adv
৩রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রানার যাবজ্জীবন হতে পারে

ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম / ফাইল ফটোনিজস্ব প্রতিবেদক : সাভারের রানা প্লাজা ট্র্যাজেডির ঘটনায় দায়ের করা মামলার অভিযোগ প্রমাণিত হলে সর্বোচ্চ যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হতে পারে ধসে পড়া ভবনটির মালিক সোহেল রানাসহ অন্যান্য আসামিদের। 
গত বছরের ২৪ এপ্রিল রানা প্লাজা ধসের পর সাভার থানায় মামলা করেন ওই থানার এসআই ওয়ালী আশরাফ খান। সে সময় দণ্ডবিধির ৩৩৭/৩৩৮/৩০৪ক ও ৩৪ ধারায় মামলা দায়ের করা হয়।
ধারাগুলোর মধ্যে অবহেলার ফলে সংঘটিত মৃত্যু সংক্রান্ত ৩০৪ক হলো সর্বোচ্চ ধারা। এ ধারায় সর্বোচ্চ সাজা হলো পাঁচ বছর। এ ধারায় বলা আছে, ‘যে ব্যক্তি দণ্ডনীয় নরহত্যা বলে গণ্য নয় এরুপ কোনো বেপরোয়া বা তাচ্ছিল্যপূর্ণ কাজ করে কোন ব্যক্তির মৃত্যু ঘটায়, সে ব্যক্তি যে কোন বর্ণনার কারাদণ্ড যার মেয়াদ পাঁচ বছর পর্যন্ত হতে পারে বা অর্থদণ্ড বা উভয়দণ্ড হতে পারে’। 
ঢাকার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের অতিরিক্ত পিপি আনোয়ারুল কবির বাবুল বাংলানিউজকে জানান, মামলা দায়েরের পর এ সংক্রান্ত লেখালেখি হলে পরবর্তীতে ১৩ আগস্ট মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডি’র সহকারী পুলিশ সুপার বিজয় কৃষ্ণ কর মামলাটিতে ৩২৩/৩২৫/৩২৬/৩০৭ ও ৩০৪ ধারা সংযোজন করেন। 
তিনি আরও জানান, মামলায় সংযোজিত ৩০৪ ধারায় খুন বলে গণ্য নয় এরুপ দণ্ডনীয় নরহত্যার শাস্তি বর্ণনা করা হয়েছে। এ ধারার সর্বোচ্চ শাস্তি যাবজ্জীবন কারাদণ্ড। সোহেল রানাসহ অন্যান্য আসামিদের বিরুদ্ধে এ ধারায় অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাদের সর্বোচ্চ যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হতে পারে। 
রানা প্লাজা ধসে শ্রমিক হতাহতের ঘটনাকে হত্যাকাণ্ড উল্লেখ করে ২০১৩ সালের ৫ মে ভবন ধসে নিহত জাহাঙ্গীর আলমের স্ত্রী শিউলি আক্তার দণ্ডবিধির ৩০২ ধারায় ঢাকার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। 
এ মামলায় উল্লেখ করা হয়, গত বছরের ২৩ এপ্রিল রানা প্লাজায় ব্যাপক ফাটল দেখা দিলে শ্রমিকদের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়। ওইদিন তাড়াহুড়া করে নামতে গিয়ে কয়েক শ্রমিক আহতও হন। এসময় আসামি সোহেল রানা, সাভার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, ইঞ্জিনিয়ার, গার্মেন্টসের মালিকরা ও ইটিভির স্থানীয় প্রতিনিধি উপস্থিত হন। এ সময় রানা সাংবাদিকদের বলেন, ‘এ এমন কিছু না’।
উক্ত ভবনটি যে কোন সময় ভেঙ্গে পড়ে শ্রমিকদের মৃত্যু হতে পারে জেনেও আসামিরা গত ২৪ এপ্রিল শ্রমিকদের চাকরির ভয় দেখিয়ে ভবনে প্রবেশে বাধ্য করেন। ফলে তার স্বামীসহ অন্যান্য হতাহতের ঘটনা ঘটে। 
শিউলি আক্তারের দাবি অনুযায়ী মামলাটিতে ৩০২ ধারা সংযোজন করা হবে কিনা জানতে চাইলে অতিরিক্ত পিপি বাবুল বলেন, মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তা তদন্তে যে যে ধারার উপাদান পাবেন তিনি সেসব ধারা চার্জশিটে সংযোজন করবেন। এখানে আমাদের বলার কিছু নেই। 
রানা প্লাজা ধসের মামলার তদন্তে ৩০২ ধারার উপাদান পাওয়া গেছে কিনা কিংবা ৩০২ ধারা চার্জশিটে সংযোজন করা হচ্ছে কিনা জানতে চাইলে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডি’র সহকারী পুলিশ সুপার বিজয় কৃষ্ণ কর বলেন, মামলার সম্ভাব্য সব ধারা মাথায় রেখেই তদন্ত করা হয়েছে। চার্জশিটে কোন কোন ধারা সংযোজন করা হচ্ছে তদন্তের খাতিরে এখনই তা বলা সম্ভব হয়। 
মামলা দু’টির তদন্ত প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে। তবে এপ্রিলে মামলার চার্জশিট হচ্ছে না। আগামি ২১ মে ধার্য তারিখের আগেই মামলা দু’টির চার্জশিট দাখিল করা সম্ভব হবে বলে তিনি বাংলানিউজকে জানিয়েছেন। 
২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল রানা প্লাজা ধসের ঘটনা ঘটে। এর ধ্বংসস্তুপ থেকে ২ হাজার ৪৩৮ জনকে জীবিত এবং ১ হাজার ১১৭ জনকে মৃত উদ্ধার করা হয়। পরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও ১৯ জন মারা যান। সব মিলিয়ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়ায় ১ হাজার ১৩৬ জনে। 
এ ঘটনায় দায়ের করা দু’টি মামলার মধ্যে একটি মামলা করেছেন সাভার থানার এসআই ওয়ালী আশরাফ খান। তিনি গত বছরের ২৫ এপ্রিল সাভার থানায় ফৌজদারি কার্যবিধিতে একটি মামলা দায়ের করেন।  
অপর মামলাটি দায়ের করেন রাজউকের অথরাইজড অফিসার হেলাল আহম্মেদ। তিনি ২৪ এপ্রিল ভবন ধসের দিনই জাতীয় ইমারত বিধি লঙ্ঘনের দায়ে মামলাটি দায়ের করেন।  বর্তমানে সিআইডির সহকারী পুলিশ সুপার বিজয় কৃষ্ণ কর মামলা দু’টি তদন্ত করছেন।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া