এক মা তার যমজ সন্তানের নাম রাখলেন করোনা ও ভাইরাস

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : মহামারী করোনাভাইরাসের ছোবলে স্থবির হয়ে পড়েছে গোটা বিশ্ব। বিশ্বের সবগুলো গণমাধ্যমের শিরোনামে এখন করোনাভাইরাস। সোশ্যাল মিডিয়ায় সারাক্ষণই চর্চিত হচ্ছে করোনা মুক্তির উপায় প্রসঙ্গ।

এরই মধ্যে জানা গেল, এক মা তার যমজ দুই নবজাতকের নাম রেখেছেন- করোনা ও ভাইরাস।

আর্ন্তজাতিক গণমাধ্যম ওয়ার্ল্ড নিউজ ডেইলি জানায়, গত সপ্তাহে উত্তর আমেরিকার দেশ ম্যাক্সিকোতে দুই নবজাতকের নাম করোনা ও ভাইরাস রেখেছেন আন্নামারিয়া হোসে রাফায়েল গঞ্জালেস নামের এক নারী।

অবশ্য এমন নাম রাখার পেছনের উপযুক্ত কারণও জানিয়েছেন ওই নারী।

জানা গেছে, সন্তান গর্ভাবস্থায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন আন্নামারিয়া। আক্রান্ত অবস্থাতেই মেক্সিকোর বেসিক লা ভিলা হাসপাতালে যমজ সন্তান প্রসব করেন তিনি। বিশ্বের করোনা পরিস্থিতিতে সন্তানদের জন্ম হওয়ায় তাদের নাম রাখেন করোনা ও ভাইরাস।

আন্নামারিয়া বলেন, ‘ চারদিকে আতঙ্ক আর মৃত্যুর সংবাদ। আমি নিজেও এই মরণব্যাধিতে আক্রান্ত। এমন সময়ে আমার কোল আলো করে ওরা এল। আতঙ্কের কারণে তাদের কি নাম রাখব সেটা মাথায় আসছিল না। তখন আমার চিকিৎসক পরামর্শ দেন, যেহেতু আমি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সেহেতু তাদের নাম করোনা ও ভাইরাস রাখতে। আমার কাছে মনে হয়েছে বিষয়টি যুক্তিযুক্ত। তাই ওদের নাম করোনা ও ভাইরাস রেখেছি।’

তিনি বলেন, ‘আমার মেয়েটির নাম – করোনা হোসে মিগুয়েল গঞ্জালেস। আর ছেলেটির নাম হচ্ছে ভাইরাস হোসে মিগুয়েল গঞ্জালেস।’

এমন নামকরণের বিষয়ে চিকিৎসক এডুয়ার্ডো কাস্তিলাস বলেন, ‘মজার ছলেই তাকে এমন নাম রাখতে বলেছিলাম। কিন্তু কেন জানি না তিনি বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে নিয়েছেন। এতে আমি হতবাক ও আপ্লুত।’ প্রসঙ্গত, আন্তর্জাতিক সংস্থা ওর্য়াল্ডওমিটারের দেয়া তথ্যানুযায়ী, এ পর্যন্ত মেক্সিকোতে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ১ হাজার ৩৭৮ জন। এদের মধ্যে ৩৭ জন মারা গেছেন।

বিশ্বব্যাপী ৯ লাখ ৫৪ হাজার ৩১৮ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এতে মারা গেছেন ৪৮ হাজার ৫৫৩ জন। সুস্থ্ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন, ২ লাখ ২ হাজার ৯১৩ জন।

আজাহার আলীর পর ইমরান খানের তহবিলে ২০ লাখ রুপি দিলেন দুই ওয়াসিম

স্পোর্টস ডেস্ক : করোনাভাইরাস মোকাবেলায় পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের ত্রাণ তহবিলে ২০ লাখ রুপি দিয়েছেন দুই ক্রিকেটার। তারা হলেন- সাবেক পাক সুইং মাস্টার ওয়াসিম আকরাম এবং অলরাউন্ডার ইমাদ ওয়াসিম।

এর আগে গেল সোমবার প্রধানমন্ত্রীর তহবিলে ১০ লাখ রুপি দিয়েছেন পাকিস্তানের টেস্ট অধিনায়ক আজহার আলি। আর গেল সপ্তাহে ৫০ লাখ রুপি দিয়েছে দেশটির ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। এর সঙ্গে কেন্দ্রীয় চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটারদের কাছ থেকে এ অর্থ সংগ্রহ করা হবে।

করোনা দুর্যোগকালে দেশের মানুষকে সর্বোচ্চ সহায়তার লক্ষ্যে তহবিল গঠন করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। ইতিমধ্যে একটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট প্রকাশ (উন্মুক্ত) করেছে তার সরকার। এর মাধ্যমে দেশ-বিদেশে (বিশ্বের আনাচে-কানাচে) থাকা প্রতিটি পাকিস্তানি নাগরিক অর্থ পাঠাতে পারবেন। – দ্য ডন

প্রসঙ্গত করোনাভাইরাসে এখন পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী আক্রান্ত প্রায় ৯ লাখ ৩৬ হাজার। সুস্থ হয়েছেন প্রায় ২ লাখ। আর প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত ৪৭ হাজার। চীন, যুক্তরাষ্ট্র, ইতালি, স্পেন, ফ্রান্সের মতো অর্থনৈতিকভাবে শক্তিশালী বিশ্বের দেশগুলো তা মোকাবেলায় হিমশিম খাচ্ছে। – এআরওয়াই স্পোর্টস

করোনা মোকাবেলায় ভারতীয় দলের কোন তারকা প্রধানমন্ত্রীর ফান্ডে কতো টাকা দিলেন

স্পাের্টস ডেস্ক : করোনাভাইরাস মোকাবেলায় দেশজুড়ে এখন ২১ দিনের লকডাউন চলছে ভারতজুড়ে। এই পরিস্থিতিতে চিকিৎসা ও গরীব মানুষদের মুখে খাবার তুলে দিতে প্রচুর সাহায্যের প্রয়োজন। কঠিন পরিস্থিতিতে দেশের খেলার জগতের ব্যক্তিত্বরা নিজেদের সাধ্যমত সাহায্য করছেন। দেখে নেওয়া যাক ভারতীয় খেলার দুনিয়ার কোন তারকা কতো দান করলেন।

রোহিত শর্মা : ভারতীয় দলের ওপেনার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আপতকালীন ত্রাণ তহবিলে ৪৫ লাখ টাকা দান করেছেন। এছাড়া মহারাষ্ট্রের সরকারের রিলিফ ফান্ডে ২৫ লাখ টাকা দিয়েছেন তিনি। জাতীয় সংকটের মুহূর্তে দুঃস্থ, অসহায় মানুষের মুখে খাবার তুলে দেয়ার কথা ভেবেছেন হিটম্যান। যে কারণে গরিব মানুষদের জন্য ৫ লাখ টাকা এবং রাস্তার কুকুরদের এ অসময়ে খাবারের জোগান দিতে ৫ লাখ টাকা দান করেছেন রোহিত।

সুরেশ রায়না: করোনা ফান্ডে ৫২ লাখ টাকা দান করেছেন তিনি। এর মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর আপতকালীন ফান্ডে ৩১ লাখ টাকা দিয়েছেন মেন ইন গ্রিনদের বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। সেই সঙ্গে উত্তরপ্রদেশ মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে ২১ লাখ টাকা জমা করেছেন রায়না। সব মিলিয়ে বর্তমান ক্রিকেটারদের মধ্যে তিনিই সবচেয়ে বেশি দান করেছেন।
শচীন টেন্ডুলকার: করোনা মোকাবেলায় কেন্দ্রীয় সরকার এবং রাজ্যসভা মিলিয়ে ৫০ লাখ টাকা দান করেছেন ভারতীয় ব্যাটিং ঈশ্বর। দেশটির অ্যাথলেটদের মধ্যে তিনিই সর্বপ্রথম মোটা অংকের অর্থ দেন।
গৌতম গম্ভীর: করোনামুক্ত দেশ গড়ার কাজে রিলিফ ফান্ডে নিজের সাংসদ তহবিলের লোকাল এরিয়া ডেভলপমেন্ট স্কিম থেকে ১ কোটি টাকা দিয়েছেন গম্ভীর। সেই সঙ্গে এমপি হিসেবে এক মাসের বেতনও দান করতে চলেছেন তিনি।

মেরি কম: করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সাংসদ তহবিলের লোকাল এরিয়া ডেভলপমেন্ট স্কিম থেকে তিনিও ১ কোটি টাকা দিয়েছেন। একইসঙ্গে সংসদ সদস্য হিসেবে এক মাসের বেতনও দান করেছেন কিংবদন্তি এ বক্সার।

পিভি সিন্ধু: প্রাণঘাতী ভাইরাস রুখতে তেলেঙ্গানা ও অন্ধ্রপ্রদেশ সরকারকে যথাক্রমে ৫ করে মোট ১০ লাখ টাকা দিয়েছেন ব্যাডমিন্টন তারকা।

বিসিসিআই: মারণঘাতী করোনা যুদ্ধে লিজেন্ড ক্যাপ্টেন সৌরভ গাঙ্গুলির নেতৃত্বাধীন ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই) ৫১ কোটি টাকা দান করেছে। সবটাই সহায়-সম্বলহীনদের স্বার্থে ব্যয় করা হবে।
তথ্যসূত্র: ওয়ান ইন্ডিয়া

ইতালির পর করোনাভাইরাসে স্পেনে মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়াল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ইতালির পর করোনার থাবায় লণ্ডভণ্ড ইউরোপের আরেক দেশ স্পেন। আক্রান্তের সংখ্যা লাফ দিয়ে বেড়েই চলেছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় সেখানে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ৮৬৪ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। একদিনে এই রেকর্ড সংখ্যক করোনা রোগীর মৃত্যুর মধ্য দিয়ে স্পেনে মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়িয়েছে।

করোনায় প্রাণহানি ও অসুস্থদের হিসাব রাখা আন্তর্জাতিক সংস্থা ওর্য়াল্ডওমিটারের দেয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী, স্পেনে এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ১০ হাজার ২৩৮ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন ১০ হাজার ৩ জন। সুস্থ্ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২৬ হাজার ৭৪৩ জন।

ভাইরাসটি প্রতিরোধে ইতিমধ্যে দেশটি লকডাউন করা হয়েছে। লকডাউন ভেঙে রাস্তায় বের হলে ধরপাকড়ের শিকার হচ্ছেন নাগরিকরা। জরিমানাও গুণতে হচ্ছে অনেককে।

রাজধানী মাদ্রিদের রাস্তা এখন জনশূন্য। রেস্তোরাঁ, দোকান, শপিংমল সবই বন্ধ রয়েছে। ফুটবলের শহর কাতালানে নেই কোনো বলে পা ছোঁয়ার শব্দ। স্টেডিয়ামগুলো খাঁ খাঁ করছে।

এদিকে, দ্রুত গতিতে করোনা রোগীর বৃদ্ধিতে স্পেনের স্বাস্থ্যব্যবস্থা অতিরিক্ত চাপে পড়ে গেছে। চিকিৎসাসামগ্রীরও অভাব দেখা দিয়েছে।

স্পেনের হেলথ ইমার্জেন্সির প্রধান ফারনান্দো সিমন বলেন, আমরা চূড়ান্ত সীমায় পৌঁছে গেছি কিনা, সেটি এখানকার মূল বিষয় নয়। মনে হচ্ছে যেন আমরা তেমন অবস্থায়ই রয়েছি। সব রোগীর চিকিৎসা ও হাসপাতালে ভর্তিতে স্বাস্থ্যব্যবস্থার সক্ষমতা নিশ্চিত করাই এখন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু।

প্রসঙ্গত, এ পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী ৯ লাখ ৫৪ হাজার ৩১৮ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এতে মারা গেছেন ৪৮ হাজার ৫৫৩ জন। সুস্থ্ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন, ২ লাখ ২ হাজার ৯১৩ জন।

নিম্ন আয়ের মানুষদের পাশে ইলিয়াসের ‘স্টেজ ফর ইয়ুথ’

বিনােদন ডেস্ক : সংগীতশিল্পী ইলিয়াস হোসাইনের সংগঠন ‘স্টেজ ফর ইয়ুথ’ এর উদ্যোগে একসঙ্গে ১০ দিনের খাদ্যসামগ্রী তুলে দেওয়া হলো রাজধানীর নিম্ন আয়ের মানুষদের হাতে। গতকাল রাজধানীর গুলশান এলাকা থেকে দিনব্যাপী এই কার্যক্রম শুরু হয়। এ সময় সংগঠনটির প্রেসিডেন্ট ইলিয়াস হোসাইন ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন গুলশান বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার সুদিপ চক্রবর্তী, অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মোঃ আব্দুল আহাদসহ অনেকেই।

এ বিষয়ে ইলিয়াস বলেন, ‌চেষ্টা করছি আমাদের জায়গা থেকে নিম্ন আয়ের মানুষদের অন্তত ১০ দিনের খাদ্যসামগ্রী দিয়ে সহায়তা করতে। এটি কেবল শুরু। সারা ঢাকায় ভিন্ন ভিন্ন জায়গায় গতকাল আমাদের সদস্যরা প্রায় ৫০০ পরিবারকে ১০ দিনের খাদ্য-সামগ্রী বিতরণ করেছে। এটি অব্যাহত থাকবে যতদিন এই সংকট থাকবে। প্রাথমিকভাবে রাজধানীর ২ হাজার পরিবারকে এই সহায়তা দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়েছি আমরা।

পরবর্তীতে গোটা বাংলাদেশে এই সহায়তা ছড়িয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে।

এন্ড্রু কিশোরের রেডিওথেরাপি শুরু

বিনােদন ডেস্ক : গত মাসের শেষেই দেশে ফেরার কথা ছিলো দেশবরেণ্য সংগীতশিল্পী এন্ড্রু কিশোরের। ইতিমধ্যে ছয়টি ধাপে কেমো নেওয়া শেষ হয়েছে তার। কিন্তু ফিরতে পারলেন না করোনার চলতি পরিস্থিতির কারণে। গতকাল থেকেই তার রেডিওথেরাপি শুরু হয়েছে সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে। জানা গেছে, প্রথম পর্যায়ের নির্ধারিত সব কেমো দেওয়ার পর পরীক্ষা হলে দেখা যায়, এখনো এন্ড্রু কিশোরের শরীরে ক্যানসারের প্রভাব রয়ে গেছে। এ পর্যায়ে চিকিৎসকেরা তার শরীরে নতুন করে রেডিওথেরাপি শুরু করেছেন। এপ্রিলের পুরো মাস রেডিওথেরাপি নিতে হবে। মোট ২০টি থেরাপি নেওয়ার পর চিকিৎসকেরা আবারও পরীক্ষা করবেন। সে ক্ষেত্রে সব ঠিকঠাক থাকলে মে মাসে ফিরতে পারেন এন্ড্রু কিশোর।

আপাতত আগের তুলনায় কিছু ভালো আছেন এন্ড্রু কিশোর। হাঁটাচলা করতে পারছেন, স্বাভাবিক খাবার খাচ্ছেন। এন্ড্রু কিশোর নন-হজকিন লিম্ফোমা নামক ব্লাড ক্যানসারে আক্রান্ত। শরীরে নানা ধরনের জটিলতা নিয়ে অসুস্থ অবস্থায় গত বছরের ৯ সেপ্টেম্বর উন্নত চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরের উদ্দেশে দেশ ছেড়েছিলেন তিনি। বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর গত ১৮ সেপ্টেম্বর তার শরীরে ক্যানসার ধরা পড়ে। সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক লিম সুন থাইয়ের অধীনে তার চিকিৎসা শুরু হয়।

করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন নিয়ে সুসংবাদ দিল অস্ট্রেলিয়া

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন নিয়ে সুখবর দিলেন অস্ট্রেলিয়ান বিজ্ঞানীরা। দুটি সম্ভাব্য ভ্যাকসিন তৈরি করেছেন তারা।

সব কিছু ঠিক থাকলে এ মাসের শেষের দিকে অথবা আগামী মাসের শুরুতে ভ্যাকসিন দুটি মানবদেহে প্রয়োগ করা হবে। বৃহস্পতিবার দেশটির জাতীয় বিজ্ঞান সংস্থা এ তথ্য দিয়েছে। খবর বিবিসির।

বিবিসির প্রতিবেদনের বলা হয়েছে, অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও যুক্তরাজ্যভিত্তিক কোম্পানি ইনোভায়ো ফার্মাসিউটিক্যালের যৌথ উদ্যোগে নভেল করোনাভাইরাসের সম্ভাব্য ভ্যাকসিন দুটি তৈরি হয়েছে। ইতিমধ্যে ভ্যাকসিন দুটি প্রাণীর শরীরে প্রয়োগে সুফল পাওয়ায় ছাড়পত্র দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

ভ্যাকসিন দুটি মেলবোর্নের কাছে অবস্থিত কমনওয়েলথ সায়েন্টিফিক অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিয়াল রিসার্চ অর্গানাইজেশনের (সিএসআইআরও) পরীক্ষাগারে প্রাক-ক্লিনিক্যাল পরীক্ষা শুরু হবে।

অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় বিজ্ঞান সংস্থা পরীক্ষার পুরো প্রক্রিয়াটি মূল্যায়ন করবে এবং মানবদেহে ভ্যাকসিন দুটির কোনো ক্ষতিকর প্রভার রয়েছে কিনা তা বিবেচনা করে দেখবে।

উল্লেখ্য, সিএসআইআরও একমাত্র গবেষণা সংস্থা, যারা পরীক্ষাগারে করোনাভাইরাস তৈরি করতে পেরেছে এবং এর প্রাক-ক্লিনিক্যাল গবেষণা চালাচ্ছে।

এ বিষয়ে সিএসআইআরওর স্বাস্থ্য পরিচালক রব গ্রেনফেল বলেন, ‘প্রাথমিক পর্যায়ের এ পরীক্ষা সম্পন্ন হতে তিন মাস সময় লাগবে। সে হিসাবে সফল হলে আগামী বছরের শেষ দিকে মরণব্যাধি করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন বাজারে অবমুক্ত করতে পারবে অস্ট্রেলিয়া। পরীক্ষার শুরুতে চলতি মাসের শেষ দিকে মানবদেহে ভ্যাকসিন প্রয়োগ করে এর কার্যকারিতা পর্যালোচনা করা হবে।’

অস্ট্রেলিয়ার এ গবেষক আরও বলেন, ‘আমরা আশাবাদী যে, দ্রুততার সঙ্গে পরীক্ষাগুলো শেষ করতে পারব। আগামী ১৮ মাসের মধ্যেই সাধারণ গ্রাহকদের হাতে ভ্যাকসিন তুলে দিতে পারব।’

শুরুতে ইনজেকশন ও নাকের স্প্রে তৈরি করে করোনাভাইরাসের কার্যকরী ভ্যাকসিন বাজারজাত করা হবে বলে জানান বিজ্ঞানী গ্রেনফেল।

প্রসঙ্গত গত মাসে সিয়াটলে যুক্তরাষ্ট্রের মর্ডানা মানুষের ওপর পরীক্ষামূলক ভ্যাকসিন চালিয়েছে। তবে প্রাণীদের ওপর পরীক্ষায় ভ্যাকসিনটি উত্তীর্ণ না হওয়ায় মাঝপথেই পরীক্ষাটি বাদ দেয়া হয়। এবার বিশ্ববাসীর চোখ অস্ট্রেলিয়ার এই দুই ভ্যাকসিনের ওপর।

করোনাভাইরাস কেড়ে নিলাে লেবাননে নিযুক্ত ফিলিপাইনের রাষ্ট্রদূতের প্রাণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন মধ্যপ্রাচ্যের দেশ লেবাননে নিযুক্ত ফিলিপাইনের রাষ্ট্রদূত বারনারডিতা কাটাল্লা। তার বয়স হয়েছিল ৬২ বছর।

ফিলিপাইনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাতে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা জানিয়েছে, স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার ফিলিপাইনের একটি হাসপাতালে বারনারডিতার মৃত্যু হয়েছে।

বারনারডিতার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছে ফিলিপাইনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘গভীর দুঃখের সঙ্গে জানানো যাচ্ছে, লেবাননে নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত বারনারডিতা কাটাল্লা কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হয়ে বৃহস্পতিবার সকালে মৃত্যুবরণ করেছেন।’

আলজাজিরা জানিয়েছে, করোনাঝুঁকির সময় ফিলিপাইনেই অবস্থান করছিলেন বারনারডিতা। সম্প্রতি তার দেহে কোভিড-১৯ পজিটিভ শনাক্ত হয়। এর পর তাকে ফিলিপাইনের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই বৃহস্পতিবার তার মৃত্যু হয়।

উল্লেখ্য, লেবাননের রাষ্ট্রদূত নিযুক্ত হওয়ার আগে কাটাল্লা হংকংয়ে ফিলিপাইনের কনস্যুলার জেনারেল হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

প্রসঙ্গত ফিলিপাইনে করোনায় আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত ৯৭ জনের মৃত্যু হয়েছে, আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা ২ হাজার ৩০০ জনেরও বেশি। এমন পরিস্থিতিতে লকডাউন ভেঙে কেউ রাস্তায় বের হলেই গুলির নির্দেশ দিয়েছেন ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুতের্তে। বুধবার শেষ রাতে জাতির উদ্দেশে দেয়া এক টেলিভিশন ভাষণে এমন নির্দেশ দেন রদ্রিগো।

বরগুনার আমতলী থানায় যুবকের ঝুলন্ত লাশ: অনলাইনে সেই ওসির বিরুদ্ধে মামলা

ডেস্ক রিপাের্ট : বরগুনার আমতলীতে থানা হেফাজত থেকে হত্যা মামলার সন্দেহভাজন আসামি শানু হাওলাদারের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধারের ঘটনায় মামলা হয়েছে। এ থানার সাময়িক বরখাস্ত ওসি (তদন্ত) মনোরঞ্জন মিস্ত্রির বিরুদ্ধে অনলাইনে করা অভিযোগ মামলা হিসেবে গ্রহণ করেছে পুলিশ।

বুধবার রাতে সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী ইশরাত হাসান বরগুনার পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেনের (পিপিএম) কাছে অনলাইনে অভিযোগ করেন। সেই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে এ মামলা হয়। মামলাটি তদন্তের জন্য বরগুনা ডিবির (ওসি) মো. হারুন অর রশিদ হাওলাদারকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

জানা গেছে, উপজেলার গুলিশাখালী ইউনিয়নের পশ্চিম কলাগাছিয়া গ্রামে গত ৩ নভেম্বর ইব্রাহিম নামে একজন খুন হন। ওই হত্যা মামলায় শানু হাওলাদারের সৎভাই মিজানুর রহমান হাওলাদার এজাহারভুক্ত আসামি।

ওই মামলার শানু হাওলদারকে ২৩ মার্চ রাত সাড়ে ১১টায় সহেন্দভাজন আসামি হিসেবে ধরে নিয়ে আসে পুলিশ। অভিযোগ উঠে তাকে থানায় আনার পর থেকে আমতলী থানার ওসি আবুল বাশার (প্রত্যাহার) ও ওসি (তদন্ত) মনোরঞ্জন মিস্ত্রি (সাময়িক বরখাস্ত) আসামির পরিবারের কাছে তিন লাখ টাকা ঘুষ দাবি করেন।

টাকা দিতে না পারায় তার ওপর দফায় দফায় নির্যাতন চালানো হয়। বৃহস্পতিবার সকাল সোয়া ৬টার দিকে ওসি (তদন্ত) মনোরঞ্জন মিস্ত্রির কক্ষে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

ওসি আবুল বাশারের দাবি শানু আত্মহত্যা করেছেন। ঘটনার পর পরই এসপি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তোফায়েল আহম্মেদকে প্রধান করে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করেন।

তাৎক্ষণিকভাবে দায়িত্ব অবহেলার দায়ে এসপি মারুফ থানার ওসি (তদন্ত) মনোরঞ্জন মিস্ত্রি ও ডিউটি অফিসার এএসআই আরিফ হোসেনকে সাময়িক বরখাস্ত করেছেন।

এদিকে তদন্ত কমিটির সুপারিশের আলোকে শুক্রবার বিকালে আবুল বাশারকে প্রত্যাহার করে বরগুনা পুলিশলাইনে সংযুক্ত করা হয়।

এদিকে গত মঙ্গলবার সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী ইশরাত হাসান বরগুনা পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেনের কাছে এ বিষয়ে অনলাইনে অভিযোগ করেন। ওই আইনজীবীর অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বুধবার রাতে বরগুনার পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন আমতলী থানার ওসি শাহ আলম হাওলাদারকে মামলাটি গ্রহণের নির্দেশ দেন।

পরে আমতলী থানার সাময়িক বরখাস্তকৃত ওসি (তদন্ত) মনোরঞ্জন মিস্ত্রির বিরুদ্ধে নির্যাতন এবং পুলিশ হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইন ২০১৩-এর ১৫ ধারা মোতাবেক মামলাটি গ্রহণ ক রা হয়। ওই মামলাটি তদন্তের জন্য বরগুনা ডিবি (ওসি) মো. হারুন অর রশিদকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

আমতলী থানার ওসি মো. শাহ আলম হাওলাদার এ বিষয়ে বলেন, পুলিশ হেফাজতে আসামি মৃত্যুর ঘটনায় ঢাকা সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী ইশরাত হাসান অনলাইনে অভিযোগ দেন। সেটি আমলে নিয়ে বরগুনা পুলিশের নির্দেশে আমতলী থানায় সাবেক ওসি (তদন্ত) মনোরঞ্জন মিস্ত্রির (সাময়িক বরখাস্ত) বিরুদ্ধে নির্যাতন এবং হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইন ২০১৩-এর ১৫ ধারায় নিয়মিত মামলা করা হয়।

তিনি আরও বলেন, মামলাটি তদন্তের জন্য বরগুনার ডিবি (ওসি) মো. হারুন অর রশিদকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

স্টার স্পোর্টসকে যুবরাজ সিং, মাঠে ধোনি ও কোহলির সমর্থন পাইনি

স্পোর্টস ডেস্ক : ভারতের সাবেক তারকা অলরাউন্ডার যুবরাজ সিং বলেছেন, সৌরভ গাঙ্গুলির অধিনায়কত্ব আমলে ভারতীয় দলে আমি যতটা সমর্থন পেয়েছি, এখনকার বিরাট কোহলি কিংবা তার আগে টিম ইন্ডিয়ার অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি দুজনের কারো কাছ থেকেই ততোটা সাহায্য পাইনি।

সম্প্রতি ‘স্পোর্টস স্টার’ এর সাংবাদিককে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে যুবরাজ বলেন, সৌরভের সঙ্গে আমার অনেক মধুর স্মৃতি রয়েছে। যা আমি এখনও রোমন্থন করতে ভালোবাসি। বাংলার মহারাজের কাছ থেকে অনেক বেশি বন্ধুত্বপূর্ণ ব্যবহার পেতাম।

বর্তমান ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) সভাপতি সম্পর্কে এভাবেই প্রশংসা করেন যুবি। তার কথায়, আমি এক সময় সৌরভের নেতৃত্বে খেলেছি। উনার কাছ থেকে অনেক সমর্থন পেয়েছি। তারপরে ধোনি টিম ইন্ডিয়ার দায়িত্ব গ্রহণ করেন। সৌরভ ও ধোনির মধ্যে যেকোনও একজনকে বেছে নেয়া কঠিন। তবে দাদার সঙ্গে আমার অনেক স্মৃতি আছে। কারণ, উনি আমাকে সবসময় সমর্থন করেছেন। ধোনি ও বিরাটের কাছ থেকে সেই সমর্থন পাইনি।- এনডিটিভি

যুবরাজ ২০১১ সালে ভারতের বিশ্বকাপ জয়ের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। দুর্দান্ত অলরাউন্ড পারফরম্যান্সের জন্য টুর্নামেন্ট সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন তিনি। এরপর ২০১৯ সালের জুনে হঠাৎ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর ঘোষণা করেন ৩৮ বছর বয়সী ক্রিকেটার।

অথচ ধোনির নেতৃত্বেও একজন ক্রিকেটার হিসেবে দারুণ ভূমিকা পালন করেছিলেন যুবরাজ। ২০০৭ সালে দক্ষিণ আফ্রিকায় আয়োজিত প্রথম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ অনেকটা তারই ব্যাটে ভর করে ভারতীয় ক্রিকেট দলের হাতে উঠে। -ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস