রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আবেদন বঙ্গবন্ধুর খুনি মাজেদের

ডেস্ক রিপাের্ট : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা মামলায় ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি ক্যাপ্টেন (বরখাস্ত) আবদুল মাজেদ রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আবেদন করেছেন। বুধবার (৮ এপ্রিল) কারা কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে রাষ্ট্রপতির কাছে আবেদন করেন মাজেদ।

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার মাহবুবুল ইসলাম বলেন, মৃত্যুর পরোয়ানা পত্রটি কারাগারে এসে পৌঁছায় বিকেলে। তখনই সেটা মাজেদকে পড়ে শোনানো হয়। মাজেদ তখন রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আবেদন করতে আগ্রহ প্রকাশ করেন। পরে আমাদের মাধ্যমেই প্রাণভিক্ষার আবেদন করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা বিভাগের সচিব শহীদুজ্জামান বলেন, ‘আমরা আবেদন পেয়েছি। সেটা রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে।’

বুধবার বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের অন্যতম আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল ঢাকার জেলা ও দায়রা জজ মো. হেলাল চৌধুরীর আদালতে আব্দুল মাজেদের মৃত্যু পরোয়ানা চেয়ে আবেদন করেছিলেন। শুনানি শেষে আদালত মাজেদের ‘মৃত্যুদণ্ড পরোয়ানা’ জারি করেন। জেলা ও দায়রা জজ মো. হেলাল চৌধুরী ছুটিতে থাকায় বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার মৃত্যু পরোয়ানা শুনানির জন্য হাইকোর্ট তার ৮ এপ্রিলের ছুটি বাতিল করেন।

প্রথমে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় আব্দুল মাজেদকে গ্রেপ্তার দেখানোর আবেদন করা হয়। আবেদনটি মঞ্জুর হওয়ার তাকে আদালতে হাজির করার জন্য প্রডাকশন ওয়ারেন্ট জারির আবেদন করা হয়। প্রডাকশন ওয়ারেন্ট জারির আবেদন মঞ্জুর হলে আব্দুল মাজেদকে ঢাকা জেলা ও দায়রা জজ আদালতে হাজির করা হয়।

ঢাকা মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর আবু আব্দুল্লাহ বলেন, ‘বুধবার ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে তাকে আদালতে হাজির করা হয়। এরপর বিচারক তার মৃত্যুদণ্ডের পরোয়ানা জারি করেন। এ সময় বিচারক তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ ও মামলার রায় পড়ে শোনান।’

প্রসঙ্গত, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডাদেশপ্রাপ্ত পলাতক আসামি ক্যাপ্টেন (বরখাস্ত) আবদুল মাজেদ গত ২৫ বছর ধরে ভারতে পালিয়ে ছিলেন। করোনাভাইরাস আতঙ্কে সেখান থেকে গত ২৬ মার্চ ময়মনসিংহের সীমান্ত এলাকা দিয়ে অবৈধভাবে বাংলাদেশে প্রবেশ করেন। দেশে ফেরার গোপন তথ্যের ভিত্তিতে সোমবার (৬ এপ্রিল) মধ্যরাতে রাজধানীর মিরপুর এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি)। এরপর তাকে ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত।

রাজধানীর শেরেবাংলা নগর লকডাউন

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের ক্রমবর্ধমান সংক্রমণের হার নিয়ন্ত্রণে রাজধানীর শেরেবাংলা নগর এলাকায় মোতাহার বস্তি লকডাউন করা হয়েছে।

বুধবার (৮ এপ্রিল) বিকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শেরেবাংলা নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জানে আলম মুন্সী।

ওসি বলেন, বস্তিতে একজন করোনা রোগী পাওয়া গেছে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) নির্দেশে বস্তিটি লকডাউন করা হয়েছে। অর্থাৎ ওই বস্তি থেকে কেউ বের হতে পারবেন না এবং বাইরে থেকেও কেউ ঢুকতে পারবেন না।

প্রসঙ্গত, দেশে করোনাভাইরাসে এখন পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ২০ জনের এবং শনাক্ত হয়েছেন ২১৮ জন।

কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্প লকডাউন

ডেস্ক রিপাের্ট : দেশে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব মোকাবিলায় কক্সবাজারের ৩৪টি রোহিঙ্গা ক্যাম্প ‘লকডাউন’ করা হয়েছে।

বুধবার (৮ এপ্রিল) সন্ধ্যায় শরনার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার (আরআরআরসি) মাহাবুবুল আলম তালুকদার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘বলতে গেলে আগে থেকে রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলো অঘোষিত লকডাউন ছিল, শুধু ঘোষণা হয়নি। তাছাড়া ১১ মার্চ থেকে সেখানে এনজিও সংস্থাদের কাজ বন্ধ করা হয়েছিল। শুধু অতি জরুরি কার্যক্রম চালু ছিল।বুধবার থেকে কক্সবাজার জেলা প্রশাসক পুরো জেলা লকডাউন ঘোষণা করেছেন। ফলে রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলো লকডাউন এর আওতায় পড়েছে। ক্যাম্পে যেন বাইরের কনো মানুষ ডুকতে না পারে, সে বিষয়ে কঠোর নজরদারি রয়েছে। ক্যাম্পে শুধু এমার্জেন্সি কার্যক্রম চালু থাকবে।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের আগস্টে মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গাদের উপর সামরিক অভিযানের নামে নির্মম সহিংসতা চালায় সেদেশের সেনাবাহিনী।২০১৭ সালে ২৫ আগস্টে মিয়ানমার থেকে প্রাণে বাচঁতে পালিয়ে এসে উখিয়া ও টেকনাফে ৭ লাখ রোহিঙ্গা আশ্রয় নেন। এর আগে এখানে ৪ লাখ রোহিঙ্গার অবস্থান ছিল। সব মিলিয়ে এখন কক্সবাজারে ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গার বসবাস

স্ত্রীর মাথায় হাতুড়ি দিয়ে, ছেলেকে ফাঁসি আর মেয়েকে গলাটিপে হত্যা করে ভিক্ষুক সাজেন রাকিব উদ্দিন

ডেস্ক রিপাের্ট : রাজধানীর দক্ষিনখানে স্ত্রী’সহ দুই সন্তানকে হত্যার অভিযোগে গ্রেফতার বিটিসিএলের রাকিব উদ্দিন আহম্মেদ ওরফে গোয়েন্দা পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার করেছেন। হত্যার পর তিনি ভিখারির ছদ্মবেশ নিয়ে এলাকা থেকে পালিয়ে যান বলে জানিয়েছেন।

জিজ্ঞাসবাদে রকিব জানান, অনলাইনে জুয়া খেলার নেশায় তিনি ঋণে জর্জরিত হয়ে পড়েন। অফিসের কলিগসহ অন্যান্য ব্যক্তির কাছ থেকে প্রায় এক কোটি ১৫ লক্ষ টাকা সুদের উপর বিভিন্ন সময়ে ধার নিয়েছিলেন বিটিসিএলের এই কর্মকতা। জুয়ার পেছনে সব টাকা নষ্ট করেন। পাওনাদাররা পাওনা টাকা আদায়ের চাপে মানসিক হতাশা থেকে মুক্তি খোঁজার জন্য স্ত্রীসহ দুই সন্তানকে হত্যা করেন এবং তিনি নিজেও আত্মহত্যা করতে রেললাইনে গিয়ে শুয়ে ছিলেন। কিন্তু ট্রেন আসতে দেরি করায় তার আর আত্মহত্যা করা সম্ভব হয়নি বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন লিমিটেডের এই কর্মকর্তা।

সম্পর্কিত খবর
আসামীর খুনের স্বীকারোক্তির বিষয়টি নিশ্চিত করে গোয়েন্দা পুলিশের উপ-কমিশনার (উত্তর) মো. মশিউর রহমান গণমাধ্যমকে এসব তথ্য জানান। তিনি আরও জানান, মঙ্গলবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বোনের বাসায় যাওয়ার পথে রাকিবকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি রাতে রাজধানীর দক্ষিণখানের প্রেমবাগানে একটি ভবনের চতুর্থ তলার ফ্ল্যাট থেকে গৃহবধূ মুন্নী রহমান (৩৭) এবং তার দুই শিশু সন্তান ফারহান উদ্দিন বিপ্লব (১২) ও লাইবার (৩) মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহত মুন্নী রহমানের বড় ভাই মুন্না রহমান দক্ষিণখান থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। মামলায় একমাত্র আসামি করা হয় নিখোঁজ রাকিব উদ্দিন আহম্মেদকে। তার বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সদর থানার ভাতশালী গ্রামে। পরে দক্ষিণখান থানা পুলিশের কাছ থেকে হত্যা মামলার তদন্তভার ডিএমপির ডিবিতে হস্তান্তর করা হয়।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি-উত্তর) তদন্ত কর্মকর্তারা জানান, খুনের আগের রাতে হিন্দি কোনো চ্যানেলে ঋণের কারণে জর্জরিত হয়ে কীভাবে স্বামী তার স্ত্রী ও সন্তানদের খুন করে সেই দৃশ্য দেখেছিলেন। পরদিন ১২ ফেব্রুয়ারি সকালে ঘুম থেকে উঠে স্ত্রী ও সন্তানদের খুন করার কথা ভাবতে থাকেন। যেমন ভাবনা তেমন কাজ। হিন্দি চ্যানেলের দৃশ্য দেখেই হাতে নেন হাতুড়ি। তারপর তার ঘুমন্ত স্ত্রী মুন্নি রহমানের মাথায় একের পর এক আঘাত করতে থাকেন।

তদন্ত কর্মকর্তাদের কাছে রকিব বলেন, স্ত্রী নিস্তেজ হওয়ার পর পাশের রুমে বড় ছেলে ফারহানের কাছে যান। মশারির ফিতা দিয়ে তার গলায় ফাঁস লাগানোর চেষ্টা করেন। এ সময় ছেলে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করে। আর বলতে থাকে, বাবা কেন তুমি আমাকে ফাঁসি দিচ্ছ কেন। এরপর আর কোনো কথা বলার সুযোগ না দিয়ে গলায় ফিতা পেঁচিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করেন রাকিব। ছেলের লাশ সেই ঘরে ফেলে রেখে নিথর মায়ের পাশে ঘুমন্ত শিশুকন্যা লাইবাকে ওগলা টিপে হত্যা করেন।

হত্যার পর রাকিব তার বাসায় বসে ডায়েরিতে নিজের হাতে লেখেন, ‘আজ থেকে তোমাদের মুক্তি দিয়ে গেলাম। আমাকে পাওয়া যাবে রেললাইনে। এরপর বাইরে থেকে বাসায় তালা লাগিয়ে ভিক্ষুকের ছদ্মবেশে পালিয়ে যান।

তদন্ত কর্মকর্তাদের রাকিব জানান, স্ত্রী-সন্তানদের মেরে ফেলার পর ভিক্ষুকের মতো ছেড়া জামাকাপড় পড়ে বাসা থেকে বের হয়ে রেললাইনে চলে যায়। ট্রেনের নিচে পড়ে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করে । কিন্তু ট্রেন না আসায় সে আত্মহত্যা করতে পারেনি। আত্মহত্যা করতে না পেরে ঢাকা, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বিভিন্ন জায়গায় ভিক্ষুকের ছদ্মবেশে ঘুরতে থাকেন।

নেতাকর্মীদের মুক্তি চেয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে বিএনপি নেতা মির্জা ফখরুলের চিঠি

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজনৈতিক দলের যেসব নেতাকর্মী রাজনৈতিক মামলায় সাজাপ্রাপ্ত ও বিচারাধীন মামলায় কারাগারে আটক আছেন, তাদের মুক্তি দিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালকে চিঠি দিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বুধবার (৮ এপ্রিল) দুপুরে সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বরাবর এ চিঠি পাঠান তিনি। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং সদস্য শায়রুল কবির খান বলেন, সব রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের ভয়ানক করোনাভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে অবিলম্বে মুক্তির দাবি জানিয়ে চিঠিটি দিয়েছেন মহাসচিব। দুপুর ২টায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বরাবর সচিবালয়ে মহাসচিবের স্বাক্ষরে চিঠিটি পাঠানো হয়।

তবে কীভাবে চিঠি পাঠানো হয়েছে বা দলের পক্ষ থেকে কে চিঠি নিয়ে গেছেন সে বিষয়ে জানাতে অপারগতা প্রকাশ করেন তিনি।

তবে নয়াপল্টনস্থ বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের স্টাফরা জানান, কার্যালয়ের একজন প্রতিনিধিকে দিয়ে এ চিঠি পাঠানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার দলের পক্ষ থেকে গ্রেপ্তার নেতাকর্মীদের তালিকা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে বলেও বিএনপি সূত্র জানায়।

করোনা নিয়ে ভীতিকর সংবাদের চর্চাকারীদের ফেসবুকের বন্ধুতালিকা থেকে ছাঁটাই করেছি, বললেন সাকিব

স্পাের্টস ডেস্ক : করোনাভাইরাসের কারণে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা থেকে দূরে থাকতে হচ্ছে প্রায় সবাইকেই। নির্মাতা মোস্তফা সারোয়ার ফারুকীর নাটক-সিনেমার কাজ বন্ধ। অভিনয় ছেড়ে ঘরে সময় কাটছে নুসরাত ইমরোজ তিশার। সঙ্গীতশিল্পী শারমিন সুলতানা সুমি ও লাবিক কামাল গৌরবেরও একই নিয়তি। ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান যুক্তরাষ্ট্রে পরিবারের সাথে।

নিজ নিজ ক্ষেত্রের এই পাঁচ তারকা যোগ দিয়েছিলেন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বাংলাদেশি পর্বতারোহী ওয়াজফিয়া নাজরিনের সাথে, সরাসরি আলাপচারিতায়। তারকাদের আলাপচারিতায় উঠে আসে অনেক প্রসঙ্গই। তাদের প্রাণবন্ত আড্ডা বেশ সাড়া ফেলেছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।
করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ওয়াজফিয়া বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছে। নিজের সেরে ওঠার প্রক্রিয়া সম্পর্কে আলাপকালে তিনি জানান, করোনাভাইরাস প্রতিরোধে বড় উপায় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি। আর এজন্য আতঙ্কগ্রস্ত না হওয়া বা ভয় না পাওয়াও জরুরি। তবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে যারা ভীতিকর সংবাদ সাতপাঁচ না ভেবেই শেয়ার করেন, তাদের সমালোচনা করেন ওয়াজফিয়া।

এ সময় সাকিব বলেন, মিডিয়াকে দোষ দিয়ে লাভ নেই, কারণ মিডিয়ার কাজই এটা দেখানো। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সম্ভবত এমন কিছু বললো, দিনে এক বা দুইবারের বেশি খবর না দেখতে, বিশ্বাসযোগ্য সংবাদই যেন শুধু দেখা হয় আর অন্যান্য জিনিস নিয়ে ব্যস্ত থাকতে।

এ সময় সাকিব জানান, ভীতিকর সংবাদের চর্চা যারা করেন তাদের তিনি ফেসবুকের বন্ধুতালিকা থেকে ছাঁটাই করে ফেলেন। সাকিব জানান, যেকোনো অনলাইন পোর্টালের খবর পেলেই শুরু হয়ে যায় আমাদের শেয়ার করা। যারা আতঙ্ক সৃষ্টির মত খবর ছড়ান, তাদেরকে বন্ধু তালিকায় না রাখলেই হয়। আমি নিজেও এটা করি। সৌভাগ্যবশত আমার ফেসবুকে এখন এমন নেই, যারাই ছিলো ছাঁটাই হয়ে গেছে। আমি ফেসবুকে থেকে বুঝি না দেশে কী পরিস্থিতি চলছে, বুঝতে হলে খবরই দেখতে হয়। – ক্রিকটাইম

সপরিবারে করোনায় আক্রান্ত বলিউড অভিনেতা পূরব কোহলি

বিনোদন ডেস্ক : বলিউডে পর পর করোনা সংক্রমণের ঘটনা ঘটে চলেছে। এবার করোনা আক্রান্ত হয়েছেন অভিনেতা পূরব কোহলি সহ তার গোটা পরিবার। মঙ্গলবার ইনস্টাগ্রামে এমনই চাঞ্চল্যকর পোস্ট করেছেন ‘মাই ব্রাদার নিখিল’ খ্যাত এই অভিনেতা। জানা গিয়েছে, পূরব, তার স্ত্রী লুসি পেটন এবং তাদের দুই সন্তান গত দু সপ্তাহ ধরে স্বেচ্ছা কোয়ারেন্টিানে রয়েছেন। পূরব ইনস্টাগ্রামে লিখেছেন, আমাদের ফ্লু হয়েছে এবং আমাদের লক্ষণ দেখে পারিবারিক চিকিৎসক জানিয়েছেন আমরা কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত।

এটা সাধারণ ফ্লুয়ের মতোই, শুধু কাশির ভাবটা বেশি এবং শ্বাসকষ্ট হচ্ছে। তিনি জানিয়েছেন, তার মেয়ে ইনায়ার শরীরে প্রথম সংক্রমণ দেখা যায়, এরপর তার স্ত্রী। পূরব জানিয়েছেন, ইনায়াকে দিয়ে শুরু, খুব হালকা কাশি এবং জ্বর দুদিনের জন্য। এরপর লুসিও অসুস্থ হয়েছে, বুকে সর্দি-কাশি।

লক্ষণগুলো নিয়ে সবাই কথা বলছিল। এরপর একদিন আমি জ্বরে পড়ি। গোটা দিন মাত্রারিক্ত জ্বর, তারপর কমে গেল। কিন্তু কাশির জেরে তিনদিন কষ্ট পেলাম। কোহলি জানিয়েছেন, তার এবং স্ত্রী ও কন্যার জ্বরের মাত্রা ১০০-১০১ ডিগ্রীর আশেপাশে থাকলেও ছেলে ওসিয়ানের তাপমাত্রা তিনদিন ১০৪ ডিগ্রী সেলসিয়াসের নীচে নামেনি। সঙ্গে নাক দিয়ে অবিরাম সর্দি ঝড়েছে এবং হালকা কাশি।

পূরবের কথায়, দুর্ভাগ্যবশত লন্ডনে সবার সঙ্গে এটা ঘটছে এবং এখানেও আমাদের পরিচিত অনেকের সঙ্গেই এটা ঘটেছে। পূরব শেষে লিখেছেন, গত সপ্তাহের আগের বুধবার থেকে আমরা কোয়ারেন্টিানে রয়েছি। দয়া করে সুস্থ থাকুন। আশা করি কারো সঙ্গে যেন এই ঘটনা না ঘটে। তবে যদি হয়, তাহলে এটা ভাবুন যে আপনার শরীরের ভিতর সেই ক্ষমতা আছে যা করোনার সঙ্গে যুদ্ধ করতে পারবে। চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। কারণ প্রত্যেকের শরীরে ভিন্ন ভিন্ন সমস্যা দেখা যাচ্ছে। দয়া করে বাড়িতে থাকুন এবং শরীরকে বিশ্রাম দিন।

ভক্তদের সতর্কবার্তা সালমানের

বিনোদন ডেস্ক : ১৯৭৫-এর বলিউড ছবি ‘শোলে’-র সংলাপ সামান্য বদলে নিয়েছেন নিজের মতো করে। তারপর সেই সংলাপ পৌঁছে দিয়েছেন অনুরাগীদের কাছে। রমেশ সিপ্পির ‘শোলে’-র বিখ্যাত সংলাপ ছিল, ‘যো ডর গ্যয়া সমঝো ও মর গ্যয়া?’ তাকেই নিজের মতো করে বলেছেন সালমান খান। তিনি বললেন, এই সংলাপ এই দুর্দিনের জন্য নয়। আমরা ভয় পেয়েছি। তাই বেঁচে গেছি! লকডাউনে তিন সপ্তাহ ধরে পানভেলে নিজের ফার্ম হাউজে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে রয়েছেন বলিউডের ভাইজান। তার সঙ্গে খামার বাড়িতে আছেন মা সালমা খান, বোন অর্পিতা খান, আয়ুশ শর্মা এবং ভাই সোহেল খানের ছেলে নির্বাণ। সালমানের বাবা সেলিম খান একা রয়েছেন মুম্বইয়ের বাড়িতে।

টানা তিন সপ্তাহ বাবাকে দেখেননি সালমান। বয়স্ক বাবা কেমন আছেন? একা একা কী করছেন? এই ভেবে ভীষণ চিন্তিত সাল্লু। একই সঙ্গে মনখারাপও খুব। সেকথাও তিনি ভিডিও ক্লিপিংসে জানিয়েছেন অনুরাগীদের। ভাইপোর সঙ্গে কথোপকথনে উঠে এসেছে পুরো বিষয়টি। ভিডিওতে সালমান আরো বলেছেন, এখানে কয়েকটা দিন থাকতে এসেছিলেন তারা। করোনা পরিস্থিতি দেখে আপাতত এখানেই থাকছেন। তিন সপ্তাহ বাবাকে না দেখে থাকা তার পক্ষে মারাত্মক চাপের। সারাক্ষণ দুশ্চিন্তায় ভুগছেন বাবাকে নিয়ে। কারণ, করোনায় বেশি সাবধানে থাকতে বলা হয়েছে বয়স্কদের। সেখানে সালমানের বাবা বিখ্যাত চিত্রনাট্যকার সেলিম খানের বয়স ৮৫। সালমান তার ভক্তদের সতর্কবার্তা দিয়ে ভিডিওতে বলেন, এখন ভয় পাওয়ার সময়। ভয় পেয়ে বাড়িতে থাকার সময়। জমায়েতে যোগ না দেওয়ার সময়। নিজের মতো করে কাটানোর সময়। সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার সময়।

এই সময় বীরপুরুষের মতো কেউ সমস্ত নির্দেশ না মানলে ভুগতে হবে তাকে। তার সঙ্গে তার পরিবার, প্রতিবেশি, অঞ্চলের মানুষদের। তাই এখন ভয় পাওয়াই ভালো। যিনি বা যারা ভয় পাবেন, তারাই করোনামুক্ত ভারতের আকাশের নতুন সূর্য দেখতে পাবেন। বোন ও ভাতিজার জন্মদিন এ বছর ফার্ম হাউজেই পালন করেছেন সালমান। লকডাউনে নিজেদের বিপদমুক্ত রাখতেই এই পদক্ষেপ তার। এদিকে ফার্ম হাউজে থেকেই নিজের ফ্যান ক্লাব বিয়িং হিউম্যানের মাধ্যমে বলিউড ইন্ডাস্ট্রিতে দৈনিক মজুরিতে কাজ করা ২৫ হাজার দুঃস্থ টেকনিশিয়ানের পরিবারের মুখে অন্ন সংস্থানের ব্যবস্থা করেছেন সালমান খান।

বৃহস্পতিবার শবে বরাত, কবরস্থান ও মাজারে না যাওয়ার অনুরোধ

নিজস্ব প্রতিবেদক : পবিত্র শবে বরাতের রাতে মুসল্লিদের মাজার ও কবরস্থানে না যাওয়ার অনুরোধ জানিয়ে বুধবার বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন (ইফা)। সেইসঙ্গে কবরস্থান ও মাজারের গেইট বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে।

শবে বরাতের এই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, যথাযােগ্য ধর্মীয় মর্যাদায় বৃহস্পতিবার (১৪ শাবান, ৯ই এপ্রিল) দিবাগত রাতে সারাদেশে পবিত্র শবে বরাত উদযাপিত হবে। শাবান মাসের ১৪ তারিখে দিবাগত রাতটিকে মুসলমানরা সৌভাগ্যের রাত হিসেবে পালন করেন। অনেকের মতে, মহিমান্বিত এ রাতে মহান আল্লাহ তার বান্দাদের ভাগ্য নির্ধারণ করেন। মুসলমানরা এ রাতে মহান আল্লাহর রহমত ও নৈকট্য লাভের আশায় নফল নামাজ, কোরআন তিলাওয়াত, জিকিরসহ বিভিন্ন ইবাদত বন্দেগির মাধ্যমে অতিবাহিত করেন।

বিশ্বে করােনা ভাইরাস পরিস্থিতি ক্রমশ ভয়ঙ্কর আকার ধারণ করছে। বাংলাদেশেও এর প্রভাব দৃশ্যমান হচ্ছে। বিরাজমান এ পরিস্থিতিতে শবে বরাতের রাতে নিজ নিজ বাসস্থানে অবস্থান করে ইবাদত বন্দেগি করতে বলা হয়েছে।

এ সময় ব্যক্তিগত দোয়া ও প্রার্থনা ছাড়াও করােনাভাইরাস মহামারির আক্রমণ থেকে আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি, মুসলিম উম্মাহ ও বিশ্ববাসীকে নিরাপদ রাখার বিষয়ে আল্লাহর দরবারে বিশেষ দোয়ার জন্য দেশের সব ধর্মপ্রাণ মুসলমানের প্রতি আহ্বান জানানাে যাচ্ছে।

দেশের আলেম-ওলামা, পীর-মাশায়েখ, খতিব, ঈমাম, মুয়াজ্জিন, মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ও শিক্ষকসহ সব ধর্মপ্রাণ মুসলমানকে এই দোয়া ও প্রার্থনার জন্য সবিনয়ে অনুরােধ জানিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পবিত্র শবে বরাতে জিয়ারতের জন্য কবরস্থান ও মাজারে অনেক লােকের সমাগম হয়। এছাড়া কবরস্থান ও মাজারের ভেতরে-বাইরে অনেক ভিক্ষুক, অসহায়, অসচ্ছল, প্রতিবন্ধী ও রােগাক্রান্ত ব্যক্তি সাহায্যের জন্য সমবেত হয়। এ ধরনের জনসমাগমের কারণে করােনাভাইরাস ব্যাপক হারে সংক্রমিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এ অবস্থায় করােনার সংক্রমণ রােধকল্পে শবে বরাতে কবর জিয়ারতের উদ্দেশ্যে কবরস্থানে না গিয়ে নিজ নিজ বাসস্থানে থেকে মৃত আত্মীয়-স্বজনের রুহের মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করার জন্য ইসলামিক ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে বিশেষভাবে আহ্বান জানানাে যাচ্ছে।

সেই সঙ্গে কবরস্থান ও মাজারের গেট বন্ধ রাখাসহ কবরস্থানের ভেতর ও বাইরে কোনাে ধরনের জনসমাগম না করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে সংশ্লিষ্ট দায়িত্বপ্রাপ্তদের অনুরােধ জানিয়েছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, করােনা ভাইরাস সংক্রমণ নিয়ে বিভিন্ন গুজব ছড়ানাের অভিযােগ পাওয়া যাচ্ছে। এ বিষয়ে গুজব ছড়ানাে ও গুজবে বিশ্বাস করা থেকে বিরত থাকার জন্যও সবাইকে বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো।

স্পন্সর নিয়ে চিন্তিত বিসিবি, এটা মোটেও সত্যি নয় এসব নিয়ে ভাবছে না বোর্ড, বললেন দুর্জয়

স্পোর্টস ডেস্ক : চলমান পরিস্থিতিতে স্পন্সর নিয়ে চিন্তিত বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। গত মঙ্গলবার একাধিক গণমাধ্যমে এ খবর প্রকাশিত হয়। তবে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে যেখানে গোটা বিশ্বজুড়ে সমস্ত খেলাধুলা স্থগিত রাখা হয়েছে, সেখানে এমুহূর্তে স্পন্সর নিয়ে একেবারেই ভাবছে না বিসিবি। বললেন, বোর্ড পরিচালক নাঈমুর রহমান দুর্জয়।

প্রতিটি ক্রিকেট বোর্ডেরই রাজস্বের বড় একটি অংশ আসে স্পন্সরদের কাছ থেকে। ব্যতিক্রম নয় টাইগার ক্রিকেটও। বাংলাদেশ ক্রিকেটের স্পন্সরশিপের দৌড়ে টেলিকম প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে রীতিমত প্রতিযোগিতা হতো। সর্বশেষ চুক্তিতে টেলিকম প্রতিষ্ঠানগুলোকে পেছনে ফেলে স্পন্সর হয় ইউনিলিভার বাংলাদেশ।

গত জানুয়ারিতে ইউনিলিভারের সাথে স্পন্সরের মেয়াদ শেষ হয় বিসিবির। এরপর নতুন স্পন্সরের আহ্বান করলেও যথাযথ সাড়া পায়নি বোর্ড। যে কারণে পাকিস্তানের বিপক্ষে রাওয়ালপিন্ডি টেস্টে স্পন্সরের ‘লোগো’ ছাড়াই মাঠে নামেন মুমিনুল হকরা।

এরপর ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সীমিত ওভারের সিরিজ ও নারী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সালমা খাতুনদের স্পন্সর হিসেবে দায়িত্ব পায় বেক্সিমকো গ্রুপের প্রতিষ্ঠান আকাশ ডিটিএইচ। তবে তা ছিল অন্তর্র্বতীকালীন।
ফলে নতুন স্পন্সরের খোঁজে নেমেছে বিসিবি। যেখানে দুই বছরের জন্য স্পন্সরশিপ আহ্বান করেছে বোর্ড। টাকার অংক ধরা হয়েছে ৫০ কোটির মতো। সবকিছু স্বাভাবিক থাকা অবস্থায়ই যখন পূর্ণ মেয়াদের স্পন্সর খুঁজে পাওয়া যায়নি, তখন করোনাভাইরাসে সৃষ্ট দুর্যোগ নতুন দুশ্চিন্তায় ফেলেছে বিসিবিকে?

এমনটা অবশ্য মানতে নারাজ বিসিবি পরিচালক নাঈমুর রহমান দুর্জয়। সাবেক এই অধিনায়ক বলেন, আপাতত স্পন্সর নিয়ে একেবারেই চিন্তিত নয় বোর্ড। কোভিড-১৯ এর আতঙ্ক কাটিয়ে মাঠে ক্রিকেট ফেরার পর এনিয়ে চিন্তাভাবনা করবে বিসবি। দুর্জয় জানান, ‘স্পন্সর কেউ না কেউ আসবেই। আগে খেলাটা মাঠে গড়াক তারপর সবই ঠিক হয়ে যাবে। – ক্রিকটাইম