১৪ই আগস্ট, ২০১৮ ইং | ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

যে কারণে বিমানের জানালা গোলাকৃতি হয়

যে কারণে বিমানের জানালা গোলাকৃতি হয় (ভিডিও)ডেস্ক রিপাের্ট : জানেন কি? প্লেনের জানালা কিন্তু গোলাকার সব সময়। এর পেছনে রয়েছে এক বিশেষ কারণ। আবিষ্কারের পর থেকেই উড়োজাহাজের আকৃতি নিয়ে আজ পর্যন্ত চলছে নানা গবেষণা। এর বিভিন্ন অংশ নিয়ে কম পরীক্ষা-নিরীক্ষা হয়নি। আর সিংহভাগ ক্ষেত্রেই এ সব করতে হয়েছে বিমানের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার স্বার্থে।

বিমানের গোলাকৃতি জানালা তেমনই একটি পরিবর্তনের সাক্ষী হয়ে রয়েছে যুগ যুগ ধরে। কিন্তু কেনো বাড়িঘর থেকে কারখানা, অফিস থেকে দোকান সবকিছুর জানালা চতুর্ভুজাকৃতি হলেও উড়োজাহাজের জানালাগুলো হয় গোল?
সাধারণ বিমান থেকে শুরু করে হোমরা-চোমরাদের জন্য ভিআইপি প্লেন, সবখানেই জানালার আকৃতি হয়ে থাকে গোলাকার। উড়োজাহাজের প্রযুক্তিতে দিন দিন বহু পরিবর্তন ও বৈচিত্র আনা হয়েছে। তবে প্লেনের জানালা কিন্তু গোলাকার সব সময়। এর পেছনে রয়েছে এক বিশেষ কারণ।
রাইট ভ্রাতৃদ্বয়ের আবিষ্কৃত উড়োজাহাজে কোনো জানালাই ছিল না। নিয়ন্ত্রণকক্ষের অনাবৃত ঊর্ধ্বাংশের এই মডেল বহু বছর ধরেই অনুসরণ করা হয়েছে বিমান নির্মাণের ক্ষেত্রে। পরবর্তীকালে উচ্চ গতি ও উচ্চতার বিমান নির্মাণ শুরু হলে এবং বৃষ্টি, ঝড়, তীব্র বায়ুপ্রবাহ থেকে চালক ও যাত্রীদের রক্ষা করতে ঢেকে দেওয়া হয় উপরের অংশ, বসানো হয় জানালা। সেই জানালাগুলোও হত স্বাভাবিক চারকোণা আকৃতির। পঞ্চাশের দশকের প্রথমার্ধ পর্যন্ত চলে এসেছিল এই রীতি।
উড়োজাহাজের জানালা গোল হওয়ার অন্যতম প্রধান কারণ হলো নিরাপত্তা। এটি গোল না হলে যে কোনো সময় বিমানের দুর্ঘটনায় পড়ার আশঙ্কা থেকে যায়। শুধু এ কারণেই ১৯৫৩ সালে মাঝ আকাশে ভেঙে পড়েছিল দুটি বিমান। মৃত্যু হয়েছিল ৫৬ বিমান আরোহীর। তাই অ্যারোস্পেস ইঞ্জিনিয়াররা সব সময়ই উড়োজাহাজের জানালা গোল রাখার পক্ষপাতী।
বিমানের আকার নিয়ে বহুকাল থেকেই নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালিয়ে আসছে অ্যারোস্পেস ইঞ্জিনিয়ারিং। তাদের গবেষণার ফলেই বহু বদল এসেছে বিমানের প্রযুক্তিতে। বিমান যাতে নিরাপদে বেশি যাত্রী বহন করতে ও দ্রুত গন্তব্যে পৌঁছাতে পারে, তা মাথায় রেখেই বিমান নির্মাণে অনেক পরিবর্তন এনেছেন ইঞ্জিনিয়াররা। যাত্রী সুরক্ষার কথা চিন্তা করে বিমানের জানালার আকারও বারবার বদলাতে হয়েছে।
১৯৫০ সালে বিমানে চৌকো জানালা চালু হয়। কিন্তু ১৯৫৩ সালে পরপর দুটি বিমান আকশে ভেঙে পড়ায় এই চৌকো জানলার দিকেই অভিযোগের আঙুল তোলেন ইঞ্জিনিয়াররা।
অ্যারোস্পেস বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, চৌকো জানালার চারটি কোণ থাকায় বাতাসের চাপ অনেক বেশি হয়। যত কোণের সৃষ্টি, তত বেশি দুর্বল জায়গা থেকে যায়। এতে জানালার ওপরে সমানভাবে বাতাস চাপ দেয় না। বাতাসের চাপ বেড়ে গেলে বা যেকোনো প্রতিকূল পরিস্থিতিতে কোণের ওপর চাপ বেশি পড়ে। ফলে জানালা ভেঙে পড়ার আশঙ্কা থেকে যায়। এতে ঘটে বিমান দুর্ঘটনা। আর জানালা গোল হলে কোনো কোণ না থাকায় বাতাসের চাপ সমানভাবে সব জায়গায় ছড়িয়ে পড়ে। এতে দুর্ঘটনার আশঙ্কা অনেকটাই কমে যায়।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
আগষ্ট ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুলাই    
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া