১৬ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং | ২রা পৌষ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

adv

মেলবোর্নে বঙ্গবন্ধু পরিষদের উদ্যোগে শোকসভা

MEL-1 মফিজুল ইসলাম (মেলবোর্ন থেকে) : গত ২৬শে অগাস্ট মেলবোর্নের হপার্স ক্রসিং এর সেন্ট্রাল পার্ক এ বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের জন্য একটি শোকসভা আয়োজন করে। মেলবোর্নে বসবাসরত বাংলাদেশিরা এতে স্বতঃফুর্তভাবে অংশগ্রহণ করে। এক মিনিট নীরবতা এবং জাতীয় সঙ্গীতের মাধ্যমে অনুষ্ঠানটি শুরু করেন বঙ্গবন্ধু পরিষদের সহ সভাপতি ড. সানিয়াত ইসলাম ও সেহেরুন্নেছা রুনা। 
অনুষ্ঠানে আগত অতিথিদের মঞ্চে আসন গ্রহণের পর স্বাগত বক্তব্যে  সভাপতি মফিজুল ইসলাম বলেন , বঙ্গবন্ধুর অবদান বাংলাদেশের আত্মার সাথে মিশে আছে, তিনি এবং বাংলাদেশ একই সুত্রে গাঁথা। বঙ্গবন্ধুকে ছাড়া বাংলাদেশ কল্পনা করা যায় না।বিদেশে থেকে দেশের বিরুদ্ধে সমস্ত ষড়যন্ত্র রুখে  দাঁড়ানোর আহ্বান জানান। তিনি না থাকলে আজকে আমরা নিজেদেরকে  বাংলাদেশি হিসেবে পরিচয় দিতে পারতাম না। তারপর বঙ্গবন্ধু পরিষদ, বাংলাদেশ (কেন্দ্রীয় কমিটি) অনুমোদিত বঙ্গবন্ধু পরিষদ, মেলবোর্ন, ভিক্টোরিয়া, অস্ট্রেলিয়ার নতুন কমিটি সবার সাথে পরিচয় করিয়ে দেন। 
MEL-2আগত অতিথিদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সহ-সভাপতি ড. আবুল কাশেম, সহ-সভাপতি জনাব ফেরদৌস মোল্লা, বিশেষ অতিথি বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা ও কলামিস্ট কাজী সেলিম, বঙ্গবন্ধু কাউন্সিল অস্ট্রেলিয়ার কোষাধ্যক্ষ মেহেদী রব এবং প্রধান অতিথি বঙ্গবন্ধু কাউন্সিল অস্ট্রেলিয়ার প্রেসিডেন্ট শেখ শামিমুল হক। 

অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আব্দুল কুদ্দুস, মোর্শেদ কামাল, যুগ্ম সম্পাদক গোলাম রহমান চোধুরী সাংগঠনিক সম্পাদক মাহফুযুর রহমান, কোষাধ্যক্ষ আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ, সহকারী কোষাধ্যক্ষ  নিজাম উদ্দিন মিয়াজী, মুস্রাফুল বারী, এহতেশামুল কবির সহ আরও অনেকে। 
সহ-সভাপতি ডা. আবুল কাশেম বলেন, বঙ্গবন্ধু মত নেতা না হলে, হয়ত এখনও পাকিস্তানিদের হাতে  শোষিত হতাম, পাকিস্তানিদের অন্যায় অত্যাচার ও বঙ্গবন্ধুর ত্যাগ স্মরণ করেন ও তার আদর্শে জীবন গড়ার আহ্বান জানান। বঙ্গবন্ধু না হলে বাংলাদেশি পাসপোর্ট নিয়ে বিদেশে আসতে  পারতাম না, হয়ত এখনও পাকিস্তানিদের হাতে শোষিত হতাম। 
সহ-সভাপতি ফেরদৌস মোল্লা সমস্ত শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের ও বঙ্গবন্ধুর শহীদ পরিবারকে স্মরণ করেন তাহাদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন। শেখ হাসিনার সরকারের বিরুদ্ধে সমস্ত ষড়যন্ত্র রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান।
বিশেষ অতিথি বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা জনাব কাজী সেলিম বলেন , বাংলাদেশ বাংলাদেশিদের কিন্তু বঙ্গবন্ধু সবার। প্রতিবেশী দেশ ভারতে বঙ্গবন্ধুর প্রচুর সমর্থক রয়েছে। বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী পরা উচিত। 
MEL-3প্রধান অতিথি শেখ শামিমুল হক বঙ্গবন্ধু কাউন্সিলের মাধ্যমে কিভাবে বঙ্গবন্ধুকে অস্ট্রেলিয়াতে একটি সার্বজনীন নামে পরিচিত করেছেন সেটার ইতিহাস তুলে ধরেন এবং ভবিষ্যত প্রজন্মের কাছে বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনীটি তুলে দিতে অনুরোধ করেন। বঙ্গবন্ধুকে কেন হাজার বছরের সেরা বঙ্গালী বলা হয় তার ব্যাখ্যা করেন। মানুষের মাঝে তিনি নিজেকে বিলিয়ে দিয়েছেন বলে তার ডাকে বাংলাদেশের সমস্ত মানুষ এক হয়ে সারা দিয়েছিল ও জাপিয়ে পড়েছিল। তিনি বলেন ৫৫ বৎসর জীবনে ১৩ বৎসর ছিলেন কারাগারে আর মাত্র ১২ বৎসর রাজনীতি জীবনে তিনি বাংলাদেশ এনে দিয়েছেন। বেগম মজিব তাকে 
সর্বদা সব কাজে সহযোগিতা করতেন।  তিনি বঙ্গবন্ধু পরিষদ ভিক্টোরিয়াকে এই অনুষ্ঠান আয়োজনের জন্য সাধুবাদ জানান এবং বঙ্গবন্ধু কাউন্সিল অস্ট্রেলিয়া ভবিষ্যত পথচলায় সাহায্যের অঙ্গীকার করেন। 
অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ থেকে বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ড. এস এ মালেক দূরালাপনীর মাধ্যমে যুক্ত হন এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শে  বলীয়ান হয়ে অস্ট্রেলিয়া থেকে বাংলাদেশের জন্য কাজ করে যাবার আহ্বান জানান। তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর মতোই জননেত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে একটি চক্র ষড়যন্ত্রে লিপ্ত এবং যেকোনো মূল্যে এদের রুখে দাঁড়াতে হবে। 
দূরালাপনীর মাধ্যমে যুক্ত হয়ে সংক্ষিপ্ত সময়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক সড়ক ও যোগাযোগ মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, উপস্থিত সকল বঙ্গবন্ধুর অনুসারি ও  বঙ্গবন্ধু পরিষদ ভিক্টোরিয়ার সকল কর্ম কর্তাগন কে শুভেচ্ছা জানান ও উপস্থিত সবাইকে এই শোক সমাবেশে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বাস্তবায়ন করার লক্ষ্যে কাজ করার আহ্বান জানান। 

সভাপতির বক্তব্যে, মফিজুল ইসলাম বলেন “মেলবোর্নে বঙ্গবন্ধু পরিষদ প্রতিষ্ঠা হওয়ার একটা কারণ ছিল বিদেশের মাটিতে রাজাকার-জামাত ইসলামি-জঙ্গি ও বাংলাদেশ সরকার  বিরোধিদের প্রোপাগান্ডা রুখে দাঁড়ানো। আমাদের যে স্বাধীনতা তিনি দিয়ে গেছেন তা সংরক্ষণ করতে হবে, শেখ হাসিনার সরকারের সাহায্য করতে হবে, জঙ্গি-রাজাকার-সন্ত্রাসিদের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নিতে হবে, বিদেশে থেকে বাংলাদেশের মাটি ও মানুষের জন্যে কাজ করে যেতে হবে। তিনি মেলবোর্নে নিজেদের মধ্যে দলাদলি না করে একসাথে দেশের জন্যে কাজ করে যাওয়ার আহ্বান জানান। 
সহ সভাপতি কাশেম বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের এবং ২১শে অগাস্টের হামলায় নিহতদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে দোয়া পরিচালনা করেন। এতে আরো জননেত্রী শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু এবং সকল ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সফলতা কামনা করা হয়। 
অনুষ্ঠান পরিচালনা ও স্বার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন বঙ্গবন্ধু পরিষদের সহ সভাপতি ডঃ সানিয়াত ইসলাম এবং সঞ্চালনায় ছিলেন সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদিকা সেহেরুন্নেসা রুনা। 
 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
ডিসেম্বর ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« নভেম্বর    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া