২০শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ৫ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

এ কাজে লজ্জা কেন বাঙালি নারীর : তসলিমা নাসরিন

1440775501taslima-nasrin-mtnews24ডেস্ক রিপোর্ট : নারী একদিকে যেমন ঘর সামলান, অন্যদিকে দপ্তরের কাজও অবলীলায় সামলান।  তবে বেশকিছু েেত্র তারা উদাসীন।  কিছু কাজ রয়েছে যা শুধু তাদের জন্য।  উপমহাদেশীয় সমাজব্যবস্থায় বাড়ির কাজ যেন মহিলাদের একচেটিয়া।  

সকাল হোক বা দুপুর, কাজের মহিলা বা কাজের মাসি বলে আমরা যাদের দেখতে অভ্যস্ত, তেমনটা ইউরোপ বা আমেরিকায় দেখতে পাওয়া যাবে না। সেখানে বাড়ির কাজ এবং অফিসের কাজের মধ্যে যে পার্থক্য রয়েছে তা বুঝাই যাবে না।  কাজটাকে কাজের মতো করে দেখেন তারা।  

এবার সমাজের এই ভ্রান্ত ধারণাকে আঘাত করলেন নির্বাসিত লেখিকা তসলিমা নাসরিন।  শুক্রবার একটি ফেসবুক পোস্টে এ বিষয়ে তুলোধোনা করেছেন উপমহাদেশীয় এ ভণ্ডামিকে।  দেখা যাক ফেসবুক পোস্টে তিনি কী লিখলেন-

'লেখালেখি নিয়ে আমার চূড়ান্ত ব্যস্ততা।  তারপরও আমি নিজে বাজার করি, রান্না করি।  অতিথি এলে বারো পদের খাবার একা আমিই রাঁধি।  কাজে সাহায্য করার যে মেয়েটি আসে চার ঘণ্টার জন্য, সে শাক সবজি পেঁয়াজ রসুন কেটে দিলো,ব্যস এটুকুই।  মেয়েটি মূলত যে কাজগুলো করে তা হলো, বাসন মাজা, ঘর ঝাড়ু দেয়া, ঘর মোছা।  মেয়েটি না এলে আমি ওসব নিজেই করি।

তাছাড়া কাপড় কাচার মেশিনটা আমিই চালাই।  গাছে আমিই জল দিই।  আমি বলতে চাইছি, আমি পারি ঘরের কাজকম্ম করতে।  কোনও কাজে আমার অনীহা নেই।  আমি নিজেই তো টয়লেট পরিস্কার করি।  কারণ টয়লেট পরিস্কার করতে সাহায্যকারীরা রাজি নয়।  যেটা বলার জন্য এতসব বলছি, সেটা হলো, ভারত এবং বাংলাদেশের বন্ধুরা যারা আমার কাছে আসে, থাকে, তাদের দেখেছি, তারা ঘরের কোনও কাজে হাত দিতে চায় না, তারা কিছু করতে অভ্যস্ত নয়।

জুসটাও ঢেলে খেতে জানে না।  আমি যখন তাদের জন্য রান্না করি, তারা ড্রইংরুমে বসে থাকে।  আমি যখন বাসন মাজি, ঘর ঝাড়ু দিই, তারা দূরে বসে বসে দেখে।  পুরোই হ্যান্ডিক্যাপ্ড।  তাদের কাজ হল, বসে থাকা, আর গল্প করা অথবা অনর্থক শুয়ে থাকা।  তারা ঘরের কাজগুলো আমার সঙ্গে ভাগ করে করে না, তার কারণ কিন্তু এই নয় যে তারা আমাকে ভালোবাসে না, তারা করে না কারণ কিছু করতে তারা জানে না, করতে শেখেনি, করে অভ্যেস নেই।
শেখার এবং করার কোনও ইচ্ছে তাদের নেই। যদি কিছু করতে বলি, যদি বলি তোমার বিছানার চাদরটা চেঞ্জ করো, বা বালিশে নতুন ওয়াড় লাগাও, তাদের মুখ ভার হয়ে যায়, ঘরের কোনও কাজ করাকে তারা ইনসাল্ট বলে মনে করে।  যদি ভারত এবং বাংলাদেশের মানুষই আমার বাড়িতে থাকতো, যারা ইউরোপ বা আমেরিকায় কয়েক বছর হলেও থেকেছে, তাহলে কিন্তু তারা আমার মতো সবকিছুই করতে জানতো।  

আমি একা ঘরের সব কাজ করছি দেখলে তারাও কিছু কাজ ভাগ করে নিত। নিতে লজ্জা করতো না।  অথবা বাসনগুলো মেজে দাও বললে তারা গাল ফুলোতো না। এই উপমহাদেশের উচ্চবিত্ত আর মধ্যবিত্ত ছেলেমেয়েগুলো পাশ্চাত্যের দেশগুলোয় কয়েক বছর করে থেকে এলে ভালো মানুষ হতে পারতো।  কাজ ভাগ করে করা, কোনও কাজকে ঘৃণা না করা, মানুষকে সম্মান করা- এসব খুব জরুরি।

মুশকিল হলো, জরুরি ব্যাপারগুলোকে মোটেও তারা জরুরি বলে মনে করে না।  নিজেদের দেশে তারা গরিব লোক সবসময়ই পেয়ে যাবে, যারা সংসারের সব কাজ করে দেবে। সুতরাং তাদের খামোকা বসে থাকা আর শুয়ে থাকাটা তারা যতদিন বেঁচে থাকে, চালিয়ে নিতে পারবে।  আমি বলছি না তারা সব আলসে লোক।

তারা কিন্তু বাইরে কাজ করছে, চাকরি বাকরি করছে।  কিন্তু ঘরের কাজগুলো তাদের কাজ নয়, ঘরের কাজগুলো চাকর বাকরের কাজ, এটা তাদের মস্তিস্কে জন্মের পরই ঢুকে বসে আছে।  প্রয়োজনে এই কাজগুলো যে নিজেও করা যায়, এতে যে কোনও লজ্জা নেই- এ সম্পর্কে তাদের কোনও আইডিয়াই নেই।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
আগষ্ট ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুলাই    
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া