ঘর ভাড়ার টাকা দিতে ত্রাণ বিক্রি করছে অনেক রোহিঙ্গা

ডেস্ক রিপোর্টঃ  ত্রাণ বিক্রির টাকায় ঘর ভাড়া দিতে হচ্ছে কক্সবাজারের টেকনাফে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের। মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সহায়-সম্বল ফেলে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা এজন্য সরকারি-বেসরকারিভাবে পাওয়া ত্রাণ খোলা বাজারে কম দামে বিক্রি করে দিচ্ছে।

শনিবার (৩০ জুন)  সকাল থেকে বিকাল চারটা পর্যন্ত চারটি রোহিঙ্গা শিবির ঘুরে এমন চিত্র পাওয়া গেছে।

উল্লেখ্য, রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সহিংস নির্যাতনের পর গত বছরের ২৫ আগস্ট থেকে প্রায় সাত লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আসে। বর্তমানে তারা উখিয়া ও টেকনাফের ৩০টির মতো শরণার্থী শিবিরে মানবেতর জীবন যাপন করছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, টেকনাফের জাদিমুড়া পাহাড়ের ওপরে গড়ে উঠেছে একটি অস্থায়ী রোহিঙ্গা শিবির। সেখানে চার হাজার রোহিঙ্গার জন্য ১১৫টি ঝুপড়ি ঘর রয়েছে। প্রতিটি ঘরের মাসিক ভাড়া ৫০০ টাকা। স্থানীয় বাসিন্দা মো. ছব্বির, মো. ইলিয়াছ, সাইফুল ইসলাম ও নূর মোহাম্মদ নামের চার ব্যক্তি নিজেদেরকে ওই জমির মালিক দাবি করে ঘরের ভাড়া আদায় করছেন। এর মধ্যে মো. ছব্বিরের ৩০ ঘর, মো. ইলিয়াছের ২০, সাইফুল ইসলামের ২৫ ও নূর মোহাম্মদ ৪০টি ঘরের ভাড়া আদায় করছেন।

টেকনাফের লেদার তুলা বাগান এলাকায় আড়াই একর জমিতে রয়েছে রোহিঙ্গাদের আরেকটি শিবির।  সেখানে পাঁচ হাজার রোহিঙ্গার জন্য ১৪২টি ঝুপড়ি ঘর রয়েছে এখানে। এই জমির মালিক দাবিদার দিল মোহাম্ম নামে এক ব্যক্তি প্রতিটি ঘর থেকে মাসে ৫০০ টাকা করে ভাড়া তুলছেন। এছাড়া, আশেপাশে এলাকায় গড়ে ওঠা আরও  প্রায় সাত হাজার রোহিঙ্গা পরিবারকে ঘর ভাড়ার টাকা যোগাতে  হয়। তারা মূলত ত্রাণ বিক্রি করেই ঘর ভাড়ার টাকা ভাড়া পরিশোধ করেন। তবে এই ৫০০ টাকা যোগাতেই  হিমশিম খাচ্ছে রোহিঙ্গা পরিবারগুলো।

জানতে চাইলে টেকনাফের তুলা বাগান জায়গার মালিক দাবিদার দিল মোহাম্মদ বলেন, ‘এই জায়গাটি আমার বাব-দাদার আমলের। এখানে ধানচাষ করে আমাদের পুরো পরিবারের সংসার চলতো।  মানবিক কারণে সেখানে এখন রোহিঙ্গাদের থাকতে দেওয়া হয়েছে।’ তাহলে টাকা নিচ্ছেন কেন,  এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘অনেক দিন তাদের কাছ থেকে কোনও টাকা নেইনি। কী করবো, আমাদেরও তো বাচঁতে হবে। তাই তারা যা দিচ্ছে, তা নিচ্ছি। ’

টেকনাফের লেদা রাস্তার পূর্বে লবনের মাঠে ছোট্ট একটি ঝুপড়ি ঘর তুলে মানবেতর জীবনযাপন করছেন রোহিঙ্গা নাগরিক মো. একরাম। তিনি বলেন, ‘কম খেয়ে বেচেঁ থাকা যায়, কিন্তু ঘর ছাড়া কি সহজে বেঁচে থাকা যায়? ওপারে (রাখাইনে) সেগুন গাছের তিন তলা বাড়িতে সুখের সংসার ছিল, আর এপারে কাদাঁমাটিতেও সংসারের সুযোগ সহজে মিলছে না। যে জায়গায় ধানের চাষ হতো, সেখানে ছোট্ট একটি তাঁবুর নিচে প্রথমে ঠাঁই হয়েছিল। তবে ভাড়া দিতে না পারায় বেশি দিন সেখানে থাকা হয়নি। ত্রাণ বিক্রি করে মাসে ৫০০ টাকার বিনিময়ে এখানে আশ্রয় নিয়েছি।’

তিনি আরও  বলেন, ‘মিয়ানমার সেনাদের হাত থেকে জীবন বাঁচাতে নাফ নদী পেরিয়ে সাত মাস আগে  বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছি। সঙ্গে ছিল পরিবারের আট সদস্য।’ একরাম জানান, মিয়ানমারের পেরাংপুল গ্রামে তার বাড়ি । সেখানে তার তিন তলা কাঠের বাড়ির একেক তলায় পাঁচটি করে কক্ষ ছিল। নিজস্ব জেনারেটর দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন করতেন ।

একরাম জানালেন, লবনের মাঠে যে জায়গাটিতে পরিবার নিয়ে এখন আছেন, মো. ইলিয়াছ নামে স্থানীয় এক ব্যক্তি ওই জায়গার মালিক বলে দাবি করেন। কিছু দিন যেতে না যেতে ঘরভাড়ার টাকা দাবি করেন ইলিয়াছ। টাকা দিতে না পারলে ঘর ছেড়ে দেওয়ার হুঁশিয়ারি দেন। তখন থেকে সরকারি-বেসরকারিভাবে পাওয়া ত্রাণ বিক্রি করে ভাড়ার টাকা শোধ করছেন তিনি। ‘কম খেয়ে হলেও ঘর ভাড়ার টাকা দিতে হচ্ছে। না হলে কই থাকবো।’,— বললেন এক সময়ের স্বচ্ছল গৃহস্ত বর্তমানে নিঃস্ব এক শরাণার্থী মো. একরাম।  টেকনাফ লামার বাজারে ত্রাণ বিক্রি করছিলেন রহিম উল্লাহ ও রহিমা বেগম নামে দুই রোহিঙ্গা। রহিম উল্লাহ বলেন, ‘বিভিন্ন এনজিও  থেকে পাওয়া কিছু ত্রাণ বাজারে বিক্রি করছি। কেননা, মাস শেষে ঘরভাড়া দিতে হবে। তাই সকাল থেকে এখানে বসে ত্রাণ বিক্রি করে কিছু টাকা উপার্জন করছি। ’

হ্নীলা ইউনিয়নের ইউপি সদস্য মোহাম্মদ আলী বলেন, ‘রোহিঙ্গারা ঘরভাড়া দিতে স্থানীয় দোকানে কম দামে ত্রাণ বিক্রি করে দিচ্ছে। বিশেষ করে ঘর ভাড়ার নগদ টাকার জন্য তারা ত্রাণ বিক্রি করছে।’

সাত হাজারের বেশি রোহিঙ্গা পরিবার রয়েছে। তাদের সবারই ঘরভাড়া পরিশোধ করতে হয়। এই টাকার জন্য তাদের ত্রাণ বিক্রি করতে হচ্ছে।’

টেকনাফ বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা সাজ্জাদ হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘সরকারি জমিতে যেসব রোহিঙ্গা শিবির গড়ে উঠেছে, সেখানে রোহিঙ্গারা বিনা ভাড়ায় থাকছে। এসব শিবির থেকে কারও ভাড়া নেওয়ার কোনও সুযোগ নেই। তারপরও জমির মালিকানা দাবি করে রোহিঙ্গাদের কাছ থেকে ঘরভাড়া তোলার বিষয়টি খতিয়ে দেখে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ’ – সূত্রঃ বাংলা ট্রিবিউন।

গাড়ির হেলপার নুরুল এখন শতকোটি টাকার মালিক

ডেস্ক রিপোর্টঃ  নুরুল হুদা। একদা ছিলেন গাড়ির হেলপার। লোকজন ডাকত নুরা বলে। অপর পাঁচ ভাইয়ের মধ্যে ছোট দুজনকে নিয়ে নাফ নদীতে জাল ফেলতেন তাদের বাবা। তিনজন পরের জমিতে

লবণ শ্রমিকের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করতেন। কিন্তু যাদের জমিতে কামলা দিতেন, কয়েক বছরের মাথায় ইয়াবা ব্যবসার বদৌলতে সেই জমিই কিনে নেন নুরুল হুদা। মহাসড়কের ধারে গড়ে তোলেন দৃষ্টিনন্দন বাড়ি। তার পর একেক ভাইয়ের জন্য বানান একেকটি প্রাসাদ। ওঠাবসা করেন এমপি, উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের সঙ্গে। পরে ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার পদে নির্বাচন করেন। দলীয় মার্কা না থাকলেও অর্থ আর ক্ষমতাসীনদের সমর্থনে ব্যালট বাক্স ভর্তি করে বনে যান নেতা। টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়ন পরিষদ ৮ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার হন নুরুল হুদা।

স্থানীয় এবং বিভিন্ন সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, এককালের সেই হেলপার নুরা আজ শতকোটি টাকার মালিক। হ্নীলার টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কের পাশেই তাদের ছয় ভাইয়ের নামে ৬টি নান্দনিক বাড়ি নির্মাণ করা হয়। বর্তমানে তাদের বাড়ির সংখ্যা ১৪। টেকনাফের হোছ্যারখালের উত্তর পাশে, হ্নীলা আলীখালী, লেদাবাজার এলাকায় হুদার নিজেরই তিনটি বাড়ি। নিজে বসবাস করেন পুরান লেদায়। ফ্ল্যাট আছে চট্টগ্রামে। তবে হ্নীলার দমদমিয়া বিজিবি চেকপোস্টঘেঁষে সবচেয়ে ব্যয়বহুল পাঁচতলা বাড়ি নির্মাণ করেন ছোট ভাই নূর মোহাম্মদ। ২০১৪ সালে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন নূর মোহাম্মদ।

গতকাল সরেজমিন গিয়ে কাজ চলতে দেখা যায় নূর মোহাম্মদের বাড়িতে। এ ছাড়া হ্নীলা লেদায় শত একর জমি কিনে নিয়েছে এই ইয়াবা ব্যবসায়ীরা। পুলিশের খাতায় মোস্ট ওয়ান্টেড নুরুল হুদা। তবে আসামি থাকা অবস্থায়ই ২ কোটি টাকা ব্যয় এবং ক্ষমতার জোরে মেম্বার নির্বাচিত হন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, হ্নীলার জাদিমুড়া থেকে খারাংখালী এলাকা পর্যন্ত নাফ নদীর দুই পাশে ইয়াবার সাম্রাজ্য গড়ে তোলেন নুরুল হুদা। জাদিমোড়া, নয়াপাড়া, মোচনী, লেদা, রঙ্গীখালী, নাটমোড়া পাড়া, হ্নীলা সদর, ওয়াব্রাং ও খারাংখালী পয়েন্ট হয়ে প্রতিদিন মিয়ানমার থেকে তার নামে ইয়াবার চালান আসত। সন্ধ্যার পর এসব খোলা বিলে লোকজনের উপস্থিতি না থাকায় ইয়াবা চোরাচালানের একটি অন্যতম রুটে পরিণত হয়। তার কর্মতৎপরতায় তুষ্ট হন স্থানীয় জননেতা আবদুর রহমান বদি। ফলে বদির ঘনিষ্ঠজন হয়ে ওঠেন নুরুল হুদা। বদির আশীর্বাদে নুরুল হুদার ছেলে নুরুল আলম ফাহিম হ্নীলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি বনে যান। অবশ্য গত ৩১ মে ফাহিম গ্রেপ্তার হন।

২০১৪ সালে ভাই নিহত হওয়ার সময় গ্রেপ্তার হন নুরুল হুদাও। ছাড়া পেয়ে আবার জড়িয়ে পড়েন আগের ব্যবসায়। নয়াপাড়া রেজিস্টার্ড ও লেদার নন-রেজিস্টার্ড রোহিঙ্গা ক্যাম্পের নারী, শিশুদের ব্যবহার করে ইয়াবার চালান নিয়ন্ত্রণ করেন। এ ছাড়া পাহাড়ি পান-সুপারির গাড়ি, লবণের কাভার্ডভ্যান, শুঁটকি ও কাঁচামাছের গাড়ি এবং পুরনো পরিবহন বন্ধুদের দিয়ে রমরমা ব্যবসা চালিয়ে আসছেন।

পুলিশ জানায়, নুরুল হুদা হ্নীলা উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র সরওয়ার কামাল হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি। তিনি ও তার সব ভাই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নতুন-পুরনো সবকটি তালিকাভুক্ত ইয়াবা পাচারকারী। নির্বাচনে প্রতিপক্ষ মেম্বারপ্রার্থী মোহাম্মদ আলীর মা ছবুরা খাতুনের ওপর হামলা করেন। ইয়াবাসহ এসব ঘটনায় তার বিরুদ্ধে ১১টি মামলা রয়েছে। ২০১৬ সালের ১১ মার্চ থানা পুলিশ তার লেদার বাড়িতে গিয়ে গ্রেপ্তার করে। হাতকড়া পরিয়ে তাকে বাড়ি থেকে বের করার সময় হঠাৎ পুলিশের ওপর ইটপাটকেল, লাঠিসোটা, রড ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা চালিয়ে ছিনিয়ে নেওয়া হয়। ২০১৪ সালে আত্মগোপনে থেকে মেম্বার নির্বাচিত হলেও শপথ নিতে পারেননি। পরে ২০১৬ সালে কোটি টাকা ব্যয়ে প্রশাসনকে ম্যানেজ করে রাতের আঁধারে শপথ গ্রহণের চেষ্টা করেন। অবশ্য এক সরকারি কর্মকর্তা বিপুল পরিমাণ অর্থ নিয়ে শপথ পড়ার ব্যবস্থা করান।

পুলিশ জানায়, এরা পারিবারিকভাবে ইয়াবা ব্যবসায়ী। দ্বিতীয় ভাই শামসুল হুদা যাবজ্জীবন সাজা ভোগ করছেন। নুরুল কবির, সরওয়ারসহ অন্য ভাইরাও ফেরার। তবে নুরুল হুদার সঙ্গে স্থানীয় নেতাকর্মীর যোগাযোগ থাকলেও মোবাইলে আড়িপাতার যুগে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তাকে খুঁজে পাচ্ছে না।

টেকনাফ থানার ওসি রনজিত বড়–য়া বলেন, নুরুল হুদাসহ তার সব ভাইয়ের বিরুদ্ধে থানায় মামলা আছে। সে গ্রেপ্তার এড়াতে অনেক আগে থেকেই ফেরার। আমরা তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছি। সূত্রঃ আমাদের সময়।

চকোরিয়ায় ২ মণ স্বর্ণালঙ্কার উদ্ধার

ডেস্ক রিপোর্ট : কক্সবাজার জেলার চকোরিয়া থেকে ৪ বস্তায় প্রায় ২ মণ স্বর্ণালঙ্কার উদ্ধার করেছে বিজিবি।সোমবার ভোরে এ ঘটনা ঘটেছে।এ ঘটনায় স্বর্ণব্যবসায়ী নন্দন মহাজনসহ তার দুই ছেলেকে আটক করেছে বিজিবি। আটককৃতরা চকোরিয়ার শহরের বাসিন্দা।জানা গেছে, অবৈধ পথে স্বর্ণের একটি বড় চালান স্বর্ণব্যবসায়ী নন্দন মহাজনের বাসায় আসছে খবর পেয়ে বিজিবি সদস্যরা চকোরিয়ার শহরে ওই ব্যবসায়ীর বাসায় অভিযান চালায়। এ সময় ওই ব্যবসায়ীর বাসা থেকে ৪ বস্তায় প্রায় ২ মণ স্বর্ণালঙ্কার উদ্ধার করা হয়।কক্সবাজার বিজিবি-১৭ অধিনায়ক খালেকুজ্জামান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

বজ্রপাতে ৪ লবণচাষী নিহত

ডেস্ক রিপোর্ট : কক্সবাজার পেকুয়া ও মহেশখালী উপজেলায় পৃথক বজ্রপাতে চার লবণচাষীর মৃত্যু হয়েছে। এ সময় আহত হয়েছেন আরও পাঁচজন।শুক্রবার সকাল ১১টায় পেকুয়ায় ও দুপুর ১টার দিকে মহেশখালীতে এসব মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।বজ্রপাতে মৃতরা হলেন- পেকুয়ার উজানটিয়াতে জামাল হোসেন (৩৫) ও ফরিদুল আলম (২৮) এবং মহেশখালীর ধলঘাটায় আমির হোসেন (২৪) ও মো. সুমন (২৮)।আহতদের চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। তবে তারা আশঙ্কামুক্ত।হেশখালীর ধলঘাটার ইউপি চেয়ারম্যান আহছান উল্লাহ বাচ্চু ও পেকুয়ার রাজাখালীর ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

১৬ জেলায় ডাকা পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার

mohakhali-bus-stand-220110706091553বিএনপি নেতা শিমুল বিশ্বাসের মুক্তির আশ্বাসে রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের ১৬ জেলায় ডাকা পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হয়েছে। সকালে সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন এই ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নেয়।
 
বুধবার রাতে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে নৌপরিবহন মন্ত্রীর বৈঠকে শিমুল বিশ্বাসের মুক্তির আম্বাস পেয়ে এই ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হয়। এর আগে রংপুর বিভাগের দেড় শতাধিক রুটে আজ বৃহস্পতিবার ভোর ৬টা থেকে পরিবহন ধর্মঘট শুরু হয়।
 
এদিকে রাজশাহী বিভাগের ৮ জেলায় বুধবার সন্ধ্যা থেকে চলা পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হয়েছে। ১৮ দলের ডাকা টানা ৮৪ ঘন্টার হরতালের পর পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দেয়ায় যাত্রীরা পড়ে চরম দূর্ভোগে।