বাইবেল চার্চের যাজককে গলা কেটে হত্যার চেষ্টা

photo-1444043791_98883

ডেস্ক রিপোর্ট : পাবনা জেলার ঈশ্বরদীতে খৃষ্টান ধর্মাবলম্বী ফেইথ বাইবেল চার্চের যাজক লুক সরকারকে (৫২) তার ভাড়া বাসায় গলাকেটে হত্যার চেষ্টা করেছে দুর্বৃত্তরা।

সোমবার সকাল ৯টার দিকে উপজেলার ঈশ্বরদী বিমানবন্দর রোডে তার ভাড়া বাসায় ঢুকে হত্যার চেষ্টা করা হয়।
ঈশ্বরদী সার্কেলের এএসপি মোহাম্মদ আবু জাহেদ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, সোমবার সকাল ৯টার দিকে স্থানীয় ফেইথ বাইবেল চার্চের যাজক লুক সরকারের কে এই ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা তাকে গুরুতর অবস্থায় ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছেন। চিকিতসকরা জানান, তার গলায় কয়েকটি সেলাই দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে তিনি আশঙ্কামুক্ত।

লুক সরকারের স্ত্রী পদ্মা সরকার বলেন, তার স্বামী বাইবেল চার্চের যাজক (পালক) দায়িত্বে ছিলেন। পাশাপাশি তিনি হোমিও চিকিতসক হিসেবে বাসায় প্র্যাকটিস করছেন। প্রতিদিন সকালে তিনি বিভিন্ন ধর্মগ্রন্থ ওই কে পাঠ করতেন তিনি।
জানা গেছে, সোমবার সকালে একটি মোটরসাইকেলে করে (ঢাকা মেট্রো-ট ১১-৯০৫৪) তিন যুবক বাসায় এসে ধর্মগ্রন্থ পাঠ শোনার কথা বলে রুমে ঢুকে বসেন তারা। তিনি পাশের ঘরে গেলে ওই তিন যুবক ভেতর থেকে দরজা বন্ধ করে লুৎ সরকারের গলায় ছুরিকাঘাত করেন। তার চিতকার শুনে তাতণিক ভাবে স্বজনরা ছুটে আসলে অন্য দরজা দিয়ে ওই যুবকরা দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে সটকে পড়েন।

পুলিশ বাড়ীর কেয়ার টেকারের বরাত দিয়ে জানান, কেয়ারটেকার আজগর আলী জানিয়েছেন, ওই যুবকদের পেছনে ধাওয়া করে একজনকে জাপটে ধরলে অন্য দু’জন তাকে ছাড়িয়ে নিয়ে মোটরসাইকেল রেখে পালিয়ে যান।

এসপি সার্কেল মোহাম্মদ আবু জায়েদ জানান লুক সরকার সাতীরা জেলার তালা উপজেলার বানীকান্ত সরকারের ছেলে। তিনি দীর্ঘ ৫ বছর ধরে এই স্থানে ভাড়াটিয়া হিসেবে পরিবারসহ বসবাস করছেন। পাশাপাশি তিনি ধর্ম প্রচার করছিলেন। তবে কেন কি জন্য তাকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে, বিষয়টি পুলিশ খতিয়ে দেখছে।

ঈশ্বরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বিমান কুমার দাশ জানান, স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। ঘটনাস্থল থেকে মোটরসাইকেলটি জব্দ করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় ঈশ্বরদী থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানা তিনি।

অবরোধে ক্ষতিগ্রস্থ খামারীদের দুধ ঢেলে প্রতিবাদ

150118105331_dairy_farmers_in_bangladesh_640x360_bbc_nocreditডেস্ক রিপোর্টঃ পাবনার ভাঙ্গুরা উপজেলায় মিল্ক ভিটা সমবায় সমিতির কাছে দুধ বিক্রি করতে না পেরে ক্ষোভে তা মাটিতে ঢেলে দিয়েছেন একদল খামারী। পাবনার চলনবিল এলাকার তিনটি উপজেলায় বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি দুধ উৎপাদিত হয়। বছরের এই সময়টাকে দুধ উৎপাদন  বেড়ে যায় অনেকগুণ।স্থানীয় একজন সাংবাদিক মাহবুবুল আলম বিবিসিকে জানান, অবরোধের কারণে মিল্ক ভিটা, প্রাণ এবং ব্রাক-সহ বিভিন্ন দুগ্ধ বাজারজাতকারী প্রতিষ্ঠানের গাড়ী চলাচল করতে পারছে না। ফলে তারা খামারীদের কাছ থেকে আগের মত দুধও কিনতে পারছে না। ভাঙ্গুরায় মিল্ক ভিটার একটি কেন্দ্র আজ কয়েকজন খামারীর দুধ কিনতে অস্বীকৃতি জানানোর পর তারা দুধ মাটিতে ঢেলে দেন। ভাঙ্গুরার ঐ এলাকার একজন বড় খামারী আবুল কালাম আজাদ জানান, তারা দুধ উৎপাদন করেন ১৮ হাজার লিটার। কিন্তু এ মাসের ১৩ তারিখ থেকে মিল্ক ভিটা ১৪ হাজার লিটারের বেশি দুধ কেনা হবে না বলে কোটা বেঁধে দিয়েছে। “মিল্ক ভিটার কর্মকর্তারা বলছেন, হরতাল-অবরোধের কারণে আমাদের এখানে গাড়ি-ঘোড়া ঠিকমত আসছে না, আমরা দুধ একশ ভাগ কিনতে পারছি না। ফলে এই চার হাজার লিটার দুধ নিয়ে আমরা বিপদে পড়ছি। বাইরে বিভিন্ন জায়গায় নিয়ে বিক্রি করতে হচ্ছে।” আজ সকালের ঘটনা সম্পর্কে তিনি বলেন, মিল্ক ভিটার কর্মকর্তারা আজ কয়েকজন খামারীর দুধ কিনতে অস্বীকৃতি জানান এই বলে যে এসব দুধ টক হয়ে গেছে। তখন তিন-চারজন ক্ষুব্ধ খামারী তাদের দুধ মাটিতে ঢেলে দেন। তবে স্থানীয় সাংবাদিক মাহবুবুল আলম জানান, দুধ টক হওয়ার কথা বলে কিনতে অস্বীকৃতি জানালেও খামারীদের কয়েকজন সেই একই দুধ অন্য প্রতিষ্ঠানের কাছে নিয়ে বিক্রি করেছেন। খামারীরা তাকে জানিয়েছেন, তাদের দুধ যদি টক হতো, অন্যরা তাদের কাছ থেকে তা ক্রয় করতো না। মিল্ক ভিটার এই কেন্দ্রের কর্মকর্তা কামরুল ইসলাম জানিয়েছেন, যারা দুধ ঢেলে ফেলে দিয়েছেন, তাদের দুধ টক হয়ে গিয়েছিল বলেই তারা কিনতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। তবে তিনি স্বীকার করেন যে হরতাল-অবরোধের কারণে তারা ঠিকমত চাষীদের কাছ থেকে দুধ কিনতে পারছেন না, এবং তা নিয়মিত কারখানায় পাঠাতে পারছেন না। কামরুল ইসলাম বিবিসিকে বলেন, “এমনিতেই বছরের এই সময়টায় সেখানে দুধ উৎপাদন বহুগুন বেড়ে যায়। এর সঙ্গে মরার ওপর খাঁড়ার ঘা হয়ে এসেছে হরতাল-অবরোধ। ফলে চাষীরা এখন ভীষণ সংকটে পড়েছেন।” সুত্রঃ বিবিসি বাংলা

পাবনায় জেএসসি পরীক্ষার প্রশ্নপত্রসহ শিক্ষক গ্রেপ্তার

 jellপাবনা থেকে : পাবনায় জেএসসি পরীক্ষার ইংরেজি ২য় পত্রের প্রশ্নসহ এক শিক্ষক গ্রেপ্তার হয়েছেন।
বুধবার বিকালে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।
গ্রেপ্তারকৃত শিক্ষক  আলহেরা একাডেমির স্কুল শাখার ইংরেজি বিষয়ের শিক্ষক হাকিমুল কবীর।
বৃহস্পতিবার জেএসসির ইংরেজি ২য় পত্র পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।
বেড়া থনার ওসি জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, শিক্ষক হাকিমুল কবীর ইংরেজি বিষয়ের ফাঁস করা প্রশ্নপত্র শিক্ষার্থীদের দিচ্ছিলেন বলে অভিযোগ পাওয়ার পর তাকে আটক করা হয়। বেড়া উপজেলা পরিষদের ভূমি (এসি ল্যান্ড) অফিসে এনে জিজ্ঞাসাবাদকালে ঐ শিক্ষক জানান, ইন্টারনেট থেকে প্রশ্ন পেয়েছেন।
ওসি আরও জানান, তার কাছে প্রশ্নপত্র পেয়েছি, কিন্তু তিনি কোন ওয়েবসাইট থেকে প্রশ্ন পেয়েছেন তা জানা যায়নি। শেষ খবর পাওয়া পর্যšত্ম তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছিল।