সিঙ্গাপুরে ২৯৬২ বাংলাদেশি করোনায় আক্রান্ত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : সিঙ্গাপুরে এখন পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন আট হাজার ১৪ জন। এর মধ্যে ২ হাজার ৯৬২ জন বাংলাদেশি। দেশটিতে সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছে ৭৬৮ জন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন এ পর্যন্ত ১১ জন।

রবিবার (১৯ এপ্রিল) সিঙ্গাপুরের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে নতুন করে এক হাজার ৪২৪ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে ৩৬২ জনই বাংলাদেশি।

সিঙ্গাপুরের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, রবিবার পর্যন্ত দেশটিতে ২ হাজার ৯৬২ জন বাংলাদেশি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। অবশ্য এক দিনেই দেশটিতে নতুন করে আরও ১ হাজার ৪২৬ জন আক্রান্ত বলে জানিয়েছে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এদের মধ্যে ১৬ জন সিঙ্গাপুরের নাগরিক, বাকিরা বিভিন্ন দেশের। আশঙ্কা করা হচ্ছে, আক্রান্তদের মধ্যে বাংলাদেশের নাগরিকদের সংখ্যা বেশি।

সাংবাদিকদের প্রণোদনা দিতে প্রেস কাউন্সিলের চিঠি

নিজস্ব প্রতিবেদক : জেলা-উপজেলায় কর্মরত সাংবাদিকদের তালিকা প্রণয়ন করে বিশেষ প্রণোদনা দিতে দেশের সব জেলা প্রশাসককে (ডিসি) চিঠি দিয়েছে প্রেস কাউন্সিল। রোববার (১৯ এপ্রিল) বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের সচিব মো. শাহ আলম দেশের সব জেলা প্রশাসকদের কাছে ইমেইলে এ চিঠি পাঠিয়েছেন।

ওই চিঠিতে জেলা প্রশাসকদের বলা হয়, বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে কিছু লোকজন অসহায় হয়ে পড়েছে। তাদের ঘরে খাবার পৌঁছে দিতে প্রধানমন্ত্রী প্রণোদনা প্যাকেজ তৈরির নির্দেশনা দিয়েছেন।

সাংবাদিকদের বিষয়ে চিঠিতে জেলা প্রশাসকদের বলা হয়, আপনি লক্ষ্য করবেন জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে সাংবাদিক ও সংবাদ সংশ্লিষ্ট কর্মীরা করোনাভাইরাসের ঝুঁকি নিয়ে জরুরি তথ্য জানানোর জন্য জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে কাজ করছেন। তাই তাদের জন্যও প্রণোদনা প্রয়োজন।

এমতাবস্থায় আপনার জেলায় প্রেস ক্লাব ও সাংবাদিক সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে সাংবাদিক ও সংশ্লিষ্টদের তালিকাভুক্ত করে প্রণোদনার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো।

রাজধানীতে কর্মরত সাংবাদিকদের বিষয়ে জানতে চাইলে প্রেস কাউন্সিলের সচিব মো. শাহ আলম বলেন, আমরা ঢাকার জেলা প্রশাসককেও চিঠি দিয়েছি। তারা ঢাকা জেলার সাংবাদিকদের বিষয়ে প্রণোদনার ব্যবস্থা করবেন।

১৭০ চিকিৎসক করোনায় আক্রান্ত, চিকিৎসা দেবেন কারা?

ডেস্ক রিপাের্ট : দেশে কোভিড ১৯ সংক্রমণ মোকাবিলায় সম্মুখসারির যোদ্ধা চিকিৎসক-নার্স আর স্বাস্থ্যকর্মীরা। কিন্তু দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের নতুন নতুন রেকর্ডের সঙ্গে ক্রমেই বাড়ছে স্বাস্থ্যকর্মীদের আক্রান্ত হওয়ার হারও।

চিকিৎসকদের সংগঠন বাংলাদেশ ডক্টর্স ফাউন্ডেশনের তথ্য অনুযায়ী, এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসের সংক্রমিত হয়েছেন ১৭০ জনের বেশি চিকিৎসক। আর আক্রান্তের শীর্ষে আছেন স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল ২৫ জন ও শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেলের ৯ জন চিকিৎসক।

করোনা আক্রান্ত এক চিকিৎসক বলেন, আক্রান্ত হওয়ার কারণ মূলত পর্যাপ্ত পিপিইর অভাব। আমি যে ইউনিটে ইন্টার্ন করি সেই ইউনিটে একজন নার্স পজেটিভ ছিল কিন্তু তিনি কাউকে কিছু জানাননি।

মিডফোর্ড হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. সৈয়দ মো. শাহীন বলেন, এখন পর্যন্ত যারা সেবা দিচ্ছেন কাল যে তারা আক্রান্ত হবেন না সেটি বলা যাচ্ছে না। কারণ এ জায়গাটা এখন একটা এপি সেন্টারের মত হয়ে গেছে।

চিকিৎসকদের এভাবে আক্রান্ত হওয়ার পেছনে নিম্ন মানের পিপিই আর রোগীদের তথ্য লুকানোর প্রবণতাকে দায়ী করছেন চিকিৎসা সংশ্লিষ্টরা।

বাংলাদেশ ডক্টর ফাউন্ডেশন (বিডিএফ) প্রধান সমন্বয়ক ডা. নিরুপম দাশ বলেন, যে হারে চিকিৎসকরা আকান্ত হচ্ছেন তাতে আমাদের ভয় হলো কিছুদিন পরে চিকিৎসা দেয়ার মতো চিকিৎসক থাকবেন কি না।

এর আগে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত বুধবার মারা যান সিলেট ওসমানী মেডিকেলের সহকারী অধ্যাপক ডা. মইন উদ্দীন।-সময়টিভি

কিশোরগঞ্জে নতুন ৬৭ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত

ডেস্ক রিপাের্ট : কিশোরগঞ্জে নতুন করে ৬৭ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। তাদের মধ্যে ৪৪ জন পুরুষ ও ২৩ জন নারী রয়েছেন।

আজ সোমবার বিকালে সিভিল সার্জন ডা. মুজিবুর রহমান এ তথ্য জানিয়েছেন।

গত ১৭ এপ্রিল সংগৃহিত ১২৫ জনের মধ্যে রবিবার প্রকশিত ৪০ জনের মধ্যে পজিটিভ ২৩ জন এবং আজ সোমবার ৮২ জনের মধ্যে পজিটিভ ৪৪ জন পাওয়া গেছে। ৩ জনের নমুনার ফল অপেক্ষমাণ রয়েছে।

নতুন আক্রান্তদের মধ্যে তাড়াইলে ১০ জন, অষ্টগ্রামে ২ জন, মিঠামইনে ১৬ জন, কটিয়াদীতে ৯ জন, ভৈরবে ২০ জন, হোসেনপুরে ১ জন, ইটনায় ৬ জন ও কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ৩ জন। এ নিয়ে জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৪১ জন।

খান সাহেব খেলোয়াড়ি জীবনে একটা ওয়াইড বলও করেননি

স্পোর্টস ডেস্ক : হালে ব্যাপক চর্চা হয় ক্রিকেটের। নিত্যনতুন কৌশল রপ্ত করেন ফাস্ট বোলাররা। অত্যাধুনিক প্রযুক্তি তাদের কাজটা অনেক সহজ করে দিয়েছে। তবু হরহামেশা ঝুড়ি ঝুড়ি ওয়াইড, নো-বল করে বসেন তারা। এতে প্রতিপক্ষ দলের স্কোর বড় হয়।
জাসপ্রিত বুমরাহ, মিচেল স্টার্ক, মোহাম্মদ আমিরদের প্রায়শই দেখা যায় লাইন-লেন্থ হারাতে। এ ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম ছিলেন পাকিস্তানের কিংবদন্তি সিমার ইমরান খান। দীর্ঘ ক্যারিয়ারে একটি ওয়াইড বলও করেননি তিনি। সেই বোলিং জাদুকরের নেতৃত্বেই পাকিস্তান একমাত্র বিশ্বকাপ জেতে। দুরন্ত বোলিং, ছন্দময় ব্যাটিং ও অনন্য অধিনায়কত্বে দেশটির ক্রিকেটেরই ভোল বদলে দেন তিনি।- যুগান্তর
১৯৮২ সালে পাক ব্রিগেডের নেতৃত্ব গ্রহণ করেন খান। দায়িত্ব নিয়েই তাদের চেহারা পাল্টে দেন তিনি। কয়েক বছরের মধ্যেই দলকে খ্যাতির শিখরে পৌঁছে দেন তখনকার অন্যতম বিশ্বসেরা এ পেস অলরাউন্ডার। ইমরানের হাত ধরেই ১৯৯২ ওয়ানডে বিশ্বকাপ জেতে পাকিস্তান। ক্রিকেটে এখন পর্যন্ত যা দেশটির সর্বোচ্চ অর্জন। তার সময়েই বিশ্বের তাবৎ দলকে হারানোর সক্ষমতা অর্জন করে তারা।
দলের প্রয়োজনে গুরুত্বপূর্ণ সময়ে উইকেট তুলে নিতে সিদ্ধহস্ত ছিলেন খান। পাশাপাশি ব্যাট হাতে বোলারদের ঘুম কেড়ে নিতেও পারদর্শী ছিলেন তিনি। জাতীয় দলের হয়ে ৮৮ টেস্ট এবং ১৭৫ আন্তর্জাতিক ওয়ানডে ম্যাচ খেলেন ইমরান। ক্রিকেটের অভিজাত সংস্করণে তিনি শিকার করেন ৩৬২ উইকেট। আর একদিনের ফরম্যাটে ১৮২ উইকেট ঝুলিতে ভরেন ডানহাতি পেসার। কিন্তু সবচেয়ে বিস্ময়কর বিষয় হচ্ছে­ খেলোয়াড়ি জীবনে কখনও একটা ওয়াইড বলও করেননি খান সাহেব। – ইন্ডিয়া টাইমস

অ্যাপের মাধ্যমে কৃষকের কাছ থেকে বোরো ধান কিনবে সরকার

ডেস্ক রিপাের্ট : সরাসরি প্রান্তিক কৃষকের কাছ থেকে বোরো ধান কেনার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। অ্যাপের মাধ্যমে পরীক্ষামূলকভাবে দেশের ২২টি উপজেলা থেকে এ ধান কেনা হবে।কৃষক প্রতি কেজি বোরো ধানের দাম পাবেন ২৬ টাকা।

এ বিষয়ে নির্দেশনা দিয়ে সোমবার খাদ্য অধিদফতরের মহাপরিচালকে চিঠি দিয়েছে খাদ্য মন্ত্রণালয়। যে ২২ জেলার প্রান্তিক কৃষকের কাছ থেকে ধান কেনা হবে চিঠিতে তাও নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে।

ওই জেলাগুলা হচ্ছে-ঢাকার সভার উপজেলা এবং গাজীপুর, নরসিংদী, মানিকগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ, রাজবাড়ী, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, জামালপুর, শেরপুর, ভোলা, নওগাঁ, বগুড়া, রংপুর, দিনাজপুর, ঝিনাইদহ, যশোর, হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, কুমিল্লা (সদর দক্ষিণ) এবং বরিশাল সদর।

গত আমন মৌসুমে দেশের ৭ বিভাগের ১৬ উপজেলায় পরীক্ষামূলকভাবে অ্যাপের মাধ্যমে কৃষকের কাছ থেকে ধান কেনে সরকার।

এরই ধারাবাহিকতায় বোরো মৌসুমে ৬৪ জেলার সদর উপজেলার কৃষকদের কাছ থেকে ধান এবং ১৬ উপজেলায় (যেসব উপজেলায় অ্যাপের মাধ্যমে আমন সংগ্রহ করা হয়েছিল) মিলারদের কাছ থেকে চাল কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল খাদ্য মন্ত্রণালয়।

কিন্তু বাধ সেধেছে মহামারী করোনাভাইরাস। এই ভাইরাস সংক্রমণ এড়াতে দেশের বিভিন্ন স্থানে লকডাউন থাকায় সেই অবস্থান থেকে সরে এসেছে খাদ্য মন্ত্রণালয়। এখন ২২টি উপজেলা থেকে অ্যাপের মাধ্যমে ধান সংগ্রহ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।‘ডিজিটাল খাদ্যশস্য সংগ্রহ ব্যবস্থাপনা ও কৃষকের অ্যাপ’-এর মাধ্যমে এই ধান সংগ্রহ করা হবে।

চলতি বোরো মৌসুমে সাড়ে ১১ লাখ মেট্রিক টন চাল এবং ৬ লাখ মেট্রিক টন ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে সরকার।

৩৬ টাকা কেজি দরে মিলারদের কাছ থেকে ১০ লাখ মেট্রিক টন সিদ্ধ চাল, ৩৫ টাকা কেজিতে দেড় লাখ মেট্রিক টন আতপ চাল এবং সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে ২৬ টাকা কেজিতে ৬ লাখ মেট্রিক টন বোরো ধান কেনা হবে।

কৃষকের অ্যাপের মাধ্যমে নিবন্ধন ও ধান সরবরাহের আবেদনের জন্য ২৬ এপ্রিল পর্যন্ত সময় বেধে দেয়া হয়েছিল। তবে করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে নিবন্ধনের সময় ৭ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

অ্যাপে যেভাবে ধান বিক্রি করবেন কৃষক

অ্যাপে ধান বিক্রি করতে একজন কৃষককে তার ফোনে ‘কৃষকের অ্যাপ’ডাউনলোড করে জাতীয় পরিচয়পত্র ও মোবাইল নম্বর দিয়ে নিবন্ধন করতে হবে।

কৃষকের স্মার্টফোন না থাকলে ইউনিয়ন তথ্যসেবাকেন্দ্রে গিয়ে তিনি এ সেবা নিতে পারবেন। ধানের নাম, জমির পরিমাণ, কী পরিমাণ ধান বিক্রি করতে চান- এসব তথ্য জানিয়ে ওই অ্যাপের মাধ্যমে সরকারের কাছে ধান বিক্রির আবেদন করবেন কৃষক।

এরপর নিবন্ধন, বরাদ্দের আদেশ ও দাম পরিশোধের সনদসহ তথ্য এবং ধান বিক্রির জন্য কবে কোন গুদামে যেতে হবে, সেসব তথ্য এসএমএসে কৃষককে জানিয়ে দেয়া হবে।

আবেদনকারী বেশি হলে লটারির মাধ্যমে কৃষক নির্বাচন করে ধান কেনা হবে।

করােনাভাইরাস – জেলায় ত্রাণ কার্যক্রম সমন্বয়ে দায়িত্ব পেলেন ৬৪ সচিব

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনাভাইরাস মোকাবেলা ও ত্রাণ কার্যক্রম সমন্বয়ের জন্য ৬৪ সচিবকে জেলা ভাগ করে দায়িত্ব বণ্টন করেছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়।

সোমবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে কর্মকর্তাদের মধ্যে দায়িত্ব ভাগ করে দেওয়া হয়।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, কভিড ১৯ প্রতিরোধ ও ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে জেলা পর্যায়ে চলমান ত্রাণ কার্যক্রম সুসমন্বয়ের জন্য সরকার ওই কর্মকর্তাদের জেলাওয়ারি দায়িত্ব প্রদান করেছে।

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে আরও উল্লেখ করা হয়, যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদনক্রমে জারিকৃত এ আদেশ অবিলম্বে কার্যকর হবে।

এর আগে সোমবার সকালে ঢাকা ও ময়মনসিংহ বিভাগের আটটি জেলার প্রতিনিধি ও কর্মকর্তাদের সাথে ভিডিও কনফারেন্সে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে সচিবালয়ে দৈনন্দিন কাজের চাপ কম হওয়ায় সচিব পর্যায়ের কর্মকর্তারা এখন থেকে জেলা পর্যায়ে ত্রাণ কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করবেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, “আমি প্রত্যেক জেলায় ত্রাণকার্যক্রম তদারকি ও সে বিষয়ে আমার কাছে একটি প্রতিবেদন জমা দেওয়ার জন্য একজন সচিবকে দায়িত্ব দিয়েছি, কারণ করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে সচিবালয়ে তাদের নিয়মিত কাজের চাপ কমে গেছে।”

আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা বলেন, “এছাড়াও, আমি ইতিমধ্যে আমার দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে সবোর্চ্চ পর্যায় থেকে ওয়ার্ড পর্যন্ত ত্রাণ কমিটি গঠনের নির্দেশ দিয়েছি। এই কমিটিগুলো স্থানীয় প্রশাসনকে কর্মহীনদের একটি সঠিক তালিকা তৈরি করতে সহায়তা করবে, যাদের সত্যিকার অর্থেই সরকার কর্তৃক সরবরাহ করা খাদ্য সহায়তা প্রয়োজন।”

কোয়ারান্টাইনে এবার ক্রিকেট ছেড়ে লুডো খেললেন কিং কোহলি ও আনুষ্কা শর্মা

স্পোর্টস ডেস্ক: মারণ ভাইরাসের ধাক্কায় গৃহবন্দি বিরুষ্কা। বন্ধ ক্রিকেট, বাতিল সিনেমার শুটিংও। গৃহবন্দি জীবন বেশ অন্যরকমভাবে উপভোগ করছেন বিরাট কোহলি এবং বলিউড অভিনেত্রী আনুষ্কা শর্মা।

ব্যস্ত শিডিউলের মধ্যেই জীবন কাটে, সেখানে লকডাউনের মধ্যে দু’জনে কিছুটা সময় একসঙ্গে কাটানোর সুযোগ পেয়ে গিয়েছেন। ক্রিক-বলি দম্পতি এবার কোয়ারান্টাইনে খেললেন মজার খেলা। সোশ্যাল মিডিয়ায় সৌজন্যে সেই ছবি পৌঁছেও যাচ্ছে ভক্তদের কাছে।

সবকিছু স্বাভাবিক থাকলে এই সময়ে আইপিএলের লড়াইয়ে ব্যস্ত থাকার কথা ছিল কিং কোহলির। কিন্তু কোনও উপায় নেই কোয়ারান্টাইনে তাই ইনডোর গেমস খেলেই সময় কাটাতে হচ্ছে ভারত অধিনায়ককে। এর আগে আনুষ্কা এবং তার বাবা-মায়ের সঙ্গে কার্ড গেমস খেলেছিলেন চিকু (কোহলির ডাক নাম)। এবার জনপ্রিয় ইনডোর গেমস লুডো খেললেন বিরুষ্কা। ইনস্টাগ্রামে সেই ছবি পোস্টও করেছেন অনুষ্কা।

এই পোস্টের মাধ্যমে সামাজিক বার্তাও দিয়েছেন আনুষ্কা। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার পাশাপাশি মারণ ভাইরাসের কবল থেকে বাঁচতে ঘরে থাকার কথাই বলেছেন তিনি। তিনি লিখেছেন, আমি হারিনি, আমি ঘরের মধ্যে রয়েছি এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলেছি।
মারণ ভাইরাসের মোকাবিলায় সাধারণ মানুষকে বার বার সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে সাবধান করে চলেছেন বিরাট কোহলি এবং আনুষ্কা শর্মা। বাইরে না বেরিয়ে ঘরের মধ্যে থাকার যেমন পরামর্শ দিয়েছেন তেমনই হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন ত্রাণে। -ইনস্টাগ্রাম থেকে

প্রধানমন্ত্রীর কাছে পুলিশ সুপারের অভিযােগ – পিপিই বানানোর কথা বলে অন্য পণ্য বানাচ্ছে গার্মেন্টস মালিকরা

ডেস্ক রিপাের্ট : গাজীপুরের বেশ কিছু গার্মেন্টে পিপিই বানানোর কথা বলে অন্য পণ্য বানাচ্ছে। শ্রমিকদের ডেকে এনে কাজ করালেও তাদেরকে বেতন-ভাতা দেয়া হচ্ছে না। মানছে না স্বাস্থ্যবিধি এমন অভিযোগ করেছেন গাজীপুরের পুলিশ সুপার বেগম শামসুন্নাহার।

সোমবার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে যোগ দিয়ে তিনি এ অভিযোগ করেন।

কনফারেন্সে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জের পর গাজীপুর ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় নতুন করে শ্রমিক আনা ঠিক হবে কি-না তা নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়। এ সময় প্রধানমন্ত্রী সার্বিক পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে শ্রমিকদের থাকা ও স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে সীমিত পরিসরে পোশাক কারখানা খুলে দেয়ার ব্যবস্থা করে দিতে নির্দেশনা দেন।
বিজিএমইএ’র সভাপতি রুবানা হকের বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষকে (বিআরটিএ) দেয়া একটি চিঠির পরিপ্রেক্ষিত তুলে ধরে আলোচনার সূত্রপাত হয়। বিজিএমইএ সভাপতি আগামী ২৬ এপ্রিল গাজীপুরে বেশ কিছু রফতানিমুখী শিল্পপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার লক্ষ্যে শ্রমিকদের আনার জন্য বাসের ব্যবস্থা করতে এ চিঠি দেন।

চীনের উহানের ল্যাবেই তৈরি করোনাভাইরাস, বিস্ফোরক দাবি নোবেলজয়ী বিজ্ঞানীর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : রোনাভাইরাস নিয়ে আরও বেকায়দায় পড়ল চীন। আমেরিকার অভিযোগের পর এবার একই অভিযোগ করলেন নোবেলজয়ী ফরাসি বিজ্ঞানী লুক মন্তাজিনিয়ের। তার দাবি, করোনাভাইরাস মানুষের তৈরি এবং উহানের গবেষণাগারেই তৈরি হয়েছে এই জীবাণু। এইডসের টিকা আবিষ্কার করতে গিয়ে ছড়িয়ে পড়েছে এই করোনাভাইরাস।

২০০৮ সালে এইচআইভি ভাইরাস আবিষ্কারের জন্য নোবেল পুরস্কার পেয়েছিলেন লুক মন্তাজিনিয়ের। ফলে তার অভিযোগ ফাঁকা বুলি বা ভিত্তিহীন জল্পনা নয় বলেই মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

এক ফরাসি সংবাদমাধ্যমে মন্তাজিনিয়ের দাবি করেন, করোনাভাইরাসের মধ্যে এইচআইভি’র পাশাপাশি ম্যালেরিয়ার জীবাণুও রয়েছে। যা অত্যন্ত সন্দেহজনক। কোভিড-১৯-এর যে সমস্ত বৈশিষ্ট্য দেখা গিয়েছে, তা প্রাকৃতিকভাবে সৃষ্টি হতে পারে না।
তিনি আরও জানান, উহান ন্যাশনাল বায়োসেফটি ল্যাবেরটরিতে প্রায় দু’দশক ধরে করোনাভাইরাস নিয়ে গবেষণা চলছে। সম্ভবত, সেখান থেকেই দুর্ঘটনাবশত এই ভাইরাসটি বাইরে ছড়িয়ে পড়েছে।

এদিকে, সমস্ত অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন ‘উহান ইনস্টিটিউট অব ভাইরোলজি’র ডিরেক্টর উয়ান ঝিমিং। তিনি সাফ বলে দিয়েছেন, “ইনস্টিটিউটে কী ধরনের গবেষণা হয়, ভাইরাস ও অন্যান্য নমুনা কীভাবে সংরক্ষণ করা হয়, তা আমরা জানি। সেজন্য যথেষ্ট কঠোর নিয়মও মেনে চলা হয়। এই ভাইরাসটি যে কোনওভাবেই আমাদের ল্যাব থেকে ছড়ায়নি, সে বিষয়ে আমরা নিশ্চিত।”

উল্লেখ্য, নানা মহলের দাবি, রহস‌্যময় এই ভাইরাস নিয়ে গবেষণা করতে গিয়ে তা ছড়িয়ে পড়েছে উহান প্রদেশের গোপন গবেষণাগার থেকেই। কোনও কোনও মহল থেকে আশঙ্কা করা হচ্ছে, নাশকতা বা অন্তর্ঘাত করেই চীনের কোনও বিজ্ঞানী বা গুপ্তচর এই ভাইরাস ছড়িয়েছেন।

ওয়াশিংটন পোস্ট তাদের একটি প্রতিবেদনে স্পষ্ট জানিয়েছিল, এই আরএনএ ভাইরাসকে চীন তৈরি করেছে মারণাস্ত্র হিসেবেই। প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের ছোবলে হাজার হাজার মানুষকে কষ্ট দিয়ে মেরে ফেলা সম্ভব। উহান ইনস্টিটিউট অব ভাইরোলজির বিএসএল-৪ ল্যাবরেটরিতে অতি গোপনে এই জৈব রাসায়নিক মারণাস্ত্র তৈরির কাজ চলছিল অনেকদিন ধরেই। সূত্র: গালফ টুডে