adv
১৭ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শ্রীলঙ্কাকে পাশেই পাচ্ছে বাংলাদেশ

52d4e53cb9614-srবাংলাদেশের সহিংস রাজনৈতিক পরিস্থিতি ভাবিয়ে তুলেছিল বিশ্ব ক্রিকেট অঙ্গনকেও। আর কয়েক মাস পরে বাংলাদেশেই যে শুরু হওয়ার কথা এশিয়া কাপ ও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। কিন্তু রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে গুরুত্বপূর্ণ এ দুটি প্রতিযোগিতা আয়োজনের সুযোগ বাংলাদেশ পাবে কি না, সেই আলোচনাতেই মুখর ছিল দেশের ক্রিকেটাঙ্গন। শেষ পর্যন্ত সব সংশয়-আশঙ্কা পেছনে ফেলে বাংলাদেশই পেতে যাচ্ছে আয়োজক হওয়ার সম্মান। আর এর পেছনে বড় একটা ভূমিকা পালন করছে শ্রীলঙ্কা। খেলোয়াড়দের নিরাপত্তার প্রশ্নে কোনো আপস না করলেও বাংলাদেশেই যেন এশিয়া কাপ ও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপটা অনুষ্ঠিত হতে পারে, সে জন্য সর্বাত্মক সহযোগিতাই করে যাচ্ছে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড।

আগামী ২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়ার কথা এশিয়ার সবচেয়ে বড় ক্রিকেট প্রতিযোগিতা এশিয়া কাপ। তার পরপরই ১৬ মার্চ থেকে শুরু হবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। তবে এ দুটি বড় প্রতিযোগিতার সাফল্য নির্ভর করছে শ্রীলঙ্কার বাংলাদেশ সফরের ওপর। চলতি মাসের শেষেই দুটি টেস্ট, দুটি টি-টোয়েন্টি ও তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলতে আসবেন লংকান ক্রিকেটাররা। নিরাপত্তাব্যবস্থা খতিয়ে দেখার জন্য ইতিমধ্যে বাংলাদেশে এসেছে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটের দুই সদস্যের প্রতিনিধিদল। সবকিছু ঠিক থাকলে ২৪ জানুয়ারি বাংলাদেশে পৌঁছানোর কথা শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলের।

অথচ এশিয়া কাপ ও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপটা বাংলাদেশ থেকে অন্য কোনো দেশে সরিয়ে নেওয়ার কথা চিন্তা করা হলে লাভবান হতে পারত শ্রীলঙ্কাই। বিকল্প ভেন্যু হিসেবে বিবেচনা করা হতো শ্রীলঙ্কাকেই। তার পরও বাংলাদেশেই যেন এ দুটি প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হতে পারে, সে চেষ্টাই করছে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড। মূলত দক্ষিণ এশিয়ায় যেন ক্রিকেটের ঘাঁটিটা শক্তিশালী হতে পারে, সেই চিন্তা থেকেই এমন সহযোগিতামূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে তারা। শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটের সেক্রেটারি নিশান্তে রানাতুঙ্গা সম্প্রতি বলেছেন, ‘খেলোয়াড়দের নিরাপত্তা অবশ্যই আমাদের মূল চিন্তার বিষয়। কিন্তু যদি আমরা বাংলাদেশ সফর করি তাহলে আমরা সবাইকে আশ্বস্ত করতে পারব যে, এই অঞ্চলে এখনো ক্রিকেটটা শক্তিশালী অবস্থাতেই আছে।’

২০০৯ সালে পাকিস্তান সফরে গিয়ে সন্ত্রাসী হামলার শিকার হতে হয়েছিল এই শ্রীলঙ্কাকেই। তারপর থেকে আর কোনো দেশই যায়নি পাকিস্তান সফরে। এখনো হোম সিরিজগুলো ইংল্যান্ড বা আরব আমিরাতে গিয়ে খেলতে হচ্ছে পাকিস্তানকে। এখন বাংলাদেশও যদি এরকম পরিস্থিতির মধ্যে পড়ে যায়, তাহলে সামগ্রিকভাবে এশিয়ার ক্রিকেট অঙ্গনই ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে মনে করছেন রানাতুঙ্গা, ‘এশিয়ায়, আমরা এখন পাকিস্তান সফরে যেতে পারি না। কিন্তু এ অঞ্চলটা যদি শক্তিশালী অবস্থায় থাকে তাহলে সেটাই আমাদের জন্য দীর্ঘমেয়াদে সুফল বয়ে আনবে। বাংলাদেশে অনেক ক্রিকেটপাগল মানুষ আছে। আর যদি সম্ভব হয়, তাহলে সেখানে গিয়ে খেলতে পারাটা গুরুত্বপূর্ণ।’

বাংলাদেশকে সহযোগিতার পেছনে কিছুটা কৃতজ্ঞতাবোধও কাজ করছে শ্রীলঙ্কার। কারণ তাদের সমস্যাপূর্ণ সময়ে অন্য কেউ না গেলেও শ্রীলঙ্কা সফরে গিয়েছিল বাংলাদেশ। সে কথাটাও স্মরণ করেছেন রানাতুঙ্গা। বলেছেন, ‘অতীতে আমাদেরও সমস্যার মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে। কিন্তু সেই সময় বাংলাদেশ সানন্দেই শ্রীলঙ্কা সফরে এসেছিল। আর যতক্ষণ পর্যন্ত আমাদের খেলোয়াড়দের কোনো নিরাপত্তা-ঝুঁকি না থাকে, আমরা বিসিবিকে সমর্থন-সহযোগিতা দিয়ে যাব।

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
January 2014
M T W T F S S
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া