২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং | ১১ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

adv

টাকা না দেয়ায় সাংবাদিক আশিককে জে‌লে পাঠাল পুলিশ

ASHIKনিজস্ব প্রতিবেদক : টাকা না পে‌য়ে ডেইলি অবজারভারে ফটো সাংবাদিক আশিক মোহাম্মদের প‌কে‌টে ইয়াবা ঢুকি‌য়ে জে‌লে পা‌ঠি‌য়ে‌ছে পু‌লিশ, এমনই অভি‌যোগ ক‌রে‌ছেন তার প‌রিবার ও সহকর্মীরা। ঘটনাটি ঘটে ঈদুল ফিতরের পরদিন গত ২৭ জুন দিবাগত রাতে।

আশিকের বাবা অসুস্থ প্রবীণ ফটো সাংবাদিক ফরহাদ হোসেন। মা গৃহিনী। বাবা-মায়ের একমাত্র সন্তান আশিক মধ্যরাতে রাজধানীর রামপুরায় একটি অনুষ্ঠান শেষে দক্ষিণ বনশ্রীর বাসায় ফিরছিলেন। রামপুরা থেকে বনশ্রী রাস্তা খারাপ থাকায় তিনি শান্তিনগর হয়ে বাসায় ফিরছিলেন। পথিমধ্যে শান্তিনগর বাজারের বিসমিল্লাহ হোটেলের সামনে তাকে আটকায় পল্টন থানার টহল পুলিশ।

এরপর পুলিশ তাকে তল্লাশি করে। তিনি নিজেকে সাংবাদিক পরিচয় দেন। কিন্তু কিছু না পেলেও পুলিশ তাকে আটক করেছে বলে জানায় আশিকের স্বজনরা।

তারা আরও জানায়, পরবর্তী সময়ে আশিক ছাড়াও ভিন্ন ভিন্নস্থান থেকে আটক আরও দুই জনের বিরুদ্ধে ইয়াবা রাখার অভিযোগ এনে মাদকদ্রব্য প্রতিরোধ আইনে মামলা দায়ের করে পুলিশ।

আশিক মোহাম্মদের মা আশিয়া বেগম ব‌লেন, এক লাখ টাকা না দেওয়ায় আমার ছেলের পকেটে ইয়াবা ট্যাবলেট ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছে। চক্রান্ত করে আমার ছেলেকে ফাঁসিয়ে জেলে পাঠিয়েছে পুলিশ। তার সঙ্গে কোনো ইয়াবা ট্যাবলেট ছিলো না। ‌তি‌নি আরও ব‌লেন, ২৭ জুন (ঈদের পরদিন) আমার ছেলে রাত ১২ টার পর তার বন্ধুর সঙ্গে দেখা করে বাসায় ফেরার সময়। টহল পুলিশের একটি দল শান্তিনগর কাঁচাবাজারের কাছে আশিকের মটরসাইকেল থামায়। সেখানে তার সাথে পুলিশের কথাবার্তা এবং তর্কবিতর্ক হয়। পুলিশ তার মোবাইল ফোন কেড়ে নেয় এবং মারধর করে ভ্যানে তোলে। বিভিন্ন জায়গায় ঘোরানোর পর রাত দুইটার দিকে তাকে থানায় নিয়ে যায়। সেখানে আর এক দফা মারধর করলে তার নাকমুখ দিয়ে রক্ত পড়া শুরু হয়। এরপর তাকে বলা হয় যে এক লাখ টাকা দিলে তাকে ছেড়ে দেওয়া হবে। নইলে মাদকের মামলার আসামী হিসেবে কোর্টে চালান দেওয়া হবে। আশিক বলে যে, সে পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত দিতে পারবে। এর বেশি দেওয়ার সামর্থ্য তার নেই।

আশিয়া বেগম বলেন, ঘটনার পর দিন ভোরে আমার ছেলে আমাকে ফোন করে বলে আম্মু আমাকে পুলিশে ধরেছে আমি বললাম কেনো ধরেছে? আশিক বলে আমার কাছে নাকি ইয়াবা পাওয়া গেছে! আম্মু বিশ্বাস কর আমার কাছে ইয়াবা ছিলো না। আমাকে ইয়াবার কথা বলা হচ্ছে। এখন আমার কাছে এক লাখ টাকা দাবি করছে, যদি না দেই তাহলে আমাকে ছাড়বে না, মামলা দেওয়া হবে। এই বলে কল কেটে দেওয়া হয়। এরপর আমি আশিকের এক বন্ধুকে নিয়ে থানায় যাই ততক্ষণে ওরে পকেটে ইয়াবা পাওয়া গেছে এই অভিযোগ লাগিয়ে মামলা দিয়ে তাকে কোর্টে চালান করে পুলিশ।

‌তি‌নি ব‌লেন, প‌রে ছে‌লে‌কে কোর্টে নিয়ে যাওয়া হয়। কোর্টে নিয়ে যাওয়ার পরে এক পুলিশ আমাকে ডেকে বলে আপনি কি আশিকের আম্মু? আপনার ছেলের সাথে পুলিশের কোনো শত্রুতা আছে? আমি বললাম, জানিনা। তাহলে কেনো তাকে মাদকের মামলা দেওয়া হয়েছে?

ডেইলি অবজারভার পত্রিকার চীফ রিপোর্টার পুলক ঘটক ফেসবুকে লিখেছেন, ‘সাংবাদিকতায় যারা অনেকদিন আছেন তারা সবাই ফটো সাংবাদিক ফরহাদ হোসেনকে জানেন। তিনি ডেইলি নিউ নেশনে আমার সহকর্মী ছিলেন। অনেকদিন যাবত ফরহাদ ভাইকে জাতীয় প্রেসক্লাবসহ সাংবাদিকতার কোনো অঙ্গনেই দেখা যায় না। তিনি পক্ষাঘাতগ্রস্ত এবং আট বছর যাবত শয্যাশায়ী। একটি মাত্র সন্তান, আশিক মোহাম্মদ বাবার পেশা বেছে নিয়েছে। মেধাবী ফটো সাংবাদিক আশিক বর্তমানে ডেইলি অবজারভারে কর্মরত। ফরহাদ ভাই যেমন নিরীহ এবং শান্ত স্বভাবের, তার ছেলে আশিক মোহাম্মদও তেমনি। পেশার বাইরে বাবার চিকিৎসা খরচ যোগানো, মায়ের ভরণপোষণ, বাসাভাড়া ইত্যাদির বাইরে আর কোনো কিছু নিয়ে তার মধ্যে কখনো কোনো উদ্বেগ দেখিনি। সহকর্মীদের আর সবার মত আশিকও ঈদের ছুটিতে ছিল। ঈদের পর সে আর পত্রিকায় যোগ দেয়নি। হঠাৎ নিরুদ্দেশ! সহকর্মীদের কেউ জানেনা সে কোথায়। এক, দুই করে পুরো সপ্তাহ অফিসে অনুপস্থিত থাকায় আমরা তার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করি। ফরহাদ ভাই খুব একটা কথাবার্তা বলতে পারেন না। আশিকের বৃদ্ধা মা কাঁদতে কাঁদতে আমাদের চিফ ফটোগ্রাফার জীবন আমীরকে জানান তাদের ছেলে ঈদের পরদিন থেকে নিখোঁজ। “কয়েকদিন আগে থানা থেকে একজন পুলিশ ফোন করেছিল। তিনি জানিয়েছেন আশিক ইয়াবা’র মামলায় জেলে আছে। ঐ পুলিশ আমাকে জিজ্ঞাসা করেছিল আপনার ছেলের সাথে কোনো পুলিশ অফিসারের শত্রুতা আছে কি না? আমি বলেছি, এমন কোনো শত্রুতার কথা জানি না। জবাবে তিনি বলেন, তাহলে এরকম একটা মামলা দিল কেন?” ঘটনাটি জানার পর আমাদের গোটা অফিস হতভম্ব হয়ে যায়। আমাদের আশিক ইয়াবা ব্যবসায়ী! আশিক যদি এরকম অপরাধে যুক্ত হয়ে থাকে তাহলে অবশ্যই তাকে চাকরি থেকে সাসপেন্ড করা দরকার। আর যদি সে নিরাপরাধ হয়ে থাকে তাহলে তার পাশে দাঁড়ানো উচিৎ। পক্ষে বা বিপক্ষে কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে আমরা ডেইলি অবজারভারের পক্ষ থেকে বিষয়টির খোঁজ খবর নিতে শুরু করি। আমি একাধিক রিপোর্টার এবং ফটোগ্রাফারকে দায়িত্ব দেই প্রকৃত সত্য উদ্ঘাটনের। আশিকের পরিবার, বন্ধুবান্ধব, পরিচিতজন এবং পুলিশসহ অনেকের কাছে তার ব্যাপারে খোঁজ খবর নেওয়া হয়। জেলখানায় আশিকের সাথে আমাদের তিনজন সাংবাদিক দেখা করেন। আমি নিজেও চারজন পুলিশের সাথে কথা বলেছি। প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী ২৭ জুন (ঈদের পরদিন) রাত ১২ টার পর টহল পুলিশের একটি দল শান্তিনগর কাঁচাবাজারের কাছে আশিকের মটর সাইকেল থামায়। সেখানে তার সাথে পুলিশের কথাবার্তা এবং তর্কবিতর্ক হয়। পুলিশ তার মোবাইল ফোন কেড়ে নেয় এবং মারধর করে ভ্যানে তোলে। বিভিন্ন জায়গায় ঘোরানোর পর রাত দুইটার দিকে তাকে থানায় নিয়ে যায়। সেখানে আর এক দফা মারধর করলে তার নাকমুখ দিয়ে রক্ত পড়া শুরু হয়। এরপর তাকে বলা হয় যে এক লাখ টাকা দিলে তাকে ছেড়ে দেওয়া হবে। নইলে মাদকের মামলার আসামী হিসেবে কোর্টে চালান দেওয়া হবে। আশিক বলে যে সে পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত দিতে পারবে। এর বেশি দেওয়ার সামর্থ্য তার নেই। পরদিন আশিকের পকেটে ইয়াবা পাওয়া গেছে এই অভিযোগ লাগিয়ে তাকে কোর্টে চালান করে পুলিশ। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পল্টন থানার এসআই মিজানুর রহমানের সাথে আমি কথা বলেছি। এর আগে আমাদের আরো কয়েকজন প্রতিবেদক তার সাথে কথা বলেছে। তিনি একেকজনকে একেক কথা বলেছেন। আমি জিজ্ঞাসা করেছিলাম, “আপনি কি মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা হিসেবে আশিকের পরিবারের সাথে কথা বলেছিলেন কিংবা কোনো খোঁজখবর নিয়েছিলেন?” তিনি বলেছেন, “না।” আশিক অবজারভারের ফটো সাংবাদিক হিসেবে পরিচয় দিয়েছিল। আপনি কি অবজারভার অফিসে খোঁজ নিয়েছেন, কিংবা অবজারভারে তার কোনো সহকর্মীর সাথে কথা বলেছেন? তিনি উত্তরে বলেছেন, “না।” আশিকের বন্ধুবান্ধব, আত্মিয়স্বজন কিংবা তার পরিমণ্ডলের কারও সাথে কোনো কথা বলেছেন? উত্তরে তিনি বললেন, “ভাই শোনেন, মাদকের মামলায় এসব খোঁজ নেওয়ার কোনো প্রয়োজন হয় না। কারও কাছে মাদকদ্রব্য পাওয়া গেলে সেটাই যথেষ্ট।” আমি বলেছিলাম, “একজন ব্যক্তি সাংবাদিক পরিচয় দিল, কিন্তু সে আদৌ সাংবাদিক কি না সেটাও কি জানার প্রয়োজন নেই? তার পরিবার এবং অফিসকে জানানোরও কি কোনো প্রয়োজন নেই? তাকে আটকের কথা এবং তার সাথে ইয়াবা দিয়ে তাকে আদালতে পাঠানোর অভিযোগ সম্পর্কে তিনি বলেন, “এসব আশরাফ সাহেবকে বলেন। আমি এসবের কিছুই জানি না। এএসআই আশরাফ তাকে ধরেছে। কিভাবে ধরা হয়েছে, কি পাওয়া গেছে এর সবই তার বর্ণনা। আমি শুধু আমার দায়িত্ব পালন করেছি। জিজ্ঞেস করেছিলাম, “আশিকের মোবাইল ফোন এবং মটরসাইকেল কোথায় আছে?” উত্তরে তিনি বললেন, “আশারাফের কাছে আছে।” জিজ্ঞেস করলাম, “তিনি এসব থানায় জমা দেননি?” উত্তরে বললেন, “না দেয়নি।” আমি বললাম, “আশিক যদি মাদক ব্যবসায়ী হয় তাহলে তো তার সাথে একটি গ্যাং জড়িত থাকার কথা। কাদের সাথে তার যোগাযোগ, সেদিন সে কার সাথে কথা বলেছিল, এসব খোঁজ করেননি? উত্তরে তিনি বলেন, “মোবাইল কললিষ্ট চেক করি নাই। আশরাফের কাছে মোবাইল পেলে বিষয়টি দেখব।” আশিকের কাছ থেকে এক লাখ টাকা দাবি করার বিষয়ে জিজ্ঞাসা করলে তিনি সেই অভিযোগ অস্বীকার করেন। আমাদের আরেক সহকর্মীর সাথে আলোচনায় এই তদন্তকারী কর্মকর্তা বলেছেন, “ওকে ছেড়ে দেওয়া যেত। কিন্তু মারধর করার পর তার চোখমুখ দিয়ে রক্ত পড়তেছিল। ঐ অবস্থায় ছেড়ে দিলে, সাংবাদিক মানুষ, যদি বিষয়টা অন্যদিকে গড়ায়- এই জন্য ওকে কোর্টে চালান করা হয়েছে।” আশিককে আটককারী এএসআই আশরাফকেও এসব বিষয় জিজ্ঞাসা করেছিলাম। তিনি যথারীতি একই ধরণের উত্তর দিয়েছেন। তাকে বলেছিলাম, আশিকের কাছে কতগুলো ইয়াবা পাওয়া গেছে। উত্তরে বললেন, “এটা আমার মনে নাই। সিজার লিষ্ট দেখে বলতে হবে।” এক পর্যায়ে তাকে বলেছিলাম, “ভাই, একজন লোক সাংবাদিক পরিচয় দিল। তাকে মারধর করলেন এবং শেষে ইয়াবা ব্যবসায়ী হিসেবে ধরিয়ে দিলেন। লোকটা আদৌ সাংবাদিক কিনা তার খোঁজও নিলেন না? অবজারভারকে না জানান, আপনাদের পরিচিত দু’একজন সাংবাদিকের কাছেওতো খোঁজ নিতে পারতেন। ঈদের ছুটির মধ্যে গোপনে এরকম একটা কাজ করলেন?” উত্তরে তিনি বলেন, আপনাকে আর কি বলব! সে যে রকম ব্যবহার করেছিল! সে পুলিশকে পুলিশই মনে করেনা।” আমি বললাম, “হ্যা ভাই আপনারা পুলিশ, আর আমরা দেশের নাগরিকরা আপনাদের অনুগত। আপনাদের অনেক ক্ষমতা।”

আশিককে আটককারী এএসআই আশরাফ জানান, তি‌নি অসুস্থ। কাউ‌কে ফাঁসানো হয়নি। তারা ২ জন ছিলো, এক মটরবাইকে। তাদের দুজনের কাছে ১০ পিছ করে ২০ পিছ ইয়াবা পাওয়া গেছে। আমি তাকে ফাঁসাতে যাব কেন!

এদি‌কে এক অনুষ্ঠা‌নে শ‌নিবার দুপু‌রে সাংবা‌দিক‌দের প্র‌শ্নের জবা‌বে বাংলা‌দেশ পু‌লি‌শের মহাপ‌রিদর্শক (আই‌জি‌পি) একেএম শহীদুল হক ব‌লে‌ছেন, ডেইলি অবজারভারের ফটো সাংবাদিক আশিককে মিথ্যা মামলা দেওয়ার বিষয়ে পুলিশের কেউ দায়ি থাকলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ জন্য তদন্ত কমিটি গঠন করা হ‌বে।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
সেপ্টেম্বর ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া