adv
৪ঠা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সোয়েটার কারখানা তাহলে গার্মেন্টস শিল্পের বাইরে?

image_62935_0ঢাকা: পোশাক শ্রমিকদের ন্যূনতম বেতন বাড়িয়ে ৫ হাজার ৩০০ টাকা করা হলেও গার্মেন্টস শিল্পের আরেক গুরুত্বপূর্ণ অংশ সোয়েটার কারখানার শ্রমিকদের জন্য কোনো ন্যূনতম মজুরি নির্ধারণ করা হয়নি। ফলে তারা উপেক্ষিতই থেকে যাচ্ছে।



একই শিল্পের অন্য শ্রমিকদের বেতন বাড়লেও তাদের বেতন বাড়ানোর ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট কোনো প্রতিশ্রুতি না থাকায় বিক্ষোভে ফেটে পড়েছে সোয়েটার কারখানার শ্রমিকরা। সপ্তাহজুড়ে এ শ্রমিকদের বিক্ষোভ চলছে। সর্বশেষ সোমবার গাজীপুরের কাশিমপুর এলাকায় শিল্পপুলিশের সঙ্গে শ্রমিকদের সংঘর্ষে দুই শ্রমিক নিহত ও ১০ জন আহত হয়েছে।



পোশাক শিল্পের সুইং বিভাগের শ্রমিকদের জন্য মাসিক বেতন নির্ধারিত থাকলেও ওভেন শ্রমিকদের মজুরি নির্ধারণ করা হয় সংখ্যা (ডজন) হিসাবে।  পোশাক শিল্পে ন্যূনতম মজুরি ৬০ শতাংশ বাড়ানো হয়েছে। কিন্তু সোয়েটার কারখানার শ্রমিকদের ডজন হিসাবে মজুরি বাড়ানোর কথা মজুরি বোর্ড বলেনি।



এদিকে ন্যায্য দাবিতে আন্দোলনরত এ শ্রমিকদের গুলি করে হত্যা করে অধিকার আদায়ের আন্দোলন দাবিয়ে রাখা যাবে বলে হুঁশিয়ার করে দিয়েছেন সংশ্লিষ্ট শিল্পের শ্রমিক নেতারা। একই সঙ্গে গাজীপুরের কাশিমপুরে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর গুলিতে সোয়েটার কারখানা শ্রমিক নিহতের ঘটনায় জড়িত পুলিশ সদস্যদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন নেতারা। সোমবার রাতে টেলিফোনে বাংলামেইলের সঙ্গে আলাপকালে তারা এ দাবি জানান।



জানা গেছে, সোমবার বিকেলে কাশিমপুরের সারদাগঞ্জ এলাকায় ডিবিএল গ্রুপের প্রতিষ্ঠান জিএমএক্স কারখানার শ্রমিকরা মজুরি বাড়ানোর দাবিতে আন্দোলনে নামলে শিল্পপুলিশ গুলি চালায়। এসময় দুই জন কারখানা শ্রমিক নিহত এবং অন্তত ১০ জন আহত হয়।



নিহতরা হলেন- জিএমএক্স কারখানার শ্রমিক বাদশা মিয়া ও রুমা আক্তার। আহতদের সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।



এ বিষয়ে গার্মেন্ট শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদের সমন্বয়ক রফিকুল ইসলাম পথিক বাংলামেইলকে বলেন, ‘আইন শৃঙ্খলা বাহিনী শ্রমিকদের সঙ্গে যে আচরণ করেছে তা অমানবিক।’



তিনি বলেন, ‘শ্রমিকরা যখন তাদের ন্যায্য দাবিতে আন্দোলনে নেমেছে তখন পুলিশ লাঠিচার্জ করছে, গুলি করছে। আজ যেসব পুলিশের গুলিতে শ্রমিকেরা প্রাণ হারিয়েছে সেসব পুলিশের চাকরিচ্যুতি ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি। একই সঙ্গে শ্রমিকদের দাবি মেনে নেয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। তা না হলে গুলি করে এ আন্দোলন বন্ধ করা যাবে না। দাবি না মানলে আরো বৃহৎ আন্দলন গড়ে উঠবে।’



পথিক আরো বলেন, ‘সোয়েটার কারখানাও তো গার্মেন্টের অংশ। অন্য শ্রমিকরা মজুরি বেশি পেলে তারাওতো পাবে। কিন্তু তাদের বেতন বোনাস কোনোটাই বাড়ানো হচ্ছে না। তারা তাদের দাবি আদায়ে আন্দোলন করছে। তাদের এ দাবি যৌক্তিক। তাই এ দাবি মেনে নেয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।’



খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ডজন হিসাবে কাজ করে সোয়েটার কারখানা শ্রমিকরা। তারা চুক্তিভিত্তিক কাজ করে থাকে। তবে তাদের দাবি হচ্ছে, এ শিল্পের অন্য শ্রমিকদের বেতন ও অন্যান্য সুবিধা আগের তুলনায় ৬০ শতাংশ বাড়ানো হয়েছে। কিন্তু তাদের মজুরির কোনো পরিবর্তন হয়নি। তাই তাদের পূর্বের ডজন উৎপাদন মজুরির সঙ্গে ৬০ শতাংশ মজুরি বাড়ানোর দাবিতে আন্দোলনে নেমেছে তারা।



এ ব্যাপারে গার্মেন্ট শ্রমিক ঐক্য ফোরামের সভাপতি মোশরেফা মিশু বাংলামেইলকে বলেন, ‘মালিকপক্ষ এবং সরকার শ্রমিকদের সঙ্গে প্রতারণা করছে। মজুরি বোর্ড যে ঘোষণা দিয়েছে তাতে বলা হয়েছে, বেসিক বেতন থাকবে ৩ হাজার ২০০ টাকা। কিন্তু তা মন্ত্রণালয়ে গিয়ে আবার পরিবর্তন হয়ে গেছে। এর কোনো মানে হয় না।’



এসময় শ্রমিক নেতাদের খোঁজ পাওয়া যচ্ছে না অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘আমাদের অনেক নেতাকে এখন পাওয়া যাচ্ছে না। তারা নিহতের প্রতিবাদ করছে না। শ্রমিক নেতার নামধারী ওইসব লোক মালিক ও প্রশাসনের সঙ্গে আঁতাত করেছে।’



অন্য আরেক শ্রমিকনেত্রী নাজমা আক্তার বলেন, ‘শ্রমিদের ওপর গুলি করে কেউ কোনোদিন আন্দোলন থামাতে পারেনি। বাংলাদেশের প্রশাসনও পারবে না। তাই শ্রমিদের দাবি মেনে নিতে এবং যারা শ্রমিদের গুলি করে হত্যা করেছে তাদের শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।’



শ্রমিক নিহতের ঘটনায় শ্রমিক সংগঠনগুলোর কোনো কর্মসূচি থাকবে কি না জানতে চাইলে তারা বাংলামেইলকে এখন পর্যন্ত কোনো কর্মসূচির খবর জানাতে পারেননি। তবে মঙ্গলবার সকালে আলোচনার মাধ্যমে কর্মসূচির ঘোষণা দেয়া হবে বলে জানালেন তারা।

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
November 2013
M T W T F S S
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া