১১ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং | ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

adv

তার মৃত্যু নেই

               – সারাহ্ বেগম কবরী –

KOBARIঅভিনেতা, অভিনেত্রী অনেকেই; ভালো অভিনয় করেন- এমনও আছেন প্রচুর; কিন্তু গণমানুষের প্রাণের স্পন্দনের সঙ্গে মিশে যেতে পারেন, এমন অভিনেতা একটি দেশে খুব বেশি থাকে না। আমাদের দেশে রাজ্জাক সেই অভিনেতা- যিনি গণমানুষের প্রাণের স্পন্দনে মিশে গেছেন। সেই ষাটের দশক থেকে দেশের চলচ্চিত্রের প্রধান পুরুষই শুধু তিনি নন, তিনি সকলের শ্রদ্ধেয় ও প্রিয়। তাকে ভালোবাসেন না, সম্ভবত এমন একজন মানুষও এ দেশে পাওয়া যাবে না। এটি এক বিরল ঘটনা। রাজ্জাকের এই অর্জন সম্ভব হয়েছে কাজের প্রতি তার অসামান্য নিষ্ঠা, একাগ্রতা ও ভালোবাসার কারণেই। তিনি প্রতিনিয়ত নিজেকে আরও নিখুঁতভাবে গড়ে তুলতে চাইতেন, একজন প্রকৃত ও গুণী শিল্পী হিসেবে এই নিষ্ঠা তার ছিল।

রাজ্জাক নেই- বড় আঘাত পাওয়ার মতো খবর। অবিশ্বাস্য। আমি কোনোভাবেই এটা মেনে নিতে পারছি না। খুবই কষ্ট হচ্ছে আমার। এতদিন ধরে কাজ করেছি, যা স্মৃতিকোষে আজও জমা হয়ে আছে। চোখের সামনে ভেসে উঠছে সেই দিনগুলোর দৃশ্যপট; আর অশ্রুসিক্ত করছে আমাকে।

কতদিনের পরিচয় আমাদের- তা নির্দিষ্ট করে বলা কঠিন। দিন, তারিখ, মাস, বছর কোনোটাই মনে নেই। শুধু মনে আছে গাজী মাজহারুল আনোয়ারের 'যোগাযোগ' ছবির মাধ্যমে রাজ্জাকের সঙ্গে আমার পরিচয় হয়েছিল। দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্যি, শেষ পর্যন্ত ছবিটি আর তৈরি হয়নি। এই ছবির জন্য কথা বলতে গিয়ে গাজী মাজহারুল আনোয়ারের সঙ্গেও পরিচয় হয়। এরপর তার বাসায় রাজ্জাক সাহেবের সঙ্গে অনেক গল্পও হয়। একটা পরিকল্পনা হয়। তখনও আমি তার সঙ্গে কোনো ছবিতে অভিনয় করিনি। ছবিটি নিয়ে আলাপ করতে করতে আমাদের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক তৈরি হয়ে যায়।

সুভাষ দত্তের পরিচালনায় 'আবির্ভাব' ছবিতে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে আমাদের জুটি গড়ে উঠেছিল। তবে সবচেয়ে বেশি হৈচৈ পড়ে গিয়েছিল 'ময়নামতি' ছবির পর। এর আগে ও পরে 'নীল আকাশের নীচে', 'ক খ গ ঘ ঙ', 'ঢেউয়ের পরে ঢেউ', 'রংবাজ', 'বেঈমান'সহ অনেক ছবিতে একসঙ্গে কাজ করেছি। ছবিগুলো করতে গিয়ে দিনের পর দিন আমরা একসঙ্গে কাজ করেছি। ঘণ্টার পর ঘণ্টা সময় কাটিয়েছি। আমাদের মধ্যে অনেক মিষ্টি মুহূর্ত পেয়েছি। রয়েছে অসংখ্য গল্পও। রাজ্জাক ছিলেন পরিশীলিত রুচির মার্জিত মানুষ। একজন শিল্পীর আন্তরিকতা ও ভালোবাসা নিয়ে তার সঙ্গে আমার কাজের প্রহরগুলো কেটেছে।
ষাট দশকের পাকিস্তানি ছবির দাপটের মধ্যে এ দেশের কম বাজেটের বাংলা ছবির লড়াই রীতিমতো এক যুদ্ধ ছিল। রাজ্জাক ছিলেন এ দেশের সিনেমার পক্ষে সেই লড়াইয়ের অন্যতম প্রধান যোদ্ধা। তিনি নিরলস পরিশ্রমে বাংলা চলচ্চিত্রকে একটি দৃঢ় ভিত্তিমূলে দাঁড় করিয়ে দিয়েছেন। তিনি ইতিহাসের অনিবার্য অংশ।

সে সময় আমার বয়সও অনেক কম ছিল। গল্প আর আড্ডায় আমাদের মধ্যে নিটোল বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। তখনকার সময়েও আমাদের বন্ধুত্ব সাধারণ মানুষ বাঁকা চোখে দেখত। কিন্তু এই বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক চলচ্চিত্রের লোকেরা খুব উপভোগ করত। তারা নিশ্চিত ছিলেন, রাজ্জাক ও কবরীর মধ্যে অদৃশ্য কোনো সম্পর্ক নেই। তারা শুধুই বন্ধু। আমাদের জুটি তৈরি হয়েছে বাস্তবতার নিরিখে। আমাদের খুনসুটি হতো। এ নিয়ে মান-অভিমানেরও শেষ ছিল না। কোনো ছবির শুটিংয়ে আবার মান-অভিমানের দৃশ্যগুলোতে অভিনয়ের ক্ষেত্রে মনে হতো না, অভিনয় করছি। মনেই হতো, বাস্তবতার নিরিখে আমরা মান-অভিমানের ব্যাপারগুলো তুলে ধরছি। নিটোল বন্ধুত্বের কারণেই তা সম্ভব হয়েছে।

একটা সময় তো তার পরিবারের সঙ্গেও আমার দারুণ বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। রাজ্জাকের স্ত্রী লক্ষ্মীও আমাদের বন্ধুত্ব সম্পর্কে ভালোই জানতেন। তাই এ নিয়ে তিনি কিছুই মনে করতেন না। তার ছেলেমেয়েরাও আমাদের বাসায় আসা-যাওয়া করত। সবাই হয়ে গিয়েছিল খুব কাছের মানুষ। আজ সেইসব পুরনো দিনের কথা ভেবে, মনে একরাশ কষ্ট ভর করেছে। এই ক'দিন আগেও ভেবেছি, রাজ্জাকের সঙ্গে অনেকদিন দেখা নেই। তাকে একবার দেখতে যাব। ইদানীং খুব বেশি কথাবার্তা হতো না; এ জন্য তার বাসায় যাওয়ার পরিকল্পনা করেছিলাম। কেন যেন সময় হচ্ছিল না। অথচ সেই দেখা যে বিদায় বেলায় হবে- তা সত্যি ভাবিনি।

দীর্ঘ সময় ধরে চলচ্চিত্র অঙ্গনে আমাদের পদচারণ। একসঙ্গে কাজ করতে গিয়ে জেনেছি, অভিনয়ের প্রতি তার আছে অকৃত্রিম ভালোবাসা। শিল্পী সত্তাকে সমৃদ্ধ করতে নিরলসভাবে কাজ করে গেছেন। এ জন্য রাজ্জাকের তুলনা চলে কেবল তার সঙ্গেই। সময়কে অতিক্রম করে যাওয়ার সব রকম প্রচেষ্টা ছিল তার। খ্যাতির মোহ কখনও পেয়ে বসেনি। কাজের বিষয়ে আপস করতেন না। সর্বোচ্চ চেষ্টা ছিল নিজের সেরা কাজটা পর্দায় তুলে ধরতে। এমনই এক শিল্পী যখন আমাদের ছেড়ে চলে যান, তখন কত বড় শূন্যতা তৈরি হয়, তা বলা বাহুল্য।
যখন খবর এলো রাজ্জাক আর নেই, তখন বাঁধভাঙা অশ্রু ধরে রাখতে পারিনি। অবশ্য আমি মনকে এই বলে সান্ত্বনা দিই যে, মানুষ বেঁচে থাকে তার কর্মে। রাজ্জাক এ দেশের মানুষের নায়ক। তার মৃত্যু নেই। বাংলা চলচ্চিত্র যতদিন আছে, নায়করাজ হিসেবে তার অক্ষয় অবস্থান চির অমলিন হয়ে রইবে। ব্যক্তিগতভাবে আমাদের দুঃখ আমরা আর মানুষটিকে চোখে দেখব না। এই তো নিয়তি। বিদায়, নায়করাজ। বিদায়, বন্ধু। -সমকাল থেকে

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
ডিসেম্বর ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« নভেম্বর    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া