চিকিৎসককে দলবেঁধে ধর্ষণের মামলায় তিন আসামিকে ফাঁসির আদেশ

ডেস্ক রিপাের্ট : রাজবাড়ীতে চিকিৎসককে দলবেঁধে ধর্ষণ মামলায় তিন আসামিকে ফাঁসির দণ্ডাদেশ দিয়েছে আদালত। এছাড়া আদালত দণ্ডাদেশপ্রাপ্ত প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে জরিমানার আদেশ দিয়েছে।

দণ্ডাদেশপ্রাপ্তরা হলেন- রাজবাড়ী সদর উপজেলার বসন্তপুর ইউনিয়নের মজলিসপুর এলাকার আবুল মোল্লার ছেলে রানা মোল্লা (২৪), আরশাদ মোল্লার ছেলে মামুন মোল্লা (২০) ও মোন্নাফ সরদারের ছেলে হান্নান সরদার (২৬)।

বুধবার জেলা জজ ও নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালের বিচারক নিগার সুলতানা এ আদেশ দেন। মামলার অপর তিন আসামি আনিছুর রহমান আনিছ, করিম মোল্লা ও কুটি মনিরকে খালাস দেয়া হয়েছে।

২০১৮ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি মুন্সিগঞ্জ থেকে গোপালগঞ্জ যাচ্ছিলেন ওই তরুণী চিকিৎসক। এদিন রাত ৮টার দিকে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ মোড় এসে নেমে ফরিদপুরে যাওয়ার জন্য গাড়ির সন্ধ্যান করে। এসময় এক অটোরিকশা চালক ওই তরুণীকে বলেন, ‘এখান থেকে ফরিদপুরের গাড়ি পাওয়া যাবে না। আমার অটোতে ওঠেন শিবরামপুর গেলে ফরিদপুরের গাড়িতে উঠিয়ে দেব।’

এসময় তরুণী অটোরিকশায় উঠেন। ওই অটোরিকশায় আরও দুই যুবক ছিলেন। এরপর গোয়ালন্দ মোড়-শিবরামপুরের মাঝামাঝি বসন্তপুর এলাকার নির্জন জায়গায় অটোটি থামায়। পরে চালকসহ তিনজন মিলে রাস্তার পাশে নিয়ে ওই তরুণীকে ধর্ষণ করে। এসময় ওই তরুণীর চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে ওই তিন যুবক অটোরিকশা নিয়ে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা বিষয়টি র‌্যাব-৮ ফরিদপুর ক্যাম্পের সদস্যদের অবহিত করে। র‌্যাব সদস্যরা ওই তরুনীকে উদ্ধার করার পাশাপাশি ওই ধর্ষক তিন জন যুবককেই রাতেই গ্রেপ্তার করে রাজবাড়ী থানায় সোপর্দ করে।

এ ঘটনায় রাজবাড়ী থানায় ওই চিকিৎসকের করা মামলার দীর্ঘ স্বাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আসামিদের উপস্থিতিতে আদালত ওই তিন জনকে ফাঁসির দন্ডাদেশ এবং প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে জরিমানার আদেশ প্রদান করেছে বলে রাজবাড়ীর শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট উমা সেন জানিয়েছেন।

উমা সেন বলেন, ‘আদালত দীর্ঘ শুনানি শেষে এই ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার প্রমান পাওয়ায় তিন আসামিকে ফাঁসির আদেশ ও এক লাখ টাকা জরিমানা করেছে। সেই সঙ্গে অপর তিন আসামিকে খালাস দিয়েছে। রায় ঘোষণার সময় আসামিরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন।’

‘বার্সা খেলোয়াড়দের হোয়্যাটসঅ্যাপ গ্রুপে মেসি এখনও আছেন’

স্পোর্টস ডেস্ক : ক্লাব ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছেন। কোনো কিছুর বিনিময়ে তার আর থাকার ইচ্ছা নেই। বার্সেলোনা কর্তৃপক্ষ তাতে অসম্মতি জানালেও একবিন্দু টলানো যায়নি লিওনেল মেসিকে। অনুশীলনে যোগ না দিয়ে নিজের অনড় অবস্থান খুব ভালোভাবে বুঝিয়ে দিয়েছেন তিনি। চুক্তির বিশেষ ধারা অনুসারে নিজেকে আর বার্সার স্কোয়াডের অংশও মনে করেন না আর্জেন্টাইন তারকা। তবে কাতালান ক্লাবটির খেলোয়াড়দের হোয়্যাটসঅ্যাপ গ্রুপ চ্যাট থেকে এখনও ‘লিভ’ নেননি তিনি। সতীর্থদের সঙ্গে সম্পর্ক বজায় রেখেছেন ৩৩ বছর বয়সী তারকা।

মেসি ক্যাম্প ন্যুর সঙ্গে দুই দশকের বন্ধন ছিন্ন করতে চাওয়ায় তৈরি হয়েছে অত্যাশ্চর্য পরিস্থিতি। সে সম্পর্কে বার্সেলোনার তরুণ মিডফিল্ডার ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ংয়ের মতামত জানতে চেয়েছিল বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম। আলাপের এক পর্যায়ে মেসির হোয়্যাটসঅ্যাপ গ্রুপ চ্যাটে থাকার তথ্য জানিয়েছেন তিনি।

নেদারল্যান্ডস তারকা ডি ইয়ং স্বীকার করেছেন যে, অধিনায়ক মেসি ক্লাব ছাড়তে মনস্থির করায় স্প্যানিশ লা লিগার পরাশক্তিরা চরম অশান্তিতে রয়েছে। নিজ দেশের গণমাধ্যম এনওএসকে তিনি বলেছেন, ‘বর্তমানে বার্সেলোনায় জগাখিচুড়ি অবস্থা চলছে। অনেক রকমের অদ্ভুত ঘটনা ঘটছে। এটা একটা বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি। আমি নিজে (প্রস্থানের) এই বিষয়ে তার সঙ্গে কোনো কথা বলিনি। ক্লাবের সঙ্গেও না। তাই আমি আসলেই জানি না যে ব্যাপারটা কেমন। তবে মেসি যদি সত্যিই বিদায় নেন, তবে এটা স্কোয়াড ও ক্লাবের জন্য হবে বিশাল এক ধাক্কা।

জনগণের মতো বাংলাদেশ সেনাবাহিনীও অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা হত্যাকাণ্ডের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চায় : সেনাপ্রধান

ডেস্ক রিপাের্ট : সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ বলেছেন, দেশের সব জনগণের মতো বাংলাদেশ সেনাবাহিনীও অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা হত্যাকাণ্ডের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চায়। আজ বুধবার আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) এক বিবৃতিতে জানানো হয়, সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ চট্টগ্রামে এ কথা বলেছেন।

গত ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজারের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান নিহত হন। এ সময় সিনহার সহকর্মী সিফাতকে আটক করে পুলিশ। পরে নীলিমা রিসোর্ট থেকে তাদের আরেক সহকর্মী শিপ্রা দেবনাথকে আটক করা হয়। পুলিশের দায়ের করা মামলায় তাদের গ্রেপ্তার দেখানো হয়। বর্তমানে তারা জামিনে আছেন।

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা নিহত হওয়ার ঘটনায় তার বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। টেকনাফ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নকে (র‌্যাব) মামলাটির তদন্ত ভার দিয়েছেন।

দারুণ জয়ে সিরিজ বাঁচাল পাকিস্তান

স্পাের্টস ডেস্ক : ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে তিন ম্যাচের সিরিজের শেষ ম্যাচ জিতে ১-১ সমতায় সিরিজ শেষ করেছে পাকিস্তান। প্রথম টি-টোয়েন্টি বৃষ্টিতে ভেসে যাওয়ার পর দ্বিতীয়টিতে জেতে ওয়েন মর্গ্যানের দল। তবে তৃতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টিতে রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে ৫ রানের দারুণ জয় পেয়েছে বাবর আজমের দল।

মঙ্গলবার (১ সেপ্টেম্বর) ম্যানচেস্টারে সিরিজের শেষ ম্যাচে মোহাম্মদ হাফিজের ঝড়ো ফিফটিতে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেটে ১৯০ রান করে বাবর আজমের দল। জবাবে মঈন আলীর দানবীয় ইনিংস সত্ত্বেও ৮ উইকেটে ১৮৫ রান করে থেমে যায় ইংল্যান্ডের ইনিংস।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি পাকিস্তানের। দ্বিতীয় ওভারে মইনের স্টাম্প সোজা বলে বোল্ড হয়ে যান ফখর জামান। তিন চারে ২১ রান করা বাবরকেও বোল্ড করে থামান টম কারান। ৩২ রানে দুই ওপেনারকে হারানো পাকিস্তান এগিয়ে যায় ক্যারিয়ারের দুই প্রান্তে থাকা দুই ব্যাটসম্যানের দৃঢ়তায়।

১৯ বছর বয়সী হায়দার আলির সঙ্গে শতরানের জুটি উপহার দেন ৩৯ বছর বয়সী হাফিজ। ক্রিজে গিয়ে দ্বিতীয় বলেই ছক্কা হাঁকানো হায়দার টি-টোয়েন্টিতে পাকিস্তানের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে অভিষেকে করেন ফিফটি। ৩৩ বলে পাঁচ ছক্কা ও দুই চারে ৫৪ রান করা এই তরুণের বিদায়ে ভাঙে ১০০ রানের জুটি। টানা দ্বিতীয় ফিফটি পাওয়া হাফিজ দলকে নিয়ে যান দুইশ রানের কাছে।

এদিনও খেলেছেন দারুণ সব পুল ও স্ট্রেইট ড্রাইভ। ৫২ বলে ছয় ছক্কা ও পাঁচ চারে ৮৬ রানে অপরাজিত ছিলেন তিনি। এই সংস্করণে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এটাই পাকিস্তানের কোনো ব্যাটসম্যানের সর্বোচ্চ। ইংল্যান্ডের হয়ে ৪ ওভারে ২৯ রান দিযে সর্বোচ্চ ২ উইকেট নেন জর্ডান। বাকি দুই উইকেট ভাগাভাগি করেন মঈন ও কারেন।

১৯১ রান ও সিরিজ জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে স্কোরবোর্ডে মাত্র ১ রান জমা করতেই প্রথম উইকেট হারায় ইংলিশরা। ওপেনার ও উইকেটরক্ষক জনি বেয়ারস্টোকে বোল্ড করে শূন্য হাতে সাজঘরে ফেরান শাহীন আফ্রিদি। পরে দলীয় ২৬ রানে ফেরেন ডেভিড মালান (৭)। দলকে চাপে রেখে দ্রুত বিদায় নেন অধিনায়ক ইয়ন মরগান (১০)। দলের রান তখন ৬৫। স্কোরবোর্ডে আর মাত্র ৪ রান যোগ হতেই রউফের বলে এলবিডব্লিউর শিকার হন দুর্দান্ত খেলতে থাকা ওপেনার টম বার্টন (৪৬)।

সেখান থেকেই ইংল্যান্ডকে জয়ের স্বপ্ন দেখাতে থাকেন মঈন। স্যাম বিলিংসকে (২৬) নিয়ে এগোতে থাকেন এই অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার। কিন্তু সতীর্থদের সঙ্গে বড় কোনো জুটি গড়তে পারেননি তিনি। লুইস গ্রেগরি (১২), জর্ডান (১) দ্রুত বিদায় নিলে একাই লড়ে যান মঈন। ওয়াহাব রিয়াজের করা ইনিংসের ১৮তম ওভারের পঞ্চম বলে সাজঘরে ফেরার আগে ৩৩ বলে ৪ চার ও ৪ ছক্কায় ৬১ রানের ইনিংস খেলেন তিনি।

ইংলিশদের জয়ের জন্য শেষ ওভারে দরকার ছিল ১৭ রান। কারেন ও আদিল রশিদ চেষ্টার কমতি করেননি। ১৯তম ওভারের পঞ্চম বলে কারেনের ছক্কায় জয়ের স্বপ্ন দেখছিল তারা। কিন্তু শেষ বলে রউফের বল বাউন্ডারি ছাড়া করতে পারেননি তিনি।

২৬ রানে ২ উইকেট নেন ওয়াহাব। আগের ম্যাচে খরুচে বোলিং করা আফ্রিদি ২ উইকেট নেন ২৮ রানে। টানা দুই ফিফটি পাওয়া হাফিজ জেতেন ম্যাচ ও সিরিজ সেরার পুরস্কার।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: ৩য় টি-টোয়েন্টি

পাকিস্তান: ২০ ওভারে ১৯০/৪ (হাফিজ ৮৬*, হায়দার ৫৪; জর্ডান ২/২৯)

ইংল্যান্ড: ২০ ওভারে ১৮৫/৮ (মঈন ৬১, ব্যান্টন ৪৬; ওয়াহাব ২/২৬)

ফল: পাকিস্তান ৫ রানে জয়ী

সিরিজ: তিন ম্যাচের সিরিজ ১-১ এ সমতা

নিজের জন্মদিন উদযাপনে ওবায়দুল কাদেরের প্রস্তাবে শেখ হাসিনার ‘না’

নিজস্ব প্রতিবেদক : আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৪তম জন্মদিন। করোনাকালে দলের সম্পাদকমণ্ডলীর সভায় ভার্চুয়ালি যোগ দেয়ার সময় সীমিত পরিসরে সভানেত্রীর জন্মদিন উদযাপনের প্রস্তাব করেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। কিন্তু সেই প্রস্তাব সরাসরি নাকচ করে দেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা।

বুধবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলটির সম্পাদকমণ্ডলীর সভায় অনলাইনে যুক্ত হয়ে শেখ হাসিনা এমন প্রস্তাব পেয়ে বলেন, ‘আমার জন্মদিন পালনের প্রস্তাব আমি গ্রহণ করছি না।’

ওবায়দুল কাদের সভার কার্যক্রম সম্পর্কে দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার কাছে বিস্তারিত তুলে ধরেন। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে সভায় যুক্ত ছিলেন সরকারপ্রধান।

সভার শুরুতে ভারতের ত্রয়োদশ রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির প্রয়াণে শোক প্রস্তাব পাঠ করা হয়। এরপর সবাই দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করেন।

সভায় দলীয় সভাপতিকে উদ্দেশ্য করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমরা আমাদের সভাপতির একটা গাইডলাইন চাই। আমরা নিজেরা কিছু বিষয় আলোচনা করেছি। এর মধ্যে রয়েছে- আমাদের যেসব জেলা, মহানগর ও সহযোগী সংগঠনের সম্মেলন হয়েছে তাদেরকে আগামী ১৫ তারিখের মধ্যে আপনার অফিসে (সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়, ধানমণ্ডি) পূর্ণাঙ্গ কমিটি জমা দেয়ার নির্দেশনা দিয়েছি। আরেকটি হলো, এই সময়ের মধ্যে প্রত্যেক সম্পাদককে চেয়ারম্যানের সঙ্গে পরামর্শ করে ৩৫ সদস্যবিশিষ্ট উপ-কমিটি গঠনের রিকমেন্ডেশন তৈরি করেছি, সিদ্ধান্ত নেয়ার মালিক আপনি।’

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, আমরা এখন থেকে সীমিত আকারে সাংগঠনিক কর্মসূচি পালনের জন্য তৃণমূল পর্যায় পর্যন্ত একটি নির্দেশনা দিচ্ছি। আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর আপনার জন্মদিন। এটা আমরা খুব সীমিত আকারে পালন করবো। এটা প্রতিবছরই করে থাকি। আপনি না বললেও করবো।

জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমার জন্মদিন পালনের প্রস্তাব আমি গ্রহণ করছি না। বাকিগুলোর মধ্যে সাব-কমিটিগুলো পূর্ণাঙ্গ করার সিদ্ধান্ত খুবই ভালো। এটা করা উচিত। যাতে সাব-কমিটিগুলো বসতে পারে। আগামী দিনে আমাদের ভবিষ্যৎ কর্মসূচি সেগুলো ঠিক করতে হবে। সাব-কমিটিগুলো এ ব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে পারবে।

রিজভীর প্রশ্ন- আপনার হাতে কি আছে প্রধানমন্ত্রী ?

নিজস্ব প্রতিবেদক : গুম-খুন-বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, বর্তমান সরকার ও প্রধানমন্ত্রী যা বলেন জনগণ তার উল্টোটা বিশ্বাস করে।’

বুধবার দলের ৪২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিচে ঢাকা জেলা বিএনপি আয়োজিত আলোচনা সভায় এ কথা বলেন রিজভী।

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘আপনার হাতে কি আছে প্রধানমন্ত্রী? আপনার হাতে এম ইলিয়াস আলীর গুম নেই, সাইফুল ইসলাম হিরুর গুম আপনার হাতে নেই? তেজগাঁওয়ের সুমনের গুম আপনার হাতে নেই? নাটোরের উপজেলা চেয়ারম্যান সানাউল্লাহ নূর, তাকে খুন করে রাস্তায় তার লাশের ওপর লাফিয়েছিলো আপনারই রাজনৈতিক সন্তান যুবলীগ-ছাত্রলীগের নেতারা। সেই হত্যার রক্ত আপনার হাতে নেই? নিজের হাতে কত রক্ত ভরে আছে, গুম ভরে আছে, কত বিচারবহির্ভূত হত্যার রক্ত আপনার হাতে লেগে আছে সেদিকে তাকান। তারপরে অন্যের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করবেন।’

গত সোমবার শোক দিবস উপলক্ষে ছাত্রলীগের আলোচনা সভায় আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান, তার স্ত্রী খালেদা জিয়া এবং তাদের ছেলে তারেক রহমান সবার হাতে রক্তের দাগ রয়েছে। জিয়াউর রহমান গুম-খুনের রাজনীতি শুরু করে গেছেন। যার ধারাবাহিকতায় খালেদা জিয়া অপারেশন ক্লিনহার্টের নামে মানুষ হত্যা করেছেন। আন্দোলনের নামে মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করেছেন।’

প্রধানমন্ত্রীর সমালোচনা করে রিজভী বলেন, ‘আপনি (শেখ হাসিনা) আগেও কখনও বলেননি। কিন্তু হঠাৎ করে বিএনপির বিরুদ্ধে এতো অপপ্রচার করছেন। বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবক্তা, স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানকে ১৫ আগস্টের সাথে জড়িয়ে এবং বিএনপি চেয়ারপারসন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও তারুণ্যের প্রতীক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার সঙ্গে জড়িয়ে নানা কথা বলছেন। আপনার সামর্থ্য থাকলে একটি সুষ্ঠু নির্বাচন দিন। মানুষ যদি অন্যায় করেন তবেতো মানুষের সমর্থন থাকবে না।’

রিজভী বলেন, ‘আপনি (প্রধানমন্ত্রী) সুষ্ঠু নির্বাচন না দিয়ে একটি অভিনব নির্বাচন ব্যবস্থা চালু করেছেন। দিনের ভোট রাতে করে ফেলছেন। আগেতো ভোটারদের কেন্দ্রে যেতে দিতেন না, আর এখন সেখানেও নিরাপদ বোধ না করে দিনের ভোট রাতে করছেন। তাই বলছি, একটি সুষ্ঠু ভোট দিন, জনগণ বিচার করবে কে অপরাধী। আপনি তো সুষ্ঠু ভোট দিতে চান না। তাহলে বুঝেন, আপনি কত বড় অপরাধী।’

ঢাকা জেলা বিএনপির সভাপতি ডা. দেওয়ান সালাউদ্দিনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক খন্দকার আবু আশফাকের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ, নির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট নিপুন রায় চৌধুরী প্রমুখ।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তি – ‌দেশে একদিনে করােনায় নতুন আক্রান্ত ২ হাজার ৫৮২ জন, মৃত্যু ৩৫

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশে করোনায় (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে আরও ৩৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মারা গেছেন ৪ হাজার ৩৫১ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২ হাজার ৫৮২ জন। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লাখ ১৭ হাজার ৫২৮ জন।

বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এদিকে সারা বিশ্বে এখন পর্যন্ত ২ কোটি ৫৯ লাখ ২৫ হাজার ৪৯৫ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। মারা গেছেন ৮ লাখ ৬১ হাজার ৬৬৭ জন। বিপরীতে সেরে উঠেছেন ১ কোটি ৮২ লাখ ৯ হাজার ৭৪৪ জন। বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৪ হাজার ৩৫১ জনের। মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লাখ ১৭ হাজার ৫২৮ জন।

নাঈমুল আবরারের মৃত্যু: প্রথম আলোর আনিসুল হকসহ ৫ জনের মালামাল ক্রোকের নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজধানীর ঢাকা রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের ছাত্র নাঈমুল আবরার রাহাতের (১৫) মৃত্যুর ঘটনায় দায়ের করা মামলায় দৈনিক প্রথম আলোর সহযোগী সম্পাদক আনিসুল হকসহ ৫ জনকে মালামাল ক্রোকের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। বাদীপক্ষের আইনজীবী জানিয়েছেন, পলাতক দেখিয়ে তাদের মালামাল জব্দের আদেশ হয়েছে।

বুধবার (২ সেপ্টেম্বর) সকালে শুনানির পর ঢাকার অতিরিক্ত মহানগর হাকিম এ আদেশ দেন। পরবর্তী শুনানি ২০ সেপ্টেম্বর দিন ধার্য করেছেন আদালত।

আনিসুল হক ছাড়া বাকি যাদের মালামাল ক্রোকের নির্দেশ দেয়া হয়েছে তারা হলেন- প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ সহ-সম্পাদক মহিতুল আলম, প্রথম আলোর হেড অব ইভেন্ট অ্যান্ড অ্যাকটিভেশন কবির বকুল, নির্বাহী শাহপরান তুষার ও নির্বাহী শুভাশীষ প্রামাণিক। এ মামলার দশ আসামির মধ্যে প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমানসহ পাঁচজন জামিনে রয়েছেন।

এ আগে এ বছরের ১৬ জানুয়ারি দৈনিক প্রথম আলোর সম্পাদক মতিউর রহমান, সহযোগী সম্পাদক আনিসুল হকসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছে আদালত। পরে তারা জামিন পেয়েছেন।

গত বছরের ১ নভেম্বর প্রথম আলোর কিশোর ম্যাগাজিন ‘কিশোর আলো’র বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠান দেখতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মারা যায় ঢাকা রেসিডেন্সিয়াল মডেল কলেজের নবম শ্রেণির (দিবা) ‘গ’ শাখার ছাত্র নাঈমুল আবরার। ঘটনার পরদিন মোহাম্মদপুর থানায় একটি মামলা করেন আবরারের বাবা মজিবুর রহমান।

মালয়েশিয়ার আলবুখারি বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর হলেন ড. ইউনূস

ডেস্ক রিপাের্ট : নোবেল বিজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূস মালয়েশিয়ার আলবুখারি ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির (এআইইউ) প্রথম চ্যান্সেলর নিযুক্ত হয়েছেন।

বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বিবৃতিতে জানিয়েছে, সামাজিক বাণিজ্য ধারণাকে কাজে লাগিয়ে যারা মানবতার সেবা করতে চায়; আল বুখারি ইউনিভার্সিটির সেসব শিক্ষার্থীদের গড়ে তোলার জন্য ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে চ্যান্সেলর হিসেবে নিযুক্ত করা হয়েছে। যুক্তরাজ্যের গ্লাসগো ক্যালেডোনিয়ান বিশ্ববিদ্যালয়েরও চ্যান্সেলর তিনি।

আল বুখারি ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির প্রতিষ্ঠাতা তান শ্রী সায়েদ মুখতার আলবুখারি। আলবুখারি ফাউন্ডেশনের অধীনে বিশ্ববিদ্যালয়টির কার্যক্রম পরিচালিত হয়।

আলবুখারির ভাইস চ্যান্সেলর এবং প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক দাতুক ড. আবদুল আজিজ তাজউদ্দিনকে উদ্ধৃত করে মালয়েশিয়ান গণমাধ্যম এনএসটি জানিয়েছে, সামাজিক বাণিজ্যের মূল্যবোধ বিশেষ করে ড. ইউনূসের সামাজিক বাণিজ্যের সাতটি নীতির উপর ভিত্তি করে প্রতিষ্ঠানটি তাদের শিক্ষাক্রম সাজিয়েছে, যাতে শিক্ষার্থীরা সফল সামাজিক উদ্যোক্তা হতে পারেন।

আল বুখারির ওয়েবসাইট থেকে জানা গেছে, ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর এখন পর্যন্ত ৩৭টি দেশের ২১৮ জন শিক্ষার্থী সেখানে পড়াশোনা করছেন। চলতি বছরের ডিসেম্বর নাগাদ এই সংখ্যা ৮০০ ছাড়িয়ে যাবে।

বিশ্ববিদ্যালয়টির আশা, তারা পরবর্তী পাঁচ বছরে ৩ হাজার শিক্ষার্থীকে ভর্তি করতে পারবে।

বিনামূল্যে মেসিকে ছেড়ে দিলে জেলে যেতে হবে বার্সা সভাপতিকে

স্পোর্টস ডেস্ক : সম্ভাবনাটা ক্ষীণ, তবে অসম্ভব নয়। লিওনেল মেসিকে বিনে পয়সায় ছেড়ে দিলে জেলে যেতে হতে পারে বার্সেলোনা সভাপতি জোসেপ মারিয়া বার্তোমেউকে! বিবিসি ফাইভ রেডিওর লাইভ অনুষ্ঠানে এমনটাই দাবি করেছেন স্প্যানিশ ক্রীড়া সাংবাদিক গুইলেম বালাগ। পরে এ নিয়ে টুইটও করেছেন তিনি।

২০ বছরের বন্ধন ছিঁড়ে বার্সেলোনা ছেড়ে চলে যেতে চাইছেন মেসি। আর সিদ্ধান্তে যে তিনি অটল তা করোনাভাইরাস পরীক্ষা ও অনুশীলনে অংশ না দিয়ে বুঝিয়ে দিয়েছেন। তবে তাকে ছাড়তে রাজি নয় বার্সেলোনা। এমনকি এ প্রসঙ্গে কোনো আলোচনাও করতে রাজি নন বার্সা সভাপতি। যদিও বুধবার মেসির বাবা হোর্হে মেসির সঙ্গে আলোচনায় বসার কথা রয়েছে। স্প্যানিশ গণমাধ্যমের সংবাদ অনুযায়ী, সেখানে অবশ্য মেসিকে আরও দুই বছরের জন্য চুক্তি নবায়নের কথাই বলবেন বার্তোমেউ।
ফুটবল মহলে ঘুরে ফিরে একটি আলোচনাই হচ্ছে, ক্লাব ছাড়তে চাইলেও কেন মেসিকে জোর করে আটকে রাখতে চাইছেন বার্তোমেউ? সমর্থকরাও দ্বিধাদ্বন্দ্বের মধ্যে পড়ে গিয়েছেন।

রেকর্ড ছয় বারের ব্যালন ডি’অর জয়ী মেসির বিশ্বাস, বার্সার সঙ্গে তার চুক্তি শেষ হয়ে গেছে। যেহেতু তার চুক্তিপত্রে উল্লেখ রয়েছে, চাইলেই শেষ মৌসুমে বিনা রিলিজ ক্লজে দল ছাড়তে পারবেন। আর সে সুযোগটাই নিতে চাইছেন তিনি। আর শেষ পর্যন্ত যদি আর্জেন্টাইন তারকার দাবি টিকে যায়, তাহলে বড় ধরনের ঝামেলায় পড়ে যেতে পারেন বার্তোমেউ।

কেন পড়তে পারেন তার কারণ দেখিয়ে বালাগ বলেছেন, বার্তো তার প্রতিদ্বন্দ্বীদের সুযোগ দিতে চাইবে না। যদি মেসিকে বিনে পয়সায় ছেড়ে দিতে হয়, তাহলে পরবর্তী প্রেসিডেন্ট অথবা পুরো মৌসুমের টিকেট ক্রেতারা সম্পদের অপব্যবহারের মামলা করে দিতে পারবেন (বার্তোমেউর বিরুদ্ধে)। এমনটা হলে তাকে বিশাল অঙ্কের অর্থ নিজের পকেট থেকে দিতে হবে অথবা জেলেও যেতে হতে পারে। আর এ কারণেই তিনি মেসিকে আটকে রাখতে শেষ পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যাবেন।

প্রেসিডেন্ট পদে আগামী বছরই বার্তোমেউর মেয়াদ ফুরিয়ে যাচ্ছে এবং মার্চের নির্বাচনে তিনি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন না বলেই জানা গেছে।
তবে একটি বিকল্প রয়েছে বার্তোমেউর। সেটা হচ্ছে মেসির বাবার সঙ্গে আলোচনায় বুঝিয়ে রাজি করানো। এটাকে প্ল্যান বি উল্লেখ করে বালাগ আরও বলেছেন, প্ল্যান বি’ হচ্ছে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া। অন্তত কোর্টে নিয়ে যাওয়া। সেক্ষেত্রে ক্রীড়া আদালতে তার বয়স, চুক্তির মেয়াদ ও ক্লাবের ক্ষতি বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তাহলে সিটিও (ইন্টার/জুভেন্টাস) তাকে সাইন করানোর চিন্তা করবে না। কারণ এমন ক্ষেত্রে মামলার নিষ্পত্তি হওয়া অনিশ্চিত। – বিবিসি ফাইভ রেডিও /ডেইলি স্টার