১৮ই আগস্ট, ২০১৯ ইং | ৩রা ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

সরকারি সা’দত কলেজের সব কার্যক্রম স্থগিত

image_63057টাঙ্গাইল: টাঙ্গাইলে সরকারি সা’দত কলেজে ভাঙচুর করেছেন কতিপয় ছাত্ররা। এ সময় তারা কলেজের অভ্যন্তরীণ পরীক্ষার হলে ঢুকে পরীক্ষার্থীদের বের করে খাতা ও প্রশ্নপত্র ছিঁড়ে ফেলেছেন। এ প্রতিবাদে শিক্ষকরা কলেজের সব পরীক্ষা ও অনার্স প্রথম বর্ষের ভর্তি বন্ধসহ সব কার্যক্রম স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

মঙ্গলবার এ ঘটনা ঘটেছে।



সা’দত কলেজের অর্থনীতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মিয়া জানান, কলেজের ব্যবস্থাপনা বিভাগের ৪র্থ বর্ষের ছাত্র রেজাউল করিমকে গত বৃহস্পতিবার শহরের মেজর জেনারেল মাহমুদুল হাসান মার্কেটের সামনে থেকে হেরোইনসহ আটক করে পুলিশ। খবর পেয়ে তাকে ছাড়িয়ে না নেয়ায় নামধারী একদল ছাত্র অধ্যক্ষের বাসভবনে মামলা চালিয়ে ব্যপক ভাঙচুর করেন।



শনিবার দুপুরে অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের অভ্যন্তরীণ পরীক্ষা চলাকালীন একদল বহিরাগত ছাত্র পরীক্ষার হলে ঢুকে পরীক্ষার্থীদের বের করে দেন। এসময় তারা অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে বিভিন্ন স্লোগান দিয়ে একাডেমিক ভবনে ভাঙচুর চালান। পরে ডিগ্রি পাশ কোর্সের প্রথম বর্ষের ছাত্র সোহাগ বাবুসহ আরও কয়েকজন তাদের চাহিদামত সিট বরাদ্দ দাবি করেন। তাদের এ দাবি না মানা হলে কলেজের মহিলা হোস্টেলের সুপার ইতিহাস বিভাগের সহকারী অধ্যাপক এসএম সোলায়মান কবিরকে কলেজ থেকে বের করে দেয়াসহ তাকে প্রাণনাশের হুমকি দেন তারা।



এর প্রতিবাদে শিক্ষকরা ক্যাম্পাসে তাৎক্ষণিক মৌন মিছিল বের করেন। গত সোমবার দুপুরেও এ ঘটনায় দোষীদের বিচার দাবি টাঙ্গাইল শহরের নিরালা মোড়ে মানববন্ধন ও সমাবেশ করেন শিক্ষকরা।



সমাবেশে বক্তব্য দেন- সা’দত কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর রফিকুল ইসলাম মিয়া, উপাধ্যক্ষ প্রফেসর আনসার আলী, বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতির কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি এসএম ওয়াহিদুজ্জামান প্রমুখ। পরে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবে তারা সাংবাদিক সম্মেলন করেন।



এদিকে, মঙ্গলবার আবার কলেজে হামলা চালিয়ে পরীক্ষার সব খাতা ও প্রশ্নপত্র ছিড়ে ফেলা হয়েছে। একই সময় উপাধ্যক্ষের কক্ষ, প্রধান অফিস সহকারীর কক্ষ, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণ কক্ষসহ প্রায় সব বিভাগের সেমিনার কক্ষে ব্যাপক ভাঙচুর চালানো হয়েছে। বিশেষ করে ইতিহাস বিভাগের সব কিছু তারা ভেঙে ফেলা হয়েছে।



এর প্রতিবাদে শিক্ষকরা কলেজের সব পরীক্ষা ওই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।



ঘটনার পরপরই পুলিশ ও টাঙ্গাইল জেলা ছাত্রলীগের নেতারা কলেজে উপস্থিত হয়ে আগামী বৃহস্পতিবার ঘটনা মীমাংসার জন্য বৈঠকে বসার প্রস্তাব দেয় শিক্ষকদের। শিক্ষকরা এতে রাজি হয়েছেন।



কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম মিয়া ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, বৃহস্পতিবার পর্যন্ত এ কর্মসূচিই চলবে। যদি এর কোনো মীমাংসা না হয় তাহলে পরবর্তীতে কর্মসূচি জানানো হবে।

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
আগষ্ট ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুলাই    
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া