adv
২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মালয়েশীয় উড়োজাহাজটি আর নেই?

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ৬০ ঘণ্টার বেশি সময় ধরে নিখোঁজ মালয়েশীয় উড়োজাহাজটি আর টিকে নেই বলে মনে করছেন বাংলাদেশের দুই এভিয়েশন বিশেষজ্ঞ।
তারা বলছেন, শনিবার প্রথম প্রহর থেকে নিখোঁজ বোয়িং ৭৭৭ উড়োজাহাজটির এতক্ষণ আকাশে ওড়ার সক্ষমতা নেই। আর উড়োজাহাজটি কোথাও নামলে তা কারো না কারো রাডারে ধরা পড়ত।
যেহেতু এটি ল্যান্ড করার কোনো খবর পাওয়া যায়নি, ফলে ধরে নিতে হবে উড়োজাহাজটি আর নেই। এমনটাই বলেছেন বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) পরিচালক (এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল) আজাদ জহিরুল ইসলাম। কুয়ালালামপুর থেকে বেইজিংগামী বিমানটি ৩৫ হাজার ফুট উঁচুতে ভেঙে পড়েছে ধরে এখন তদন্ত চলছে বলে মালয়েশিয়ার এক কর্মকর্তার উদ্ধৃতি দিয়ে রয়টার্স একদিন আগেই জানিয়েছে।
কুয়ালালামপুর থেকে ২৩৯ জন আরোহী নিয়ে দক্ষিণ চীন সাগরের ওপর দিয়ে বেইজিং রওনা হওয়া মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের বোয়িং ৭৭৭ উড়োজাহাজটি ওড়ার ৪১ মিনিটের মধ্যে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।
রাডার স্ক্রিন থেকে উড়োজাহাজটি হঠাৎ হারিয়ে যাওয়ার পর নয়টি দেশের নৌ ও বিমানবাহিনীর ৪০টি জাহাজ ও ৩৪টি বিমান সাগরের বিশাল এলাকাজুড়ে গত তিন দিন ধরে তল্লাশি চালালেও এমন কিছু পায়নি, যা বিধ্বস্তের প্রমাণ হিসাবে ধরে নেয়া যায়।
বেবিচক পরিচালক জহিরুল  জানিয়েছেন, ডিপারচারের পর থেকে ল্যান্ডিংয়ের আগ পর্যন্ত যে কোনো উড়োজাহাজের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ থাকে এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলার ইউনিটের।
ফ্লাইট নম্বর এমএইচ-৩৭০ (নিখোঁজ উড়োজাহাজ) এর ক্ষেত্রে বলা যায়, যদি পাইলট কোনো বিপদে পড়তেন তার হাতে যথেষ্ট সময় ছিল যোগাযোগ স্থাপনের। কিন্তু আমরা দেখতে পাচ্ছি, হঠাৎ করেই উড়োজাহাজটি সিগন্যাল পাঠানো বন্ধ করে দেয়।
ট্রাফিক কন্ট্রোলের দায়িত্বে থেকে বাংলাদেশে বোয়িং ৭৭৭ এর ওঠা-নামার নিয়ন্ত্রণে অভিজ্ঞ জহিরুল বলেন, একটি বোয়িং ৭৭৭ উড়োজাহাজের ফ্লাইং আওয়ার ১৭ ঘণ্টা;অর্থাৎ এতক্ষণে উড়োজাহাজটির কোথাও না কোথাও ল্যান্ড করার কথা।
রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের তিনটি বোয়িং ৭৭৭ উড়োজাহাজ ছাড়াও বিদেশি বিভিন্ন  এয়ারলাইন্সের বোয়িং ৭৭৭ উড়োজাহাজ নিয়মিত হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ওঠা-নামা করে।
নিখোঁজ বিমানের ভুয়া পাসপোর্টের দুই যাত্রী থাকায় নাশকতার আশঙ্কাও করা হচ্ছে বিভিন্ন মহল থেকে, যদিও কোনো প্রমাণ এখনো মেলেনি।
সেই সঙ্গে নিখোঁজ হওয়ার আগে বিমানটির মাঝপথ থেকে ফিরতে চাওয়ার ইঙ্গিত পাওয়ার কথা মালয়েশিয়ার বিমান বাহিনীর প্রধান বলার পর রহস্য ডালপালা মেলেছে। 
জহিরুল বলেন, হয়ত তাৎক্ষণিক কোনো সমস্যা হয়েছিল, যেটা বিদেশি গণমাধ্যমে আমরা দেখতে পাচ্ছি। কোনো বোমা হামলা বা সন্ত্রাসী হামলাও হয়ে থাকতে পারে। আসলে উড়োজাহজটির ব্ল্যাক বক্স বা ফ্লাইট রেকর্ডার উদ্ধার না হওয়া পর্যন্ত কিছুই বলা যাবে না।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া