১১ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

ঐক্যফ্রন্ট ৩০০ আসনে নির্বাচন পরিচালনায় সমন্বয় কমিটি করছে

নিজস্ব প্রতিবেদক : ধানের শীষের নির্বাচন পরিচালনার জন্য সারাদেশে ৩০০টি আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমন্বয় কমিটি গঠন করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ফ্রন্টের প্রধান সমন্বয়ক বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু।

মঙ্গলবার (৪ ডিসেম্বর) বিকেলে রাজধানীর প্রীতম-জামান টাওয়ারে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত ঢাকা মহানগর সমন্বয় কমিটির সভায় তিনি এ কথা জানান।

বরকত উল্লাহ বুলু বলেন, “প্রতিটি সংসদীয় আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমন্বয় কমিটি হবে। এই সমন্বয় কমিটির মাধ্যমে ধানের শীষ প্রতীকে ভোট হবে। ঢাকা শহরের প্রত্যেকটি অলি-গলি-পাড়াতে এবং সারাদেশে সংসদীয় আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমন্বয় কমিটির মাধ্যমে ধানের ভোট পরিচালনা হবে।”

তিনি জানান, এরইমধ্যে প্রত্যেক জেলায় চিঠি চলে গেছে। তারা (জেলার দায়িত্বশীল নেতারা) অলরেডি কাজ শুরু করে দিয়েছেন। যেহেতু জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রতীক একটাই— ধানের শীষ, সেহেতু এখানে বিভেদ সৃষ্টির কোনো সুযোগ নেই। যেখানে যে ব্যক্তিটি উপযুক্ত, রাজনৈতিক অবস্থান যার শক্ত, তিনিই হবেন সমন্বয় কমিটির প্রধান।

বরকত উল্লাহ বুলু বলেন, “সারাদেশে ৭৮৬ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে— এটি একটি নজিরবিহীন ঘটনা। এর মধ্যে বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের রয়েছেন ১৪১ জন— এটা একটা ন্যাক্কারজনক ঘটনা। সমস্ত ব্যাংক আজ আওয়ামী-লুটেরাদের দখলে। ব্যাংকের মালিক তারা। তাদের কোনো প্রার্থী আর্থিক ঋণ খেলাপির কারণে বাতিল হয়েছে বলে আমাদের জানা নেই।”

“কিন্তু এস এম কিবরিয়ার ছেলে রেজা কিবরিয়ার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে ক্রেডিট কার্ডের সাড়ে পাঁচ হাজার টাকার ঋণ রিনিউ করা হয়নি বলে। খুলনার অ্যাডভোকেট শফিকুল হক মনা একজনের গ্যারান্টার ছিলেন, টাকাও পরিশোধ করে দিয়েছেন, তারপরও তার মনোনয়ন বাতিল করে দিয়েছেন। আবার অনেকের ৬-৭ কোটি টাকা গ্যাস বিল বাকি থাকার পরও তাদের মনোনয়ন বৈধ বলে ঘোষণা করেছেন। এমন অনেক ঘটনা এ দেশে আছে”— বলেন বুলু।

তিনি বলেন, “এমন একটা পরিস্থিতির মধ্যে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তো নেই-ই, তারপরও আপনারা দেখেছেন বিতর্কিত এসপি— যিনি আমাদের চিফ হুইপ জয়নুল আবদীন ফারুকের ওপর নৃশংসভাবে হামলা করেছে, তাকে বেধরক মারধর করেছে, গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে যার ন্যাক্কারজনক পক্ষপাতিত্বের কারণে ধানের শীষের জনপ্রিয় প্রার্থী হাসান উদ্দিন সরকার হেরেছেন, তাকে আবার নারায়ণগঞ্জে পোস্টিং দেওয়া হয়েছে।”

“এ অবস্থার মধ্যেও আমরা নির্বাচনে আছি। প্রতিদিন প্রতিটি জেলায় ৬০, ৭০, ৮০ জন করে আমাদের নেতাকর্মী গ্রেফতার করা হচ্ছে। নতুন নতুন মামলা হচ্ছে। আবার পুরোনো মামলায় আমাদের নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হচ্ছে। এ অবস্থার মধ্যে বাংলাদেশের নির্বাচন কীভাবে হবে আমরা বলতে পারি না”— বলেন বরকত উল্লাহ বুলু।

বাড়ি বাড়ি গিয়ে পোলিং এজেন্টদের হুমকি দেওয়া হচ্ছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, “সমস্ত বাংলাদেশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থপনা কমিটি আওয়ামী লীগের এমপি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানরা দখল করে আছে। তারা ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের ওপর প্রভাব বিস্তার করছেন, নির্দেশনা দেওয়ার চেষ্টা করছেন। বলছেন যে, সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করলে আপনাদের চাকরি থাকবে না।”

“এ রকম বিভীষিকার মধ্যে সব কিছু বিবেচনা করে আমাদের নেতাকর্মীদের বলতে চাই, আগামী ৮ তারিখের পরে ধানের শীষের পক্ষে কাজ করে বাংলাদেশে নতুন বিপ্লব ঘটাতে চাই। প্রতিকূল অবস্থার মধ্য থেকেই আমরা বিজয় ছিনিয়ে আনতে চাই”— বলেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের লিয়াজোঁ কমিটির এই সদস্য।

তিনি বলেন, “মানুষ এই দুঃশাসন থেকে মুক্তি চায়, নারকীয় অবস্থা থেকে মুক্তি চায়, ব্যাংক লুটেরাদের হাত থেকে মানুষ মুক্তি চায়, কর্তৃত্বপরায়ণ সরকারের হাত থেকে মানুষ মুক্তি চায়।”

জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ঢাকা মহানগরের সমন্বয়ক বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালামের সভাপতিত্বে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতা ও কৃষক-শ্রমিক-জনতা লীগের সাধারণ সম্পাদক তালুকদার হাবিবুর রহমান, যুগ্ম মহাসচিব ইকবাল সিদ্দিকী, বিএনপির সহ-প্রচার সম্পাদক শামীমুর রহমান শামীম, তাঁতীদল নেতা জাহাঙ্গীর আলম মিন্টুসহ অন্যরা।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
ডিসেম্বর ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« নভেম্বর    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া