২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ইং | ৯ই ফাল্গুন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

সংবিধান মোতাবেক অংশগ্রহণমুলক নির্বাচন হয়েছে : বিশিষ্টজনরা

নিজস্ব প্রতিবেদক : সংবিধান মোতাবেক অংশগ্রহণমুলক নির্বাচন হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিশিষ্টজনরা। শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে বঙ্গবন্ধু পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির উদ্যোগে সদ্য অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও বর্তমান বাস্তবতা শীর্ষক এক আলোচনা সভায় বিশিষ্টজনরা এ কথা বলেন।

তারা বলেন, নির্বাচন সম্পর্কে যে যাই বলা হোক না কেন, সংবিধান মোতাবেক অংশগ্রহণমুলক নির্বাচন হয়েছে। নির্বাচন নিয়ে যারা অপপ্রচার চালাচ্ছে তারা স্বাধীনতা বিরোধী। স্বাধীনতা বিরোধীরা কখনো দেশের ভালো চায় না। তাই আগামী ২০২১ সালে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী (৫০ বছর পুর্তি) উদযাপন করা হবে। তার আগে এই স্বাধীনতা বিরোধীদের দেশ থেকে বিতারিত করতে হবে। তা না হলে দেশ কলঙ্কমুক্ত হবে না।

বঙ্গবন্ধু পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ডা: এস এ মালেকের সভাপত্তিত্বে সভায় বি এস এম এম ইউ এর সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডাঃ কামরুল হাসান খান, বাংলা একাডেমীর সাবেক ডিজি শামসুজ্জামান খান, জাহাঙ্গীর নগন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপচার্য অধ্যাপক ড.আনোয়ার হোসেন, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপচার্য অধ্যাপক ড.ফায়েকুজ্জামান, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রোভিসি অধ্যাপক ড.মশিউর রহমান, উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার অধ্যাপক ড.আশরাফ হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বক্তারা বলেন, নির্বাচন কমিশনকে মেনেই নির্বাচনে অংশগ্রহন করেছেন সবাই। কিন্তু বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্ট কখনো তারা নির্বাচন কমিশনকে প্রশংসিত করেছেন আবার গালিও দিয়েছেন। নির্বাচনের আগের ড.কামাল এবারে নির্বাচনকে ভোট বিপ্লব বলে অভিহিত করেছেন। বিজয় সম্পর্কে তারা সুনিশ্চিত ছিলেন। অথচ ভোটের দিন তারা নানা অজুহাত দেয়া শুরু করে। কিন্তু এখন পর্যন্ত নির্বাচন কমিশনের কাছে নির্বাচন নিয়ে একটি অভিযোগ জমা পড়েনি। তাহলে কিভাবে বলা যায় নির্বাচনে অনিয়ম হয়েছে। তাই বলা যায় এবারের নির্বাচন সংবিধান মোতাবেক অংশগ্রহণমুলক হয়েছে।

অধ্যাপক কামরুল হাসান খান বলেন, এবারের নির্বাচনে কমিশনের কাছে অনিয়মের কোন অভিযোগ পড়ে নি। তাই নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে। তবে স্বাধীনতা বিরোধিরা এ নির্বাচনকে মেনে নিতে পারে নি। তারা স্বাধীনতার ৪৭ বছর পর এসেও দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। তাই দেশের মানুষ তাদের আর এই দেশের মাটিতে দেখতে চায় না। ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে দেশের জনগণ তার প্রমাণ দিয়েছেন। এই দেশে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ অনেক দেখেছে। এখন আগামীতে দেশকে কিভাবে এগিয়ে নিয়ে যাবে সেই পরিকল্পনা করতে হবে। এজন্য দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করতে হবে। দুর্নীতিদমন করতে হবে। তবে দুর্নীতিবাজ দিয়ে দুর্নীতি কমানো সম্ভব না। এজন্য নিজেদের মধ্যে সুদ্ধির অভিযান পরিচারনা করার পরামর্শ দেন তিনি।

সভাপতির বক্তব্যে ডা.এস এ মালেক বলেন, পৃথিবীর অনেক গণতান্ত্রীক দেশেও নির্বাচন শতভাগ অবাদ ও নিরপেক্ষ হয় বলে আমার মনে হয় না। বাংলাদেশেও এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম ঘটেনি। যে যেখাে সুযোগ পেয়েছে অনিয়মের আশ্রয় নিয়েছে। এ জন্য সরকার ও বিরোধি দলের কিছু দায়িত্বহীন লোকেরাই দায়ী। নির্বাচনে অংশগ্রহণ বলতে যা বোঝায় বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্ট সবকিছুই করেছে। এবং পরাজয় নিশ্চিত জেনেই তারা নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ায় ও ঘোষণা দেন রায় মানেন না পুনঃনির্বাচন দিতে হবে।

তিনি বলেন, এবার শেখ হাসিনা সরকার বিপুল ভোটে বিজয়ী হবেন তা আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অনেকেই বিবৃতি দিয়েছিলেন। জননেত্রী শেখ হাসিনা এদেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে চান। তিনি ভালো করেই জানেন গনতন্ত্রে বিরোধী দরের বুমিকা অনস্বীকার্য। তিনি সেবাবেই বিরোধী দলক দেখতে চান।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
ফেব্রুয়ারি ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জানুয়ারি    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া