জাভেদ মিঁয়াদাদ বললেন, ম্যাচ ফিক্সিংয়ের অপরাধে আমির ও আসিফদের ফাঁসিতে ঝোলান উচিত

স্পোর্টস ডেস্ক : পাকিস্তানের কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান জাভেদ মিঁয়াদাদ বলেছেন, সালমান, আসিফ ও আমিরদের মতো ম্যাচ পাতানো ক্রিকেটারদের এত অল্প সাজা যথেষ্ট নয়। তাদের ফাঁসিতে ঝোলান উচিত।

ফিক্সিংয়ে শাস্তি ভোগ শেষে তিন পাক ক্রিকেটারের খেলায় ফেরা প্রসঙ্গে সম্প্রতি ইউটিউবে এক ভিডিওবার্তায় এমন মন্তব্য করেন সাবেক এই পাক অধিনায়ক।

জাভেদ মিঁয়াদাদ বলেন, যেসব খেলোয়াড় ফিক্সিংয়ে জড়িত হয়, তাদেরকে কঠোর থেকে কঠোরতম শাস্তি দেয়া উচিত। আমি তো বলি, ফিক্সারদের ফাঁসিতে ঝোলান উচিত। কারণ খেলায় ফিক্সিং করা আর কাউকে হত্যা করা সমান অপরাধ। অতএব হত্যাকারীর ফাঁসি হলে ম্যাচ ফিক্সারদের হবে না কেন? শাস্তিটা সমান হোক।

তিনি আরও বলেন, ফিক্সিংয়ের বিরুদ্ধে এমন আইন করা জরুরি যে, যাতে কোনো খেলোয়াড় লোভে পড়ে এমন পথে পা না বাড়ায়।

এ সময় ফিক্সিং করলে ইসলাম ধর্মের অনুশাসন লঙ্ঘন হয় বলে সতর্ক করেন মিঁয়াদাদ। তিনি বলেন, ‘ম্যাচ পাতাতে জুয়াড়িদের সঙ্গে হাত মেলানো কখনোই ইসলাম সমর্থন করে না। এটি আমাদের ইসলাম ধর্মের শিক্ষারও অপমান।

এরপর ফিক্সারদের বিষয়ে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের শাস্তিবিধান নিয়ে সমালোচনা করেন জাভেদ। তিনি বলেন, আসিফ-আমিরদের আবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলার সুযোগ দিয়ে ভালো করেনি পিসিবি। কারণ তারা শুধু ক্রিকেটের সঙ্গেই প্রতারণা করেনি, নিজের পরিবারকেও অপমানিত করেছে। ফিক্সারদের মাফ করে দিয়ে পিসিবি ভালো করছে না।

উল্লেখ্য, জুয়াড়িদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে পাতানো ম্যাচ খেলার ইতিহাস পাকিস্তান ক্রিকেটে অনেক রয়েছে। ম্যাচ ফিক্সিং বা স্পট ফিক্সিং করে ক্রিকেট থেকে ছিটকে গেছেন দেশটির বাঘা বাঘা ক্রিকেটার। এসব ফিক্সারদের তালিকায় রয়েছেন সাবেক পাক ওপেনাপর সালমান বাট, দুই পেসার মোহাম্মদ আসিফ ও মোহাম্মদ আমির।
২০১০ সালে একই ম্যাচে সালমান বাট, মোহাম্মদ আসিফ ও মোহাম্মদ আমির- একসঙ্গে স্পট ফিক্সিং করেন। সেই ফিক্সিংয়ে সাজা ভোগ করে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরেছেন মোহাম্মদ আমির। ১০ বছর সাজা ভোগ শেষে আসিফ ও বাটও রয়েছেন ফেরার অপেক্ষায়।- দ্য ডন

যুক্তরাষ্ট্রে হোমকোয়ারেন্টিন থেকে মুক্ত সাকিব আল হাসান

স্পোর্টস ডেস্ক : :হোমকোয়ারেন্টিন থেকে মুক্তি পেলেন সাকিব আল হাসান। করোনাভাইরাসের মধ্যেই যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমিয়েছিলেন বাংলাদেশ দলের সাবেক এ অধিনায়ক। সেখানে গিয়ে নিজেকে স্বেচ্ছায় হোমকোয়ারেন্টিনে রাখেন। ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন শেষে শনিবার পরিবারের সঙ্গে একত্র হয়েছেন বিশ্বসেরা এ অলরাউন্ডার।

গত ২১ মার্চ যুক্তরাষ্ট্রে পৌঁছানোর পর মেয়ে আলাইনা হাসান অব্রি ও স্ত্রীর নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে উইসকনসিনের একটি হোটেলে সেচ্ছায় নিজেকে বন্দি করে রাখেন সাকিব। ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন পিরিয়ড শেষ হওয়ার পর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন সাকিব।
আগামী কিছুদিন যুক্তরাষ্ট্রেই থাকবেন সাকিব। সেখানে থেকেই নিজের গড়া ‘দ্য সাকিব আল হাসান ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে করোনাভাইরাসে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সহায়তা করবেন।

করোনায় চীনে মারা গিয়েছে ৫০ হাজার মানুষ: ওয়াশিংটন পোস্ট

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে চীনে অন্তত ৫০ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে। নিজ ভূখণ্ডে করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের মাত্রা গোপন করেছে চীন। মৃত্যু ও আক্রান্তের সঠিক সংখ্যা তারা প্রকাশে করেনি।

শনিবার যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী পত্রিকা ‘ওয়াশিংটন পোস্ট’ এক প্রতিবেদনে এ তথ্য প্রকাশ করে। এর আগে হোয়াইট হাউসে পাঠানো এক গোপন প্রতিবেদনে মার্কিন গোয়েন্দারাও এমন তথ্য দিয়েছিলেন।

তবে চীন সরকার বলছে, এখন পর্যন্ত তাদের মূল ভূখণ্ডে ৮২ হাজার লোক আক্রান্ত হয়েছেন। আর মারা গেছেন তিন হাজার ৩০০ লোক। অথচ যুক্তরাষ্ট্রে ২ লাখ ৭৭ হাজার লোক আক্রান্ত ও সাত হাজারের মৃত্যু হয়েছে।

চীনের একটি সাময়িকী ক্যাক্সিনের বরাতে ওয়াশিংটন পোস্টের প্রতিবেদনে বলা হয়, উহানের হানকাউ নামের একটি শ্মশানে প্রতিদিন ১৯ ঘণ্টা ধরে মৃতদেহ সৎকার হয়েছে। মাত্র দুদিনে সেখানে অন্তত ৫ হাজার মানুষের মরদেহ পোড়ানো হয়।

এছাড়া অনলাইনে পোস্ট করা ছবি ব্যবহার করে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলো একটা হিসাব বের করেছে। এতে দেখা গেছে, গত ২৩ মার্চ থেকে মৃতদেহ সৎকার শেষে উহানে মৃতদেহের ছাই ভরা ৩ হাজার ৫০০ কলস ফিরে এসেছে প্রতিদিন। সে হিসেবে ৩ এপ্রিল পর্যন্ত ১২ দিনে উহানে ৪২ হাজার মানুষের মৃত্যুর তথ্য উঠে আসে।

রেডিও ফ্রি এশিয়ার বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়, উহানে ৮৮টি চুল্লিতে দিন–রাত মৃতদেহ পোড়ানো হয়। সেখানে ৪৮ হাজার ৮০০ মানুষকে পোড়ানো হয়েছে।

এর আগে হোয়াইট হাউসে পাঠানো এক গোপন প্রতিবেদনে মার্কিন গোয়েন্দারা জানিয়েছেন, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত্যু নিয়ে চীনের সরকারি প্রতিবেদন ইচ্ছাকৃতভাবে অসম্পূর্ণ রাখা হয়েছে। প্রতিবেদনটি অতিগোপনীয় বলে নাম প্রকাশ করতে চাননি কর্মকর্তারা। এ নিয়ে তারা বিস্তারিত তথ্য দিতেও অস্বীকৃতি জানিয়েছেন।

দুই মার্কিন গোয়েন্দা কর্মকর্তা এ বিষয়ে বলেন, হোয়াইট হাউসে তারা যে প্রতিবেদন দেন, তার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হচ্ছে- চীন আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা নিয়ে যে পরিসংখ্যান দিয়েছে তা একেবারেই ভুয়া।

গোয়েন্দাদের এই প্রতিবেদন গত সপ্তাহে হোয়াইট হাউস গ্রহণ করে। গত বছরের শেষ দিনে চীনের হুবেইপ্রদেশের রাজধানী উহান শহর থেকে এ ভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হয়েছে।

চীনে করোনাভাইারাসে আক্রান্ত ও মৃতের সরকারি সংখ্যা নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও সন্দেহ প্রকাশ করেছেন ।

গত বুধবার ওয়াশিংটনে এক সংবাদ সমেল্লনে ট্রাম্প বলেন, চীনের পরিসংখ্যানে করোনায় আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা আমার মনে হয় কম করে দেখানো হয়েছে।

মার্কিন আইন প্রণেতা ও গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যদের পক্ষ থেকে বেইজিংয়ের বিরুদ্ধে এই প্রাদুর্ভাবের প্রতিবেদনটি ইচ্ছাকৃতভাবে তৈরি করা হয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বললেন -চিকিৎসা না দিলে ক্লিনিক, হাসপাতালের লাইসেন্স বাতিল

নিজস্ব প্রতিবেদক : বেসরকারি হাসপাতাল বা ক্লিনিকে চিকিৎসা না দিলে লাইসেন্স বাতিলের হুমকি দিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

তিনি বলেন, মানুষ এখন বিপদে আছে, এই বিপদে তারা যদি চিকিৎসা না করে হাতগুটিয়ে বসে থাকে, তবে সরকারও তাদের বিরুদ্ধে পরবর্তী সময়ে লাইসেন্স বাতিলসহ কঠোর পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হবে।

শনিবার বিকেলে রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের ‘ডেডিকেটেড করোনা বেড’ পরিদর্শনকালে এসব বলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, করোনা মোকাবিলা করতে হলে সম্মিলিত প্রচেষ্টার বিকল্প নেই। দেশে আজও নয়জন আক্রান্ত হয়েছে এবং দুজন মারা গেছে। গোটা বিশ্বে করোনাভাইরাস কঠিন মূর্তি ধারণ করছে। কাজেই সামনে সতর্ক না হয়ে আর উপায় নেই। প্রত্যেকেরই সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। এখন থেকে সামনের কিছুদিন ঘর থেকে খুব জরুরি না হলে বাইরে বের হওয়াই উচিত হবে না। আর বাইরে কোনো প্রয়োজনে বের হলেই মুখে মাস্ক পরে বের হতে হবে।

জনসমাগমে কম অংশ নেওয়া প্রসঙ্গে জাহিদ মালেক বলেন, বারবার অনুরোধ করার পরও দেখা যাচ্ছে মানুষ জনসমাগম পরিহার করতে চাচ্ছে না। জুমার নামাজে মসজিদ ভর্তি হয়েও রাস্তা পর্যন্ত লোক দাঁড়িয়ে যাচ্ছে। এ মুহূর্তে এটি খুবই অনাকাঙ্ক্ষিত ব্যাপার। সৌদি আরব, কুয়েত, ইরানের মতো মুসলিম দেশ যেখানে এ সময়ে মসজিদে গিয়ে নামাজে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে, সেখানে বাংলাদেশে এটি কোনোভাবেই মানছে না। এভাবে নিয়ম অগ্রাহ্য করলে করোনাভাইরাস প্রতিরোধ কঠিন হবে।

এ সময় স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব আসাদুল ইসলাম, স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগের সচিব আলী নূর প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

রােববার থেকে গার্মেন্ট খােলা – সামাজিক দূরত্বের সরকারি নিষেধাজ্ঞা ভেঙে ঢাকামুখী জনস্রোত

ডেস্ক রিপাের্ট : প্রাণঘাতি করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি নিয়ে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার কর্মমুখী রাজধানীফেরত হাজার হাজার মানুষের ঢল নেমেছে মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাটে। শনিবার (৪ এপ্রিল) সকাল থেকে ফেরিতে পদ্মা নদী পার হয়ে ঘাটে এসে গাড়ির জন্য অপেক্ষায় আছেন তারা। গণপরিবহন বন্ধ থাকায় বাধ্য হয়ে করোনা সংক্রমণের মৃত্যু ভয় এড়িয়ে সবাই ট্রাক, রিকশা ও ভ্যানে গাদাগাদি করে ফিরছেন ঢাকার দিকে। আবার অনেকে পায়ে হেঁটে রওনা দিচ্ছেন। এদের বেশিরভাগ লোকজন ঢাকাসহ আশে পাশে এলাকার পোশাক কারখানার শ্রমিক। এসময় নারী ও শিশুদের নিয়ে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন এসব কর্মমুখী মানুষ।

জানা গেছে, রোববার থেকে রাজধানী ঢাকাসহ আশেপাশের এলাকাগুলোতে পোশাক কারখানাগুলো খুলে যাবে। এ কারণে এসব পোশাক কারখানা শ্রমিকরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ঢাকার দিকে ফিরছে। পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া এবং আরিচা কাজীরহাট নৌ-রুট দিয়ে পার হয়ে ওইসব অঞ্চলের মানুষগুলো ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক দিয়ে গন্তব্যে পৌঁছানোর চেষ্টা করছে। এদিকে মানিকগঞ্জ পুলিশ-প্রশাসন কঠোরভাবে করোনাভাইরাসের বিস্তাররোধে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের মানিকগঞ্জ অংশে গণপরিবহন বন্ধ রেখেছে। এ কারণে পণ্যবাহী ট্রাক, রিকশা, ভ্যানে করে ভেঙে ভেঙে কিছু দূর গিয়ে থামছেন, আবার রওনা হচ্ছেন। এসময় ১০ কিলোমিটার পথ যাবার জন্য তাদেরকে জনপ্রতি একশত টাকা দিতে হচ্ছে।

আব্দুল সালাম নামের একজন পোশাক-শ্রমিক জানান, আগামীকাল থেকে গার্মেন্ট খোলা। এ কারণে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের ঝুঁকি নিয়ে ঢাকার দিকে যাচ্ছি। কিছু করার নেই, চাকরি চলে গেলে পরিবারকে নিয়ে না খেয়ে মরতে হবে, তাই যাচ্ছি।
ফারুক নামের একজন জানান, আমরা কি মানুষ না ভাই! একদিকে গণপরিবহন বন্ধ করে রাখা হয়েছে, আবার আমাদের কারখানাও খোলা থাকবে! তাহলে আমরা কি করবো এখন? আমাদের অফিসও বন্ধ রাখতে পারতো। তাহলে এ দুর্ভোগে পরতে হতো না।

বিআইডাব্লিউটিসির আরিচা কার্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত ডিজিএম, মো. জিল্লুর রহমান জানান, গণপরিবহন চলাচল নিষেধাজ্ঞা থাকার কারণে এ নৌ-রুট দিয়ে শুধু জরুরি কাঁচামালবাহী ট্রাক ও অ্যাম্বুলেন্স পারাপার হচ্ছে। ঘাট দিয়ে যাত্রীরা হুমড়ি খেয়ে জোর করে ফেরিতে উঠছেন। শত শত যাত্রীদের আটকানো সম্ভব হচ্ছে না। এ রুটে ১৫টি ফেরির মধ্যে সীমিত আকারে চারটি ফেরি চলাচল করছে।

মানিকগঞ্জ পুলিশের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা জানান, করোনাভাইরাসের প্রার্দুভাব রোধে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার লক্ষ্যে মানিকগঞ্জের অংশের মহাসড়কে গণপরিবহন চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে আগামীকাল থেকে পোশাক কারখানা খোলার কারণে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের কর্মমুখী লোকজন ফেরি পার হয়ে ঢাকার দিকে ফিরছে। এখন শত শত মানুষকে ফেরানো সম্ভব হচ্ছে না। যেসব এলাকা থেকে এসব লোকজন আসছে সেখান থেকে থামাতে পারলে এরকম পরিস্থিতির সৃষ্টি হত না।

মানিকগঞ্জ জেলা প্রশাসক এসএম ফেরদৌস বলেন, সকাল থেকেই দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জেলা থেকে নদী পার হয়ে পাটুরিয়া ফেরিঘাটে আসছেন মানুষ। এদের বেশিরভাগই বিভিন্ন গার্মেন্টসে কাজ করেন। রবিবার গার্মেন্টস খোলা থাকায় তারা জীবিকার তাগিদেই কর্মস্থলে যাচ্ছেন। প্রশাসনের কোনো হস্তক্ষেপই তারা মানছেন না। তাদের দ্রুত ঘাট এলাকাসহ মহাসড়কের আশপাশ ত্যাগ করে চলে যাওয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জানালেন, করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত দেশের সব খেলা স্থগিত

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনা ভাইরাসের কারণে গত ১৬ মার্চ যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী ৩১ মার্চ পর্যন্ত ক্রিকেট, ফুটবলসহ দেশের সবধরনের খেলাধুলা স্থগিত ঘোষণা করেছিলেন। এই সময়সীমার মধ্যে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় আবারও সকল খেলাধুলা স্থগিত ঘোষণা করলেন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল।

শনিবার প্রতিমন্ত্রী জানিয়েছেন, এবার নির্দিষ্ট সময়সীমা নয়। পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত দেশের সকল খেলা স্থগিত থাকবে।
যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা কাজী আরিফ বিল্লাহ স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বলেন, সারা বিশ্বের মতো বাংলাদেশেও করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ছে। এ সময়ে আমাদের সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। সচেতন থাকতে হবে। জনাসমাগম এড়িয়ে চলতে দেশের জনগণকে সচেতন করতে হবে। যে কোনো পর্যায়ের খেলাধুলাতে জনসমাগম ঘটে। তাই পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত দেশের সকল প্রকার খেলাধুলা বন্ধ থাকবে।

ওবায়দুল কাদের বললেন, অচিরেই দেশের অবস্থা ভালোর দিকে যাবে

নিজস্ব প্রতিবেদক : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সুদিনের প্রত্যাশায় সাময়িক কষ্ট ও ত্যাগ মেনে চলতে হবে। দেশবাসী যাতে নিজেদের ভালোর জন্য সুদিনের আশায় সাময়িক ত্যাগ স্বীকার করেন।

ত্রাণ বিতরণের সময় অধিকতর জমায়েতের মতো বিপজ্জনক পথ বেছে না নেওয়ার জন্য আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, এ অবস্থা মেনে আমরা যদি এগিয়ে যাই হয়তো অচিরেই দেশের অবস্থা আরও ভালোর দিকে যাবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে নিয়ম-কানুন মেনে চললে অবশ্যই আমরা এই মহাসংকট থেকে নিজেদের রক্ষা করতে পারব। নিজেদের জীবন জানমাল রক্ষ করতে পারব।

শনিবার (৪ এপ্রিল) তার সরকারি বাসভবনে এ সব কথা বলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সারাবিশ্বে করনো পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে। এযাবৎ বিশ্বে ১১ লাখ মানুষ আক্রান্ত হয়েছে এই প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে। এযাবৎ ৫৭ হাজার মানুষ মৃত্যুবরণ করেছে। আমাদের দেশ তুলনামূলকভাবে অনেক ভালো আছে। ইতালি, স্পেন, যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্সের মতো দেশে যে ভয়াবহ অবস্থা সেই তুলনায় আল্লাহর রহমতে আমরা অনেক ভালো আছি।’

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৩১টি নির্দেশনা মেনে আমরা সবাই এক যোগে সঙ্গবদ্ধভাবে এই অদৃশ্য শত্রুর মোকাবিলা করে চলছি। ঘরে আমরা সুরক্ষা সামগ্রী নিয়ে সুরক্ষিত থাকবো, বাইরে অদৃশ্য শক্তি করোনা এই অদৃশ্য শত্রুকে ঘরে ঘরে মোকাবিলা করতে হবে। ঘরে ঘরে সুরক্ষা সামগ্রী নিয়ে দুর্গ গড়ে তুলতে। কোনো অবস্থাতেই শঙ্কিত হওয়া চলবে না। আমাদের সকলকে সর্তক থাকতে হবে। লক্ষ্য রাখতে হবে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করতে যেয়ে যেন অধিকতর জমায়েতের মতো বিপজ্জনক পথ বেছে না নিই। কোনো অবস্থাতেই জমায়েত করা যাবে না। এ ব্যাপারে প্রশাসন সেনাবাহিনী পুলিশ র‌্যাবসহ নিয়ন্ত্রককারী সংস্থাকে সাহায্য করতে হবে।’

তিনি বলেন, দেশের জনগণ, যাত্রী সাধারণ, পরিবহন মালিক শ্রমিকসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে অবগতির জন্য জানাচ্ছি ইতোপূর্বে ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সব ধরণের যানবাহন চলাচল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছিল। করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে সরকার আগামী ১১ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি বর্ধিত করেছে। তারই ধারাবাহিকতায় জন স্বার্থ বিবেচনায় আগামী ১১ এপ্রিল পর্যন্ত দেশব্যাপী সকল প্রকার যানবাহন চলাল বন্ধ রাখার অনুরোধ করছি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, সাধারণ ছুটির মধ্যে যানবাহনের ফিটনেস, ড্রাইভিং লাইসেন্স উত্তীর্ণ হলে জরিমানা ছাড়াই নির্ধারিত ফি ও কর দিয়ে ৩১ জুন পর্যন্ত ফিটনেস নবায়ন ও লাইসেন্স আবেদনের সুযোগ দেওয়া হয়েছে। সকলকে এসক নির্দেশনা মেনে চলার আহ্বান করেন তিনি।

এছাড়াও জরুরি সার্ভিসের আওতায় পণ্যবাহী ট্রাক, ওষুধ, জ্বালানি, পচনশীল দ্রব্য ত্রাণবাহী গাড়ী অ্যাম্বুলেন্স নিষেধাজ্ঞার বাইরে থাকবে বলেও জানিয়ে দেন তিনি। তবে কোনো অবস্থাতেই পণ্যবাহী যানবাহনে যাত্রী বহন করা যাবে না বলে জানান সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ।

জমা‌য়েত এ‌ড়ি‌য়ে শবে বরাত বাসা-বা‌ড়ি‌তে পালনের আহ্বান

নিজস্ব প্রতিবেদক : ক‌রোনাভাইরাস ঠেকা‌তে পবিত্র শবে বরাতে নিজ নিজ বাসা বা‌ড়ি‌তে দোয়া ও নামাজ আদায় করার আহ্বান জা‌নি‌য়ে‌ছে ইসলা‌মিক ফাউ‌ন্ডেশন।

শ‌নিবার (৪ এপ্রিল) বি‌কে‌লে ফাউ‌ন্ডেশ‌নের মহাপ‌রিচালক আনিস মাহমুদ স্বাক্ষ‌রিত এক প্রেস বিজ্ঞ‌প্তি‌তে এ আহ্বান জান‌নো হয়।

এ‌তে বলা হয়, ৯ এ‌প্রিল (বৃহস্প‌তিবার) দিবাগত রা‌তে প‌বিত্র শ‌বে বরাত অনু‌ষ্ঠিত হ‌বে। জমা‌য়েত এ‌ড়ি‌য়ে প‌বিত্র এ দি‌নে নিজ নিজ বাসস্থানে যথাযথ মর্যাদায় এবাদত ব‌ন্দেগি করার অনু‌রোধ জানা‌নো হচ্ছে।

করোনা ভাইরাসে ফুসফুস যেভাবে আক্রান্ত হয়

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বৈশ্বিক মহামারি করোনার ভয়াল বিস্তার ঠেকানো যাচ্ছে না। দেশে দেশে আক্রান্ত মানুষের মৃত্যুর সংখ্যা ক্রমেই বেড়েই চলেছে। করোনাভাইরাসের সব থেকে খারাপ দিক হলো এই ভাইরাস শ্বাসনালী ও ফুসফুসকে সরাসরি আক্রমণ করে। এই ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে পুরোপুরি সেরে ওঠা কিছু মানুষের ফুসফুস অত্যন্ত ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলেও জানা যায়। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তির শ্বাসকষ্ট, জ্বর, মাথা ব্যথা, হাঁচি, কাশির মতো সমস্যা দেখা।

কোনো জীবিত প্রাণীর শরীরের বাইরে করোনাভাইরাস বেশিক্ষণ বেঁচে থাকতে এবং বংশ বৃদ্ধি করতে পারে না। ভাইরাস শরীরের ভিতরে ক্ষতি করে থাকে। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কোনো ব্যক্তি যখন কাশি বা নাক ঝাড়েন তখন ভাইরাসটি শ্বাস-প্রশ্বাসের সঙ্গে বের হয়ে ছড়িয়ে পড়ে। অন্যরা তা ড্রপলেটের মাধ্যমে নিশ্বাস গ্রহণ বা চোখ, নাক ও মুখের স্পর্শের মাধ্যমে ফুসফুসে সংক্রমিত হয়।

ভাইরাসটি একবার যদি কারো শরীরে প্রবেশ করে ফেলে তখন তা স্পাইকের মতো একটি প্রোটিন ব্যবহার করে শ্বসনযন্ত্রের কোষে থাকা অ্যাঙ্গিওটেনসিন-কনভারটিং এনজাইম ২ (এসিই-২)-এর সঙ্গে যুক্ত হয়, সেটিতে প্রবেশ করে এবং এরমধ্যেই বংশ বিস্তার করে সংক্রমণ ছড়ায়।

করোনা আক্রান্ত রোগীর প্রথম লক্ষণ হলো জ্বর। করোনার জীবাণু ঢোকার পর গড়ে পাঁচদিন পর জ্বর শুরু হয়। আক্রান্ত হওয়া ও লক্ষণ প্রকাশের ক্ষেত্রে সময় লাগে প্রায় ১৪ দিন। লক্ষণ শুরু হওয়ার প্রথম তিন দিনে ভাইরাস গলার পিছন দিকে আক্রমণ করে। ফলে গলা ব্যথা ও শুকনো কাশি শুরু হয়। পরে তা শ্বাসনালীর নিচের দিকে চলে যায়। লক্ষণ দেখা দেওয়ার চার থেকে ৯ দিনে শ্বাসকষ্ট শুরু হয়।

ভাইরাসটি বংশ বিস্তার করতে করতে ফুসফুসে পৌঁছায়। এতে ফুসফুসের থলিতে ছিদ্র হয়ে তা তরল দ্বারা পূর্ণ হয় এবং নিউমোনিয়ার সৃষ্টি হয়। ফুসফুসের প্রদাহের কারণে আক্রান্ত ব্যক্তির নিশ্বাস নিতে কষ্ট হয়। লক্ষণ শুরুর আট থেকে ১৫ দিনের মধ্যে তীব্র শ্বাসকষ্ট হয়।

টেক্সাস বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষকের দাবি, ফুসফুসে করোনাভাইরাসের সংক্রমণে শ্বাসতন্ত্রের কোষগুলো ফুলে ওঠে। ভাইরাস অণুগুলো ফেটে চারপাশে থাকা অন্য কোষগুলোতে ছড়িয়ে পড়ে সংক্রমণ। এই সংক্রমণ দ্রুত ব্রঙ্কিওল টিউবে ছড়িয়ে যায়। এই সময় শুরু হয় গলাব্যথা আর শুকনো কাশি।

করোনাভাইরাস শরীরে ঢোকার পর প্রথমে শ্বাসনালি ও পরে ফুসফুসে অবস্থান করে। ভাইরাসটি ফুসফুসের ছোট্ট ছোট্ট বলের মতো জায়গায় গিয়ে আরামসে বংশবৃদ্ধি করতে থাকে। এতে ফুসফুসের বলগুলো নষ্ট হয়ে যেতে থাকে।

আক্রান্তদের পরীক্ষা করে গবেষকরা দেখতে পান, এই ভাইরাসের সংক্রমণে ফুসফুসের দুই পাশের পেরিফেরিয়াল অংশে হালকা, পালতা আস্তরণ দেখা যায়। সংক্রমণ যত বাড়ে, ওই আস্তরণ ততই ঘন হয়। তখন কষ্ট আরও বাড়তে থাকে।

ভাইরাসটি শরীরে ঢোকার পর গড়ে ৫ দিন পর্যন্ত সময় নেয় ও তারপর ব্যক্তির উপসর্গ অর্থাৎ, ক্লান্তি, জ্বর, কাশি, ডায়রিয়া ইত্যাদির লক্ষণ প্রকাশ পেতে থাকে।

অপরপক্ষে শরীর (ইমিউন সিস্টেম) এই ভাইরাসের হাত থেকে নিজেকে মুক্ত করতে প্রাণপনে চেষ্টা করে। আমাদের নিজস্ব ইমিউন সিস্টেম ক্রমাগত প্রয়োজনীয় অ্যান্টিবডি বা যোদ্ধা সেল তৈরি করতে থাকে ভাইরাসকে পরাস্ত করতে।

ভাইরাসের বংশবৃদ্ধির গতি অপেক্ষা আপনার শরীরের রোগ প্রতিরোধের কোষের বংশবৃদ্ধির গতি বেশি হলে আপনি বেঁচে গেলেন। আর দুর্বল ইমিউন সিস্টেম হলে ভাইরাসের বংশবৃদ্ধি বেড়ে যাবে ও আপনার ফুসফুস ক্রমান্বয়ে পরাস্ত হতে থাকবে ভাইরাসের হাতে।

ফুসফুস পরাস্ত হতে থাকলে আস্তে আস্তে শরীরে প্রয়োজনীয় অস্কিজেনের অভাব দেখা দেয় এবং রোগী অস্কিজেনের জন্য একসময় হাঁসফাঁস করতে থাকে। পরবর্তীতে শরীরের অন্যান্য অর্গানগুলো (কিডনি, হার্ট, যকৃত, প্যানক্রিয়াস ইত্যাদি) অক্সিজেনের অভাবে একে একে অকেজো হতে শুরু করে।

নানা অসুখের কারণে আগেভাগেই কারো অর্গানগুলো দুর্বল হয়ে থাকলে, তার জন্য ভাইরাসটির আক্রমণের চাপ বহন করা কঠিন হয়ে পরে। তখন ভাইরাসটি রক্তে ছড়িয়ে পরে। এইবেলা তার জন্য হাসপাতালের সাহায্য বা কৃত্রিমভাবে অক্সিজেন-এর বন্দোবস্ত করার জরুরি দরকার হয়ে পরে।

এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসের কার্যকর কোনো ওষুধ আবিষ্কৃত হয়নি। তাই নিজের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাই ভরসা! সেটি শক্তিশালী হলে ভাইরাসগুলো যুদ্ধে হেরে গিয়ে মারা যাবে। জ্বর-কাশি কিছুদিন পর আপনা আপনি ভালো হয়ে যাবে, বাসায় বসেই। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার মতে ৮০% আক্রান্ত মানুষ ঘরে বসেই ভালো হয়ে যায়।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে ফুসফুসের ক্ষমতা বাড়াতে কিছু নিয়ম মেনে চলা উচিত। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে না যাওয়া। খাবার আগে ভালো করে হাত সাবান দিয়ে ধুতে হবে। অকারণে মুখে-নাকে-চোখে হাত না দেওয়া। ভিটামিন-এ জীবাণুদের বিরুদ্ধে লড়াই করতে পারে। ভিটামিন-এ যেমন গাজর, কমলালেবু, টমেটো, ডিমের কুসুম, পালংশাক, রাঙা আলু, ব্রোকোলিসহ নানা টাটকা ফল ও সবজি খাওয়া যেতে পারে। হাঁচি, কাশি, গলাব্যথা বা সর্দি-জ্বর হলে অবশ্যই আলাদা থাকা ও চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া।

করোনায় স্থগিত অস্ট্রেলিয়ার ৮ ক্রিকেটারের বিয়ে

স্পাের্টস ডেস্ক : করোনা ভাইরাসের কারণে এবার থেমে গেলো ক্রিকেটারদের বিয়ে। ঘটনাটি অস্ট্রেলিয়ায়। সে দেশের জাতীয় দলের ক্রিকেটার অ্যাডাম জাম্পা, ডি’অর্চি শর্টসহ ৮ ক্রিকেটার নিজেদের বিয়ে পিছিয়ে দিয়েছেন।
ক্রিকেটরে ওয়েবসাইট ক্রিকইনফো তাদের প্রতিবেদনে বলেছে, ক্রিকেট মৌসুম শেষে এপ্রিলে বিয়ের পরিকল্পনা করছিলেন এক ঝাঁক অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার। জাম্পা, ডি’ অর্চি ছাড়াও এই তালিকায় আছেন অজি জাতীয় দলের পেসার জ্যাকসন বার্ড। এ ছাড়াও আছেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পা না রাখা মিচেল সোয়েপসন, অ্যালিস্টার ম্যাকডারমট, অ্যান্ড্রু টাই, জেস জোনাসেন ও ক্যাটেলিন ফ্রেট।

শুধু অস্ট্রেলিয়াতেই নয়। দক্ষিণ আফ্রিকাতেও এমন ঘটনা ঘটেছে। দেশটির নারী ক্রিকেটার লিজেলে লি-র বিয়ের দিনক্ষণ চূড়ান্ত ছিলো। ১০ এপ্রিল বিয়ে করার কথা ছিলো তার। কিন্তু সেটিও স্থগিত হয়ে গেছে।