পদ্মা সেতুর কনস্ট্রাকশন ট্রায়াল পাইল বসানো শুরু

padmaডেস্ক রিপোর্টঃ পদ্মা সেতুর কনস্ট্রাকশন ট্রায়াল পাইল স্থাপনের কাজ শুরু হচ্ছে আজ শুক্রবার। সকাল ১০টায় ৩ হাজাহার টন ওজন ক্ষমতার জার্মানীর হ্যামার ড্রাইভ করে এটি স্থাপন শুরু হবে। মাওয়া সাইডের নদীর ৭ নম্বর পিলারে বসছে এটি। এর আগে টেস্ট পাইল স্থাপন কাজ শুরু হলেও কনস্ট্রাকশন ট্রায়াল পাইল স্থাপন এই প্রথম। পদ্মা সেতুতে মোট দু’টি কনস্ট্রাকশন ট্রায়াল পাইল স্থাপন হবে।

আর টেস্ট পাইল স্থাপন হবে মোট ১০টি। এরইমধ্যে ৩টি টেস্ট পাইল স্থাপন হয়েগেছে। ১২০ মিটার দীর্ঘ এই পাইলটি মূল পাইলের মতই তিন মিটার ব্যাস রয়েছে। জার্মানী থেকে আসা সেই বিশাল হ্যামার এই প্রথম ব্যবহার করা হলো আজ।

পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী (মূল সেতু) দেওয়ান আব্দুল কাদের বলেছেন, পদ্মা সেতুর কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে। এই কনস্ট্রাকশন ট্রয়াল পাইল স্থানের মধ্য দিয়ে পদ্মা সেতুর কাজ আরেক ধাপ এগিয়ে যাবে। এরই মধ্য দিয়ে মূল পাইল স্থাপনের কাজ শুরু প্রক্রিয়াও এগিয়ে গেল। তিনি আশা প্রকাশ করেন আগামী অক্টোবরেই স্বপ্নের পদ্মা সেতুর মূল পাইল স্থাপনের কাজ শুরু হবে।

ইতোমধ্যেই মূল সেতুর ১৩ দশমিক ৫৫ শতাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। সবমিলিয়ে পদ্মা সেতুর কাজ সম্পন্ন হয়েছে প্রায় ২০ শতাংশ। ৪২টি পিলারের ওপর ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ দেশের সর্ববৃহৎ এই সেতুটি নির্মিত হবে। ১৫০ মিটার পর পর এই পিলার।

এছাড়া দেড় কিলোমিটার করে উভয়পারে তিন কিলোমিটার সংযোগ সেতুর জন্য আরও ২৪টি পিলার করা হবে। মূল সেতুর ৪০টি পিলারে ৬টি করে ২৪০ এবং দু’পারের ১২টিতে দু’টি করে ২৪টি অর্থ্যাৎ সর্বমোট ২৬৪টি পাইল করতে হবে। পদ্মা বহুমুখী এই সেতু হবে দ্বিতল। সেতু উপরের তলায় থাকবে চার লেনের মহাসড়ক। নিচে রেল লাইন। ট্রেনের গতিসীমা হবে ১৬০ কিলোমিটার। থাকবে গ্যাস ও বিদ্যুত সংযোগ।

দেশের দক্ষিণ পশ্চিম গ্যাস সরবরাহের জন্য থাকবে হাই প্রেসার গ্যাস পাইপ লাইন। পদ্মা সেতু নির্মাণের পর মঙ্গলা সমুদ্রবন্দরের ব্যবহার বাড়বে। পিছিয়ে পরা দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের শিল্পায়ন ও বিনিযোগ বাড়বে। বাড়বে জীনযাত্রার মান ও মাথাপিছু আয়। নানা প্রতিকূলতা মোকাবেলা করে নিজস্ব অর্থে সেই সেতুর দ্রুত গতির বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া দেখে তাই আনন্দে উদ্বেল এই অঞ্চলের মানুষ।

মুন্সিগঞ্জে শিশুদের রক্তে সিসা

5284f53d7f0b3-munsigonjমুন্সিগঞ্জ জেলার সিরাজদিখান উপজেলায় শিশুদের রক্তে সিসা পেয়েছেন ঢাকা কমিউনিটি হাসপাতাল ও যুক্তরাষ্ট্রের হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক। আজ বৃহস্পতিবার কমিউনিটি হাসপাতালে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ২০ থেকে ৪০ মাস বয়সী ২৮০ জন শিশুর রক্ত পরীক্ষা করে এই গবেষক দল। তাতে দেখা গেছে, ২২৭ জন শিশু অর্থাত্ ৮০ শতাংশ শিশুর শরীরে মাত্রাতিরিক্ত সিসা আছে।



কমিউনিটি হাসপাতাল ও হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের হার্ভার্ড স্কুল অব পাবলিক হেলথ ২০০০ সাল থেকে সিরাজদিখানে আর্সেনিক নিয়ে গবেষণা করছে। সেই গবেষণার ধারাবাহিকতায় ২০১১ সালে শিশুদের রক্ত পরীক্ষা করা হয়। সিসার বিষয়ে নিশ্চিত হওয়ার জন্য নমুনা যুক্তরাষ্ট্রে পরীক্ষা করা হয়। সিসার উপস্থিতির ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়ার জন্য গবেষণার ফলাফল জানাতে বিলম্ব হয়েছে বলে সংবাদ সম্মেলনে দাবি করা হয়। এর সঙ্গে বাংলাদেশের একটি কোম্পানির হলুদে সিসা পাওয়ার ঘটনার কোনো সম্পর্ক নেই।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ওয়েবসাইটে দেওয়া তথ্যে বলা হচ্ছে, কী মাত্রায় সিসার উপস্থিতি নিরাপদ, তা এখনো অজানা। গবেষক দল কোন মাপকাঠির ভিত্তিতে রক্তে বা হলুদে ‘মাত্রাতিরিক্ত’ সিসার উপস্থিতির কথা বলছে—সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের উত্তরে কমিউনিটি হাসপাতালের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক কাজী কামরুজ্জামান বলেন, খাদ্যে বা রক্তে সিসার উপস্থিতিই স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।

সংবাদ সম্মেলনের মূল উপস্থাপনায় হাসপাতালের পরিচালক (গবেষণা) গোলাম মোস্তফা বলেন, ২০১৩ সালে সিরাজদিখানের ১৮টি পরিবারের চাল, ডাল, হলুদের গুঁড়া, মরিচের গুঁড়া, মাটি, শিশুর ঘরের ধুলার নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে ১২টি পরিবারের হলুদের গুঁড়ায় মাত্রাতিরিক্ত সিসা পাওয়া গেছে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত হার্ভার্ড মেডিকেল স্কুলের স্নায়ুবিদ মৈত্রী মজুমদার বলেন, ‘শিশুদের রক্তে সিসার উপস্থিতিতে আমরা অবাক হয়েছিলাম।’ সিসার উপস্থিতি সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়ার জন্য শিশুদের আঙুল থেকে রক্ত নিয়ে তা যুক্তরাষ্ট্রে পরীক্ষা করা হয়। তিনি বলেন, সিসা শিশুর স্নায়ুবিক বিকাশ বাধাগ্রস্ত করে।

শিশুদের রক্তে বা হলুদের গুঁড়ায় সিসার উত্স কী, সে সম্পর্কে সংবাদ সম্মেলনে কিছু জানানো হয়নি। এ সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তরে কাজী কামরুজ্জামান বলেন, গবেষণা চলমান। খুব শিগগির এ বিষয়ে জানানো সম্ভব হবে। তিনি বলেন, নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করার দায়িত্ব সরকারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের। তাদের এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে।