১৫ই জুলাই, ২০১৯ ইং | ৩১শে আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে ব্রিটেনে তারেকের রাজনৈতিক আশ্রয় বাতিল হতে পারে

বাংলা ইনসাইডার : বাংলাদেশ দূতাবাস ব্রিটিশ পররাষ্ট্র দপ্তরে বিএনপির তারেক জিয়ার জঙ্গি সম্পৃক্ততার একাধিক প্রমান উপস্থাপন করবে বলে জানা গেছে। তারেকের বিরুদ্ধে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার প্রমানগুলো যদি সঠিক বস্তুনিষ্ঠ হয় এবং ব্রিটিশ সরকার যদি তদন্ত করে সেটি সঠিক বিবেচনা করে, সেক্ষেত্রে তারেক জিয়ার রাজনৈতিক আশ্রয় সুযোগ বাতিল হয়ে যাবে বলে কূটনৈতিক প্রাপ্ত সূত্রে জানা গেছে।

তারেক জিয়ার বিরুদ্ধে যে পাঁচটি সন্ত্রাসী সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ আনা হচ্ছে সেগুলো হচ্ছে, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলা। এই গ্রেনেড হামলা মামলায় তারেক জিয়া প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে পাকিস্তান ভিত্তিক একাধিক জঙ্গি সংগঠনের সহযোগিতা নিয়েছিলেন এবং এই গ্রেনেড হামলায় বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার জন্য জঙ্গিরা অস্ত্র সংগ্রহ করেছিল এবং জঙ্গিরা অপারেশন পরিকল্পনা গ্রহণ করেছিল বলে আদালতের রায়ে উল্লেখ করা হয়েছে। এই রায়ের সত্যায়িত কপি ইতিমধ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের কাছে আছে এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় এর সত্যায়িত অনুলিপি তৈরি করছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা বলেছেন, তারেক জিয়া যে জঙ্গিবাদের সঙ্গে সম্পৃক্ত এবং সংশ্লিষ্ট রয়েছেন, সেটা প্রমানের জন্য এই তথ্যটুকুই যথেষ্ঠ।

দ্বিতীয়ত, তারেক জিয়ার সঙ্গে জঙ্গিদের মদদদাতা এবং বিশ্বের অন্যতম মোস্ট ওয়ান্টেড ক্রিমিনাল দাউদ ইব্রাহিমের সম্পর্ক রয়েছে এবং তার সঙ্গে ব্যবসায়িক অংশীদারিত্ব রয়েছে বলে ভারতীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে পাওয়া গেছে। ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’ ইতিমধ্যে ২০০৮, ২০১০ এবং ২০১১ সালে তিনটি পৃথক প্রতিবেদনে দাবি করেছে যে, দাউদ ইব্রাহিমের সঙ্গে তারেক জিয়ার আর্থিক লেনদেনের সম্পর্ক রয়েছে এবং বিভিন্ন সময়ে দাউদ ইব্রাহিম এবং তারেক জিয়ার একাধিক বৈঠক হয়েছে।

তৃতীয়ত, বাংলাদেশ সরকারের কাছে এরকম তথ্য প্রমাণ রয়েছে যে, ব্রিটেনে রাজনৈতিক আশ্রয় লাভ করার সময় তারেক জিয়া বিভিন্ন জঙ্গিবাদি ও বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনের সঙ্গে বৈঠক করেছেন, টেলিফোনে আলাপ করেছেন। বাংলাদেশে অশান্তি সৃষ্টির জন্য তিনি তাঁদেরকে অর্থ দিয়েছেন। এই সমস্ত কাজের তথ্য প্রমাণও বাংলাদেশ সরকারের হাতে এসেছে বলে জানা গেছে। এ ব্যাপারে বাংলাদেশ সরকার ব্রিটেনকে তদন্ত করতে বলবে।

চতুর্থত, ২০০১ থেকে ২০০৬ সালে তারেক জিয়া তাঁর রাজনৈতিক অফিস ‘হাওয়া ভবন’ একাধিক জঙ্গি সংগঠনের সঙ্গে গোপন বৈঠন করেছেন বলে তথ্য প্রমাণ পাওয়া গেছে।

পঞ্চমত, তারেক জিয়া একাধিক বক্তৃতায় বলেছেন যে, ইসলামী ছাত্রশিবির এবং ছাত্রদল হলো একই মায়ের দুই সন্তান। এর মাধ্যমে তিনি প্রমাণ করেছেন যে, ইসলামী ছাত্রশিবিরের সঙ্গে তাঁর সম্পৃক্তরা রয়েছে। ইসলামী ছাত্রশিবির মার্কিন যুক্তরাষ্টের তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে তালিকাভূক্ত।

এই পাঁচটি ঘটনার একটি যদি ব্রিটিশ পররাষ্ট্র দপ্তর প্রমাণ পায় তাহলেই তারেক জিয়ার ব্রিটেনে থাকার কোনো অধিকার থাকবে না। বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক শামিমা কিশোরী বয়সে আইএস এর প্রতি আসক্ত হন এবং তিনি ব্রিটেন থেকে পালিয়ে সিরিয়ায় আইএস কেন্দ্রে যান। সেখানে তিনি একজনকে বিয়ে করেন এবং তাঁর দুটি সন্তান চিকিৎসার অভাবে মৃত্যুবরণ করে।

এখন তিনি তৃতীয় সন্তান স¤াবা হয়ে ব্রিটেনে ফেরার আবেদন করেছেন। কিন্তু ব্রিটিশ পররাষ্ট্র দপ্তর তাঁর আবেদন নাকচ করে দিয়ে তাঁর নাগরিকত্ব বাতিল করে। এটার মাধ্যমে ব্রিটেন সুস্পষ্ট বার্তা দিলো যে, যারাই ব্রিটেনে থাকবে তাঁদেরকে জঙ্গিবাদ এবং সন্ত্রাসী সংগঠনের সঙ্গে কোনোরকম সম্পর্ক না রেখেই থাকতে হবে।

এটা যদি প্রমাণিত হয় যে তারেক জিয়ার সঙ্গে সন্ত্রাসী সংগঠনের সম্পর্ক রয়েছে এবং তিনি তাঁদের মদদদাতা এবং পৃষ্ঠপোষক তাহলে তাঁর ব্রিটেনে রাজনৈতিক আশ্রয়লাভের আর কোনো সম্ভাবনা থাকবে না বলে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একাধিক কর্মকর্তা জানিয়েছেন। আগামী কিছুদিনের মধ্যেই এই বিষয়টি নিশ্চিত হবে বলে তাঁরা অভিমত ব্যক্ত করেছেন। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে যে, শামিমার নাগরিকত্ব বাতিলের পর তারেকের রাজনৈতিক আশ্রয়লাভের বিষয়টি সামনে চলে এসেছে।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
জুলাই ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুন    
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া