২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং | ১১ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

adv

ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ে পুরনো চেহারায় ছাত্রলীগ

1401002514ডেস্ক রিপোর্ট : ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা এবার বেধড়ক পেটালেন সাংবাদিক। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার প্রায় ২০ জন সংবাদকর্মী প্রীতি ফুটবল ম্যাচ খেলতে চেয়েছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় মল চত্বরে। ওখানে খেলছিলেন সূর্যসেন হলের কয়েক শিক্ষার্থী ও ক্যান্টিনের বয়রা। 
সাংবাদিকরা খেলার সুযোগ করে দেয়ার জন্য অনুরোধ করলে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা একজোট হয়ে রড, চাপাতি, হকিস্টিক ও দেশীয় অস্ত্রসহ তাদের ওপর হামলা চালায়। সাংবাদিকরা তাদের পরিচয় দেয়ার পর হামলাকারীরা নিবৃত্ত তো হয়ইনি, বরং আরও হিংস্র হয়ে ওঠে। ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের হামলায় আহত হয়েছেন ৯ সংবাদকর্মী। অবশ্য ঘটনার পর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও ছাত্রলীগের শুভবুদ্ধিসম্পন্ন নেতারা ঘটনায় জড়িত তিনজনকে ধরে শাহবাগ থানায় সোপর্দ করে। ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি সূর্যসেন হল শাখা কমিটিকে স্থগিতও ঘোষণা করেছে। একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করেছে ছাত্রলীগ।
ঢাবির সূর্যসেন হল শাখার ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা সাংবাদিকদের সঙ্গে যে আচরণ করেছেন, তাতে বিস্মিত হওয়ার কিছু নেই। বস্তুত, সামান্য কিছুতেই উত্তেজিত হয়ে পড়া এবং সেই উত্তেজনার বশে তাদের দৃষ্টিতে অন্যায়কারীর ওপর ঝাঁপিয়ে পড়া সাধারণভাবে তাদের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের মধ্যেই পড়ে। অতীতে অসংখ্যবার তারা এ ধরনের নজির সৃষ্টি করেছেন। শুধু প্রতিপক্ষ নয়, ব্যক্তি বা গ্র“প স্বার্থে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা সতীর্থদের ওপরও হামলা করতে দ্বিধা করে না। ঢাবিতে সাংবাদিক পেটানোর ঘটনা ঘটেছে যেদিন অর্থাত সোমবারেই যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের অন্তর্দ্বন্দ্বে নিহত হয়েছেন এক শিক্ষার্থী। ছাত্রলীগের এই যে ধারাবাহিক সন্ত্রাস ও খুন-খারাবি, এর শেষ কোথায়? 
আওয়ামী লীগ সরকার থেকে বিরোধী অবস্থানে গেলে বন্ধ হবে এসব? তার মানে আমাদের আরও অপেক্ষা করতে হবে বছরের পর বছর? আবার আওয়ামী লীগ বিরোধী অবস্থানে গেলে সন্ত্রাসে মেতে উঠবে ছাত্রদল? তার মানে সন্ত্রাসই জনগণের চিরন্তন নিয়তি!
আমরা বারবার সরকার তথা আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃত্বকে ছাত্রলীগ সামলানোর আহ্বান জানিয়েছি। দেশবাসীরও দাবি এটা। কিন্তু কোনো আহ্বান, অনুরোধ কাজে আসেনি। ছাত্রলীগ একটি সংঘবদ্ধ শক্তি। সরকার হয়তো এই শক্তিকে দুর্বল করতে চায় না, পাছে আওয়ামী লীগই দুর্বল হয়ে পড়তে পারে। সরকারের মন্ত্রী-এমপি-নেতারা যখন বলেন, জনগণ তাদের পক্ষে আছেন, তখন হয়তো তারা যুবলীগ, ছাত্রলীগ, শ্রমিক লীগ, কৃষক লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগের কর্মীদেরই বুঝিয়ে থাকেন। এটাই যদি হয় চিন্তাকাঠামো, তাহলে ছাত্রলীগ কর্মীদের বিরুদ্ধে অ্যাকশনে যাওয়ার কথা নয় তাদের। এক কথায় বললে, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসগুলো ছাত্রলীগ কর্মীদের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের জন্য এক অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে। এখানে সংঘটিত কোনো অপরাধেরই বিচার হয় না। কেন? বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস কি আলাদা স্বাধীন কোনো টেরিটরি? সরকারের কাছে এ প্রশ্নের উত্তর চায় দেশবাসী। আ:বা:

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
সেপ্টেম্বর ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া