বুয়েটের সব ভবনে তালা ঝোলানোর হুমকি শিক্ষার্থীদের

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ১০ দফা দাবি নিয়ে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম শুক্রবার বেলা ২টার মধ্যে তাদের সঙ্গে কথা না বললে প্রতিষ্ঠানের সব ভবনে তালা ঝুলিয়ে দেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়েছে।

আবরার ফাহাদকে হত্যায় জড়িতদের বিচার দাবিতে চতুর্থ দিনের মতো আন্দোলনে বসা শিক্ষার্থীরা বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এ হুমকি দেন।

সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় আবারও ১০ দফা দাবি এবং এগুলোর অগ্রগতির প্রসঙ্গ তুলে ধরেন তারা। এসময় তারা বলেন, যেসব দাবি জানানো হয়েছে সেগুলো নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আমাদের সঙ্গে কোনও কথা বলেনি।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বলেন, শুক্রবার বেলা ২টার মধ্যে দাবিগুলো নিয়ে উপাচার্য আমাদের সঙ্গে কথা না বললে আমরা সব ভবনে তালা ঝুলিয়ে দেব।

এর আগে অবস্থান নিয়ে বুয়েটে চতুর্থ দিনের মতো আন্দোলন শুরু করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। ক্লাস-পরীক্ষা ও একাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।

ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাসের জেরে আবরারকে রোববার রাতে ডেকে নিয়ে যান বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী। এরপর তাকে শেরে বাংলা হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে কয়েক ঘণ্টা ধরে পিটিয়ে হত্যা করা হয়।

আবরার হত্যার প্রতিবাদ ও বিচার চেয়ে শিক্ষার্থীরা গত মঙ্গলবার ৮ দফা দাবিতে আন্দোলন শুরু করেন। বুধবার তারা আরও দুই দফা দাবি বাড়িয়ে মোট ১০ দফা দাবি সংবলিত একটি স্মারকলিপি উপাচার্যের কার্যালয়ে দিয়ে আসেন।

শিক্ষার্থীদের ১০ দফা দাবির মধ্যে রয়েছে- খুনিদের শনাক্ত করে সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা, খুনিদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১১ অক্টোবরের মধ্যে আজীবন বহিষ্কার করা, আবরার হত্যা মামলার সব খরচ এবং ক্ষতিপূরণ বিশ্ববিদ্যালয়কে বহন করা, মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের অধীন স্বল্পতম সময়ে নিষ্পত্তি করা, অবিলম্বে চার্জশিটের কপিসহ অফিসিয়াল নোটিশ দেওয়া, বুয়েটে সাংগঠনিক ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ করা, ঘটনার পর ভিসি ঘটনাস্থলে উপস্থিত না হওয়া এবং ৩৮ ঘণ্টা পর গিয়ে কোনো প্রশ্নের উত্তর না দেওয়ার কারণ দুপুর ২টার মধ্যে (বুধবার) শিক্ষার্থীদের কাছে জানানো, আবাসিক হলগুলোতে র‌্যাগিংয়ের নামে এবং ভিন্নমত দমনে নির্যাতন বন্ধে প্রশাসনের সক্রিয় ভূমিকা নিশ্চিত করা, এ ধরনের ঘটনা প্রকাশে একটি কমন প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করা, নিরাপত্তার জন্য সব হলের উইংয়ের দুই পাশে সিসি ক্যামেরা বসানো এবং ১১ অক্টোবরের মধ্যে শেরেবাংলা হলের প্রভোস্টকে প্রত্যাহার করা।

ভিসির ঘটনাস্থলে উপস্থিত না হওয়া এবং ৩৮ ঘণ্টা পর গিয়ে কোনো প্রশ্নের উত্তর না দেওয়ার কারণ বুধবার দুপুরে শিক্ষার্থীদের কাছে জানানোর দাবিটি বৃহস্পতিবার শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে শুক্রবার দুপুর ২টার মধ্যে জানাতে বলা হয়।

 

 

১৫০ ছাড়িয়েছে কাঁচামরিচ, বাড়ছে সবজি-মাছ

ডেস্ক রিপোর্টঃ  সপ্তাহের ব্যবধানে বিভিন্ন সবজিতে দাম বেড়েছে ৫ থেকে ১৫ টাকা। সবচেয়ে বেশি বেড়েছে কাঁচমরিচের দাম। খুচরা বাজারে কেজিপ্রতি ১৫০ টাকা ছাড়িয়েছে সবুজ লঙ্কা। উজিয়েছে মাছের বাজারও।

শুক্রবার রাজধানীর মোহাম্মদপুর নতুন কাঁচাবাজার, টাউন হল বাজারসহ বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে এমন চিত্র।

দামের এই ঊর্ধ্বগতির সঙ্গে খুচরা ব্যবসায়ীদের কোনো সম্পর্ক নেই বলে দাবি বিভিন্ন বাজারের মাছ ও সবজি বিক্রেতাদের। তারা বলছেন, তারা যেমন কিনে আনেন তেমন বেচেন।

ঈদের পর পর অর্থাৎ দিন ১৫ আগেও কাঁচামরিচের দাম ছিল ৬০-৭০ টাকা। গত সপ্তাহে দ্বিগুণ বেড়ে ১২০-১৩০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে। আর এখন প্রতি কেজি কাঁচামরিচ খুচরা বিক্রি হচ্ছে ১৬০ থেকে ১৮০ টাকা। কোথাও কোথাও বিক্রি হচ্ছে ২০০ টাকা পর্যন্ত।

কৃষি মার্কেট কাঁচাবাজারের সবজি বিক্রেতা রিয়াজুল ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘দাম বাড়লে আমরা কী করুমু। পাইকারি ১৫০ টাকার ওপরে কেনা পড়ে। এ ছাড়া কাঁচামালে অনেক ঘাটতি যায়। কেজিতে ১০-২০ টাকা লাভ না করলে আমরা চলব কেমনে।’

একই বাজারের বিক্রেতা সবুজ বলেন, ‘আপনারা তো সব বাজার ঘোরেন। আমরা দাম বাড়াইলে শুধু এই বাজারে বাড়ত। সব বাজারে তো আমরা দাম বাড়াইতে পারি না। দাম গোড়া (পাইকারি) থেকে বাড়ায়। গোড়ায় দাম বাড়লে খুচরা বাজারে বাড়বই।’

দাম আরও বাড়বে না কমবে জানতে চাইলে সবুজ বলেন, ‘রাহিওয়ালারা (মজুদ ব্যবসায়ী) রাখি (মজুদ) করলে দাম বাড়বে। নাইলে কমবে।’

বছরের বিভিন্ন সময় একশ্রেণীর মজুদ ব্যবসায়ী বাজারের চাহিদার চেয়ে সরবরাহ কমিয়ে দেয় বলে জানান কয়েকজন খুচরা ব্যবসায়ী। তাদের (খুচরা ব্যবসায়ী) কিছু করার নেই। তখন বাজার এমনিতেই চড়ে যায়। এখন যে সবজি আর কাঁচামরিচের দাম চড়া, তা ওই সরবরাহে কমতির কারণেই হচ্ছে বলে জানান তারা।

বাজার ঘুরে দেখা যায়, কেজিতে ৫ থেকে ১০ টাকা বেড়েছে বেশির ভাগ সবজির দাম। কেজিতে ১০ টাকা বেড়ে টমেটো বিক্রি হচ্ছে ৯০-১০০ টাকায়। বেগুন বিক্রি হচ্ছে ৫০-৬০ টাকায়। করলা ৬০-৭০, শসা ৪০-৫০, ঢেঁড়স ৪০-৫০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। কদিন আগে ১৫-২০ টাকায় বিক্রি হওয়া  পেঁপে ৩০-৪০ টাকা। বরবটি ৬০-৭০ টাকা। প্রতি কেজি আলু বিক্রি হচ্ছে ২৮-৩০ টাকায়, যা গত সপ্তাহের চেয়ে ৩-৫ টাকা বেশি।

লাউশাক, লালশাক, পালংশাক, পুঁইশাক, ডাটাশাক আটিপ্রতি দাম বেড়েছে ২-৫ টাকা।

দাম বাড়ার প্রবণতা দেখা গেছে মাছের বাজারেও। ২০০-২৫০ টাকা কেজির রুই মাছ বিক্রি হচ্ছে ৪০০-৪৫০ টাকা কেজি দরে। একই দামে বিক্রি হচ্ছে কাতলা মাছ। ৭০০ থেকে ৮০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৫৫০-৬৫০ টাকায়।

তবে বিক্রেতাদের দাবি, মাছের দাম স্বাভাবিক আছে। মোহাম্মদপুর নতুন কাঁচাবাজারের মাছ বিক্রেতা মো. হারুন ঢাকাটাইমসকে বলেন, “মাছে মাছে পার্থক্য আছে। কম দামেও পাইবেন। পুরা তাজা মাছ দাম বেশি। ভালো মাছের দাম একটু বেশি হইলেও গায়ে লাগে না। মাছের দাম বাড়ে নাই। আগের মতোই আছে।’

বিক্রেতার এই দাবির সঙ্গে একমত নিন ক্রেতারা। কিন্তু নিরুপায় তারা। টাউন হলে বাজারে মাছ কিনতে এসেছিলেন জহিরুল ইসলাম। ঢাকাটাইমসকে তিনি বলেন, ‘এ দেশে দাম কমার নামগন্ধ শুনি না। শুধু বাড়েই। প্রতিদিন যেভাবে দাম বাড়ে, আমাদের আয় তো সেভাবে বাড়ে না। আমরা চলব কীভাবে।’

অন্যান্য মাছেও দেখা গেছে দামের ঊর্ধ্বগতি। তেলাপিয়া বিক্রি হচ্ছে ১৬০-২০০ টাকা কেজি দরে। চিংড়ি ৪৫০-৫৫০ টাকা, বোয়াল ৪০০-৪৫০, শিং ৪০০-৫০০, পুঁটি ১৬০-১৮০, মলা ৩০০-৩৫০, পাবদা ৪০০-৪৫০, দেশি মাগুর ৪০০-৫০০, পাঙ্গাস ১২০-১৫০, কৈ ২০০-২৫০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে আজ। …ঢাকাটাইমস

ঈদের বন্ধে সড়কে ঝরলো ৩৩৯ প্রাণ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ গেলো ঈদুল ফিতরের বন্ধে সারাদেশে ২৭৭টি সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত ৩৩৯ জন এবং আহত হয়েছেন এক হাজার ২৬৫ জন- জানিয়েছে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি।

জাতীয় ও আঞ্চলিক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর থেকে এই তথ্য জানা গেছে বলে উল্লেখ করেন সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক মোজাম্মেল হক চৌধুরী।

রাজধানীর ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটির মিলনায়তনে আজ (২৯ জুন) তিনি এক সংবাদ সম্মেলনে ‘ঈদ যাত্রায় সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিবেদন ২০১৮’ উপস্থাপন করেন।

তিনি জানান, শুধুমাত্র ২৩ জুন সড়ক দুর্ঘটনায় ৬২ জন মারা গিয়েছেন। তাদের মধ্যে গাইবান্ধায় মারা গিয়েছেন ১৮ জন। “সাম্প্রতিক সময়ে সড়ক দুর্ঘটনায় একদিনে এতো বেশি সংখ্যক মানুষের প্রাণ গিয়েছে,” যোগ করেন মোজাম্মেল।

এছাড়াও, গত ১১ জুন থেকে ২৩ জুন পর্যন্ত নদীপথে প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত ১৮ জন প্রাণ, নিখোঁজ রয়েছেন ৫৫ জন এবং আহত হয়েছেন নয়জন। একই সময়ে ট্রেন দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন ৪১ জন।

সড়কে লক্কড়ঝক্কড় গাড়ি; বেপরোয়া গাড়ি চালনা; মহাসড়কে তিনচাকার গাড়ি যেমন নসিমন, করিমন; রাস্তার খারাপ অবস্থা এবং নতুন ট্রিপ ধরার জন্যে চালকদের দ্রুত বাস চালানো- এসবকে দুর্ঘটনার মূল কারণ হিসেবে মনে করে সংগঠনটি।

সড়ক দুর্ঘটনা কমানোর জন্যে সংগঠনটির পক্ষ থেকে কয়েকটি সুপারিশ করা হয়। সেগুলোর মধ্যে রয়েছে সড়ক রক্ষায় নিয়মিত হিসাবপরীক্ষা, ফিটনেসবিহীন গাড়ি এবং মহাসড়কে তিনচাকার নসিমন, করিমন চলাচল বন্ধ করা।

সংবাদ সম্মেলনে মানবাধিকার কর্মী সুলতানা কামাল উপস্থিত ছিলেন।

২৫ টাকার ইনজেকশন ল্যাবএইডে ৬০ টাকা

ডেস্ক রিপোর্টঃ  রাজধানীর ধানমন্ডির ল্যাবএইড হাসপাতালের ফার্মেসিতে সোডিব ইনজেকশনের দাম প্রায় আড়াইগুণ বেশি। এ জন্য তাদের এক লাখ টাকা জরিমানা করেছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর।

অধিদফতর সূত্রে জানা যায়, সম্প্রতি ল্যাবএইড হাসপাতালে ভর্তি একজন মুমূর্ষু রোগীর জন্য জেসন ফার্মা লিমিটেডের সোডিব (২৫ মিলি) ইনজেকশনটি কেনার পরামর্শ দেন চিকিৎসক। ওই রোগীর স্বজন ল্যাবএইডের ফার্মেসিতে গেলে সোডিবের দাম ৬০ টাকা রাখা হয়। অথচ ইনজেকশনের গায়ে ২৫ টাকা লেখা ছিল। দাম বেশি রাখার কারণ জানতে চাইলে ওই স্বজনকে ফার্মেসির দায়িত্বরত কর্মী জানান- ওষুধের সরবরাহ নেই। তাই বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। মোড়কে যাই লেখা থাকুক দাম ৬০ টাকা নিলে নেন, না হলে অন্যকোথাও থেকে আনেন। এরপরই অধিদফতরে অভিযোগ করেন ওই রোগীর স্বজন।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে অধিদফতরের কার্যালয়ে অভিযোগকারী ভোক্তা ও ল্যাবএইড কর্তৃৃৃপক্ষের শুনানি হয়। এতে ল্যাবএইডের অনিয়ম প্রমাণিত হয়। তাই ভোক্তা অধিকার আইনের দুটি ধারায় সর্বোচ্চ অর্থদণ্ড অর্থাৎ এক লাখ টাকার জরিমানা করা হয়েছে ল্যাবএইডকে।

অধিদফতরের ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক শাহনাজ সুলতানা জাগো নিউজকে বলেন, সম্রাট নামের একজন ভুক্তভোগী ল্যাবএইডের বিরুদ্ধে ওষুধের দাম বেশি রাখার অভিযোগ করেন। বিষয়টি অধিদফতরে অভিযোগ শুনানিতে প্রমাণিত হওয়ায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর ৪০ ও ৪৫ ধারায় ৫০ হাজার টাকা করে মোট এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

আইনের ৪০ ধারায় বলা আছে, ‘কোনো ব্যক্তি কোনো আইন বা বিধির অধীন নির্ধারিত মূল্য অপেক্ষা অধিক মূল্যে কোনো পণ্য, ওষুধ বা সেবা বিক্রয় বা বিক্রয়ের প্রস্তাব করিলে তিনি অনূর্ধ্ব এক বৎসর কারাদণ্ড, বা অনধিক পঞ্চাশ হাজার টাকা অর্থদণ্ড, বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হইবেন।’

৪৫ ধারায় বলা হয়েছে, ‘কোনো ব্যক্তি প্রদত্ত মূল্যের বিনিময়ে প্রতিশ্রুত পণ্য বা সেবা যথাযথভাবে বিক্রয় বা সরবরাহ না করিলে তিনি অনূর্ধ্ব এক বৎসর কারাদণ্ড, বা অনধিক পঞ্চাশ হাজার টাকা অর্থদণ্ড, বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হইবেন।’

শাহনাজ সুলতানা আরও বলেন, ল্যাবএইড একটি স্বনামধন্য চিকিৎসা সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানটির ওপর মানুষের রয়েছে আস্থা ও বিশ্বাস। সেই সরলতাকে পুঁজি করে তারা সাধারণ মানুষকে ঠকাচ্ছে। ওষুধের মোড়কে ২৫ টাকার দাম লেখা থাকা সত্ত্বেও ক্রেতার কাছে তারা রাখছে ৬০ টাকা। প্রতিষ্ঠানটির দাবি ওষুধ সরবারহ কম থাকায় তারা বেশি দাম রেখেছে। কিন্তু তাদের কম্পিউটারে মূল্য নির্ধারণ ছিল ৬০ টাকা। অর্থাৎ তারা পরিকল্পিতভাবে ভোক্তার কাছ থেকে বেশি দাম নিচ্ছে।

দাম বেশি রাখার বিষয়ে জানতে চাইলে ল্যাবএইড হাসপাতালের কর্পোরেট কমিউনিকেশন বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট জেনারেল ম্যানেজার সাইফুর রহমান লেলিন জাগো নিউজকে বলেন, এটি একটি ভুল বোঝাবুঝি। বাজারে ওষুধটির সরবরাহ কম ছিল। আমাদের বেশি দামে কিনতে হয়। তাই ক্রেতার কাছ থেকে নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশি রাখা হয়।

রোগীদের কম দামে ওষুধ সরবরাহের জন্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো হাসপাতালে ৭ থেকে ১৬ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় দিয়ে থাকে। কিন্তু ল্যাবএইড রোগীদের কাছে ওষুধের দাম কম রাখার পরিবর্তে উল্টো ২০ শতাংশ বেশি নিচ্ছে। অনেক ভুক্তভোগী এমন অভিযোগ করেছেন জাগো নিউজের কাছে।

এ বিষয়ে সাইফুর রহমান লেলিন বলেন, ‘ল্যাবএইড নির্ধারিত মূল্যে ওষুধ বিক্রি করে। ওষুধের দাম ২০ শতাংশ বেশি নেয়ার অভিযোগটি ঠিক নয়।’

ল্যাবএইডের ফার্মেসির ম্যানেজার মিজানুর রহমান বলেন, ‘ভোক্তা অধিদফতর আমাদের ডেকেছিল। ওষুধের দাম বেশি রাখা হয়েছে এমন অভিযোগ করেন একজন ক্রেতা। শুনানিতে আমরা বলেছি, ওষুধটি বেশি দামে কেনা, তাই দাম বেশি নেয়া হয়। আইন অনুযায়ী এটি ঠিক না। এটি আমাদের ভুল হয়েছে। বিষয়টি আমরা স্বীকার করেছি। অধিদফতর ৪০ ধারায় আমাদের ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করে। পরে অধিদফতর থেকে আমাদের জানানো হয় জরিমানা এক লাখ টাকা।’

ল্যাবএইডের এমন অনিয়ম নতুন নয়। এর আগে ২০১৫ সালের ১২ জুন ওষুধ প্রশাসনের (ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন) অনুমতি ছাড়া দেশে বিভিন্ন ধরনের বিদেশি ওষুধ আমদানি ও বিক্রির অভিযোগে তাদের ১০ লাখ টাকা জরিমানা করেন র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। সে সময় ল্যাবএইডের ফার্মেসি থেকে ২৬ ধরনের প্রায় ৫ লাখ টাকার ওষুধ জব্দ করা হয়।

এ ছাড়া সর্বশেষ ২০১৭ সালের অক্টোবরে হাসপাতাল ভবনের মূল নকশা না মেনে কার পার্কিংয়ের জায়গায় স্টোররুমসহ অন্য কাজে ব্যবহার করায় ল্যাবএইড কার্ডিয়াক হাসপাতালকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা করেন রাজউকের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

মিরপুরের বৃহত্তর এলাকায় নেই গ্যাস

aaajডেস্ক রিপোর্টঃ রাজধানীর মিরপুর এলাকায় আজ শুক্রবার সকাল থেকে গ্যাস সংযোগ বন্ধ রাখা হয়েছে। এতে ভোগান্তি পোহাচ্ছেন সংশ্লিষ্ট এলাকার বাসিন্দারা। মেট্রোরেলের কাজের জন্য গ্যাস লাইন সংস্কারের অংশ হিসেবে গ্যাস বন্ধ রাখা হয়েছে বলে জানা গেছে।

মিরপুর-১ নম্বর এলাকার বাসিন্দা মিজানুর রহমান জানান, পূর্বঘোষণা ছাড়াই তাদের এলাকায় গ্যাস নেই। বৃহস্পতিবার রাতেও গ্যাস ছিল। কিন্তু শুক্রবার সকাল থেকে গ্যাস নেই।

মিরপুর-২ এর বাসিন্দা সৌরভ মাহাদী জানান, বুধবার তাদের এলাকায় মাইকিং করা হয় বৃহস্পতিবার গ্যাস থাকবে না। কিন্তু বৃহস্পতিবার সারাদিন ঠিকই গ্যাস ছিল। তবে শুক্রবার সকাল থেকে কোনো গ্যাস নেই।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিতাসের পরিচালক (অপারেশন) এইচ এম আলী আশরাফ গণমাধ্যমকে জানান, পাঁচটি এলাকায় সংস্কারকাজের জন্য গতকাল (বৃহস্পতিবার) রাতে গ্যাস বন্ধ করা হয়। রাতেই কাজ শেষ করার কথা ছিল।

মেট্রোরেলের কাজের জন্য লাইন সংস্কার করতে গিয়ে বারবার গ্যাস সংযোগ বন্ধ করতে হচ্ছে বলেও জানান তিতাসের এ কর্মকর্তা।

তিতাস গ্যাসের এমডিকে বদলি

titasনিজস্ব প্রতিবেদক: বিভিন্ন ধরনের দুর্নীতিসহ অনিয়মের অভিযোগে তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির এমডি (ভারপ্রাপ্ত) নওশাদ ইসলামকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে। রবিবার বিদ্যৃৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা মীর মো. আসলাম উদ্দিন এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি জানান, তিতাস গ্যাসের জিএম (ভিজিলেন্স) মীর মশিউর রহমানকে ভারপ্রাপ্ত এমডি হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। অপরদিকে নওশাদ ইসলামকে মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানির এমডি হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। পেট্রোবাংলা সূত্র এ তথ্য জানায়।

প্রসঙ্গত, গত ১৮ মার্চ গ্যাস বিস্ফোরণে বনানীর ওই বাড়িটি ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। গ্যাসের লাইনে ফুটো থাকা ও সেখান থেকে গ্যাস বের হওয়ার কথা তিতাস কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য ওই বাড়ির মালিক তিন দফা অভিযোগ জানান। কিন্তু তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। তা ছাড়া ওই গ্যাস বিস্ফোরণের জন্য ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষকে দায়ী করে।

 

এবার ঢাকায় সিএনজি অটোরিকশায় মিললো কোটি রুপি

Banglamail-imgডেস্ক রিপোর্টঃ চট্টগ্রামে সমুদ্রবন্দরে কন্টেইনারে নকল ভারতীয় রুপি উদ্ধারের পর এবার রাজধানীতে এক সিএনজি অটোরিকশায় মিললো এক কোটি রুপি।পুলিশের চেকপোস্টে গাড়ি তল্লাশির সময় এসব মুদ্রা উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় পুলিশ ভারতীয় মুদ্রা বহনকারী  এক যুবককে আটক করেছে।  মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে পল্লবীর কালশীর ২২ তলা গার্মেন্টেস ভবনের সামনে এ ঘটনা ঘটে। একটি চেকপোস্টে গাড়ি তল্লাশি করা হচ্ছিল। এ সময় একটি সিএনজি চালিত অটোরিকশার এক যাত্রীর লাগেজ তল্লাশি করার সময় সেখানে ভারতীয় রুপির উপস্থিতি টের পাওয়া যায়। লাগেজ থেকে এক কোটির বেশি পরিমাণ ভারতীয় মুদ্রা পাওয়া যায়। এসব জাল ‍বলেই ধারণা করা হচ্ছে। তবে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত (রাত ১টা) মুদ্রা গণনার কাজ চলছিল। আটক যুবককে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। পুলিশ আটককৃত ওই যুবকের নাম জানাতে অস্বীকার করেছে।

প্রসঙ্গত, গত রোববার সন্ধ্যায় বন্দরের ৮ নম্বর ইয়ার্ডে দুবাই থেকে আসা একই মালিকের চারটি কনটেইনারের মধ্যে একটি কনটেইনার জব্দ করে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ। কনটেইনারে ২ কোটি ৭১ লাখ ৭৬ হাজার ৫০০ ভারতীয় মুদ্রা পাওয়া যায়।…বাংলা মেইল। 


 

ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা সনদধারী এমডির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ

2015_08_29_21_08_16_vX5WMAbceRoERFtkpz4toCSUUmmbBI_originalনিজস্ব প্রতিবেদকঃ ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা সনদে সুবিধা নেয়ায় রাষ্ট্রায়াত্ত রূপালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এম ফরিদ উদ্দিনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

 মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব মো. রফিকুল ইসলাম স্বাক্ষরিত একটি চিঠিতে এ নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

 এতে বলা হয়েছে, রূপালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপণা পরিচালক এম ফরিদ উদ্দিনের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড-যশোর এর এসএসসি সনদে (নম্বর-৫৪৩৫৪) জন্ম তারিখ ৮ জুলাই ১৯৫২ ইং। সনদ অনুযায়ী তার বর্তমান বয়স ৬৩ বছর।

 দ্য পাবলিক সার্ভেন্টস (রিটায়ার্ড) (সংশোধিত) অ্যাক্ট ২০১০ এর  ৪এ ধারা মোতাবেক এবং তার জন্মতারিখ অনুযায়ী বয়স বৃদ্ধির সুবিধা প্রাপ্তির বৈধতা নেই।

 প্রসঙ্গত, রূপালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম ফরিদ উদ্দিনের মুক্তিযোদ্ধা সনদের বৈধ্যতা নিয়ে অনেক দিন ধরেই আলোচনা চলছে। তিনি মুক্তিযোদ্ধা কোটায় বর্তমানে চাকরির সুবিধা নিচ্ছেন।

 এছাড়া ২০০২ সালে ঋণ জালিয়াতির মাধ্যমে অর্থ আত্মসাৎ ও তা বিদেশে পাচারের অভিযোগে মেসার্স ওয়েস্টমন্ট পাওয়ার (বাংলাদেশ) লিমিটেডের চেয়ারম্যান কাজী তাজুল ইসলাম ফারুক ও তৎকালীন জনতা ব্যাংকের লোকাল অফিসের জিএম (বর্তমান এমডি রূপালী ব্যাংক) এমডি এম ফরিদ উদ্দিনের বিরুদ্ধে দুদকে মামলা চলমান রয়েছে। 

জেলখানা থেকে ব্লগারদের হত্যার পরিকল্পনা

1439908403নিজস্ব প্রতিবেদকঃ জেলখানা থেকে ব্লগারদের হত্যার পরিকল্পনা করা হয়। বর্তমানে কাশিমপুর কারাগারে থাকা আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সংগঠক জসীমউদ্দিন রাহমানি ব্লগারদের হত্যার পরিকল্পনার কথা জানতেন।

তিনি ওই পরিকল্পনার কথা নিজের ছোট ভাই আবুল বাশারের মাধ্যমে সংগঠনের অপর সদস্যদের জানাতেন। র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) হেডকোয়ার্টার্সে মঙ্গলবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে লিগ্যাল এ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার মুফতি মাহমুদ খান এ সব তথ্য জানান।

প্রসঙ্গত, সোমবার রাতে রাজধানীর ধানমণ্ডি ও নীলক্ষেত এলাকা থেকে অভিজিৎ রায় ও অনন্ত বিজয় হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে তিনজনকে আটক করা হয়। পরে তাদের গ্রেফতার দেখানো হয়।

আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের অনলাইন কার্যক্রমের দায়িত্বে থাকা সক্রিয় সদস্য সাদেক আলী মিঠুকে (২৮) নীলক্ষেত এলাকা থেকে র‌্যাব-৩ আটক করে। তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ব্লগার হত্যাকাণ্ডের মূল পরিকল্পনাকারী আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের অর্থ সরবরাহকারী তৌহিদুর রহমান (৫৮) ও মো. আমিনুল মল্লিককে (৩৫) ধানমণ্ডি এলাকার স্টার কাবাবের পাশের গলি থেকে আটক করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে মুফতি মাহমুদ খান বলেন, ‘ব্লগার হত্যাকাণ্ডে রমজান, সিয়াম, নাঈম, জুলহাস বিশ্বাস, জাফরান আল হাসান ও সাদেক নামে কয়েকজন অংশ নিলেও শুধু সাদেক র‌্যাবের কাছে গ্রেফতার হয়েছে। বাকিরা এখনো পলাতক। হত্যাকাণ্ডের তিন ঘণ্টা আগে খুনীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মুহসীন হলের মাঠে একত্রিত হয়। অভিজিৎ রায় ও অনন্ত বিজয় হত্যাকাণ্ডে আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের ৪-৫ জন সক্রিয় সদস্য সরাসরি অংশগ্রহণ করে। তাদের মধ্যে গ্রেফতার হয়েছে সাদেক। এ ছাড়া পলাতক রমজান ও নাঈম অভিজিৎ ও অনন্ত হত্যাকাণ্ডে সরাসরি অংশ নেয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘তৌহিদুর যুক্তরাজ্য প্রবাসী ও একজন আইটি বিশেষজ্ঞ। নব্বইয়ের দশকে তৌহিদুর যুক্তরাজ্যে যান এবং আইটি বিষয়ে বিশেষ পারদর্শী হয়ে ওঠেন। পরবর্তী সময়ে জসীমউদ্দিন রাহমানির (আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সংগঠক) মতাদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে এ সংগঠনের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন। রাহমানির অনুপস্থিতিতে সংগঠনের সার্বিক আর্থিক ও অন্যান্য কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিলেন তিনি।’

গ্রেফতারদের জিজ্ঞাসাবাদের তথ্য উল্লেখ করে কমান্ডার মুফতি মাহমুদ বলেন, ‘অভিজিৎ ও অনন্ত বিজয়ের সকল কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ এবং তাদের গতিবিধির ওপর নজর রাখতেন তৌহিদুর। সাদেকের সঙ্গে রাহমানির পরিচয় হয় ২০০৭ সালে। এর পর থেকে সেও এ সংগঠনের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ে এবং ২০১২ সাল পর্যন্ত রাহমানির স্বাস্থ্য উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করে। সাদেক ২০১১ সাল থেকে আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সক্রিয় সদস্য হওয়ার পর কাশিমপুর কারাগারে গিয়ে সংগঠনের বিভিন্ন কার্যক্রমের দিকনির্দেশনা নিয়ে আসত।’

মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক আরও বলেন, ‘আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের যে সকল সদস্য আত্মগোপনে ও পালিয়ে দেশের বাইরে যেতে চায় তাদের বিভিন্ন নামে পাসপোর্ট তৈরি করে দিত আমিনুল। রাহমানি জেলে থাকার সময়ে সাদেক ও তার আপন ছোট ভাই আবুল বাশার বিভিন্ন হত্যাকাণ্ডের দিকনির্দেশনা দিত। দিকনির্দেশনা মোতাবেক পরবর্তী সময়ে তৌহিদুর হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনা করত।’

অভিজিৎ হত্যা:

২৬ ফেব্রুয়ারি রাতে ব্লগার ও লেখক অভিজিৎ রায়কে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। রাত সোয়া ৯টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকায় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের পাশে দুর্বৃত্তরা অভিজিৎ রায় ও তার স্ত্রী নাফিজা আহমেদকে কুপিয়ে জখম করে। আহত অবস্থায় তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে রাত সাড়ে ১০টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান অভিজিৎ।

অভিজিৎ ও তার স্ত্রী দু’জনই আমেরিকা প্রবাসী। তিনি মুক্তমনা ব্লগের প্রতিষ্ঠাতা ও লেখক। তার লেখা ৯টির বেশি বই রয়েছে। অভিজিৎ বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অজয় রায়ের ছেলে।

অনন্তবিজয় হত্যা:

১২ মে সিলেট নগরের সুবিদবাজার এলাকায় অনন্ত বিজয় দাশ নামের লেখক ও ব্লগারকে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

সকালে সুবিদবাজার এলাকায় তার বাসা থেকে বের হওয়ার পর দুর্বৃত্তরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে অনন্তকে গুরুতর জখম করে। ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান।

অনন্ত মুক্তমনা লেখক ও ব্লগার ছিলেন। বিভিন্ন সময় তিনি বস্তুবাদ ও যুক্তিবাদ নিয়ে ব্লগে লিখতেন। এ নিয়ে তার কয়েকটি বই রয়েছে। গত ফেব্রুয়ারিতে দুর্বৃত্তদের হামলায় নিহত বিজ্ঞানমনস্ক লেখক অভিজিতের একটি বইয়ের ভূমিকা লিখেছিলেন অনন্ত। এ ছাড়া ‘যুক্তি’ নামের একটি পত্রিকা সম্পাদনাও করতেন তিনি।

‘প্রধানমন্ত্রীর এপিএস বলছি…..’

noyanনিজস্ব প্রতিবেদকঃ ‘আমি প্রধানমন্ত্রীর এপিএস সাইফুজ্জামান শেখর বলছি। আজ পাবনায় আসছি। সদর রোডে একটি প্রটোকল গাড়ি রাখবেন। বাসার কাছেও যেন গাড়ি থাকে।’ পাবনা জেলা পুলিশকে ফোন দিয়ে এভাবেই প্রটোকল নিতেন প্রতারণার অভিযোগে গ্রেফতার শহিদুল ইসলাম নয়ন। ঢাকায় বিভিন্ন থানায় ওসিদের ফোন দিয়েও নিতেন প্রটোকল। যানজটে পড়লে এপিএস পরিচয়ে রাস্তা ফাঁকা করা বা পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করলে তাকে ছেড়ে দিতে নির্দেশ দিতেন তিনি। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে তদবিরও করতেন নিয়মিত। এজন্য এপিএস সাইফুজ্জামান শেখরের ‘ব্যবহৃত মোবাইল নম্বর’ ব্যবহার করতেন। নিজেদের মোবাইল ফোনে রিসিভ কলে প্রধানমন্ত্রীর এপিএসের নাম ভেসে ওঠায় কর্মকর্তারাও শুনতেন তার কথা।

রোববার দুপুরে রাজধানীর শেরেবাংলা নগর থেকে ডিবি পুলিশের হাতে প্রধানমন্ত্রীর এপিএস পরিচয় দেওয়া এই প্রতারক গ্রেফতার হলে বেরিয়ে আসে নতুন এ প্রতারণার রহস্য।

শহিদুল ইসলাম নয়ন জানান, তিনি পাবনা জেলা সৈনিক লীগের সভাপতি। প্রধানমন্ত্রীর এপিএস সাইফুজ্জামান শেখরসহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির মোবাইল নম্বর রয়েছে তার কাছে। তিনি এপিএস শেখরের গ্রামীণফোনের নম্বরটির আদলে অন্য একটি অপারেটর থেকে সিম তোলেন। ওই মোবাইল নম্বরে কোম্পানির কোডের একটি ডিজিট ছাড়া অপর ১০টি ডিজিটই প্রধানমন্ত্রীর এপিএসের মোবাইল নম্বরের ডিজিটের মতো। ফলে প্রধানমন্ত্রীর এপিএসের ফোন নম্বর সেভ করা রয়েছে এমন কর্মকর্তাদের কল দিলে তাদের মোবাইল ফোনে এপিএস শেখরের নাম ভেসে উঠত। এতে বিভিন্ন অফিসের কর্মকর্তারা দ্রুত তার কাজ করে দিতেন।

ভুয়া এপিএস নয়নকে গ্রেফতার অভিযানের নেতৃত্ব দেওয়া ডিবি পুলিশের এডিসি আবদুল আহাদ সমকালকে বলেন, ‘মোবাইল ফোনে এটি একেবারেই নতুন প্রতারণা। এই প্রতারক পুলিশ কর্মকর্তাদের ফোন দিয়ে নিয়মিত প্রটোকল নিতেন। তবে তিনি কখনও গাড়ি থেকে নামতেন না। শুধু ওসিদের ফোন দিয়ে বলতেন তার গাড়িটি ফলো করার জন্য। আসামি ছাড়াতেও তদবির করতেন। ফোনে কাকতালীয়ভাবে প্রধানমন্ত্রীর এপিএসের নম্বরটি ভেসে ওঠায় বিভিন্ন অফিসের কর্মকর্তারাও তার কথায় কাজ করতেন।’

ডিবি পুলিশের এ কর্মকর্তা বলেন, ‘প্রতারক নয়নের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর এপিএস পরিচয় দিয়ে চাকরি দেওয়ার নামে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। এসব বিষয় তদন্ত করা হচ্ছে।’