১৭ই জুলাই, ২০১৯ ইং | ২রা শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

দুই সিদ্দিকী’ সহোদরের দম্ভে লজ্জিত বাংলাদেশ

sডেস্ক রিপোর্ট : কাদের সিদ্দিকী ও আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী ১৯৭১ সাল থেকে শুরু করেছেন অহংকারের রাজনীতি। মুক্তিকামী মানুষের স্বাধীনতা অর্জনে তাঁদের অপরিসীম ভুমিকা থাকলেও দেশটি কে নিজেদের সম্পত্তি ভাবার উপলক্ষ্যে এই দুই সহোদরের অযাচিত ভুমিকা এখন প্রশ্নবিদ্ধ। ইসলামের পথ দেখানো বিশ্লেষণে যেখানে মানব জাতিকে কোরআন পড়ে অতি চালাক বাঁ জ্ঞানী হিসাবে নিজ ধর্ম কেই চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন করে- এমন দূরদৃষ্টির বর্ণনা রয়েছে,  ঠিক সেই পথেই সদ্য হেটেছেন হাসিনা সরকারের ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রী আব্দুল লতিফ ংসিদ্দিকী। ভাই কাদের সিদ্দিকী নিজের ‘বঙ্গবীর’ খেতাব দেশের অতি সচেতন জনগোষ্ঠীর নিকট অনেক আগ হতেই হারিয়ে নিজেকে এক ক্ষমতা লোভী, অহংকারী এবং স্বাধীনতা বিরুদ্ধ শক্তির দোসর হয়েছেন- এমন অভিযোগ রয়েছে।রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা বলছেন, দুই সিদ্দিকী সহোদরে অতিষ্ঠ মানুষ এবং তাঁদের দম্ভে লজ্জিত বাংলাদেশ।

এদিকে হযরত মোহাম্মদকে (সা.) নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করেছেন ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী। এসময় তিনি হজ, তাবলীগ জামাত ও প্রধানমন্ত্রীর পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়কে নিয়েও বিরূপ মন্তব্য করেন।
রোববার বিকালে নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসের একটি হোটেলে নিউইয়র্কে বসবাসরত টাঙ্গাইলবাসীদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে মন্ত্রী নবীকে নিয়ে কটূক্তিসহ অন্যদের নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করেন।
মন্ত্রী বলেন, ‘আব্দুল্লাহর পুত্র মোহাম্মদ চিন্তা করল এ জাজিরাতুল আরবের লোকেরা কীভাবে চলবে? তারাতো ছিল ডাকাত। তখন সে একটা ব্যবস্থা করলো যে আমার অনুসারীরা প্রতিবছর একবার একসঙ্গে মিলিত হবে। এরমধ্য দিয়ে একটা আয়-ইনকামের ব্যবস্থা হবে।’মতবিনিময় কালে মন্ত্রী আরো বলেন, ‘আমি হজ আর তাবলীগ জামাতের ঘোরতর বিরোধী, জামায়াতে ইসলামীরও বিরোধী, তবে তার চেয়েও বেশি হজ ও তাবলীগ জামাতের।’

হজ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের এ প্রবীণ নেতা বলেন, ‘হজের জন্য ২০ লাখ লোক সৌদি আরবে গিয়েছে। এদের কোনো কাম নাই। এদের কোনো প্রডাকশন নাই। শুধু রিডাকশন দিচ্ছে। শুধু খাচ্ছে আর দেশের টাকা দিয়ে আসছে। গড়ে যদি বাংলাদেশ থেকে ১ লাখ লোক হজে যায় প্রত্যেকের পাঁচ লাখ টাকা করে ৫০০ কোটি টাকা খরচ হয়।
এসময় তাবলীগ জামাতের সমালোচনা করে মন্ত্রী বলেন, ‘তাবলীগ জামায়াত প্রতিবছর ২০ লাখ লোকের জমায়েত করে। নিজেদেরতো কোনো কাজ নেই। সারা দেশের গাড়িঘোড়া তারা বন্ধ করে দেয়।
মতবিনিময় সভায় টেলিভিশন টক শোরও কঠোর সমালোচনা করেন লতিফ সিদ্দিকী। তিনি বলেন, যারা টক শোতে যায়, তারা টক ম্যান। নিজেদের কোনো কাজ না থাকায় ক্যামেরার সামনে যেয়ে তারা বিড়বিড় করে। চু***ভাইদের আর কোনো কাজ নেই- এমন অশ্লীল শব্দ চয়নে মৃদু স্বরে কথা বলতে থাকেন তিনি। সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে প্রধানমন্ত্রী পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়কে নিয়েও সমালোচনাও করেন মন্ত্রী। তিনি প্রবাসী বাংলাদেশিদের উদ্দেশে বলেন, ‘কথায় কথায় আপনারা জয়কে টানেন কেন। ‘জয় ভাই’ কে? জয় বাংলাদেশ সরকারের কেউ নয়। তিনি কোনো সিদ্ধান্ত নেবারও কেউ নন।’

উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হিসেবে বর্তমানে নিউইয়র্ক সফর করছেন ডাক, তার ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী
অন্যদিকে সমসাময়িক রাজনীতিতে ৫ জানুয়ারী নির্বাচনের আগে কাদের সিদ্দিকীকে উচ্চ লম্ফ ঝম্ফ করতে দেখা গেলেও ১২ জানূয়ারী হাসিনা সরকার গঠনের মধ্য দিয়ে একটা নতুন সরকার এসে গেলে কাদের সিদ্দিকী নিজেকে এই সরকারের সাথে পুনরায় সম্পর্ক স্থাপনে উঠে পড়ে লাগেন। টাঙ্গাইলের উপনির্বাচনে যাওয়ার ঘোষণা দিয়ে নিজেকে একজন ক্ষমতালোভী রাজনীতিক হিসাবে প্রকটিত করেন।

এই প্রসঙ্গে রাজনৈতিক ধারা ভাষ্যকার ইয়ুসুফ আলী জননেতা ডট কম কে বলেন, এই দুই ভাই ১৯৭১ সালে যুদ্ধ করায় নিজেদের যে কি ভাবে তা একটু অনুধাবন করার দরকার। অতীতে এই কাদের সিদ্দিকীর  ব্রীজ চুরির কেলেংকারীর দায় কি আটকাতে পারবেন? আজ লতিফ সিদ্দীকির এই মূর্তি প্রত্যাশিতই ছিল।খুন, দুর্নীতি, নারীবাজি সবই করে চলেছেন তিনি যুগ যুগ ধরে ।গত সরকারে তার নিয়োগ আর বদলি বাণিজ্য সর্বকালের রেকর্ড ছাড়িযেছিল।এখন বর্তমান দায়িত্বে সুযোগ খুঁজছেন অসীম লুটপাটের।  ক্ষমতা তাকে এতটাই প্রভাবশালী করেছে  যে আজ তিনি ধর্ম তত্ব দিতেও দ্বিধা করছেন না।আপনারা যদি খেয়াল করে দেখেন,এই  দুই ভাইয়ের বডি ল্যাঙ্গুয়েজ খুবই আপত্তিকর। আমি বলবো লতিফ সিদ্দিকীর শুধু পদত্যাগ নয় এই সিদ্দিকী পরিবারের রাজনীতি নিষিদ্ধ করার সময় এসেছে।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
জুলাই ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুন    
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া