১৯শে জুলাই, ২০১৯ ইং | ৪ঠা শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

এফআর টাওয়ার নির্মাণে দুর্নীতি, ২৩ জনের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক : দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে বনানীর এফআর টাওয়ার নির্মাণ করায় দুটি মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সমন্বিত জেলা কার্যালয় ঢাকা-১। মঙ্গলবার এই মামলা দুটি করা হয়।

দুপুরে দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। দুইটি মামলারই বাদী দুদকের প্রধান কার্যালয়ে কর্মরত উপ-পরিচালক মো. আবুবকর সিদ্দিক।

মামলার প্রধান আসামি জমির ইজারাদার হোসাইন ঈমাম ফারুক, রূপায়ন হাউজিং এস্টেট লিমিটেডের চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী খান মুকুল। এছাড়া রাজউকের সাবেক চেয়ারম্যান হুমায়ুন খাদিম, রাজউকের সাবেক প্রধান প্রকৌশলী সাইদুর রহমান, রাজউকের সাবেক অথোরাইজড অফিসার-২ সৈয়দ মকবুল আহমেদসহ ২৩ জনকে মামলায় আসামি করা হয়েছে।

এজাহারে উল্লেখ করা হয়, ১৯৯০ সালে এফআর টাওয়ার ১৫ তলা নির্মাণের জন্য রাজউকে আবেদন করে এবং ওই বছরই সেটার অনুমোদন দেওয়া হয়। ১৯৯৬ সালে ১৮ তলা ভবন করার জন্য একটি সংশোধিত নকশা পাঠানো হয়। সংশোধিত এই নকশা কেসরকারি বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের বাধা-নিষেধে অনুমোদন যোগ্য হবে না বলে জানিয়ে দেওয়া হয়। পরবর্তী সময়ে ১৯৯৬ সালের ১১ নভেম্বর সম্পূর্ণ অবৈধভাবে রাজউকের অথরাইজড অফিসার ১৮ তলা ভবন করার অনুমোদন দেন।

যার সঙ্গে রাজউকের সাবেক চেয়ারম্যান হুমায়ুন খাদিম, রাজউকের সাবেক প্রধান প্রকৌশলী সাইদুর রহমান, রাজউকের সাবেক অথোরাইজড অফিসার-২ সৈয়দ মকবুল আহমেদ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত ছিলেন। অনুমোদনের পর ২০০৩ সালের ওই জমিতে রূপায়ন হাউজিং এস্টেট লি. ভবন নির্মাণ শুরু করে। জমিতে ভবন নির্মাণের সময় আড়াই মিটার খালি জায়গা রাখার কথা থাকলেও তা রাখা হয়নি। কার পার্কিং ৮২৭ বর্গমিটার বাধ্যতামূলক থাকলেও সংশোধন নকশায় ৩৮০ বর্গমিটার রাখা হয়।

অবৈধভাবে নির্মাণ করা ২০, ২১ ও ২২ তলা কিনতে ২০০৫ সালে কাসেম ড্রাইসেলস লি. এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাসবীর উল ইসলাম চুক্তি করেন। এজন্য পাঁচ কোটি ৬৪ লাখ ৯৯ হাজার টাকা চুক্তিবদ্ধ হন। ভবনটি ১৮ তলা তৈরির পর অনুমোদন জালিয়াতির মাধ্যমে নেওয়া হলেও পরবর্তী সময়ে আবারও ২৩ তলা পর্যন্ত নির্মাণের অনুমোদন করার চেষ্টা করেন। অনুমোদন না থাকলেও ২৩ তলা পর্যন্ত ভবন নির্মাণ করা হলেও রাজউক কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি ভবন মালিকের বিরুদ্ধে।

মামলার এজাহারে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, গত ২৮ মার্চ দুপুরে বনানীর এফআর টাওয়ারে আগুন লাগলে ফায়ার এলার্ম, ফায়ার এক্সিট, সরু সিঁড়ি ও জরুরি নির্গমন পথে প্রতিবন্ধকতা থাকায় ২৫ জন মারা যায় এবং ৭৩ জন পঙ্গুত্ব বরণ করে। এ ঘটনায় আহত ফায়ারম্যান সোহেল পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

এদিকে এফআর টাওয়ারে ভয়াবহ আগুনের ঘটনায় বনানী পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মিল্টন দত্ত বাদী হয়ে একটি মামলা করেন। সেই মামলায় আসামিরা হলেন- ভবনের বর্ধিত অংশের মালিক তাসভির উল ইসলাম, জমির মালিক প্রকৌশলী এস এম এইচ আই ফারুক ও রূপায়ন গ্রুপের চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী খান। এছাড়া এফআর টাওয়ারের ব্যবস্থাপনা কমিটির নেতাসহ অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়।

২৩ জুন রূপায়ন গ্রুপের চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী খান ওরফে মুকুল আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন পান। রবিবার দুপুরে ঢাকা সিএমএম আদালতে আত্মসমর্পণ ও জামিনের আবেদন করেন। শুনানি শেষে ২০ হাজার টাকা বন্ডে পুলিশ রিপোর্ট দাখিল পর্যন্ত জামিন মঞ্জুর করে আদালত। পুলিশের করা এই মামলার মূল আসামিরা সবাই জামিন আছেন।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
জুলাই ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুন    
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া