adv
২৫শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঝলসানো গণতন্ত্র

a7একাত্তর সালে মুক্তিযুদ্ধে বীরত্বপূর্ণ অবদান ছিল কাদের সিদ্দিকীর। টাঙ্গাইল এলাকার কাদেরিয়া বাহিনী ছিল পাক বাহিনীর আতঙ্ক। কিন্তু বিজয়ের পর প্রকাশ্যে বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে রাজাকার হত্যা করে আšত্মর্জাতিক অঙ্গনে মুক্তিযোদ্ধাদের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার দায়ও তার। মুক্তিযুদ্ধের পর বঙ্গবন্ধুর স্নেহধন্য কাদের সিদ্দিকী পেয়েছেনও অনেক। সবচেয়ে কম বয়সে জেলা গভর্নর হওয়ার কৃতিত্ব পেয়েছেন বঙ্গবন্ধুর আনুকূল্যেই। প্রতিদানও দিয়েছেন। পচাত্তরের ১৫ আগস্টের পর জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদ করেছেন। পালিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন ভারতে। তারপর দীর্ঘদিন সেখানে পালিয়ে ছিলেন।  আমার মনে আছে, ছাত্রজীবনে কাদের সিদ্দিকীকে ফিরিয়ে আনার দাবিতে অনেক সেøাগান দিয়েছি। এরশাদ পতনের পর কাদের সিদ্দিকী যেদিন দেশে ফিরলেন, সেদিনও ব্যক্তিগত আগ্রহে বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলাম। দেশে ফিরে তিনি আওয়ামী রাজনীতিতে সক্রিয় হয়েছেন, এমপি হয়েছেন। কিন্তু পরে নানা প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির হিসাবে আওয়ামী লীগ ছেড়ে নতুন দল গড়েছেন। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় দলত্যাগ, দল গঠন করতেই পারেন। কিন্তু অতি আওয়ামী বিরোধিতা করতে গিয়ে তিনি আস্তে আস্তে জামায়াতের আঁচলতলে ঠাই নিয়েছেন।
 
তিনি নিয়মিত নয়াদিগšত্ম পত্রিকায় লিখছেন, দিগšত্ম টিভিতে টক শো করেছেন। মত প্রকাশের স্বাধীনতায় যে কেউ যে কোথাও লিখতে পারেন, বলতে পারেন। কিন্তু বীর মুক্তিযোদ্ধা কাদের সিদ্দিকী যখন জামায়াতের মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানে লেখেন, বলেন; তখন কষ্ট হয়। মুক্তিযুদ্ধের ওপর তার লেখা বই পড়ে কম বয়সে অনেক থ্রিল অনুভব করেছি। পরে অবশ্য দ্বিতীয় পাঠে মনে হয়েছে বইজুড়ে আমিত্ব। এই আমিত্বই তার অস্তিত্বজুড়ে, তাকে ঘিরে রাখে, পতন ত্বরান্বিত করে। তার অধঃপতন দেখে শুরুতে কষ্ট হলেও এখন করুণা হয়। কষ্ট হয় নিজের জন্য, এমন একজন ভন্ড লোকের জন্য ছেলেবেলায় এতটা আবেগ পুষে রেখেছিলাম। হায়! শাহবাগের গণজাগরণ মঞ্চে জানাযা পড়লে রাজপথের পবিত্রতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন, কিন্তু নিজে গ্রেপ্তার এড়াতে বিএনপি অফিসের সামনের রাস্তায় গামছা বিছিয়ে নামাজে দাড়িয়ে যান। তাকে ভন্ড ছাড়া আর কী বলা যায়? একাত্তরের বীরত্বের জন্য তার একটি স্বআরোপিত উপাধি ছিল ‘বঙ্গবীর’। অবশ্য এখন আমি তাকে ‘ভন্ডবীর’ বলি। এই ভন্ডবীর কাদের সিদ্দিকী সেদিন এক নতুন তত্ত্ব দিয়েছেন। সেদিন সন্ধ্যায় তিনি বিরোধী দলীয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার প্রতি সহানুভূতি জানাতে গিয়েছিলেন। খালেদা জিয়ার ডাকা ৮৪ ঘণ্টার হরতাল চলাকালে তার সাথে দেখা করতে তিনি গিয়েছিলেন গাড়িতে চড়ে। পরে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেছেন, রাজনীতিবিদরা হলেন ফায়ার সার্ভিসের মত। জাতির প্রয়োজনে তারা হরতালেও গাড়ি চড়তে পারেন। এমনকি তিনি নিজেও যদি হরতাল ডাকেন, তাও প্রয়োজনে গাড়ি চড়বেন। এরপর তাকে ভন্ডবীর বললে আশা করি আপনারা কেউ মাইন্ড করবেন না।
 
সাধারণত হরতাল আহ্বানের সময় আহ্বানকারীরা আওতামুক্তের তালিকা দেন। তাতে থাকে ফায়ার সার্ভিসসহ জরুরী সেবা, অ্যাম্বুলেন্স, গণমাধ্যম, ঔষধ পরিবহন, ঔষধ ও খাবারের দোকান ইত্যাদি। কাদের সিদ্দিকী তত্ব অনুযায়ী সেই তালিকায় এবার যুক্ত হলো রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দও। তারমানে শুধু সাধারন মানুষ হরতালের আওতায় থাকবেন। বাকি সবাই হরতালের সময় নির্বিঘেœ চলাচল করতে পারবেন। হরতালের আওতামুক্ত হলেও প্রায়শই গণমাধ্যমের গাড়ি, সংবাদপত্রবাহী গাড়ি এমনকি অ্যাম্বুলেন্সও হামলার শিকার হয়। পার্ক করা গাড়িও আগুনে পোড়ে, পুড়ে মরে গাড়িতে ঘুমিয়ে থাকা শিশু মনিররা। কিন্তু রাজনীতিবিদরা বরাবরই ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকেন। তারা যা কিছু করেন, সব জাতির প্রয়োজনে। বাসায় থাকা বেগম খালেদা জিয়াকে সহানুভূতি জানাতে কাদের সিদ্দিকীর যাওয়াটা জাতির কোন প্রয়োজনে লাগে তা ভন্ডবীরই বলতে পারবেন।
 
হরতাল অবশ্যই গণতান্ত্রিক অধিকার। শাসক যখন প্রতিবাদের সব পথ বন্ধ করে দেয়, তখন বাধ্য হয়ে হরতাল ডাকা ছাড়া আর কোনো উপায় থাকে না। আমি নিজেও ছাত্রজীবনে এরশাদবিরোধী আন্দোলনের সময় হরতাল সমর্থন করেছি, পিকেটিং করেছি। কিন্তু আন্দোলনের শেষ কর্মসূচি হরতাল এখন হয়ে দাড়িয়েছে সবচেয়ে সহজ এবং প্রাথমিক কর্মসূচি। কথায় কথায় যখন তখন হরতাল ডাকা হয়। আগে পরীক্ষা বা ধর্মীয় অনুষ্ঠানের দিন হরতাল দেয়া হতো না। আর এখন পরীক্ষার দিন বেছে বেছে হরতাল দেয়া হয়। গত ৪ নভেম্বর শুরু হওয়ার কথা ছিল জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষা। সেদিন থেকে টানা ৬০ ঘণ্টার হরতাল শুরু করে বিরোধী দল। এরপর থেকে ১০ দিনে ৭ দিন হরতাল পালিত হয়েছে। আর এই হরতালে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে ক্লাশ এইটে পড়-য়া শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার সময়সূচি। এখন তাদের শুক্র শনিবারেও পরীক্ষা দিতে হচ্ছে। আমাদের সময় জেএসসি পরীক্ষা ছিল না। এসএসসি পরীক্ষাই ছিল আমাদের প্রথম পাবলিক পরীক্ষা। ২৮ বছর পরও আমি এসএসসি পরীক্ষার আগের দিনগুলোর উত্তেজনা টের পাচ্ছি। ভেবে অবাক হই কীভাবে এই সাংঘাতিক চাপ সামলে পরীক্ষার হল পর্যন্ত যেতে পেরেছিলাম। এ ধরনের পাবলিক পরীক্ষার কয়েক মাস আগে থেকে প্রস্তুতি চলে। রুটিন পাওয়ার পর পরীক্ষার্থীরা এক ধরনের পরিকল্পনা করে। কোন পরীক্ষার আগে কতটা গ্যাপ আছে, কী ধরনের প্রস্তুতি নিতে হবে, তা নিয়ে চলে নানা আয়োজন। বিশেষ করে অঙ্ক আর ইংরেজী পরীক্ষার আগে বাড়তি গ্যাপ পেলে খুশী হয় পরীক্ষার্থীরা। এসএসসি পরীক্ষার্থীদের চেয়ে জেএসসি পরীক্ষার্থীদের বয়স দুই বছর কম। আমি যে বয়সে এসএসসি পরীক্ষার চাপ সামলাতে হিমশিম খেয়েছি, তার দুই বছর কম বয়সে তারা একটি পাবলিক পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে, এটাই তাদেও প্রতি সহানুভূতি জানানোর জন্য যথেষ্ট। কিন্তু তারওপর যখন শেষ মুহুর্তে রুটিন লন্ডভন্ড হয়ে যায়, তখন তারা কিভাবে পরীক্ষার হলে বসে, ভেবে আমি আতঙ্কিত হয়ে যাই। তারা পারছে, আমি পারতাম কিনা যথেষ্ট সন্দেহ আছে। নিশ্চয়ই পরীক্ষার্থীরা রোববারের বিষয়ে প্রস্তুতি নেয়ার জন্য শুক্র-শনিবারকে রিজার্ভ রেখেছিল। শেষ মুহুর্তে তাদেও শুক্র-শনিবারেও পরীক্ষার হলে বসতে হয়েছে। তাহলে রোববারের পরীক্ষার প্রস্তুতি সে কখন নেবে। লাখ লাখ শিশুর মনোজগতে যে ওলটপালট ঘটিয়ে দিলেন তার ক্ষতিপূরণ কিভাবে দেবেন রাজনীতিবিদরা। অবশ্য এই শিশুদের কথা ভাবতে বয়েই গেছে তাদের। তারা কিভাবে ক্ষমতায় যাওয়া যাবে সেই মহাগুরুত্বপূর্ণ জাতীয় ইস্যু নিয়ে ব্যস্ত। সেই ভাবনায় শিশুরা ঢুকবে কিভাবে? এক নেতা খুন হওয়ার ঘটনায় গত শুক্রবার ধর্মঘট ডেকেছিল পরিবহন শ্রমিকরা। কিন্তু হরতালের কারণে পিছিয়ে দেয়া পরীক্ষা ছিল সেদিন। পরীক্ষার্থীদের কথা বিবেচনা করে পরিবহন শ্রমিকরা দুপুর ১২টায় ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নিয়েছিল। সেদিন আমার খুব কান্না পেয়েছে। হায়, পরিবহন শ্রমিকরা পরীক্ষার জন্য ধর্মঘট প্রত্যাহার করে আর রাজনীতিবিদরা পরীক্ষার দিন বেছে বেছে হরতাল দেয়।
 
বিরোধী দল হরতাল ডাকে সরকারের বিরুদ্ধে। কিন্তু হরতালে সরকারের কী ক্ষতি হয়? সরকারি অফিস, ব্যাংক-বীমা, শেয়ারবাজার সবই খোলা থাকে। প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রীদের সব কর্মসূচি ঠিক থাকে। কষ্ট হয় খালি সাধারন মানুষের। বিশেষ করে দিনমজুরদের। যারা প্রতিদিন শ্রম বেঁচে পেট চালান, তারা কাজ পান না। ক্ষতি হয় ব্যবসায়ীদের- ক্ষুদ্র, বড়, মাঝারি- সব ব্যবসায়ীদের। অসুবিধা হয় শিক্ষার্থীদের, সাধারণ মানুষের। তাহলে বিরোধী দল সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে কী অর্জন করতে চায়? হরতাল ডাকা যেমন বিরোধী দলের গণতান্ত্রিক অধিকার, হরতাল প্রত্যাখ্যান করাও তেমনি সাধারণ মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার। বিরোধী দল যদি তাদের অধিকার প্রয়োগ করে, সাধারণ মানুষ কেন তাদের অধিকার প্রয়োগ করতে পারবে না?
 
আওয়ামী লীগ নেতারা আজ হরতালের বিরুদ্ধে বলতে বলতে মুখে ফেনা তুলে ফেলছেন। শুনে আমার হাসি পায়। এই আওয়ামী লীগ কী দিনের পর দিন হরতাল করে, হরতালের বিরোধিতা করার নৈতিক অধিকার অনেক আগেই হারিয়ে ফেলেনি?
 
আগেই লিখেছি, হরতাল এখন সবচেয়ে সহজ এবং প্রাথমিক কর্মসূচি হয়ে গেছে। হরতাল ডেকে নেতারা ঘরে বসে আরাম করেন, কর্মীরাও ঝুঁকি নিতে চান না। খালি কিছু ককটেল, পেট্রোল কেনার টাকা; আর সেগুলো ব্যবহার করার জন্য কয়েকজন ভাড়াটে ছিঁচকে মাস্তান হলেই হরতাল সফল। অথচ হরতালের বদলে সমাবেশ, মানববন্ধন, ঘেরাও, অবরোধ করতে টাকা লাগবে, কর্মী লাগবে, জনগণের অংশগ্রহণ লাগবে। এই কষ্টটা তারা করতে চাননা।
 
বিরোধী দলের ডাকা এবারের হরতালের চরিত্রটাই অন্যরকম- নিষ্ঠুর, নির্মম, অমানবিক। যারা মুখে জনগণের কথা বলেন, জনগণের জন্য রাজনীতি করেন; তারা কীভাবে এতটা নিষ্ঠুর হতে পারেন ভেবে পাই না। গত ২৬ অক্টোবর থেকে ১৩ নভেম্বর পর্যন্ত ১০ দিনের হরতালে মারা গেছেন ২৬ জন, আহত হয়েছেন হাজারেরও বেশি। প্রায় ৫০০ যানবাহন ভাংচুর বা পোড়ানো হয়েছে। কয়েক হাজার ককটেল বিস্ফোরিত হয়েছে, উদ্ধার হয়েছে হাজারখানেক। কিন্তু চরম নিষ্ঠুরতা হলো এবার ৭৬ জন ককটেল বা আগুনে পুড়েছেন। আগুনে পুড়ে মারা গেছেন ৩ জন। ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ন ইউনিট যেন এখন হরতালের নির্মমতার দলিল হয়ে আছে। একেকটা জীবন্ত মানুষকেই যেন মমি বানানো হয়েছে। এই মানুষগুলো বেচে থেকেও সারাজীবন সমাজের, দেশের, পরিবারের বোঝা হয়ে থাকবে। কতগুলো সংসার পুড়ে গেল বিরোধী দলের নেতারা কী দেখেছেন। জীবšত্ম মানুষকে পুড়িয়ে মারার এই নিষ্ঠুরতাটা কিছুতেই আমার মাথায় ঢোকে না। এটা কিভাবে সম্ভব। থেমে থাকা গাড়িতে আগুন দিয়ে ঘুমন্ত মানুষকে মারতে হবে কেন? বিরোধী দলীয় নেত্রী অসুস্থ অনেককে দেখতেই হাসপাতালে যান। আমার অনুরোধ, প্লিজ আপনি একবার, বার্ন ইউনিট ঘুরে আসুন। দেখে আসুন কিভাবে ঝলসে গেছে গণতন্ত্র। সরকারের একগুঁয়েমি, বিরোধী দলের নিষ্ঠুরতার শিকার কেন বারবার আমরা, সাধারণ মানুষেরাই হবো।

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
November 2013
M T W T F S S
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া