adv
৬ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২১শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

রিজভীর স্বাক্ষর জাল করায় অব্যাহতি ইঞ্জি. ইকবালকে

ডেস্ক রিপোর্ট : বিএনপির দপ্তরের দায়িত্বে থাকা যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর স্বাক্ষর জাল করে অবশেষে ফেঁসে গেছেন দলটির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ইঞ্জিনিয়ার ইকবাল হোসেন। মঙ্গলবার রাতে তাকে দল থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।বুধবার বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। ময়মনসিংহ দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবু ওয়াহাব আকন্দ ওয়াহিদ ও উত্তর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোতাহার  হোসেন তালুকদার বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। দলীয় সূত্র জানায়, গত ১৫ মার্চ অনুষ্ঠিত  গৌরীপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্থানীয় উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক আহাম্মদ তায়েবুর রহমান হীরণকে চেয়ারম্যান পদে দলীয়ভাবে সমর্থন দেয় দলটির বৃহত্তর ময়মনসিংহ উপজেলা নির্বাচন সমন্বয় কমিটি।কিন্তু এ সিদ্ধান্ত মনঃপূত না হওয়ায় বেঁকে বসেন  গৌরীপুর উপজেলা বিএনপির আহবায়ক ও কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ইঞ্জিনিয়ার ইকবাল হোসেন।পরবর্তীতে ময়মনসিংহ শহরের একটি রেস্টুরেন্টে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তিনি নিজের অনুগত স্থানীয় পৌর বিএনপির সভাপতি সার্জেন্ট (অব.) মকবুল  হোসেনকে দল সমর্থিত প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করেন।এ ঘটনায় দুভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ে বিএনপির স্থানীয় নেতা-কর্মীরা। পরে কেন্দ্র থেকে বিদ্রোহী প্রার্থী সার্জেন্ট (অব.) মকবুল হোসেনকে দল থেকে বহিষ্কার করলে স্থানীয় নেতা-কর্মীদের দ্বিধা-দ্বন্দ্বের অবসান হয়।দলীয় সূত্র জানায়, এ বহিষ্কারের ঘটনায় বেশ বিপাকে পড়েন ইকবাল ও তার সমর্থকরা। ভোটের মাঠে দল সমর্থিত প্রার্থীকে কোণঠাসা করতে নির্বাচনের মাত্র দুইদিন আগে আকস্মিকভাবে দলীয় প্রার্থী হিরণকে বহিষ্কারের একটি চিঠি উপজেলার বিভিন্ন স্থানে বিলি করা হয়।এ চিঠিটিতে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও দপ্তরের দায়িত্বে থাকা রুহুল কবির রিজভীর স্বাক্ষর জাল করা হয়।নির্বাচনের আগের রাতে এ ঘটনায় রুহুল কবির রিজভী দলের নির্বাহী কমিটির সদস্য ইঞ্জিনিয়ার ইকবালকে শোকজ করেন এবং ২৪ ঘন্টার মধ্যে এর জবাব দিতে বলা হয়।কিন্তু নির্দিষ্ট সময়  পেরিয়ে গেলেও সন্তোষজনক জবাব দিতে ব্যর্থ হওয়ায় মঙ্গলবার রাতে তাকে দল থেকে অব্যাহতি দেন রুহুল কবির রিজভী।ময়মনসিংহ উত্তর  জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসেন তালুকদার  জানান, দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে ইঞ্জিনিয়ার ইকবালের বিরুদ্ধে কেন্দ্র থেকে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা  নেওয়া হয়েছে। এ সিদ্ধান্ত সময়োপযোগী।দলীয়  নেতা-কর্মীরা জানান, ২০০৭ সালে বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন ইঞ্জিনিয়ার ইকবাল হোসেন। ট্রান্সকম গ্রুপের কর্ণধার লতিফুর রহমানের ঘনিষ্ঠ আত্মীয় হওয়ার সুবাধে ২০০৭ সালের ২২ জানুয়ারির না হওয়া নির্বাচনে চার বারের সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট এ এফ এম নজমুল হুদাকে হটিয়ে দলীয় মনোনয়ন ভাগিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি করেন এলাকায়।এরই ধারাবাহিকতায় ২০০৮ সালের নির্বাচনে মনোনয়ন পান এবং  গৌরীপুর উপজেলা বিএনপির আহবায়ক পদটিও নিজের কব্জায়  নেন ইকবাল। পরবর্তীতে অরাজনৈতিক বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে দলের  ভেতরে-বাইরে নানাভাবে বিতর্কিত হয়ে উঠেন। মঙ্গলবার রাতে দলের সব পদ থেকে অব্যাহতি পাওয়ার মধ্য দিয়ে আপাতত সমাপ্ত হলো নব্য রাজনীতিক ইঞ্জিনিয়ার ইকবালের রাজনৈতিক ক্যারিয়ার। 

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া