adv
২৫শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পটুয়াখালীতে কোটি টাকার দুর্নীতি – তদন্তের নির্দেশ হাইকোর্টের

ডেস্ক রিপোর্ট : পটুয়াখালী সড়ক ও জনপথের বেইলি ব্রিজের মালামাল নামমাত্র দামে নিলামে বিক্রির মাধ্যমে কোটি টাকার সম্পদ আত্মসাত ও দুর্নীতি তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে ওই নিলাম প্রক্রিয়া কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না জানতে চেয়ে ৩ সপ্তাহের রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।
বিচারপতি কাজী রেজাউল হক এবং বিচারপতি এবিএম আলতাফ হোসেনের সমন্বয় গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ জনস্বার্থে দায়ের করা এক রিট আবেদনের পরিপ্রেেিত এ আদেশ দেন। যোগাযোগ মন্ত্রণালয় সচিব, সড়ক ও জনপথের এর প্রধান প্রকৌশলী এবং বরিশাল সড়ক ও জনপথের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলীকে সংশ্লিষ্টদের সমন্বয় কমিটি গঠন করে তদন্তে অগ্রগতি প্রতিবেদন ১৬ জুনের মধ্যে আদালতকে জানাতে বলা হয়েছে। জনস্বার্থে রিট আবেদনটি করেন রাজীব বসু নামে পটুয়াখালীর এক সাংবাদিক। 
রিটের পে শুনানি করেন ব্যারিস্টার এমডি শামসুল হক খান, ব্যারিস্টার এম নাজমুল এবং অ্যাডভোকেট জেসমিন নাহার। আর রাষ্ট্রপে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিত রায়। 
শুনানিতে রিটকারীর আইনজীবী আদালতকে জানান, পটুয়াখালী সড়ক ও জনপথের বেইলি ব্রিজ এর কোটি কোটি টাকার মালামাল মাত্র সাড়ে ৫ লাখ টাকায় ৩টি প্রতিষ্ঠানের কাছে নিলামের মাধ্যমে বিক্রি করা হয়। মেসার্স গাজী ট্রেডিং কর্পোরেশন, মেসার্স কর্ণফুলি ইঞ্জিনিয়ারিং এবং মেসার্স নাজমা এন্টারপ্রাইজ নামে যে প্রতিষ্ঠান মালামালগুলো ক্রয় করে, সেই প্রতিষ্ঠানগুলোর কোনো অস্তিত্বই নেই। এছাড়া, যথাযথ নিয়ম অনুসরণ করে নিলাম প্রক্রিয়া অনুষ্ঠিত হয়নি। 
রিট আবেদনে অনান্য বিবাদী হলেন- পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক, পটুয়াখালী এসপি এবং জেলার নির্বাহী প্রকৌশলী।  ২০১৩-১৪ অর্থ বছরে ব্যবহার অনুপযোগী মরিচাধরা স্টীল ও লোহার মালামাল বিক্রয়
কোটেশন বিজ্ঞপ্তি, পিআরডি নং-১ (নিলাম) বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে দরপত্র আহবান করে সড়ক ও জনপদ পটুয়াখালীর কার্যালয়। গত ১১ মার্চ অনুষ্ঠিত হয় নিলাম। অভিযোগ ওঠে, ১১ গ্র“পের এই নিলামে ১০টি গ্র“পে ঘুরে ফিরে দরপত্র দাখিল করে অস্বীত্ববিহীন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মের্সাস গাজী ট্রেডির্ং কর্পোরেশন, মেসার্স কর্ণফুলী ইঞ্জিনিয়ারিং, মেসার্স নাজমা এন্টারপ্রাইজ। 
এসব প্রতিষ্ঠানের ঠিকানায় দরপত্র ফরমে উল্লেখ করা হয় খুলনা সিটি কর্পোরেশনের ৩৪, শেখপাড়া, মেইন রোড এলাকায় বাস্তবে এর কোন অস্তিত্ব নেই। সংবাদিকদের অনুসন্ধান উঠে আসে ওই ঠিকানার ৩৪ নং হোল্ডিয়ের ঠিকানায় রয়েছে, ৩৪ কেডিএ এ্যাভিনিউ, শেখপাড়া, মেইন রোড, সিটি কর্পোরেশন, খুলনা। ওই হোল্ডিং নম্বরের মালিক ডাঃ আলহাজ্ব বজলুল হক। বাড়ির দোতলায় রয়েছে ডাচ বাংলা ব্যাংকের একটি শাখা। মালিকের নিজস্ব পরিচালনায় রয়েছে তিন তলায় মেডিকেল এ্যসিষ্টান্ট ট্রেনিং স্কুল। 
নিচ তলায় রয়েছে গাড়ি পাকিংয়ের গ্যারেজ। এ ছাড়া কোন প্রতিষ্ঠান নেই ওই ভবনে। এমনকি প্রতিষ্ঠান গুলোর নামে খুলনা সিটি কর্পোরেশনের তালিকায় কোন ট্রেড লাইসেন্সও নেই। এসকল প্রতিষ্ঠানের কোন কিছু সঠিক না থাকলেও পরিকল্পিত ভাবে অনিয়ম ও দূর্নীতির আশ্রয় নিয়ে অবৈধভাবে পটুয়াখালী ষ্ট্যাক ইয়ার্ডে মজুদকৃত ৬০টনের বেইলী ব্রীজের ষ্টীল ও লোহার ব্যবহার অনুপযোগী মালামাল যোগসাজসে মাত্র ৫লাখ ৩৩হাজার ৮৬৩টাকা মূল্যে বিক্রির কার্যাদেশ দেন জেলার নির্বাহী প্রকৌশলী জহিরুল ইসলাম। 
২ লাখ ১৪ হাজার ৫৮৯ টাকা পটুয়াখালী সোনালী ব্যাংক নিউটাউন শাখায় জমা দেখিয়ে ১১মার্চ মেসার্স নাজমা এন্টারপ্রাইজ নামের প্রতিষ্ঠানকে ৩৮৬/১(৭) নং স্মারকে ১নং গ্র“প বাদ দিয়ে ২ থেকে ৫ নং গ্র“পের কার্যাদেশ প্রদান করা হয়। একই তারিখ ১লাখ ৫৯হাজার ৩১৫ টাকা একই ব্যাংকে জমা দেখিয়ে মের্সাস গাজী ট্রেডির্ং কর্পোরেশনকে ৩৮৭/১(৬) স্মারকে ৬ হইতে ৮নং গ্র“পের, ১লাখ ৫৯হাজার ৯৫৯ টাকা জমা নিয়ে স্মারক নং ৩৮৮/১(৫) মেসার্স কর্ণফুলী ইঞ্জিনিয়ারিং নামের প্রতিষ্ঠানকে ৯ থেকে ১১নম্বর গ্র“পের কার্যাদেশ প্রদান করেন কর্মকর্তা।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া