১০ শর্ত মেনে খেলাধুলা চালু করার সিদ্ধান্ত

স্পাের্টস ডেস্ক : প্রায় পাঁচ মাস পর দেশে শুরু হতে যাচ্ছে সব ধরনের খেলাধুলা। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত আকারে সব ধরনের খেলাধুলা ও প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চালু করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়। সোমবার সচিবালয়ে এক জরুরি সভা শেষে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল বিষয়টি সাংবাদিকদের জানান। এক্ষেত্রে ১০টি শর্ত জুড়ে দেয়া হয়েছে।

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্বের অনেক দেশে করোনা সংক্রমণ কমে যাওয়ার প্রেক্ষিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে খেলাধুলা ও প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শুরু করেছে। আমাদের দেশেও করোনা সংক্রমণের হার নিম্নমুখী। এর প্রেক্ষিতে আমরা খেলাধুলা ও প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চালু করার বিষয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মতামত চেয়ে পত্র প্রেরণ করি। স্বাস্থ্য অধিদফতর ১০টি শর্তে সীমিত আকারে খেলাধুলা আয়োজন ও প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চালুর বিষয়ে মতামত প্রদান করেছে। এমতাবস্থায়, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর কর্তৃক নির্ধারিত শর্তসমূহ প্রতিপালন পূর্বক দেশের সকল পর্যায়ে খেলাধুলা ও প্রশিক্ষণ কার্যক্রম সীমিত আকারে চালুর বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।’

১০ শর্ত

১. খেলাধুলা শুরুর আগে খেলার মাঠ ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র চালুর পূর্বে, মহামারী প্রতিরোধক সরঞ্জাম যেমন মাস্ক, গ্লোভস, জীবাণুনাশক এবং নন-কন্ট্যাক্ট ইনফ্রারেড থার্মোমিটার সংরক্ষণ করে সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ কাজের পরিকল্পনা প্রণয়ন করতে হবে। তদারকি ও বাস্তবায়ন এর দায়িত্বের জন্য একজনকে নির্দিষ্ট করলে ভালো হয়। সংশ্লিষ্ট সকল কর্মীদের স্বাস্থ্য বিধি প্রশিক্ষণ প্রদান করতে হবে।

২. সীমিত আকারে প্রশিক্ষণ কার্যক্রম ও খেলাধুলার আয়োজন করা যেতে পারে।

৩. খেলোয়াড়, প্রশিক্ষক, ম্যানেজমেন্ট কমিটি এবং খেলাধুলা সংশ্লিষ্ট সকলের নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে দেখতে হবে ক্যাম্প শুরুর পূর্বে প্রয়োজনবোধে সবার কোভিড-১৯ পরীক্ষা করা যেতে পারে।

৪. খেলোয়াড়দের প্রশিক্ষণকালীন ক্যাম্পে অবস্থানের সময় স্বাস্থ্য বিধি মেনে থাকার ব্যবস্থা ও প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। খাওয়া দাওয়ার ব্যপারে পুষ্টিকর ও স্বাস্থ্যসম্মত খাবারের ব্যবস্থা করতে হবে। সামাজিক দুরত্ব বজার রেখে খাবার গ্রহণ ও খাবারের ব্যবহৃত থালা বাসন পরিস্কার ও জীনাণুমুক্ত করার ব্যবস্থা করতে হবে। সম্ভব হলে ডিসপোজেবল প্লেট ব্যবহার করাই ভাল। ধুমপান নিরুৎসাহিত করতে হবে। খেলোয়াড়দের ঘুম, বিশ্রাম এবং মানসিক স্বাস্থ্যের প্রতি নজর রাখতে হবে। ডিজিটাল/অনলাইনের মাধ্যমে পরিবার ও বন্ধুবান্ধবদের সাথে যোগাযোগের ব্যবস্থা রাখা যেতে পারে।

৫. খেলা ও প্রশিক্ষণের সময় ব্যক্তিগত পানির বোতল ও তোয়ালে ব্যবহার করতে হবে। ব্যক্তিগত সরঞ্জাম এবং জামাকাপড় নিজস্ব ব্যাগে রাখতে হবে। টিস্যু, রুমাল বা অন্যান্য ব্যবহৃত উপকরণ যেমন প্লাস্টার, ব্যান্ডেজ ইত্যাদি তাৎক্ষণিকভাবে উপযুক্ত পাত্রে (মুখবন্ধ ময়লার পাত্র) ফেলে দিতে হবে।

৬. অধিক জন সমাগম না করে সীমিত আকারে খেলাধুলার আয়োজন করা যেতে পারে। মাঠে প্রবেশ ও বাহির হওয়ার সময় দর্শকদের সারিবদ্ধভাবে পরস্পর হতে এক মিটারেরও বেশি দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। মাঠে প্রবেশের পর নির্দিষ্ট দূরত্ব (১মিটার) বজায় রেখে বসার ব্যবস্থা করতে হবে। পাশাপাশি দুইজন দর্শকদের মাঝে এক সিট খালি রাখতে হবে।

৭. খেলার মাঠের প্রবেশ পথে খেলোয়াড়, প্রশিক্ষক, ম্যানেজমেন্ট কমিটি এবং বহগিরাগত দর্শনার্থীদের (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে) শরীরের তাপমাত্রা মাপার ব্যবস্থা রাখতে হবে। এক্ষেত্রে যাদের শরীরের তাপমাত্রা ৯৮.৪ ডিগ্রি ফারেনহাইটের বেশি হলে তাদের মাঠে প্রবেশ নিষিদ্ধ করে নিকটস্থ স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রে পাঠাতে হবে।

৮. খেলোয়াড়, প্রশিক্ষক/কোচ এবং ম্যানেজমেন্ট কমিটির মধ্যে কোভিড-১৯ এর সন্দেহভাজন কোনো রোগী থাকলে তাৎক্ষিণকভাবে আইসোলেশনের ব্যবস্থা করতে হবে।

৯. খেলার মাঠের আবর্জনা প্রতিদিন পরিষ্কার করতে হবে এবং আবর্জনা সংরক্ষণকারী পাত্র প্রতিদিন জীবাণুমুক্ত করতে হবে।

১০. স্টেডিয়ামে আগত সকলকে স্বাস্থ্য বিষয়ে সচেতন করার জন্য সহজে দৃশ্যমান হয় এমন স্থানে বিলবোর্ড, রেডিও, ভিডিও ও পোস্টারের মাধ্যমে সচেতনতামূলক বক্তব্য প্রচার করার ব্যবস্থা করতে হবে।

দেশ-বিদেশে ওসি প্রদীপের সম্পদের পাহাড়, ভারত-অস্ট্রেলিয়ায় বাড়ি (ভিডিও)

ডেস্ক রিপোর্ট : বৈধ সম্পদই আছে ৩ কোটি ৫৯ লাখ টাকার। যার মধ্যে বাড়ি-গাড়ি, ফ্ল্যাট, মাছের খামার অন্যতম। তবে বাস্তবের চিত্র ভিন্ন। অনুসন্ধানে দু’জনের নামে দেশ-বিদেশে একাধিক বাড়ি, ফ্ল্যাট, ব্যবসাসহ সম্পদের পাহাড় গড়ার তথ্য পেয়েছে দুদক।

চট্টগ্রাম নগরীর পাথরঘাটা আরসি চার্চ রোডের ছয়তলা বাড়ি লক্ষীকুঞ্জের মালিক টেকনাফের সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশের স্ত্রী চুমকি দাশ। চার শতক জমির ওপর গড়ে তোলা এই বাড়ির বাজার মূল্য ১ কোটি ৩০ লাখ টাকার বেশি।

শুধু এটিই নয়, চট্টগ্রাম-কক্সবাজারসহ নানা জায়গা এমন বহু সম্পদের মালিক প্রদীপ ও তার স্ত্রী। ২০১৮ সালে অনুসন্ধান শুরু করে এ পর্যন্ত তাদের বহু অবৈধ সম্পদের খোঁজ পেয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন।

দুদকে প্রদীপের দেয়া তথ্য অনুযায়ী তার সম্পদের মধ্যে রয়েছে, কক্সবাজারে ২টি হোটেল, ফ্ল্যাট আর দুটি গাড়ি। স্ত্রীর নামে চট্টগ্রামের বোয়ালখালীতে আছে মৎস্য খামার। যা থেকে বছরে আয় ১ কোটি টাকা। সবমিলে বৈধ সম্পদ দেখানো হয় ৩ কোটি ৫৯ লাখ ৫১ হাজার টাকার।

কিন্তু দুদকের অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে পিলে চমকানো সব তথ্য। বাস্তবে দেশে বিদেশে বহু সম্পদের মালিক প্রদীপ ও তার স্ত্রী। এই যেমন ভারতের আগরতলা আর অস্ট্রেলিয়ায় বাড়ি আছে তাদের। কক্সবাজারে আছে মৎস খামার। চট্টগ্রামে রয়েছে একাধিক ফ্ল্যাট ও ব্যবসা। এছাড়া বিদেশে পাচার করেছেন কাড়ি কাড়ি টাকা।

চট্টগ্রাম নগরের মুরাদপুরে আপন বোনের জমি দখল করে স্থাপনা নির্মাণের অভিযোগও আছে প্রদীপের বিরুদ্ধে। অনুসন্ধান শেষ হলে প্রদীপ-দম্পতির আরো অবৈধ সম্পদের খোঁজ মিলবে, বলছেন দুদক কর্মকর্তারা।

সূত্র : চ্যানেল২৪

পাওলো দিবালাকে দলে টানতে ১০০ মিলিয়ন ইউরো দিবে রিয়াল মাদ্রিদ

স্পোর্টস ডেস্ক : চলতি মৌসুমটা বেশ দারুণ কাটিয়েছেন জুভেন্টাসের আর্জেন্টাইন তারকা পাওলো দিবালা। ইতালিয়ান সিরি আর বর্ষসেরা তারকাও নির্বাচিত হয়েছেন। তবে এখনও ক্লাবের সঙ্গে নতুন কোনো চুক্তির সংবাদ মিলেনি। যদিও ফুটবল মহলে অনেক গুঞ্জনই রয়েছে। এর সঙ্গে নতুন গুঞ্জন ডালা মেলেছে। স্প্যানিশ জায়ান্ট রিয়াল মাদ্রিদ দিবালাকে দলে পাওয়ার চেষ্টা করছে বলে সংবাদ প্রকাশ করেছে ইতালিয়ান গণমাধ্যম ক্যালসিওমার্কেতো।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলোর ম্যাচে অলিম্পিক লিঁওর কাছে হেরে মৌসুম শেষ করেছে ইতালিয়ান চ্যাম্পিয়নরা। অন্যদিকে ম্যানচেস্টার সিটির কাছে হেরে চলতি মৌসুম শেষ করেছে রিয়ালও। ঘরোয়া লিগের জয় করতে পারলেও চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ব্যর্থতায় নতুন মৌসুম দলকে আরও শক্তিশালী করার চেষ্টা করছে তারা। সে কারণে জুভেন্টাসের নম্বর ১০কে দলে টানার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন রিয়াল সভাপতি ফ্লোরেন্তিনো পেরেজ।

ক্যালসিওমার্কেতোর সংবাদ অনুযায়ী, দিবালার জন্য বেশ অঙ্কের প্রস্তাব দিতে যাচ্ছে রিয়াল। অঙ্কটা ১০০ মিলিয়ন ইউরো। তবে পুরো টাকা না দিয়ে একজন খেলোয়াড়ের সঙ্গে বিনিময় করতে চায় তারা। এর জন্য ইস্কো অথবা টনি ক্রুসের মধ্যে যে কোনো একজনকে দেওয়ার চিন্তা করছে তারা।

সে সংবাদে আরও বলা হয়েছে, দিবালার সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ বাড়াতে কাজ করে যাচ্ছে জুভেন্টাস। এ জন্য দিবালার মুখপাত্র সঙ্গে আলোচনাও চলছে। বর্তমান চুক্তি অনুযায়ী ২০২২ সাল পর্যন্ত তুরিনে থাকার কথা দিবালার। তবে দারুণ ছন্দে থাকা এ খেলোয়াড়কে হাতছাড়া করতে চায় না দলটি। চুক্তির মেয়াদ আরও বাড়াতে চায় তারা।
তবে এর আগেও বেশ কয়েকবার দিবালাকে রিয়ালের দলে টানার গুঞ্জন উঠেছিল। তার কোনটাই বাস্তবতার মুখ দেখেনি। দিবালাও অনেকবারই জুভেন্টাস ছাড়তে চান না বলে জানিয়েছেন। এখন দেখার বিষয় নতুন এ গুঞ্জন শেষ পর্যন্ত কতো দূর যায়। – ক্যালসিওমার্কেতো

এমপি মহীউদ্দীন খান আলমগীরের মালিকানাধীন ‘সিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে’ অভিযান

ডেস্ক রিপোর্ট : গাজীপুরের চান্দনা চৌরাস্তা এলাকার সিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অনিয়মের অভিযোগে অভিযান শুরু হয়েছে।

আজ সোমবার দুপুরে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একটি টাস্কফোর্স এ অভিযান শুরু করে।

র‌্যাব-১ এর কোম্পানি কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল মামুন অভিযানের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, দুপুর ৩টার দিকেও অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

প্রাতিষ্ঠানিক শর্ত পূরণ না করা, নিজস্ব ভবন না থাকা, পরীক্ষাগারের অনুমোদন না থাকা, জনবল বা পর্যাপ্ত সুযোগ না থাকার পরও ৫’শ শয্যার হাসপাতাল ঘোষণা করে মানুষের সঙ্গে প্রতারণাসহ নানা অনিয়ম-অব্যবস্থাপনার অভিযোগ রয়েছে হাসপাতালটির বিরুদ্ধে।

কোম্পানি কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, অভিযানে নেতৃত্ব দিচ্ছেন র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম, সঙ্গে আছেন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব (হাসপাতাল) উম্মে সালমা তানজিয়া এবং গাজীপুর র‌্যাব-১ ক্যাম্পের কমান্ডার হিসেবে তিনি নিজে। অভিযান শেষে বিস্তারিত জানানো হবে বলেও জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, এ হাসপাতালটি সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও বর্তমান সংসদ সদস্য মহীউদ্দীন খান আলমগীরের মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান। এটি গাজীপুর মহানগরের চান্দনা চৌরাস্তা এলাকায় অবস্থিত। গত ছয় বছর ধরে হাসপাতালটি প্রতিষ্ঠা হলেও চিকিৎসা সেবার ন্যুনতম সুযোগ না থাকারও অভিযোগ রয়েছে। কিন্তু শিক্ষার্থী ভর্তির অনুমোদন পেয়ে যাচ্ছে নিয়মিত।

করোনা মহামারি পরিস্থিতিতেও কোভিড চিকিৎসার নামে ১০০ শয্যার ইউনিট খুলেছিল হাসপাতালটি। পরে রিজেন্ট হাসপাতালের ব্যাপারে দেশব্যাপী আলোচনা শুরু হলে ওই ইউনিটটি বন্ধ করে দেওয়া হয়।

ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড-এর ২১তম বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত

ডেস্ক রিপোর্ট : ১০ আগস্ট, ২০২০ তারিখে ডিজিটাল প্লাটফর্ম ব্যবহার করে ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড-এর ২১তম বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় সভাপতিত্ব করেন ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের মাননীয় চেয়ারম্যান জনাব মোহাম্মদ সাইফুল আলম।

সভায় অন্যান্যদের মধ্যে, পরিচালনা পর্ষদের ভাইস চেয়ারম্যান জনাব মোহাম্মদ আব্দুল মালেক, শরীয়াহ্ কাউন্সিলের চেয়ারম্যান প্রফেসর ডঃ মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দীন তালুকদার, পরিচালনা পর্ষদের সম্মানিত সদস্যবৃন্দ, ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব সৈয়দ ওয়াসেক মোঃ আলী, এসভিপি ও কোম্পানী সচিব জনাব অলি কামাল, এফসিএস এবং উল্লেখযোগ্য সংখ্যক শেয়ারহোল্ডার অংশগ্রহণ করেন। ২১তম বার্ষিক সাধারণ সভায় ২০১৯ ইং সালের সমাপ্ত বছরের জন্য শেয়ারহোল্ডারদেরকে ১০% স্টক ডিভিডেন্ড (বোনাস শেয়ার) অনুমোদন করা হয় ।

ভিকি-ক্যাটের প্রেম গুঞ্জনে নতুন হাওয়া

বিনোদন ডেস্ক : অভিনেতা ভিকি কৌশলের সঙ্গে প্রেম করছেন বলিউড সুন্দরী ক্যাটরিনা কাইফ। বহুদিন ধরে ইন্ডাস্ট্রির ভেতরে-বাইরে এমনই খবর ভেসে বেড়াচ্ছে। এই দুই তারকা একাধিক বার একসঙ্গে ফটোসাংবাদিকদের ক্যামেরায় ধরা পড়েছেন। কখনো রাতে ডিনার ডেটে যাওয়া, আবার কখনো কোনো অনুষ্ঠানে তাদের একসঙ্গে হাজির হওয়া এটাই বলে দেয়, ‘কুছ কুছ হোতা হ্যায়’।

যদিও ভিকি বা ক্যাটরিনা কখনোই এ নিয়ে স্পষ্ট করে কিছু বলেননি। তাই থামেনি তাদের প্রেমের গুঞ্জনও। বরং সম্প্রতি সেই গুঞ্জনে নতুন হাওয়া লেগেছে। কারণ এই করোনার মধ্যেই ক্যাটরিনার কাইফের বাড়ির সামনে থেকে ভিকি কৌশলকে ক্যামেরার লেন্সে বন্দি করেছেন পাপারাজ্জিরা।

সেই ছবিতে দেখা যায়, ক্যাটরিনার বাড়ির সামনে গাড়ি থেকে নামছেন ভিকি। পরনে টি-শার্ট আর প্যান্ট। করোনা আবহের জন্য মাস্কে ঢাকা অভিনেতার মুখ। এই ছবি প্রকাশ্যে আসতেই ক্যাটরিনা ও ভিকির ভক্তদের মধ্যে নতুন করে উত্তেজনা তৈরি হয়েছে। নানা রকমের কমেন্টে বলিউডের এই দুই তারকাকে ভরিয়ে দেন তারা।

কাজের ক্ষেত্রে এই মুহূর্তে পরবর্তী ছবি ‘ফোনভূত’ নিয়ে ব্যস্ত আছেন ক্যাটরিনা কাইফ। এই ছবিতে তার সহ-অভিনেতা ঈশান খট্টর এবং সিদ্ধান্ত চতুর্বেদী। অন্যদিকে, ভিকি ব্যস্ত স্যাম মানেকশের বায়োপিক নিয়ে। ছবিটি পরিচালনা করেছেন মেঘনা গুলজার। তবে এসবকে ছাপিয়ে আলোচনায় দুই তারকার প্রেমপর্ব।

জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী ন্যান্সি বাবাকেও হারালেন

বিনোদন প্রতিবেদক : মা হারানোর ৮ বছরের মাথায় এবার বাবাকেও হারালেন দেশের জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী নাজমুন মুনিরা ন্যান্সি। তার বাবা নাঈমুল হক আজ সোমবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে রাজধানী ঢাকার খিলক্ষেতে নিজ বাসায় ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

গায়িকা তার অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে একটি স্ট্যাটাস দিয়ে এই খবরটি নিজেই শেয়ার করেছেন। পোস্টে তিনি লিখেছেন, ‘আজ সকাল আনুমানিক সাড়ে নয় ঘটিকায় আমার বাবা মৃত্যুবরণ করেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। উনার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি।’

কিন্তু কীভাবে ন্যান্সির বাবা মারা গেছেন সে বিষয়ে কিছু জানাননি গায়িকা। তবে খোঁজ জানা গেছে, রবিবার রাতে ন্যান্সির বাবার শারীরিক অবস্থা খারাপ হয়ে পড়ে। তার কাশি এবং বুকে ব্যথা ছিল। রাত পেরিয়ে সকাল হতেই তিনি পাড়ি দেন না ফেরার দেশে।

এর আগে ২০১২ সালের ডিসেম্বরে মারা যান ন্যান্সির মা। নেত্রকোণায় গ্রামের বাড়িতে মায়ের পাশেই সমাহিত করা হবে তার সদ্য প্রয়াত বাবাকে। কর্মজীবনে ন্যান্সির বাবা প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপ অর্থনিয়ন্ত্রক হিসেবে কাজ করেছেন। চার বছর আগে অবসর নিয়ে তিনি ঢাকাতেই থাকতেন।

মাস্ক পরা বাধ্যতামুলক করতে এবার ভ্রাম্যমাণ আদালত

নিজস্ব প্রতিবেদক : সরকার মহামারি করোনার মধ্যে ঘরের বাইরে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করলেও নানা অজুহাতে অনেক মানুষ এখনো মাস্ক ব্যবহার করছেন না। তাই ঘরের বাইরে সবার মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে মাঠ প্রশাসনকে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার নির্দেশ দিয়েছে সরকার।

সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম এই তথ্য জানান।

সরকারের পক্ষ থেকে মানুষকে সচেতন করতে আরও বেশি প্রচার চালানো হবে বলেও জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

সোমবার সকাল ৮টা পর্যন্ত দেশে করোনাভাইরাসে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে দুই লাখ ৬০ হাজার ৫০৭ জন। এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত তিন হাজার ৪৩৮ জনের মৃত্যুর তথ্য দিয়েছে সরকার।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন,‘মন্ত্রিসভায় জেনারেল আলোচনা হয়েছে যে, মানুষকে অন্তত সচেতন থাকতে হবে। এর মধ্যে দেখা গেছে যে অনেক মানুষের মধ্যে সচেতনতাটা একটু কমে গেছে, সেটা আরও বৃদ্ধি করতে হবে।’

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে সচেতন থাকার ওপর গুরুত্বারোপ করে আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘এগুলো ক্যাম্পেইনে নিয়ে আসা এবং যথাসম্ভব কোনো কোনো ক্ষেত্রে যদি মোবাইল কোর্ট করা যায় এসব বিষয় নিয়ে রবিবার সচিব কমিটিতে আলাপ-আলোচনা করে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।মাঠ প্রশাসনকেও বলে দিয়েছি যে, এনফোর্সমেন্টে যেতে হবে।’

ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার পক্ষে যুক্তি দিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘একেবারে ম্যাসিভ কোনো ক্ষেত্রে মোবাইল কোর্ট করে যদি পানিশমেন্ট দেয়া হয়, এই জিনিসটা প্রচার করার জন্য যে আজকে মাস্ক না পরার জন্য বা সেইফটি মেজার্স না নেয়ার জন্য এতগুলো লোককে বাসে বা বাজারে বা লঞ্চে পানিশমেন্ট দেয়া হয়েছে, এগুলো যদি প্রচারে যায়, তাহলে মানুষও…। মাস্ক পকেটে থাকে, কিন্তু মানুষ পরে না।’

সবাই যাতে মাস্ক ব্যবহার করে সে বিষয়ে সরকারের পক্ষ থেকে আরও প্রচার চালানো হবে বলেও জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

সচিব বলন, ‘বিশেষ করে তথ্য মন্ত্রণালয়কে আরও ম্যাসিভ প্রচারের জন্য বলা হয়েছে। ফিজিক্যালি মাঠে গিয়ে মাইক দিয়ে, বিলবোর্ড দিয়ে যাতে মানুষ আরেকটু সতর্ক হয়। রেডিও, টেলিভিশন সব জায়গায়.. তথ্য মন্ত্রণালয়কে বিশেষভাবে বলা হয়েছে। সচিব কমিটির মিটিংয়ে খুব স্ট্রংলি রেকমেন্ড করেছি।’

ওবায়দুল কাদের জানতে চান, বিএনপির কাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিএনপির কোন নেতাকে কোথায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে তা জানতে চেয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি আজ সোমবার সকালে ময়মনসিংহ সড়ক জোন, বিআরটিএ ও বিআরটিসি’র কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় এ কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের তার সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মতবিনিময় সভায় যুক্ত হন।

বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার ও হয়রানি করা হচ্ছে মির্জা ফখরুলের এমন অভিযোগ জানতে চেয়ে ওবায়দুল কাদের পাল্টা প্রশ্ন করে জানতে চান রাজনৈতিক কারণে কাকে, কোথায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে তা বলুন?

সেতুমন্ত্রী বলেন, অপরাধী ও সন্ত্রাসীদের কোনো দলীয় পরিচয় থাকতে পারে না।

সরকার বিভিন্ন অপরাধে নিজেদের দলের লোকদেরও ছাড় দিচ্ছে না উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, তাহলে বিএনপি সমর্থিত কোনো অপরাধী গ্রেপ্তার হলে অভিযোগ কেন?

মতবিনিময় সভায় দেশের রাজনীতিতে যারা রক্তপাত, হত্যা আর প্রতিহিংসা ছড়িয়েছে তাদের মুখে গণতন্ত্র ও মানবাধিকারের কথা বলা আরেক ষড়যন্ত্রের অংশ বলে মন্তব্য করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

মেজর ( অব.) সিনহা হত্যার বিচার চেয়ে কান্নায় ভেঙে পড়লেন মা

নিজস্ব প্রতিবেদক : ছেলে হত্যার বিচার চেয়ে কান্নায় ভেঙে পড়লেন সাবেক সেনা কর্মকর্তা সিনহা মো. রাশেদ খানের মা নাসিমা আক্তার। বললেন, বিচার প্রক্রিয়া নিয়ে আমি এখন পর্যন্ত সন্তুষ্ট। প্রধানমন্ত্রী, সেনাবাহিনী প্রধান, নৌ-বাহিনী প্রধানসহ আরও অনেকে আমাদের খোঁজ নিয়েছেন। আমরা চাই যারা এরসঙ্গে জড়িত তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হোক।

সোমবার দুপুরে সিনহাদের রাজধানীর বাসায় সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় এই দাবি জানান নাসিমা আক্তার। এসময় ছেলেকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে তার কণ্ঠ বারবার ধরে আসছিল।

সাবেক এই সেনা কর্মকর্তাকে হারিয়ে শোকে স্তব্ধ অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খানের পরিবার। দেশজুড়ে আলোচিত এই ঘটনায় ইতিমধ্যে টেকনাফের ওসি, যার গুলিতে নিহত হয়েছেন সিনহা সেই এসআই লিয়াকতসহ বেশ কয়েকজন রিমান্ডে আছেন।

সিনহার মা সাংবাদিকদের বলেন, কথায় নয়, কাজে বিশ্বাসী ছিল আমার ছেলে। দেশকে নিয়ে অনেক ভাবতো। ছেলে আমাকে বলতো, আমরা যদি দেশে ভালো কিছু রেখে যাই তাহলে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম সেটা অনুসরণ করবে।

তিনি আরও বলেন, সিনহা সবসময় ক্রিয়েটিভ কাজ করতে চাইত, সবসময় সারপ্রাইজ দিতে চাইত কাজের মাধ্যমে। ও বলতো, আমি আমার মনের খোরাকের জন্য কাজ করি; যাতে মানুষ উপকৃত হয়। একটা ডকুমেন্টরি করছি এখনো বলার মতো কিছু হয়নি, যখন হবে তখন বলব।

সিনহার মায়ের সঙ্গে পরিবারের সদস্যরা ছাড়াও সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

গত ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সাবেক মেজর সিনহা মো. রাশেদ।

দুই বছর আগে সেনাবাহিনী থেকে অবসরে যাওয়া রাশেদ ‘লেটস গো’ নামে একটি ভ্রমণ বিষয়ক ডকুমেন্টারি বানানোর জন্য গত প্রায় একমাস ধরে কক্সবাজারের হিমছড়ি এলাকায় ছিলেন। ওই কাজেই তার সঙ্গে ছিলেন স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিল্ম অ্যান্ড মিডিয়া বিভাগের শিক্ষার্থী সিফাত ও শিপ্রা।