২৪শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ৯ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

খুবিতে শিক্ষকদের গণপদত্যাগ

image_73967_0 (1)খুলনা: খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের (খুবি) প্রশাসনিক প্রধান উপাচার্যের (ভিসি) ওপর ক্ষোভের কারণে বিভিন্ন পদ থেকে দায়িত্বশীল শিক্ষকরা পদত্যাগ করছেন। স্থাপত্য ডিসিপ্লিনের প্রধানের পদত্যাগের মধ্যে দিয়ে শিক্ষকদের এ গণপদত্যাগ শুরু হয় ।

বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৭টা পর্যন্ত ছাত্র বিষয়ক পরিচালক, হলের প্রভোস্টসহ ৩৩ জনের পদত্যাগের খবর পাওয়া গেছে। এ সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে জানা গেছে।

ভিসির প্রতি ক্ষোভ থেকেই শিক্ষকদের এ গণপদত্যাগ শুরু হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন পদত্যাগপত্র জমা দেয়া শিক্ষকরা। তবে উপাচার্য জানিয়েছেন, কারও পদত্যাগ গ্রহণ করা হয়নি।  

এর আগে গত ২১ জানুয়ারি প্রথমে পদত্যাগ করেন স্থাপত্য ডিসিপ্লিনের প্রধান প্রফেসর ড. আফরোজা পারভীন। এরই ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবার ছাত্র বিষয়ক পরিচালক প্রফেসর ড. অনির্বাণ মোস্তফা ও তাঁর ৮ জন সহকারী, ইসিই ডিসিপ্লিনের প্রধান প্রফেসর ড. মো. মনিরুজ্জামান, ইংরেজি ডিসিপ্লিনের প্রধান এবং কলা ও মানবিক স্কুলের ডিন প্রফেসর মো. আহসানউজ্জামান, অপরাজিতা হলের প্রভোস্ট এবং রসায়ন ডিসিপ্লিনের প্রধান প্রফেসর ড. হোসনে আরা এবং ৫ জন সহকারী প্রভোস্ট, খানজাহান আলী হলের প্রভোস্ট প্রফেসর ড. মো. সারওয়ার জাহান ও ৪ জন সহকারী প্রভোস্ট, আহসানউল্লাহ হলের প্রভোস্ট প্রফেসর ড. কাজী শাহ নেওয়াজ রিপন ও ৭ জন সহকারী প্রভোস্ট পদত্যাগ করেন।

খুবি সূত্রে জানা গেছে, গত ১৮ জানুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় স্থাপত্য ডিসিপ্লিনের প্রধান ও চারুকলা ইনস্টিটিউটের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক ড. আফরোজা পারভীনের উপস্থিতি নিয়ে আমন্ত্রিত সদস্য প্রফেসর মো. মোস্তফা সারোয়ার আপত্তিকর মন্তব্য করেন। এতে ড. আফরোজা নিজেকে খুবই অসম্মানিত বোধ করেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে তিনি ওই দিনের সভার ঘটনাটি উল্লেখ করে পাঁচটি কারণ ও তিনটি পর্যবেক্ষণ বর্ণনা করে তার পদত্যাপত্র জমা দেন।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ড. আফরোজ বাংলামেইলকে বলেন, ’আামি একজন সদস্য হিসেবে সেই সভায় উপস্থিত হই। একজন আমন্ত্রিত সদস্য খুবই আপত্তিকরভারে এ বিষয়ে প্রশ্ন তোলেন। যা আমার জন্যে খুবই অপমানজনক। অথচ সভার প্রধান হিসেবে উপাচার্য বিষয়টিকে কোনো গুরুত্বই দেননি। এ অবস্থায় প্রশাসনের অংশ হিসেবে কাজ করা আমার জন্যে খুবই অসম্মানজনক। এ জন্য ডিসিপ্লিনের প্রধান হিসেবে পদত্যাগ করেছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘ডিসিপ্লিন প্রধান হিসেবে আমি প্রশাসনের অন্যান্য যেসব কমিটিতে আছি সেসব কমিটি থেকেও নিজেকে প্রত্যাহার করে নিচ্ছি।’

খুবি উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহম্মদ ফায়েকউজ্জামান এ ব্যাপারে সাংবাদিকদের বলেন, ’একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় যেভাবে একজন সম্মানিত সদস্যের উপস্থিতি নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয় তা দুঃখজনক। বিষয়টির একটি সম্মানজনক নিষ্পত্তির চেষ্টা চলছে।’

ড. আফরোজাসহ আরও কয়েকজনের পদত্যাগপত্র তিনি পেয়েছেন উল্লেখ করে বলেন, ’পদত্যাগপত্রগুলো এখনও গ্রহণ করা হয়নি।’

শিক্ষকদের ক্ষুব্ধতার কারণ সম্পর্কে জানতে চাইলে একজন শিক্ষক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ’খুবিতে বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত শিক্ষকরা বরাবর শক্তিশালী। তারা নানান সময়ে প্রশাসনকে বিব্রত করেছে। একারণে বর্তমান প্রশাসনিক প্রধান (উপাচার্য) বিএনপি-জামায়াতীদের তুষ্ট করে এগিয়ে যেতে চান। এ কার্যক্রমটি যারা পছন্দ করেন না তাদের তিনি নানাভাবে হেনস্থা করার কৌশল নিয়েছেন। ড. আফরোজাকে একজন আমন্ত্রিত সদস্য দিয়ে অপমানিত করানো তেমনি প্রক্রিয়ার একটি অংশ। যে কারণে উপাচার্য সভাপতির চেয়ারে বসেও বিষয়টি খুবই হালকাভাবে নিয়েছেন। এটি মর্যাদার প্রশ্ন। একারণে শিক্ষকরা এ প্রশাসকের অধীনে কাজ করতে স্বস্তি বোধ করছেন না।

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
জানুয়ারি ২০১৪
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« ডিসেম্বর   ফেব্রুয়ারি »
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া