১৬ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং | ২রা পৌষ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

adv

শিক্ষামন্ত্রী বললেন -চাবি দিলাম আর প্রশ্নফাঁস বন্ধ হয়ে যাবে, তা হবে না

NAHIDনিজস্ব প্রতিবেদক : প্রশ্নপত্র ফাঁস প্রতিরোধ করা নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, ‘হঠাৎ চাবি দিলাম আর বন্ধ হয়ে যাবে, তা হবে না। তবে প্রশ্নফাঁস প্রতিরোধে আমরা অনেক দূর এগিয়েছি।’ বৃহস্পতিবার (৩০ নভেম্বর) সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সম্মেলনকক্ষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন।

শিক্ষাবিদদের নিয়ে অনুষ্ঠিত সভা শেষে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘প্রশ্নফাঁসের বিষয়টি দীর্ঘকালের, আগে এত প্রচার হতো না। প্রচার মাধ্যম এত ছিল না। দেখা যায়, পরীক্ষার দিন সকালে প্রশ্নপত্র আউট হয়ে যায়। আমাদের টিচার প্রশ্নপত্র আউট করে দেয়, কেউ কেউ আমাদের বিরুদ্ধে প্রচারের জন্য ফেসবুকেও দিয়ে দেয়। এটা প্রতিরোধ করতে আধাঘণ্টা আগে পরীক্ষার হলে ঢুকা হচ্ছে।’

প্রশ্নফাঁস রোধে শিক্ষাবিদদের পরামর্শ এসেছে উল্লেখ করে নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, ‘আমরা একটু একটু করে আগাচ্ছি। দেশে অপরাধ চিরকাল ধরেই আছে। খুন করলে ফাঁসি হয়, এটা কি বন্ধ হয়ে গেছে? প্রতিনিয়ত খুন হচ্ছে, বিচার হচ্ছে, ফাঁসি হচ্ছে, আবার খুন হচ্ছে।’

বিজি প্রেস থেকে আগে প্রশ্নপত্র ফাঁস হতো, এখন আর তা হয় না উল্লেখ করে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘জেলায় জেলায় প্রশ্নপত্র ফাঁস হয় না, পরীক্ষা চলাকালে তিন মাসের মধ্যে হয় না, হয় পরীক্ষার দিন। আমরা ওই জায়গাতে পরামর্শ পেয়েছি, কিভাবে বন্ধ করবো।’

প্রশ্নফাঁস রোধে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ব্যর্থ কিনা জানতে চাইলে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘প্রশ্নফাঁস হয়নি –এমন কোনও কাল (সময়) দেখাতে পারবেন না। আমিও লেখাপড়া করেছি। প্রতিবছরই হতো, তখন তো এই রকম মাধ্যম ছিল না, ফেসবুকও ছিল না। এখন সহজে ফাঁস হয়ে যায় এবং বাইরের পাবলিকে জানে। আমরা ব্যর্থ এই কথা বলছি না। এখন পরীক্ষার দিন ছাড়া প্রশফাঁস হয় না। এই সব জায়গায় আমরা একদম গুটিয়ে নিয়ে এসেছি। আপনারা বিবেচনা করবেন, আমরা সফল না ব্যর্থ।’

প্রশ্নফাঁস রোধে সহযোগিতা চেয়ে নাহিদ বলেন, ‘আমরা গার্ডিয়ানদের আহ্বান জানাচ্ছি, আপনি আপনার সন্তানদের নষ্ট করবেন না। দয়া করে, আপনার সন্তানকে পড়ালেখার প্রতি মনোযোগ বাড়াতে তাগাদা দিন। টাকা দিয়ে প্রশ্ন কিনে দিয়ে আপনার সন্তানের সর্বনাশ করবেন না। টিচারদের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি, শিক্ষার্থীকে ভালো শিক্ষা দিয়ে গড়ে তোলেন। তবেই আপনার স্বার্থকতা।’

তিনি আরও বলেন, ‘মাধ্যমিক স্তরের মতো পর্যায়ক্রমে অন্য স্তরের পাঠ্যপুস্তক পরিমার্জন করে সুখপাঠ্য, সহজ-সরল ও প্রাঞ্জল করা হবে। একইসঙ্গে বই ও পরীক্ষার বোঝাও কমিয়ে আনা হবে। শিক্ষার মানোন্নয়নে মাঠ পর্যায়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের নিয়ে ওয়ার্কশপ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’  

মাধ্যমিক শিক্ষার মানোন্নয়নে করণীয় নির্ধারণের জন্য মন্ত্রণালয়কে পরামর্শ প্রদানের লক্ষ্যে গঠিত কমিটির সভা শেষে মাধ্যমিকে পাঠ্যবইয়ের বোঝা কমানোর পরামর্শ দেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদরা। সভায় শিক্ষাবিদ ড. মুহাম্মদ জাফর ইকবাল বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের ওপর থেকে চাপ কমাতে হবে। চাপ কমাতে পাঠ্যবই কমাতে হবে। তবে এ জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয় কার্যকর ব্যবস্থা নিচ্ছে।’

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে জাফর ইকবাল বলেন, ‘আমরা শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে বারবার পরামর্শ দিয়েছি পাবলিক পরীক্ষা কমানোর জন্য। আশা করছি, শিক্ষা মন্ত্রণালয় আমাদের পরামর্শ গ্রহণ করবে।’

সভায় শিক্ষাবিদ অধ্যাপক ড. আবদুল্লাহ আবু সাঈদ বলেন, ‘আমেরিকায় পাঠ্যবই অনেক সুন্দর, সুখপাঠ্য, উপন্যাসের মতো। শিক্ষার্থীরা আনন্দ নিয়ে বই পড়ে। আমি চাই, আমাদের বইগুলো সে রকম হোক।’ সভায় অন্যদের মধ্যে শিক্ষাবিদ ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী, অধ্যাপক ড. কায়কোবাদ, অধ্যাপক ড. এম এম আকাশ  প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
ডিসেম্বর ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« নভেম্বর    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া