রাজনের কায়দায় ‘হত্যা’: ৫০ হাজার টাকায় সমঝোতা!

rajon1ডেস্ক রিপোর্টঃ সিলেটের শিশু রাজনকে যেভাবে বেঁধে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছিল ঠিক সেই কায়দায় লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে লক্ষ্মীপুরের শিশু রমজান আলীকেও (১২) মারাত্মক জখম করা হয়েছিল। পরে ৮ দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। কিন্তু শিশু শ্রমিককে দোকান মালিক নির্যাতন চালিয়ে ‘হত্যা’ করার পরও এখনো কোনো মামলা হয়নি। বরং মাত্র ৫০ হাজার টাকায় সমঝোতা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। তবে, সমঝোতার ওই টাকা এখনো পাননি ভুক্তভোগী পরিবার। এদিকে, থানায় এখনো কোনো মামলা হয়নি। ফলে পুলিশও কাউকে গ্রেপ্তার করেনি। শিশুর লাশ ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ দাফন করা হয়েছে। নিহতের মা শুক্কুরী বেগম বৃহস্পতিবার দুপুরে সাংবাদিকদের বলেন, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শিশু রমজান ডাক্তারদের কাছে জানিয়েছিল তার পিঠের মেরুদণ্ডে লোহার রড দিয়ে দু’টি আঘাত করে দোকান মালিক আলী হোসেন। এতে তার ৬ ও ৭ নাম্বার হাঁড় ভেঙে যায় বলে চিকিৎসকরা জানান। এখন টাকা চাইতে গেলে ছেলে হারানোর (ময়না তদন্তে লাশ কাটা-ছেঁড়া) ভয়ে পুলিশের কাছে সন্তানের না দাবি দিয়ে লাশ দাফন করে ফেলেছি। অন্যদিকে, বাবা তাজুল ইসলাম জানান, স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর মো. শিপন ৫০ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার আশ্বাসের প্রেক্ষিতে থানায় মামলা করা হয়নি। তবে এখনো কোনো টাকা পাননি বলে জানান তিনি। এদিকে, এ ব্যাপারে লক্ষ্মীপুর পৌর কাউন্সিলর শিপনের বক্তব্য জানতে খোঁজ করে তাকে পাওয়া যায়নি। তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি বন্ধ রয়েছে। এ ব্যাপারে লক্ষ্মীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. গিয়াস উদ্দিন মিয়া বাংলামেইলকে জানান, ঘটনার তদন্ত চলছে। পরিবারের কেউ মামলা না করলেও পুলিশের পক্ষ থেকে মামলা করা হবে। উল্লেখ্য, গত ১০ আগস্ট মঙ্গলবার স্থানীয় বাগবাড়ীর প্রাণ কোম্পানির পরিবেশক এবং সৌদিয়া ট্রেডাসের মালিক আলী হোসেনের দোকানে কাজ করছিলেন রমজান। এ সময় রমজানের মাথায় দুইটি দুধের কার্টন তুলে দেয় দোকান মালিক। ভার সইতে না পারায় ঘাঢ় মুচড়ে গিয়ে কার্টন গুলো পড়ে গিয়ে গুরুত্বর আহত হন রমজান। একই সময়ে মালামালের ক্ষতি হয়েছে অভিযোগ এনে আহত রমজানকে দোকান মালিক লোহার রড দিয়ে পেটায় বলে অভিযোগ করেন নিহতের পরিবার। পরে ৮দিন পর মঙ্গলবার (১৮ আগস্ট সন্ধ্যায়) ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় শিশু রমজান। বুধবার বিকালে পারিবারিক কবরস্থানে নিহতের দাফন সম্পন্ন হয়। নিহত রমজান বাঞ্চানগর গ্রামের তাজুল ইসলামের ছেলে। সুত্রঃ বাংলামেইল ২৪ 

গৃহপরিচারিকাকে দু’দিন বাথরুমে আটকে রেখে খুন্তির ছ্যাকা

Noakhali-Chowmohoni-SISU-NREJATON-Photo-20-Aug-1ডেস্ক রিপোর্টঃ নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার চৌমুহনী পৌরসভায় সাইফুল ইসলাম নামের এক বিদ্যুৎ কর্মকর্তা ও তার স্ত্রীরির বিরুদ্ধে বিবি আমেনা (১৪) নামের গৃহপরিচারিকা (কাজের মেয়ে)’কে আটক রেখে তার উপর নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার পর থেকে ওই দম্পতি পলাতক রয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকালে আহত অবস্থায় তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তাকে ভর্তি করা হয়। নির্যাতনের শিকার বিবি আমেনা ভোলা জেলার দৌলতখানের মাঝিরঘাট এলাকার বকসি বাড়ীর আলমগীর হোসেনের মেয়ে।

অভিযুক্ত দম্পতিরা হচ্ছেন- পল্লী বিদ্যুৎ’এর নোয়াখালী প্রধান কার্যালয়ের হিসাবরক্ষক সাইফুল ইসলাম ও তার স্ত্রী ঠেঙামারা এনজিও (টিএমএসএস)এর নোয়াখালী কার্যালয়ের কম্পিউটার অপারেটর বেগম নিকোনাদ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আহত বিবি আমেনা জানায়, পরিবারে অভাব থাকায় গত ১বছর আগে চৌমুহনী-ফেনী সড়কের চৌমুহনী পৌরসভার উত্তর হাজীপুর এনটি ভবনের তৃতীয় তলার ৩০৩ নম্বর কক্ষে বিদ্যুৎ কর্মকর্তা সাইফুল ইসলামের বাসায় কাজ করতে আসে সে। বাসার কাজের পাশাপাশি ওই দম্পতি চাকরিজীবি হওয়ায় তাদের শিশু বাচ্চাকে দেখা শুনা করতো সে।

ঘটনার শুরুঃ-


গত ১৬ আগস্ট রোববার সাইফুল ইসলামের স্ত্রী এনজিও কর্মকর্তা নিকোনাদের ৪হাজার টাকা মূল্যের একটি নুপুর হারিয়ে যায়। পরে এ বিষয়টি নিয়ে আমেনাকে সন্দেহ করেন তিনি। একই দিন তার শিশু বাচ্চাকে অতিরিক্ত ঔষধ খাইয়ে ঘুমি রেখেছে অভিযোগ এনে ওই দম্পতি আমেনাকে পিটিয়ে বাথরুমের মধ্যে আটক করে রাখে। পানি প্রাণ করে ওই বাথরুমে দুই দিন বন্ধি থাকে আমেনা। মঙ্গলবার আমেনাকে বাথরুম থেকে বের করে ওড়না দিয়ে হাত এবং পা বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় রুটি তৈরির কাজে ব্যবহৃত খুন্তি আগুনে গরম করে আমেনার শরীরের বিভিন্ন অংশে ছ্যাকা এবং গরম পানি করে আমেনার সারা শরিরে ঢেলে দেয় ওই দম্পতি। এতে আমেনার শরীরের বিভিন্ন অংশ জলসে গিয়ে ক্ষতের সৃষ্টি হয়। ওইদিন রাতে আমেন কৌশলে তাদের ঘর থেকে পালিয়ে গিয়ে পাশ্ববর্তী বাসার ছাদে গিয়ে অবস্থান নেই। বুধবার দিবাগত রাতে ওই দম্পতি বাসা থেকে বের হয়ে গেলে আমেনা পালিয়ে পাশ্ববর্তী একটি বাড়ীতে গিয়ে আশ্রয় নেই।

পরে আমেনা সব ঘটনা তাদের জানালে আশ্রয়দাতা ওই বাড়ীর লোকজন বিষয়টি বেগমগঞ্জ থানা পুলিশকে জানালে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

এদিকে ঘটনার পর থেকে বিদ্যুৎ কর্মকর্তা সাইফুল ও স্ত্রী এনজি কর্মকর্তা দু’জন পারিবারিক কারণে ২০ আগস্ট বুধবার থেকে কয়েকদিন অফিসে আসতে পারবেনা বলে স্ব-স্ব অফিসে জানিয়ে পলাতক রয়েছেন।

বেগমগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. অসিম কুমার দাস জানান, মেয়েটির পিঠ, তলপেটে ও বুকে রুটি তৈরী করার উত্তপ্ত খন্তির ছ্যাকা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত এবং ক্ষতের চিহৃ রয়েছে।

বেগমগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) শওকত হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, খবর পেয়ে আমরা আহত অবস্থায় শিশুটিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেছি। ভিকটিমের বাবা ভোলা থেকে আসতেছে। এ বিষয়ে পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এবিষয়ে কথা বলতে অভিযুক্ত পল্লী বিদ্যুৎ নোয়াখালী প্রধান কার্যালয়ের হিসাবরক্ষক সাইফুল ইসলামের ব্যবহৃত মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তার মুঠোফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

চাটখিলে ট্রাকে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ

news_imgনিজস্ব প্রতিবেদকঃ চাটখিল উপজেলার হালিমা দিঘী এলাকায় ট্রাকে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করেছে দুবৃর্ত্তরা। এসময় ট্রাকচালক ও হেলপার অগ্নিদগ্ধ হয়েছে।

শুক্রবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে পি.জি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে এ ঘটনা ঘটে। আহতরা হলো খাগড়াছড়ি জেলার রামগড় উপজেলার মাস্টারপাড়া গ্রামের শহীদুল ইসলামের ছেলে নূর নবী (২৭) ও একই উপজেলার নাকাশা গ্রামের কলিম উল্যার ছেলে রাসেদ (২৩)।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রাতে উপজেলার রামগঞ্জ-চাটখিল সড়ক দিয়ে একটি কলা বোঝাই ট্রাক লক্ষ্মীপুর জেলার রামগঞ্জ থেকে চট্টগ্রামের দিকে যাচ্ছিল। ট্রাকটি চাটখিল পৌরসভার হালিমা দিঘী এলাকার পি.জি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে পৌঁছলে দুর্বৃত্তরা গাড়িটিকে লক্ষ্য করে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে। ওই সময় সঙ্গে সঙ্গে গাড়িতে আগুন ধরে যায়। গাড়িতে থাকা চালক নবী ও হেলপার রাসেদ অগ্নিদগ্ধ হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাদের উদ্ধার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে।

চাটখিল থানার ওসি নাছিম উদ্দিন পেট্রল বোমায় ট্রাকের চালক ও হেলপার অগ্নিদগ্ধের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের গাড়িতে পেট্রোল বোমা

news_img (3)ডেস্ক রিপোর্টঃ নোয়াখালী শহরের মাইজদীতে সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের পার্সেল বহনকারী একটি কাভার্ড ভ্যানে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করেছে দুর্বৃত্তরা। বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে মাইজদীর প্রধান সড়কে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও কাভার্ড ভ্যানের চালক জানায়, বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে মাইজদীর প্রধান সড়কে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়ার জন্য গাড়িটি অবস্থান করছিল। এ সময় একটি মোটরসাইকেলে করে ৩ মুখোশধারী যুবক এসে গাড়িটি কোথায় যাবে তা জানতে চায়। একপর্যায়ে তারা হঠাৎ করে ঢিল ছুড়লে কাভার্ড ভ্যানের সামনের কাঁচ ভেঙে যায়। তারা কাভার্ডভ্যান লক্ষ্য করে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করেই পালিয়ে যায়। এতে গাড়ির সামনের কিছু অংশ পুড়ে যায়। স্থানীয়রা দ্রুত এগিয়ে এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। পরে খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ ঘটনাস্থলে পুরো পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

নোয়াখালীর পুলিশ সুপার (এসপি) ইলিয়াছ শরীফ বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, পেট্রোল বোমা নিক্ষেপকারী দুর্বৃত্তদের ধরতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে।

র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে ২ ডাকাত নিহত

ডেস্ক রিপোর্ট : নোয়াখালী কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে ২ ডাকাত নিহত হয়েছেন। শনিবার  ভোর সাড়ে চারটার দিকে উপজেলার চরএলাহী ইউনিয়নের উত্তর উড়িরচরে এ ঘটনা ঘটে।নিহতরা হলেন- জাবেদ (২৮) ও সুমন (২৫)। র‌্যাবের দাবি, জাসু বাহিনীর সেকেন্ড ইন কমান্ড জাবেদ। আর সুমন তার  দেহরক্ষী ছিলেন।র‌্যাব-১১-এর মেজর মো. শাহেদ হোসেনের দাবি, জলদস্যু দমনে গত কয়েকদিন ধরে বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চলছিল। অভিযানের একপর্যায়ে ভোর সাড়ে চারটার দিকে উত্তর উড়িরচর এলাকায় র‌্যাব সদস্যদের লক্ষ্য করে জলডাকাতরা গুলি ছোড়ে। র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়।পরে জলডাকাতরা পিছু হটলে ঘটনাস্থল থেকে দুটি মৃতদেহ উদ্ধার করে র‌্যাব। ঘটনাস্থল থেকে বেশকিছু অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানান তিনি।কোম্পানিগঞ্জ থানার উপপরিদশক জাহাঙ্গির আলম এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার পশ্চিম উড়িরচরে র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে শাহাদাত হোসেন (৩৮) নামের একজন নিহত হন। 

নোয়াখালীতে আ. লীগ নেতা অপহরণ

ডেস্ক রিপোর্ট : নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলার নোয়াখলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের এক নেতাকে অপহরণ করেছে মুখোশধারী দুর্বৃত্তরা। আবু হানিফ রিপন (৩৫) নামে ওই আওয়ামী লীগ নেতা ইউনিয়নের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি সদস্য। নোয়াখলা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ইব্রাহিম খলিল সোহাগ জানান, পরিষদের ৪ নম্বর সিংবাহুড়া ওয়ার্ডের সদস্য আবু হানিফ রিপন প্রতিদিনের মতো সোমবার সন্ধ্যার পর থেকে বাড়ির পাশে নিজস্ব কার্যালয়ে বসা ছিলেন। পৌনে ১০টার দিকে মোটরসাইকেলযোগে অজ্ঞাত দুই যুবক কার্যালয়ের সামনে এসে রিপনকে বাইরে ডেকে নেয়। এক পর্যায়ে তারা অস্ত্রের মুখে রিপনকে মোটরসাইকেলে তুলে বাজারের দণি দিকে নিয়ে যায়। চাটখিল থানার ওসি ইব্রাহিম খলিল জানান, অপহরণকারীদের পরিচয় এবং অপহরণের কারণ এখনো নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ। ঘটনার পর থেকে বিভিন্ন স্থানে উদ্ধার অভিযান অব্যাহত রাখা হয়েছে। অপহৃত আবু হানিফ রিপন সিংবাহুড়া গ্রামের পাটোয়ারী বাড়ির মৃত আলী আহম্মদের ছেলে।

পুলিশ-১৮ দল সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ ২০

image_64713_0নোয়াখালী: তফসিল বাতিল ও নির্দলীয় সরকারের দাবিতে নোয়াখালীতে পুলিশের সঙ্গে ১৮ দল নেতাকর্মীর মধ্যে ধাওয়া- পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষে অন্তত ২০ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।
শনিবার সকাল ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।
সকালে জেলা শহর মাইজদী, দত্তের হাট, সোনাপুর ও মাইজদী জহিরুল হক হাজির গেরেজ থেকে ১৮ দলের নেতাকর্মীরা প্রধান সড়কে গাছের গুঁড়ি ফেলে অবরোধ করে রাখে। এই সময় পুলিশ ঘটনাস্থলে এলে অবরোধকারীদের সঙ্গে সংঘর্ষ বাধে। এ সময় পুলিশ ৫০ রাউন্ড টিয়ারশেল, শতাধিক রাউন্ড শর্টগানের গুলি ছুড়লে এ ঘটনা ঘটে।
আহতদের মধ্যে শফিক, হাসান, মনা, দুলাল, শাহজাহানসহ অন্যদের স্থানীয় বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়।

প্রেমিক সেজে তরুনীকে অপহরণ

akbor-pic_26047_0নোয়াখালী সােনাইমুড়ী উপজলোর আমশিাপাড়া নানার বাড়ী থকেে বড়পাড়া গ্রামে আসার পথে রফকি নামে এক প্রমেকি তার প্রমেকিাকে জাের র্পূবক অপহরণ করে নয়িে যায়।
অপহরণরে ৯ দনি পরওে তরুনী উদ্ধার হয়ন।ি এদকিে বখাটে যুবক রফকি মুক্তপণ হসিাবে তরুনীর পতিা গােলজার হােসনে এর নকিট ২ লক্ষ টাকা মােবাইলে মুক্তপিণ দাবী করছ।ে  এঘটনায় তরুনীর পতিা সােনাইমুড়ী থানায় একটি জডিি করছেে এবং একই ভাবে র‌্যাব-৭ চট্রগ্রামে উদ্ধার বষিয়ে দরখাস্ত দাখলি করছেনে।

অপহরনকারী যুবক  রফকি। সে ফকছিড়ি থানার র্ধমপুর বকশি হাজী বাড়ীর আবদুর রহমানরে ছলে।ে র্বতমানে সে ০১৮৩৯২৪০৮৭৩ ও ০১৮৪৬৪৫৮৯৭৪ দুটি নাম্বারে মুক্তপিণ দাবী ও হুমকি দয়িে আসছে বলে ময়েরে পতিা জানান।

সােনাইমুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত র্কমর্কতা আবদুস সামাদ জানান, আমি ঘটনাটি শুনছেি । থানায় জডিি করা হয়ছে।ে তবে মামলা করলে আইনগত ব্যবস্থা নওেয়া হব।ে