শীতে রোগপ্রতিরোধে নিয়মিত খান এই ৬ ফল

ডেস্ক রিপাের্ট : ঠান্ডা আবহাওয়ায় সহজেই রোগজীবাণু আক্রমণ করতে পারে। এই সময়ে শরীর উষ্ণ রাখার পাশাপাশি রোগপ্রতিরোধে খাদ্যতালিকার দিকেও নজর দিতে হবে। শাকসবজির পাশাপাশি নিয়মিত খেতে হবে বিভিন্ন রকমের ফল। কাঁচা, স্মুদি বা আচার বানিয়েও খেতে পারেন ফল।

খাদ্যতালিকায় রাখতে পারেন রোগপ্রতিরোধকারী এই ৬ ফল-

পেয়ারা: মজাদার এই ফলে রয়েছে ভিটামিন সি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা ফ্রি রেডিকেল থেকে ত্বককে রক্ষা করে এবং কোষের ক্ষতি প্রতিরোধ করে। এটি উচ্চমাত্রায় ফাইবারসমৃদ্ধ হার্ট এবং রক্তে সুগারের মাত্রা ঠিক রাখে।

পেয়ার ফল: হালকা সবুজ এই ফল অস্থির জন্য উপকারী এবং এতে রয়েছে প্রদাহ প্রতিরোধী উপাদান এবং ভিটামিন ই এবং সি এর মতো অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান।

কমলা: ভিটামিন সি এবং ক্যালসিয়ামের ভালো উৎস এই ফল ঋতুকালীন রোগপ্রতিরোধ করে এবং জটিল রোগের উপসর্গ নিয়ন্ত্রণ করে। প্রতিদিন এক গ্লাস জুস পান করলে সারা দিন শরীর থাকবে চাঙ্গা।

আপেল: এটি প্রদাহ কমিয়ে শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করে। পেকটিক ফাইবার, ভিটামিন সি এবং কে সমৃদ্ধ এই ফল রোগ প্রতিরোধকারী হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

বেদানা: লাল এবং মিষ্টি এই ফল ফ্রি-রেডিকেল প্রতিরোধে কার্যকর। এ ছাড়া রক্তচাপ, হার্ট, ওজন কমানো এবং ত্বককে ক্ষতি প্রতিরোধে উপকারী।

আলু বোখারা: এতে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা রোগপ্রতিরোধে সহায়ক। গবেষণায় দেখা গেছে – এটি ক্যানসারের মতো রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা রয়েছে।

খালি পেটে খেতে মানা যেসব খাবার

ডেস্ক রিপোর্ট : বেশির ভাগ লোকই ওজন কমানোর জন্য ডায়েট করেন। দীর্ঘক্ষণ খালি পেটে থাকার পর এবং দিনের শুরুতে আপনি কী খাচ্ছেন তার ওপরেও এটা অনেকটা নির্ভর করে ওজন কমার বিষয়টি। খালি পেটে কিছু খাবার খেলে অ্যাসিডিটি, ওজন বৃদ্ধিসহ অন্য সমস্যাও দেখা দিতে পারে।

জেনে নিন যে খাবারগুলো খালি পেটে খাওয়া উচিত নয়-

টক ফল: খালি পেটে টক ফল খাবেন না। এর ফলে শরীরে প্রচুর অ্যাসিড তৈরি হয়। খালি পেটে এগুলো খেলে পেটে অতিরিক্ত ওজন জমতে শুরু করতে পারে। বরং দিনটি কিশমিশ বা ভেজানো বাদাম খাওয়ার মাধ্যমে শুরু করা উচিত।

কোমল পানীয়: সোডা বা কোনো কোমল পানীয় খালি পেটে পান করা উচিত নয়। যদিও এই পানীয়গুলো কখনই স্বাস্থ্যের পক্ষে ভালো না, তবে খালি পেটে এগুলো পান করলে আরও ক্ষতি হয়। খালি পেটে এগুলো পান করার ফলে গ্যাস এবং বমি বমি ভাব দেখা দেয়। পাশাপাশি স্থূলতা বাড়ে।

মসলাযুক্ত খাবার: সকাল থেকে খালি পেট থাকার পরে, প্রাতরাশের পর মসলাদার খাবার খেলে আপনার পেট জ্বালা হতে পারে। মসলাদার খাবার খেয়ে পেটে অম্বলও হতে পারে। প্রাতরাশ সব সময় হালকা এবং সহজ হওয়া উচিত।

কোল্ড ড্রিংকস: কোনোভাবেই দিন কোল্ড ড্রিংক দিয়ে শুরু করা উচিত নয়। কোল্ড কফি বা আইস টি পান করা আপনার হজম ক্ষমতাকে কমিয়ে দিতে পারে। পরিবর্তে হালকা গরম পানি, লেবু বা আদা চা নিন। এই তিনটি জিনিস ওজন কমানোর পাশাপাশি হজম শক্তি বাড়িয়ে তোলে।

মানুষের মুখের লালায় অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী জিন!

ডেস্ক রিপাের্ট : সুস্থ মানুষের মুখের লালায় যক্ষ্ম চিকিৎসায় ব্যবহৃত ডি-সাইক্লোসেরিন নামক একটি শক্তিশালী অ্যান্টিবায়োটিকের কার্যকারিতাকে নষ্ট করে দিতে পারে এমন একটি জিনের সন্ধান পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। ‘ডি-অ্যালানিন- ডি-অ্যালানিন লাইগেজ’ নামক এই জিনটি প্রথমবারের মতো ইন্টেগ্রন জিন ক্যাসেট নামক এক ধরণের ক্ষুদ্র ভ্রাম্যমাণ জেনেটিক উপাদানের মধ্যে শনাক্ত হয়।

বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যের দুটি পৃথক নমুনা সেটের প্রায় সকল সুস্থ স্বেচ্ছাসেবকের লালায় এই ভ্রাম্যমাণ জিনের সন্ধান পেয়েছেন ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডন, কিংস কলেজ লন্ডন এবং বাংলাদেশের রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক।

জিনটির দুটি আইসোফর্ম শনাক্ত হয়েছে, যার একটি আরেকটির তুলনায় চারগুণ শক্তিশালী। দাঁতের ক্ষয় রোগের জন্য দায়ী ট্রেপোনেমা ডেন্টিকোলা নামক এক ধরণের ব্যাকটেরিয়া এ জিনটি বহন করছে বলে প্রমাণ করেছেন তারা। জিনটির সামান্য জেনেটিক পরিবর্তন হলে এর পোষক ব্যাকটেরিয়া ভ্যানকোমাইসিন নামক আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ অ্যান্টিবায়োটিকের কার্যকারিতাকে নষ্ট করার ক্ষমতা অর্জন করতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এ সম্পর্কে বিশ্বখ্যাত প্রকাশনা সংস্থা নেইচার রিসার্চ কর্তৃক প্রকাশিত ‘সায়েন্টিফিক রিপোর্টস জার্নালে গত বৃহস্পতিবার একটি গবেষণাপত্র প্রকাশ হয়, যা ইতোমধ্যে বেশ সাড়া ফেলেছে।

ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডনের মাইক্রোবিয়াল ডিজিজেস বিভাগে প্রায় তিন বছর আগে কমনওয়েলথ বৃত্তি নিয়ে ড. অ্যাডাম রবার্টস ও প্রফেসর পিটার মুলানীর তত্ত্বাবধানে এ গবেষণাটির মূল কাজ সম্পন্ন করেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের শিক্ষক ড. মো. আজিজুর রহমান। তার পিএইচডি গবেষণার অংশ হিসেবে এ গবেষণা প্রকল্পটি সম্পন্ন হয়। কিংস কলেজ লন্ডনের ড. খন্দকার মিরাজ রহমানের ল্যাবে গবেষণাটির একটি অংশ সম্পাদিত হয়।

কাজটির গুরুত্ব এবং অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্ট্যান্স মোকাবেলায় তার গবেষণালব্ধ ফলাফল কি কাজে লাগবে জানতে চাইলে ড. আজিজুর বলেন, ‘অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্ট্যান্স মোকাবেলা করতে হলে ব্যাকটেরিয়ার অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী ক্ষমতার জন্য যে জিনগুলো দায়ী, তার উৎস খুঁজে বের করা খুব জরুরি। কারণ, অধিকাংশ রোগ সৃষ্টকারী ব্যাকটেরিয়া শুরুর দিকে অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী ছিল না। অ্যান্টিবায়োটিকের অতিরিক্ত ব্যবহার ও অপব্যবহারের কারণে এক সময়ের অ্যান্টিবায়োটিক সংবেদনশীল ব্যাকটেরিয়া নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষায় জেনেটিক মিউটেশন (জিনের গঠনগত পরিবর্তন) অথবা অন্য অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী ব্যাকটেরিয়ার ভ্রাম্যমাণ রেজিস্ট্যান্স জিন সংগ্রহ করে অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী হয়ে উঠেছে।’

তিনি বলেন, ‘জেনেটিক মিউটেশন বা ভ্রাম্যমাণ রেজিস্ট্যান্স জিন সংগ্রহ করে কি কি কৌশল প্রয়োগের মাধ্যমে একসময়ের অ্যান্টিবায়োটিক সংবেদনশীল ব্যাকটেরিয়াগুলো অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী হয়ে উঠলো তা নিয়ে বিস্তর গবেষণা হয়েছে এবং বিজ্ঞানীরা এ সকল কৌশলকে টার্গেট করে বেশ কিছু সফল অ্যান্টিবায়োটিক আবিস্কার করতে সক্ষম হয়েছেন। কিন্তু, অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী ব্যাকটেরিয়াগুলোতে ভ্রাম্যমাণ রেজিস্ট্যান্স জিনের প্রাথমিক উৎস কি তা পরিস্কার ছিল না। আমি আমার গবেষণায় দেখিয়েছি যে সুস্থ মানুষের মুখ গহ্বরে বসবাসকারী ব্যাকটেরিয়াও রেজিস্ট্যান্স জিনের বাহক হতে পারে। আমি সুস্থ মানুষের লালায় যে জিনটি শনাক্ত করেছি তা ভ্রাম্যমাণ হওয়ায় সেটি খুব সহজেই যক্ষ্মাসহ অন্য রোগ সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়ায় ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।’

ড. আজিজুর বলেন, ‘তিন মাস ধরে অ্যান্টিবায়োটিক গ্রহণ না করলেও প্রায় সকল স্বেচ্ছাসেবীদের লালায় এ জিনের সন্ধান পাওয়া বিস্ময়কর। আমরা মনে করছি দুদেশের কমন খাদ্য উপাদান যেগুলোর জীবাণু প্রতিরোধী ক্ষমতা রয়েছে, সে রকম উপাদানকে মোকাবেলা করার জন্য সম্ভবত মুখ গহ্বরের কিছু ব্যাকটেরিয়া এ জিনটিকে কাজে লাগাচ্ছে। আমাদের গবেষণার ফল অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী ব্যাকটেরিয়ার উদ্ভব হওয়ার পিছনে খাদ্য উপাদানের ভূমিকা নিয়ে নতুন গবেষণার দুয়ার উন্মুক্ত করল।’

প্রসঙ্গত, বিশ্বব্যাপী প্রতিবছর প্রায় এক মিলিয়ন মানুষ অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্ট্যান্ট জীবাণুঘটিত সংক্রমণের কারণে মৃত্যুবরণ করছে। বিজ্ঞানীরা আশঙ্কা করছেন এই সংখ্যা দিনে দিনে বাড়বে এবং বিশ্বব্যাপী দ্রুত সমন্বিত পদক্ষেপ না নিলে ২০৫০ সাল নাগাদ এ সংখ্যা বেড়ে ১০ মিলিয়নে দাঁড়াবে।

অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্ট্যান্স মোকাবেলা করতে সম্প্রতি ‘ওয়ান হেলথ গ্লোবাল লিডার্স গ্রুপ অন অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল রেজিস্ট্যান্স’ নামক একটি বৈশ্বিক প্লাটফর্মের সূচনা হয়েছে যার কো-চেয়ার হিসেবে মনোনীত হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গত ২০ নভেম্বর এ প্লাটফর্মের যাত্রা শুরুর অনুষ্ঠানে কো-চেয়ারের বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্ট্যান্সকে জনস্বাস্থ্যের জন্য ‘ভয়াল দুশমন’ হিসেবে শনাক্ত করেছেন এবং সেটা চলমান কোভিড-১৯-এর চেয়েও ভয়ংকর মহামারিতে রূপ নিতে পারে বলে সতর্ক করেন। – একুশেটিভি

ডায়াবেটিস বাড়ছে, বুঝবেন এই ১০ লক্ষণে

ডেস্ক রিপাের্ট : ডায়াবেটিস একটি নীরব ঘাতক। এতে আক্রান্ত হচ্ছেন অনেকেই। এটি এমনই এক রোগ যাকে পুরোপুরি নির্মূল করা সম্ভব নয়। তবে সচেতন থাকলে নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব। কিন্তু এখনও অনেকের মাঝে সেভাবে সচেতনতা বাড়েনি। চিকিৎসকদের মতে, অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাত্রা, মাত্রাছাড়া খাওয়াদাওয়ার ফলে বাড়ছে ডায়াবেটিসের সমস্যা। এছাড়া মানসিক চাপ ও অনিয়ম থেকেও অনেকের শরীরে বাসা বাঁধে এই রোগটি।

তবে অনেক সময়ে ডায়াবেটিস রোগীরা বুঝে উঠতে পারেন না এই রোগটি কখন নিয়ন্ত্রণ ছাড়িয়ে যাচ্ছে। কিন্তু কিছু লক্ষণ আছে তাতে বোঝা যায় শরীরে সুগারের মাত্রা বাড়ছে। এবার সেই লক্ষণ সম্পর্কে জেনে নিন-

বেশি বার বাথরুমে যাচ্ছেন
বার বার প্রস্রাব হওয়া কিন্তু ডায়াবেটিসের লক্ষণ। সুস্থ স্বাভাবিক যে কোনও মানুষ দিনে চার থেকে সাতবার বাথরুমে যান। কিন্তু ডায়াবেটিস রোগীদের ক্ষেত্রে তা অনেক বেশি হয়। এর কারণ হল শরীর অতিরিক্ত গ্লুকোজ তৈরি করে, তা প্রস্রাবের মধ্যে দিয়েই বাইরে আসে। যে কারণে অল্প পানি খেলেও বারে বারে বাথরুমে যেতে হয়।

সবসময় তৃষ্ণা পাওয়া
১০ মিনিট আগেও পানি খেলে যেন মনে হচ্ছে আবারও গলা শুকিয়ে যাচ্ছে। মুখ আর গলার চারপাশ সবসময় শুকনো থাকছে। প্রয়োজনের থেকে বেশি পানি খেয়েও তৃষ্ণা মিটছে না। এরকম সমস্যা হলে একবার সুগার টেস্ট করিয়ে নিন।

ত্বক খসখসে হয়ে যাওয়া
মুখ আর ত্বক আগের থেকে খসখসে হয়ে যাচ্ছে। চামড়া সবসময় শুকনো থাকছে। এছাড়াও কোন কারণ ছাড়াই সবসময় গা চুলকাচ্ছে। মুখের ভেতর চুলকোনো, পায়ের পাতা জ্বালা করা এসবও কিন্তু ডায়াবেটিস বাড়ার লক্ষণ।

খিদে বেড়ে যাওয়া
শরীর যখন খাবার হজম করায় তখন শক্তি উৎপন্ন করে। গ্লুকোজ ভেঙে সেই শক্তি আসে। কিন্তু ইনসুলিন যখন ঠিক মতো কাজ করে না তখন এই প্রক্রিয়া থাকে পুরোপুরি বন্ধ। ফলে রক্তে বাড়তে থাকে গ্লুকোজের মাত্রা। আর প্রয়োজনের তুলনায় বেশি খাবার খেলেও তখন মনে হয় পেট ভরেনি।

ক্লান্ত লাগা
ডায়াবেটিস বাড়লে শরীর অতিরিক্ত ক্লান্ত লাগে। থেকে থেকে ঘুম পায়। এছাড়াও কমে যায় পরিশ্রম ক্ষমতা। এমনকী পর্যাপ্ত ঘুমালেও মেটে না ঘুমের চাহিদা। ফলে তারা যেখানে-সেখানে ঘুমিয়ে পড়েন। তবে এই বিষয়টি অবহেলা করবেন না। পরিশ্রম করলে সবারই ক্লান্তি আসে, ঘুম পায়। কিন্তু শরীরে সুগারের মাত্রা বাড়লে এই ঘুম পাওয়া হল অন্যতম লক্ষণ। সব সময় মনে হবে ঘুম কম হচ্ছে।

দৃষ্টিশক্তি ঝাপসা হয়ে যাওয়া
চশমা ছাড়াই সব দেখতে পেতেন। কিন্তু কয়েকদিন ধরে সমস্যা হচ্ছে। সব আবছা লাগছে। দৃষ্টিশক্তি পরিস্কার হচ্ছে না, এসবই কিন্তু সুগারের লক্ষণ। কারণ সুগার বাড়লে তার প্রথম প্রভাব পড়ে চোখে আর কিডনিতে। যে কারণে কোমর ব্যথা, পায়ে ব্যথা ইউরিনের সমস্যা আসে। সেই সঙ্গে চশমা ছাড়া দেখতেও অসুবিধা হয়। চোখ সবসময় জ্বালা করে।

পায়ে ব্যথা
পেশির টান, পায়ের তলায় ব্যথা ও জ্বালা সুগার বাড়লে এই সমস্যাও আসে। বেশিক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকতে পারা যায় না। চামড়া ফেটে যায়। সুগার খুব বেশি বাড়লে এই সমস্যা কিন্তু আসতে বাধ্য। এছাড়াও পায়ের চামড়া মোটা হয়ে যাওয়া (কড়া পড়ে যাওয়া) সুগারের লক্ষণ।

ঘা শুকাতে সময় লাগে
সামান্য কোনও ঘা যদি শুকাতে সময় লাগে তাহলে মনে রাখবেন আপনার রক্তে শর্করার পরিমাণ বেশি। সুগার থাকলেই যে কোনও কাটা থেকে রস গড়ায়। ওষুধ লাগালেও ক্ষত সহজে সারতে চায় না। কাটার জায়গা লাল হয়ে ফুলেও যায়। যদি দেখেন ১০ দিনেও কোনও কাটা শুকাচ্ছে না তাহলে চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করুন অবিলম্বে।

খুব দ্রুত ওজন কমে যাওয়া
ওজন বেড়ে যাওয়া যেমন ভালো নয়, তেমনই দ্রুত ওজন কমে যাওয়াও খুব খারাপ। যারা টাইপ-১ ডায়াবেটিসের শিকার তাদের খুব দ্রুত ওজন কমে যায়। ওটাও ডায়াবেটিসের প্রাথমিক লক্ষণ।

ইউরিন ইনফেকশন
কোন কারণ ছাড়াই ইউরিন ইনফেকশন, জ্বর হচ্ছে? তাহলে ইউরিন ইনফেকশনের ওষুধের পাশাপাশি ডায়াবেটিস চেক করয়ে নিন। আপনার অজান্তেই হয়তো শরীরে সুগারের মাত্রা বেড়ে গিয়েছে। যে কারণে বার বার ইনফেকশন হচ্ছে, বাথরুমে সমস্যা হচ্ছে। এসব হলে একদম অবহেলা করবেন না। অবিলম্বে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

ব্ল্যাক কফি, এক সপ্তাহেই পেটের মেদ ঝরাবে

ডেস্ক রিপাের্ট : পেটের মেদ নিয়ে অনেকেই চিন্তায় থাকেন। কেউ চেষ্টা করেন বা না করেন চিন্তা করেন সবাই। যারা পেটের মেদের সমস্যায় রয়েছেন এবং কফি খেতে পছন্দ করেন তাদের জন্য এই প্রতিবেদন। তবে কফি হতে হবে ব্ল্যাক কফি। ওজন কমাতে কালো কফির জুড়ি মেলা ভার। হার্টের রোগী বা ডায়াবেটিস যাদের থাকে তাদের চিনি ছাড়া কালো কফি খাওয়ারই পরামর্শ দেওয়া হয়।

এককাপ কালো কফিতে ক্যালোরির পরিমাণ মাত্র ২। ডিক্যাফেইনেটেড বীজ থেকে বানান হলে তাতে আবার একেবারেই ক্যালোরি থাকে না। এছাড়াও ব্ল্যাক কফিতে ক্লোরোজেনিক অ্যাসিড নামে একটি উপাদান রয়েছে, যা ওজন কমাতে সাহায্য করে। রাতের খাবার খাওয়ার পরে এককাপ ব্ল্যাক কফি খেলে শরীরে ক্লোরোজেনিক অ্যাসিড গ্লুকোজ উৎপাদনে বাধা দেয়। ফলে নতুন ফ্যাট কোশও তৈরি হয় না।

শুধুমাত্র ক্লোরোজেনিক অ্যাসিডই যে ওজন কমানোর জন্য কালো কফিকে আদর্শ করে তুলেছে তা নয়। ব্ল্যাক কফিতে বিভিন্ন অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস আছে যা দ্রুত ওজন কমানোর সহায়ক।

ব্ল্যাক কফিতে থাকে ক্যাফিন যা খুব দ্রুত বিপাকের ক্রিয়াকলাপ বাড়ায় এবং আমাদের শরীরের শক্তির জোগান দেয়। ফলে খিদে কম পায়। তবে চিনি বা অন্যান্য মিষ্টি যুক্ত করে একে লো-ক্যালোরি পানীয় বানিয়ে তুলবেন না।

ব্ল্যাক কফির সঙ্গে যদি সামান্য মধু আর লেবু যোগ করে খেতে পারেন, তাহলে যেমন স্বাদ বাড়ে তেমনই তা ওজন কমাতেও সাহায্য করে। এমনিতেই লেবু আর মধু ওজন কমানোর সহায়ক। আর তার সঙ্গে যদি যুক্ত হল ব্ল্যাক কফি তাহলে ওজন কমবেই।

একান্তই দুধ দিয়ে খেতে হলে আমন্ড কিংবা সোয়া মিল্ক দিয়ে খান। তাতে শরীরও ভালো থাকবে। ওজনও কমবে। ব্ল্যাক কফি খেতে পারেন গুড় দিয়েও। তাতে ফ্যাটও জমবে না। রক্তের শর্করাও থাকবে নিয়ন্ত্রণে।

সকালে খালি পেটে ব্ল্যাক কফি না খাওয়াই ভালো। লেবু-মধু মিশিয়ে এই কফি খাওয়ার আদর্শ সময় হল সন্ধ্যাবেলা। কোনো ইভিনিং স্ন্যাকস এরপর যদি লেবু-মধু মেশানো কালো কফি খান তাহলে ওজন কমবে তাড়াতাড়ি। আর খেতে পারেন ডিনারের পর। এতে হজমও ভালো হবে। অতিরিক্ত ফ্যাট জমবে না। অনেকেই বলেন রাতে কালো কফি খেলে ঘুম আসে না। কিন্তু এক্ষেত্রে সমস্যা হয় না। কফির সঙ্গে মধু আর লেবুর রস মিশলে হজম ভালোই হয়। এখন অনেক ক্যাফের মেনুতেও থাকে এই কফি।

এক কাপ পানি গরম করুন। তার মধ্যে রোস্টেড কফিনিয়ে খানিকক্ষণ ফুটিয়ে নিন। এবার কাপে সামান্য গোলমরিচের গুঁড়ো আর লেবু-মধুর মিশ্রণ বানিয়ে নিন। কফি ছেঁকে নিন। ৫ মিনিট রেখে একটু ঠান্ডা করে তবেই খান।

কোলেস্টেরল কমাতে

ডা. শেখ মইনুল খোকন : যকৃতে প্রস্তুত এক ধরনের চর্বিজাতীয় মোমের মতো বস্তুকে কোলেস্টেরল বলা হয়। শরীরে বিভিন্ন প্রয়োজনীয় কাজকর্ম যেমন হরমোন, ভিটামিন উৎপাদন, ভিটামিন A, D, E এবং K, জাতীয় চর্বিতে দ্রবণীয় ভিটামিন শোষণের জন্য, এবং কোষ গঠন এবং রক্ষণাবেক্ষণের জন্য কোলেস্টেরল জরুরি। রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা স্বাভাবিকের থেকে বেশি হলে হার্টের রোগ, হৃদরোগে আক্রমণ ও স্ট্রোক হতে পারে।

ওষুধ নিয়ে পরামর্শ

 বর্ধিত কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাধারণত স্ট্যাটিন ব্যবহার করা হয়। যকৃতে কোলেস্টেরলের উৎপাদন বন্ধ করে দেয় স্ট্যাটিন।

 যকৃতের ওপর PCSK 9 (Proprotein convertase subtilisin/kexin type 9) ইনহিবিটরের মতো ওষুধ ভালো কাজ করে এবং রক্ত LDL মুক্ত করতে যকৃতকে সাহায্য করে। রক্তে ট্রাইগ্লিসারাইড কমাতেও এই ওষুধ সাহায্য করে।

 বাইল অ্যাসিড সিকোয়েসট্র্যান্ট (খাদ্যে গুণমান বাড়ায়) বাইল অ্যাসিডের ওপর প্রতিক্রিয়া করে রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়।

 নিয়াসিন (ভিটামিনই ৩ বা নিকোটিনিক অ্যাসিড) খউখ (খারাপ কোলেস্টরল) কমায় এবং HDL (ভালো কোলেস্টেরল) বাড়ায়।

 ফাইব্রেটস রক্ত খুব কম-ঘনত্বের লাইপোপ্রোটিন (VLDL) থেকে মুক্ত করে। তারা ঐউখ মাত্রাও বাড়ায়। যাই হোক, যখন স্ট্যাটিনের সঙ্গে একযোগে ব্যবহার হয় তখন ফাইব্রেটস পেশির সঙ্গে সম্পর্কিত সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে।

 খাদ্য থেকে কোলেস্টেরল শোষণে বাধা সৃষ্টি করতে পারে এজাটিমিব।

 যকৃত থেকে VLDL কোলেস্টরল ক্ষরিত হয়ে রক্তে মিশতে বাধার সৃষ্টি করে লোমিটাপাইড এবং মাইপোমার্সেন। জিনের কারণে যাদের শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা বেশি তাদের জন্য এটি ব্যবহৃত হয়।

 শরীরের বাইরে একটি পরিষ্করণ যন্ত্র বসিয়ে রক্তকে খারাপ কোলেস্টেরল মুক্ত করার পদ্ধতি হলো লাইপোপ্রোটিন অ্যাফেরেসিস।

খাদ্যতালিকায় পরিবর্তন

 আপনার দৈনিক প্রয়োজনীয় ক্যালরির ৭% আসবে সম্পৃক্ত চর্বি (স্যাচুরেটেড ফ্যাট-মাংস, ডেয়ারি পণ্য, অন্যান্য খাবারের সঙ্গে ভাজাভুজি) থেকে, এবং সামগ্রিকভাবে স্নেহজাতীয় খাদ্য থেকে আসবে ৩৫%।

 দৈনিক ২০০ মি.গ্রা কোলেস্টেরল গ্রহণ করা যেতে পারে।

 খাদ্যতালিকায় বেশি মাত্রায় থাকবে দ্রবণীয় তন্তু (ফাইবার) যার মধ্যে আছে শস্যদানা, ফল এবং শুঁটিজাতীয় সবজি (উদাহরণ : ওট, আপেল, কলা, নাশপাতি, কমলালেবু, রাজমা বা শিম, ডাল, ছোলা)। সবজি এবং ফলে দ্রবণীয় তন্তু (ফাইবার) কোলেস্টেরল শোষণে বাধা দেয়।

 মাছে খুব ভালো পরিমাণে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড আছে বলে হার্টের বিভিন্ন রোগ এবং হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়া থেকে রক্ষা করে।

 সীমিত মাত্রায় লবণ এবং কম মদ্যপান রক্তচাপ এবং রক্তে ট্রাইগ্লিসারাইড নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।

 নিয়মিত শারীরিক ব্যায়াম উচ্চ কোলেস্টেরল কমাতে এবং স্থূলতা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।

 কোলেস্টরল নিয়ন্ত্রণ করতে একেবারেই ধূমপান করবেন না।

 কোলেস্টরল কমাতে ওটস, বার্লি, বিনস (রাজমা, ছোলা, ডাল), বেগুন, ঢেঁড়স (ওকরা), বাদাম (কাঠবাদাম, আখরোট, চিনাবাদাম), বনস্পতি তেল (সূর্যমুখী তেল, কুসুমবীজের তেল), ফল (লেবুজাতীয়, আপেল, আঙুর), স্টেরল এবং স্ট্যানল সমৃদ্ধ খাদ্য (প্লান্ট গাম যা ফল থেকে কোলেস্টরল শোষণ করে), সয়া (টোফু, সয়াদুধ), মাছ, (সামন, ম্যাকরিল), জোলাপের মধ্যে থাকা ফাইবার ইত্যাদি বেশ উপকারী।- দেশরূপান্তর থেকে

পেটের চর্বি কমাতে যেভাবে রসুন খাবেন

ডেস্ক রিপাের্ট : রসুন একটি অতিপরিচিত বস্তু, যা প্রায় প্রতিটির বাড়ির রান্না ঘরেই থাকে। সহজলভ্য এই জিনিসটির স্বাস্থ্য উপকারিতা কখনোই অস্বীকার করা যায় না। এটি পুষ্টির পাওয়ার হাউস হিসেবে পরিচিত।

নিম্ন রক্তচাপ থেকে শুরু করে সাধারণ সর্দি-কাশিতে ঘরোয়া প্রতিষেধক হিসেবে কাজ করে। এটি পেটের চর্বি ঝরাতেও চমৎকার কাজ করে।

যেভাবে ওজন কমায় রসুন: এতে ভিটামিন বি৬ এবং সি, ফাইবার, ম্যাংগানিজ, ক্যালসিয়াম রয়েছে। এগুলো ক্যালরি কমাতে ভূমিকা রাখে। ২০১১ সালে প্রকাশিত পুষ্টিবিষয়ক একটি জার্নালে উল্লেখ করা হয়, নারীদের ওজন কমাতে রসুন সহায়ক।

এছাড়াও রসুন রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে, রক্ত পরিষ্কার করে এবং সর্দি-ফ্লু প্রতিরোধে সহায়তা করে।

নিয়মিত রসুন খেলে শরীরে শক্তি বাড়ায় এবং হজমক্রিয়ার উন্নতি ঘটায়।

যেভাবে খাবেন রসুন

গোলমরিচ-রসুন: ২-৩টি রসুনের কাটা কোয়া এক গ্লাস পানিতে সারা রাত ভিজিয়ে রাখুন। সকালে রসুনের কোয়াগুলো তুলে ফেলে দিন। এরপর এতে এক চিমটি গোলমরিচের গুঁড়া মিশিয়ে খালি পেটে পান করুন।

রসুন-মধু: ২-৩টি রসুনের কোয়া খোসা ছাড়িয়ে পিষে নিন। এটি কয়েক ফোঁটা মধুর সঙ্গে মেশান এই রসুন। মিশ্রণটি ১৫-২০ মিনিট পর খেয়ে নিন। প্রতিদিন একবার করে খান।

রসুন-লেবুর রস: ২-৩টি রসুনের কোয়া এক গ্লাস উষ্ণ পানিতে কিছুক্ষণের জন্য রেখে নিন। এবার এক টেবিল চামচ লেবুর রস এতে ভালোভাবে মেশান। সকালে খালি পেটে এই মিশ্রণটি পান করুন।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে, সাইনাসের ব্যথা উপশমে লবঙ্গ

ডেস্ক রিপাের্ট : রান্নায় মসলা হিসেবে ব্যবহার করা হয় লবঙ্গ। রোগ নিরাময়ে লবঙ্গের কার্যকারিতা গবেষণায় বার বার উঠে এসেছে। এর রয়েছে অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতা-

১. লবঙ্গে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট থাকে, যা ফ্রি রেডিকেলস কমাতে সাহায্য করে। লবঙ্গের একটি উপাদান হল ইউজেনল, যা প্রাকৃতিক অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট হিসেবে কাজ করে।

২. এক চা চামচ (৫ গ্রাম) লবঙ্গে পাওয়া যায় কার্বোহাইড্রেট, ফাইবার, ভিটামিন কে ও ম্যাঙ্গানিজ়। মস্তিষ্কের বিভিন্ন কাজকর্ম সুষ্ঠু রাখতে ও হাড় শক্ত করতে ম্যাঙ্গানিজ় খুব জরুরি। ম্যাঙ্গানিজের একটি উৎকৃষ্ট উৎস হল লবঙ্গ।

৩. লবঙ্গের আর একটি উপাদান হল নাইজেরিসিন। বিভিন্ন পরীক্ষায় দেখা গেছে, এই উপাদানের জন্যই রক্ত থেকে শর্করা বিভিন্ন কোষে পৌঁছে দেওয়া, ইনসুলিন উৎপাদনকারী কোষগুলোর কার্যক্ষমতা বাড়ানো ও ইনসুলিন নিঃসৃত হওয়ার পরিমাণ বাড়ানোর মতো কাজ ভালোভাবে হয়। তাই মধ্য মাত্রার ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে লবঙ্গ ভালো কাজে দেয়।

৪. সর্দি-কাশি, সাইনাসের ব্যথায় লবঙ্গ তেল মালিশের কথা অনেকেই জানেন। এর অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়া ও অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি গুণের জন্যই দাঁতের ব্যথায়ও এটি খুব উপকারী। নিয়মিত লবঙ্গ দেওয়া মাউথ ওয়াশ ব্যবহার করলে মাড়ি সুস্থ থাকে। ব্যাকটেরিয়ার হাত থেকে দাঁত বাঁচায়।

৫. সংক্রমণ, স্ট্রেস বা জিনগত কারণে পেপটিক আলসার বা স্টমাক আলসারের সমস্যা বাড়ে। বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, লবঙ্গের এসেনশিয়াল অয়েল গ্যাসট্রিক মিউকাসের উৎপাদনে সাহায্য করে। এই মিউকাসই সংক্রমণের হাত থেকে পাকস্থলীকে রক্ষা করতে ঢাল হিসেবে কাজ করে।

৬. লো-বোন মাস এমন একটি অবস্থা, যা বয়োজ্যেষ্ঠদের মধ্যে অস্টিয়োপোরোসিসের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। কয়েকটি পরীক্ষায় দেখা গেছে, লবঙ্গের উপাদান হাড়ের জোর ও বোন ডেনসিটি বাড়াতে সাহায্য করে।

কীভাবে খাবেন লবঙ্গ:

১. সর্দি লাগলে লবঙ্গ দেওয়া চা খাওয়া হয়। গার্গল করার সময়ে জলে লবঙ্গ দিলে ওর ঝাঁঝে অনেকটা উপশম হয়।

২. গরম পানিতে পাঁচ মিনিট লবঙ্গ ফুটিয়েও সেই পানি পান করা যায়।

৩. কাঁচা লবঙ্গ চিবিয়ে বা লবণ মাখিয়ে খাওয়া যায়।

৪. মধুর সঙ্গে মিশিয়ে খাওয়া যায়।

আপেলের চেয়ে বিচি দশ গুণ বেশি স্বাস্থ্যকর

ডেস্ক রিপাের্ট : স্বাস্থ্যকর খাবার এবং সহজলভ্য ফল হিসেবে আপেলের জনপ্রিয়তা রয়েছে। মধ্যাহ্নের ক্ষুধা নিবারণে আপেল একটি নিখুঁত পছন্দ। আপেল ফাইবার এবং প্রোটিন সমৃদ্ধ। সকালের নাস্তায় আপেলের কদর রয়েছে। তবে আপনি জেনে অবাক হবেন যে, আপেলের স্বাস্থ্যকর অংশটিই আমরা সাধারণত ফেলে দেই। চলুন জেনে নিই আপেলের কোন অংশ সবচেয়ে স্বাস্থ্যকর।

অনেকেই মনে করছেন আপেলের খোসা ফেলে দেয়া হয়। এটিই মনে হয় সবচেয়ে স্বাস্থ্যকর। এমনটি ভেবে থাকলে আপনি ভুল ভাবছেন। আসলে আপেলের সবচেয়ে স্বাস্থ্যকর অংশ হলো এর বিচি। আপেলের মাংসের চেয়ে বিচি দশ গুণ বেশি স্বাস্থ্যকর ব্যাকটেরিয়া সরবরাহ করতে পারে।

২০১৯ সালে জার্নাল ফ্রন্টিয়ার্স ইন মাইক্রোবায়োলজিতে প্রকাশিত সমীক্ষা অনুসারে, একটি আপেলের বীজে স্বাস্থ্যকর ব্যাকটেরিয়া থাকে, যা বেশিরভাগ মানুষ উপেক্ষা করে। একটি সম্পূর্ণ আপেল (বিচিসহ) প্রায় একশ মিলিয়ন (দশ কোটি) ব্যাকটেরিয়া ধারণ করে। যার মধ্যে আপেলের মাংসে শুধুমাত্র এক কোটি স্বাস্থ্যকর ব্যাকটেরিয়া রয়েছে।

গবেষণায় বলা হয়েছে, আপেলের ব্যাকটেরিয়াগুলো বেশ স্বাস্থ্যকর এবং অন্ত্রের জীবাণুগুলোর একটি গুরুত্বপূর্ণ উৎস। স্বাস্থ্যকর অন্ত্রে মাইক্রোবায়োটা থাকা সামগ্রিক স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। এটি আপনাকে বাইরের রোগজীবাণু থেকে রক্ষা করে।

আপেলের বীজে প্রোটিন, ফাইবার এবং তেলও থাকে। এটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ক্যানসার বিরোধী যৌগ সমৃদ্ধ।

আমরা বিভিন্ন ফল বা শাক-সবজির বীজ ফেলে থাকি কারণ এতে অ্যামিগডালিন নামে একটি যৌগ থাকে, যা বিষাক্ত বলে বিবেচিত হয়। যখন এই যৌগটি আমাদের পাচনতন্ত্রের সংস্পর্শে আসে তখন এটি সায়ানাইড নিঃসরণ করে, যা মারাত্মক বিষ।

রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্রের (সিডিসি) হিসাবে, ৭০ কেজি ওজনের একজন ব্যক্তির জন্য ১-২ মিলিগ্রাম সায়ানাইড মারাত্মক হতে পারে। তবে আপেল বীজে অ্যামিগডালিনের পরিমাণ একেবারেই কম। শরীরে মারাত্মক পর্যায়ের সায়ানাইড তৈরি হতে গেলে ২০০টি আপেলের বীজের দরকার পড়বে।

নিঃসন্দেহে আপেলের বীজ সম্পর্কে এই নতুন গবেষণাটি আকর্ষণীয়। এর সঙ্গে সম্পর্কিত বিভিন্ন মতামত রয়েছে। কিছু গবেষণা অনুসারে, আপেলের বীজ খাওয়ার কোনো ক্ষতি নেই, আবার অন্যরা মনে করেন আপেলে বীজ ফেলে দেয়ায় ভালো। তবে এ বিষয়ে উপসংহারের আগে আরও গবেষণার প্রয়োজন। সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

শরীরের ফাটা দাগ দূর করতে ৬টি কার্যকরী ঘরোয়া উপায়

ডেস্ক রিপাের্ট : হঠাৎ করে বেড়ে গিয়েছিল ওজন। অনেক চেষ্টার পর ওজন কমিয়ে আগের চেহারায় ফিরেছেন। কিন্তু এবার নতুন সমস্যা দেখা দিয়েছে সেটি হলো স্ট্রেস মার্ক বা ফাটা দাগ। শরীরের বিভিন্ন অংশে মেদ ঝরে যাওয়ার ফলে বা বেশি মোটা গেলে স্ট্রেস মার্ক বা ফাটা দাগ দেখা দেয়। ঘরোয়া কিছু কার্যকরী উপায়ে এটি দূর করা সম্ভব। চলুন তেমন ছয়টি উপায় সম্পর্কে জেনে নিই।

# প্রতিদিন নারকেল তেল বা অলিভ অয়েলের সঙ্গে আমন্ড অয়েল মিশিয়ে নিন। এরপর সেই মিশ্রণ ফাটা দাগ উপর লাগিয়ে ফেলুন। কয়েক মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন।

# লেবুর রসের সঙ্গে বেকিং সোডা মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এরপর ফাট দাগের উপর ব্যবহার করুন ওই মিশ্রণ। উষ্ণ পানি দিয়ে ধুয়ে মশ্চারাইজার লাগান।

# ফাটা দাগ দূর করতে লেবুর রসও ব্যবহার করতে পারেন। প্রতিদিন ফাটা দাগের উপর লেবুর রস মেখে নিন। এরপর ১০ মিনিট রেখে হালকা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে মশ্চারাইজার লাগান।

# একটি বোতলে অ্যাপেল সিডার ভিনিগার ভরে নিন। এরপর প্রতিদিন ফাটা দাগের উপর সেটা স্প্রে করুন। ঘুমাতে যাওয়ার আগে প্রতিদিন নিয়ম করে ব্যবহার করুন অ্যাপেল সিডার ভিনিগার। এরপর সকালে তা ধুয়ে ফেলুন।

# ফাটা দাগ নির্মূল করতে হলুদও বেশ উপকারী। দই এর সঙ্গে হলুদ মিশিয়ে যদি ফাটা দাগের উপর ব্যবহার করতে পারেন, তাহলে উপকার পাবেন। প্রতিদিন ওই মিশ্রণ ফাটা দাগের উপর লাগাতে হবে এবং ধুয়ে ফেলতে হবে হালকা গরম পানি দিয়ে। এরপর সেখানে মশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে।

# অ্যালোভেরা জেল দাগ তোলার জন্য ভীষণ উপকারী। অ্যালোভেরা জেল ফাটা জায়গায় কিছু সময় ম্যাসাজ করে শুকাতে দিন। এভাবে প্রতিদিন দু’বার ব্যবহার করলে দাগ উঠে যাবে।

তবে শরীরের ফাটা দাগ দূর করতে ম্যাসাজ করার পাশাপাশি যথেষ্ট পরিমাণে প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে। যেমন- মাছ, মাংস, ডিমের সাদা অংশ, দই, বাদাম ও সূর্যমুখী তেলের বীজ। খেয়াল রাখতে হবে শরীরে যাতে কোনোভাবেই পানি ও প্রোটিনের ঘাটতি না হয়।

৫৪