২৫শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং | ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

adv

শিক্ষকদের ‘দুষলেন’ মন্ত্রী

মোস্তাফিজুর রহমাননিজস্ব প্রতিবেদক : প্রাথমিক ও গণশিক্ষা বিষয়কমন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের দেওয়া সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ‘মানহীন’ শিক্ষার জন্য শিক্ষকদের দুষলেন।
শুক্রবার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট অডিটোরিয়ামে বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির অনুষ্ঠানে শিক্ষকদের এ দোষ দিলেন তিনি।
এর আগে সংগঠনের পক্ষ থেকে মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক ফজিলাতুন নেসা ইন্ধিরাকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। অনুষ্ঠানে সারাদেশ থেকে আসা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকরা অংশ নেন।
মন্ত্রী শিক্ষকদের উদ্দেশ্য করে বলেন, শিক্ষাকে যেন এগিয়ে নিতে পারি সেজন্যই আপনারা। আমরা শতভাগ ঝরে পড়া কমিয়ে ফেলেছি। তারপরও বলা হছে ‘মানসম্মত’ শিক্ষা হচ্ছে না। আমি সাক্ষ্য দিয়ে বলছি, মানসম্মত শিক্ষা হচ্ছে না।
মন্ত্রী দুইটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উদাহরণ দিয়ে বলেন, একটি বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণিতে ১৮ জন বাচ্চা। সেখানে ‘ক্লাস’ আর ‘টু’ বানান করতে বলা হয়েছে। একজন মাস্টারের বাচ্চা সেটা পেরেছেন। আর একজন বললেন টি ও- টু।’ আরো একজন পেরেছে, কারণ তার পরিবার সচেতন ও রেফারেন্স গ্র“পের (সচেতন পরিবার) ধারা প্রভাবিত।
‘প্রেজেন্ট গ্র“প (শিক্ষকরা) কোনো অবদান রাখেনি। প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সবসময় প্রেজেন্ট ও রেফারেন্স গ্র“পের প্রভাব থাকে। শিক্ষকদের দুর্বলতার জন্য সবসময় রেফারেন্স গ্র“প এগিয়ে থাকে। প্রাথমিকে শিক্ষকের কোনো অবদান দেখা যায় না উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন,‘শ্রেণিকক্ষে শিক্ষকের কোনো অবদান দেখি না।
প্রথম শ্রেণিতে কোনো শিশু প্রথম ‘বানান’ পারে না। তাহলে এসব শিশুরা কী শিখছে। তাহলে ইফেক্টিভ এডুকেশন হবে কী করে? প্রশ্ন করেন মন্ত্রী। শিক্ষকদের ‘সরাসরি’ দোষ দিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘শিক্ষকদের বাচ্চারা ভালো স্কুলে পড়ে। আপনারা চাচ্ছেন, আপনার বাচ্চা ভালো স্কুলে পড়ে আবার মাস্টার হবে। আর আমার বাচ্চারা ‘গন্ডমুর্খ’ থেকে যাক।’
তিনি বলেন, এ পরিস্থিতি বাংলাদেশের সব প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। একা এ পরিস্থিতি পরিবর্তন করা যাবে না। টিমওয়ার্কের মাধ্যমে কাজ করলে পরিবর্তন সম্ভব। মাস্টার (শিক্ষক) বদলি করলে সব সমস্যার সমাধান হবে না বলে জানান মন্ত্রী।
শিক্ষকদের দায়িত্ব সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, আপনারা যে কাজের জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত সেটা করুন। এ দায়িত্বের জন্য শুধু সরকার নয়, আপনাদের বিবেকের কাছেও দায়ী থাকবেন।
যারা শিক্ষক ও বিদ্যালয়ের সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধির কাজে নিয়োজিত তারা সঠিকভাবে না দেখে শুধু জনপ্রিয়তার জন্য এসব করে যাচ্ছে। তবে তারা শিক্ষার মানোন্নয়নের জন্য কাজ করছে না।
সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সংগঠনের সভাপতি আবদুল আওয়াল তালুকদাদের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক শ্যামল কান্তি ঘোষ, সচিব কাজী আখতার হোসেন প্রমুখ।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
নভেম্বর ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« অক্টোবর    
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া