২০শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ৫ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

তৃণমূল-জামায়াত সংশ্লিষ্টতা তদন্ত করছে দিল্লি

ডেস্ক রিপোর্ট : পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল সাংসদ আহমেদ হাসান ইমরানের বিরুদ্ধে দেশটির অর্থলগ্নিকারী প্রতিষ্ঠান সারদা গ্র“পের লোপাট হওয়া বিপুল অর্থ ব্যবহার করে বাংলাদেশে অস্থিরতা সৃষ্টির যে অভিযোগ উঠেছে, তার তদন্ত চলছে বলে জানিয়েছেন ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং।
শুক্রবার দিল্লিতে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি অনুষ্ঠানে রাজনাথ সিং এ কথা জানান বলে খবর প্রকাশ করেছে পশ্চিমবঙ্গে দৈনিক আনন্দবাজার পত্রিকা।
এর আগে শুক্রবার আনন্দবাজার বাংলাদেশে ২০১২-১৩ সালে আন্দোলনের নামে জামায়াতে ইসলামী এবং শিবির কর্মীরা যে সহিংসতা চালিয়ে ছিল তার পেছনে পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল সরকার অর্থ ঢেলেছে বলে খবর প্রকাশ করে। এর পেছনে সরাসরি কলকাঠি নাড়ার জন্য পত্রিকাটি তৃণমূল সাংসদ আহমেদ হাসান ইমরানকে দায়ি করে। যা বাংলাদেশ ও ভারত উভয় দেশেই তোলপাড় সৃষ্টি করে।
শুক্রবার প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনের প্রেক্ষিতে শনিবার পত্রিকাটি আরেকটি পাল্টা প্রতিবেদনে জানায়, এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং বলেন, “আইন আইনের পথেই চলবে। এতে আমরা কোনও হস্তক্ষেপ করব না।
শনিবারের প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, ইমরানের ‘সন্দেহজনক’ ভূমিকা নিয়ে রাজ্যের গোয়েন্দা, কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা এমনকি বাংলাদেশি গোয়েন্দা সংস্থাও যে সংশ্লিষ্ট মহলে নিয়মিত সতর্কবার্তা পাঠিয়ে এসেছে, তার প্রমাণ মিলেছে ইতোমধ্যেই। এবার খোদ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তদন্তের কথা জানিয়ে দেওয়ায় আরও এক দফা অস্বস্তি বেড়েছে তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্বের। রাজ্যের শাসক দল অবশ্য এরজন্য বিজেপিকে কাঠগড়ায় তুলেছে। তাদের দাবি, ইমরান সংখ্যালঘু মুসলমান বলেই তাকে জড়িয়ে ‘অপপ্রচার’ চালানো হচ্ছে। পাশাপাশি তৃণমূল তাদের দলীয় ওয়েবসাইটে শুক্রবার আনন্দবাজারের ওই প্রতিবেদনের কড়া সমালোচনা করেছে।
ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রের বরাত দিয়ে আনন্দবাজার জানায়, বিষয়টি অত্যন্ত সংবেদনশীল। কারণ রাজ্যসভার এক সাংসদের বিরুদ্ধে দেশবিরোধী কাজের অভিযোগ উঠেছে। তাছাড়া, সারদা কেলেঙ্কারির তদন্ত করছে দেশটির গোয়েন্দা প্রতিষ্ঠান সিবি আই। যারা সরাসরি কাজ করেন প্রধানমন্ত্রীর অধীনে। বস্তুত সেই কারণেই রাজনাথ শুক্রবার বিষয়টির বিস্তারিত ব্যাখ্যা দেওয়া থেকে এড়িয়ে যান।
প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, ভারতের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দারা জানিয়েছেন, ইমরানের ভূমিকা কখনোই সন্দেহের ঊর্ধ্বে ছিল না। দীর্ঘদিন তিনি ভারতে নিষিদ্ধ মৌলবাদী সংগঠন স্টুডেন্টস ইসলামিক মুভমেন্ট অব ইন্ডিয়া (সিমি)-র পশ্চিমবঙ্গ শাখার সভাপতি ছিলেন। ২০০১ সালে সিমিকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় সরকার। কিন্তু স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মনে করে, তত দিনে সিমির শিকড় গোটা দেশে ছড়িয়ে গিয়েছে। তলে তলে ভারত-বিরোধী কাজে এখনও সক্রিয় রয়েছে তারা। এমনকি জঙ্গি কাজকর্মের জন্য টাকাও তুলছে। দেশটির কেন্দ্রীয় গোয়েন্দাদের অনুমান, এই ধরনের কাজে ইমরানের মতো প্রাক্তন সিমি নেতারাও জড়িত। এই সূত্রেই এসে পড়ছে ইমরানের সারদা ও জামায়াত সংশ্লিষ্টতার প্রসঙ্গ।
ভারতের কেন্দ্রীয় গুরুতর জালিয়াতি তদন্ত সংস্থা বা এসএফআইও তাদের রিপোর্টে সম্প্রতি জানিয়েছে, সারদা গোষ্ঠীর টাকার একটি বড় অংশ যুক্তরাষ্ট্র ও পশ্চিম এশিয়ায় পাচার হয়ে গিয়েছে। তাই বাংলাদেশ হয়ে ওই টাকা পাচার হওয়ার সম্ভাবনাও উড়িয়ে দিচ্ছে না গোয়েন্দারা। ইমরানের বিরুদ্ধে অভিযোগ, পাচার হওয়া টাকার একটি অংশ তিনি দিয়েছেন জামায়াতে ইসলামীর তহবিলে। সেই টাকা বাংলাদেশে অ¯ি’রতা তৈরিতে ব্যবহার করা হয় বলে গোয়েন্দাদের দাবি।
একটি সূত্রের বরাত দিয়ে আনন্দবাজার বলছে, বাংলাদেশে গণহত্যার অপরাধে কাদের মোল্লার ফাঁসি ঘোষণা হওয়ার পর কোলকাতার ধর্মতলায় বেশ কিছু সংগঠন প্রতিবাদ জানিয়েছিল। জামায়াত ও সিমির মদদেই ওই কাজ হয়েছিল এবং তাতে ইমরানের সক্রিয় ভূমিকা ছিল বলেই জানতে পেরেছে কেন্দ্র।
যদিও ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সৈয়দ আকবরউদ্দিন শুক্রবার বলেছেন, ‘বাংলাদেশের ভারতীয় দূতাবাস থেকে এই (ইমরান) সংক্রান্ত কোনও রিপোর্ট আমরা পাইনি। আজ বিকেল ৪টা অবধি আমরা যোগাযোগে ছিলাম। তখনও পর্যন্ত রিপোর্ট আসেনি।’
আকবরউদ্দিনের কথার সূত্র ধরেই তৃণমূলের ওয়েবসাইটে একটি বিবৃতি দিয়ে বলা হয়েছে, ‘পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জানিয়েছেন, তৃণমূলের টাকা বাংলাদেশে পাঠানো হয়েছে বলে আনন্দবাজারে যা প্রকাশিত হয়েছে তা সম্পূর্ণ ভুল।’ তবে ভারতীয় কূটনীতিবিদদের একাংশের বক্তব্য, দুই দেশের সম্পর্ক জড়িত, এমন একটি স্পর্শকাতর বিষয়ে কখনওই নির্দিষ্ট করে ‘হ্যাঁ’ বা ‘না’ বলা হয় না। তবে আনন্দবাজারের দাবি দেশের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী যে ভাবে জোর দিয়ে তদন্তের কথা জানিয়েছেন, তাতেই তাদের প্রতিবেদনের সত্যতার বিষয়টি স্পষ্ট হয়।
বিবৃতির পাশাপাশি শুক্রবার ইমরানের হয়ে বলার জন্য তৃণমূলের হয়ে আনন্দবাজারের সমালোচনা করেছেন দলটির বর্ষীয়ান নেতা সুব্রত মুখোপাধ্যায় এবং ফিরহাদ (ববি) হাকিম।
সুব্রত মুখোপাধ্যায় বলেন, “সংবাদমাধ্যম ‘অপ্রীতিকর ও অসত্য’ খবর প্রকার করছে। জামায়াত-সিমিকে জড়িয়ে, আমাদের দলের সঙ্গে আর্থিক লেনদেনের কথা তুলে যে সব খবর প্রচার করা হচ্ছে। এত কুর“চিকর সংবাদ ইদানিং কালে দেখিনি! ওই সব অভিযোগের পক্ষে তথ্যপ্রমাণ হাজির করার জন্য ভারতের সংবাদমাধ্যমকে চ্যালেঞ্জও করেছেন সুব্রত। না হলে তারা আইনের আশ্রয় নিতে পারেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।
পাশাপাশি সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের অভিযোগ, এর পিছনে বিজেপি রয়েছে। তারা প্রাদেশিকতা, সংঘর্ষ ছড়াতে চাইছে। প্রয়োজনে রক্ত দিয়েও দাঙ্গাবাজদের রাজনীতিকে আমরা রুখব!
এই অভিযোগ প্রসঙ্গে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে বিজেপির পর্যবেক্ষক সিদ্ধার্থনাথ সিংহ বলেন, ওরা আদালতে গেলে ভালই হয়। আমি ওদের আদালতে স্বাগত জানাচ্ছি। সংখ্যালঘু বলে ইমরানকে আক্রমণ করার প্রশ্নই নেই। তিনি দেশদ্রোহিতায় যুক্ত। তাই তার সমালোচনা করা হচ্ছে।
এদিকে জামায়াত প্রসঙ্গ নিয়ে সোচ্ছার হয়েছে পশ্চিমবঙ্গের বিরোধী দল সিপিএম। শুক্রবার দলটির সাংসদ মহম্মদ সেলিম বলেন, তৃণমূল বলছে, ইমরান সংখ্যালঘু বলে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হচ্ছে। বরং মুসলিম হিসেবেই ওই সাংসদের আরও ইমানদার হওয়া উচিত ছিল! প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে সম্পর্ক নষ্ট করার বৃহত্তর পরিকল্পনায় যে ভাবে জামায়াতের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে কাজ হয়েছে, তা প্রতিরোধের চেষ্টা না করার জন্য রাজ্যের মুখ্যসচিব, স্বরাষ্ট্রসচিব, অর্থসচিব এবং অর্থমন্ত্রীর ভূমিকাকেও তদন্তের আওতায় আনা উচিত।
অন্যদিকে একইদিন প্রকাশিত আরেক প্রতিবেদনে আনন্দবাজার জানায়, তণমূল সাংসদ ইমরানকে নিয়ে খবর প্রকাশের পর তাকে নিয়ে সতর্ক রয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের গোয়েন্দারাও।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
আগষ্ট ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুলাই    
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া