১৯শে জুন, ২০১৯ ইং | ৫ই আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

বিজয়ের মাহেন্দ্রক্ষণে

BEJOYডেস্ক রিপাের্ট : বাঙালির সবচেয়ে গৌরবময় অধ্যায় ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধ। এই জাতির হাজার বছরের সংগ্রামের ইতিহাসে, সব রকম বঞ্চনা-গঞ্জনা, নির্যাতন-নিপীড়ন আর লাঞ্ছনার অবসান ঘটিয়ে বিশ্বদরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবার ক্ষণ- ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১। এই দিন হানাদার পাকিস্তানি বাহিনীকে পরাজিত করে বিজয়ী হিসেবে বিশ্বের বুকে আত্মপ্রকাশ করে স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ। 'শত বছরের শত সংগ্রাম শেষে' ৭ মার্চ ১৯৭১ রেসকোর্স ময়দানে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যে 'অমর বাণী' শুনিয়েছিলেন, তারই ধারাবাহিকতায় ৩০ লাখ শহীদের জীবনদান, অগণিত মা-বোনের সল্ফ্ভ্রমহানি এবং বীরত্বপূর্ণ যুদ্ধের মধ্য দিয়ে ১৯৭১-এর ১৬ ডিসেম্বর এই দেশ শৃঙ্খলমুক্ত হয়। দ্বিজাতিতত্ত্বের ভিত্তিতে ভারত-পাকিস্তান দুটি স্বাধীন রাষ্ট্র জন্মের মধ্য দিয়ে অবসান ঘটে প্রায় দুইশ' বছরের ব্রিটিশরাজের। আমরা যে প্রকৃতপক্ষে তখনও স্বাধীন হইনি, তা বুঝতে খুব বেশি সময় ব্যয় হয়নি। বছর ঘোরার আগেই আঘাতটা আসে ভাষার ওপর। এরপর রাষ্ট্রক্ষমতা এবং অর্থনীতি। আমরা বুঝে যাই, হাজার মাইল দূর থেকে পশ্চিম পাকিস্তানিরা আমাদের শোষণ করছে।

বাঙালি গর্জে ওঠে প্রতিবাদে। ১৯৭০ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে বিপুল ভোটে জয়যুক্ত করে বাঙালি তাদের আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটায়। পশ্চিম পাকিস্তানি সরকার নির্বাচিত সরকারের হাতে রাষ্ট্রক্ষমতা না দিয়ে বরং দমন-পীড়নের পথ বেছে নেয়। ২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী রাজধানীর ঘুমন্ত নিরস্ত্র সাধারণ মানুষের ওপর হামলা চালায়। বিশেষত, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, রাজারবাগ পুলিশ লাইন, পুরান ঢাকা প্রভৃতি স্থানে পাকিস্তানি সেনারা নির্মম হত্যাযজ্ঞ চালায়।

শুরু হয় রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধ। কৃষক-শ্রমিক, ছাত্র-শিক্ষক, শিল্পী-সাহিত্যিক, নারী-পুরুষ নির্বিশেষে এ দেশের সাধারণ মানুষ মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেয়। ১৬ ডিসেম্বর সেই রেসকোর্স ময়দানেই পাকিস্তানি সেনারা যৌথ বাহিনীর কাছে চূড়ান্তরূপে আত্মসমর্পণ করলেও মাসের শুরু থেকেই বিভিন্ন স্থান থেকে আসতে থাকে মুক্তিবাহিনীর বিজয়ের খবর।

বিজয়ের ৪৬ বছর পূর্তির ক্ষণে সমকালের তৃণমূল প্রতিনিধিরা নিজ নিজ এলাকার বিজয়লগ্নের পূর্বাপর উপস্থাপন করেছেন প্রত্যক্ষদর্শীদের বর্ণনায়। দেশ স্বাধীন হয়েছে, স্বাধীন দেশেও চলেছে নানা ষড়যন্ত্র। তারপরও আমরা এগিয়ে চলেছি। জঙ্গিবাদ, রোহিঙ্গা শরণার্থী সমস্যা- কোনো কিছুই আটকে রাখতে পারেনি আমাদের অর্থনীতির চাকা। তবে এখানেই শেষ নয়। সব ধর্ম-বর্ণ-লিঙ্গের সমান অধিকার, অর্থনৈতিক সুষম বণ্টনের যে স্বপ্ন নিয়ে আমরা একদিন যুদ্ধ করেছি, ৩০ লাখ শহীদ বুকের রক্ত দিয়েছেন, তাদের স্বপ্ন বাস্তব রূপ না পাওয়া পর্যন্ত আমাদের কাজ চালিয়ে যেতে হবে- এই হোক এবারের বিজয় দিবসে আমাদের প্রত্যয়। সবার জন্য মহান বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা। -সমকাল থেকে

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
জুন ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« মে    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া