শিবির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সহ আটক ৩

news_imgডেস্ক নিউজ: রাজশাহীতে মহানগর ছাত্রশিবিরের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ ৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

নগরীর নওদাপাড়া এলাকার একটি বাড়ি থেকে সোমবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে তাদের আটক করা হয়। এ সময় ওই বাড়ি থেকে চারটি মোটরসাইকেলও উদ্ধার করে পুলিশ।

আটকরা হলেন- রাজশাহী মহানগর ছাত্রশিবির সভাপতি ডা. আনোয়ারুল ইসলাম ফিরোজ, সাধারণ সম্পাদক নাফিস রাইয়্যান মারুফ ও সমাজসেবা সম্পাদক সাঈদ আমীন মুলহীম।

মহানগর ছাত্রশিবিরের প্রচার সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ সোমবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে স্বাক্ষরিত এক বার্তায় এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এ ব্যাপারে শাহমখদুম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান ৩ শিবির নেতা আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করলেও তাদের পরিচয় জানান নি তিনি।

ছাত্রদলের মিছিলে পুলিশের গুলি, আহত ৮

image_66299_0 (1)রাবি: ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের মুক্তির দাবিতে রাজশাহী বিভাগে ছাত্রদলের  ডাকা হরতালের সমর্থনে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) শাখা ছাত্রদল। এসময় তাদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ বিপুল পরিমাণ শর্টগানের গুলি ও টিয়ার শেল নিক্ষেপ করেছে।

এ ঘটনায় অন্তত ৮ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন বলে দাবি করেছেন রাবি শাখা ছাত্রদল।

 সোমবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যদর্শীরা জানান, রাজশাহী বিভাগে ডাকা সকাল-সন্ধ্যা হরতালের সমর্থনে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট ভবনের সামনে থেকে রাবি শাখা ছাত্রদলের আহ্বায়ক আরাফাত রেজা আশিকের নেতৃত্বে একটি মিছিল বের করা হয়।

মিছিলটি ক্যাম্পাসের প্রধান ফটক দিয়ে ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কে উঠতে চাইলে পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করতে অন্তত অর্ধশতাধিক রাউন্ড শর্ট গানের গুলি ও টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে। এ সময় ছাত্রদলের যুগ্ম-আহ্বায়ক ইসমাঈল, রাসেল ও ছাত্রদলকর্মী রবিন, পাপন, সামিউল, দেলওয়ার, তুর্য ও আরিফ আহত হন। আহতদের রাবি ও রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

রাবি ছাত্রদলের আহ্বায়ক আরাফাত রেজা বাংলামেইলকে বলেন, আমাদের শান্তিপূর্ণ মিছিলে পুলিশ ব্যাপক গুলি ও লাঠিচার্জ করেছে। এতে আমাদের ৮ নেতাকর্মী আহত হয়।

মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল মজিদ বাংলামেইলকে বলেন, ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা মিছিল করার চেষ্টা করলে পুলিশ টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দিয়েছে। এতে তারা পালিয়ে যাওয়ায় কাউকে আটক করতে পারেনি পুলিশ।

রাজশাহীতে ব্রয়লার মুরগির দাম বেড়েছে

image_58076_0রাজশাহী: অবরোধের উত্তাপ ছড়িয়েছে রাজশাহীর বাজারে। শুক্রবার রাজশাহী নগরীর সাহেববাজারে গিয়ে দেখা গেছে, ব্রয়লার মুরগির দাম প্রতিকেজিতে ২০ টাকা বেড়েছে। এছাড়া অন্য দিনের চেয়ে শুক্রবার তুলনামূলক ক্রেতাদের ভিড় বেশি লক্ষ্য করা গেছে।বিক্রেতারা বলছেন, “গত কয়েকদিনের অবরোধের কারণে বাজারে তুলনামূলক ক্রেতার সংখ্যা কম ছিল। এছাড়া বিক্রিও হয়েছে কম। এতে করে ব্রয়লার মুরগির আমদানি কমে যায়।আর শুক্রবার ছুটির দিন হওয়ায় ক্রেতার সমাগম বেড়েছে, তাই ক্ষতি পুষিয়ে নিতে দাম কিছুটা বেড়েছে বলে জানান তারা।  খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত সপ্তাহে বাজারে ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হয়েছে প্রতিকেজি ১০০ টাকা দরে। আশপাশের বাজারেও একই দামে বিক্রি হয়েছে তবে ব্রয়লার মুরগির দাম সহসাই কমে যাবে বলে আশা করছেন বিক্রেতারা।অন্যদিকে, বাজারে ইলিশসহ সব ধণের মাছ-মাংসের দাম আগের মতই অপরিবর্তিত রয়েছে। শুক্রবার বাজারে ৮০০ থেকে ৯০০ গ্রাম ওজনের একটি ইলিশ ৬০০ থেকে ৬৫০ টাকা এবং এর চেয়ে ছোট আকারের ইলিশ ৪০০ থেকে ৫৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।গরুর মাংস প্রতিকেজি ২৬০-২৭০ টাকা আর খাসির মাংস ৪০০-৪৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।ক্রেতারা বলছেন, হরতাল-অবরোধের কারণে মানুষ সহিংসতার আশংকায় উদ্বেগ উৎকণ্ঠায় থাকেন। আর শুক্রবার ছুটির দিন হওয়ায় রাজনৈতিক কোনো কর্মসূচি নেই। তাই এই সুযোগে বাজারে ক্রেতাদের সমাগম অন্য দিনের চেয়ে বেশি বলে মনে করছেন তারা।

 

রাজশাহীতে সবজির দাম বেড়েছে

image_54542_0রাজশাহী : রাজশাহীতে অস্থিতশীল হয়ে উঠেছে সবজিবাজার। হরতালের পর বাজারে পেঁয়াজের দাম আগের মতোই চড়া রয়েছে, যা সাধারণ ক্রেতাদের নাগালের বাইরে।





পাশাপাশি বেড়ে গেছে সব ধরনের শাকসবজির দাম। আর ব্রয়লার মুরগি ছাড়া সব ধরনের মাংস এবং ইলিশসহ অন্যান্য মাছের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। শুক্রবার নগরীর সাহেববাজারসহ কয়েকটি  কাঁচাবাজারে এ চিত্র দেখা গেছে।





সব ধরনের সবজির দাম বেড়ে যাওয়ার কারণ হিসেবে বিক্রেতারা বলছেন, কৃষকরা স্থানীয় বাজার ছাড়া বাইরের বাজারে সবজি রফতানি করায় দাম বেড়েছে।





বাজারে প্রতি কেজি দেশী পেঁয়াজ ৯০-১০০ টাকা আর ভারতীয় পেঁয়াজ ৮০-৯০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া প্রতি কেজি বেগুন পাঁচ টাকা বেড়ে ৪০ টাকা, ফুলকপি ছয় টাকা বেড়ে ৪০ টাকা, পটল দুই টাকা বেড়ে ১৮ টাকা ও আলু দুই টাকা বেড়ে ১৮ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। অন্যান্য শাকসবজির দাম দুই থেকে ছয় টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। প্রতি কেজি নতুন টমেটো বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকায়।





ইলিশসহ সব ধরনের মাছ মাংসের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। ব্রয়লার মুরগি ১১০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ৮০০ গ্রাম থেকে ৯০০ গ্রাম ওজনের একটি ইলিশ ছয়শ টাকা এবং এর চেয়ে ছোট আকারের ইলিশ চারশ থেকে পাঁচশ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।





গরুর মাংস প্রতি কেজি ২৬০-২৭০ টাকা আর খাসির মাংস চারশ থেকে চারশ ৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।





বাজারে বিভিন্ন জাতের চালের দাম প্রায় অপরিবর্তিত রয়েছে।