ভুল ধরা পড়েছে। তবে নতুন করে এভাবে মৃত্যুসংখ্যা প্রকাশ করায় চিন সরকারের স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

উহান জানিয়েছে, এর আগে বলা হয়েছিল ২৫৭৯ জন করোনা আক্রান্ত মারা গেছেন উহানে। কিন্তু এখন উহান শহরে আরও ১২৯০ জনের মৃত্যু দেখানো হয়েছে। ফলে এই নিয়ে করোনাভাইরাসের উৎপত্তিস্থল উহান শহরে ৩৮৬৯ জনের মৃত্যু হয়েছে মোট। এরফলে পুরো চীনেও মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৬৩২ জনে।

করোনাভাইরাসে মৃত্যুর সংখ্যা নিয়ে ইতিমধ্যেই পশ্চিমাদের তোপের মুখে পড়েছে চীন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সরাসরি দাবি করেছেন, মৃত্যুর সংখ্যা নিয়ে মিথ্যা বলছে চীন। সংখ্যাটা কম করে ৪২ হাজার বলেও দাবি করেছে যুক্তরাষ্ট্র। শুধু মৃতের সংখ্যা নিয়ে নয়, চীন প্রথম থেকেই করোনা সংক্রমণ নিয়ে তথ্য গোপন করেছে বলেও অভিযোগ তুলেছে যুক্তরাষ্ট্র। এমনকি এও দাবি করা হয়েছে, উহানের গবেষণাগারে জৈবরাসায়নিক অস্ত্র হিসেবে করোনাভাইরাসের উৎপত্তি।

এবার চীন নিজেই জানাল, তাদের গণনায় ভুল হয়েছিল। কোভিড ১৯-এ চিনের উহানে যত জনের মৃত্যু হয়েছে বলে সরকারি ভাবে ঘোষণা করা হয়েছিল, আদতে সংখ্যাটা নাকি তার চেয়ে ৫০ শতাংশ বেশি। এ কথা সামাজিক মাধ্যমে পোস্ট করেও জানিয়েছে উহান কর্তৃপক্ষ।

চীনা সংবাদ সংস্থা সিনহুয়াতেও প্রকাশ করা হয়েছে, বৃহস্পতিবার পর্যন্ত তথ্য পর্যালোচনায় মৃতের তালিকায় যুক্ত হয়েছে আরও ১২৯০ জনের নাম। এ সময়ের আক্রান্ত রোগীর সংখ্যাও বেড়ে গেছে। ৩২৫ জন বেড়ে হয়েছে ৫০ হাজার ৩৩৩ জন।

ওয়ার্ল্ডোমিটার জানিয়েছে, শুক্রবার সকাল পর্যন্ত করোনায় বিশ্বব্যাপী নিহতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক লাখ ৪৫ হাজার ৫২১ জনে এবং আক্রান্তের সংখ্যা ২১ লাখ ৮২ হাজার ১৯৭ জন। অপরদিকে ৫ লাখ ৪৭ হাজার ২৯১ জন চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

চলে গেলেন জাতীয় পুরস্কারজয়ী শিল্প নির্দেশক মহিউদ্দিন ফারুক

বিনােদন ডেস্ক : না ফেরার দেশে চলে গেলেন সাতবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারজয়ী শিল্প নির্দেশক মহিউদ্দিন ফারুক (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। শুক্রবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

খবরটি নিশ্চিত করেছেন চলচ্চিত্র প্রযোজক সমিতির সভাপতি খোরশেদ আলম খসরু।

খসরু বলেন, “মহিউদ্দিন ফারুক ভাই দুপুরে তার নিজ বাসভবনে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। একজন গুণী মানুষকে হারালাম আমরা। তিনি বিখ্যাত চলচ্চিত্র পরিচালক ও শিল্প নির্দেশক ছিলেন এবং একাধিকবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেছেন, স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটিতে চলচ্চিত্র বিষয়ে শিক্ষকতা করতেন। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক পরিবেশক সমিতির শোক ও শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করছি এবং তার আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি।”

মহিউদ্দিন ফারুকের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, তিন-চার দিন ধরে তার জ্বর ছিল। তাছাড়া আগে থেকেই হৃদপিন্ডে সমস্যা ছিল। তিনি স্ট্রোক করেছেন বলেও ধারণা করা হচ্ছে। তাছাড়া করোনা উপসর্গে মৃত্যু হয়েছে কি-না পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে। পরে বনানী কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

এই গুণী ব্যক্তিত্বের সর্বশেষ শিল্প নির্দেশনায় ছিল যৌথপ্রযোজনার ‘মনের মানুষ’। এই ছবির জন্যও জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছিলেন মহিউদ্দিন ফারুক।

শিল্প নির্দেশনার বাইরে ‘বিরাজ বৌ’ চলচ্চিত্রের পরিচালক হিসেবেও বিখ্যাত এই ব্যক্তিত্ব।

মহিউদ্দিন ফারুক ১৯৪১ সালের ৩ মার্চ মুন্সিগঞ্জ জেলার গজারিয়ার আড়ালিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৫৮ সালে ঢাকার ‘মুসলিম হাই স্কুল’ থেকে ম্যাট্রিক পাশ করেন তিনি। জগন্নাথ কলেজ থেকে ১৯৬০ সালে ইন্টারমিডিয়েট পাশ করে তৎকালীন ঢাকা আর্ট কলেজে ভর্তি হন। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালে নাটকের দল ‘থিয়েটার’-এর সঙ্গে যুক্ত হন তিনি। যুক্ত ছিলেন প্রগতিশীল রাজনীতির সাথেও।

বিশ্ববিদ্যালয় পাসের আগেই সুইডেন-পাকিস্তান ফ্যামিলি ওয়েলফেয়ার প্রজেক্টে চাকরি পেয়ে যান তিনি। ১৯৬৫ সালে চারুকলার পড়ালেখা শেষ করে ১৯৬৭ সালে তৎকালীন পাকিস্তান টেলিভিশনে যোগদান করেন। ২০০০ সাল পর্যন্ত এই প্রতিষ্ঠানেই যুক্ত ছিলেন মহিউদ্দিন ফারুক।

উদয়ন চৌধুরীর ‘পুনম কি রাত’ ছবিতে শিল্প নির্দেশক হিসেবে তার চলচ্চিত্র জগতে যাত্রা আরম্ভ। এরপর তিনি প্রায় ২০০ চলচ্চিত্রে শিল্প নির্দেশনা দিয়েছেন। তিনি বসুন্ধরা (১৯৭৭), ডুমুরের ফুল (১৯৭৮), পিতা মাতা সন্তান (১৯৯১), পদ্মা নদীর মাঝি (১৯৯৩), দুখাই (১৯৯৭), মেঘলা আকাশ (২০০১) এবং মনের মানুষ (২০১০) চলচ্চিত্রের জন্য শ্রেষ্ঠ শিল্প নির্দেশক হিসেবে জাতীয় পুরস্কার পেয়েছেন। এছাড়া বিভিন্ন চলচ্চিত্রে বাচসাস, প্রযোজক সমিতি পুরস্কারসহ নানা পুরস্কার ও সম্মাননায় ভূষিত হন শিল্পী মহিউদ্দিন ফারুক।

প্রিয়রঞ্জন দাশ মুন্সির পর ভারতীয় ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি হচ্ছেন এক বাঙালি

স্পোর্টস ডেস্ক : প্রিয়রঞ্জন দাশমুন্সির পর ভারতীয় ফুটবল সংস্থার হট সিটে বসতে চলেছেন বাঙালি ক্রীড়া প্রশাসক। সব ঠিকঠাক চললে আগামী বছর সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি হচ্ছেন আইএফএ চেয়ারম্যান সুব্রত দত্ত।

বর্তমানে এআইএফএফ-র সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট আর লিগ কমিটির চেয়ারম্যান সুব্রত দত্ত। ফেডারেশনের সংবিধান আর স্পোর্টস কোড অনুযায়ী, ২০২০ সালের পর আর সভাপতি থাকতে পারবেন না প্রফুল প্যাটেল। ২০০৮ সালে প্রিয়রঞ্জন দাশমুন্সি অসুস্থ হওয়ার পর থেকে সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতির দায়িত্ব সামলাচ্ছেন প্রফুল্ল। সেই সময় এআইএফএফ-এর সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ছিলেন তিনি। চলতি বছরেই তার ১২ বছরের মেয়াদ শেষ হচ্ছে।

এআইএফএফ সূত্রের বলছে, চলতি বছরের ডিসেম্বর থেকে আগামী বছরের মার্চের মধ্যে এই নির্বাচন হতে পারে। আপাতত সভাপতি পদে লড়াইয়ের সম্ভাবনা নেই। তাই নতুন করে আইনি জটিলতা না হলে বলা যেতে পারে প্রফুল্ল প্যাটেলের পর সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশনের সর্বোচ্চ পদে বসতে চলেছেন আর এক বাঙালি সুব্রত দত্ত। -জি নিউজ